alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

আওয়ামী লীগ নেতা টিপু ও কলেজছাত্রী প্রীতি হত্যা

‘মোল্লা শামিমকে পেলেই তদন্ত ক্লোজ করবে পুলিশ’

সাইফ বাবলু : বুধবার, ০৩ আগস্ট ২০২২

যুবলীগ নেতা মিল্কী হত্যার পর মতিঝিল ও শাহজাহানপুর এলাকা নিয়ন্ত্রণ চলে যায় আওয়ামী লীগের একটি গ্রুপের কাছে। কিন্তু ধীরে ধীরে ওই নিয়ন্ত্রণ নিজের কব্জায় নিয়ে আসে জাহিদুল ইসলাম টিপু। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে মিল্কী হত্যায় যে কালিমা লেগেছিল টিপুর গায়ে সেই কালিমা মোচনের জন্য এমপি নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিতে থাকেন। টিপু অনেকটা এগিয়ে যাওয়ায় মিল্কীবিরোধী গ্রুপ টিপুর এ অগ্রযাত্রাকে নিজেদের জন্য বিপজ্জনক মনে করেন। ফলে টিপুকে না সরাতে পারলে হারানো সাম্রাজ্য যেমন ফিরে পাবেন না তেমনি অস্তিত্ব সংকটেও পড়বেন তারা। এ কারণে টিপুকে হত্যা করা হয়। আর এ হত্যাকান্ডের পরিকল্পনায় ঘি দেন আগামী নির্বাচনে মতিঝিল-রমনা থানা নিয়ে গঠিত ঢাকা ৮ আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী আওয়ামী লীগের একটি অংশ। টিপু হত্যায় গ্রেপ্তার সোহেল শাহরিয়া ওরফে সুন্দরী সোহেল এবং মারুফ রেজার কাছ থেকে এমন তথ্য মিলেছে।

এদিকে টিপু হত্যায় যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের অপরাধ প্রমাণে মোল্লা শামীমকে গ্রেপ্তার জরুরি মনে করছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি। পাশাপাশি হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র এবং মোটরসাইকেল উদ্ধার না হওয়ায় মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে ডিবির এক কর্মকর্তা। এখন পর্যন্ত তারা ২২ জনকে গ্রেপ্তার করে।

ডিবির এক কর্মকর্তা বলেন, টিপু হত্যায় রোববার (৩১ জুলাই) রাতে সোহেল শাহরিয়ার ওরফে শটগান সোহেল এবং মারুফ রেজা সাগর নামে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা রিমান্ড হেফাজতে আছে। এর আগে গ্রেপ্তার হন জাতীয় পার্টির নেতা জুবের আলম খান রবিন, আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবুর রহমান টিটু, আরিফুর রহমান সোহেল এবং খায়রুল নামের ৪ জন। তাদের রিমান্ড হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

ডিবির ওই কর্মকর্তা বলেন, টিপু হত্যায় গ্রেপ্তার সুমন শিকদার ওরফে মুসা রিমান্ড হেফাজতে ১৬ থেকে ১৭ জনের নাম বলেছিল। এর মধ্যে কয়েকজন আগেই গ্রেপ্তার হয়েছে। যাদের এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মুসার দেয়া তথ্যেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মুসা আদালতে যে জবানবন্দি দিয়েছে সেখানেও তাদের নাম রয়েছে। অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার ওই কর্মকর্তা বলেন, এখন তারা মোল্লা শামিমকে খুঁজছেন। মোল্লা শামিমকে গ্রেপ্তার করতে পারলে হত্যাকান্ডের মোটিভ কারা, কীভাবে পরিকল্পনায় ছিল, অস্ত্র কোথা থেকে এসেছে, ব্যবহৃত অস্ত্র ও মোটরসাইকেল কোথায় আছে তা বের হবে। ‘ডিবি চেষ্টা করেও এখন পর্যন্ত হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করতে পারেনি। আরও কয়েকজনের নাম রয়েছে এ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়ে, তাদের ধরতে অভিযান চলছে। সবকিছু মিলিয়ে তদন্ত শেষ পর্যায়ে রয়েছে। ডিবির কর্মকর্তাদের ভাষ্য, মুসার দেয়া স্বীকারোক্তিতে যে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা প্রত্যেকেই হত্যাকান্ডে নানাভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে।’

ডিবির ভাষ্য, রিমান্ড হেফাজতে সুন্দরী সোহেল ও মারুফ রেজার তথ্য অনুযায়ী, মতিঝিল এলাকায় জাহিদুল ইসলাম টিপুর একক আধিপত্য বিস্তারকে আগামী দিনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনেকের পথের কাঁটা হতে পারেন বলে মনে করছিলেন টিপুকে। স্বেচ্ছাসেবক লীগ কানাডা শাখার সাধারণ সম্পদক সোহেল শাহরিয়ার ওরফে সুন্দরী সোহেল মতিঝিল এলাকায় নির্বাচনে অংশ নিতে চেয়েছিলেন। সুন্দরী সোহেলের সঙ্গে আরও দুইজন আওয়ামী লীগ নেতা নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী। এর আগে মতিঝিলে ক্যাসিনোর চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রক গ্রুপের তোপের মুখে সুন্দরী সোহেল ২০১৬ সালে কানাডায় পাড়ি জমান। সেখানে তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগ কানাডা শাখার সাধারণ সম্পাদক পদ পান। ২০১৯ সালে ক্যাসিনোতে অভিযান চালানোর পর সুন্দরী সোহেল দেশে ফিরেন। মতিঝিল এলাকার রাজনৈতিক ও আন্ডারওয়ার্ল্ডে একক আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করেন। মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ তিনি প্রত্যাশা করেন। এ নিয়ে টিপুর সঙ্গে সোহেলের দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। অন্য দুই মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যেও এ নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়।

জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল শাহারিয়ার ওরফে সুন্দরী সোহেল জানান, তিনি ছিলেন মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল হক খান মিল্কী গ্রুপের। ২০১৩ সালে মিল্কী হত্যার পর তিনি (সুন্দরী সোহেল) টিপুর গ্রুপের কাছে কোণঠাসা হয়ে পড়েন। তার ওপর শাহাজানপুরে ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি কাউছার আলী হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত ১ নম্বর আসামি ছিলেন সে। ২০০৮ সালের ৪ মার্চ শাহজাহানপুরে দিনে-দুপুরে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় ৩৪নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কাউছার আলীকে। তোপের মুখে ২০১৬ সালে তিনি (সুন্দরী সোহেল) পাড়ি জমান কানাডায়। সেখানে তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগ কানাডা শাখার সাধারণ সম্পাদক পদ পান। ২০১৯ সালে ক্যাসিনোতে অভিযানে পর সোহেল দেশে ফিরেন। মতিঝিল এলাকার রাজনৈতিক ও আন্ডারওয়ার্ল্ডে একক আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করেন। মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ প্রত্যাশা করেন তিনি। এ নিয়ে টিপুর সঙ্গে সোহেলের দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। এর পাশাপাশি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী অন্য দুই আওয়ামী লীগ নেতার গ্রুপও সুন্দরী সোহেলের সঙ্গে যোগ দেয়।

সুন্দরী সোহেলের ‘বড় ভাই’ ১০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক। ২০১৬ সালে মতিঝিল এজিবি কলোনিতে রিজভী হাসান ওরফে বোঁচা বাবু হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি র‌্যাবের গ্রেপ্তার হওয়া ওমর ফারুক, আবু সালেহ শিকদার ও নাসির উদ্দিন। ওমর ফারুকও মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদপ্রত্যাশী। ওদিকে কারাগারে বন্দী ক্যাসিনোবাজ ল্যাংড়া খালেদও টিপুর ওপর ক্ষিপ্ত। সব মিলিয়ে সবারই ‘পথের কাঁটা’ হলেন টিপু। টিপুকে সরিয়ে দিতে পারলে মতিঝিলের আন্ডারওয়ার্ল্ডের বিশাল সম্রাজ্য নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আসবে।

টিপুকে সরিয়ে দেয়ার সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করে কিলার মুসা। মুসা শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সহযোগী বলে পরিচিত। আন্ডারওয়ার্ল্ডের কাছে মুসা একটি ভয়ঙ্কর নাম। টেন্ডারবাজির কোটি কোটি টাকার কমিশন যেকোন গ্রুপকে নিয়ে দিতে মুসা কাজ করে। এজন্য প্রতিপক্ষকে খুনের পরিকল্পনা নেয় মুসা। হত্যার বদলা হত্যা। প্রতিশোধ নিতে ‘গ্যাং মার্ডার’। ‘কাট আউট’ পদ্ধতিতে পরিকল্পনা। টার্গেট নির্ধারণ করে দেয়। সুবিধাজনক পরিস্থিতিতে খুন করতে হবে। এ জন্য মতিঝিলের আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণকারী শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সঙ্গে যোগাযোগ হয়। শুটার গ্রুপ ঠিক করা হয়। কোটি টাকায় খুনের চুক্তি হলেও প্রথম দফায় শুটার গ্রুপের কাছে ১৫ লাখ টাকা পৌঁছে যায়। এক গ্রুপ গুলি ও আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ করে নির্দিষ্ট স্থানে রেখে আসে। অতঃপর কাট আউট পদ্ধতিতে শুটার গ্রুপ রেকি করে। এরপর নির্দিষ্ট সময়ে একাধিক শুটার গ্রুপ খুনের ছক বাস্তবায়ন করে। বাস্তবায়নের ১২ দিন আগেই গত ১২ মার্চ মুসা দুবাই পালিয়ে যায়। সেখানে শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সঙ্গে বসে পরিকল্পনা নেয় খুনের। এর পাশাপাশি ক্যাসিনোকান্ডে গ্রেপ্তার ল্যাংড়া খালেদের সঙ্গেও শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের যোগাযোগ হয়েছিল।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) এক কর্মকর্তা জানান, গত ২৪ মার্চ রাত ১০টার দিকে শাহজাহানপুরের আমতলা এলাকায় অস্ত্রধারীর গুলিতে নিহত হন গাড়িতে থাকা মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপু। এলোপাতাড়ি গুলিতে নিহত হন প্রীতি নামে এক শিক্ষার্থী। এ ঘটনার পর শুটার মাসুম মোহাম্মদ ওরফে আকাশকে গ্রেপ্তার করে ডিবি। তার দেয়া তথ্য থেকে ডিবি আবৃত্তিকার আহকাম উল্লাহ’র ছোট ভাই যুবলীগ নেতা এরফান উল্লাহ দামালকে গ্রেপ্তার করে। খুনের এক সপ্তাহ পর র‌্যাব এ ঘটনায় মতিঝিলের ১০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক (৫২), সুমন সিকদার মুসার ছোট ভাই আবু সালেহ শিকদার ওরফে শুটার সালেহ (৩৮), নাছির উদ্দিন ওরফে কিলার নাছির (৩৮) এবং মোরশেদুল আলম ওরফে কাইলা পলাশসহ এ পর্যন্ত ২২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের বলেন, আমরা পারিপার্শ্বিকতা, সাক্ষ্যপ্রমাণ এবং আগে গ্রেপ্তারদের তথ্য বিশ্লেষণ করে যাদের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট প্রমাণ পেয়েছি শুধু তাদেরই গ্রেপ্তার করেছি। আমি মনে করি, অন্যায়ভাবে কাউকে গ্রেপ্তার বা হয়রানি করা হচ্ছে না। হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার বিষয় জানতে চাইলে গোয়েন্দা পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, আমাদের টিম কাজ করছে। সবাইকে দ্রুত গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শীঘ্রই আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হবে।

গত ২৪ মার্চ রাজধানীর শাহজাহানপুরে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপুকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ সময় গাড়ির পাশে রিকশায় থাকা সামিয়া আফরান প্রীতি নামের এক কলেজছাত্রীও গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। এ ঘটনায় টিপুর গাড়িচালক মুন্নাও গুলিবিদ্ধ হন। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডের পর ওইদিন রাতেই শাহজাহানপুর থানায় নিহত টিপুর স্ত্রী ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত কাউন্সিলর ফারহানা ইসলাম ডলি বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। এতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করা হয়। পরে র‌্যাব ও ডিবি পৃথক অভিযান চালিয়ে টিপু হত্যা জড়িতদের গ্রেপ্তার অভিযান শুরু করে।

গ্রামীণ টেলিকমের দুর্নীতি সব ধরনের নথিপত্র দুদকে

ছবি

চকবাজারে অগ্নিকাণ্ড : হোটেল মালিক আটক

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ:অশ্লীল ভিডিও তুলে চাঁদা আদায়, গ্রেফতার ২

শোকসভা থেকে ফেরার পথে যুবলীগ নেতার মাথা ফাটালেন ছাত্রলীগ নেতা

শরনার্থী ক্যাম্পে বিদেশি পিস্তলসহ সন্ত্রাসী আটক

সুধারামে শ্বশুর বাড়িতে জামাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

হবিগঞ্জে কারাগার থেকে জামিনে বেরিয়ে আসা যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

প্রবাসীর স্ত্রীকে অচেতন করে নগ্ন ভিডিও ধারণ,গ্রেফতার-২

ছবি

বঙ্গবন্ধু হত্যার ৫ খুনি এখনও অধরা

ছবি

ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স: তিন সদস্যেরে তদন্ত কমিটি গঠন

ছবি

রিক্রুটিং এজেন্সির প্রতারণার শিকার দুই নারী দেশে ফিরলো

ছবি

হোটেল জোনে টর্চার সেল: মামলায় ২ আসামি গ্রেপ্তার

ছবি

স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

ছবি

ছিনতাইকারী সেজে তিন ছেলে বাবাকে পিটিয়ে ৩১ লাখ টাকা আত্মসাৎ, গ্রেফতার ২

ছবি

কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ: আসামী নাজমুল হুদা সাহেদ গ্রেপ্তার

ছবি

‘সড়ক দুঘটনায়’ মারা যাওয়ার কথা বলে তদন্ত করেনি পুলিশ

ছবি

ডিমের পিকআপে ডাকাতি, যেভাবে গ্রেপ্তার ৬ ডাকাত

লালমনিরহাটে আ.লীগ নেতার ছেলের নেতৃত্বে ৪ সাংবাদিকের ওপর হামলা

ছবি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

ছবি

জন্মদিন পালনের কথা বলে এনে নারী চিকিৎসককে খুন : র‍্যাব

ছবি

হোটেল থেকে নারী চিকিৎসকের লাশ উদ্ধার: ছেলেবন্ধু গ্রেপ্তার

ছবি

ডেল্টা লাইফের গুরুত্বপূর্ণ নথির ফটোকপি গাড়িযোগে পাচারের চেষ্টা

ছবি

জঙ্গি নেতা রাজীব গান্ধীর সহযোগী আফজাল গ্রেপ্তার

ছবি

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এর সাবেক এমডি রাশেদুলের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলা

ছবি

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে যুগ্ম সচিবের বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

‘জজ মিয়ার’ জন্য ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে নোটিশ

কর ফাঁকি : মদিনার ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় কামরাঙ্গীরচরে গ্রেপ্তার চারজন রিমান্ডে

ছবি

নারায়ণগঞ্জে মানব পাচার আইনে চারজনের যাবজ্জীবন

ছবি

বাংলাদেশের দুই বোনকে ভারতের যৌনপল্লীতে বিক্রি

ছবি

রোহিঙ্গা শিবিরে দুই রোহিঙ্গা নেতাকে হত্যা

প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি : নড়াইলে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা গ্রেফতার

বগুড়ায় ছুরিকাঘাতে স্কুল ছাত্র হত্যা

২৬ মামলার আসামি স্বেচ্ছাসেবকদল নেতা গ্রেফতার

তিন দিন আগে বাস ডাকাতির পরিকল্পনা করে মূলহোতা ডাকাত রতন

সখীপুরে জমি বিরোধে ভাতিজাদের হাতে চাচা খুন

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

আওয়ামী লীগ নেতা টিপু ও কলেজছাত্রী প্রীতি হত্যা

‘মোল্লা শামিমকে পেলেই তদন্ত ক্লোজ করবে পুলিশ’

সাইফ বাবলু

বুধবার, ০৩ আগস্ট ২০২২

যুবলীগ নেতা মিল্কী হত্যার পর মতিঝিল ও শাহজাহানপুর এলাকা নিয়ন্ত্রণ চলে যায় আওয়ামী লীগের একটি গ্রুপের কাছে। কিন্তু ধীরে ধীরে ওই নিয়ন্ত্রণ নিজের কব্জায় নিয়ে আসে জাহিদুল ইসলাম টিপু। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে মিল্কী হত্যায় যে কালিমা লেগেছিল টিপুর গায়ে সেই কালিমা মোচনের জন্য এমপি নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিতে থাকেন। টিপু অনেকটা এগিয়ে যাওয়ায় মিল্কীবিরোধী গ্রুপ টিপুর এ অগ্রযাত্রাকে নিজেদের জন্য বিপজ্জনক মনে করেন। ফলে টিপুকে না সরাতে পারলে হারানো সাম্রাজ্য যেমন ফিরে পাবেন না তেমনি অস্তিত্ব সংকটেও পড়বেন তারা। এ কারণে টিপুকে হত্যা করা হয়। আর এ হত্যাকান্ডের পরিকল্পনায় ঘি দেন আগামী নির্বাচনে মতিঝিল-রমনা থানা নিয়ে গঠিত ঢাকা ৮ আসনে মনোনয়নপ্রত্যাশী আওয়ামী লীগের একটি অংশ। টিপু হত্যায় গ্রেপ্তার সোহেল শাহরিয়া ওরফে সুন্দরী সোহেল এবং মারুফ রেজার কাছ থেকে এমন তথ্য মিলেছে।

এদিকে টিপু হত্যায় যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের অপরাধ প্রমাণে মোল্লা শামীমকে গ্রেপ্তার জরুরি মনে করছেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি। পাশাপাশি হত্যায় ব্যবহৃত অস্ত্র এবং মোটরসাইকেল উদ্ধার না হওয়ায় মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে ডিবির এক কর্মকর্তা। এখন পর্যন্ত তারা ২২ জনকে গ্রেপ্তার করে।

ডিবির এক কর্মকর্তা বলেন, টিপু হত্যায় রোববার (৩১ জুলাই) রাতে সোহেল শাহরিয়ার ওরফে শটগান সোহেল এবং মারুফ রেজা সাগর নামে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা রিমান্ড হেফাজতে আছে। এর আগে গ্রেপ্তার হন জাতীয় পার্টির নেতা জুবের আলম খান রবিন, আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবুর রহমান টিটু, আরিফুর রহমান সোহেল এবং খায়রুল নামের ৪ জন। তাদের রিমান্ড হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

ডিবির ওই কর্মকর্তা বলেন, টিপু হত্যায় গ্রেপ্তার সুমন শিকদার ওরফে মুসা রিমান্ড হেফাজতে ১৬ থেকে ১৭ জনের নাম বলেছিল। এর মধ্যে কয়েকজন আগেই গ্রেপ্তার হয়েছে। যাদের এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদের মুসার দেয়া তথ্যেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মুসা আদালতে যে জবানবন্দি দিয়েছে সেখানেও তাদের নাম রয়েছে। অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার পদমর্যাদার ওই কর্মকর্তা বলেন, এখন তারা মোল্লা শামিমকে খুঁজছেন। মোল্লা শামিমকে গ্রেপ্তার করতে পারলে হত্যাকান্ডের মোটিভ কারা, কীভাবে পরিকল্পনায় ছিল, অস্ত্র কোথা থেকে এসেছে, ব্যবহৃত অস্ত্র ও মোটরসাইকেল কোথায় আছে তা বের হবে। ‘ডিবি চেষ্টা করেও এখন পর্যন্ত হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করতে পারেনি। আরও কয়েকজনের নাম রয়েছে এ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার বিষয়ে, তাদের ধরতে অভিযান চলছে। সবকিছু মিলিয়ে তদন্ত শেষ পর্যায়ে রয়েছে। ডিবির কর্মকর্তাদের ভাষ্য, মুসার দেয়া স্বীকারোক্তিতে যে ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা প্রত্যেকেই হত্যাকান্ডে নানাভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে।’

ডিবির ভাষ্য, রিমান্ড হেফাজতে সুন্দরী সোহেল ও মারুফ রেজার তথ্য অনুযায়ী, মতিঝিল এলাকায় জাহিদুল ইসলাম টিপুর একক আধিপত্য বিস্তারকে আগামী দিনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অনেকের পথের কাঁটা হতে পারেন বলে মনে করছিলেন টিপুকে। স্বেচ্ছাসেবক লীগ কানাডা শাখার সাধারণ সম্পদক সোহেল শাহরিয়ার ওরফে সুন্দরী সোহেল মতিঝিল এলাকায় নির্বাচনে অংশ নিতে চেয়েছিলেন। সুন্দরী সোহেলের সঙ্গে আরও দুইজন আওয়ামী লীগ নেতা নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী। এর আগে মতিঝিলে ক্যাসিনোর চাঁদাবাজি নিয়ন্ত্রক গ্রুপের তোপের মুখে সুন্দরী সোহেল ২০১৬ সালে কানাডায় পাড়ি জমান। সেখানে তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগ কানাডা শাখার সাধারণ সম্পাদক পদ পান। ২০১৯ সালে ক্যাসিনোতে অভিযান চালানোর পর সুন্দরী সোহেল দেশে ফিরেন। মতিঝিল এলাকার রাজনৈতিক ও আন্ডারওয়ার্ল্ডে একক আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করেন। মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ তিনি প্রত্যাশা করেন। এ নিয়ে টিপুর সঙ্গে সোহেলের দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। অন্য দুই মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যেও এ নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়।

জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল শাহারিয়ার ওরফে সুন্দরী সোহেল জানান, তিনি ছিলেন মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল হক খান মিল্কী গ্রুপের। ২০১৩ সালে মিল্কী হত্যার পর তিনি (সুন্দরী সোহেল) টিপুর গ্রুপের কাছে কোণঠাসা হয়ে পড়েন। তার ওপর শাহাজানপুরে ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি কাউছার আলী হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত ১ নম্বর আসামি ছিলেন সে। ২০০৮ সালের ৪ মার্চ শাহজাহানপুরে দিনে-দুপুরে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করা হয় ৩৪নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি কাউছার আলীকে। তোপের মুখে ২০১৬ সালে তিনি (সুন্দরী সোহেল) পাড়ি জমান কানাডায়। সেখানে তিনি স্বেচ্ছাসেবক লীগ কানাডা শাখার সাধারণ সম্পাদক পদ পান। ২০১৯ সালে ক্যাসিনোতে অভিযানে পর সোহেল দেশে ফিরেন। মতিঝিল এলাকার রাজনৈতিক ও আন্ডারওয়ার্ল্ডে একক আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করেন। মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদ প্রত্যাশা করেন তিনি। এ নিয়ে টিপুর সঙ্গে সোহেলের দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। এর পাশাপাশি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী অন্য দুই আওয়ামী লীগ নেতার গ্রুপও সুন্দরী সোহেলের সঙ্গে যোগ দেয়।

সুন্দরী সোহেলের ‘বড় ভাই’ ১০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক। ২০১৬ সালে মতিঝিল এজিবি কলোনিতে রিজভী হাসান ওরফে বোঁচা বাবু হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি র‌্যাবের গ্রেপ্তার হওয়া ওমর ফারুক, আবু সালেহ শিকদার ও নাসির উদ্দিন। ওমর ফারুকও মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সভাপতির পদপ্রত্যাশী। ওদিকে কারাগারে বন্দী ক্যাসিনোবাজ ল্যাংড়া খালেদও টিপুর ওপর ক্ষিপ্ত। সব মিলিয়ে সবারই ‘পথের কাঁটা’ হলেন টিপু। টিপুকে সরিয়ে দিতে পারলে মতিঝিলের আন্ডারওয়ার্ল্ডের বিশাল সম্রাজ্য নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আসবে।

টিপুকে সরিয়ে দেয়ার সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করে কিলার মুসা। মুসা শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সহযোগী বলে পরিচিত। আন্ডারওয়ার্ল্ডের কাছে মুসা একটি ভয়ঙ্কর নাম। টেন্ডারবাজির কোটি কোটি টাকার কমিশন যেকোন গ্রুপকে নিয়ে দিতে মুসা কাজ করে। এজন্য প্রতিপক্ষকে খুনের পরিকল্পনা নেয় মুসা। হত্যার বদলা হত্যা। প্রতিশোধ নিতে ‘গ্যাং মার্ডার’। ‘কাট আউট’ পদ্ধতিতে পরিকল্পনা। টার্গেট নির্ধারণ করে দেয়। সুবিধাজনক পরিস্থিতিতে খুন করতে হবে। এ জন্য মতিঝিলের আন্ডারওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণকারী শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সঙ্গে যোগাযোগ হয়। শুটার গ্রুপ ঠিক করা হয়। কোটি টাকায় খুনের চুক্তি হলেও প্রথম দফায় শুটার গ্রুপের কাছে ১৫ লাখ টাকা পৌঁছে যায়। এক গ্রুপ গুলি ও আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ করে নির্দিষ্ট স্থানে রেখে আসে। অতঃপর কাট আউট পদ্ধতিতে শুটার গ্রুপ রেকি করে। এরপর নির্দিষ্ট সময়ে একাধিক শুটার গ্রুপ খুনের ছক বাস্তবায়ন করে। বাস্তবায়নের ১২ দিন আগেই গত ১২ মার্চ মুসা দুবাই পালিয়ে যায়। সেখানে শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সঙ্গে বসে পরিকল্পনা নেয় খুনের। এর পাশাপাশি ক্যাসিনোকান্ডে গ্রেপ্তার ল্যাংড়া খালেদের সঙ্গেও শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের যোগাযোগ হয়েছিল।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) এক কর্মকর্তা জানান, গত ২৪ মার্চ রাত ১০টার দিকে শাহজাহানপুরের আমতলা এলাকায় অস্ত্রধারীর গুলিতে নিহত হন গাড়িতে থাকা মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপু। এলোপাতাড়ি গুলিতে নিহত হন প্রীতি নামে এক শিক্ষার্থী। এ ঘটনার পর শুটার মাসুম মোহাম্মদ ওরফে আকাশকে গ্রেপ্তার করে ডিবি। তার দেয়া তথ্য থেকে ডিবি আবৃত্তিকার আহকাম উল্লাহ’র ছোট ভাই যুবলীগ নেতা এরফান উল্লাহ দামালকে গ্রেপ্তার করে। খুনের এক সপ্তাহ পর র‌্যাব এ ঘটনায় মতিঝিলের ১০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক (৫২), সুমন সিকদার মুসার ছোট ভাই আবু সালেহ শিকদার ওরফে শুটার সালেহ (৩৮), নাছির উদ্দিন ওরফে কিলার নাছির (৩৮) এবং মোরশেদুল আলম ওরফে কাইলা পলাশসহ এ পর্যন্ত ২২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ সাংবাদিকদের বলেন, আমরা পারিপার্শ্বিকতা, সাক্ষ্যপ্রমাণ এবং আগে গ্রেপ্তারদের তথ্য বিশ্লেষণ করে যাদের বিরুদ্ধে সুস্পষ্ট প্রমাণ পেয়েছি শুধু তাদেরই গ্রেপ্তার করেছি। আমি মনে করি, অন্যায়ভাবে কাউকে গ্রেপ্তার বা হয়রানি করা হচ্ছে না। হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র উদ্ধার বিষয় জানতে চাইলে গোয়েন্দা পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, আমাদের টিম কাজ করছে। সবাইকে দ্রুত গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শীঘ্রই আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হবে।

গত ২৪ মার্চ রাজধানীর শাহজাহানপুরে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপুকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ সময় গাড়ির পাশে রিকশায় থাকা সামিয়া আফরান প্রীতি নামের এক কলেজছাত্রীও গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। এ ঘটনায় টিপুর গাড়িচালক মুন্নাও গুলিবিদ্ধ হন। চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকান্ডের পর ওইদিন রাতেই শাহজাহানপুর থানায় নিহত টিপুর স্ত্রী ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত কাউন্সিলর ফারহানা ইসলাম ডলি বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। এতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করা হয়। পরে র‌্যাব ও ডিবি পৃথক অভিযান চালিয়ে টিপু হত্যা জড়িতদের গ্রেপ্তার অভিযান শুরু করে।

back to top