alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

হোটেল জোনে টর্চার সেল: মামলায় ২ আসামি গ্রেপ্তার

জেলা বার্তা পরিবেশক, কক্সবাজার: : রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২

কক্সবাজারে হোটেল-মোটেল জোনে টর্চার সেলের জিম্মি অবস্থা থেকে পর্যটকসহ চারজনকে উদ্ধারের ঘটনার মামলায় ২ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার অঞ্চলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম জানান, রোববার (১৪ আগষ্ট) মধ্যরাতে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্ট এলাকায় এ অভিযান চালানো হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের পশ্চিম খানা ঘোনা এলাকার নুরুল আজিমের ছেলে রাশেদুল ইসলাম (২৫) এবং একই ইউনিয়নের পূর্ব বামনকাটা এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে মো. সাকিল (২২)।

সোমবার (৮ আগস্ট) ভোরে কক্সবাজার শহরের লাইট হাউজ এলাকা সংলগ্ন আবাসিক কটেজ জোন এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি টর্চার সেলের সন্ধান পায় পুলিশ। এসময় কটেজ ব্যবসার আড়ালে ‘টর্চার সেলে’ জিন্মি রাখা অবস্থায় দুই পর্যটক ও দুই কিশোরকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে সাইনবোর্ড বিহীন শিউলি রিসোর্ট নামের ওই আবাসিক কটেজে তল্লাশী চালিয়ে নির্যাতন চালানো ও আপত্তিকর কাজে ব্যবহৃত বেশ কিছুসংখ্যক উপকরণ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) সকালে ভূক্তভোগী আব্দুল্লাহ আল মামুনের বাবা মো. বেলাল আহমেদ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ১১ জনকে আসামি করে কক্সবাজার সদর থানায় একটি মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় ১১ আসামির মধ্যে আট জন পুরুষ ও তিন জন নারী রয়েছে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ জানিয়েছে, শিউলি রিসোর্ট নামের আবাসিক কটেজের কথিত টর্চার সেলে পর্যটকদের জিম্মি রেখে নির্যাতনের ঘটনায় কক্সবাজার সদর থানায় দায়ের মামলাটি তদন্ত করছেন ট্যুরিস্ট পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল হামিদ। ঘটনার তদন্তে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া ঘটনায় সরাসরি জড়িত থাকার ব্যাপারে কয়েকজনকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে।

গ্রেপ্তারদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে পর্যটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, কথিত টর্চার সেলে পর্যটকদের জিম্মি রেখে নির্যাতনের ঘটনায় সংঘবদ্ধ চক্রের ৮ থেকে ১০ জন দূর্বৃত্ত জড়িত রয়েছে। তারা দীর্ঘদিন ধরে সহজ-সরল পর্যটক ও সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন দালালদের মাধ্যমে শিউলি রিসোর্ট নামের কটেজে এনে নারী ও মাদক দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে আসছিল। পরে জিম্মিদের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ভয়-ভীতি দেখিয়ে দেখাতো। এতে ভূক্তভোগীরা মান-ইজ্জতের কথা ভেবে আইন-শৃংখলা বাহিনীকে কোনো অভিযোগ দিতো না।

এদিকে, হোটেল-মোটেল জোনের আবাসিক কটেজগুলোতে বিভিন্ন ধরণের অপরাধ সংঘটনের সাথে সংঘবদ্ধ একটি চক্র জড়িত রয়েছে। এ চক্রের বেশ কিছু দালালও রয়েছে। স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীর ছত্রছায়ায় চিহ্নিত কয়েকটি কটেজে এসব অপরাধ সংঘটন করে আসছিল বলেন রেজাউল করিম। পর্যটন পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, মামলার তদন্তে ঘটনায় জড়িত যাদের সম্পৃক্ততা পাওয়া যাবে, তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।

ছবি

অজ্ঞান করে ৩০০ প্রবাসীর সর্বস্ব লুট, গ্রেপ্তার চার

ধর্মীয় উসকানিমূলক স্ট্যাটাস ফেইসবুকে : বেগমগঞ্জে তরুণ আটক

কালীগঞ্জে যুবকের ৭ টুকরা লাশ, পরিচায় পাওয়া যায়নি

ছবি

তিনশ প্রবাসীকে অচেতন করে সর্বস্ব লুট, মূলহোতাসহ ৪ জন গ্রেফতার

ছবি

পাচারকারি চক্র নানা ভাবে হুমকি দিচ্ছে, মামলার খরচের টাকাও নেই নাহিদের

লক্ষ্মীপুরে যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা

ছবি

বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড নিয়ে কটূক্তি: ফুয়াদের ৭ বছর জেল

ছবি

কর্মচারীকে জুতাপেটার অভিযোগে ভূঞাপুরের এসি ল্যান্ডকে বদলি

ছবি

আদালতে ক্যাসিনো-কাণ্ডে গ্রেপ্তার সেলিম প্রধানের জামিন চাইলেন রুশ স্ত্রী

ছবি

আইনজীবী অসুস্থ : পেছাল খালেদা জিয়ার নাইকো মামলার চার্জ শুনানি

নোয়াখালীতে কিশোর গ্যাংয়ের ২৩ সদস্য আটক

সখীপুরে তিন গরু চোর গ্রেপ্তার

বগুড়ার শেরপুরে এক সন্ত্রাসীকে কুপিয়ে হত্যা

শিবালয়ে চাল লুটপাটকারী পুরস্কৃত, অভিযোগকারীরা বহিস্কৃত

ছবি

একাত্তরের রাজাকার খলিলকে ধরা হলো যেভাবে

ছবি

জামিন পেলেন ক্রিকেটার আল আমিন

ছবি

১০ বছরে ৫ শতাধিক চুরি করেছে ‘স্পাইডারম্যান’ বিল্লাল

ছবি

ঝুমন দাসের জামিন ফের নামঞ্জুর

ছবি

ডিসি অফিসের আট কর্মচারীসহ ১১ জনের ৭ বছরের জেল

মুন্সীগঞ্জে হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণ, ওয়ার্ড বয় গ্রেফতার

ঘোড়াঘাটে মাদকাসক্ত ছেলের ৬ মাসের কারাদন্ড

ছবি

গভীর ষড়যন্ত্র হয়েছে, আমি নির্দোষ: জিকে শামীম

ছবি

স্বর্ণ চোরাচালান মামলা, চীনা নাগরিকের ৭ বছর কারাদণ্ড

ছবি

বনজ কুমারের বিরুদ্ধে বাবুল আক্তারের মামলার আবেদন খারিজ

ময়মনসিংহে মোটর সাইকেলের সাথে ধাক্কা লাগায় সিএনজি চালককে পিটিয়ে হত্যা

ছবি

জি কে শামীম ও ৭ দেহরক্ষীর যাবজ্জীবন, প্রথম মামলার রায়

সখীপুরে ভূমিহীন নারীর চেক নিয়ে প্রতারণা

ছবি

গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা, গ্রেপ্তার এক

ছবি

আজ জি কে শামীমসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে রায়

ছবি

এক দশক পর ধরা পড়লেন ফাঁসির আসামি

ভোলায় স্ত্রীকে উক্তত্যের প্রতিবাদ করায় পুলিশ কনস্টেবলকে কূপিয়ে জখম

ধামইরহাটে সরকারী রাস্তা দখল করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ

ড্রাইভার দেলোয়ার হোসেনকে অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

কারাগারে আটক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী মান্নানের নামে আরো ১ টি মামলা দায়ের

সাভারে ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

ছবি

ডিজিটাল প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করেন ই-অরেঞ্জের সোহেল

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

হোটেল জোনে টর্চার সেল: মামলায় ২ আসামি গ্রেপ্তার

জেলা বার্তা পরিবেশক, কক্সবাজার:

রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২

কক্সবাজারে হোটেল-মোটেল জোনে টর্চার সেলের জিম্মি অবস্থা থেকে পর্যটকসহ চারজনকে উদ্ধারের ঘটনার মামলায় ২ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার অঞ্চলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম জানান, রোববার (১৪ আগষ্ট) মধ্যরাতে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্ট এলাকায় এ অভিযান চালানো হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের পশ্চিম খানা ঘোনা এলাকার নুরুল আজিমের ছেলে রাশেদুল ইসলাম (২৫) এবং একই ইউনিয়নের পূর্ব বামনকাটা এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে মো. সাকিল (২২)।

সোমবার (৮ আগস্ট) ভোরে কক্সবাজার শহরের লাইট হাউজ এলাকা সংলগ্ন আবাসিক কটেজ জোন এলাকায় অভিযান চালিয়ে একটি টর্চার সেলের সন্ধান পায় পুলিশ। এসময় কটেজ ব্যবসার আড়ালে ‘টর্চার সেলে’ জিন্মি রাখা অবস্থায় দুই পর্যটক ও দুই কিশোরকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে সাইনবোর্ড বিহীন শিউলি রিসোর্ট নামের ওই আবাসিক কটেজে তল্লাশী চালিয়ে নির্যাতন চালানো ও আপত্তিকর কাজে ব্যবহৃত বেশ কিছুসংখ্যক উপকরণ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) সকালে ভূক্তভোগী আব্দুল্লাহ আল মামুনের বাবা মো. বেলাল আহমেদ বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ১১ জনকে আসামি করে কক্সবাজার সদর থানায় একটি মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় ১১ আসামির মধ্যে আট জন পুরুষ ও তিন জন নারী রয়েছে।

ট্যুরিস্ট পুলিশ জানিয়েছে, শিউলি রিসোর্ট নামের আবাসিক কটেজের কথিত টর্চার সেলে পর্যটকদের জিম্মি রেখে নির্যাতনের ঘটনায় কক্সবাজার সদর থানায় দায়ের মামলাটি তদন্ত করছেন ট্যুরিস্ট পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল হামিদ। ঘটনার তদন্তে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। এছাড়া ঘটনায় সরাসরি জড়িত থাকার ব্যাপারে কয়েকজনকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে।

গ্রেপ্তারদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে পর্যটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, কথিত টর্চার সেলে পর্যটকদের জিম্মি রেখে নির্যাতনের ঘটনায় সংঘবদ্ধ চক্রের ৮ থেকে ১০ জন দূর্বৃত্ত জড়িত রয়েছে। তারা দীর্ঘদিন ধরে সহজ-সরল পর্যটক ও সাধারণ মানুষকে বিভিন্ন দালালদের মাধ্যমে শিউলি রিসোর্ট নামের কটেজে এনে নারী ও মাদক দিয়ে ব্ল্যাকমেইল করে আসছিল। পরে জিম্মিদের সঙ্গে আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ধারণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ভয়-ভীতি দেখিয়ে দেখাতো। এতে ভূক্তভোগীরা মান-ইজ্জতের কথা ভেবে আইন-শৃংখলা বাহিনীকে কোনো অভিযোগ দিতো না।

এদিকে, হোটেল-মোটেল জোনের আবাসিক কটেজগুলোতে বিভিন্ন ধরণের অপরাধ সংঘটনের সাথে সংঘবদ্ধ একটি চক্র জড়িত রয়েছে। এ চক্রের বেশ কিছু দালালও রয়েছে। স্থানীয় কিছু প্রভাবশালীর ছত্রছায়ায় চিহ্নিত কয়েকটি কটেজে এসব অপরাধ সংঘটন করে আসছিল বলেন রেজাউল করিম। পর্যটন পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, মামলার তদন্তে ঘটনায় জড়িত যাদের সম্পৃক্ততা পাওয়া যাবে, তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।

back to top