alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

অশ্লীলতা ছড়িয়ে ১০৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় বিগো, পাচার ৭৯ কোটি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২

চীনভিত্তিক ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ বিগো টেকনোলজি লিমিটেড। বিগো বাংলা লিমিটেড নামে বাংলাদেশেও এ অ্যাপটি কার্যক্রম শুরু করে। সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠান হিসেবে ঘোষণা দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও মূলত লাইভ চ্যাট ও ভিডিও চ্যাটভিত্তিক কার্যক্রম চালায় বিগো। অশ্লীলতা ছড়িয়ে এ প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশি ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে দেড় বছরে প্রতারণার মাধ্যমে ১০৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এর মধ্যে ৭৯ কোটি টাকা সিঙ্গাপুরে পাচার করেছে বিগো।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অনুসন্ধানে এমন তথ্য উঠে এসেছে। পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা ও পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে করা একটি মামলার তদন্তে নেমে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্যপ্রমাণ পায় সিআইডি। এরপর বিগো টেকনোলজির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) চীনা নাগরিক ইয়াও জিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে আরেকটি মামলা করেছে সিআইডি।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিগো বাংলা লিমিটেড, বিগো বাংলার কর্মী এসএম নাজমুল হক, আরিফ হোসেন, মুনসুন হোল্ডিং নামের প্রতিষ্ঠান। সিআইডির করা দ্বিতীয় মামলায় চীনা নাগরিক ও বিগোর এমডি ইয়াও জির বিরুদ্ধে ৭৯ কোটি টাকা বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচারের অভিযোগ করা হয়েছে। সিআইডি বলছে, পাচারের উদ্দেশ্যে এ অর্থ সংগ্রহে বিগো টেকনোলজিকে সহযোগিতা করেছে মুনসুন হোল্ডিং লিমিটেড। মূলত মুনসুন হোল্ডিংয়ের নামে নেয়া পেমেন্ট গেটওয়ে ‘সূর্য পে’র সাহায্য নিয়ে বিপুল এ অর্থ আত্মসাৎ করে বিগো টেকনোলজি।

জানা গেছে, বিগো অ্যাপে লাইভ ভিডিওর মাধ্যমে অশ্লীলতা ছড়ানোর অভিযোগে গত বছরের জুনে চীনা নাগরিক ইয়াও জিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি। পরে তাদের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা ও পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়। ওই মামলার অন্য চার আসামি হলেন বিগো বাংলার কর্মী মোস্তাফা সাইফ রেজা, আরিফ হোসেন, এসএম নাজমুল হক ও আসমা উল হুসনা সেজুতী। তারা সবাই এখন কারাগারে।

এমামলার তদন্তসংশ্লিষ্টরা জানান, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠান হিসেবে ঘোষণা দিলেও বিগো লাইভ মূলত লাইভ চ্যাট ও ভিডিও চ্যাটভিত্তিক কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করে। কিছুদিন পরই প্রতিষ্ঠানটি ভার্চুয়াল ডায়মন্ড ও বিনস বিক্রির মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের অর্থ হাতিয়ে নিতে শুরু করে। এরপর শুরু হয় বিগো ও লাইকির অ্যাপ ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাৎ। এক্ষেত্রে এমএফএস, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ব্যবহারের পর সবশেষে সূর্য পে নামের পেমেন্ট গেটওয়ে সার্ভিস ব্যবহার করা হয়। সব মিলিয়ে দেড় বছরে তারা হাতিয়ে নেয় ১০৮ কোটি টাকা।

রাজধানীর পল্টন থানার পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের একটি মামলার তদন্তে নেমে অর্থ আত্মসাৎ ও পরবর্তী সময়ে সেই অর্থ সিঙ্গাপুরে সরিয়ে নেয়ার তথ্য পায় পুলিশ। পরে মামলাটি তদন্ত শুরু করে সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টার। দীর্ঘ তদন্ত শেষে পরিকল্পিতভাবে অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা করেন তদন্ত কর্মকর্তা উপপুলিশ পরিদর্শক (এসআই) সোহেল রানা।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত ভার্চুয়াল ডায়মন্ড ও বিনস বিক্রির বিপরীতে অ্যাপটির বাংলাদেশি ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে এক কোটি ২৬ লাখ ৮০ হাজার ৮০৬ টাকা আয় করে বিগো লাইভ টেকনোলজি। এ অর্থ জমা হয় একটি বেসরকারি ব্যাংকের গাজীপুর শাখার হিসাব নম্বরে, যা বর্তমানে আদালতের নির্দেশে ফ্রিজ করে রাখা হয়েছে। ওই ব্যাংক হিসাবে স্থিতি রয়েছে এক লাখ ৩৪ হাজার ৪৭০ টাকা। বাকি এক কোটি ২৫ লাখ ৪৬ হাজার ৩৩৬ টাকা বিনস রিসেলার নাজমুল হক দেন চীনা নাগরিক ইয়াও জিকে। একই সময়ের মধ্যে আরও দুটি বেসরকারি ব্যাংকের হিসাবের মাধ্যমে বিগো বাংলা লিমিটেড ৪৩ কোটি ৫০ লাখ ৫০ হাজার ৭৬ টাকা সংগ্রহ করে।

এছাড়া ডায়মন্ড ও বিনস রিসেলার এসএম নাজমুল হকের ১২টি ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে ৪৭ কোটি ৮ লাখ ১০ হাজার ৮১২ টাকা সংগ্রহ করে বিগো বাংলা লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটিকে ‘সূর্য পে’ তাদের গেটওয়ে সেবা সরবরাহ করেছে বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সোহেল রানা। তিনি বলেন, ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের ক্ষেত্রে পেমেন্ট গেটওয়ে সুবিধাও নেয় বিগো বাংলা লিমিটেড। এক্ষেত্রে তাদের সূর্য পে নামের সূর্যমুখী লিমিটেডের পেমেন্ট গেটওয়ে পাইয়ে দেয় দেশি প্রতিষ্ঠান মুনসুন হোল্ডিং লিমিটেড। তারা মূলত নিজেদের নামে পেমেন্ট গেটওয়ে সার্ভিস নিয়ে সেটি বিগো বাংলা লিমিটেডকে ব্যবহারের সুযোগ করে দেয়। পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহারের সুযোগ করে দেয়ার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারে সহযোগী হয়ে উঠেছে মুনসুন হোল্ডিং লিমিটেড।

ছবি

এনআইডি জালিয়াতি মামলায় সাবরিনার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযান, গ্রেপ্তার ২৪

রংপুরে দুই পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে বাড়ি দখলের চেষ্টা

ঘোড়াঘাটে আত্মীয়র বাড়ি থেকে ফেরার সময় ছাগল চুরি, ৩ যুবক জনতার হাতে আটক

ফেইসবুক পেজ বিক্রির কথা বলে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন মোবারক

ভোলা প্রেসক্লাবের পিয়নকে কুপিয়ে জখম করেছে সন্ত্রাসীরা

ছবি

বিচারাধীন বিষয়ে সংবাদ: কী করা যাবে না তা জানাল হাই কোর্ট

নওগাঁয় নিখোজের ২০ দিন পর গলিত লাশ উদ্ধার

বেসিক ব্যাংকের ঋণ কেলেঙ্কারি মামলা করতে ৫ বছর পার, তদন্তে গেল ৭ বছর

ছবি

জঙ্গি ছিনতাই : ১০ আসামি ফের ৫ দিনের রিমান্ডে

ছবি

জালিয়াতির মামলায় স্থায়ী জামিন পেলেন ভোরের পাতার সম্পাদক

ছবি

ব্যাংক কাকে ঋণ দিচ্ছে জনগণের জানার অধিকার আছে : হাইকোর্ট

ছবি

এএসপি আনিস হত্যা: ১৫ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল

ছবি

আয়াত হত্যা: খণ্ডিত দেহের অংশ মিলেছে সাগরপাড়ে

ছবি

সাড়ে ১১ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার, পাচারকারী আটক

ছবি

যশোর থেকে নিখোঁজ ছাত্র রাহুল খুলনা থেকে উদ্ধার

ওসমানী মেডিকেলের ছাত্রাবাস থেকে দেশিয় অস্ত্র উদ্ধার 

সিলেটে পরকিয়ার জেরে যুবক খুন

নারায়ণগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি, অন্যজনের যাবজ্জীবন

নারায়ণগঞ্জে ১৫ মামলার আসামি ‘স্ট্রিট ডাকাত’ গ্রেপ্তার

ছবি

মাদারীপুরে মোটা চাল সরু করে মিনিকেট হিসেবে বিক্রির অভিযোগ : জেল-জরিমানা

ছবি

চিত্রনায়িকা শিমু হত্যা : স্বামীসহ ২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

ছবি

২০ লাখ টাকার হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ২

ছবি

পল্লবী থানায় বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় কাউন্সিলরসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

ছবি

টিপু-প্রীতি হত্যা মামলার প্রতিবেদন দাখিল ১১ জানুয়ারি

ছবি

রাজকে নিয়ে আদালতে পরীমনি

ফরিদপুরে নগই-এর প্রকল্প পরিচালককে মারধর করার অভিযোগ

রাজবাড়ীতে যুবদল নেতা হত্যায় ২ জনের ফাঁসি, ৫ জনের যাবজ্জীবন

শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণ করলেন ইমাম ও শিক্ষক, গ্রেপ্তার ৩

ছবি

যৌতুকের জন্য সারিকাকে অত্যাচার, স্বামীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

ছবি

সব এনজিওর চেক ডিজঅনার মামলা স্থগিত

ছবি

জামিন পেলেন নর্থ-সাউথের সাবেক ট্রাস্টি এম এ কাশেম

ছবি

প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি: রাজবাড়ীর স্মৃতিকে জামিন দেয়নি আপিল বিভাগ

মিথ্যা বিয়ে, মিথ্যা কাবিননামা, যৌতুকের মামলায় ফাঁসিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র

ছবি

ধানমন্ডির সেই বাড়ির রায়ের তথ্য আপিল বিভাগে জমা দেয়ার নির্দেশ

৮৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ে জড়িত অভিযোগে ৬ জন গ্রেপ্তার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

অশ্লীলতা ছড়িয়ে ১০৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় বিগো, পাচার ৭৯ কোটি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ০৫ অক্টোবর ২০২২

চীনভিত্তিক ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ বিগো টেকনোলজি লিমিটেড। বিগো বাংলা লিমিটেড নামে বাংলাদেশেও এ অ্যাপটি কার্যক্রম শুরু করে। সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠান হিসেবে ঘোষণা দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও মূলত লাইভ চ্যাট ও ভিডিও চ্যাটভিত্তিক কার্যক্রম চালায় বিগো। অশ্লীলতা ছড়িয়ে এ প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশি ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে দেড় বছরে প্রতারণার মাধ্যমে ১০৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এর মধ্যে ৭৯ কোটি টাকা সিঙ্গাপুরে পাচার করেছে বিগো।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অনুসন্ধানে এমন তথ্য উঠে এসেছে। পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা ও পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে করা একটি মামলার তদন্তে নেমে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্যপ্রমাণ পায় সিআইডি। এরপর বিগো টেকনোলজির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) চীনা নাগরিক ইয়াও জিসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইনে আরেকটি মামলা করেছে সিআইডি।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন বিগো বাংলা লিমিটেড, বিগো বাংলার কর্মী এসএম নাজমুল হক, আরিফ হোসেন, মুনসুন হোল্ডিং নামের প্রতিষ্ঠান। সিআইডির করা দ্বিতীয় মামলায় চীনা নাগরিক ও বিগোর এমডি ইয়াও জির বিরুদ্ধে ৭৯ কোটি টাকা বাংলাদেশ থেকে বিদেশে পাচারের অভিযোগ করা হয়েছে। সিআইডি বলছে, পাচারের উদ্দেশ্যে এ অর্থ সংগ্রহে বিগো টেকনোলজিকে সহযোগিতা করেছে মুনসুন হোল্ডিং লিমিটেড। মূলত মুনসুন হোল্ডিংয়ের নামে নেয়া পেমেন্ট গেটওয়ে ‘সূর্য পে’র সাহায্য নিয়ে বিপুল এ অর্থ আত্মসাৎ করে বিগো টেকনোলজি।

জানা গেছে, বিগো অ্যাপে লাইভ ভিডিওর মাধ্যমে অশ্লীলতা ছড়ানোর অভিযোগে গত বছরের জুনে চীনা নাগরিক ইয়াও জিসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে সিআইডি। পরে তাদের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা ও পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়। ওই মামলার অন্য চার আসামি হলেন বিগো বাংলার কর্মী মোস্তাফা সাইফ রেজা, আরিফ হোসেন, এসএম নাজমুল হক ও আসমা উল হুসনা সেজুতী। তারা সবাই এখন কারাগারে।

এমামলার তদন্তসংশ্লিষ্টরা জানান, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠান হিসেবে ঘোষণা দিলেও বিগো লাইভ মূলত লাইভ চ্যাট ও ভিডিও চ্যাটভিত্তিক কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করে। কিছুদিন পরই প্রতিষ্ঠানটি ভার্চুয়াল ডায়মন্ড ও বিনস বিক্রির মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের অর্থ হাতিয়ে নিতে শুরু করে। এরপর শুরু হয় বিগো ও লাইকির অ্যাপ ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাৎ। এক্ষেত্রে এমএফএস, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ব্যবহারের পর সবশেষে সূর্য পে নামের পেমেন্ট গেটওয়ে সার্ভিস ব্যবহার করা হয়। সব মিলিয়ে দেড় বছরে তারা হাতিয়ে নেয় ১০৮ কোটি টাকা।

রাজধানীর পল্টন থানার পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের একটি মামলার তদন্তে নেমে অর্থ আত্মসাৎ ও পরবর্তী সময়ে সেই অর্থ সিঙ্গাপুরে সরিয়ে নেয়ার তথ্য পায় পুলিশ। পরে মামলাটি তদন্ত শুরু করে সিআইডির সাইবার পুলিশ সেন্টার। দীর্ঘ তদন্ত শেষে পরিকল্পিতভাবে অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলা করেন তদন্ত কর্মকর্তা উপপুলিশ পরিদর্শক (এসআই) সোহেল রানা।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত ভার্চুয়াল ডায়মন্ড ও বিনস বিক্রির বিপরীতে অ্যাপটির বাংলাদেশি ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে এক কোটি ২৬ লাখ ৮০ হাজার ৮০৬ টাকা আয় করে বিগো লাইভ টেকনোলজি। এ অর্থ জমা হয় একটি বেসরকারি ব্যাংকের গাজীপুর শাখার হিসাব নম্বরে, যা বর্তমানে আদালতের নির্দেশে ফ্রিজ করে রাখা হয়েছে। ওই ব্যাংক হিসাবে স্থিতি রয়েছে এক লাখ ৩৪ হাজার ৪৭০ টাকা। বাকি এক কোটি ২৫ লাখ ৪৬ হাজার ৩৩৬ টাকা বিনস রিসেলার নাজমুল হক দেন চীনা নাগরিক ইয়াও জিকে। একই সময়ের মধ্যে আরও দুটি বেসরকারি ব্যাংকের হিসাবের মাধ্যমে বিগো বাংলা লিমিটেড ৪৩ কোটি ৫০ লাখ ৫০ হাজার ৭৬ টাকা সংগ্রহ করে।

এছাড়া ডায়মন্ড ও বিনস রিসেলার এসএম নাজমুল হকের ১২টি ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে ৪৭ কোটি ৮ লাখ ১০ হাজার ৮১২ টাকা সংগ্রহ করে বিগো বাংলা লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটিকে ‘সূর্য পে’ তাদের গেটওয়ে সেবা সরবরাহ করেছে বলে মামলার এজাহারে উল্লেখ করেন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সোহেল রানা। তিনি বলেন, ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের ক্ষেত্রে পেমেন্ট গেটওয়ে সুবিধাও নেয় বিগো বাংলা লিমিটেড। এক্ষেত্রে তাদের সূর্য পে নামের সূর্যমুখী লিমিটেডের পেমেন্ট গেটওয়ে পাইয়ে দেয় দেশি প্রতিষ্ঠান মুনসুন হোল্ডিং লিমিটেড। তারা মূলত নিজেদের নামে পেমেন্ট গেটওয়ে সার্ভিস নিয়ে সেটি বিগো বাংলা লিমিটেডকে ব্যবহারের সুযোগ করে দেয়। পেমেন্ট গেটওয়ে ব্যবহারের সুযোগ করে দেয়ার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারে সহযোগী হয়ে উঠেছে মুনসুন হোল্ডিং লিমিটেড।

back to top