alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

নারায়ণগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি, অন্যজনের যাবজ্জীবন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২

নারায়ণঞ্জে চাঞ্চল্যকর ব্যবসায়ী স্বপন কুমার সাহা হত্যা মামলায় এক আসামিকে মৃত্যুদন্ড ও আরেকজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক উম্মে সরাবন তহুরা এই রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে আসামি পিন্টু দেবনাথ মৃত্যুদন্ড ও রতœা চক্রবর্তী যাবজ্জীবন কারাদন্ডপ্রাপ্ত হন। এই মামলায় খালাস পেয়েছেন আব্দুল্লাহ আল মামুন নামে আরেক আসামি। রায় ঘোষণার সময় তিনজনই আদালতে আসামির কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

মামলার নথিতে জানা যায়, ২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর বাসা থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন শহরের নিতাইগঞ্জের সনাতন চন্দ্র সাহার ছেলে স্বপন কুমার সাহা। এই ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় জিডি করা হলেও খোঁজ মেলেনি স্বপনের। এদিকে ২০১৮ সালের ১৮ জুন নিখোঁজ হন শহরের আমলাপাড়ার স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষ। নিখোঁজের ২১ দিন পর ৯ জুলাই রাতে বন্ধু পিন্টু দেবনাথের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে প্রবীরের টুকরো মরদেহ উদ্ধার করে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। এই মামলার তদন্ত করতে গিয়ে ব্যবসায়ী স্বপনের নিখোঁজ ও তার মৃত্যুর যোগসূত্র পায় ডিবি। স্বপনের নিখোঁজের দেড় বছর পর ২০১৮ সালের ১৬ জুলাই তার বড়ভাই অজিত কুমার সাহা সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর মাকসুদা আহমেদ জানান, ‘নিহত স্বপন কুমার সাহা ধর্মান্তরিত হয়ে সাইদুর ইসলাম স্বপন নামধারণ করেছিলেন। স্বপন হত্যা মামলায় পিন্টু, রতœা ও মামুন গ্রেপ্তার হয়। তারা তিনজনই স্বপনের পূর্বপরিচিত ছিলেন। তিনজনই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। জবানবন্দিতে তারা জানায়, অর্থ লেনদেন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে স্বপনকে হত্যা করে পিন্টু দেবনাথ। তাকে সহযোগিতা করে বান্ধবী রতœা চক্রবর্তী। হত্যার পর লাশ টুকরো করে একাধিক বাজারের ব্যাগে ভরে শীতলক্ষ্যা নদীতে ফেলে দেয়।’

তিনি আরও জানান, ‘দেড় বছর পর হত্যা মামলা হয়। আসামিরা স্বীকারোক্তি দিলেও নিহতের মরদেহ আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে মামলার তদন্তকারী সংস্থা ডিবি পুলিশ নিহত স্বপনের মোবাইল ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বটিসহ বিভিন্ন আলামত জব্দ করে। ২০১৮ সালের ২০ নভেম্বর পিন্টু, রতœা ও মামুনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন ডিবির তৎকালীন এসআই মফিজুল ইসলাম।’

মামলার বাদী, তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ ১৬ জনের সাক্ষ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে আদালত একজনকে মৃত্যুদন্ড ও অপরজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন। মামলায় খালাস পান আরেক আসামি।

উল্লেখ্য, স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষ হত্যা মামলাতেও মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত হন পিন্টু দেবনাথ। ২০১৯ সালের ২৯ মে জেলা ও দায়রা জজ আদালত এই রায় ঘোষণা করেন। মামলাটি বর্তমানে উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

ছবি

গোলাপের নিউইয়র্কে ৯ বাড়ি: অনুসন্ধান চেয়ে দুদকে চিঠি, ব্যারিস্টার সুমনের

ছবি

শিবগঞ্জে ভূমিদস্যূকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা!

সিলেটে ট্রান্সফরমার চুরির সময় চোর নিহত

সখীপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাদকাসক্তকে এক বছরের কারাদণ্ড

১০ বছরের শিশু ধর্ষণের পর হত্যা, আসামির মৃত্যুদন্ড

ছবি

আলেশা মার্টের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

ছবি

আসিফকে ই-পাসপোর্ট দিতে নির্দেশ: হাইকোর্টের

ছবি

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিয়ে রিট, শুনানি ২ মাস পর

ছবি

মাকে ৫ টুকরো করে হত্যা: ছেলেসহ ৭ জনের ফাঁসি

ছবি

জন্ম নিবন্ধন সার্ভার হ্যাক করে ৫৪৮ সনদ ইস্যু: আটক ৪

ছবি

হাইকোর্টে স্বাস্থ্যের ডিজির ক্ষমা প্রার্থনা

ছবি

পিতৃপরিচয়হীন সন্তানের অভিভাবক হবেন মা

ছবি

ঘাতক বাস ‘সুপ্রভাত’ রাতারাতি নাম, রং পাল্টে হয়ে যায় ‘ভিক্টর’

বদলগাছীতে নারী উদ্যোক্তাকে যৌন হয়রানির অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে যেভাবে ধরা পড়ল জঙ্গি দলের সামরিক প্রধান রনবীর

ছবি

খালেদা জিয়ার ১১ মামলার হাজিরা ১৫ মে

ছবি

সাংবাদিক রোজিনার মামলার তদন্ত করবে পিবিআই

ছবি

জাপানি দুই শিশু কার কাছে থাকবে, জানা যাবে ২৯ জানুয়ারি

ছবি

মানবতাবিরোধী অপরাধ: ময়মনসিংহের ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আইনজীবী সমিতির সম্পাদকসহ ২১ আইনজীবীকে ১৯ ফেব্রুয়ারি হাজির হওয়ার নির্দেশ : হাইকোর্ট

ছবি

৭ বছর পর জানা গেল মেয়ের খুনি বাবা

ছবি

ইভ্যালির রাসেল-শামীমার বিরুদ্ধে অভিযোগ শুনানি পেছাল ২ মার্চ

ছবি

মানবতাবিরোধী অপরাধে ছয় জনের রায় সোমবার

নোয়াখালীতে ব্রাক্ষণের কাছে চাঁদা দাবি, গ্রেপ্তার ১

ছবি

মহাখালী ফ্লাইওভারে ছিনতাইয়ের সময় পুলিশের হাতে র‌্যাব সদস্য গ্রেপ্তার

ছবি

প্রবাসীর ওপর হামলার ঘটনায় দুইজন গ্রেপ্তার

ছবি

ভিসা জালিয়াতি: ভবিষ্যৎতে যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ অনিশ্চয়তাসহ সতর্ক করল দূতাবাস

সতের বছর পর ফুলপুর পুলিশের হাতে আটক চৌদ্দ বৎসরের সাজাপ্রাপ্ত সিরাজ

সিদ্ধিরগঞ্জে স্বামীর ছুরিকাঘাতে গৃহবধু খুন, থানায় মামলা

ছবি

তারেক-জোবায়দাকে আদালতে হাজির হতে গেজেট প্রকাশের নির্দেশ

পীরগজ্ঞে যৌতুক না দেয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা : স্বামীর মৃত্যুদন্ড

ডলারের অস্থিতিশীলতার নেপথ্য উদ্ঘাটনে তদন্ত শুরু : ১৪ জন গ্রেপ্তার, প্রায় ২ কোটি টাকা জব্দ

ছবি

বাগেরহাটের পূর্ব-সুন্দরবনের শুঁটকি পল্লী থেকে হরিণের মাংসসহ ৪ জেলে আটক

দুবাইয়ে ৪৫৯ বাংলাদেশির সম্পদ অনুসন্ধানে মাঠে নেমেছে দুদক

৬ বছর পর হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন এক অভিযুক্ত গ্রেপ্তার, স্বীকারোক্তি

ছবি

তলবের পরপরই কারাগারে ৯০ চিকিৎসকের পদায়ন

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

নারায়ণগঞ্জে হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি, অন্যজনের যাবজ্জীবন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২

নারায়ণঞ্জে চাঞ্চল্যকর ব্যবসায়ী স্বপন কুমার সাহা হত্যা মামলায় এক আসামিকে মৃত্যুদন্ড ও আরেকজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক উম্মে সরাবন তহুরা এই রায় ঘোষণা করেন।

রায়ে আসামি পিন্টু দেবনাথ মৃত্যুদন্ড ও রতœা চক্রবর্তী যাবজ্জীবন কারাদন্ডপ্রাপ্ত হন। এই মামলায় খালাস পেয়েছেন আব্দুল্লাহ আল মামুন নামে আরেক আসামি। রায় ঘোষণার সময় তিনজনই আদালতে আসামির কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

মামলার নথিতে জানা যায়, ২০১৬ সালের ২৭ অক্টোবর বাসা থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন শহরের নিতাইগঞ্জের সনাতন চন্দ্র সাহার ছেলে স্বপন কুমার সাহা। এই ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় জিডি করা হলেও খোঁজ মেলেনি স্বপনের। এদিকে ২০১৮ সালের ১৮ জুন নিখোঁজ হন শহরের আমলাপাড়ার স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষ। নিখোঁজের ২১ দিন পর ৯ জুলাই রাতে বন্ধু পিন্টু দেবনাথের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার বাড়ির সেপটিক ট্যাংকের ভেতর থেকে প্রবীরের টুকরো মরদেহ উদ্ধার করে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। এই মামলার তদন্ত করতে গিয়ে ব্যবসায়ী স্বপনের নিখোঁজ ও তার মৃত্যুর যোগসূত্র পায় ডিবি। স্বপনের নিখোঁজের দেড় বছর পর ২০১৮ সালের ১৬ জুলাই তার বড়ভাই অজিত কুমার সাহা সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর মাকসুদা আহমেদ জানান, ‘নিহত স্বপন কুমার সাহা ধর্মান্তরিত হয়ে সাইদুর ইসলাম স্বপন নামধারণ করেছিলেন। স্বপন হত্যা মামলায় পিন্টু, রতœা ও মামুন গ্রেপ্তার হয়। তারা তিনজনই স্বপনের পূর্বপরিচিত ছিলেন। তিনজনই আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। জবানবন্দিতে তারা জানায়, অর্থ লেনদেন নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে স্বপনকে হত্যা করে পিন্টু দেবনাথ। তাকে সহযোগিতা করে বান্ধবী রতœা চক্রবর্তী। হত্যার পর লাশ টুকরো করে একাধিক বাজারের ব্যাগে ভরে শীতলক্ষ্যা নদীতে ফেলে দেয়।’

তিনি আরও জানান, ‘দেড় বছর পর হত্যা মামলা হয়। আসামিরা স্বীকারোক্তি দিলেও নিহতের মরদেহ আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে মামলার তদন্তকারী সংস্থা ডিবি পুলিশ নিহত স্বপনের মোবাইল ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বটিসহ বিভিন্ন আলামত জব্দ করে। ২০১৮ সালের ২০ নভেম্বর পিন্টু, রতœা ও মামুনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন ডিবির তৎকালীন এসআই মফিজুল ইসলাম।’

মামলার বাদী, তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ ১৬ জনের সাক্ষ্য ও প্রমাণের ভিত্তিতে আদালত একজনকে মৃত্যুদন্ড ও অপরজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন। মামলায় খালাস পান আরেক আসামি।

উল্লেখ্য, স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রবীর চন্দ্র ঘোষ হত্যা মামলাতেও মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত হন পিন্টু দেবনাথ। ২০১৯ সালের ২৯ মে জেলা ও দায়রা জজ আদালত এই রায় ঘোষণা করেন। মামলাটি বর্তমানে উচ্চ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

back to top