alt

শিক্ষা

বাকি মাত্র ৩৬ দিন

সময়মতো নতুন পাঠ্যবই হাতে পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছানো এখন একটা রেওয়াজে দাঁড়িয়ে গেছে। আর এ জন্য প্রতিবছরই শেষবেলা তোড়জোড় শুরু হয়ে যায় সংশ্লিষ্ট মহলের। নতুন বছরে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই পৌঁছে দিতে বাকি আর মাত্র ৩৬ দিন। আর এই সময়ের মধ্যে বই ছাপানোর কাজ শেষ করতে দিনরাত পরিশ্রম করছেন ছাপাখানার কর্মীরা।

জানা গেছে, এখনও প্রায় ১৫ কোটি বই ছাপানো বাকি বয়েছে। এতসংখ্যক বই ৩৬ দিনে ছাপানো নিয়ে শঙ্কিত জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। যদিও এনসিটিবির তোড়জোড় চলছে সময়ের মধ্যে বই ছাপানো শেষ করে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়ার।

একদিকে, চুক্তি অনুযায়ী ১ মাস ৬ দিনের মধ্যে বই তুলে দেয়া অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াতের ডাকা হরতাল-অবরোধে পেপারমিল থেকে কাগজ আনতে নিরাপত্তা শঙ্কায় ভুগছেন ছাপাখানার মালিকদের অনেকে। কাগজবোঝাই গাড়িতে অবরোধকারীরা আগুন দিলে লোকসান গুনতে হবে তাদের।

ছাপাখানার মালিকদের এমন সমস্যার কথা শুনে সমস্যা নিরসনে পদক্ষেপ নিয়েছে এনসিটিবিও। ছাপাখানায় কাগজ নিরাপদে পৌঁছানোর ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. ফরহাদুল ইসলাম। এখন স্ব-স্ব এলাকার থানা পুলিশ এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেবে।

অধ্যাপক ফরহাদুল ইসলাম বলেন, হরতাল-অবরোধের কারণে পেপারমিল থেকে ছাপাখানায় কাগজ আনতে পারছেন না অনেকে। এটা নিয়েও আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী দপ্তরে আমরা চিঠি দিয়েছি। সেখান থেকে পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। এখন যারা পেপারমিল থেকে কাগজ কিনবেন, মিল থেকে প্রেস পর্যন্ত কাগজবোঝাই ট্রাক পৌঁছে দিতে ব্যবস্থা নেবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। রাস্তায় নিরাপত্তা দেবে পুলিশ।

তবে মুদ্রণশিল্প সমিতির নেতারা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের দাবি, কাগজের সংকটও নেই। হরতাল-অবরোধে কাগজ আনা-নেয়াতে সমস্যাও নেই। এনসিটিবি অনিয়ম করে ছোট ছোট প্রেসকে বেশি কাজ দিয়েছে। সক্ষমতা নেই এমন প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়ায় তারা এখন অজুহাত দেখাচ্ছেন।

এ বিষয়ে মুদ্রণশিল্প সমিতির সভাপতি শহীদ সেরনিয়াবাত বলেন, ‘কাগজের সংকট কাদের? যাদের কাজ করার সক্ষমতা নেই, তাদের। এনসিটিবি নোয়াখালীর এক অগ্রণী প্রেসকে ৯৮ লটের মধ্যে ৯৪ লটের কাজ দিয়ে রেখেছে। ওদের কাজ করার কোনো তো অভিজ্ঞতায় নেই। ওরা এখন যথাসময়ে বই দিতে পারছে না। এজন্য নানা অজুহাত দেখাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘হরতাল-অবরোধে কোন কাজটা বেঁধে আছে? বই ছাপার জন্য কাগজ আনবে, এটা তো জরুরি পণ্য। সেখানে আগুন দেবে কে? আমরাও তো কাগজ আনছি। এগুলো এনসিটিবি চেয়ারম্যানের মনগড়া কথা। তিনি নিজের ব্যর্থতা ও অনিয়ম ঢাকতে ছোটখাটো এবং কাজে অক্ষম প্রেসগুলোর মালিকদের কথাই সাংবাদিকদের জানাচ্ছেন। এটা উনাদের ব্যর্থতা।’

এদিকে আশঙ্কা প্রকাশ করে ‘আর প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং’য়ের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘কাগজ সংকট নয়, সংকটটা এনসিটিবির। তারা চালাকি বেশি করতে গিয়ে ধরা খেয়েছেন। এখন শেষবেলায় লাফালাফি করছেন। ডিসেম্বরের মধ্যে বই ছাপা কেউ শেষ করতে পারবে না। জানুয়ারির ১ তারিখে শতভাগ বই শিক্ষার্থীদের দেয়া সম্ভব হবে না।’

এনসিটিবি চিঠি দিয়ে মিডিয়ায় কোনো তথ্য দিতে নিষেধ করেছে জানিয়ে কাগজ সংকটে পড়া নোয়াখালীর অগ্রণী প্রেসের স্বত্বাধিকারী কাওছারুজ্জামান রুবেল বলেন, ‘আমাদের সংকট আছে কি, নেই; সেটা আমরা এনসিটিবিকে জানাবো। কিন্তু আপনাদের (গণমাধ্যম) জানাতে পারবো না।’

সংকট কাটিয়ে বই যথাসময়েই শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছানো হবে দাবি করে এনসিটিবি চেয়ারম্যান বলেন, ‘প্রাথমিকের বেশিরভাগ বই আমরা উপজেলা পর্যায়ে পাঠিয়ে দিয়েছি। ষষ্ঠ ও সপ্তমের বই তো চলেই গেছে বেশিরভাগ। ষষ্ঠ ও সপ্তমের দুই বিষয়ের বই আটকে আছে। অষ্টম ও নবম নিয়ে সমস্যা।’

তিনি বলেন, ‘অর্থ ছাড় না হওয়ায় প্রেসগুলোকে বিল দিতে পারছি না। টাকা পেলে বিল দিতে পারলে সব সমস্যা কেটে যাবে। ওরা (প্রেস মালিক) যে কথাটা বলছে, তা হলো টাকা ও কাগজ পেলে তাদের জন্য বই ছাপিয়ে দেয়া কোনো সমস্যাই না। তাছাড়া অর্থছাড়ের পর যদি সময় হাতে কম থাকে, তাহলে ফাঁকা প্রেসগুলোতে কাজ ভাগাভাগি করে দেয়া হবে। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যেই বই ছাপিয়ে পৌঁছে দেয়া হবে।’

ছবি

যৌন নির্যাতন ও হয়রানির অভিযোগ আমলে নেওয়ার আহ্বান: ইউজিসি

ছবি

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ, উত্তীর্ণ ২০ হাজার প্রার্থী

ছবি

দ্বিতীয় ধাপের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফল প্রকাশ, উত্তীর্ণ ২০ হাজার ৬৪৭

ছবি

নতুন শিক্ষাক্রমে শিক্ষক প্রশিক্ষণের ব্যয় নিয়ে জটিলতা

ছবি

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা, ওএমআর শিট ছেড়ার অভিযোগ মিথ্যা: তদন্ত কমিটির মহাপরিচালক

ছবি

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে ২০২৫ সালের এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে

ছবি

খুবির শিক্ষার্থীদের ‘মারধর’, প্রতিবাদে সড়কে বিক্ষোভ

ছবি

৪৬তম বিসিএস: পরীক্ষা হতে পারে এপ্রিলের শেষে

ছবি

পদোন্নতিতে বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে ‘বঞ্চনা ও অসন্তোষ’

ছবি

বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে ইইডি প্রধান প্রকৌশলীর শ্রদ্ধা

ছবি

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার প্রথম দিনই অনুপস্থিত ১৯ হাজার ৩৫৯ জন শিক্ষার্থী

ছবি

এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ডিএমপির কুইক রেসপন্স টিম

ছবি

ইইডির প্রধান প্রকৌশলীর মেয়াদ ২ বছর বাড়ল

ছবি

মায়ানমারে সংঘর্ষের কারণে ঘুমধুমের এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র পরিবর্তন

ছবি

রাবিতে ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ও শিক্ষকের বিচার চেয়ে বিক্ষোভ

নতুন শিক্ষাক্রম মূল্যায়ন কমিটির প্রধানই তদন্তের আওতায়

ছবি

মেডিকেলে ভর্তির ফল প্রকাশ হতে পারে কাল বা পরশু

ছবি

প্রশ্ন ফাঁস বন্ধের লক্ষ্যে এমবিবিএস ভর্তি প্রক্রিয়া ডিজিটালাইজ করা হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডাক্তার হতে চাওয়া লাখো শিক্ষার্থী পরীক্ষায় বসেছেন

নতুন শিক্ষাক্রমে এসএসসি পরীক্ষা কীভাবে হবে সেই বিষয়ে উদ্বেগ

ছবি

চলতি শিক্ষাবর্ষের ছুটির তালিকায় রোজায় চলবে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্কুলের ক্লাস

ছবি

‘দ্বন্ধ-সংঘাতমুক্ত’ সমাজ নির্মাণে শিক্ষকদের ভূমিকা অনস্বীকার্য

ছবি

জাবিতে ধর্ষণকাণ্ডে জড়িতদের শাস্তি চেয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ, মিছিল

ছবি

চবিতে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ, শিক্ষকের বহিষ্কার দাবিতে আন্দোলন

ছবি

রাবিতে ধর্ষণবিরোধী বিক্ষোভ-মিছিলে ছাত্রলীগের বাধা

ছবি

এসএসসি পরীক্ষায় কেন্দ্র পরিদর্শনে যাবেন না শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

ধর্ষণের ঘটনায় বিক্ষোভে উত্তাল জাবি

ছবি

উপবৃত্তি, প্রতিষ্ঠান ও প্রকল্প দ্রুত বাড়লেও শিক্ষার্থী এনরোলমেন্টে ধীরগতি

ছবি

২২ জেলায় প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা কাল

ছবি

নতুন শিক্ষাক্রমের বই বিতরণে অনীহা, শ্রেণীকক্ষে মূল্যায়নে জটিলতার শঙ্কা

ছবি

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন

ছবি

মায়ানমার সীমান্তে গোলাগুলি, নাইক্ষ্যংছড়ির ৫ স্কুলে ‘ছুটি’

ছবি

বদলি না করলে শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে না পাঠানোর সিদ্ধান্ত

ছবি

এসএসসি পরীক্ষা জন্য এক মাস কোচিং সেন্টার বন্ধ

ছবি

রাবি ভর্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত আবেদন শুরু

ছবি

গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার

tab

শিক্ষা

বাকি মাত্র ৩৬ দিন

সময়মতো নতুন পাঠ্যবই হাতে পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের হাতে বই পৌঁছানো এখন একটা রেওয়াজে দাঁড়িয়ে গেছে। আর এ জন্য প্রতিবছরই শেষবেলা তোড়জোড় শুরু হয়ে যায় সংশ্লিষ্ট মহলের। নতুন বছরে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই পৌঁছে দিতে বাকি আর মাত্র ৩৬ দিন। আর এই সময়ের মধ্যে বই ছাপানোর কাজ শেষ করতে দিনরাত পরিশ্রম করছেন ছাপাখানার কর্মীরা।

জানা গেছে, এখনও প্রায় ১৫ কোটি বই ছাপানো বাকি বয়েছে। এতসংখ্যক বই ৩৬ দিনে ছাপানো নিয়ে শঙ্কিত জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। যদিও এনসিটিবির তোড়জোড় চলছে সময়ের মধ্যে বই ছাপানো শেষ করে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়ার।

একদিকে, চুক্তি অনুযায়ী ১ মাস ৬ দিনের মধ্যে বই তুলে দেয়া অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াতের ডাকা হরতাল-অবরোধে পেপারমিল থেকে কাগজ আনতে নিরাপত্তা শঙ্কায় ভুগছেন ছাপাখানার মালিকদের অনেকে। কাগজবোঝাই গাড়িতে অবরোধকারীরা আগুন দিলে লোকসান গুনতে হবে তাদের।

ছাপাখানার মালিকদের এমন সমস্যার কথা শুনে সমস্যা নিরসনে পদক্ষেপ নিয়েছে এনসিটিবিও। ছাপাখানায় কাগজ নিরাপদে পৌঁছানোর ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. ফরহাদুল ইসলাম। এখন স্ব-স্ব এলাকার থানা পুলিশ এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেবে।

অধ্যাপক ফরহাদুল ইসলাম বলেন, হরতাল-অবরোধের কারণে পেপারমিল থেকে ছাপাখানায় কাগজ আনতে পারছেন না অনেকে। এটা নিয়েও আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি। প্রধানমন্ত্রী দপ্তরে আমরা চিঠি দিয়েছি। সেখান থেকে পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। এখন যারা পেপারমিল থেকে কাগজ কিনবেন, মিল থেকে প্রেস পর্যন্ত কাগজবোঝাই ট্রাক পৌঁছে দিতে ব্যবস্থা নেবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। রাস্তায় নিরাপত্তা দেবে পুলিশ।

তবে মুদ্রণশিল্প সমিতির নেতারা বলছেন ভিন্ন কথা। তাদের দাবি, কাগজের সংকটও নেই। হরতাল-অবরোধে কাগজ আনা-নেয়াতে সমস্যাও নেই। এনসিটিবি অনিয়ম করে ছোট ছোট প্রেসকে বেশি কাজ দিয়েছে। সক্ষমতা নেই এমন প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়ায় তারা এখন অজুহাত দেখাচ্ছেন।

এ বিষয়ে মুদ্রণশিল্প সমিতির সভাপতি শহীদ সেরনিয়াবাত বলেন, ‘কাগজের সংকট কাদের? যাদের কাজ করার সক্ষমতা নেই, তাদের। এনসিটিবি নোয়াখালীর এক অগ্রণী প্রেসকে ৯৮ লটের মধ্যে ৯৪ লটের কাজ দিয়ে রেখেছে। ওদের কাজ করার কোনো তো অভিজ্ঞতায় নেই। ওরা এখন যথাসময়ে বই দিতে পারছে না। এজন্য নানা অজুহাত দেখাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘হরতাল-অবরোধে কোন কাজটা বেঁধে আছে? বই ছাপার জন্য কাগজ আনবে, এটা তো জরুরি পণ্য। সেখানে আগুন দেবে কে? আমরাও তো কাগজ আনছি। এগুলো এনসিটিবি চেয়ারম্যানের মনগড়া কথা। তিনি নিজের ব্যর্থতা ও অনিয়ম ঢাকতে ছোটখাটো এবং কাজে অক্ষম প্রেসগুলোর মালিকদের কথাই সাংবাদিকদের জানাচ্ছেন। এটা উনাদের ব্যর্থতা।’

এদিকে আশঙ্কা প্রকাশ করে ‘আর প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং’য়ের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘কাগজ সংকট নয়, সংকটটা এনসিটিবির। তারা চালাকি বেশি করতে গিয়ে ধরা খেয়েছেন। এখন শেষবেলায় লাফালাফি করছেন। ডিসেম্বরের মধ্যে বই ছাপা কেউ শেষ করতে পারবে না। জানুয়ারির ১ তারিখে শতভাগ বই শিক্ষার্থীদের দেয়া সম্ভব হবে না।’

এনসিটিবি চিঠি দিয়ে মিডিয়ায় কোনো তথ্য দিতে নিষেধ করেছে জানিয়ে কাগজ সংকটে পড়া নোয়াখালীর অগ্রণী প্রেসের স্বত্বাধিকারী কাওছারুজ্জামান রুবেল বলেন, ‘আমাদের সংকট আছে কি, নেই; সেটা আমরা এনসিটিবিকে জানাবো। কিন্তু আপনাদের (গণমাধ্যম) জানাতে পারবো না।’

সংকট কাটিয়ে বই যথাসময়েই শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছানো হবে দাবি করে এনসিটিবি চেয়ারম্যান বলেন, ‘প্রাথমিকের বেশিরভাগ বই আমরা উপজেলা পর্যায়ে পাঠিয়ে দিয়েছি। ষষ্ঠ ও সপ্তমের বই তো চলেই গেছে বেশিরভাগ। ষষ্ঠ ও সপ্তমের দুই বিষয়ের বই আটকে আছে। অষ্টম ও নবম নিয়ে সমস্যা।’

তিনি বলেন, ‘অর্থ ছাড় না হওয়ায় প্রেসগুলোকে বিল দিতে পারছি না। টাকা পেলে বিল দিতে পারলে সব সমস্যা কেটে যাবে। ওরা (প্রেস মালিক) যে কথাটা বলছে, তা হলো টাকা ও কাগজ পেলে তাদের জন্য বই ছাপিয়ে দেয়া কোনো সমস্যাই না। তাছাড়া অর্থছাড়ের পর যদি সময় হাতে কম থাকে, তাহলে ফাঁকা প্রেসগুলোতে কাজ ভাগাভাগি করে দেয়া হবে। ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যেই বই ছাপিয়ে পৌঁছে দেয়া হবে।’

back to top