alt

শিক্ষা

‘অতি ঝুঁকিপূর্ণ’ ৪৪টি শিক্ষা ভবন আপাতত ভাঙা হচ্ছে না

রাকিব উদ্দিন : মঙ্গলবার, ০৭ মে ২০২৪

রাজউকের ‘অতি ঝুঁকিপূর্ণ’ ঘোষিত ৪৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভবন আপাতত ভাঙা হচ্ছে না। ভবনগুলোর ব্যবহার অব্যাহত রাখবে শিক্ষা প্রশাসন। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) যে প্রক্রিয়ায় ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ শিক্ষা ভবনের তালিকা তৈরি করেছে তাতে আস্থা রাখতে পারছে না শিক্ষা প্রশাসন এবং শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর (ইইডি)।

রাজউক গত বছরের ২৯ জানুয়ারি স্কুল-কলেজ ও বিশ^বিদ্যালয়ের ১৮৭টি ভবনকে মজবুতিকরণ (রেট্রোফিটিং) ও ৪৪টি ভবনকে ‘সিলগালা’ করতে আটটি প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দিয়েছিল। সেই অনুযায়ী ৪৪টি ভবনকে ‘সিলগালা’ করতে গত ৩ এপ্রিল শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) নির্দেশনা জারি করেছিল। প্রায় সবকটি ভবন এখনও ব্যবহার হচ্ছে বলে মাউশির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ইইডির প্রধান প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার মঙ্গলবার (৭ মে) সংবাদকে বলেন, কোন একটি অবকাঠামোকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করতে হলে নির্দিষ্ট ‘ইন্ডিকেটর’ (নির্দেশক বা সূচক) লাগে। ‘ইন্ডিকেটর’ ছাড়া কীভাবে একটি ভবনকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা সম্ভব?

রাজউক কোনো ‘ইন্ডিকেটরের’ ভিত্তিতে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ শিক্ষা ভবনের তালিকা তৈরি করেছে সেই প্রশ্ন রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তারা জাপানি অর্থায়নে বাস্তবায়ন হওয়া একটি প্রকল্পের মাধ্যমে কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে। এভাবে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করলেই হলো?’

জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা হয় না মন্তব্য করে ইইডি প্রধান প্রকৌশলী বলেন, জাপান ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণপ্রবল দেশ। দেশটির ভূমিকম্প ঝুঁকি এক রকম; আর বাংলাদেশের পরিস্থিতি আরেক রকম।

গত বছরের জানুয়ারি রাজউকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএসএমএমইউ’র (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয়) তিনটি ভবন এবং জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের চারটি ভবন ভেঙে ফেলতে হবে।

এছাড়া ইনস্টিটিউট অব লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলোজির তিনটি ভবন মজবুতিকরণ ও স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের চারটি ভবন মজবুতিকরণ করতে হবে। আর মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ছয়টি ভবন মজবুতিকরণ ও একটি ভবন ভেঙে ফেলা, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) ১০টি ভবন মজবুতিকরণ ও একটি ভবন ভেঙে ফেলা এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের ১০টি ভবন মজবুতিকরণ ও তিনটি ভবন ভেঙে ফেলার সুপারিশ করে রাজউক।

রাজউক থেকে গত ১৪ মার্চ ইইডির প্রধান প্রকৌশলীকে দেয়া এক চিঠিতে ১৫৪টি ভবন মজবুতিকরণ ও ৩০টি ভবন ভেঙে ফেলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে ১৮৭টি ভবন মজবুতিকরণ ও ৪২টি ভবন ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ইইডির একজন জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলী বলেন, ‘ভবন রেট্রোফিটিং অনেক ব্যয়বহুল। একটি চারতলা ভবন রেট্রোফিটিং করতে অন্তত ৩০ থেকে ৪০ লাখ টাকার প্রয়োজন হয়। এই টাকা কে বহন করবে? তাছাড়া হঠাৎ ভবনগুলো ভাঙতে গেলে বিরূপ পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। শ্রেণী কার্যক্রম ব্যাহত হলে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামতে পারে।’

এ বিষয়ে ইইডির প্রধান প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার বলেন, ‘ভবনগুলোর কর্তৃপক্ষ মাউশি। আমরা চাইলেই ভেঙে ফেলতে পারি না, রেট্রোফিটিংও করতে পারি না। তাছাড়া হঠাৎ ভবনগুলো ভাঙা হলে প্রতিষ্ঠানগুলো চলবে কীভাবে?’ তিনি এ বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে মাউশি এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভা করা হবে বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘ইইডি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়ন করে থাকে। যে কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য নির্বাচিত অবকাঠামোর নির্মাণ সমাপ্তির পর সেটি প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়।’ এজন্য তারা চাইলেই কোনো ভবন ভেঙে ফেলা বা ‘রেট্রোফিটিং’ করতে পারেন না।

গত ৩ এপ্রিল মাউশির সহকারী পরিচালক (প্রকৌশল) আ. খালেক স্বাক্ষরিত এক আদেশে বলা হয়, রাজউকের তালিকায় থাকা বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবনগুলো মজবুত করতে হবে। আর ‘অধিক ঝুঁকিপূর্ণ’ ৪৪টি ভবন সাত দিনের মধ্যে খালি করে সিলগালা করতে হবে অথবা ভেঙে ফেলতে হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাউশির পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী মঙ্গলবার সংবাদকে বলেছেন, ‘প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ্য থেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। আমরাও কথা বলেছি। হঠাৎ ভবনগুলো ভাঙতে গেলে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হবে। শিক্ষা উপকরণ নষ্ট হবে।’

ভবনগুলো অপসারণ করতে হলে ‘রিলোকেশন প্ল্যান’ করতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ জন্য বাজেট প্রয়োজন; ভবনগুলোতে যে শিক্ষা উপকরণ ও ল্যাব রয়েছে সেগুলো স্থানান্তর প্রয়োজন। শিক্ষার্থীরা কোথাও বসবে সেসব বিষয়ও ভাবতে হবে। কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে ভবন ভাঙা হলে শিক্ষা কার্যক্রম একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে।’

অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী জানান, ইইডির পক্ষ্য থেকে মাউশিকে বলা হয়েছে এ বিষয়ে তারা সভা করতে চান। সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের কর্মকর্তারাও থাকবেন। প্রয়োজনে ইইডির প্রকৌশলীরা ওইসব ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবন আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে পারেন বলে জানান তিনি।

মাউশি যেসব প্রতিষ্ঠানের ভবন ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে সেগুলো হলোÑ বাড্ডার আলাতুন্নেছা উচ্চমাধ্যমিক স্কুল, আলাতুন্নেছা উচ্চমাধ্যমিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সাভারের ভাকুর্তা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জের দেলপাড়া সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল, দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, মিরপুর-১ নম্বরের সরকারি বাংলা কলেজ, নারায়ণগঞ্জের সরকারি কদম রসুল কলেজ, গাজীপুরের সরকারি কালীগঞ্জ শ্রমিক কলেজ, ডেমরার হায়দার আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মিরপুর ১৩ নম্বরের হাজী আলী হোসেন উচ্চবিদ্যালয়, পল্টনের আরামবাগ উচ্চবিদ্যালয়, সূত্রাপুরের কবি নজরুল সরকারি কলেজ, গাজীপুরের কালীগঞ্জ আর আর এন পাবলিক উচ্চবিদ্যালয়, কেরানীগঞ্জ বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খিলগাঁও সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, গোড়ানের আলী আহমেদ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সায়েদাবাদের করাতিটোলা সিএমএস উচ্চবিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ, যাত্রাবাড়ীর শহীদ জিয়া বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সাভারের ভাকুর্তার শ্যামলনগর স্কুল অ্যান্ড কলেজ, তেজগাঁও মডেল উচ্চবিদ্যালয়, কদমতলীর একেকে উচ্চবিদ্যালয় অ্যান্ড ব্রাইট কলেজ, বাড্ডার একেএম রহমাতুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, কদমতলীর কেএম মাইনুদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় আদর্শ উচ্চবিদ্যালয় (মিঠাব), আজিমপুরের অগ্রণী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কোতয়ালী থানার আহমেদ বাওয়ানী একাডেমি ও লালবাগের আনন্দময়ী বালিকা বিদ্যালয়।

এদিকে কবি নজরুল সরকারি কলেজ, খিলগাঁও সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, গোড়ানের আলী আহমেদ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আহমেদ বাওয়ানী একাডেমির শিক্ষকরা সংবাদকে জানিয়েছেন, তারা স্বাভাবিকভাবেই ভবনগুলোতে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন।

রাজউকের অধীনে ‘আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্প : রাজউক অংশ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নিয়োজিত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ডিএমডিপি এলাকার সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বিভিন্ন সংস্থার মালিকানাধীন ‘অধিক ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবনগুলো ভেঙে ফেলার সুপারিশ করেছে।

‘ঢাকা মেট্রোপলিটান ডেভেলপমেন্ট প্ল্যান’ (ডিএমডিপি) এলাকার সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বিভিন্ন সংস্থার মালিকানাধীন তিন হাজার ২৫২টি ভবনের (স্কুল, কলেজ, বিশ^বিদ্যালয়, হাসপাতাল ইত্যাদি) র‌্যাপিড ভিজ্যুয়াল অ্যাসেসমেন্ট, ৫৭৯টি ভবনের প্রিলিমিনারি ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যাসেসমেন্ট এবং ১৮৭টি ডিটেইল ইঞ্জিরিয়ারিং অ্যাসেসমেন্ট করে ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণ নিরূপণ করা হয়।

ছবি

শামুক নিয়ে গবেষণায় রাবির গবেষক দলের সাফল্য

ছবি

৩০ শতাংশের বেশি শিক্ষার্থী স্কুলে আসে না

রাণীনগরে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীদের সংবর্ধনা

ছবি

শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন প্রকল্পের ৫,৪০০ জনের ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট সম্পন্ন

ছবি

নোবিপ্রবি’র আয়োজনে একাডেমিয়া-ইন্ডাস্ট্রি সহযোগিতা বিষয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

ছবি

এইচএসসি পরীক্ষা চলাকালেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলবে ক্লাস

ছবি

এসএসসি: পুনঃনিরীক্ষণে পরিবর্তন হলো ঢাকা বোর্ডের ২৭২৩ জনের ফল

ছবি

ইউআইটিএস-এ গবেষণা প্রকাশনার উপর আন্তর্জাতিক ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত

ছবি

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির আবেদন সময় বাড়লো দুই দিন

সব শিক্ষককে প্রশিক্ষণ না দিয়েই ষান্মাসিক সামষ্টিক মূল্যায়ন

ছবি

শিক্ষা ক্যাডার: নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করল শাহেদ-তানভীর-মোস্তাফিজ প্যানেল

ক্যারিয়ার নিয়ে দুশ্চিন্তায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৫ শতাংশ শিক্ষার্থী, তাদের ৩৯ শতাংশ শিক্ষার্থীর মনে আত্মহত্যার চিন্তা আসে

ছবি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, ক্লাস শুরু ২৩ জুন

অ্যাসোসিয়েশন নির্বাচনের ৩ দিন আগে বদলি নিয়ে শিক্ষা ক্যাডারে অস্থিরতা

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় খুলছে ৯ জুন

উচ্চ শিক্ষিতদের ৩৯ শতাংশ বেকার, সরকারি জরিপ

বিকাশে একাদশ শ্রেণির ভর্তির আবেদন ফি

ছবি

স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটিতে ভর্তিমেলায় চলছে বিশেষ ছাড়

ছবি

প্রতিটি কলেজে শিক্ষক প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করতে চাই : মশিউর রহমান

এইচএসসি পরীক্ষা ৩০ জুনই শুরু হবে : ঢাকা শিক্ষা বোর্ড

ছবি

৪৩তম বিসিএসে সুপারিশপ্রাপ্ত জবিয়ানদের মিলনমেলা

ছবি

চীনের ৭তলা ভবন থেকে লাফিয়ে পড়লেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী

ছবি

যুক্তরাষ্ট্রে কৌশিক সাহার পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন

ছবি

বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য বিনামূল্যে লেখাপড়ার সুযোগ দিচ্ছে চীন, আবাসনসহ প্রতিমাসে ৪০ হাজার টাকা

ছবি

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: হাইকোর্টের রায় আদেশ স্থগিত করল আপিল বিভাগ

ছবি

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির আবেদনে এবার ‘পেমেন্ট সমস্যা’

ছবি

পেনশন স্কিম বাতিলের দাবিতে জবি শিক্ষকরা ক্লাস নেয়নি ২ ঘন্টা

ছবি

গুচ্ছে আবেদনের সময় বাড়ছে ১ দিন

ছবি

গবেষণার ফলাফল সকলের বোধগম্য হওয়াই বিজ্ঞানীর স্বার্থকতা : সাদেকা হালিম

ছবি

ডেঙ্গু প্রতিরোধে শিক্ষার্থীদের সচেতন হওয়ার আহ্বান জবি উপাচার্যের

ছবি

সার্বজনীন পেনশন বাতিলের দাবিতে জবি শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

ছবি

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির আবেদন শুরু হলো আজ

ছবি

কারিগরি বোর্ড : সিস্টেম এনালিস্ট চুরি করেন ৫ হাজার পিস বিশেষ কাগজ

ছবি

শিক্ষার্থী সংকট, একীভূত হচ্ছে খুলনার ৪৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়

ছবি

ওয়াইল্ড লাইফ অলিম্পিয়াডের নিবন্ধন চলছে

ছবি

১৫-২৫ জুলাই একাদশে ভর্তি, ৩০ জুলাই ক্লাস শুরু

tab

শিক্ষা

‘অতি ঝুঁকিপূর্ণ’ ৪৪টি শিক্ষা ভবন আপাতত ভাঙা হচ্ছে না

রাকিব উদ্দিন

মঙ্গলবার, ০৭ মে ২০২৪

রাজউকের ‘অতি ঝুঁকিপূর্ণ’ ঘোষিত ৪৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভবন আপাতত ভাঙা হচ্ছে না। ভবনগুলোর ব্যবহার অব্যাহত রাখবে শিক্ষা প্রশাসন। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) যে প্রক্রিয়ায় ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ শিক্ষা ভবনের তালিকা তৈরি করেছে তাতে আস্থা রাখতে পারছে না শিক্ষা প্রশাসন এবং শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর (ইইডি)।

রাজউক গত বছরের ২৯ জানুয়ারি স্কুল-কলেজ ও বিশ^বিদ্যালয়ের ১৮৭টি ভবনকে মজবুতিকরণ (রেট্রোফিটিং) ও ৪৪টি ভবনকে ‘সিলগালা’ করতে আটটি প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দিয়েছিল। সেই অনুযায়ী ৪৪টি ভবনকে ‘সিলগালা’ করতে গত ৩ এপ্রিল শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) নির্দেশনা জারি করেছিল। প্রায় সবকটি ভবন এখনও ব্যবহার হচ্ছে বলে মাউশির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ইইডির প্রধান প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার মঙ্গলবার (৭ মে) সংবাদকে বলেন, কোন একটি অবকাঠামোকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করতে হলে নির্দিষ্ট ‘ইন্ডিকেটর’ (নির্দেশক বা সূচক) লাগে। ‘ইন্ডিকেটর’ ছাড়া কীভাবে একটি ভবনকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা সম্ভব?

রাজউক কোনো ‘ইন্ডিকেটরের’ ভিত্তিতে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ শিক্ষা ভবনের তালিকা তৈরি করেছে সেই প্রশ্ন রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘তারা জাপানি অর্থায়নে বাস্তবায়ন হওয়া একটি প্রকল্পের মাধ্যমে কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে। এভাবে ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করলেই হলো?’

জাপানের সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা হয় না মন্তব্য করে ইইডি প্রধান প্রকৌশলী বলেন, জাপান ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণপ্রবল দেশ। দেশটির ভূমিকম্প ঝুঁকি এক রকম; আর বাংলাদেশের পরিস্থিতি আরেক রকম।

গত বছরের জানুয়ারি রাজউকের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএসএমএমইউ’র (বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ^বিদ্যালয়) তিনটি ভবন এবং জগন্নাথ বিশ^বিদ্যালয়ের চারটি ভবন ভেঙে ফেলতে হবে।

এছাড়া ইনস্টিটিউট অব লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলোজির তিনটি ভবন মজবুতিকরণ ও স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের চারটি ভবন মজবুতিকরণ করতে হবে। আর মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ছয়টি ভবন মজবুতিকরণ ও একটি ভবন ভেঙে ফেলা, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) ১০টি ভবন মজবুতিকরণ ও একটি ভবন ভেঙে ফেলা এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ^বিদ্যালয়ের ১০টি ভবন মজবুতিকরণ ও তিনটি ভবন ভেঙে ফেলার সুপারিশ করে রাজউক।

রাজউক থেকে গত ১৪ মার্চ ইইডির প্রধান প্রকৌশলীকে দেয়া এক চিঠিতে ১৫৪টি ভবন মজবুতিকরণ ও ৩০টি ভবন ভেঙে ফেলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সবমিলিয়ে ১৮৭টি ভবন মজবুতিকরণ ও ৪২টি ভবন ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

ইইডির একজন জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলী বলেন, ‘ভবন রেট্রোফিটিং অনেক ব্যয়বহুল। একটি চারতলা ভবন রেট্রোফিটিং করতে অন্তত ৩০ থেকে ৪০ লাখ টাকার প্রয়োজন হয়। এই টাকা কে বহন করবে? তাছাড়া হঠাৎ ভবনগুলো ভাঙতে গেলে বিরূপ পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। শ্রেণী কার্যক্রম ব্যাহত হলে শিক্ষার্থীরা আন্দোলনে নামতে পারে।’

এ বিষয়ে ইইডির প্রধান প্রকৌশলী দেলোয়ার হোসেন মজুমদার বলেন, ‘ভবনগুলোর কর্তৃপক্ষ মাউশি। আমরা চাইলেই ভেঙে ফেলতে পারি না, রেট্রোফিটিংও করতে পারি না। তাছাড়া হঠাৎ ভবনগুলো ভাঙা হলে প্রতিষ্ঠানগুলো চলবে কীভাবে?’ তিনি এ বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে মাউশি এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভা করা হবে বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘ইইডি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়ন করে থাকে। যে কোন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য নির্বাচিত অবকাঠামোর নির্মাণ সমাপ্তির পর সেটি প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হয়।’ এজন্য তারা চাইলেই কোনো ভবন ভেঙে ফেলা বা ‘রেট্রোফিটিং’ করতে পারেন না।

গত ৩ এপ্রিল মাউশির সহকারী পরিচালক (প্রকৌশল) আ. খালেক স্বাক্ষরিত এক আদেশে বলা হয়, রাজউকের তালিকায় থাকা বিভিন্ন স্কুল-কলেজের ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবনগুলো মজবুত করতে হবে। আর ‘অধিক ঝুঁকিপূর্ণ’ ৪৪টি ভবন সাত দিনের মধ্যে খালি করে সিলগালা করতে হবে অথবা ভেঙে ফেলতে হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাউশির পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী মঙ্গলবার সংবাদকে বলেছেন, ‘প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ্য থেকে আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। আমরাও কথা বলেছি। হঠাৎ ভবনগুলো ভাঙতে গেলে শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হবে। শিক্ষা উপকরণ নষ্ট হবে।’

ভবনগুলো অপসারণ করতে হলে ‘রিলোকেশন প্ল্যান’ করতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এ জন্য বাজেট প্রয়োজন; ভবনগুলোতে যে শিক্ষা উপকরণ ও ল্যাব রয়েছে সেগুলো স্থানান্তর প্রয়োজন। শিক্ষার্থীরা কোথাও বসবে সেসব বিষয়ও ভাবতে হবে। কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে ভবন ভাঙা হলে শিক্ষা কার্যক্রম একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে।’

অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী জানান, ইইডির পক্ষ্য থেকে মাউশিকে বলা হয়েছে এ বিষয়ে তারা সভা করতে চান। সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দুই বিভাগের কর্মকর্তারাও থাকবেন। প্রয়োজনে ইইডির প্রকৌশলীরা ওইসব ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবন আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে পারেন বলে জানান তিনি।

মাউশি যেসব প্রতিষ্ঠানের ভবন ভেঙে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে সেগুলো হলোÑ বাড্ডার আলাতুন্নেছা উচ্চমাধ্যমিক স্কুল, আলাতুন্নেছা উচ্চমাধ্যমিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সাভারের ভাকুর্তা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জের দেলপাড়া সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল, দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, মিরপুর-১ নম্বরের সরকারি বাংলা কলেজ, নারায়ণগঞ্জের সরকারি কদম রসুল কলেজ, গাজীপুরের সরকারি কালীগঞ্জ শ্রমিক কলেজ, ডেমরার হায়দার আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মিরপুর ১৩ নম্বরের হাজী আলী হোসেন উচ্চবিদ্যালয়, পল্টনের আরামবাগ উচ্চবিদ্যালয়, সূত্রাপুরের কবি নজরুল সরকারি কলেজ, গাজীপুরের কালীগঞ্জ আর আর এন পাবলিক উচ্চবিদ্যালয়, কেরানীগঞ্জ বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খিলগাঁও সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, গোড়ানের আলী আহমেদ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সায়েদাবাদের করাতিটোলা সিএমএস উচ্চবিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ, যাত্রাবাড়ীর শহীদ জিয়া বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ, সাভারের ভাকুর্তার শ্যামলনগর স্কুল অ্যান্ড কলেজ, তেজগাঁও মডেল উচ্চবিদ্যালয়, কদমতলীর একেকে উচ্চবিদ্যালয় অ্যান্ড ব্রাইট কলেজ, বাড্ডার একেএম রহমাতুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, কদমতলীর কেএম মাইনুদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় আদর্শ উচ্চবিদ্যালয় (মিঠাব), আজিমপুরের অগ্রণী স্কুল অ্যান্ড কলেজ, কোতয়ালী থানার আহমেদ বাওয়ানী একাডেমি ও লালবাগের আনন্দময়ী বালিকা বিদ্যালয়।

এদিকে কবি নজরুল সরকারি কলেজ, খিলগাঁও সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, গোড়ানের আলী আহমেদ স্কুল অ্যান্ড কলেজ, আহমেদ বাওয়ানী একাডেমির শিক্ষকরা সংবাদকে জানিয়েছেন, তারা স্বাভাবিকভাবেই ভবনগুলোতে শিক্ষা কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন।

রাজউকের অধীনে ‘আরবান রেজিলিয়েন্স প্রকল্প : রাজউক অংশ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নিয়োজিত পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ডিএমডিপি এলাকার সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বিভিন্ন সংস্থার মালিকানাধীন ‘অধিক ঝুঁকিপূর্ণ’ ভবনগুলো ভেঙে ফেলার সুপারিশ করেছে।

‘ঢাকা মেট্রোপলিটান ডেভেলপমেন্ট প্ল্যান’ (ডিএমডিপি) এলাকার সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত বিভিন্ন সংস্থার মালিকানাধীন তিন হাজার ২৫২টি ভবনের (স্কুল, কলেজ, বিশ^বিদ্যালয়, হাসপাতাল ইত্যাদি) র‌্যাপিড ভিজ্যুয়াল অ্যাসেসমেন্ট, ৫৭৯টি ভবনের প্রিলিমিনারি ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যাসেসমেন্ট এবং ১৮৭টি ডিটেইল ইঞ্জিরিয়ারিং অ্যাসেসমেন্ট করে ভূমিকম্প ঝুঁকিপূর্ণ নিরূপণ করা হয়।

back to top