alt

শিক্ষা

উচ্চ শিক্ষিতদের ৩৯ শতাংশ বেকার, সরকারি জরিপ

রাকিব উদ্দিন : বুধবার, ০৫ জুন ২০২৪

দেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীর ৩৮ দশমিক ৬ শতাংশই কর্মহীন। আর ৩৪ শতাংশ উচ্চ শিক্ষিতরা স্নাতক সম্পন্ন করার দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে চাকরি পায়। পাঠ্যক্রমের সঙ্গে শ্রমবাজারের প্রাসঙ্গিকতার অভাবের কারণে একাডেমিক গবেষণার সঙ্গে শিল্প-কারখানার কার্যকর সহযোগিতা অনুপস্থিত। এর ফলে উচ্চ শিক্ষা স্তরে যা শেখানো হচ্ছে এবং কর্মক্ষেত্রে যা ঘটবে তার মধ্যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে বলে সরকারের এক প্রতিবেদনে মন্তব্য করা হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের অধীনে বাস্তবায়নাধীন ‘আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগের আওতাধীন সেক্টরসমূহের জন্য সেক্টর অ্যাকশন প্লান প্রণয়ন ও পরিবীক্ষণসহ সার্বিক সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ (১ম সংশোধনী’ র্শীষক প্রকল্পের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে।

এই প্রকল্পের আওতায় শিক্ষা সেক্টরের ‘সেক্টর অ্যাকশন প্লান’ প্রণয়নের চূড়ান্ত প্রতিবেদনের ওপর আজ ঢাকায় একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। এর অংশ হিসেবেই গতকাল প্রতিবেদনটি সরকারের বিভিন্ন স্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়। কর্মশালায় পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থর্নীতি বিভাগের সদস্য (সচিব) ড. কাউসার আহাম্মদের প্রধান অতিথি থাকার কথা রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিল্পের সঙ্গে সংযোগ ঘটানোর বিষয়ে মনোযোগ না দিয়ে ভর্তি বাড়ানো হলে তা কেবল চাকরিতে নিয়োগ-অযোগ্য উচ্চশিক্ষিত স্নাতক-বেকার তৈরি করবে। বাংলাদেশের তিন ধারার উচ্চশিক্ষার মধ্যে সাধারণ ও কারিগরি বিশ^বিদ্যালয়সমূহ হতে ছাত্র সংখ্যার দিক থেকে জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের অবস্থান সবচেয়ে ওপরে। সমস্যা বা চ্যালেঞ্জও এ বিশ^বিদ্যালয় ও এর অধিকৃত কলেজসমূহে বেশি।

জানা গেছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (এনইউ) অধীনে সারাদেশে দুই হাজার ২৫৭টি কলেজ রয়েছে। এর ৫৫৫টি সরকারি। বাকিগুলো বেসরকারি। এর মধ্যে সরকারি-বেসরকারি মোট ৮৮১টিতে কলেজে স্নাতক (সম্মান) পড়ানো হয়। এনইউ’র অধীন সারাদেশের কলেজে মোট ৩১ লাখ ৭০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে, যা দেশে উচ্চশিক্ষায় মোট শিক্ষার্থীর প্রায় ৭২ শতাংশ।

পরিকল্পনা কমিশনের প্রতিবেদনের ‘দেশে উচ্চ শিক্ষায় লক্ষ্য অর্জনের ঘাটতি’ শীর্ষক অংশে বলা হয়েছে, ‘এত অগ্রগতির পরও দেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীর সংখ্যা এখনও খুবই সীমিত। বাংলাদেশের নারীদের মধ্যে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের হার ৮ দশমিক ৭ শতাংশ ও পুরুষের মধ্যে তা ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ। ভৌগোলিকভাবে শহর এলাকার ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ এবং গ্রাম এলাকার ৮ দশমিক ৮ শতাংশ মানুষের উচ্চশিক্ষা রয়েছে।’

উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীদের বেকারত্বের বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. একে আজাদ চৌধুরী বলেছেন, ‘এটা আমাদের উচ্চশিক্ষার সিস্টেমের সমস্যা। আমরা শিক্ষাকে কর্মমুখী করতে পারিনি। বিনিয়োগও সেভাবে হয়নি। প্রয়োজনের চেয়ে সঙ্গতি না রেখে এতবেশি উচ্চশিক্ষা দেয়া হয়েছে যে, এই রেজাল্টায় আমরা উচ্চশিক্ষিত বেকার তৈরি করেছি। কিন্তু ভালো নাগরিক তৈরি করতে পারিনি।’

উচ্চশিক্ষাকে পুরোপুরি ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দিয়ে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক এই উপাচার্য বলেন, ‘তাদের কর্মসংস্থানের সাবজেক্ট যেমন- সফট স্কিল, কম্পিউটার, আইটি (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি), টেকনোলজি এসব সাবজেক্টে আমরা ভালোভাবে গুরুত্ব দেয়নি। আমরা বিজনেস, আর্টস অথবা সোশ্যাল সায়েন্স, ইতিহাস-এসব সাবজেক্টে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘তৃতীয় শিল্পবিপ্লবের যুগে বিশ^ এখন একইভূত বাজার। সুতরাং আমাদের গ্রাজুয়েটরা যদি সমপর্যায়ের না হয় তারাতো প্রডিউস করতে পারবে না। সুতরাং অন্য দেশ থেকে ইম্পোর্ট করতে হবে। এতে আমাদের ইকোনোমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

উচ্চশিক্ষায় বেকারত্বের সংকট শুধু বাংলাদেশে নয়-মন্তব্য করে ঢাবির সাবেক উপাচার্য বলেন, ‘ভারতে কলেজ গ্রাজুয়েটদের বেকারের সংখ্যা ৫৪ শতাংশ। আর দেশটির সাধারণ বিশ^বিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীদের বেকারত্বে হার ১৭ শতাংশ।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে সরকারি ও বেসরকারি বিশ^বিদ্যালয়ের মোট শিক্ষার্থীর মাত্র ২৬ শতাংশ নারী। কাজেই ভর্তির ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ ও আর্থ-সামাজিক অবস্থানের মাঝে বড় পার্থক্য রয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে চূড়ান্ত শিক্ষা সমাপনীর হার খুবই কম-২০ শতাংশেরও নিচে।

উচ্চশিক্ষায় সাম্প্রতিক বছরে ভর্তি বেড়েছে; এই বৃদ্ধির বড় একটি অংশ ভর্তি হয়েছে মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে। সব উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিবেচনায় নেয়া হলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে ভর্তির হার ২১ শতাংশের কাছাকাছি। স্নাতকদের মান ও চাকরিতে নিয়োগের যোগ্যতা প্রত্যাশার চেয়ে কম।

বিশ^বিদ্যালয় ও কলেজ স্নাতকদের নিয়ে ‘ট্রেসার গবেষণায়’ জানা যায়, শিক্ষার্থীদের দক্ষতা ও চাকরি-প্রস্তুতিতে ঘাটতি রয়েছে। ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশনের (ইউজিসি) আওতায় বিশ^বিদ্যালয়ের স্নাতকদের নিয়ে একটি গবেষণায় দেখা যায়, ‘তাদের ৩৮ দশমিক ৬ শতাংশ কর্মহীন।’

উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নের কয়েকটি সুপারিশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে। এর কয়েকটি হলো- বৃহৎ শিল্প-কারখানাগুলোতে গবেষণা ও উন্নয়ন উইং প্রতিষ্ঠা করতে হবে অথবা বিদ্যমানগুলোকে কার্যকর করতে হবে।

গবেষণা করার বিষয়ে শুধু একাডেমিক অর্জনের উপর নজর না দিয়ে পাশাপাশি গবেষণার ফলাফলের প্রায়োগিক দিকের ওপরও গুরুত্ব আরোপ করতে হবে। গবেষণার ফলাফল হতে যাতে প্যাটেন্টিং করা যায় সে বিষয়ে নজর দেয়া দরকার বলে প্রতিবেদনে মন্তব করা হয়েছে।

দেশের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী অথচ উচ্চশিক্ষায় নারীর অংশগ্রহণ মাত্র ২৬ শতাংশ। নারীদ্রে অধিক হারে উচ্চশিক্ষায় ভর্তি করার প্রণোদনা হিসেবে নারীদের জন্য উদারভাবে বৃত্তি প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের জন্য বুনিয়াদি ও পেশাগত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। এজন্য বিশ^বিদ্যালয় শিক্ষক গবেষণা প্রশিক্ষণ একাডেমি প্রতিষ্ঠা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

শ্রম আইন কার্যকর করতে হবে যাতে কারিগরি শিক্ষা গ্রহণকারী ও প্রশিক্ষণ প্রাপ্তদের নিয়োগ প্রদান করা যেতে পারে। বিশ^বিদ্যালয়ের বিজ্ঞানবিষয়ক শিক্ষকদের আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিসম্পন্ন বিশ^বিদ্যালয় হতে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের জন্য উৎসাহিত করতে হবে। প্রয়োজনে সরকারকে আর্থিকভাবে সহায়তা প্রদান করতে হবে।

ছবি

এইচএসসি পরীক্ষার নতুন তারিখ ঘোষণা

ছবি

ডিজিটালাইজিং ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড বিষয়ে আইসিসি’র কর্মশালা

ছবি

গোপালগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ছবি

শেষ ধাপেও কলেজ পায়নি ১২ হাজার শিক্ষার্থী, আবার থাকবে আবেদনের সুযোগ

ছবি

বেসিসে সেন্ট্রাল লজিস্টিকস ট্র্যাকিং প্ল্যাটফর্ম (সিএলটিপি) বাস্তবায়ন সম্পর্কিত কর্মশালা

ছবি

পাঁচ হাজার প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম নেই

ছবি

নবম দিনের মতো সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে জবি শিক্ষকরা

ছবি

এনার্জিপ্যাক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক পরিদর্শনে এইউএসটি’র শিক্ষার্থীরা

ছবি

গোপালগঞ্জে স্ক্র্যাচ প্রোগ্রামিং ভাষার উপর ২ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ছবি

ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি পরিদর্শন করলেন ব্রুনাই দারুস সালামের হাইকমিশনার

ছবি

‘স্মার্ট শিক্ষা ও স্মার্ট গবেষণার মাধ্যমে স্মার্ট সিটিজেন গড়ে তুলতে হবে’

ছবি

প্রাথমিক বিদ্যালয় হবে শুদ্ধাচার চর্চার আঁতুড়ঘর : প্রাথমিক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

ছবি

নারী, প্রতিবন্ধী ও নৃগোষ্ঠীর জন্য কোটা চায় গণতান্ত্রিক ছাত্র জোট

ছবি

সপ্তাহ পেরোলো জবি শিক্ষকদের সর্বাত্মক কর্মবিরতি 

ছবি

কুমিল্লায় বৃত্তি প্রদান ও পুরস্কার বিতরণ, প্রাথমিকে সেরা সাহস স্কুল

ছবি

বারি ও ডিআইইউ এর মধ্যে সমঝোতা চুক্তি

ছবি

মোবাইল ও ডিজিটাল স্টোরিটেলিং ফেস্টিভ্যালে অংশ নিতে বাংলাদেশে অষ্ট্রেলিয়ার ২২ শিক্ষার্থী

প্রত্যয় স্কিম নিয়ে পেনশন কর্তৃপক্ষের ব্যাখা শুভঙ্করের ফাঁকি : জবি শিক্ষক সমিতি

ছবি

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্বর্ণপদক পেলেন

ছবি

শাহরাস্তিতে মোবাইল ফোনে নকল করার দায়ে শিক্ষার্থী বহিষ্কার

ছবি

এইচএসসি পরীক্ষার দিনে বৃষ্টি হলে সময় বাড়ানোর নির্দেশ

ছবি

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু

ছবি

জামালপুরে একটি সংস্থার কার্যালয় থেকে এইচএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র প্রদান

এইচ এসসি পরীক্ষা শুরু আগামীকাল

ছবি

পেনশন স্কিম বাতিলের দাবিতে এবার কর্মবিরতিতে যাচ্ছে জবির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা

ছবি

ঢাবিতে দুদিনব্যাপী সিনেট অধিবেশন অনুষ্ঠিত

ছবি

স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাজারমুখী দক্ষ জনশক্তি প্রস্তুত করতে হবে -শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

পেনশন নয়, এটা তো ইন্স্যুরেন্স!

ছবি

গবেষণায় বাজেট বরাদ্দে বৈষম্যের শিকার জবি

ছবি

২০ কোটি টাকা ঢাবির বাজেট গবেষণায় বরাদ্দ

ছবি

বৃষ্টি উপেক্ষা করে জবি শিক্ষকদের কর্মবিরতি ও অবস্থান কর্মসূচি

ছবি

যবিপ্রবি ছাত্রলীগ সভাপতিসহ ৯ শিক্ষার্থী আজীবন বহিষ্কার

ছবি

প্রত্যয় স্কিম বাতিলের দাবিতে জবি শিক্ষককদের কর্মবিরতি ও অবস্থান কর্মসূচি

প্রথম ধাপে কলেজ পায়নি ৪৮ হাজার শিক্ষার্থী

ছবি

১০-১৯ বছর বয়সের ৬৫ লাখ ছাত্রীকে ‘আয়রন ফলিক অ্যাসিড ট্যাবলেট’ খাওয়ানো হচ্ছে

ছবি

একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির আবেদনে প্রথম ধাপে কলেজ পায়নি ৪৮ হাজার শিক্ষার্থী

tab

শিক্ষা

উচ্চ শিক্ষিতদের ৩৯ শতাংশ বেকার, সরকারি জরিপ

রাকিব উদ্দিন

বুধবার, ০৫ জুন ২০২৪

দেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীর ৩৮ দশমিক ৬ শতাংশই কর্মহীন। আর ৩৪ শতাংশ উচ্চ শিক্ষিতরা স্নাতক সম্পন্ন করার দুই থেকে তিন বছরের মধ্যে চাকরি পায়। পাঠ্যক্রমের সঙ্গে শ্রমবাজারের প্রাসঙ্গিকতার অভাবের কারণে একাডেমিক গবেষণার সঙ্গে শিল্প-কারখানার কার্যকর সহযোগিতা অনুপস্থিত। এর ফলে উচ্চ শিক্ষা স্তরে যা শেখানো হচ্ছে এবং কর্মক্ষেত্রে যা ঘটবে তার মধ্যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে বলে সরকারের এক প্রতিবেদনে মন্তব্য করা হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশনের অধীনে বাস্তবায়নাধীন ‘আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগের আওতাধীন সেক্টরসমূহের জন্য সেক্টর অ্যাকশন প্লান প্রণয়ন ও পরিবীক্ষণসহ সার্বিক সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ (১ম সংশোধনী’ র্শীষক প্রকল্পের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে এসেছে।

এই প্রকল্পের আওতায় শিক্ষা সেক্টরের ‘সেক্টর অ্যাকশন প্লান’ প্রণয়নের চূড়ান্ত প্রতিবেদনের ওপর আজ ঢাকায় একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। এর অংশ হিসেবেই গতকাল প্রতিবেদনটি সরকারের বিভিন্ন স্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়। কর্মশালায় পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থর্নীতি বিভাগের সদস্য (সচিব) ড. কাউসার আহাম্মদের প্রধান অতিথি থাকার কথা রয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিল্পের সঙ্গে সংযোগ ঘটানোর বিষয়ে মনোযোগ না দিয়ে ভর্তি বাড়ানো হলে তা কেবল চাকরিতে নিয়োগ-অযোগ্য উচ্চশিক্ষিত স্নাতক-বেকার তৈরি করবে। বাংলাদেশের তিন ধারার উচ্চশিক্ষার মধ্যে সাধারণ ও কারিগরি বিশ^বিদ্যালয়সমূহ হতে ছাত্র সংখ্যার দিক থেকে জাতীয় বিশ^বিদ্যালয়ের অবস্থান সবচেয়ে ওপরে। সমস্যা বা চ্যালেঞ্জও এ বিশ^বিদ্যালয় ও এর অধিকৃত কলেজসমূহে বেশি।

জানা গেছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (এনইউ) অধীনে সারাদেশে দুই হাজার ২৫৭টি কলেজ রয়েছে। এর ৫৫৫টি সরকারি। বাকিগুলো বেসরকারি। এর মধ্যে সরকারি-বেসরকারি মোট ৮৮১টিতে কলেজে স্নাতক (সম্মান) পড়ানো হয়। এনইউ’র অধীন সারাদেশের কলেজে মোট ৩১ লাখ ৭০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে, যা দেশে উচ্চশিক্ষায় মোট শিক্ষার্থীর প্রায় ৭২ শতাংশ।

পরিকল্পনা কমিশনের প্রতিবেদনের ‘দেশে উচ্চ শিক্ষায় লক্ষ্য অর্জনের ঘাটতি’ শীর্ষক অংশে বলা হয়েছে, ‘এত অগ্রগতির পরও দেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীর সংখ্যা এখনও খুবই সীমিত। বাংলাদেশের নারীদের মধ্যে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের হার ৮ দশমিক ৭ শতাংশ ও পুরুষের মধ্যে তা ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ। ভৌগোলিকভাবে শহর এলাকার ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ এবং গ্রাম এলাকার ৮ দশমিক ৮ শতাংশ মানুষের উচ্চশিক্ষা রয়েছে।’

উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীদের বেকারত্বের বিষয়ে বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. একে আজাদ চৌধুরী বলেছেন, ‘এটা আমাদের উচ্চশিক্ষার সিস্টেমের সমস্যা। আমরা শিক্ষাকে কর্মমুখী করতে পারিনি। বিনিয়োগও সেভাবে হয়নি। প্রয়োজনের চেয়ে সঙ্গতি না রেখে এতবেশি উচ্চশিক্ষা দেয়া হয়েছে যে, এই রেজাল্টায় আমরা উচ্চশিক্ষিত বেকার তৈরি করেছি। কিন্তু ভালো নাগরিক তৈরি করতে পারিনি।’

উচ্চশিক্ষাকে পুরোপুরি ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দিয়ে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক এই উপাচার্য বলেন, ‘তাদের কর্মসংস্থানের সাবজেক্ট যেমন- সফট স্কিল, কম্পিউটার, আইটি (তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি), টেকনোলজি এসব সাবজেক্টে আমরা ভালোভাবে গুরুত্ব দেয়নি। আমরা বিজনেস, আর্টস অথবা সোশ্যাল সায়েন্স, ইতিহাস-এসব সাবজেক্টে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘তৃতীয় শিল্পবিপ্লবের যুগে বিশ^ এখন একইভূত বাজার। সুতরাং আমাদের গ্রাজুয়েটরা যদি সমপর্যায়ের না হয় তারাতো প্রডিউস করতে পারবে না। সুতরাং অন্য দেশ থেকে ইম্পোর্ট করতে হবে। এতে আমাদের ইকোনোমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

উচ্চশিক্ষায় বেকারত্বের সংকট শুধু বাংলাদেশে নয়-মন্তব্য করে ঢাবির সাবেক উপাচার্য বলেন, ‘ভারতে কলেজ গ্রাজুয়েটদের বেকারের সংখ্যা ৫৪ শতাংশ। আর দেশটির সাধারণ বিশ^বিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকারীদের বেকারত্বে হার ১৭ শতাংশ।’

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশে সরকারি ও বেসরকারি বিশ^বিদ্যালয়ের মোট শিক্ষার্থীর মাত্র ২৬ শতাংশ নারী। কাজেই ভর্তির ক্ষেত্রে নারী-পুরুষ ও আর্থ-সামাজিক অবস্থানের মাঝে বড় পার্থক্য রয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে চূড়ান্ত শিক্ষা সমাপনীর হার খুবই কম-২০ শতাংশেরও নিচে।

উচ্চশিক্ষায় সাম্প্রতিক বছরে ভর্তি বেড়েছে; এই বৃদ্ধির বড় একটি অংশ ভর্তি হয়েছে মানবিক ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে। সব উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিবেচনায় নেয়া হলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ে ভর্তির হার ২১ শতাংশের কাছাকাছি। স্নাতকদের মান ও চাকরিতে নিয়োগের যোগ্যতা প্রত্যাশার চেয়ে কম।

বিশ^বিদ্যালয় ও কলেজ স্নাতকদের নিয়ে ‘ট্রেসার গবেষণায়’ জানা যায়, শিক্ষার্থীদের দক্ষতা ও চাকরি-প্রস্তুতিতে ঘাটতি রয়েছে। ইউনিভার্সিটি গ্রান্টস কমিশনের (ইউজিসি) আওতায় বিশ^বিদ্যালয়ের স্নাতকদের নিয়ে একটি গবেষণায় দেখা যায়, ‘তাদের ৩৮ দশমিক ৬ শতাংশ কর্মহীন।’

উচ্চশিক্ষার মানোন্নয়নের কয়েকটি সুপারিশ করা হয়েছে প্রতিবেদনে। এর কয়েকটি হলো- বৃহৎ শিল্প-কারখানাগুলোতে গবেষণা ও উন্নয়ন উইং প্রতিষ্ঠা করতে হবে অথবা বিদ্যমানগুলোকে কার্যকর করতে হবে।

গবেষণা করার বিষয়ে শুধু একাডেমিক অর্জনের উপর নজর না দিয়ে পাশাপাশি গবেষণার ফলাফলের প্রায়োগিক দিকের ওপরও গুরুত্ব আরোপ করতে হবে। গবেষণার ফলাফল হতে যাতে প্যাটেন্টিং করা যায় সে বিষয়ে নজর দেয়া দরকার বলে প্রতিবেদনে মন্তব করা হয়েছে।

দেশের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী অথচ উচ্চশিক্ষায় নারীর অংশগ্রহণ মাত্র ২৬ শতাংশ। নারীদ্রে অধিক হারে উচ্চশিক্ষায় ভর্তি করার প্রণোদনা হিসেবে নারীদের জন্য উদারভাবে বৃত্তি প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের জন্য বুনিয়াদি ও পেশাগত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। এজন্য বিশ^বিদ্যালয় শিক্ষক গবেষণা প্রশিক্ষণ একাডেমি প্রতিষ্ঠা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

শ্রম আইন কার্যকর করতে হবে যাতে কারিগরি শিক্ষা গ্রহণকারী ও প্রশিক্ষণ প্রাপ্তদের নিয়োগ প্রদান করা যেতে পারে। বিশ^বিদ্যালয়ের বিজ্ঞানবিষয়ক শিক্ষকদের আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাতিসম্পন্ন বিশ^বিদ্যালয় হতে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের জন্য উৎসাহিত করতে হবে। প্রয়োজনে সরকারকে আর্থিকভাবে সহায়তা প্রদান করতে হবে।

back to top