alt

শিক্ষা

বাধ্য হয়েই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক: : শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি । ছবি: সংগৃহীত

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, দেশের বিভিন্ন হাসপাতালের যে চিত্র তাতে শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ ঘটছে। এটা সঙ্গে সঙ্গে আমাদের আমলে নিতে হয়েছে। মাঠের চিত্রের ওপর ভিত্তি করেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরা আপাতত দুই সপ্তাহ মুখোমুখি ক্লাস নিতে নিষেধ করেছি।

তিনি বলেন, মাঝে মাঝে ছুটি ভালো লাগে, লম্বা ছুটি কারো ভালো লাগে না। শিক্ষার্থীদের একদমই ভালো লাগার কথা নয়। অতিমারির কারণে বিগত দিনে একটি ছেদ পড়েছে। আমরা যতদূর সম্ভব ঠিক রাখার একটা চেষ্টা করছি।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাজধানীর জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডে (এনসিটিবি) অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নেবো। যেখানে যেভাবে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া সম্ভব আমরা নেবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ক্লাসের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেরা সিদ্ধান্ত নিয়ে চলে। তারা নিজস্ব পদ্ধতিতে অনলাইনে ক্লাস চালাতে পারবেন। যত ভালোভাবে সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মানবেন। হঠাৎ করেই শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কারণে সংক্রমণটা বেড়ে যেন না যায় সে জন্যই বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরা যে খুশি মনে সিদ্ধান্তটা নিয়েছি তা মনে করার কোনও কারণ নেই। আমরা বাধ্য হয়েই সিদ্ধান্তটা নিয়েছি। স্বাস্থ্যবিধি প্রত্যেকে মানলে এই অবস্থা হতো না। আমরা পরিস্থিতি সার্বক্ষণিক নজরে রাখছি, যখনই উন্নতি হবে তখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সকল কোচিং সেন্টারও বন্ধ থাকবে। কারণ সেখানেও শিক্ষার্থীদের সমাবেশ ঘটে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এবং শিক্ষা অফিসের কার্যালয় খোলা থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সেখানে কাজ চলবে।

এছাড়াও, ‘চলমান টিকাদান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। যতদ্রুত সম্ভব টিকা দেওয়া হবে।’

বিগত সময়ের মতো এবারও দফায় দফায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হবে কিনা জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের নিশ্চয় মনে আছে, জেলা প্রশাসকদের সম্মেলনে বলেছিলাম—আমাদের চেষ্টাটা হলো, একেবারেই যদি বাধ্য না হই, তাহলে আমরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে চাই না। শিক্ষা জীবন যতখানি সম্ভব স্বাভাবিক রেখে আমরা করোনা সংকট মোকাবিলা করতে চাই।’

শাবিপ্রবির বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে সরকার সরাসরি হস্তক্ষেপ করতে চায় না। শিক্ষার্থীরা অনশন করছেন, কেউ কেউ অসুস্থ হয়েছেন। আমি একটু আগেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি চাই তাদের একটি প্রতিনিধি দল যদি পাঠাতে (ঢাকায়) পারেন, যতদ্রুত সম্ভব তারা আসবেন, আমি মনে করি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে যে কোনও সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে কথা হয়েছে, আশা করছি আমরা সামনা-সামনি বসে সমস্যার সমাধান করতে করতে পারবো।’

মেডিক্যালে ভর্তির বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যে সিলেবাসে শিক্ষার্থীরা পড়েছে সে সিলেবাসে ভর্তি না নেওয়াটা যুক্তিযুক্ত নয়। যদিও গতবারের বিষয়টি ছিলো ভিন্ন।

প্রশ্ন ফাঁস : মাউশি কর্মকর্তাদের সম্পৃক্ততা পায়নি পুলিশ

ছবি

নলেজ শেয়ারিংঃ কানাডা যৌথভাবে বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রযুক্তি শিক্ষার বিকাশে ‘কাজ করতে চায়’

ছবি

স্টামফোর্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ে সপ্তাহব্যাপী ‘ভর্তি মেলা’

অনার্স ৪র্থ বর্ষের পাসের হার ৭৭ শতাংশ

নামমাত্র শিক্ষায় কমেছে শিক্ষার্থী, দাবি শিক্ষাবিদদের

মাধবপুরে প্রাথমিক শিক্ষায় সমন্বয়হীনতা,

ছবি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স চতুর্থ বর্ষের ফল প্রকাশ

ছবি

৪৪তম বিসিএসের প্রিলি ২৭ মে, আসন বিন্যাস প্রকাশ

ছবি

রাজধানীতে শুরু অস্ট্রেলিয়ান শিক্ষা মেলা, শিক্ষার্থীরা পাচ্ছেন স্কলারশিপের সুযোগ

ছবি

সঙ্কটে শিক্ষার ৭৪ প্রকল্প

দক্ষ মানব সম্পদ গড়তে কারিকুলামে পরিবর্তন আনতে হবে

ছবি

ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষা দেবেন ৫৫ বছরের বেলায়েত!

দৃশ্যমান স্থানে মাদ্রাসার সাইনবোর্ড স্থাপনের নির্দেশ

ছবি

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ

ছবি

নর্থ সাউথের বিলাসবহুল ১০ গাড়ি বিক্রির নির্দেশ

ছবি

ময়মনসিংহ পিটিআইকে আধুনিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে রূপান্তর করা হবে- প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

ছবি

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসির ১২ কর্মকর্তার বিদেশ সফর বাতিল

নতুন শিক্ষাক্রম : প্রাথমিকে ৬৫ বিদ্যালয়ে পাইলটিং আগস্টে

ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটে শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচন ২৪ মে

ছবি

ভার্চ্যুয়াল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘ভূমি’

ছবি

২০২৩ সালে সব বিষয়ে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা

ছবি

প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: প্রথম ধাপের ফলে উত্তীর্ণ ৪১ হাজার

ঢাবি ভর্তিতে আসনপ্রতি লড়বে ৪৮ জন

ছবি

এডুটিউব কুইজ কনটেস্ট ২০২২-এর উদ্বোধন

ছবি

রাজধানীর ৩৪২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে নতুনভাবে সাজানো হবে: প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

কমেছে শিক্ষার্থী, কমেছে পাঠ্যপুস্তক ও মুদ্রণ

ছবি

শিক্ষা খাতকে নতুন করে সাজানো হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী

আলিমের ফলে বৃত্তি পাবেন ৭৫০ শিক্ষার্থী

ছবি

শিক্ষার অবকাঠামো নির্মাণের কাজ শেষ করতে ঠিকাদারদের অনুরোধ জানিয়েছে ইইডি

ছবি

এবার এইচএসসি পরীক্ষা ২ ঘণ্টায়, নম্বর ৪৫ থেকে ৫৫

নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে সমন্বয়হীনতা

ছবি

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ইইডির নতুন প্রধান প্রকৌশলীর শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ

ছবি

ঢাবি ভর্তি পরীক্ষায় ২ লাখের বেশি আবেদন, বাকি আরও চারদিন

কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ফল প্রকাশ

ছবি

ইইডির প্রধান প্রকৌশলী হলেন শাহ্ নইমুল কাদের

ছবি

এসএসসি পরীক্ষা শুরু ১৯ জুন, মানতে হবে ১৪ নির্দেশনা

tab

শিক্ষা

বাধ্য হয়েই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত: শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক:

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি । ছবি: সংগৃহীত

শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, দেশের বিভিন্ন হাসপাতালের যে চিত্র তাতে শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ ঘটছে। এটা সঙ্গে সঙ্গে আমাদের আমলে নিতে হয়েছে। মাঠের চিত্রের ওপর ভিত্তি করেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরা আপাতত দুই সপ্তাহ মুখোমুখি ক্লাস নিতে নিষেধ করেছি।

তিনি বলেন, মাঝে মাঝে ছুটি ভালো লাগে, লম্বা ছুটি কারো ভালো লাগে না। শিক্ষার্থীদের একদমই ভালো লাগার কথা নয়। অতিমারির কারণে বিগত দিনে একটি ছেদ পড়েছে। আমরা যতদূর সম্ভব ঠিক রাখার একটা চেষ্টা করছি।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাজধানীর জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডে (এনসিটিবি) অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভা শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। পরিস্থিতি বিবেচনা করে পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নেবো। যেখানে যেভাবে অনলাইনে ক্লাস নেওয়া সম্ভব আমরা নেবো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ক্লাসের বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নিজেরা সিদ্ধান্ত নিয়ে চলে। তারা নিজস্ব পদ্ধতিতে অনলাইনে ক্লাস চালাতে পারবেন। যত ভালোভাবে সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মানবেন। হঠাৎ করেই শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ বেড়ে যাচ্ছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কারণে সংক্রমণটা বেড়ে যেন না যায় সে জন্যই বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আমরা যে খুশি মনে সিদ্ধান্তটা নিয়েছি তা মনে করার কোনও কারণ নেই। আমরা বাধ্য হয়েই সিদ্ধান্তটা নিয়েছি। স্বাস্থ্যবিধি প্রত্যেকে মানলে এই অবস্থা হতো না। আমরা পরিস্থিতি সার্বক্ষণিক নজরে রাখছি, যখনই উন্নতি হবে তখনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সকল কোচিং সেন্টারও বন্ধ থাকবে। কারণ সেখানেও শিক্ষার্থীদের সমাবেশ ঘটে। তবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এবং শিক্ষা অফিসের কার্যালয় খোলা থাকবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সেখানে কাজ চলবে।

এছাড়াও, ‘চলমান টিকাদান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। যতদ্রুত সম্ভব টিকা দেওয়া হবে।’

বিগত সময়ের মতো এবারও দফায় দফায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ানো হবে কিনা জানতে চাইলে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের নিশ্চয় মনে আছে, জেলা প্রশাসকদের সম্মেলনে বলেছিলাম—আমাদের চেষ্টাটা হলো, একেবারেই যদি বাধ্য না হই, তাহলে আমরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে চাই না। শিক্ষা জীবন যতখানি সম্ভব স্বাভাবিক রেখে আমরা করোনা সংকট মোকাবিলা করতে চাই।’

শাবিপ্রবির বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয়ে সরকার সরাসরি হস্তক্ষেপ করতে চায় না। শিক্ষার্থীরা অনশন করছেন, কেউ কেউ অসুস্থ হয়েছেন। আমি একটু আগেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি চাই তাদের একটি প্রতিনিধি দল যদি পাঠাতে (ঢাকায়) পারেন, যতদ্রুত সম্ভব তারা আসবেন, আমি মনে করি আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে যে কোনও সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে কথা হয়েছে, আশা করছি আমরা সামনা-সামনি বসে সমস্যার সমাধান করতে করতে পারবো।’

মেডিক্যালে ভর্তির বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যে সিলেবাসে শিক্ষার্থীরা পড়েছে সে সিলেবাসে ভর্তি না নেওয়াটা যুক্তিযুক্ত নয়। যদিও গতবারের বিষয়টি ছিলো ভিন্ন।

back to top