alt

শিক্ষা

প্রাথমিক শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের প্রকল্প বাস্তবায়ন ‘শেষের দিকে’

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই ২০২২

ডিজিটাল শ্রেণি কক্ষে ডিজিটাল কনটেন্টে পাঠদান কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের প্রকল্পটি বাস্তবায়নের শেষ হবার পথে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

ডিজিটাল কনটেন্টের মাধ্যমে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের পাঠদান বিষয়ে শিক্ষক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রাথমিক স্তর থেকে শিক্ষার ডিজিটাল রুপান্তরের কার্যক্রম শেষ স্তুরে রয়েছে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। সুবিধা বঞ্চিত প্রত্যন্ত ও দুর্গম অঞ্চলের ৬৫০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালযয়ের শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরে বিটিআরসি‘র এসওএফ তহবিলের অর্থায়নে টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

গত ২০ জুলাই সন্ধ্যায় ঢাকায় টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার শিক্ষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

এই উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশের ফলে আগামী পাঁচ দশ বছর পর পৃথিবীতে প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা থাকবে না। প্রযুক্তিগত কারণে ডিজিটাল শিক্ষা বাচ্চাদের জন্য যতটা বোধগম্য, প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা তা পারেনা। প্রচলিত শিক্ষা ডিজিটাল শিক্ষায় রূপান্তর না হলে কঠিন চ্যালেঞ্জ আমাদেরকে মোকাবেলা করতে হবে। করোনাকালে উন্নত দুনিয়ার তুলনায় আমাদের ভাল করার মূল মন্ত্রটি ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি।’

যে শিশুরা পড়তে চায় না তাদের আগ্রহ সৃষ্টিতে ডিজিটাল কন্টেন্টে পাঠ প্রদানের ‘ফলপ্রসূ অবদান’ তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘শিশুরা খেলার ছলে তাদের এক বছরের সিলেবাস ২ মাসের মধ্যে শেষ করতে সক্ষম হয়।’ তিনি বলেন, ‘১৯৮৭ সালে বাংলাদেশে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে কম্পিউটার ব্যবহার করে পাঠদান করাটি আমি দেখি। সেই ধারণাকে বাস্তবায়ন করার বড় চ্যালেঞ্জ ছিলো আমাদের প্রচলিত কাগজের পাঠ্যবইকে ডিজিটাল উপাত্তে রূপান্তর করা। ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় ২০০৯ সাল থেকে গত তের বছরে হাটি হাটি পা পা করে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠ্যক্রম ডিজিটালে রূপান্তরে সক্ষম হয়েছি। বিশ্বে বাংলা ভাষায় এ ধরনের ডিজিটাল উপাত্ত তৈরি করা এটাই প্রথম ও এখন পর্যন্ত একমাত্র।’

মন্ত্রী প্রশিক্ষণ লব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরে প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকরা ডিজিটাল মানবসম্পদ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: আবদুল মোকাদ্দেম-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডিজিটাল কনটেন্ট বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিজয় ডিজিটাল লিমিটেডের সিইও জেসমিন জুই। অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক মো আব্দুল ওহাব এবং টেশিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসান হাবিব তফাদার বক্তৃতা করেন।

মূল প্রবন্ধে জেসমিন জুই বলেন, ‘একটি ভাল কনটেন্ট শিশুদের প্রতিভা বিকাশে ফলপ্রসূ অবদান রাখবে। তারা খেলার ছলে ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্বল্প সময়ে শেষ করতে সক্ষম। তিনি বলেন, উন্নত জাতি বিনির্মাণে মানসম্মত ডিজিটাল শিক্ষার জন্য মান সম্মত একটি ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। গত তের বছরে বিজয় ডিজিটাল কনটেন্ট সে চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করতে সক্ষম হয়েছে।’

অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকরা তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। তারা শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের এই কর্মসূচীকে একটি অভাবনীয় উদ্যোগ হিসেবে আখ্যায়িত করেন এবং প্রকল্পটি কেবল ৬৫০টি বিদ্যালয়ে সীমাবদ্ধ না রেখে দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত সম্প্রসারণে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সহায়তা প্রত্যাশা করেন। মন্ত্রী তাদেরকে এই বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের গবেষণাভিত্তিক সংগঠন ইআরডিএফবির আত্মপ্রকাশ

ছবি

চলতি বছর পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি: শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড চেয়ারম্যানের নামে রাসিক মেয়রকে ‘ঔদ্ধত্যপূর্ণ’ চিঠি নিয়ে হুলস্থূল

চলতি সপ্তাহেই কর্মচারীদের নিয়োগপত্র দিচ্ছে ইইডি

ছবি

ভাড়া বাড়িতেই চলছে অধিকাংশ নতুন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়

দাখিল পরীক্ষায় পাঁচ শিক্ষার্থী বহিষ্কার

ছবি

৩৪তম বিসিএস শিক্ষা ক্যাডার সমিতির নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

ছবি

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়া, আফ্রিকা ও পূর্ব-এশিয়ার দেশসমূহে দিবসটি উদযাপিত হবে

ছবি

দিনাজপুর বোর্ডে এসএসসির স্থগিত চার বিষয়ের পরীক্ষা ১০-১৩ অক্টোবর

কেন্দ্র সচিবের নেতৃত্বেই এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁস

ছবি

দিনাজপুর বোর্ডের এসএসসি ৪ বিষয়ের পরীক্ষা স্থগিত

বরিশালে এসএসসির ইংরেজি প্রথমপত্রে অনুপস্থিত ৯০৭ পরীক্ষার্থী

ছবি

ঢাবির হল থেকে শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

ছবি

চবিতে ছাত্রলীগের একাংশের ডাকা অবরোধ প্রত্যাহার

ছবি

স্থগিত বাংলা দ্বিতীয় পত্রের এমসিকিউ পরীক্ষা ৩০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার

ছবি

৫৫ বছর বয়সে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেলেন বেলায়েত

ছবি

ছাত্রলীগের অবরোধ : চবিতে বাস–শাটল ট্রেন বন্ধ, ক্লাস হচ্ছে না

ছবি

২০২৩ সালে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা সকল বিষয়ে

শিক্ষা প্রশাসনে প্রস্তুতির ঘাটতি, নতুন শিক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়ন ব্যাহত

ছবি

৬০ তম শিক্ষা দিবসে শিক্ষা অধিকার চত্বরে বিভিন্ন সংগঠনের ফুলেল শ্রদ্ধা

বরিশাল বোর্ডে প্রথম দিনে অনুপস্থিত ৯৯২ পরীক্ষার্থী

ছবি

যশোর বোর্ডে এসএসসির বাংলা ২য় পত্রের এমসিকিউ পরীক্ষা স্থগিত

ছবি

এসএসসি পরীক্ষার প্রথম দিন অনুপস্থিত ৩৩ হাজার ৮৬০

সখীপুরে এসএসসি পরীক্ষায় ৭৯ জন অনুপস্থিত, বাল্যবিয়ের শিকার ৪২ জন

চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে এসএসসি পরীক্ষায় অনুপস্থিত ১ হাজার ৬৮৩

ছবি

আগামী বছর এসএসসি ‘এগোবে’, পরীক্ষা পূর্ণাঙ্গ সিলেবাসে

ছবি

শেষ হলো প্রথম দিনের এসএসসি পরীক্ষা

ছবি

কুমিল্লায় ৩৭ হাজার শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন করেও পরীক্ষা দেয়নি

আজ শুরু হচ্ছে এসএসসি পরীক্ষা

ছবি

শিক্ষকদের জন্য জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১ বিষয়ক অনলাইন প্রশিক্ষণের উদ্বোধন

ছবি

বাংলাদেশে এইউএপির ১৫তম সাধারন সম্মেলন

ছবি

প্রশ্ন ফাঁসের সুযোগ নেই, গুজব ছড়ালে ব্যবস্থা: শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

চারদেয়ালে বন্দী শিশুর স্বাভাবিক বিকাশ হবে না: প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী

ছবি

শিক্ষার্থীদের খণ্ডকালীন কাজের সুযোগ দিচ্ছে ঢাবি

ছবি

এইচএসসি পরীক্ষা শুরু ৬ নভেম্বর

ছবি

শিক্ষার্থী বাড়ছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে, কমছে বেসরকারিতে

tab

শিক্ষা

প্রাথমিক শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের প্রকল্প বাস্তবায়ন ‘শেষের দিকে’

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই ২০২২

ডিজিটাল শ্রেণি কক্ষে ডিজিটাল কনটেন্টে পাঠদান কর্মসূচি বাস্তবায়নের মাধ্যমে শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের প্রকল্পটি বাস্তবায়নের শেষ হবার পথে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

ডিজিটাল কনটেন্টের মাধ্যমে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের পাঠদান বিষয়ে শিক্ষক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে প্রাথমিক স্তর থেকে শিক্ষার ডিজিটাল রুপান্তরের কার্যক্রম শেষ স্তুরে রয়েছে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। সুবিধা বঞ্চিত প্রত্যন্ত ও দুর্গম অঞ্চলের ৬৫০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালযয়ের শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরে বিটিআরসি‘র এসওএফ তহবিলের অর্থায়নে টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তর এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে।

গত ২০ জুলাই সন্ধ্যায় ঢাকায় টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার শিক্ষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

এই উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল প্রযুক্তি বিকাশের ফলে আগামী পাঁচ দশ বছর পর পৃথিবীতে প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা থাকবে না। প্রযুক্তিগত কারণে ডিজিটাল শিক্ষা বাচ্চাদের জন্য যতটা বোধগম্য, প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থা তা পারেনা। প্রচলিত শিক্ষা ডিজিটাল শিক্ষায় রূপান্তর না হলে কঠিন চ্যালেঞ্জ আমাদেরকে মোকাবেলা করতে হবে। করোনাকালে উন্নত দুনিয়ার তুলনায় আমাদের ভাল করার মূল মন্ত্রটি ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি।’

যে শিশুরা পড়তে চায় না তাদের আগ্রহ সৃষ্টিতে ডিজিটাল কন্টেন্টে পাঠ প্রদানের ‘ফলপ্রসূ অবদান’ তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘শিশুরা খেলার ছলে তাদের এক বছরের সিলেবাস ২ মাসের মধ্যে শেষ করতে সক্ষম হয়।’ তিনি বলেন, ‘১৯৮৭ সালে বাংলাদেশে আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে কম্পিউটার ব্যবহার করে পাঠদান করাটি আমি দেখি। সেই ধারণাকে বাস্তবায়ন করার বড় চ্যালেঞ্জ ছিলো আমাদের প্রচলিত কাগজের পাঠ্যবইকে ডিজিটাল উপাত্তে রূপান্তর করা। ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় ২০০৯ সাল থেকে গত তের বছরে হাটি হাটি পা পা করে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত পাঠ্যক্রম ডিজিটালে রূপান্তরে সক্ষম হয়েছি। বিশ্বে বাংলা ভাষায় এ ধরনের ডিজিটাল উপাত্ত তৈরি করা এটাই প্রথম ও এখন পর্যন্ত একমাত্র।’

মন্ত্রী প্রশিক্ষণ লব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরে প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকরা ডিজিটাল মানবসম্পদ বিনির্মাণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

টেলিযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: আবদুল মোকাদ্দেম-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ডিজিটাল কনটেন্ট বিষয়ক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিজয় ডিজিটাল লিমিটেডের সিইও জেসমিন জুই। অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক মো আব্দুল ওহাব এবং টেশিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আহসান হাবিব তফাদার বক্তৃতা করেন।

মূল প্রবন্ধে জেসমিন জুই বলেন, ‘একটি ভাল কনটেন্ট শিশুদের প্রতিভা বিকাশে ফলপ্রসূ অবদান রাখবে। তারা খেলার ছলে ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্বল্প সময়ে শেষ করতে সক্ষম। তিনি বলেন, উন্নত জাতি বিনির্মাণে মানসম্মত ডিজিটাল শিক্ষার জন্য মান সম্মত একটি ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি করা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ। গত তের বছরে বিজয় ডিজিটাল কনটেন্ট সে চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করতে সক্ষম হয়েছে।’

অনুষ্ঠানে প্রশিক্ষণার্থী শিক্ষকরা তাদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। তারা শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের এই কর্মসূচীকে একটি অভাবনীয় উদ্যোগ হিসেবে আখ্যায়িত করেন এবং প্রকল্পটি কেবল ৬৫০টি বিদ্যালয়ে সীমাবদ্ধ না রেখে দেশের সব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত সম্প্রসারণে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর সহায়তা প্রত্যাশা করেন। মন্ত্রী তাদেরকে এই বিষয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

back to top