alt

শিক্ষা

শিক্ষা প্রশাসনে প্রস্তুতির ঘাটতি, নতুন শিক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়ন ব্যাহত

মাত্র তিন মাস বাকি, এখনও অনেক বইয়ের পান্ডুলিপিই তৈরি হয়নি

রাকিব উদ্দিন : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

শিক্ষা প্রশাসনের প্রস্তুতির ঘাটতিতে নতুন শিক্ষাক্রমের বাস্তবায়ন হোঁচট খেয়েছে। নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হতে তিন মাসের একটু বেশি সময় বাকি থাকলেও সপ্তম শ্রেণীর ১০টি বইয়ের একটিরও পান্ডুলিপি এখনও তৈরি হয়নি। আবার ৬২টি বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ‘পাইলটিং’ বা পরীক্ষামূলক শ্রেণী কার্যক্রম হয়েছিল। কিন্তু বেশ কয়েকটি বিদ্যালয়ে পাইলটিং বন্ধ হয়ে গেছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সংবাদকে জানিয়েছেন।

এছাড়া প্রাথমিকের দুই শ্রেণীতেও আগামী বছর নতুন শিক্ষাক্রমে পুরোপুরি শ্রেণী কার্যক্রম বাস্তবায়ন হচ্ছে না। এই স্তরেও পাইলটিং পিছিয়ে আগামী বছর করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে আগামী শিক্ষাক্রমে নতুন শিক্ষাক্রমের বাস্তবায়ন হচ্ছে না।

শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০২৩ সালে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী এবং ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীতে নতুন শিক্ষাক্রমের পুরো বাস্তবায়ন শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এরপর ২০২৪ সালে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী এবং অষ্টম ও নবম শ্রেণী, ২০২৫ সালে পঞ্চম ও দশম শ্রেণী, ২০২৬ সালে একাদশ এবং ২০২৭ সালে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা নতুন শিক্ষাক্রমের আওতায় আসবে।

২০১২ সালে সর্বশেষ জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন আনা হয়। এর আগে ১৯৯৫ ও ১৯৯৬ সালে শিক্ষাক্রম পরিমার্জন করা হয়। সরকার ২০১০ সালে ‘জাতীয় শিক্ষানীতি’ প্রণয়ন করলেও এর অনেক কিছুই বাস্তবায়নের বাকি রয়েছে।

২০২৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রাথমিকের প্রথম ও দ্বিতীয় এবং মাধ্যমিকের ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীতে নতুন শিক্ষাক্রমে পাঠ্যদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। কিন্তু নতুন শিক্ষাক্রম প্রস্তুত না হওয়ায় এই কার্যক্রম পিছিয়ে নেয়া হয়েছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) সূত্র জানিয়েছে, নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হতে বাকি রয়েছে মাত্র সাড়ে তিন মাসেরও কম। এখন পর্যন্ত সংস্থাটি ষষ্ঠ শ্রেণীর পান্ডুলিপি কোনক্রমে প্রস্তুত করেছে। তবে সপ্তম শ্রেণীর বইয়ের পান্ডুলিপি গত ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রস্তুত করতে পারেনি সংস্থার বিশেষজ্ঞরা।

নতুন শিক্ষাক্রমে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীতে মোট ১০টি করে বই থাকছে। এসব বইয়ের পান্ডুলিপি সম্প্রতি প্রস্তুত করেছেন এনসিটিবির বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তারা। বইগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান, ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, ডিজিটাল প্রযুক্তি, জীবন ও জীবিকা, ধর্ম এবং শিল্প ও সংস্কৃতি।

এই দুই শ্রেণীর নতুন বইয়ের পান্ডুলিপি প্রস্তুতের বিষয়ে জানতে চাইলে এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফরহাদুল ইসলাম শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সংবাদকে বলেন, ‘ষষ্ঠ শ্রেণীর বইয়ের পান্ডুলিপি রেডি হয়েছে। সপ্তম শ্রেণীর বইয়ের পান্ডুলিপি এখনও হয়নি।’

কবে নাগাদ সপ্তম শ্রেণীর নতুন বইয়ের পান্ডুলিপি প্রস্তুত হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা বলা যাচ্ছে না; কারণ এগুলো মেধাভিত্তিক কাজ; তাড়াহুড়ো করলে বড় ধরনের ভুলত্রুটি থেকে যেতে পারে। পাইলটিং একটু দেরিতে হলেও কোন সমস্যা নেই।’

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সাম্প্রতিক এক বক্তব্যেও নতুন শিক্ষাক্রমের বাস্তবায়ন পিছিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

মন্ত্রী গত ১৩ সেপ্টেম্বর ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১’ বিস্তরণে অনলাইন শিক্ষক প্রশিক্ষণ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জানান, আগামী জানুয়ারির ১ তারিখে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর যে বই হাতে পাবে, সেটিই ‘চূড়ান্ত রূপ’ নয়। তিনি বলেন, ‘সেটিকে একেবারে চূড়ান্ত রূপ ভাববেন না। এটিই চূড়ান্ত রূপ নয়। এর ওপর আরও কাজ করার আছে। শিক্ষক প্রশিক্ষণে আরও পরিবর্তন নিয়ে আসব। এটি অনেক বড় কাজ।’

শিক্ষায় পরিবর্তনের কথা বলা হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সংস্কারের কথা বলছি না। আমরা শিক্ষায় রূপান্তরের কথা বলছি। আমরা দুই/তিন বছরের চেষ্টায় একেবারে নিখুঁত একটা পরিকল্পনা করে ফেলব, সেটা বলার ধৃষ্টতা আমার নেই। তবে আমরা সবাই মিলে চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করতে পারব এটি আমার বিশ্বাস।’

এদিকে আগাম প্রস্তুতির ঘাটতির কারণে প্রাথমিকের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতেও এবার পাইলটিং (পরীক্ষামূলক শ্রেণী কার্যক্রম) শুরু করতে পারেনি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তারা এ কার্যক্রম পিছিয়ে দিয়েছেন। একইসঙ্গে তারা একেবারে নতুন শিক্ষাক্রম প্রণয়ন না করে প্রথম শ্রেণীর বিদ্যমান শিক্ষাক্রমের কিছুটা পরিমার্জন করে আগামী বছর পাইলটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আমিনুল ইসলাম খান সংবাদকে বলেন, ‘তাড়াহুড়োর কিছু নেই। আগামী বছর পুরো সময় আমরা পাইলটিং করব। এতে শিক্ষাক্রমের ভুলত্রুটি থাকলে তা ধরা পরবে; যুগোপযোগী কিছু বিষয় থাকলে সেটিও সংযোজন করা যাবে।’ এর আগেই শিক্ষক প্রশিক্ষণ দেয়া হবে জানিয়ে সিনিয়র সচিব বলেন, ‘ইতোমধ্যে প্রাথমিকের নতুন শিক্ষাক্রমের বই তৈরি (পরিমার্জিত) হয়েছে। শিক্ষক নির্দেশিকাও তৈরির কাজ শেষের পথে। এই কাজ শেষ হলে শিক্ষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হবে।’

ডিপিইর সঙ্গে ছাপাখানা মালিকদের দ্বন্ধ প্রাথমিকের বই ছাপা এখনও শুরু হয়নি

ছবি

‘এসএসসিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীর চেয়ে ৭ লাখ আসন বেশি রয়েছে’

ছবি

ক্যাম্পাসে কুকুর নিয়ে উদ্বেগে শাবি প্রশাসন

ছবি

সখীপুরে যমজ দুই বোনের এসএসসিতে জিপিএ-৫

সখীপুরে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪২০ জন, পাশে হার ৮৮.২৯

ছবি

মেয়েরা এগিয়ে, পাসের হার কমেছে

ছবি

৫০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কেউ পাস করেনি

ছবি

এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ আজ

দশ বছরেও তৃতীয় বর্ষের গণ্ডি ফেরোতে পারেননি ছাত্রলীগ নেত্রী তিলোত্তমা শিকদার

পাঠ্যপুস্তকের বদলে এবার সহায়ক বই কেনা প্রকল্পের উদ্যোগ

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বসনিয়ার ও বুলগেরিয়ার দুই বিশ্ববিদ্যালয়ে সমঝোতা স্মারক

ছবি

হলের ভবন থেকে পড়ে ঢাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

ছবি

প্রাথমিকের বার্ষিক মূল্যায়নপদ্ধতি নিয়ে ছড়ানো তথ্য অসত্য: প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর

ছবি

চবির চারুকলায় ৯ ঘণ্টা পর মুক্ত হলেন চবির ১০ শিক্ষক

ছবি

এসএসসির ফল ২৮ নভেম্বর

ছবি

আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫৩তম সমাবর্তন

ছবি

এসএসসির ফল ৩০ নভেম্বরের মধ্যে

ছবি

ইবিতে ৭২ শতাংশ আসন ফাঁকা

ছবি

হাফেজ সংবর্ধনা পেল ঢাবির ২০০ শিক্ষার্থী 

ছবি

স্কুলে ভর্তির আবেদন শুরু, এবারও লটারিতে নির্বাচন

ছবি

সংকটে বিনামূল্যের পাঠ্যবই ছাপার কাজ

সারাদেশে শ্রেণী কার্যক্রমে অনুপস্থিত ৩১ শতাংশ শিক্ষার্থী

ছবি

মাদারীপুরে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার বিদায় অনুষ্ঠান

অনিয়মে বাধা দেয়ায় এক প্রকৌশলীকে মারধর

ছবি

৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষায় পাস ১৩ হাজার

ছবি

৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ

ইবির ডি ইউনিটের ২য় মেধা তালিকা প্রকাশ

ছবি

প্রশ্নে সাম্প্রদায়িক উস্কানি, জড়িত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে : শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

জাবির সাবেক ও বর্তমান ভিসির দুর্নীতির তদন্ত চেয়ে আইনি নোটিশ

এইচএসসি পরীক্ষা : বিতর্কিত প্রশ্ন প্রণয়নকারী ও চার মডারেটর যশোর বোর্ডের

ছবি

অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতে জামালপুরে বশেফমুবিপ্রবির শিক্ষকরা

ছবি

এইচএসসি’র প্রশ্নে সাম্প্রদায়িক উসকানির ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করেছে

ছবি

আইসিপিসি এর ৪৫তম আয়োজন অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঢাকায়

প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশ পিছিয়েছে

ছবি

প্রথম দিন ২০ হাজারের বেশি অনুপস্থিত

tab

শিক্ষা

শিক্ষা প্রশাসনে প্রস্তুতির ঘাটতি, নতুন শিক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়ন ব্যাহত

মাত্র তিন মাস বাকি, এখনও অনেক বইয়ের পান্ডুলিপিই তৈরি হয়নি

রাকিব উদ্দিন

শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২

শিক্ষা প্রশাসনের প্রস্তুতির ঘাটতিতে নতুন শিক্ষাক্রমের বাস্তবায়ন হোঁচট খেয়েছে। নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হতে তিন মাসের একটু বেশি সময় বাকি থাকলেও সপ্তম শ্রেণীর ১০টি বইয়ের একটিরও পান্ডুলিপি এখনও তৈরি হয়নি। আবার ৬২টি বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ‘পাইলটিং’ বা পরীক্ষামূলক শ্রেণী কার্যক্রম হয়েছিল। কিন্তু বেশ কয়েকটি বিদ্যালয়ে পাইলটিং বন্ধ হয়ে গেছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা সংবাদকে জানিয়েছেন।

এছাড়া প্রাথমিকের দুই শ্রেণীতেও আগামী বছর নতুন শিক্ষাক্রমে পুরোপুরি শ্রেণী কার্যক্রম বাস্তবায়ন হচ্ছে না। এই স্তরেও পাইলটিং পিছিয়ে আগামী বছর করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এতে আগামী শিক্ষাক্রমে নতুন শিক্ষাক্রমের বাস্তবায়ন হচ্ছে না।

শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০২৩ সালে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণী এবং ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীতে নতুন শিক্ষাক্রমের পুরো বাস্তবায়ন শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এরপর ২০২৪ সালে তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী এবং অষ্টম ও নবম শ্রেণী, ২০২৫ সালে পঞ্চম ও দশম শ্রেণী, ২০২৬ সালে একাদশ এবং ২০২৭ সালে দ্বাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীরা নতুন শিক্ষাক্রমের আওতায় আসবে।

২০১২ সালে সর্বশেষ জাতীয় শিক্ষাক্রমে পরিবর্তন আনা হয়। এর আগে ১৯৯৫ ও ১৯৯৬ সালে শিক্ষাক্রম পরিমার্জন করা হয়। সরকার ২০১০ সালে ‘জাতীয় শিক্ষানীতি’ প্রণয়ন করলেও এর অনেক কিছুই বাস্তবায়নের বাকি রয়েছে।

২০২৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রাথমিকের প্রথম ও দ্বিতীয় এবং মাধ্যমিকের ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীতে নতুন শিক্ষাক্রমে পাঠ্যদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল। কিন্তু নতুন শিক্ষাক্রম প্রস্তুত না হওয়ায় এই কার্যক্রম পিছিয়ে নেয়া হয়েছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) সূত্র জানিয়েছে, নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হতে বাকি রয়েছে মাত্র সাড়ে তিন মাসেরও কম। এখন পর্যন্ত সংস্থাটি ষষ্ঠ শ্রেণীর পান্ডুলিপি কোনক্রমে প্রস্তুত করেছে। তবে সপ্তম শ্রেণীর বইয়ের পান্ডুলিপি গত ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রস্তুত করতে পারেনি সংস্থার বিশেষজ্ঞরা।

নতুন শিক্ষাক্রমে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীতে মোট ১০টি করে বই থাকছে। এসব বইয়ের পান্ডুলিপি সম্প্রতি প্রস্তুত করেছেন এনসিটিবির বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তারা। বইগুলো হলো বাংলা, ইংরেজি, গণিত, বিজ্ঞান, ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, ডিজিটাল প্রযুক্তি, জীবন ও জীবিকা, ধর্ম এবং শিল্প ও সংস্কৃতি।

এই দুই শ্রেণীর নতুন বইয়ের পান্ডুলিপি প্রস্তুতের বিষয়ে জানতে চাইলে এনসিটিবি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ফরহাদুল ইসলাম শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সংবাদকে বলেন, ‘ষষ্ঠ শ্রেণীর বইয়ের পান্ডুলিপি রেডি হয়েছে। সপ্তম শ্রেণীর বইয়ের পান্ডুলিপি এখনও হয়নি।’

কবে নাগাদ সপ্তম শ্রেণীর নতুন বইয়ের পান্ডুলিপি প্রস্তুত হতে পারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা বলা যাচ্ছে না; কারণ এগুলো মেধাভিত্তিক কাজ; তাড়াহুড়ো করলে বড় ধরনের ভুলত্রুটি থেকে যেতে পারে। পাইলটিং একটু দেরিতে হলেও কোন সমস্যা নেই।’

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সাম্প্রতিক এক বক্তব্যেও নতুন শিক্ষাক্রমের বাস্তবায়ন পিছিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

মন্ত্রী গত ১৩ সেপ্টেম্বর ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১’ বিস্তরণে অনলাইন শিক্ষক প্রশিক্ষণ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে জানান, আগামী জানুয়ারির ১ তারিখে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর যে বই হাতে পাবে, সেটিই ‘চূড়ান্ত রূপ’ নয়। তিনি বলেন, ‘সেটিকে একেবারে চূড়ান্ত রূপ ভাববেন না। এটিই চূড়ান্ত রূপ নয়। এর ওপর আরও কাজ করার আছে। শিক্ষক প্রশিক্ষণে আরও পরিবর্তন নিয়ে আসব। এটি অনেক বড় কাজ।’

শিক্ষায় পরিবর্তনের কথা বলা হচ্ছে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সংস্কারের কথা বলছি না। আমরা শিক্ষায় রূপান্তরের কথা বলছি। আমরা দুই/তিন বছরের চেষ্টায় একেবারে নিখুঁত একটা পরিকল্পনা করে ফেলব, সেটা বলার ধৃষ্টতা আমার নেই। তবে আমরা সবাই মিলে চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করতে পারব এটি আমার বিশ্বাস।’

এদিকে আগাম প্রস্তুতির ঘাটতির কারণে প্রাথমিকের প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতেও এবার পাইলটিং (পরীক্ষামূলক শ্রেণী কার্যক্রম) শুরু করতে পারেনি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। তারা এ কার্যক্রম পিছিয়ে দিয়েছেন। একইসঙ্গে তারা একেবারে নতুন শিক্ষাক্রম প্রণয়ন না করে প্রথম শ্রেণীর বিদ্যমান শিক্ষাক্রমের কিছুটা পরিমার্জন করে আগামী বছর পাইলটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আমিনুল ইসলাম খান সংবাদকে বলেন, ‘তাড়াহুড়োর কিছু নেই। আগামী বছর পুরো সময় আমরা পাইলটিং করব। এতে শিক্ষাক্রমের ভুলত্রুটি থাকলে তা ধরা পরবে; যুগোপযোগী কিছু বিষয় থাকলে সেটিও সংযোজন করা যাবে।’ এর আগেই শিক্ষক প্রশিক্ষণ দেয়া হবে জানিয়ে সিনিয়র সচিব বলেন, ‘ইতোমধ্যে প্রাথমিকের নতুন শিক্ষাক্রমের বই তৈরি (পরিমার্জিত) হয়েছে। শিক্ষক নির্দেশিকাও তৈরির কাজ শেষের পথে। এই কাজ শেষ হলে শিক্ষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু হবে।’

back to top