alt

শিক্ষা

এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ কার্যক্রম যাচাই-বাছাইয়ে উদ্যোগ

রাকিব উদ্দিন : শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০২৩

শিক্ষকতার সনদ (এনটিআরসিএ) রয়েছে, নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে, এমপিওভুক্তি হয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রায় সব কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়ার পর দেশের সব এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিয়োগ কার্যক্রম পুনরায় যাচাই-বাছাইয়ের উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। যদিও মাউশির কোন কোন কর্মকর্তার দাবি তারা শুধুমাত্র নতুন এমপিওভুক্ত হওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীর নিয়োগ প্রক্রিয়া, সনদ ও অন্যান্য নথিপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন।

কিছুদিন আগে এ কার্যক্রম শুরু করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। এ কাজে সংস্থার ৯টি আঞ্চলিক কার্যালয় ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পাশাপাশি ক্ষেত্রবিশেষ জেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজগুলোরও সহায়তা নেয়া হচ্ছে।

তবে নিয়োগ ও এমপিওভুক্তি সম্পন্ন হওয়ার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি নবায়ন এবং শিক্ষক-কর্মচারীর যাবতীয় সনদ পরীক্ষা-নিরীক্ষার উদ্যোগ নেয়ায় ‘তীব্র অসন্তোষ’ প্রকাশ করেছেন শিক্ষক নেতা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা।

শিক্ষা প্রশাসনের দু’জন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদকে জানিয়েছেন, গত বছর দুই হাজার সাত শতাধিক এবং চলতি বছর আড়াইশ’ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়। এতে অনেক ক্ষেত্রেই নীতিমালা উপেক্ষা করে রাজনৈতিক তদবির বিবেচনায় নিতে হয়। প্রতিষ্ঠানগুলোর এমপিওভুক্তি নিয়ে পরবর্তীতে অনেক ভুল-ত্রুটি বা সীমাবদ্ধতার তথ্য প্রকাশ পায়। এ কারণে সব প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় সনদ ও নথিপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে ওই কর্মকর্তারা জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের (স্বাশিপ) সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু সংবাদকে বলেন, ‘কারো বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে সেটি যাচাই-বাছাই হতেই পারে। কিন্তু ঢালাওভাবে সব প্রতিষ্ঠানের সবকিছু যাচাই-বাছাই কাম্য নয়। সেটি হলে শিক্ষকরা হয়রানির শিকার হবেন।’

সবকিছু যাচাই-বাছাই করেই এমপিওভুক্ত করা হয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আবার এনটিআরসিএ (জাতীয় শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ) সনদ ছাড়া কেউ নিয়োগ পায় না। তাহলে এ সনদ নতুন করে যাচাই-বাছাইয়ের কী প্রয়োজন সেটি বোধগম্য নয়।’

শিক্ষকরা মনে করছেন, এখন সনদ এবং প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক স্বীকৃতি যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে শিক্ষকদের হয়রানি ছাড়া কিছুই হবে না। নানা অজুহাতে বিপদে ফেলে শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে ‘অনৈতিক সুবিধা’ আদায় করা হবে।

সম্প্রতি মাউশির রাজশাহী অঞ্চল অফিস থেকে আঞ্চলিক পরিচালককে (অধ্যাপক) আহ্বায়ক করে একটি এবং জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রধান করে প্রতি জেলায় একটি করে কমিটি গঠন করা হয়। এসব কমিটিই নিজ নিজ অঞ্চল ও জেলা পর্যায়ে নতুন এমপিওভুক্ত হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-কর্মকর্তার যাবতীয় সনদ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে।

‘অঞ্চল পর্যায়ে নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান/স্তর এমপিও কোড পাওয়া কলেজ (উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ, স্নাতক (পাস) কলেজ ও স্কুল অ্যান্ড কলেজের কলেজ অংশ) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সরেজমিন রেকর্ডপত্র যাচাই কমিটি মনোনয়ন প্রসঙ্গে’ কমিটিগুলো গঠন করা হয়।

গত ১৪ মার্চ জারি করা আঞ্চলিক অফিসের চিঠিতে বলা হয়, ‘নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান/স্তর এমপিও কোড পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানের পাঠদান, একাডেমিক স্বীকৃতি, এমপিও কোড ও অন্যান্য কাগজপত্র এবং ব্যক্তি এমপিওর ক্ষেত্রে শিক্ষক-কর্মচারীদের সব পরীক্ষার সনদ/মার্কশিট, এনটিআরসিএ নিবন্ধন (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে), এনটিআরসিএ মূল সুপারিশ ও নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজপত্রের মূলকপি যাচাই-বাছাই করার নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের জন্য নির্দেশক্রমে কমিটি মনোনয়ন প্রদান কার হলো।’

বিভাগীয় কমিটিতে রাজশাহী অঞ্চলের পরিচালক, রাজশাহী কলেজ এবং রাজশাহীর শাহমখদুম ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষকে রাখা হয়েছে। আর জেলা পর্যায়ের কমিটিতেও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সঙ্গে একটি সরকারি এবং একটি বেসরকারি কলেজের অধ্যক্ষের প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে।

জানতে চাইলে মাউশির ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালক এএসএম আবদুল খালেক সংবাদকে বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ই উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে কমিটি গঠন করে দিয়েছে। এখন এমপিও যাচাই-বাছাই কাজ চলছে।’

নতুন ও পুনো সব প্রতিষ্ঠানের জনবল যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা নতুন প্রতিষ্ঠানের ‘স্টাফ’দের নথিপত্র যাচাই-বাছাই করছেন। আগে প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয়েছে। এখন শিক্ষক-কর্মচারীর বিষয়ে যাচাই-বাছাই হচ্ছে বলে জানান আবদুল খালেক।

কিন্তু শিক্ষা-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বলছেন, প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির সময় এর জনবল, শিক্ষকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া, যাবতীয় সনদ ও নথিপত্র বিবেচনায় নেয়া হয়। তাছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি নবায়ন বা পাঠদানের অনুমোদন আছে সেটি বিবেচনায় নেয়া একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

শিক্ষক-কর্মচারীদের সব সনদ পুনরায় যাচাই-বাছাই কার্যক্রম জোড়ালো করার লক্ষ্যে গত ২২ মার্চ সব আঞ্চলিক অফিসের পরিচালক এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তাদের নিয়ে জরুরি সভা করেন মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ। ওই সভায় এমপিওভুক্তিতে ‘ঘুষ, অনিয়ম ও দুর্নীতি’র বিষয়ে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সতর্ক করেন মাউশি মহাপরিচালক।

এ বিষয়ে অধ্যাপক নেহাল আহমেদ সংবাদকে বলেছেন, ‘মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে নতুন এমপিওভুক্ত হওয়া সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীর সনদ ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এজন্য মাঠ পর্যায়ের সব শিক্ষা কর্মকর্তাদের কড়াভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

এ কাজে কাউকে অযথা হয়রানি করলে বা ঘুষ দাবি করলে অভিযুক্ত শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মাউশি মহাপরিচালক।

গত বছরের মাঝামাঝি সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা এবং মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগের অধীনে দুই হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে। ওই সময় অনেক যোগ্য প্রতিষ্ঠান বাদ পড়ার অভিযোগ ওঠে। আবার অনেক অযোগ্য প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্তির অভিযোগ ওঠে।

পরবর্তীতে বাদপড়া অনেক প্রতিষ্ঠান এমপিও পেতে আপিল আবেদন করে। এ পরিপ্রেক্ষিতে আপিল নিষ্পত্তি করে গত ১২ জানুয়ারি নতুন করে আরও ২৫৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

আরও ৮৩ প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির প্রস্তাব

জনপ্রতিনিধিদের ডিও লেটারের (চাহিদাপত্র) আলোকে ৮৩টি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্তির জন্য সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। এক্ষেত্রেও ২০২১ সালের এমপিও নীতিমালা এবং জনবল কাঠামোর কিছু শর্ত আমলে না নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, ‘বিশেষ বিবেচনায়’ এমপিওভুক্তির জন্য এবার অর্ধশত প্রতিষ্ঠানের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছিল। এরপর গত ২৮ মার্চ ৮৩টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর সম্মতির জন্য পাঠানো হয়।

প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে নিম্ন মাধ্যমিকের ৩২টি, মাধ্যমিক ১৫টি, উচ্চ মাধ্যমিক ১২টি, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ ২০টি এবং ছয়টি ডিগ্রি কলেজ রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হলে বছরে সরকারের ৩২ কোটি ৪৫ লাখ ১৭ হাজার ৯১০ টাকা ব্যয় হবে।

যদিও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খানের দাবি, রাজনৈতিক বিবেচনা নয়, যোগ্যতার মাপকাঠিতে এমপিও দেয়া হচ্ছে।

২০২১ সালের এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী, ১০০ নম্বরের মূল্যায়নের ভিত্তিতে এমপিওভুক্ত করা হয়। ১০০ নম্বরের মূল্যায়নের মধ্যে রয়েছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা (৩০ নম্বর), পরীক্ষার্থীর সংখ্যা (৩০ নম্বর) এবং পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার (৪০ নম্বর)। এ নীতিমালার ২২ ধারায় বিশেষ ক্ষেত্রে শর্ত শিথিল করে এমপিওভুক্তির বিধান রাখা হয়েছে।

২২ ধারায় বলা হয়েছে, শিক্ষায় অনগ্রসর, ভৌগোলিকভাবে অসুবিধাজনক, পাহাড়ি এলাকা, হাওর-বাঁওড়, চরাঞ্চল, বস্তি এলাকা, ছিটমহল, নারীশিক্ষা, সামাজিকভাবে অনগ্রসর গোষ্ঠী (প্রতিবন্ধী, হরিজন, সেবক, চা-বাগান শ্রমিক, তৃতীয় লিঙ্গ ইত্যাদি) এবং বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান অর্থাৎ চারুকলা, বিকেএসপিসহ সংস্থা পরিচালিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির ক্ষেত্রে শর্ত শিথিলযোগ্য।

মাউশির এমপিও শাখার একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদনের সময় প্রতিষ্ঠান প্রধানরা শিক্ষার্থী, শিক্ষকসহ বিভিন্ন তথ্য ইচ্ছেমতো বেশি দেখিয়ে প্রস্তাবনা জমা দেন। এর ওপর আবার জনপ্রতিনিধিদের সুপারিশ থাকে। এ তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই এমপিওভুক্ত করা হয়। এ কারণে অনেক ধরনের ভুলভ্রান্তি থেকে যায়।

ছবি

সাড়ে ৬ লাখ শিক্ষককে প্রশিক্ষণের বাইরে রেখেই নতুন শিক্ষাক্রমে মূল্যায়ন প্রক্রিয়া শুরু

ছবি

২০২৪ সালের এইচএসসি পরীক্ষা পূর্ণ সিলেবাসে কি না, সিদ্ধান্ত ১২ জুন

খাগড়াছড়িতে গাইডিং সম্প্রসারন কর্মসূচি আওতায় ওরিয়েন্টেশন

ঢাবির ব্যবসায় শিক্ষা ইউনিটের ফল প্রকাশ, পাস ১১.৮৪ শতাংশ

ছবি

এইচএসসি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা, রুটিন প্রকাশ

গরমে মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ ঘোষণা

ছবি

গুচ্ছের ‘এ’ ইউনিটে পাসের হার ৪৩.৩৫, প্রথম শাহরিয়ার আলম

ছবি

গুচ্ছের ‘এ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ, পাশ ৪৩.৩৫ শতাংশ

ছবি

ষষ্ঠ-সপ্তমে গতানুগতিক প্রশ্ন তৈরি করে পরীক্ষা, ব্যবস্থা নিচ্ছে মাউশি

ঢাবির বিজ্ঞান ইউনিটের ফল প্রকাশ: পাশের হার ৯.৪৩

ছবি

গরমে এবার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিকের ক্লাসও বন্ধ

ছবি

ইউজিসির সদস্যপদে থাকছেন সাজ্জাদ হোসেন ও মুহাম্মাদ আলমগীর

ছবি

ঢাবি বিজ্ঞান ইউনিটের ফল প্রকাশ

ঘন ঘন ‘লোডশেডিং’ : প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ

ছবি

এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হতে পারে ১৭ আগস্ট

ঢাকায় শিক্ষার্থীদের সঙ্গীত প্রশিক্ষণ দেবে যুক্তরাজ্যের রয়্যাল স্কুলস অব মিউজিক

ছবি

তীব্র তাপদাহে ৫-৮ জুন প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ

ছবি

দাবি না মানলে বন্ধ থাকবে ইডেনের গেট, হুঁশিয়ারি শিক্ষার্থীদের

ছবি

গুচ্ছের ক্লাস শুরু আগস্টে

ছবি

গুচ্ছের ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আজ

ছবি

‘ভর্তি বাণিজ্য’ ও ছাত্রী নির্যাতন : মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলে অস্থিরতা

ছবি

প্রাথমিক শিক্ষায় বরাদ্দ বাড়ল ২ হাজার ৯৬১ কোটি টাকা

ছবি

অতিরিক্ত ফি নেওয়ায় বাতিল হচ্ছে ঢাকার ছয় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উচ্চমাধ্যমিক স্তর

ঢাবিতে চৌর্যবৃত্তি নীতিমালা চূড়ান্ত, পেতে হবে শাস্তি

ছবি

চৌর্যবৃত্তির জন্য শিক্ষক ও গবেষকদের শাস্তির মুখে পড়তে হবে

ছবি

রাবির ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শুরু

ছবি

১১ জুনের মধ্যে ৪৫তম বিসিএসের প্রিলির ফল প্রকাশ

ছবি

২০২৬ সালে নতুন শিক্ষাক্রমে এসএসসি পরীক্ষা

ছবি

রাবির ‘সি’ ইউনিটের প্রথম শিফটের ভর্তি পরীক্ষা শুরু

এসএসসি পরিক্ষার শেষ দিনেও অনুপস্থিত সাড়ে ১৬ হাজার

ছবি

ইইডি ও মাউশির কর্তৃত্বের দ্বন্দ্বে শিক্ষার ১১ প্রকল্প আটকে

ছবি

গুচ্ছের ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষা আজ

ছবি

গুচ্ছ ‘বি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ, পাসের হার ৫৬.৩২

ছবি

নড়াইল জেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক রবীন্দ্রনাথ মন্ডল

ছবি

মুখস্থ বিদ্যায় আগামীর ‘চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা’ সম্ভব নয়: শিক্ষামন্ত্রী

ছবি

নতুন আরেকটি বিশ্ববিদ্যালয় অনুমোদন

tab

শিক্ষা

এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ কার্যক্রম যাচাই-বাছাইয়ে উদ্যোগ

রাকিব উদ্দিন

শনিবার, ০১ এপ্রিল ২০২৩

শিক্ষকতার সনদ (এনটিআরসিএ) রয়েছে, নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে, এমপিওভুক্তি হয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রায় সব কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়ার পর দেশের সব এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নিয়োগ কার্যক্রম পুনরায় যাচাই-বাছাইয়ের উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। যদিও মাউশির কোন কোন কর্মকর্তার দাবি তারা শুধুমাত্র নতুন এমপিওভুক্ত হওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীর নিয়োগ প্রক্রিয়া, সনদ ও অন্যান্য নথিপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন।

কিছুদিন আগে এ কার্যক্রম শুরু করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। এ কাজে সংস্থার ৯টি আঞ্চলিক কার্যালয় ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার পাশাপাশি ক্ষেত্রবিশেষ জেলা পর্যায়ের সরকারি কলেজগুলোরও সহায়তা নেয়া হচ্ছে।

তবে নিয়োগ ও এমপিওভুক্তি সম্পন্ন হওয়ার পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি নবায়ন এবং শিক্ষক-কর্মচারীর যাবতীয় সনদ পরীক্ষা-নিরীক্ষার উদ্যোগ নেয়ায় ‘তীব্র অসন্তোষ’ প্রকাশ করেছেন শিক্ষক নেতা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা।

শিক্ষা প্রশাসনের দু’জন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সংবাদকে জানিয়েছেন, গত বছর দুই হাজার সাত শতাধিক এবং চলতি বছর আড়াইশ’ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়। এতে অনেক ক্ষেত্রেই নীতিমালা উপেক্ষা করে রাজনৈতিক তদবির বিবেচনায় নিতে হয়। প্রতিষ্ঠানগুলোর এমপিওভুক্তি নিয়ে পরবর্তীতে অনেক ভুল-ত্রুটি বা সীমাবদ্ধতার তথ্য প্রকাশ পায়। এ কারণে সব প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় সনদ ও নথিপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে ওই কর্মকর্তারা জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের (স্বাশিপ) সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহজাহান আলম সাজু সংবাদকে বলেন, ‘কারো বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে সেটি যাচাই-বাছাই হতেই পারে। কিন্তু ঢালাওভাবে সব প্রতিষ্ঠানের সবকিছু যাচাই-বাছাই কাম্য নয়। সেটি হলে শিক্ষকরা হয়রানির শিকার হবেন।’

সবকিছু যাচাই-বাছাই করেই এমপিওভুক্ত করা হয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আবার এনটিআরসিএ (জাতীয় শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ) সনদ ছাড়া কেউ নিয়োগ পায় না। তাহলে এ সনদ নতুন করে যাচাই-বাছাইয়ের কী প্রয়োজন সেটি বোধগম্য নয়।’

শিক্ষকরা মনে করছেন, এখন সনদ এবং প্রতিষ্ঠানের একাডেমিক স্বীকৃতি যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে শিক্ষকদের হয়রানি ছাড়া কিছুই হবে না। নানা অজুহাতে বিপদে ফেলে শিক্ষক-কর্মচারীদের কাছ থেকে ‘অনৈতিক সুবিধা’ আদায় করা হবে।

সম্প্রতি মাউশির রাজশাহী অঞ্চল অফিস থেকে আঞ্চলিক পরিচালককে (অধ্যাপক) আহ্বায়ক করে একটি এবং জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রধান করে প্রতি জেলায় একটি করে কমিটি গঠন করা হয়। এসব কমিটিই নিজ নিজ অঞ্চল ও জেলা পর্যায়ে নতুন এমপিওভুক্ত হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষক-কর্মকর্তার যাবতীয় সনদ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে।

‘অঞ্চল পর্যায়ে নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান/স্তর এমপিও কোড পাওয়া কলেজ (উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ, স্নাতক (পাস) কলেজ ও স্কুল অ্যান্ড কলেজের কলেজ অংশ) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সরেজমিন রেকর্ডপত্র যাচাই কমিটি মনোনয়ন প্রসঙ্গে’ কমিটিগুলো গঠন করা হয়।

গত ১৪ মার্চ জারি করা আঞ্চলিক অফিসের চিঠিতে বলা হয়, ‘নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান/স্তর এমপিও কোড পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানের পাঠদান, একাডেমিক স্বীকৃতি, এমপিও কোড ও অন্যান্য কাগজপত্র এবং ব্যক্তি এমপিওর ক্ষেত্রে শিক্ষক-কর্মচারীদের সব পরীক্ষার সনদ/মার্কশিট, এনটিআরসিএ নিবন্ধন (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে), এনটিআরসিএ মূল সুপারিশ ও নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজপত্রের মূলকপি যাচাই-বাছাই করার নিমিত্তে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের জন্য নির্দেশক্রমে কমিটি মনোনয়ন প্রদান কার হলো।’

বিভাগীয় কমিটিতে রাজশাহী অঞ্চলের পরিচালক, রাজশাহী কলেজ এবং রাজশাহীর শাহমখদুম ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষকে রাখা হয়েছে। আর জেলা পর্যায়ের কমিটিতেও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সঙ্গে একটি সরকারি এবং একটি বেসরকারি কলেজের অধ্যক্ষের প্রতিনিধিকে রাখা হয়েছে।

জানতে চাইলে মাউশির ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালক এএসএম আবদুল খালেক সংবাদকে বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ই উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে কমিটি গঠন করে দিয়েছে। এখন এমপিও যাচাই-বাছাই কাজ চলছে।’

নতুন ও পুনো সব প্রতিষ্ঠানের জনবল যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা নতুন প্রতিষ্ঠানের ‘স্টাফ’দের নথিপত্র যাচাই-বাছাই করছেন। আগে প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হয়েছে। এখন শিক্ষক-কর্মচারীর বিষয়ে যাচাই-বাছাই হচ্ছে বলে জানান আবদুল খালেক।

কিন্তু শিক্ষা-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা বলছেন, প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির সময় এর জনবল, শিক্ষকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া, যাবতীয় সনদ ও নথিপত্র বিবেচনায় নেয়া হয়। তাছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি নবায়ন বা পাঠদানের অনুমোদন আছে সেটি বিবেচনায় নেয়া একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

শিক্ষক-কর্মচারীদের সব সনদ পুনরায় যাচাই-বাছাই কার্যক্রম জোড়ালো করার লক্ষ্যে গত ২২ মার্চ সব আঞ্চলিক অফিসের পরিচালক এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষা কর্মকর্তাদের নিয়ে জরুরি সভা করেন মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ। ওই সভায় এমপিওভুক্তিতে ‘ঘুষ, অনিয়ম ও দুর্নীতি’র বিষয়ে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সতর্ক করেন মাউশি মহাপরিচালক।

এ বিষয়ে অধ্যাপক নেহাল আহমেদ সংবাদকে বলেছেন, ‘মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে নতুন এমপিওভুক্ত হওয়া সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীর সনদ ভালোভাবে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। এজন্য মাঠ পর্যায়ের সব শিক্ষা কর্মকর্তাদের কড়াভাবে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

এ কাজে কাউকে অযথা হয়রানি করলে বা ঘুষ দাবি করলে অভিযুক্ত শিক্ষা কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মাউশি মহাপরিচালক।

গত বছরের মাঝামাঝি সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা এবং মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগের অধীনে দুই হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে। ওই সময় অনেক যোগ্য প্রতিষ্ঠান বাদ পড়ার অভিযোগ ওঠে। আবার অনেক অযোগ্য প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্তির অভিযোগ ওঠে।

পরবর্তীতে বাদপড়া অনেক প্রতিষ্ঠান এমপিও পেতে আপিল আবেদন করে। এ পরিপ্রেক্ষিতে আপিল নিষ্পত্তি করে গত ১২ জানুয়ারি নতুন করে আরও ২৫৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

আরও ৮৩ প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির প্রস্তাব

জনপ্রতিনিধিদের ডিও লেটারের (চাহিদাপত্র) আলোকে ৮৩টি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্তির জন্য সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। এক্ষেত্রেও ২০২১ সালের এমপিও নীতিমালা এবং জনবল কাঠামোর কিছু শর্ত আমলে না নেয়ার অভিযোগ রয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, ‘বিশেষ বিবেচনায়’ এমপিওভুক্তির জন্য এবার অর্ধশত প্রতিষ্ঠানের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছিল। এরপর গত ২৮ মার্চ ৮৩টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রধানমন্ত্রীর সম্মতির জন্য পাঠানো হয়।

প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে নিম্ন মাধ্যমিকের ৩২টি, মাধ্যমিক ১৫টি, উচ্চ মাধ্যমিক ১২টি, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ ২০টি এবং ছয়টি ডিগ্রি কলেজ রয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হলে বছরে সরকারের ৩২ কোটি ৪৫ লাখ ১৭ হাজার ৯১০ টাকা ব্যয় হবে।

যদিও মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খানের দাবি, রাজনৈতিক বিবেচনা নয়, যোগ্যতার মাপকাঠিতে এমপিও দেয়া হচ্ছে।

২০২১ সালের এমপিও নীতিমালা অনুযায়ী, ১০০ নম্বরের মূল্যায়নের ভিত্তিতে এমপিওভুক্ত করা হয়। ১০০ নম্বরের মূল্যায়নের মধ্যে রয়েছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা (৩০ নম্বর), পরীক্ষার্থীর সংখ্যা (৩০ নম্বর) এবং পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার (৪০ নম্বর)। এ নীতিমালার ২২ ধারায় বিশেষ ক্ষেত্রে শর্ত শিথিল করে এমপিওভুক্তির বিধান রাখা হয়েছে।

২২ ধারায় বলা হয়েছে, শিক্ষায় অনগ্রসর, ভৌগোলিকভাবে অসুবিধাজনক, পাহাড়ি এলাকা, হাওর-বাঁওড়, চরাঞ্চল, বস্তি এলাকা, ছিটমহল, নারীশিক্ষা, সামাজিকভাবে অনগ্রসর গোষ্ঠী (প্রতিবন্ধী, হরিজন, সেবক, চা-বাগান শ্রমিক, তৃতীয় লিঙ্গ ইত্যাদি) এবং বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান অর্থাৎ চারুকলা, বিকেএসপিসহ সংস্থা পরিচালিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির ক্ষেত্রে শর্ত শিথিলযোগ্য।

মাউশির এমপিও শাখার একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদনের সময় প্রতিষ্ঠান প্রধানরা শিক্ষার্থী, শিক্ষকসহ বিভিন্ন তথ্য ইচ্ছেমতো বেশি দেখিয়ে প্রস্তাবনা জমা দেন। এর ওপর আবার জনপ্রতিনিধিদের সুপারিশ থাকে। এ তথ্যের ওপর ভিত্তি করেই এমপিওভুক্ত করা হয়। এ কারণে অনেক ধরনের ভুলভ্রান্তি থেকে যায়।

back to top