alt

আন্তর্জাতিক

মারধর থেকে বাঁচেননি একজন ফিলিস্তিনি পুরুষও

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

দিনটি ছিল শুক্রবার। সামের (২২) ও ওমর (২৮) খুব সকালেই ঘুম থেকে উঠে পড়েন। জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতে অবস্থিত পবিত্র আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে জুমার নামাজ আদায় করার ইচ্ছা তাদের।

দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমের ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত ইসাবিয়া এলাকায় সামের ও ওমরদের বাড়ি। সেখান থেকে মাত্র ১৫ মিনিটের পথ আল-আকসার। শহরের হাজার হাজার ফিলিস্তিনি প্রতি শুক্রবার জুমার নামাজ এ মসজিদে আদায় করে থাকেন। তরুণ সামের ও ওমর তাঁদেরই দুজন।

আল-আকসায় জুমার নামাজ আদায় করতে সেদিন সামের ও ওমর যখন দামেস্ক গেটে পৌঁছান, তখন ইসরায়েলি বাহিনী তাদের থামতে বলে। ওল্ড সিটিতে ঢুকতে ফিলিস্তিনিরা এই (দামেস্ক গেট) প্রধান প্রবেশপথটি ব্যবহার করে থাকেন।

পথ আটকানোর পর সামের ও ওমরকে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর এক সদস্যের প্রশ্ন, কোথা থেকে এলে? তাঁদের জবাব, ইসাবিয়া।

ইসাবিয়ায় ফিরে যাও এবং সেখানেই নামাজ পড়ো—পাল্টা জবাব নিরাপত্তা বাহিনীর ওই সদস্যের। জুমার নামাজ আদায় করতে যাওয়ার পথে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর এমন প্রশ্নের মুখে পড়া ও ফেরত যাওয়ার নির্দেশ পাওয়ার কথা জানান আরও কয়েকজন ফিলিস্তিনি।

গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের অভ্যন্তরে নজিরবিহীন রকেট হামলা চালায় ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস। এর পর থেকে ওল্ড সিটিতে প্রবেশে চূড়ান্ত রকমের কড়াকড়ি আরোপ করে ইসরায়েলি বাহিনী। তবে গত দুই শুক্রবার এ কড়াকড়ি কিছুটা শিথিল করা হয়। এতে আরও বেশি মুসল্লি আল-আকসায় নামাজ আদায়ের সুযোগ পান।

নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে বাধা পেয়ে সামের ও ওমর মনে কষ্ট পান। ফিরে যাওয়া শুরু করেন তারা। পথে নিরাপত্তা বাহিনীর তল্লাশিচৌকির কাছে একটি কেবিন থেকে পানি খেতে কিছু একটা ধরতে যাচ্ছিলেন। কিছুক্ষণ পরই ওই বাহিনীর সদস্যরা এসে তাদের দুজনকে স্থান ত্যাগ করতে বলেন। কারণ হিসেবে কোনো ব্যাখ্যা দেওয়ার প্রয়োজন মনে করেননি তারা।

এ ঘটনার পর আল–জাজিরাকে সামের বলেন, ‘নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা আমাদের ধাক্কাতে শুরু করেন ও পরে আমার বন্ধুকে পেটান। আমরা বলার চেষ্টা করেছি, ‘‘আমাদের মেরো না।”’ নিরাপত্তা বাহিনীর এই সদস্যদের অভিশাপ দেন ফিলিস্তিনি তরুণ ওমর। এর আগে তাদের দুজনকে প্রায় ৫০০ মিটার ধাওয়া করে লাঠি দিয়ে পেটান তারা।

নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা যখন দুই তরুণকে ধাওয়া করেন ও পেটান, তখন ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন আল–জাজিরার সংবাদদাতাও। তিনি ওই সদস্যদের একজনকে বলতে শোনেন, ‘ওদের পা ভেঙে দাও, যেন আর ফিরে আসতে না পারে।’

মারধরে ২৮ বছরের তরুণ ওমরের আঘাত ছিল তার বন্ধুর চেয়ে মারাত্মক। তার পায়ে এমন দাগ পড়ে যে মনে হচ্ছিল সেখানে পুড়ে গেছে। ব্যথায় কাতর ওমর হাটতে পারছিলেন না।

এদিকে আহত সামের বলছিলেন, ‘আমরা এখানে (জেরুজালেম) থাকি, তারা সেটা চায় না। তারা দেশ থেকে আমাদের তাড়িয়ে দিতে চায়। জেরুজালেমে কোনো পুরুষের জন্য জীবন বলতে কিছু নেই। এখানে শুধুই একজন ফিলিস্তিনি পুরুষ হিসেবে টিকে থাকাটাও তাদের (ইসরায়েল) সহ্য হয় না।’

সামের জানান, এরপরও জেরুজালেমে তাদের শক্তভাবে টিকে থাকা ছাড়া আর কোনো বিকল্প পথ নেই। তিনি বলেন, ‘দিন শেষে এটি (ইসরায়েলি বাহিনীর কর্মকাণ্ড) তাদের সামরিক দখলদারত্ব। আমরা কখনোই এখান থেকে চলে যাব না, তারা যা-ই করুক।’

এ আলাপ শেষে সামের ও ওমর একটি বাসে উঠে তাঁদের বাড়ির উদ্দেশে ফিরে যান।

৫৭ বছরের ইসরায়েলি সামরিক দখলদারির মধ্যে জেরুজালেমে ফিলিস্তিনিরা এক দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছেন। ৭ অক্টোবরের পর এখানে তাদের জীবন ধারণ করা আগের চেয়ে কঠিন হয়ে পড়েছে।

ওই দিন হামাসের যোদ্ধারা দক্ষিণ ইসরায়েলে আকস্মিক আক্রমণ চালান। তাতে নিহত হন প্রায় ১ হাজার ২০০ ইসরায়েলি। ২০০–এর বেশি ইসরায়েলিকে বন্দী করে নিয়ে যান যোদ্ধারা। বহুগুণ নৃশংসতায় এর পাল্টা জবাব দিয়ে চলেছে ইসরায়েল। ফিলিস্তিনের গাজায় ৭ অক্টোবর থেকেই নির্বিচার হামলা শুরু করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। প্রথমে বিমান থেকে বিরামহীন গোলাবর্ষণ এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলা; পরে যুগপৎভাবে স্থল অভিযান।

গত চার মাসে ইসরায়েলি বাহিনীর নৃশংসতায় এখন পর্যন্ত প্রাণ গেছে ২৯ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনির। আহত বা পঙ্গু হয়েছেন আরও অনেকে। ইসরায়েলি অভিযানে ধ্বংসস্তূপ আর নরকে পরিণত হওয়া এই উপত্যকার দূরত্ব জেরুজালেম থেকে মাত্র ৮০ কিলোমিটার।

হামাসের হামলার পর আশপাশের এলাকাগুলোর মতো জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতেও মোতায়েন করা হয় হাজার হাজার ইসরায়েলি সেনা। তারা এসব এলাকায় ফিলিস্তিনিদের চলাচলের ওপর আরোপ করেছেন কঠোর বিধিনিষেধ। বাড়তি হিসেবে জেরুজালেমকে করা হয়েছে আরও বিচ্ছিন্ন। দখলকৃত পশ্চিম তীর থেকে শহরটিতে ফিলিস্তিনিদের প্রবেশের সব অনুমতি বাতিল করা হচ্ছে।

তরুণ ফিলিস্তিনিরা, বিশেষ করে জেরুজালেমে ইসরায়েলি সেনাদের ক্রমবর্ধমান সহিংসতা ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

ওল্ড সিটির বাসিন্দা ও একটি দোকানের মালিক আবু মোহাম্মদ (৩০) বলেন, ৭ অক্টোবরের পর বিশেষত প্রথম কয়েক দিন ও সপ্তাহ ইসরায়েলি সেনারা এখানে (ওল্ড সিটি) বিকেল পাচটার পর থেকে কড়াকড়িভাবে কারফিউ কার্যকর করে। আবু মোহাম্মদ আল–জাজিরাকে আরও বলেন, ‘ওই সময়ের পর রাস্তায় কাউকে দাঁড়িয়ে থাকতে দিত না সেনারা। আমরা যদি দাড়াতাম, তবে তাঁরা আমাদের পেটাতেন, উসকানিমূলক তল্লাশি ও গালিগালাজ করতেন।’

ইসরায়েলি বাহিনী কীভাবে সহিংসতা শুরু করে এবং জেরুজালেমের এখনকার পরিস্থিতিই-বা কেমন, সে বিষয়ে বর্ণনা দেন আবু মোহাম্মদ। তিনি বলেন, যেকোনো সময় যেকোনো পুরুষ মানুষ ওল্ড সিটিতে ঢুকতে চাইলে সেনারা তার তল্লাশি শুরু করেন। প্রথমে একদল সেনা তাকে তল্লাশি করবেন। এ সময় তারা কনুই বা হাঁটু দিয়ে তাকে আঘাত ও কিছু বলানোর চেষ্টা করবেন।

তিন সন্তানের বাবা আবু মোহাম্মদ বলেন, ‘এই সময় আপনি যদি কিছু বলেন, দেখবেন তারা সবাই আপনার ওপর চড়ে বসেছেন। তাঁরা আপনার মাথায় ঘুষি মারছেন, সারা দেহে মারছেন। কখনো কখনো আপনাকে হাসপাতালে যেতে হতে পারে।’

আবু মোহাম্মদ বলেন, ‘ইসরায়েলি সেনারা বয়স্ক ও অল্পবয়সী—এমন পার্থক্য করে না। আমি সেনাদের বয়স্ক মানুষকেও পেটাতে দেখেছি। তারা কোনোকিছুর তোয়াক্কা করেন না। শহরে এমন কোনো ফিলিস্তিনি পুরুষ পাওয়া যাবে না, যিনি তাঁদের হাতে মার খাননি।’

ছবি

ইসরায়েলে ইরানের হামলা, বাইডেনের সঙ্গে নেতানিয়াহুর ফোনালাপ

ছবি

অস্ট্রেলিয়ার শপিং মলে হামলাকারী শনাক্ত

ছবি

ইসরায়েলে হামলা ইরানের

ছবি

উত্তেজনার মধ্যে হরমুজ প্রণালিতে ইসরায়েলি মালবাহী জাহাজ জব্দ করল ইরান

ছবি

ভারতের আসন্ন নির্বাচনে ক্ষমতায় আবার মোদী: জরিপ

ছবি

অস্ট্রেলিয়ায় শপিংমলে হামলা, নিহত ৬

রমনা বটমূলে পুলিশ কমিশনারের ব্রিফিং, পয়লা বৈশাখে হামলার আশঙ্কা নেই

ছবি

ইরানকে বাইডেনের একশব্দের বার্তা, ইসরায়েলকে রক্ষায় ‘সবকিছু’ করবেন

ছবি

ইসরায়েলে ইরানের হামলার হুমকি বাস্তব: যুক্তরাষ্ট্র

গৃহযুদ্ধে মায়ানমারের অর্ধেক মানুষই দারিদ্র্যপীড়িত: জাতিসংঘ

মায়ানমারের সীমান্ত শহরের বাসিন্দারা থাইল্যান্ডে পালাচ্ছে

পুতিন সমালোচক নাভালনির স্মৃতিকথা প্রকাশিত হবে অক্টোবরে

ছবি

পেঁয়াজের দাম নিয়ে মন্তব্য করে ক্ষমতা হারালেন প্রেসিডেন্ট!

ছবি

আমরা ভালো নেই, বললো গাজার শিশুরা

ছবি

নোবেলবিজয়ী পদার্থবিজ্ঞানী পিটার হিগস মারা গেছেন

ছবি

ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয়ার ইঙ্গিত অস্ট্রেলিয়ার

ছবি

জলবায়ু পরিবর্তন রোধে নিস্ক্রিয়তা মানবাধিকার লঙ্ঘন: ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালত

ছবি

জিবুতি উপকূলে নৌকাডুবি, নিহত ৩৮

যুক্তরাজ্যে সন্তানের সামনে স্ত্রীকে খুন করা সেই বাংলাদেশি হা‌বিবুর রহমান মাসুম গ্রেপ্তার

ছবি

পিটার হাসের গা ঢাকা দেওয়ার অভিযোগ সঠিক নয় বলছে যুক্তরাষ্ট্র

ছবি

ইসরায়েলের কাছে যুদ্ধ সরঞ্জাম বিক্রি, জার্মানির বিরুদ্ধে গণহত্যা মামলা

ছবি

সৌদি আরব ও আশপাশের দেশে কবে ঈদ, কী বলছেন জ্যোতির্বিদরা

ছবি

বাড়ি ফিরতে শুরু করেছেন খান ইউনিসের বাসিন্দারা

ছবি

কঙ্গোতে মিলিশিয়াদের হামলায় ২৫ বেসামরিক নিহত

ছবি

কলেরা থেকে বাঁচতে যাত্রা, নৌকা ডুবে প্রাণ গেল ৯০ জনের

‘কর্তৃত্ববাদী’ জোটের মুখে আছে পশ্চিমা দেশগুলো: ন্যাটোপ্রধান

ছবি

থাইল্যান্ড সীমান্তে গুরুত্বপূর্ণ শহর হারালো মায়ানমার সেনাবাহিনী

ছবি

ইসরায়েল জুড়ে আবারও সরকারবিরোধী বিক্ষোভ

ছবি

ফের বড় পরাজয়, গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত শহর হারাল মায়ানমার সেনাবাহিনী

ছবি

গাজায় ইসরায়েলি বর্বরতা চলছেই, নিহত বেড়ে ৩৩১৩৭

ছবি

হিথ্রো বিমানবন্দরে দুই উড়োজাহাজের সংঘর্ষ

ছবি

শারজাহ্ বহুতল ভবনে ভয়াবহ অ’গ্নিকা’ণ্ডে ৫ জন নিহত, আহত ৪৪

ছবি

ইউক্রেনের খারকিভে রুশ ড্রোন হামলা, নিহত ৬

ছবি

ইসরায়েলে আক্রমণের প্রস্তুতি ইরানের, যুক্তরাষ্ট্রকে বলছে ‘সরে থাকতে’

ছবি

দেশে দেশে কলেরার প্রাদুর্ভাব, বৈশ্বিক কর্মসূচি ঘোষণা ডব্লিউএইচও’র

ছবি

গাজায় এক লাখের বেশি ফিলিস্তিনি হতাহত : গুতেরেস

tab

আন্তর্জাতিক

মারধর থেকে বাঁচেননি একজন ফিলিস্তিনি পুরুষও

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

দিনটি ছিল শুক্রবার। সামের (২২) ও ওমর (২৮) খুব সকালেই ঘুম থেকে উঠে পড়েন। জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতে অবস্থিত পবিত্র আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে জুমার নামাজ আদায় করার ইচ্ছা তাদের।

দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমের ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত ইসাবিয়া এলাকায় সামের ও ওমরদের বাড়ি। সেখান থেকে মাত্র ১৫ মিনিটের পথ আল-আকসার। শহরের হাজার হাজার ফিলিস্তিনি প্রতি শুক্রবার জুমার নামাজ এ মসজিদে আদায় করে থাকেন। তরুণ সামের ও ওমর তাঁদেরই দুজন।

আল-আকসায় জুমার নামাজ আদায় করতে সেদিন সামের ও ওমর যখন দামেস্ক গেটে পৌঁছান, তখন ইসরায়েলি বাহিনী তাদের থামতে বলে। ওল্ড সিটিতে ঢুকতে ফিলিস্তিনিরা এই (দামেস্ক গেট) প্রধান প্রবেশপথটি ব্যবহার করে থাকেন।

পথ আটকানোর পর সামের ও ওমরকে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর এক সদস্যের প্রশ্ন, কোথা থেকে এলে? তাঁদের জবাব, ইসাবিয়া।

ইসাবিয়ায় ফিরে যাও এবং সেখানেই নামাজ পড়ো—পাল্টা জবাব নিরাপত্তা বাহিনীর ওই সদস্যের। জুমার নামাজ আদায় করতে যাওয়ার পথে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর এমন প্রশ্নের মুখে পড়া ও ফেরত যাওয়ার নির্দেশ পাওয়ার কথা জানান আরও কয়েকজন ফিলিস্তিনি।

গত বছরের ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের অভ্যন্তরে নজিরবিহীন রকেট হামলা চালায় ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী হামাস। এর পর থেকে ওল্ড সিটিতে প্রবেশে চূড়ান্ত রকমের কড়াকড়ি আরোপ করে ইসরায়েলি বাহিনী। তবে গত দুই শুক্রবার এ কড়াকড়ি কিছুটা শিথিল করা হয়। এতে আরও বেশি মুসল্লি আল-আকসায় নামাজ আদায়ের সুযোগ পান।

নিরাপত্তা বাহিনীর কাছে বাধা পেয়ে সামের ও ওমর মনে কষ্ট পান। ফিরে যাওয়া শুরু করেন তারা। পথে নিরাপত্তা বাহিনীর তল্লাশিচৌকির কাছে একটি কেবিন থেকে পানি খেতে কিছু একটা ধরতে যাচ্ছিলেন। কিছুক্ষণ পরই ওই বাহিনীর সদস্যরা এসে তাদের দুজনকে স্থান ত্যাগ করতে বলেন। কারণ হিসেবে কোনো ব্যাখ্যা দেওয়ার প্রয়োজন মনে করেননি তারা।

এ ঘটনার পর আল–জাজিরাকে সামের বলেন, ‘নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা আমাদের ধাক্কাতে শুরু করেন ও পরে আমার বন্ধুকে পেটান। আমরা বলার চেষ্টা করেছি, ‘‘আমাদের মেরো না।”’ নিরাপত্তা বাহিনীর এই সদস্যদের অভিশাপ দেন ফিলিস্তিনি তরুণ ওমর। এর আগে তাদের দুজনকে প্রায় ৫০০ মিটার ধাওয়া করে লাঠি দিয়ে পেটান তারা।

নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা যখন দুই তরুণকে ধাওয়া করেন ও পেটান, তখন ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন আল–জাজিরার সংবাদদাতাও। তিনি ওই সদস্যদের একজনকে বলতে শোনেন, ‘ওদের পা ভেঙে দাও, যেন আর ফিরে আসতে না পারে।’

মারধরে ২৮ বছরের তরুণ ওমরের আঘাত ছিল তার বন্ধুর চেয়ে মারাত্মক। তার পায়ে এমন দাগ পড়ে যে মনে হচ্ছিল সেখানে পুড়ে গেছে। ব্যথায় কাতর ওমর হাটতে পারছিলেন না।

এদিকে আহত সামের বলছিলেন, ‘আমরা এখানে (জেরুজালেম) থাকি, তারা সেটা চায় না। তারা দেশ থেকে আমাদের তাড়িয়ে দিতে চায়। জেরুজালেমে কোনো পুরুষের জন্য জীবন বলতে কিছু নেই। এখানে শুধুই একজন ফিলিস্তিনি পুরুষ হিসেবে টিকে থাকাটাও তাদের (ইসরায়েল) সহ্য হয় না।’

সামের জানান, এরপরও জেরুজালেমে তাদের শক্তভাবে টিকে থাকা ছাড়া আর কোনো বিকল্প পথ নেই। তিনি বলেন, ‘দিন শেষে এটি (ইসরায়েলি বাহিনীর কর্মকাণ্ড) তাদের সামরিক দখলদারত্ব। আমরা কখনোই এখান থেকে চলে যাব না, তারা যা-ই করুক।’

এ আলাপ শেষে সামের ও ওমর একটি বাসে উঠে তাঁদের বাড়ির উদ্দেশে ফিরে যান।

৫৭ বছরের ইসরায়েলি সামরিক দখলদারির মধ্যে জেরুজালেমে ফিলিস্তিনিরা এক দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছেন। ৭ অক্টোবরের পর এখানে তাদের জীবন ধারণ করা আগের চেয়ে কঠিন হয়ে পড়েছে।

ওই দিন হামাসের যোদ্ধারা দক্ষিণ ইসরায়েলে আকস্মিক আক্রমণ চালান। তাতে নিহত হন প্রায় ১ হাজার ২০০ ইসরায়েলি। ২০০–এর বেশি ইসরায়েলিকে বন্দী করে নিয়ে যান যোদ্ধারা। বহুগুণ নৃশংসতায় এর পাল্টা জবাব দিয়ে চলেছে ইসরায়েল। ফিলিস্তিনের গাজায় ৭ অক্টোবর থেকেই নির্বিচার হামলা শুরু করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। প্রথমে বিমান থেকে বিরামহীন গোলাবর্ষণ এবং ক্ষেপণাস্ত্র হামলা; পরে যুগপৎভাবে স্থল অভিযান।

গত চার মাসে ইসরায়েলি বাহিনীর নৃশংসতায় এখন পর্যন্ত প্রাণ গেছে ২৯ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনির। আহত বা পঙ্গু হয়েছেন আরও অনেকে। ইসরায়েলি অভিযানে ধ্বংসস্তূপ আর নরকে পরিণত হওয়া এই উপত্যকার দূরত্ব জেরুজালেম থেকে মাত্র ৮০ কিলোমিটার।

হামাসের হামলার পর আশপাশের এলাকাগুলোর মতো জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতেও মোতায়েন করা হয় হাজার হাজার ইসরায়েলি সেনা। তারা এসব এলাকায় ফিলিস্তিনিদের চলাচলের ওপর আরোপ করেছেন কঠোর বিধিনিষেধ। বাড়তি হিসেবে জেরুজালেমকে করা হয়েছে আরও বিচ্ছিন্ন। দখলকৃত পশ্চিম তীর থেকে শহরটিতে ফিলিস্তিনিদের প্রবেশের সব অনুমতি বাতিল করা হচ্ছে।

তরুণ ফিলিস্তিনিরা, বিশেষ করে জেরুজালেমে ইসরায়েলি সেনাদের ক্রমবর্ধমান সহিংসতা ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

ওল্ড সিটির বাসিন্দা ও একটি দোকানের মালিক আবু মোহাম্মদ (৩০) বলেন, ৭ অক্টোবরের পর বিশেষত প্রথম কয়েক দিন ও সপ্তাহ ইসরায়েলি সেনারা এখানে (ওল্ড সিটি) বিকেল পাচটার পর থেকে কড়াকড়িভাবে কারফিউ কার্যকর করে। আবু মোহাম্মদ আল–জাজিরাকে আরও বলেন, ‘ওই সময়ের পর রাস্তায় কাউকে দাঁড়িয়ে থাকতে দিত না সেনারা। আমরা যদি দাড়াতাম, তবে তাঁরা আমাদের পেটাতেন, উসকানিমূলক তল্লাশি ও গালিগালাজ করতেন।’

ইসরায়েলি বাহিনী কীভাবে সহিংসতা শুরু করে এবং জেরুজালেমের এখনকার পরিস্থিতিই-বা কেমন, সে বিষয়ে বর্ণনা দেন আবু মোহাম্মদ। তিনি বলেন, যেকোনো সময় যেকোনো পুরুষ মানুষ ওল্ড সিটিতে ঢুকতে চাইলে সেনারা তার তল্লাশি শুরু করেন। প্রথমে একদল সেনা তাকে তল্লাশি করবেন। এ সময় তারা কনুই বা হাঁটু দিয়ে তাকে আঘাত ও কিছু বলানোর চেষ্টা করবেন।

তিন সন্তানের বাবা আবু মোহাম্মদ বলেন, ‘এই সময় আপনি যদি কিছু বলেন, দেখবেন তারা সবাই আপনার ওপর চড়ে বসেছেন। তাঁরা আপনার মাথায় ঘুষি মারছেন, সারা দেহে মারছেন। কখনো কখনো আপনাকে হাসপাতালে যেতে হতে পারে।’

আবু মোহাম্মদ বলেন, ‘ইসরায়েলি সেনারা বয়স্ক ও অল্পবয়সী—এমন পার্থক্য করে না। আমি সেনাদের বয়স্ক মানুষকেও পেটাতে দেখেছি। তারা কোনোকিছুর তোয়াক্কা করেন না। শহরে এমন কোনো ফিলিস্তিনি পুরুষ পাওয়া যাবে না, যিনি তাঁদের হাতে মার খাননি।’

back to top