alt

আন্তর্জাতিক

মুক্তিযুদ্ধের বন্ধু সাইমন ড্রিং মারা গেছেন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : মঙ্গলবার, ২০ জুলাই ২০২১
image

একাত্তরে পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যার খবর যিনি প্রথম পৌঁছে দিয়েছিলেন বিশ্বের কাছে, সেই ব্রিটিশ সাংবাদিক সাইমন ড্রিং মারা গেছেন।

তার আত্নীয়দের সূত্রে জানা গেছে গত শুক্রবার রোমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের সময় সাইমন ড্রিং মারা যান।

তার আত্নীয় ক্রিস বার্লাস লন্ডনে বাংলাদেশী সাংবাদিক সৈয়দ নাহাস পাশাকে জানিয়েছেন, গত এক বছরের বেশি সময় ধরে সায়মন অসুস্থ ছিলেন। গত কিছুদিন ধরে তিনি হার্নিয়ার সমস্যায় ভুগছিলেন। তাই তাকে রোমানিয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল।

বার্লাস জানিয়েছেন সেখানে অস্ত্রোপচারের সময় তার হার্ট অ্যাটাক হয়।

সাইমন ড্রিং দীর্ঘদিন রয়টার্স, টেলিগ্রাফ ও বিবিসির হয়ে কাজ করেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

তার স্ত্রী ফিয়োনা ম্যাকফারসন একজন আইনজীবী এবং রোমানিয়াভিত্তিক একটি ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থার নির্বাহী পরিচালক। ইভা ও ইনডিয়া তাদের যমজ মেয়ে। প্রথম স্ত্রীর ঘরে তানিয়া নামে আরও একটি মেয়ে আছে সাইমনের।

১৯৭১ সালের ২৫মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী গণহত্যা শুরু করার আগে ঢাকায় অবস্থানরত প্রায় অর্ধশত বিদেশি সাংবাদিককে আটকে ফেলে তখনকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে । তাদের হোটেল থেকে সরাসরি বিমানে তুলে ঢাকা ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

তবে বৃটিশ পত্রিকা ডেইলি টেলিগ্রাফের সংবাদদাতা সাইমন ড্রিং সেই আদেশ না মেনে হোটেলে লুকিয়ে থাকেন। প্রায় ৩২ ঘণ্টা হোটেলের লবি, ছাদ, পানশালা, হেঁশেল ইত্যাদি জায়গায় তার শ্বাসরুদ্ধকর সময় কাটে।

২৭ মার্চ কারফিউ উঠে গেলে সায়মন ড্রিং ঢাকার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেন গণহত্যার চিত্র।

নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে বাংলাদেশে পাকিস্তানী বাহিনীর গণহত্যার প্রথম খবর প্রকাশ করেন ৩০ মার্চ ১৯৭১, ডেইলি টেলিগ্রাফে।

একাত্তরে তার ভূমিকার কারণে সায়মন ড্রিংকে ২০১২ সালে ‘বাংলাদেশের বন্ধু’ — মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননায় ভূষিত করে বাংলাদেশ সরকার।

নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি টেরেস্ট্রিয়াল টেলিভিশন স্টেশন একুশে টেলিভিশনের যাত্রা শুরুর সময় সাইমন ড্রিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।

১৯৪৫ সালের ১১ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের নরফোকে জন্ম নেওয়া সায়মন ড্রিং সাংবাদিকতা শুরু করেন ১৮ বছর বয়স থেকে। দেখেছেন ২২টি যুদ্ধ, অভ্যুত্থান ও বিপ্লব। যুদ্ধক্ষেত্রের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে আহতও হয়েছেন একাধিকবার।

ছবি

বিল ও মেলিন্ডা গেটসের আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদ সম্পন্ন

ছবি

ভারতে বাড়ছে জিকা ভাইরাসের সংক্রমণ

ছবি

করোনা উহানের ল্যাব থেকেই ছড়িয়েছে, দাবি নতুন রিপোর্টে

ছবি

ফের উহানের সকল নাগরিকের করোনা পরীক্ষা করবে চীন

ছবি

ডেল্টার উদ্বেগজনক বৃদ্ধি যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণাঞ্চলে

ছবি

রাজশাহী মেডিকেলে করোনায় আজও ১৯ প্রাণহানি

ছবি

আফগানিস্তানের প্রথম কোনও প্রাদেশিক রাজধানী পতনের মুখে

ছবি

ট্যাংকারে হামলা: পাল্টাপাল্টি রাষ্ট্রদূত তলব করল ইরান-যুক্তরাজ্য

ছবি

এবার সিকিম সীমান্তে ভারত-চীন হটলাইন

ছবি

ইসরায়েলি তেলবাহী জাহাজে হামলায় ইরানকে দুষছে আমেরিকা ও ব্রিটেন

ছবি

ইসমাইল হানিয়াহ দ্বিতীয়বারের মতো হামাসের প্রধান

ভূমধ্যসাগরে বাংলাদেশিসহ ৩৯৪ অভিবাসী উদ্ধার

ছবি

কোভিড পাসপোর্ট চালু হলো যেসব দেশে

ছবি

তুরস্কে দাবানল : সরিয়ে নেওয়া হলো পর্যটকদের

ছবি

ইরাক ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা বাড়ানোর ইচ্ছা যুক্তরাষ্ট্রের নেই

ছবি

ক্ষুধায় লক্ষাধিক শিশু মারা যেতে পারে ইথিওপিয়ায়

ছবি

বৈশ্বিক টাস্ক ফোর্সের প্রতিবেদন, টিকাদানে বাংলাদেশ পেছনের কাতারে

ছবি

সীমান্তে ইসরায়েলি সেনাদের আনাগোনা, হুঁশিয়ারি লেবাননের

ছবি

চীনে আরও দুই এলাকায় কারোনা, কয়েক স্থানে লকডাউন

ছবি

করোনার ডেল্টা ধরন শিশুদের আক্রমণ করে না: ডব্লিউএইচও

ছবি

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ‘লড়তে চান’ গাদ্দাফির ছেলে

ছবি

পাকিস্তানে ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমে জড়িত ৩৩ লাখ শিশু

ছবি

পেগাসাস কাণ্ড : ইসরাইলি গোয়েন্দাদের এনএসও দপ্তরে তল্লাশি

ছবি

তেলের ট্যাংকারে হামলায় নিহত ২, ইসরায়েল দুষছে ইরানকে

ছবি

লকডাউন কার্যকরে সিডনিতে নামছে সামরিক বাহিনী

ছবি

আফগান দোভাষীদের প্রথম দল যুক্তরাষ্ট্রের পথে

ছবি

বিদেশি পর্যটকদের জন্য দরজা খুলে দিচ্ছে সৌদি, থাকবে যে শর্ত

ছবি

যে নারী আইপিএস বিজেপি ‘মন্ত্রী’কে চড় মেরেছিলেন!

ছবি

বেড়েই চলেছে ভারতে করোনা সংক্রমণ

ছবি

ইকুয়াটোরিয়াল গিনি আটক করলো ফ্রান্সের সামরিক হেলিকপ্টার

ছবি

তালেবান প্রতিনিধিদল চীন সফর করল

ছবি

ফিলিস্তিনি শিশুকে গুলি করে হত্যা করলো ইসরাইলি সেনারা

ছবি

চীনের বিরুদ্ধে আফগানিস্তানের মাটি ব্যবহার করতে দেবে না তালেবান

ছবি

পদ্মার ইলিশ হিলি সীমান্ত দিয়ে পাচার হচ্ছে ভারতে : হিন্দুস্তান টাইমস

ছবি

পাকিস্তানের প্রধাণমন্ত্রী হতে চান দাউদ ইব্রাহিমের কথিত প্রেমিকা

ছবি

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়ালো ৪২ লাখ

tab

আন্তর্জাতিক

মুক্তিযুদ্ধের বন্ধু সাইমন ড্রিং মারা গেছেন

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট
image

মঙ্গলবার, ২০ জুলাই ২০২১

একাত্তরে পাকিস্তানি বাহিনীর গণহত্যার খবর যিনি প্রথম পৌঁছে দিয়েছিলেন বিশ্বের কাছে, সেই ব্রিটিশ সাংবাদিক সাইমন ড্রিং মারা গেছেন।

তার আত্নীয়দের সূত্রে জানা গেছে গত শুক্রবার রোমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের সময় সাইমন ড্রিং মারা যান।

তার আত্নীয় ক্রিস বার্লাস লন্ডনে বাংলাদেশী সাংবাদিক সৈয়দ নাহাস পাশাকে জানিয়েছেন, গত এক বছরের বেশি সময় ধরে সায়মন অসুস্থ ছিলেন। গত কিছুদিন ধরে তিনি হার্নিয়ার সমস্যায় ভুগছিলেন। তাই তাকে রোমানিয়ায় হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়েছিল।

বার্লাস জানিয়েছেন সেখানে অস্ত্রোপচারের সময় তার হার্ট অ্যাটাক হয়।

সাইমন ড্রিং দীর্ঘদিন রয়টার্স, টেলিগ্রাফ ও বিবিসির হয়ে কাজ করেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর।

তার স্ত্রী ফিয়োনা ম্যাকফারসন একজন আইনজীবী এবং রোমানিয়াভিত্তিক একটি ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থার নির্বাহী পরিচালক। ইভা ও ইনডিয়া তাদের যমজ মেয়ে। প্রথম স্ত্রীর ঘরে তানিয়া নামে আরও একটি মেয়ে আছে সাইমনের।

১৯৭১ সালের ২৫মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী গণহত্যা শুরু করার আগে ঢাকায় অবস্থানরত প্রায় অর্ধশত বিদেশি সাংবাদিককে আটকে ফেলে তখনকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে । তাদের হোটেল থেকে সরাসরি বিমানে তুলে ঢাকা ছাড়তে বাধ্য করা হয়।

তবে বৃটিশ পত্রিকা ডেইলি টেলিগ্রাফের সংবাদদাতা সাইমন ড্রিং সেই আদেশ না মেনে হোটেলে লুকিয়ে থাকেন। প্রায় ৩২ ঘণ্টা হোটেলের লবি, ছাদ, পানশালা, হেঁশেল ইত্যাদি জায়গায় তার শ্বাসরুদ্ধকর সময় কাটে।

২৭ মার্চ কারফিউ উঠে গেলে সায়মন ড্রিং ঢাকার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেন গণহত্যার চিত্র।

নানা চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে বাংলাদেশে পাকিস্তানী বাহিনীর গণহত্যার প্রথম খবর প্রকাশ করেন ৩০ মার্চ ১৯৭১, ডেইলি টেলিগ্রাফে।

একাত্তরে তার ভূমিকার কারণে সায়মন ড্রিংকে ২০১২ সালে ‘বাংলাদেশের বন্ধু’ — মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননায় ভূষিত করে বাংলাদেশ সরকার।

নব্বইয়ের দশকের শেষের দিকে বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি টেরেস্ট্রিয়াল টেলিভিশন স্টেশন একুশে টেলিভিশনের যাত্রা শুরুর সময় সাইমন ড্রিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।

১৯৪৫ সালের ১১ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের নরফোকে জন্ম নেওয়া সায়মন ড্রিং সাংবাদিকতা শুরু করেন ১৮ বছর বয়স থেকে। দেখেছেন ২২টি যুদ্ধ, অভ্যুত্থান ও বিপ্লব। যুদ্ধক্ষেত্রের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে আহতও হয়েছেন একাধিকবার।

back to top