alt

মিডিয়া

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কারণে প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্সে বাংলাদেশ পিছিয়ে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেছেন, ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্স ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১৬২ তম স্থান পেয়েছে। ফলে আগের বছরের তুলনায় আরও ১০ ধাপ পিছিয়েছে। বাংলাদেশের এত কম স্কোর করার একটি কারণ হল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন- ডিএসএ। যেটিকে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ‘সাংবাদিকদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে কঠোর আইনগুলোর মধ্যে একটি।’

রাজধানীর ইএমকে সেন্টারে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে পিটার হাস বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদন এবং সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক- উভয় ক্ষেত্রেই ডিএসএ সম্পর্কে আমাদের উদ্বেগগুলি পরিষ্কার করেছে। আপনারা সবাই জানেন, এই আইন সাংবাদিকদের ফৌজদারি বিচারের হুমকি দেয় যদি তারা এমন কিছু প্রকাশ করে যা সরকারের কাছে ‘মিথ্যা, আপত্তিকর, অবমাননাকর বা মানহানিকর।’

গতকাল ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ডে উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ডিজিটাল, সোশ্যাল মিডিয়া ও ওটিটি প্লাটফর্মের জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন- বিটিআরসির নতুন রেগুলেশনের (বিধিমালা) খসড়া আইন নিয়েও নিয়েও উদ্বিগ্ন। যদিও খসড়াটি এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। তবে, আমরা আশঙ্কা করছি যে, এতে এমন বিধান রয়েছে যা সাংবাদিকদের এবং অন্যরা যারা মত প্রকাশ করতে আগ্রহী তাদের ভয় দেখানোর জন্য ব্যবহার করা হতে পারে।’

আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, সাংবাদিকরা প্রতিদিন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেও, তারা নির্বাচনে আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

আমরা সবাই দেখতে পাচ্ছি বাংলাদেশে আসন্ন জাতীয় নির্বাচন সম্পর্কিত প্রতিবেদনের সংখ্যা বেড়েছে। বাংলাদেশ বা যে কোনো দেশে নির্বাচনের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নীতি - সে দেশের জনগণের আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী পরিচালিত অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে নিজস্ব সরকার বেছে নেওয়ার ক্ষমতা থাকতে হবে।

কিন্তু সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের সঙ্গে সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক নির্বাচনের মান কতটা ঠিক? আটলান্টার জর্জিয়া-ভিত্তিক কার্টার সেন্টার, নির্বাচন সংক্রান্ত একটি সুপরিচিত কর্তৃপক্ষ, সারা বিশ্বে ব্যবহৃত নির্বাচনী মান প্রকাশ করে। সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে সম্পর্কিত হিসেবে এখানে তাদের মান উল্লেখ রয়েছে-

১. সম্পাদকীয় স্বাধীনতা সুরক্ষিত এবং রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক হস্তক্ষেপ থেকে মুক্ত থাকবে।

২. মিডিয়া সরকারের সমালোচনা করতে পারে।

৩ অসত্য বিবৃতিগুলির পুনরুৎপাদনের জন্য মিডিয়াকে দায়ী করা যায় না।

৪. মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে দমন, জনসাধারণের বিতর্ককে দমিয়ে রাখতে বা সরকারের সমালোচনাকে নিরব করতে গণমাধ্যম ব্যবহৃত হয় না।

৫. সাংবাদিকরা হয়রানি ও সহিংসতা থেকে সুরক্ষিত থাকবে।

আমি খুব আশা করি যে বাংলাদেশে এই পাঁচটি নীতি নির্বাচনের মৌসুমে এবং তারপরেও বহাল থাকবে।

আমি দুটি চূড়ান্ত বিবৃতি দিয়ে শেষ করতে চাই- প্রথমত, স্বাধীন সংবাদপত্রকে রক্ষা করা এবং সাংবাদিকদের ভয়, হয়রানি বা সেন্সরশিপ ছাড়াই সত্য অনুসন্ধান ও প্রতিবেদন করার অনুমতি দেওয়া আমাদের সবার কর্তব্য।

দ্বিতীয়ত, একটি মুক্ত গণমাধ্যম একটি মুক্ত গণতন্ত্রের মূল উপাদান।

ছবি

সংবাদপত্রের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ নোয়াবের

ছবি

আদানি কীভাবে চালাবেন এনডিটিভি

ছবি

৯৪ বার পেছাল সাগর-রুনির তদন্ত প্রতিবেদন

ছবি

ডিআরইউ সভাপতি নোমানী, সম্পাদক সোহেল

ছবি

ডিআরইউ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে

এনডিটিভির ২৯.১৮% শেয়ার আদানির কাছে হস্তান্তর

ছবি

আলোকচিত্রী শহিদুল আলমের লিভ টু আপিল খারিজ, চলবে তদন্ত

সরকারকে এক মাসের আল্টিমেটাম ডিইউজে’র

ছবি

 সাংবাদিকতার পাশাপাশি সাংবাদিকদের অধিকার সম্পর্কে জানতে হবে

ছবি

পিআইবিতে ডিজিটাল আর্কাইভ পরিচিতি ও মতবিনিময় সভা

ছবি

গণমাধ্যম কর্মীদের জন্য ওয়াটারএইডের ফেলোশিপ প্রোগ্রাম

ছবি

প্রতিবন্ধিতা কোন অভিশাপ নয়-সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী

ছবি

নরসিংদী সড়কে কার্ভাডভ্যানের চাপায় এক সংবাদকর্মীর মৃত্যু

ছবি

সংবাদকর্মীর আয়কর মালিকপক্ষকেই দিতে হবে: হাইকোর্ট

ছবি

শয়ন কক্ষে মিললো দম্পতির ঝুলন্ত লাশ

ছবি

সাংবাদিক খুনের ঘটনায় ৮৬ শতাংশ অপরাধীর শাস্তি হয়নি: ইউনেস্কো

ছবি

সংবাদিকতায় ফ্যাক্টচেক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

ছবি

গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য ডিজিটাল লিটারেসি ও সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ে প্রশিক্ষণ

ছবি

সাগর-রুনি হত্যা : ৯৩ বার পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন

ছবি

প্রেস কাউন্সিল পদক পেলেন সংবাদের প্রয়াত সম্পাদক বজলুর রহমান

ছবি

প্রেস কাউন্সিল পদক পেল ২ সংবাদপত্র ও ৫ সাংবাদিক

ছবি

সাংবাদিকদের তথ্য পাওয়ার অধিকার বিঘ্নিত হবে: সম্পাদক পরিষদ

ছবি

ঝাঁকজমকপূর্ণ অভিষেক আয়েবাপিসির

ছবি

সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে জাতীয় প্রেস ক্লাবের ৬৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্যাপনের আহ্বান

ছবি

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সাংবাদিক তোয়াব খানের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন

ছবি

বিআইজেএফ সভাপতি নাজনীন নাহার, সম্পাদক সাব্বিন হাসান

ছবি

বরেণ্য সাংবাদিক তোয়াব খান আর নেই

ছবি

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে বিবিসি বাংলা রেডিও : স্মৃতি জাগানিয়া অধ্যায়ের সমাপ্তি

ছবি

ভারতের দক্ষিণী সিনেমার সুপারস্টার অভিনেতা মহেশ বাবুর মা মারা গেছেন

ছবি

৯২ বার পেছাল সাগর-রুনির তদন্ত প্রতিবেদন

ছবি

চিত্রগ্রাহক মিশুক মুনীর স্মৃতি পুরস্কার প্রবর্তনের ঘোষণা

ছবি

‘বাংলার মিষ্টি আর বাংলাদেশের ইলিশ’ অনুষ্ঠান ইন্দো-বাংলা প্রেসক্লাবে

ছবি

গজারিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি আরফিন, সম্পাদক শেখ নজরুল

ছবি

সাংবাদিকদের প্রযুক্তিগত দক্ষতা উন্নয়নের বিকল্প নেই: মোস্তাফা জব্বার

ছবি

মেটার কমিউনিটি এক্সেলেরেটর প্রোগ্রাম এখন বাংলাদেশে

ছবি

ইরাবের নতুন সভাপতি জসিম, সাধারণ সম্পাদক ফারুক

tab

মিডিয়া

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কারণে প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্সে বাংলাদেশ পিছিয়ে

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেছেন, ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ইনডেক্স ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ১৬২ তম স্থান পেয়েছে। ফলে আগের বছরের তুলনায় আরও ১০ ধাপ পিছিয়েছে। বাংলাদেশের এত কম স্কোর করার একটি কারণ হল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন- ডিএসএ। যেটিকে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ‘সাংবাদিকদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে কঠোর আইনগুলোর মধ্যে একটি।’

রাজধানীর ইএমকে সেন্টারে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে পিটার হাস বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদন এবং সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক- উভয় ক্ষেত্রেই ডিএসএ সম্পর্কে আমাদের উদ্বেগগুলি পরিষ্কার করেছে। আপনারা সবাই জানেন, এই আইন সাংবাদিকদের ফৌজদারি বিচারের হুমকি দেয় যদি তারা এমন কিছু প্রকাশ করে যা সরকারের কাছে ‘মিথ্যা, আপত্তিকর, অবমাননাকর বা মানহানিকর।’

গতকাল ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ডে উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা ডিজিটাল, সোশ্যাল মিডিয়া ও ওটিটি প্লাটফর্মের জন্য বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন- বিটিআরসির নতুন রেগুলেশনের (বিধিমালা) খসড়া আইন নিয়েও নিয়েও উদ্বিগ্ন। যদিও খসড়াটি এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। তবে, আমরা আশঙ্কা করছি যে, এতে এমন বিধান রয়েছে যা সাংবাদিকদের এবং অন্যরা যারা মত প্রকাশ করতে আগ্রহী তাদের ভয় দেখানোর জন্য ব্যবহার করা হতে পারে।’

আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, সাংবাদিকরা প্রতিদিন একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করলেও, তারা নির্বাচনে আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

আমরা সবাই দেখতে পাচ্ছি বাংলাদেশে আসন্ন জাতীয় নির্বাচন সম্পর্কিত প্রতিবেদনের সংখ্যা বেড়েছে। বাংলাদেশ বা যে কোনো দেশে নির্বাচনের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নীতি - সে দেশের জনগণের আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী পরিচালিত অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে নিজস্ব সরকার বেছে নেওয়ার ক্ষমতা থাকতে হবে।

কিন্তু সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের সঙ্গে সম্পর্কিত আন্তর্জাতিক নির্বাচনের মান কতটা ঠিক? আটলান্টার জর্জিয়া-ভিত্তিক কার্টার সেন্টার, নির্বাচন সংক্রান্ত একটি সুপরিচিত কর্তৃপক্ষ, সারা বিশ্বে ব্যবহৃত নির্বাচনী মান প্রকাশ করে। সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে সম্পর্কিত হিসেবে এখানে তাদের মান উল্লেখ রয়েছে-

১. সম্পাদকীয় স্বাধীনতা সুরক্ষিত এবং রাজনৈতিক বা অর্থনৈতিক হস্তক্ষেপ থেকে মুক্ত থাকবে।

২. মিডিয়া সরকারের সমালোচনা করতে পারে।

৩ অসত্য বিবৃতিগুলির পুনরুৎপাদনের জন্য মিডিয়াকে দায়ী করা যায় না।

৪. মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে দমন, জনসাধারণের বিতর্ককে দমিয়ে রাখতে বা সরকারের সমালোচনাকে নিরব করতে গণমাধ্যম ব্যবহৃত হয় না।

৫. সাংবাদিকরা হয়রানি ও সহিংসতা থেকে সুরক্ষিত থাকবে।

আমি খুব আশা করি যে বাংলাদেশে এই পাঁচটি নীতি নির্বাচনের মৌসুমে এবং তারপরেও বহাল থাকবে।

আমি দুটি চূড়ান্ত বিবৃতি দিয়ে শেষ করতে চাই- প্রথমত, স্বাধীন সংবাদপত্রকে রক্ষা করা এবং সাংবাদিকদের ভয়, হয়রানি বা সেন্সরশিপ ছাড়াই সত্য অনুসন্ধান ও প্রতিবেদন করার অনুমতি দেওয়া আমাদের সবার কর্তব্য।

দ্বিতীয়ত, একটি মুক্ত গণমাধ্যম একটি মুক্ত গণতন্ত্রের মূল উপাদান।

back to top