alt

মিডিয়া

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিকদের গ্রেফতারে সম্পাদক পরিষদের তীব্র নিন্দা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : মঙ্গলবার, ৩০ জুন ২০২০
image

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় অব্যবস্থাপনার সমালোচনা করায় সম্প্রতি সম্পাদকসহ সাংবাদিক, লেখক ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা ও গ্রেফতারের ঘটনায় সম্পাদক পরিষদ তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। একই সঙ্গে এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে অবাধ ও স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিবেশ বিনষ্ট ও গণমাধ্যমের কর্মীদের ওপর পুলিশের ক্রমবর্ধমান পদক্ষেপে উদ্বেগ প্রকাশ করছে সম্পাদক পরিষদ।

৩০ জুন মঙ্গলবার সম্পাদক পরিষদের সভাপতি মাহফুজ আনাম এবং সাধারণ সম্পাদক নাঈম নিজাম এক যৌথ বিবৃতিতে এসব কথা বলেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন, বিগত কয়েক মাসে প্রায় ৪০ জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে, যাদের মধ্যে ৩৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এসব গ্রেফতারের ঘটনা এমন এক ভীতির পরিবেশ তৈরি করেছে, যেখানে স্বাভাবিক সাংবাদিকতার কাজ ও অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। তারা বলেন, সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের ওপর এই আক্রমণ তখনই হচ্ছে, যখন কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবিলায় লড়াই চলছে। অথচ এ সময় বাংলাদেশে মিথ্যা সংবাদ ও ভীতি ছড়ানো ভুয়া তথ্য মোকাবিলায় নির্ভরযোগ্য ও স্বাধীন গণমাধ্যম সবচেয়ে বেশি জরুরি। বাংলাদেশের গণমাধ্যম জনগণকে তথ্য জানানোর পাশাপাশি সাফল্য ও প্রত্যাশার সংবাদ পরিবেশন করছে, মহামারি মোকাবিলায় অপ্রতুল পদক্ষেপের কথা তুলে ধরছে, এবং পুনর্গঠনের পথ খুঁজে পেতে আলোচনার সুযোগ করে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এই সময় গণমাধ্যমের ওপর আঘাত আমাদের ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনাকেই বিপন্ন করবে।

সম্পাদক পরিষদ নেতারা বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে আরও লক্ষ্য করছি যে, অন্য আইনের তুলনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এখন অপেক্ষাকৃত অনেক বেশি ব্যবহার হচ্ছে। এর কারণ হলো এই আইনের আওতায় পুলিশ পরোয়ানা ছাড়াই গ্রেফতার করতে পারে এবং এই আইনের বেশির ভাগ ধারাই (২০টির মধ্যে ১৪টি) অজামিন যোগ্য। ফলে এই আইনে গ্রেফতার হওয়ার পর একজন ব্যক্তিকে কারাগারেই রয়ে যেতে হয়।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া বেশির ভাগ মামলায় করা অভিযোগগুলোর মধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের সমালোচনা, গুজবরটানো, বিক্ষোভে সমর্থন, মানহানিকর মন্তব্য, ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা, ভুয়া সংবাদ পরিবেশন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। এসব কারণের সবগুলোরই সংজ্ঞা অস্পষ্ট বলে বিবৃতিতে তারা উল্লেখ করেন।

নেতারা বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পুলিশকে কোন প্রকার পরোয়ানা ছাড়াই স্রেফ সন্দেহের বশবর্তী হয়ে গ্রেফতারের ক্ষমতা দিয়েছে। এর ২০টি ধারার ১৪ টিই অজামিনযোগ্য এবং যখনই মামলা হয়, পুলিশ দ্রুত গ্রেফতার করে। আসামিকে বিচারকের সামনে হাজির করার পরই স্বাভাবিকভাবেই তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, সম্পাদক পরিষদ মনে করে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন একটা গোষ্ঠীর হাতিয়ার হয়ে উঠেছে, যারা গণমাধ্যমবিরোধী ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতাবিরোধী এই আইনের যথেচ্ছ ব্যবহার করছে। এবং তাদের উদ্দেশ্য হলো সাংবাদিকদের হয়রানি করা ও ভয়ভীতি দেখানো এবং দুর্নীতি ও জনগণের জন্য, বিশেষ করে দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দ সরকারি তহবিলের অপব্যবহারের খবর প্রকাশে বাধা দেয়া।

শুরু থেকেই সম্পাদক পরিষদ এই আইনের বিরোধিতা করে আসছে। কারণ আমরা জানি, এই আইন মুক্ত গণমাধ্যম ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার পরিপন্থী। সে সময় আইনমন্ত্রী গণমাধ্যমকে আশ্বস্ত করেছিলেন যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন শুধু সাইবার অপরাধ দমনে প্রণয়ন করা হয়েছে, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব করতে এই আইন কখনও ব্যবহার হবে না। কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাইবার অপরাধীদের চেয়ে সাংবাদিক, শিক্ষক ও বুদ্ধিজীবিরাই বেশি গ্রেফতার হয়েছেন, বিশেষ করে বিগত ছয় মাসে এ সংখ্যা আরও বেড়েছে।

বিগত আড়াই বছরের অভিজ্ঞতায় আমাদের কাছে আরও স্পষ্ট হয়েছে যে মুক্তমত ও মুক্ত গণমাধ্যমের স্বার্থে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অবশ্যই বাতিল করতে হবে।

আমরা গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের ওপর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যবহার এই মুহূর্তে বন্ধের দাবি জানাচ্ছি এবং আমরা জাতীয় সংসদের প্রতি এই স্বাধীনতা পরিপন্থী আইন অপসারণে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানাচ্ছি।

আমরা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার সব সাংবাদিকের অবিলম্বে মুক্তি ও তাদের বিরুদ্ধে দায়ের মামলা প্রত্যাহারেরও দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে ও ব্যক্তি স্বার্থে যারা এই আইনের চরম অপব্যবহার করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাচ্ছি।

ছবি

‘ওভারনাইট বান্দরবান পাঠিয়ে দেবো’ সংলাপের বিজ্ঞাপন বন্ধের নির্দেশ

ছবি

বিশ্বখ্যাত আলেফ হোল্ডিংয়ের চেয়ারম্যান বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত ইমরান খান

ছবি

জৈন্তা বার্তা সম্পাদকের মাতার ইন্তেকাল

ছবি

ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেসের নির্বাহী সম্পাদক শহিদুজ্জামান আর নেই

ছবি

কারামুক্ত হলেন রোজিনা, সাংবাদিকতা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা

ছবি

রোজিনার মুক্তির দাবিতে নারী সাংবাদিকদের প্রতীকী অনশন

ছবি

রোববার রোজিনার জামিন না হলে সাংবাদিকদের কঠোর কর্মসূচি

ছবি

সাংবাদিক রোজিনার মুক্তিসহ সাংবাদিকদের চার দফা দাবি

ছবি

সাংবাদিক রোজিনার জামিন শুনানি চলছে

ছবি

রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করায় তীব্র নিন্দা মানবাধিকার কমিশনের

ছবি

কাশিমপুর মহিলা কারাগারে সাংবাদিক রোজিনা

ছবি

রোজিনার রিমান্ড নামঞ্জুর, জামিনের সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবার

ছবি

আদালতে সাংবাদিক রোজিনা, অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের মামলায় গ্রেপ্তার

ছবি

৭১ বছরে সংবাদ

ছবি

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস উদযাপন উপলক্ষে ওয়েবিনার অনুষ্ঠিত

ছবি

সাফল্যের তিনযুগে ‘অবসকিউর’ এবং টিপু

ছবি

বাংলাদেশ মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে আরও এক ধাপ পেছাল

ছবি

জনকণ্ঠ ভবনের মূল ফটকে তালা, চাকরিচ্যুত সাংবাদিকদের অবস্থান

ছবি

করোনায় মারা গেলেন প্রবীণ সাংবাদিক হাসান শাহরিয়ার

ছবি

সাংবাদিক আতিয়ার রহমান আর নেই

ছবি

ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের ৬২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

ছবি

‘ওকোড’র সঙ্গে যুক্ত হলো এসকে মিডিয়া’

ছবি

সাংবাদিকদের সঙ্গে মধুমতি ব্যাংকের পরিচালকের মতবিনিময়

ছবি

সাংবাদিক শাহীন রেজা নূরের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক

ছবি

দেশে আল জাজিরার সম্প্রচার বন্ধে রিটের শুনানি বুধবার

ছবি

সিলেটের বিশ্বনাথ প্রেসক্লাব কমিটি গঠন

ছবি

আল-জাজিরার প্রতিবেদন সাংবাদিকতার নীতিবিরোধী:এডিটরস গিল্ড

ছবি

সিলেটে ফটাে জার্নালিস্ট এসােসিয়েশনে নাসির সভাপতি, রাব্বী সম্পাদক

ছবি

ফটাে জার্নালিস্ট এসােসিয়েশনের নির্বাচনে তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক হলেন সংবাদের ইদ্রিস

ছবি

জাতীয় প্রেস ক্লাবের স্থায়ী সদস্য আহমদ আখতার আর নেই

ছবি

সাগর-রুনি হত্যা মামলার প্রতিবেদন জমার তারিখ ৭৮ বার পেছালো

ছবি

আহমদুল কবিরের ৯৯তম জন্মদিন আজ

ছবি

সাংবাদিক কামালের পাশে পুলিশ

ছবি

সাব-এডিটরস কাউন্সিলের সভাপতি মামুন, সম্পাদক আবুল হাসান

ছবি

চলছে ঢাকা সাব-এডিটরস কাউন্সিলের ভোটগ্রহণ

ছবি

আরএফইডির নেতৃতে সোমা-কাজী জেবেল

tab

মিডিয়া

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিকদের গ্রেফতারে সম্পাদক পরিষদের তীব্র নিন্দা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image

মঙ্গলবার, ৩০ জুন ২০২০

কোভিড-১৯ মোকাবিলায় অব্যবস্থাপনার সমালোচনা করায় সম্প্রতি সম্পাদকসহ সাংবাদিক, লেখক ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা ও গ্রেফতারের ঘটনায় সম্পাদক পরিষদ তীব্র নিন্দা জানিয়েছে। একই সঙ্গে এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে অবাধ ও স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিবেশ বিনষ্ট ও গণমাধ্যমের কর্মীদের ওপর পুলিশের ক্রমবর্ধমান পদক্ষেপে উদ্বেগ প্রকাশ করছে সম্পাদক পরিষদ।

৩০ জুন মঙ্গলবার সম্পাদক পরিষদের সভাপতি মাহফুজ আনাম এবং সাধারণ সম্পাদক নাঈম নিজাম এক যৌথ বিবৃতিতে এসব কথা বলেন।

বিবৃতিতে তারা বলেন, বিগত কয়েক মাসে প্রায় ৪০ জন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে, যাদের মধ্যে ৩৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এসব গ্রেফতারের ঘটনা এমন এক ভীতির পরিবেশ তৈরি করেছে, যেখানে স্বাভাবিক সাংবাদিকতার কাজ ও অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। তারা বলেন, সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যমের ওপর এই আক্রমণ তখনই হচ্ছে, যখন কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবিলায় লড়াই চলছে। অথচ এ সময় বাংলাদেশে মিথ্যা সংবাদ ও ভীতি ছড়ানো ভুয়া তথ্য মোকাবিলায় নির্ভরযোগ্য ও স্বাধীন গণমাধ্যম সবচেয়ে বেশি জরুরি। বাংলাদেশের গণমাধ্যম জনগণকে তথ্য জানানোর পাশাপাশি সাফল্য ও প্রত্যাশার সংবাদ পরিবেশন করছে, মহামারি মোকাবিলায় অপ্রতুল পদক্ষেপের কথা তুলে ধরছে, এবং পুনর্গঠনের পথ খুঁজে পেতে আলোচনার সুযোগ করে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এই সময় গণমাধ্যমের ওপর আঘাত আমাদের ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনাকেই বিপন্ন করবে।

সম্পাদক পরিষদ নেতারা বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে আরও লক্ষ্য করছি যে, অন্য আইনের তুলনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এখন অপেক্ষাকৃত অনেক বেশি ব্যবহার হচ্ছে। এর কারণ হলো এই আইনের আওতায় পুলিশ পরোয়ানা ছাড়াই গ্রেফতার করতে পারে এবং এই আইনের বেশির ভাগ ধারাই (২০টির মধ্যে ১৪টি) অজামিন যোগ্য। ফলে এই আইনে গ্রেফতার হওয়ার পর একজন ব্যক্তিকে কারাগারেই রয়ে যেতে হয়।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া বেশির ভাগ মামলায় করা অভিযোগগুলোর মধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের সমালোচনা, গুজবরটানো, বিক্ষোভে সমর্থন, মানহানিকর মন্তব্য, ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা, ভুয়া সংবাদ পরিবেশন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। এসব কারণের সবগুলোরই সংজ্ঞা অস্পষ্ট বলে বিবৃতিতে তারা উল্লেখ করেন।

নেতারা বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পুলিশকে কোন প্রকার পরোয়ানা ছাড়াই স্রেফ সন্দেহের বশবর্তী হয়ে গ্রেফতারের ক্ষমতা দিয়েছে। এর ২০টি ধারার ১৪ টিই অজামিনযোগ্য এবং যখনই মামলা হয়, পুলিশ দ্রুত গ্রেফতার করে। আসামিকে বিচারকের সামনে হাজির করার পরই স্বাভাবিকভাবেই তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, সম্পাদক পরিষদ মনে করে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন একটা গোষ্ঠীর হাতিয়ার হয়ে উঠেছে, যারা গণমাধ্যমবিরোধী ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতাবিরোধী এই আইনের যথেচ্ছ ব্যবহার করছে। এবং তাদের উদ্দেশ্য হলো সাংবাদিকদের হয়রানি করা ও ভয়ভীতি দেখানো এবং দুর্নীতি ও জনগণের জন্য, বিশেষ করে দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দ সরকারি তহবিলের অপব্যবহারের খবর প্রকাশে বাধা দেয়া।

শুরু থেকেই সম্পাদক পরিষদ এই আইনের বিরোধিতা করে আসছে। কারণ আমরা জানি, এই আইন মুক্ত গণমাধ্যম ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার পরিপন্থী। সে সময় আইনমন্ত্রী গণমাধ্যমকে আশ্বস্ত করেছিলেন যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন শুধু সাইবার অপরাধ দমনে প্রণয়ন করা হয়েছে, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খর্ব করতে এই আইন কখনও ব্যবহার হবে না। কিন্তু পরিসংখ্যান বলছে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাইবার অপরাধীদের চেয়ে সাংবাদিক, শিক্ষক ও বুদ্ধিজীবিরাই বেশি গ্রেফতার হয়েছেন, বিশেষ করে বিগত ছয় মাসে এ সংখ্যা আরও বেড়েছে।

বিগত আড়াই বছরের অভিজ্ঞতায় আমাদের কাছে আরও স্পষ্ট হয়েছে যে মুক্তমত ও মুক্ত গণমাধ্যমের স্বার্থে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অবশ্যই বাতিল করতে হবে।

আমরা গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের ওপর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যবহার এই মুহূর্তে বন্ধের দাবি জানাচ্ছি এবং আমরা জাতীয় সংসদের প্রতি এই স্বাধীনতা পরিপন্থী আইন অপসারণে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে আহ্বান জানাচ্ছি।

আমরা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার সব সাংবাদিকের অবিলম্বে মুক্তি ও তাদের বিরুদ্ধে দায়ের মামলা প্রত্যাহারেরও দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে ও ব্যক্তি স্বার্থে যারা এই আইনের চরম অপব্যবহার করেছেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানাচ্ছি।

back to top