alt

জাতীয়

‘গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে প্রয়োজন সমন্বিত প্রয়াস’

ঢাবিতে ‘১৯৭১ এ বাংলাদেশের জেনোসাইডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা

খালেদ মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

“১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জেনোসাইডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য প্রয়োজন সকল স্তরের মানুষের সমন্বিত প্রয়াস। গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের কি কি শূণ্যতা আছে সেগুলো খুঁজে বের করতে হবে। গণহত্যার উপর শক্তিশালী ডেটাবেজ ও ডকুমেন্টশন তৈরী করে আন্তর্জাতিকভাবে তার প্রচারণা চালাতে হবে।”

‘১৯৭১ সালের বাংলাদেশের জেনোসাইডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা এসব কথা বলেন। আজ সোমবার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে এ কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন (ইউসিএল) এবং সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ-এর যৌথ উদ্যোগে এ প্রজেক্ট পরিচালিত হচ্ছে। সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের পরিচালক শেখ হাফিজুর রহমানের (কার্জন) সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড এ এস এম মাকসুদ কামাল।

বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, ১৯৪৮ সালের গণহত্যা কনভেনশনের এমন কোনো ধারা নেই যা পাকিস্তানি বাহিনী সংগঠিত করে নাই। অথচ স্বাধীনতার ৫৩ বছর পরেও আমাদের গণহত্যার স্বীকৃতির দাবি জানাতে হচ্ছে। আমরা কেন এত পিছিয়ে পড়লাম সেটির কারণ খুৃঁজে বের করতে হবে। সেজন্য স্বাধীনতার বিরোধিতাকারীরা কীভাবে এদেশের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত হয়েছে সেটি জানতে হবে। তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করেছে। এখনো সেই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে।

তিনি আরো বলেন, গণহত্যার স্বীকৃতির জন্য একটা শক্তিশালী ও বিস্তৃত ডেটাবেস প্রয়োজন। যেমন ৭১ এর অনেক বদ্ধভূমি আমাদের অজানা রয়েছে। সেগুলো আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। ডকুমেন্টেসন করতে হবে। সেজন্য প্রত্যেকেই যার যারা অবস্থান থেকে অবদান রাখার সুযোগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতিটি ডিপার্টমেন্টে জেনোসাইড স্টাডিজকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। তাহলেই তরুণদের আগ্রহ সৃষ্টি হবে৷ তারা এ বিষয়ে গবেষণা করতে এগিয়ে আসবে।

এ এস এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, এই প্রজেক্টের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশের গণহত্যার উপর একটি ওয়েব বেইসড ডকুমেন্টেশন তৈরী করবো। যাতে সারা বিশ্বের মানুষের কাছে আমরা এটি ছড়িয়ে দিতে পারি। যেকোনো গবেষক এটা থেকে অ্যাট্রিবিউট সংগ্রহ করতে পারবে। গণহত্যা স্বীকৃতি পেতে আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের কি কি শূণ্যতা আছে, এই প্রজেক্টের মাধ্যমে আমরা তাও খুঁজে বের করবো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোতে জেনোসাইড স্টাডিজকে আরো যুগোপযোগী করার উদ্যোগও নেওয়া হবে বলে জানান উপাচার্য।

ইউসিএল-এর সহযোগী অধ্যাপক ড. বায়েস আহমেদ বলেন, গণহত্যা নিয়ে কাজ করার সময় আমার বাংলাদেশের গণহত্যা নিয়ে কিছু করার বিষয়টি মাথায় আসে। সে লক্ষ্যে আমরা ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনে(ইউসিএল) প্রপোজাল সাবমিট করি। তারা এটি গ্রহণ করে। হাউজ অব লর্ডসে ব্রিটিশ প্রতিনিধি, বাংলাদেশ হাইকমিশন লন্ডন নিয়ে আমাদের কোলাবোরেশান হয়েছে।

শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন বলেন, ৭১ এর গণহত্যার এদেশীয় যারা মাস্টারমাইন্ড তাদের বিচার হয়েছে। কিন্তু পাকিস্তানি মাস্টারমাইন্ডদের বিচার হয়নি। আমরা গণহত্যার আন্তর্জাতিক তথা জাতিসংঘের স্বীকৃতিও পাইনি। রুয়ান্ডার গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে অনেকদিন সময় লেগেছে। আমাদের জন্য এটা সহজ হবে না। আমাদের উদ্দেশ্য দুটি৷ এক, গণহত্যার স্বীকৃতি। দুই, ক্ষতিপূরণ।

কর্মশালায় একটি প্যানেল ডিসকাশন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে অংশ নেন ইতিহাসবিদ ও লেখক মুনতাসীর মামুন, সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত, মানবাধিকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, মানবাধিকার ও উন্নয়ন কর্মী আসিফ মুনীরসহ প্রমুখ।

ছবি

নেতাদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন শেখ হাসিনা

ছবি

আজ পবিত্র ঈদুল আজহা

ছবি

বঙ্গভবনে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন রাষ্ট্রপতি

ছবি

ঈদুল আজহার ত্যাগের চেতনায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

২০ বছরে হেফাজতে মৃত্যুর সংখ্যা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

ছবি

খালেদা জিয়া কৃষকের ভাগ্য নিয়েও ছিনিমিনি খেলেছিল

ছবি

ঈদ নিরাপত্তায় যেসব পরামর্শ দিলো পুলিশ

ছবি

সাভার-আশুলিয়া সড়কে কমেছে যানবাহনের চাপ

ছবি

আজ পবিত্র হজ

ছবি

চোরাইপথে আসা চিনি ছিনতাইচেষ্টায় ‘ছাত্রলীগের’ ৫ জন আটক

রঞ্জন সেনের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ ২ বছর বাড়ানো হলো

ছবি

মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে চীনকে ছাড়িয়ে দ্বিতীয় বাংলাদেশ

ছবি

ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি পেলো আইইবি

ছবি

এ বছরের পর আর টিকিট কালোবাজারি থাকবে না: র‌্যাব

ছবি

সৌদিতে আরও দুই বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ওমানের ভিসা নিষেধাজ্ঞা শিথিলের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ

ছবি

মাসুমা খান মজলিস ইন্তেকাল করেছেন

মজলিসের স্ত্রী মাসুমা খান মজলিস আজ সকালে ইন্তেকাল করে

ছবি

আরও ৭০ উপজেলা ‘ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত’

ছবি

১৫২ কোটি টাকার সুদ মওকুফ করায় সাবেক ভ্যাট কমিশনারের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

এয়ার অ্যারাবিয়ার ফ্লাইট ‘জরুরি অবস্থা’ ঘোষণা করে ঢাকায় ফিরল

ছবি

কক্সবাজারকে গৃহহীন ও ভূমিহীন মুক্ত ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নেপাল থেকে ৪০ মেগাওয়াট জলবিদ্যুৎ কিনবে সরকার

ছবি

প্রতিরক্ষা খাতে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে চায় ইইউ : রাষ্ট্রদূত

ছবি

ভূমিহীন-গৃহহীনমুক্ত হলো আরও ৭০ উপজেলা

ছবি

এমপি আজিম চোরাচালানে যুক্ত ছিল, কখনোই বলিনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান

ছবি

আজিজ আহমেদের স্বজনদের পাসপোর্ট অনুসন্ধানে দুদকের চিঠি, ইসির তদন্ত কমিটি গঠন

ছবি

স্কাইডাইভে আশিক চৌধুরীর বিশ্বরেকর্ড উদযাপন করল স্পন্সর ইউসিবি

দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি

জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলুন- সিলেটে আইজিপি

ছবি

শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আগামী কাল

ছবি

পাকিস্তানে হামলায় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেনসহ ৭ সৈন্য নিহত

ছবি

চেনা দুর্যোগগুলো অচেনা হয়ে উঠছে : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ডিজি

tab

জাতীয়

‘গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে প্রয়োজন সমন্বিত প্রয়াস’

ঢাবিতে ‘১৯৭১ এ বাংলাদেশের জেনোসাইডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা

খালেদ মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

“১৯৭১ সালে বাংলাদেশের জেনোসাইডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির জন্য প্রয়োজন সকল স্তরের মানুষের সমন্বিত প্রয়াস। গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের কি কি শূণ্যতা আছে সেগুলো খুঁজে বের করতে হবে। গণহত্যার উপর শক্তিশালী ডেটাবেজ ও ডকুমেন্টশন তৈরী করে আন্তর্জাতিকভাবে তার প্রচারণা চালাতে হবে।”

‘১৯৭১ সালের বাংলাদেশের জেনোসাইডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা এসব কথা বলেন। আজ সোমবার বিকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে এ কর্মশালাটি অনুষ্ঠিত হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন (ইউসিএল) এবং সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজ-এর যৌথ উদ্যোগে এ প্রজেক্ট পরিচালিত হচ্ছে। সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের পরিচালক শেখ হাফিজুর রহমানের (কার্জন) সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড এ এস এম মাকসুদ কামাল।

বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, ১৯৪৮ সালের গণহত্যা কনভেনশনের এমন কোনো ধারা নেই যা পাকিস্তানি বাহিনী সংগঠিত করে নাই। অথচ স্বাধীনতার ৫৩ বছর পরেও আমাদের গণহত্যার স্বীকৃতির দাবি জানাতে হচ্ছে। আমরা কেন এত পিছিয়ে পড়লাম সেটির কারণ খুৃঁজে বের করতে হবে। সেজন্য স্বাধীনতার বিরোধিতাকারীরা কীভাবে এদেশের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত হয়েছে সেটি জানতে হবে। তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করেছে। এখনো সেই ষড়যন্ত্রে লিপ্ত আছে।

তিনি আরো বলেন, গণহত্যার স্বীকৃতির জন্য একটা শক্তিশালী ও বিস্তৃত ডেটাবেস প্রয়োজন। যেমন ৭১ এর অনেক বদ্ধভূমি আমাদের অজানা রয়েছে। সেগুলো আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। ডকুমেন্টেসন করতে হবে। সেজন্য প্রত্যেকেই যার যারা অবস্থান থেকে অবদান রাখার সুযোগ রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর প্রতিটি ডিপার্টমেন্টে জেনোসাইড স্টাডিজকে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। তাহলেই তরুণদের আগ্রহ সৃষ্টি হবে৷ তারা এ বিষয়ে গবেষণা করতে এগিয়ে আসবে।

এ এস এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, এই প্রজেক্টের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশের গণহত্যার উপর একটি ওয়েব বেইসড ডকুমেন্টেশন তৈরী করবো। যাতে সারা বিশ্বের মানুষের কাছে আমরা এটি ছড়িয়ে দিতে পারি। যেকোনো গবেষক এটা থেকে অ্যাট্রিবিউট সংগ্রহ করতে পারবে। গণহত্যা স্বীকৃতি পেতে আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের কি কি শূণ্যতা আছে, এই প্রজেক্টের মাধ্যমে আমরা তাও খুঁজে বের করবো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোতে জেনোসাইড স্টাডিজকে আরো যুগোপযোগী করার উদ্যোগও নেওয়া হবে বলে জানান উপাচার্য।

ইউসিএল-এর সহযোগী অধ্যাপক ড. বায়েস আহমেদ বলেন, গণহত্যা নিয়ে কাজ করার সময় আমার বাংলাদেশের গণহত্যা নিয়ে কিছু করার বিষয়টি মাথায় আসে। সে লক্ষ্যে আমরা ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনে(ইউসিএল) প্রপোজাল সাবমিট করি। তারা এটি গ্রহণ করে। হাউজ অব লর্ডসে ব্রিটিশ প্রতিনিধি, বাংলাদেশ হাইকমিশন লন্ডন নিয়ে আমাদের কোলাবোরেশান হয়েছে।

শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন বলেন, ৭১ এর গণহত্যার এদেশীয় যারা মাস্টারমাইন্ড তাদের বিচার হয়েছে। কিন্তু পাকিস্তানি মাস্টারমাইন্ডদের বিচার হয়নি। আমরা গণহত্যার আন্তর্জাতিক তথা জাতিসংঘের স্বীকৃতিও পাইনি। রুয়ান্ডার গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে অনেকদিন সময় লেগেছে। আমাদের জন্য এটা সহজ হবে না। আমাদের উদ্দেশ্য দুটি৷ এক, গণহত্যার স্বীকৃতি। দুই, ক্ষতিপূরণ।

কর্মশালায় একটি প্যানেল ডিসকাশন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে অংশ নেন ইতিহাসবিদ ও লেখক মুনতাসীর মামুন, সাংবাদিক অজয় দাশগুপ্ত, মানবাধিকার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, মানবাধিকার ও উন্নয়ন কর্মী আসিফ মুনীরসহ প্রমুখ।

back to top