alt

জাতীয়

কষ্টের যাত্রা চারগুণ ভাড়া : তারপরও ভিড়

ইবরাহীম মাহমুদ আকাশ : সোমবার, ১০ মে ২০২১
image

স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে যেতে হবে গ্রামে। বন্ধ রেল, দূরপাল্লার বাস, লঞ্চ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে কোন বাহনে যাওয়ার চেষ্টা। আমিন বাজার থেকে তোলা ছবি -সোহরাব আলম

রাজধানীর দোলাইরপাড় মোড়। ১০ মে সোমবার দুপুর ২টা। দুই হাতে দু’টি ও কাঁধে একটি ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেলে উঠতে দেখা গেল মধ্য বয়সী এক লোককে। কাছে গিয়ে কোথায় যাবেন জানতে চাইলে? তিনি জানান, যাবেন বরিশালের বানারীপাড়ায়। থাকেন ঢাকার শনিরআখড়া এলাকায়। কাজ করেন একটি ফার্নিচারের দোকানে।

তার নাম সুরুজ মিয়া। গ্রামে স্ত্রী, ২ সন্তান ও বৃদ্ধ মা রয়েছেন। লকডাউনের কারণে তেমন কাজ নেই। এছাড়া দীর্ঘদিন বাড়িতেও যাওয়া হয় না। তাই ঈদে পরিবারের জন্য কিছু কেনাকাটা করে বাড়িতে যাচ্ছেন কিন্তু বাস বন্ধ থাকায় ১০০০ টাকা ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেলে শিমুলিয়া ফেরিঘাটে যাচ্ছেন। তারপর ফেরি পার হয়ে ভেঙে ভেঙে ছোট যানবাহনে যাবেন বাড়ি। এতে তার খরচ হবে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। লকডাউন না থাকলে ৫০০ টাকায় তিনি গ্রামের বাড়ি চলে যেতে পারতেন। ‘এই বিধিনিষেধ গরিবের খরচ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে,’ মন্তব্য সুরুজ মিয়ার।

ঈদের এখনও তিন-চার দিন বাকি। বন্ধ রয়েছে দূরপাল্লার বাস, ট্রেন ও লঞ্চ সার্ভিস। করোনা সংক্রমণের ভয়ে আছে নানা বিধিনিষেধও। তবে জেলার ভেতরে গণপরিবহন চালু আছে। করোনার ঝুঁঁকির সঙ্গে নানা দুর্ভোগ ও ভোগান্তির শিকার হলেও গ্রামে যাচ্ছেন মানুষ। সব বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করাই তাদের পরম আনন্দের।

সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে দেখা গেছে, সোমবার সকাল থেকেই দলবেঁধে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ। ঢাকার বিভিন্ন সড়কে বের হওয়ার মুখে ছিল ঘরমুখো মানুষের জটলা। দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় সিএনজি অটোরিকশা, প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসে বিভিন্ন গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে তাদের। এই যাত্রাপথে গুনতে হচ্ছে দুই-তিন গুণ বেশি ভাড়া। বিশেষ করে বিভিন্ন কল-কারখানার শ্রমিক ও নিম্নআয়ের মানুষদের পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে। অনেককে হেঁটেই গ্রামের উদ্দেশে যেতে দেখা গেছে। এই সুযোগে অনেকেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে।

যাত্রাবাড়ী এলাকায় শহীদুল ইসলাম নামের শরীয়তপুরের এক যাত্রী সংবাদকে বলেন, ‘পদ্মার ওপারে আমাদের বাড়ি। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করি। প্রতিবছর ২৭ রমজানের পর বাড়িতে যাই। বাড়িতে স্ত্রী, সন্তান আছে কিন্তু বাস না থাকায় মাওয়া পর্যন্ত ৮০ টাকার ভাড়া এখন মোটরসাইকেলে ৫০০ টাকা করে দুইজনের জন্য ১০০০ টাকা চাচ্ছে। সিএনজি প্রতিজন ৩০০ টাকা। প্রাইভেকার ৪০০ টাকা। মাইক্রোবাসে ২০০ টাকা ভাড়া নিচ্ছে। ফেরি পার হয়ে আবার মোটরসাইকেল না হয় মাইক্রোবাসে বাড়িতে যাব। অন্যান্য সময় বাড়ি যেতে ৩০০ টাকা লাগে। এবার ২-৩ হাজার টাকা খরচ হবে।’

গুলিস্তান এলাকায় মারুফ নামের ফরিদপুরগামী এক যাত্রী বলেন, ‘দূরপাল্লার বাস বন্ধ করে জেলার বাস চালু করে লাভ কী? এক জেলা থেকে অন্য জেলায় মানুষ ঠিকই যাচ্ছে কিন্তু টাকা খরচ হচ্ছে বেশি।’

সোমবারও রাজধানীর গাবতলী-আমিনবাজার ব্রিজ, মহাখালী, আব্দুল্লাহপুর, সায়দেবাদ, যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা মোড়, কাঁচপুর ব্রিজ, গুলিস্তান ফুলবাড়িয়া, বাবুবাজার ব্রিজ, জুরাইন, পোস্তগোলা ব্রিজের ওপরে ছিল গ্রামমুখী মানুষের জটলা। বাস না থাকায় কিছুক্ষণ পর পর পণ্যবাহী ট্রাক, মাইক্রোবাস, পিকআপ, সিএনজি অটোরিকশা, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলে ঢাকা ছাড়তে দেখা গেছে এসব মানুষের কিন্তু যাত্রাপথে তাদের মধ্যে ছিল না কোন স্বাস্থ্যবিধি। বেশি ভাড়ায় গাদাগাদি ও গা-ঘেঁষে বসে ছোট যানবাহনে যাতায়াত করতে দেখা গেছে তাদের।

যানবাহনের চাপে মহাসড়কে যানজট

যানবাহনের চাপে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ জট সৃষ্টি হয়েছে। সোমবার সকাল থেকে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার ও ট্রাকের চাপ বেশি ছিল। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের চাপ আরও কয়েক গুণ বেড়ে যায় বলে স্থানীয়রা জানায়। এছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ, ঢাকা-খুলনা, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কেও ট্রাক, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে চলাচল ছিল ধীরগতি।

ফেরিঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন

করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারের বিধিনিষেধের মধ্যেই ঈদকে সামনে রেখে গত ৭ মে শুক্রবার সকাল থেকেই ঘরমুখো মানুষের ঢল নামে ফেরিঘাটে। যাত্রীদের অতিরিক্ত চাপের কারণে ফেরিতে যানবাহন পারাপার কঠিন হয়ে পড়ে। সোমবারও শিমুলিয়া ও পাটুরিয়া ফেরিঘাটে ছিল যানবাহনের দীর্ঘ লাইন। যাত্রীদের চাপের মুখে অবশেষে দিনের বেলাও ফেরি চালুর ঘোষণা দেয় অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিসি)।

শিবচর (মাদারীপুর) থেকে প্রতিনিধি জানান, ঢাকার মাতুয়াইল থেকে কলা বিক্রেতা সাইফুল ইসলাম স্ত্রী রুমা আক্তারকে নিয়ে বাবা-মায়ের সঙ্গে ঈদ করতে যাচ্ছেন গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী। ফেরি, লঞ্চ বন্ধ। তাই ৩ দফা ভেঙে শিমুলিয়া ঘাটে পৌঁছে দালালের মাধ্যমে জানতে পেরে মাওয়া ট্রলার ঘাটে পৌঁছে ছোট জেলে নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কোনমতে মূল পদ্মা পার হয়। একেকজনকে গুনতে হয়েছে ৩শ’-৫শ’ টাকা।

এরপর আড়াই কিলোমিটার চর হেঁটে বুড়োর খেয়া ঘাটে ১শ’ টাকায় পার। এরপর ৪শ’ টাকা করে ৩ চাকার যানে বরিশাল রওনা।

ফেরি প্রায় বন্ধ, লঞ্চ-স্পিডবোট পুরোপুরি বন্ধ থাকায় এভাবেই জীবনের চরম ঝুঁকি নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোতে যাচ্ছেন হাজারো দক্ষিণাঞ্চলবাসী। মাঝ চরে নৌ-পুলিশের ২ সদস্য থাকলেও তাদের সামনেই ক্যামেরা দেখে তৎপড়তা বেড়ে তাদের ভূমিকা ছিল রহস্যজনক।

শিমুলিয়া ঘাটে আটকেপড়া দীর্ঘ সময় পার করা যাত্রীরা এক শ্রেণীর দালালের সহায়তায় ৫০ টাকা যাত্রীপ্রতি ভ্যানে চড়ে পৌঁছে যাচ্ছেন মাওয়া ট্রলার ঘাট। সেখানে ছোট বা মাঝারি মাছ ধরা ট্রলারে যাত্রীপ্রতি ৩শ’-৫শ’ টাকা নিয়ে মাঝ পদ্মার চরে (শিবচরের কাঁঠালবাড়ির চরচান্দ্রা ও জাজিরার চরাঞ্চল) নামিয়ে দেয়া হচ্ছে যাত্রীদের। এরপর দুই-আড়াই কিলোমিটার হাঁটা পথ অতিক্রম করে। এরপর শিবচরের কাঁঠালবাড়ি ও জাজিরার বুড়োর খেয়া ঘাটে পৌঁছাচ্ছেন যাত্রীরা।

শিবালয় (মানিকগঞ্জ) থেকে প্রতিনিধি জানান, সোমবার সকালের দিকে ফেরি বন্ধ থাকায় আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে নদী পার হওয়ার জন্য ঘাট এলাকায় হাজার হাজার যাত্রী অপেক্ষা করতে থাকে আবার অনেককে ঘাট এলাকা ও প্রশাসনের নজরদারির বাইরে বাড়তি ভাড়া দিয়ে ইঞ্জিনচালিত শ্যালো নৌকাযোগে নদী পার হতে দেখা গেছে। আবার রোগী ও লাশবাহী গাড়ি পারাপারের জন্য দু’একটি ফেরি চলাচল করলেও এসব ফেরিতে যাত্রীরা হুড়মুড় করে উঠে গাদাগাদি করে বসে বাড়ি ফিরছেন। এসব যাত্রীর দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে সুযোগসন্ধানী কিছু লোক বিশেষ ব্যবস্থায় যাত্রীপ্রতি ৮শ’ থেকে ১ হাজার টাকা আদায় করে ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে যাত্রী পারাপার করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ছবি

গুলশানে অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ পরীমনির বিরুদ্ধে

ছবি

ট্রান্সফরমার আতঙ্কে জুরাইন এলাকাবাসী

ছবি

চীনের সিনোফার্মের টিকা: কারা পাবেন তার তালিকা বললেন মন্ত্রী

ছবি

গলায় প্ল্যাকার্ড ঝুলিয়ে সংসদে বক্তব্য দিলেন আ. লীগ এমপি

ছবি

দেশে করোনায় মৃত্যু-শনাক্ত আরও ঊর্ধ্বমুখী

ছবি

চলমান বিধি-নিষেধ আরও এক মাস বাড়লো

ছবি

দাম প্রকাশ করায় চীন থেকে টিকা পেতে দেরী হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

‘রিসোর্ট কিংবা বার হোক, আইন ভঙ্গ হলেই ব্যবস্থা’

ছবি

সুন্দরবনের আয়তন বাড়ছে: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে জাতিসংঘের জরুরি পদক্ষেপ চায় বাংলাদেশ

ছবি

সীমান্ত জেলা থেকে আম কিনে লক্ষ্মীপুরে সংক্রমণ ধরা পড়ল ব্যবসায়ীর

ছবি

রাজধানীর আশপাশে, বিভিন্ন জেলায় বাড়ছে সংক্রমণ

ছবি

জনসনের টিকার অনুমোদন দিল বাংলাদেশ

ছবি

দেশে করোনায় আরও ৫০ জনের মৃত্যু,শনাক্ত ৩৩১৯

ছবি

হজ ও ওমরা নিয়ে অনিয়ম করলে বিচারের বিধান রেখে বিল পাস

ছবি

‘গার্ড অব অনার’ নারী থাকা নিয়ে আপত্তির বিষয়ে সংসদে ক্ষোভ

ছবি

আজ বর্ষার প্রথম দিন

ছবি

ঢাকায় দুই সিটিতে বসবে ২৪টি পশুর হাট

ছবি

ফাইজার ও সিনোফার্মের টিকা দেয়া আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু :স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ছবি

দিনাজপুর-চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদায় আজ থেকে কঠোর লকডাউন

ছবি

ফরিদপুরে একদিনে শনাক্ত বেড়েছে ৩০০ শতাংশ

ছবি

বোট ক্লাব থেকে নাসির উদ্দিনসহ ৩ জনকে বহিষ্কার

ছবি

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সুপারিশ নারী বিদ্বেষী ও সংবিধানবিরোধী: নির্মূল কমিটি

ছবি

টিকা ক্রয়ের পাশপাশি দেশে উৎপাদন ও উদ্ভাবনের পরামর্শ ফারুক খানের

ছবি

সংসদীয় কমিটি পুনর্গঠন: আইনে শহীদুজ্জামান-বিদ্যুতে ওয়াসিকা সভাপতি

ছবি

দেশে ৩৬ দিন পর করোনায় সর্বাধিক মৃত্যু, শনাক্ত ৩ হাজার ছাড়ালো

ছবি

এবার ঢাকা মেডিক্যালে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত

ছবি

১৯ জুন থেকে দেওয়া হবে ফাইজার-সিনোফার্মের টিকা: স্বাস্থ্য অধিদফতর

ছবি

রোগীদের হয়রানি রোধে ঢাকা মেডিকেলে ৫ বিশেষ ব্যবস্থা

ছবি

ঈদুল আজহায় বৈধ বা অবৈধ কোন গরু ভারত থেকে আনা যাবে না

ছবি

৩ দিন গ্যাস সংকটে থাকবে রাজধানীসহ পুরো দেশ

ছবি

বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ‘গার্ড অব অনারে’ নারী কর্মকর্তায় আপত্তি সংসদীয় কমিটির

ছবি

চীনের উপহারের আরও ৬ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ঢাকায়

ছবি

দেশে করোনায় ৪৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩৬

ছবি

লিবিয়ায় ভূমধ্যসাগর থেকে ১৬৪ বাংলাদেশিকে উদ্ধার

ছবি

‌এসএসসি, এইচএসসি পরীক্ষা না হলে বিকল্প চিন্তা : শিক্ষামন্ত্রী

tab

জাতীয়

কষ্টের যাত্রা চারগুণ ভাড়া : তারপরও ভিড়

ইবরাহীম মাহমুদ আকাশ
image

স্বজনদের সঙ্গে ঈদ করতে যেতে হবে গ্রামে। বন্ধ রেল, দূরপাল্লার বাস, লঞ্চ। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে কোন বাহনে যাওয়ার চেষ্টা। আমিন বাজার থেকে তোলা ছবি -সোহরাব আলম

সোমবার, ১০ মে ২০২১

রাজধানীর দোলাইরপাড় মোড়। ১০ মে সোমবার দুপুর ২টা। দুই হাতে দু’টি ও কাঁধে একটি ব্যাগ নিয়ে মোটরসাইকেলে উঠতে দেখা গেল মধ্য বয়সী এক লোককে। কাছে গিয়ে কোথায় যাবেন জানতে চাইলে? তিনি জানান, যাবেন বরিশালের বানারীপাড়ায়। থাকেন ঢাকার শনিরআখড়া এলাকায়। কাজ করেন একটি ফার্নিচারের দোকানে।

তার নাম সুরুজ মিয়া। গ্রামে স্ত্রী, ২ সন্তান ও বৃদ্ধ মা রয়েছেন। লকডাউনের কারণে তেমন কাজ নেই। এছাড়া দীর্ঘদিন বাড়িতেও যাওয়া হয় না। তাই ঈদে পরিবারের জন্য কিছু কেনাকাটা করে বাড়িতে যাচ্ছেন কিন্তু বাস বন্ধ থাকায় ১০০০ টাকা ভাড়া দিয়ে মোটরসাইকেলে শিমুলিয়া ফেরিঘাটে যাচ্ছেন। তারপর ফেরি পার হয়ে ভেঙে ভেঙে ছোট যানবাহনে যাবেন বাড়ি। এতে তার খরচ হবে ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা। লকডাউন না থাকলে ৫০০ টাকায় তিনি গ্রামের বাড়ি চলে যেতে পারতেন। ‘এই বিধিনিষেধ গরিবের খরচ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে,’ মন্তব্য সুরুজ মিয়ার।

ঈদের এখনও তিন-চার দিন বাকি। বন্ধ রয়েছে দূরপাল্লার বাস, ট্রেন ও লঞ্চ সার্ভিস। করোনা সংক্রমণের ভয়ে আছে নানা বিধিনিষেধও। তবে জেলার ভেতরে গণপরিবহন চালু আছে। করোনার ঝুঁঁকির সঙ্গে নানা দুর্ভোগ ও ভোগান্তির শিকার হলেও গ্রামে যাচ্ছেন মানুষ। সব বাধা-বিপত্তি অতিক্রম করে প্রিয়জনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করাই তাদের পরম আনন্দের।

সরেজমিনে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে দেখা গেছে, সোমবার সকাল থেকেই দলবেঁধে ঢাকা ছাড়ছে মানুষ। ঢাকার বিভিন্ন সড়কে বের হওয়ার মুখে ছিল ঘরমুখো মানুষের জটলা। দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় সিএনজি অটোরিকশা, প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেল ও মাইক্রোবাসে বিভিন্ন গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে তাদের। এই যাত্রাপথে গুনতে হচ্ছে দুই-তিন গুণ বেশি ভাড়া। বিশেষ করে বিভিন্ন কল-কারখানার শ্রমিক ও নিম্নআয়ের মানুষদের পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে। অনেককে হেঁটেই গ্রামের উদ্দেশে যেতে দেখা গেছে। এই সুযোগে অনেকেই অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে।

যাত্রাবাড়ী এলাকায় শহীদুল ইসলাম নামের শরীয়তপুরের এক যাত্রী সংবাদকে বলেন, ‘পদ্মার ওপারে আমাদের বাড়ি। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করি। প্রতিবছর ২৭ রমজানের পর বাড়িতে যাই। বাড়িতে স্ত্রী, সন্তান আছে কিন্তু বাস না থাকায় মাওয়া পর্যন্ত ৮০ টাকার ভাড়া এখন মোটরসাইকেলে ৫০০ টাকা করে দুইজনের জন্য ১০০০ টাকা চাচ্ছে। সিএনজি প্রতিজন ৩০০ টাকা। প্রাইভেকার ৪০০ টাকা। মাইক্রোবাসে ২০০ টাকা ভাড়া নিচ্ছে। ফেরি পার হয়ে আবার মোটরসাইকেল না হয় মাইক্রোবাসে বাড়িতে যাব। অন্যান্য সময় বাড়ি যেতে ৩০০ টাকা লাগে। এবার ২-৩ হাজার টাকা খরচ হবে।’

গুলিস্তান এলাকায় মারুফ নামের ফরিদপুরগামী এক যাত্রী বলেন, ‘দূরপাল্লার বাস বন্ধ করে জেলার বাস চালু করে লাভ কী? এক জেলা থেকে অন্য জেলায় মানুষ ঠিকই যাচ্ছে কিন্তু টাকা খরচ হচ্ছে বেশি।’

সোমবারও রাজধানীর গাবতলী-আমিনবাজার ব্রিজ, মহাখালী, আব্দুল্লাহপুর, সায়দেবাদ, যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা মোড়, কাঁচপুর ব্রিজ, গুলিস্তান ফুলবাড়িয়া, বাবুবাজার ব্রিজ, জুরাইন, পোস্তগোলা ব্রিজের ওপরে ছিল গ্রামমুখী মানুষের জটলা। বাস না থাকায় কিছুক্ষণ পর পর পণ্যবাহী ট্রাক, মাইক্রোবাস, পিকআপ, সিএনজি অটোরিকশা, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলে ঢাকা ছাড়তে দেখা গেছে এসব মানুষের কিন্তু যাত্রাপথে তাদের মধ্যে ছিল না কোন স্বাস্থ্যবিধি। বেশি ভাড়ায় গাদাগাদি ও গা-ঘেঁষে বসে ছোট যানবাহনে যাতায়াত করতে দেখা গেছে তাদের।

যানবাহনের চাপে মহাসড়কে যানজট

যানবাহনের চাপে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের এলেঙ্গা থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পর্যন্ত ১৪ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দীর্ঘ জট সৃষ্টি হয়েছে। সোমবার সকাল থেকে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার ও ট্রাকের চাপ বেশি ছিল। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবাহনের চাপ আরও কয়েক গুণ বেড়ে যায় বলে স্থানীয়রা জানায়। এছাড়া ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ, ঢাকা-খুলনা, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কেও ট্রাক, মাইক্রোবাস, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে চলাচল ছিল ধীরগতি।

ফেরিঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ লাইন

করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারের বিধিনিষেধের মধ্যেই ঈদকে সামনে রেখে গত ৭ মে শুক্রবার সকাল থেকেই ঘরমুখো মানুষের ঢল নামে ফেরিঘাটে। যাত্রীদের অতিরিক্ত চাপের কারণে ফেরিতে যানবাহন পারাপার কঠিন হয়ে পড়ে। সোমবারও শিমুলিয়া ও পাটুরিয়া ফেরিঘাটে ছিল যানবাহনের দীর্ঘ লাইন। যাত্রীদের চাপের মুখে অবশেষে দিনের বেলাও ফেরি চালুর ঘোষণা দেয় অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিসি)।

শিবচর (মাদারীপুর) থেকে প্রতিনিধি জানান, ঢাকার মাতুয়াইল থেকে কলা বিক্রেতা সাইফুল ইসলাম স্ত্রী রুমা আক্তারকে নিয়ে বাবা-মায়ের সঙ্গে ঈদ করতে যাচ্ছেন গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী। ফেরি, লঞ্চ বন্ধ। তাই ৩ দফা ভেঙে শিমুলিয়া ঘাটে পৌঁছে দালালের মাধ্যমে জানতে পেরে মাওয়া ট্রলার ঘাটে পৌঁছে ছোট জেলে নৌকায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কোনমতে মূল পদ্মা পার হয়। একেকজনকে গুনতে হয়েছে ৩শ’-৫শ’ টাকা।

এরপর আড়াই কিলোমিটার চর হেঁটে বুড়োর খেয়া ঘাটে ১শ’ টাকায় পার। এরপর ৪শ’ টাকা করে ৩ চাকার যানে বরিশাল রওনা।

ফেরি প্রায় বন্ধ, লঞ্চ-স্পিডবোট পুরোপুরি বন্ধ থাকায় এভাবেই জীবনের চরম ঝুঁকি নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোতে যাচ্ছেন হাজারো দক্ষিণাঞ্চলবাসী। মাঝ চরে নৌ-পুলিশের ২ সদস্য থাকলেও তাদের সামনেই ক্যামেরা দেখে তৎপড়তা বেড়ে তাদের ভূমিকা ছিল রহস্যজনক।

শিমুলিয়া ঘাটে আটকেপড়া দীর্ঘ সময় পার করা যাত্রীরা এক শ্রেণীর দালালের সহায়তায় ৫০ টাকা যাত্রীপ্রতি ভ্যানে চড়ে পৌঁছে যাচ্ছেন মাওয়া ট্রলার ঘাট। সেখানে ছোট বা মাঝারি মাছ ধরা ট্রলারে যাত্রীপ্রতি ৩শ’-৫শ’ টাকা নিয়ে মাঝ পদ্মার চরে (শিবচরের কাঁঠালবাড়ির চরচান্দ্রা ও জাজিরার চরাঞ্চল) নামিয়ে দেয়া হচ্ছে যাত্রীদের। এরপর দুই-আড়াই কিলোমিটার হাঁটা পথ অতিক্রম করে। এরপর শিবচরের কাঁঠালবাড়ি ও জাজিরার বুড়োর খেয়া ঘাটে পৌঁছাচ্ছেন যাত্রীরা।

শিবালয় (মানিকগঞ্জ) থেকে প্রতিনিধি জানান, সোমবার সকালের দিকে ফেরি বন্ধ থাকায় আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাটে নদী পার হওয়ার জন্য ঘাট এলাকায় হাজার হাজার যাত্রী অপেক্ষা করতে থাকে আবার অনেককে ঘাট এলাকা ও প্রশাসনের নজরদারির বাইরে বাড়তি ভাড়া দিয়ে ইঞ্জিনচালিত শ্যালো নৌকাযোগে নদী পার হতে দেখা গেছে। আবার রোগী ও লাশবাহী গাড়ি পারাপারের জন্য দু’একটি ফেরি চলাচল করলেও এসব ফেরিতে যাত্রীরা হুড়মুড় করে উঠে গাদাগাদি করে বসে বাড়ি ফিরছেন। এসব যাত্রীর দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে সুযোগসন্ধানী কিছু লোক বিশেষ ব্যবস্থায় যাত্রীপ্রতি ৮শ’ থেকে ১ হাজার টাকা আদায় করে ইঞ্জিনচালিত নৌকাযোগে যাত্রী পারাপার করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

back to top