alt

জাতীয়

দিনাজপুর-চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদায় আজ থেকে কঠোর লকডাউন

সংবাদ ডেস্ক : মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১
image

করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় দিনাজপুর ও চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায় আজ থেকে ৭ ও ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে পর্যালোচনা বৈঠক শেষে এ কর্মসূচি গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জেলাবার্তা পরিবেশক ও প্রতিনিধির পাঠানো খবরে এ তথ্য জানা গেছে।

দিনাজপুর : করোনা সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় দিনাজপুর সদর উপজেলায় আজ থেকে পরবর্তী এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে দিনাজপুর জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটি।

জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত দিনাজপুর জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির জরুরি সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়, আজ সকাল ৬টা থেকে ২১ জুন সোমবার রাত ১২টা পর্যন্ত এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন চলাকালে দিনাজপুর সদর উপজেলার কোন মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারবে না। মোটরসাইকেল, ইজিবাইক, কার-মাইক্রোবাসসহ সবপ্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে, ওষুধ ও অত্যাবশকীয় পণ্য ব্যাতীত সদর উপজেলার সব দোকানপাট বন্ধ থাকবে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় দিনাজপুর জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সদর উপজেলায় আরও ১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃত্যের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৪৪ জনে।

দিনাজপুরে কোভিড-১৯ সংক্রমণ সংক্রান্ত নিয়মিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সিভিল সার্জন ডা. আবদুল কুদ্দুছ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গতকাল জেলায় ১৮৪টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন আরও ৭০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়।

এ নিয়ে জেলায় শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৬ হাজার ৩৪১ জনে। শনাক্ত হওয়া ৭০ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ২৯ জন, বিরামপুর উপজেলায় ২৩ জন, ফুলবাড়ী উপজেলায় ১ জন, ঘোড়াঘাটে উপজেলায় ২ জন, হাকিমপুর উপজেলায় ১১ জন, কাহারোল উপজেলায় ১ জন ও খানসামা উপজেলায় ১ জন।

চুয়াডাঙ্গা : করোনার সংক্রমণ বাড়ায় সীমান্তবর্তী চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে দামুড়হুদা উপজেলা কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জরুরি সভায় ওই সিদ্ধান্ত জানান জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। আজ সকাল ৬টা থেকে আগামী ১৪ দিন লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকর করা হবে। সভায় পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলারা রহমানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গা জেলায় ১৩২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। শনাক্তের হার ৪৩ দশমিক ১৮। সপ্তাহ জুড়েই এ হারে করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হচ্ছে। এর আগে শনিবার ৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৩৭ জন করোনাভাইরাসে শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ছিল ৬৬ দশমিক শূন্য ৭। গত রোববার দামুড়হুদায় আরও একজন করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়েছে। মৃত একেএম ফজলুল হক ওরফে বাবু (৫২) উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত ভূন্দা উস্তাগারের ছেলে ও চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলি আজগার টগরের ভাগ্নে। গত রোববার রাতে ঢাকায় নেয়ার পথে সে মারা যায়। সে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল করোনা ইউনিটে ভর্তি ছিল। জেলায় নতুন শনাক্তকৃত ৫৭ জনের মধ্যে ৩৫ জনই দামুড়হুদার। ১৩ জন সদর উপজেলার। আলমডাঙ্গা উপজেলার ২ জন ও জীবননগর উপজেলার ৭ জন। বর্তমানে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩২২ জন। এরমধ্যে হাসপাতালে ৩৭ জন, বাড়িদত ২৮৩ জন, রেফাড রয়েছেন ৩ জন। দামুড়হুদার ৩৫ জনের মধ্যে অধিকাংশের বাড়িই মুক্তারপুরে। এই গ্রামটিসহ ১৮টি গ্রাম এ মাসের শুরুর দিকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। আজ সকাল ৬টা থেকে আগামী ১৪ দিন দামুড়হুদা উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি না করার সিদ্ধান্ত

সাতক্ষীরা

সংক্রমণের হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি না করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪৪টি। শতকরা হারে যা ৪৭ শতাংশ। এর আগের দিন করোনা সংক্রমণের হার ছিল ৬৪ শতাংশ। যেটা ছিল জেলায় করোনা সংক্রমণের সর্বোচ্চ রেকর্ড।

সরেজমিন দেখা গেছে, সাতক্ষীরায় ঢিলেঢালাভাবে চলছে দ্বিতীয় দফা লকডাউনের তৃতীয় দিন। বিকেল পাঁচটা থেকে পরের দিন সকাল ৯টা পর্যন্ত অরক্ষিত থাকছে সবকিছু। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শহরে কিছুটা কড়াকড়ি থাকলেও গ্রামাঞ্চলে লকডাউন মানছেননা কেউ।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নতুন করে আর কোন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি না করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। গত রোববার সাতক্ষীরা জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়, এখন থেকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি করা হবে না। বরং সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের জন্য আরও ১০০ বেড স্থাপন করা হবে।

রাজশাহীতে আরও ১২ মৃত্যু

রাজশাহী : রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আরও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তিনি বলেন, মারা যাওয়া ১২ জনের মধ্যে সাতজন পুরুষ ও পাঁচজন মহিলা। এদের মধ্যে রাজশাহীর তিনজন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ছয়জন, নাটোরের দুইজন ও মেহেরপুরের একজন। চলতি মাসের গত ১৪ দিনে (১ জুন সকাল ৬টা থেকে ১৪ জুন সকাল ৬টা পর্যন্ত) এ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন ১৩৬ জন। এর মধ্যে ৮০ জনই মারা গেছেন করোনা শনাক্ত হওয়ার পর। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে মারা যান। এর মধ্যে ১ জুন, ৭ জন, ২ জুন ৭ জন, ৩ জুন নয়জন, ৪ জুন ১৬ জন, ৫ জুন ৮ জন, ৬ জুন ৬ জন, ৭ জুন ১১ জন, ৮ জুন ৮ জন, ৯ জুন ৮ জন, ১০ জুন ১২ জন, ১১ জুন ১৫ জন, ১২ জুন ৪ জন, ১৩ জুন ১৩ জন ও ১৪ জুন ১২ জন মারা যান।

হাসপাতালের পরিচালক শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪৪ জন। এর মধ্যে রাজশাহীর ৩৩, চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাঁচ, নওগাঁ ও পাবনার দুইজন করে এবং নাটোর ও কুষ্টিয়ার একজন করে। একই সময় সুস্থ হয়েছে হাসপাতাল ছেড়েছেন ২৬ জন।

তিনি আরও বলেন, রাজশাহী নগরের এখন লকডাউন চলছে। আশা করছি দুই সপ্তাহ সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়ন হলে ভালো ফল পাব।

ছবি

সংক্রমণ এখনও ‘উচ্চ ঝুঁকিতে’ ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগ

ছবি

পরীর পর রাজ মাল্টিমিডিয়ার রাজের বাসায় র‌্যাব

ছবি

পরীমণির বাসায় পাওয়া গেছে ‘ভয়ংকর মাদক’, কাল সংবাদ সম্মেলন

ছবি

শিক্ষার্থীদের অনুরোধে বিশেষ ফ্লাইট যাবে হংকং

ছবি

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব সদর দফতরে পরীমনি

ছবি

সরাসরি ৩০টি অক্সিজেন জেনারেটর প্ল্যান্ট কিনবে সরকার

ছবি

টিকা ছাড়াই সিরিঞ্জ পুশ: সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শককে অব্যাহতি

ছবি

পরীমনি আটক, বাসা থেকে মাদক উদ্ধার

ছবি

রূপগঞ্জে কারখানার আগুন দুই ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে

ছবি

দেশে করোনায় আরও ২৪১ মৃত্যু, শনাক্ত ১৩ হাজার ৮১৭

ছবি

আশঙ্কাজনক রূপ নিতে যাচ্ছে ডেঙ্গু পরিস্থিতি: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ছবি

বক্তব্য প্রত্যাহার করেছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী

ছবি

রূপগঞ্জে হাশেম ফুড কারখানায় আগুন, স্বজনরা পেলেন ২৪জনের লাশ

ছবি

ভ্যাকসিন না নিয়ে বের হলে শাস্তির সিদ্ধান্ত হয়নি: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

বাকৃবি’র সাবেক অধ্যাপকের মৃত্যু

ছবি

‘টিকা ছাড়া চলাফেরায় শাস্তি’: স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একমত নয়

বায়োটেকের টিকা ‘কোভ্যাক্সিন’ ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমোদন

ছবি

হাসেম ফুডে পুড়ে যাওয়া ৪৫ মরদেহ শনাক্ত, বুধবার থেকে হস্তান্তর

ছবি

জাপানের দেওয়া ৬ লক্ষাধিক টিকা ঢাকায়, বাকী রইল প্রায় ২৪ লাখ

ভ্যাকসিন না নিলে অ্যাটর্নি অফিসে কর্মরতদের বেতন বন্ধ

ছবি

মাস্ক না পরলে জরিমানা করার ক্ষমতা পাচ্ছে পুলিশ

ছবি

থানায় রিমান্ডের আসামির মৃত্যু, পুলিশের দাবি আত্মহত্যা

ছবি

৩৪টি দেশে সম্প্রচার হতো হেলেনার জয়যাত্রা: র‌্যাব

ছবি

সারাদেশের হাসপাতালে ১ হাজার ডেঙ্গু রোগী

ছবি

দেশে করোনায় আরও ২৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১৫ হাজার ৭৭৬

ছবি

হেলেনা জাহাঙ্গীর ৪ মামলায় ১৪ দিনের রিমান্ড

১১ আগস্ট থেকে দোকানপাটসহ সব খোলা

ছবি

টিকা না নিয়ে ঘোরাফেরা করলে শাস্তি

ছবি

বিধিনিষেধ বাড়ল ১০ আগস্ট পর্যন্ত

প্রবাসী কর্মীদের জন্য ‘সাময়িক আবাসন’ করার পরিকল্পনা

ছবি

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে মানুষ আরো সুন্দর জীবন পেত : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ব্রাজিলের নতুন রাষ্ট্রদূত হলেন সাদিয়া ফয়জুন্নেসা

ছবি

জাপান থেকে আসছে আরও ৬ লাখ ডোজ

ছবি

প্রবাসী কর্মীদের জন্য আবাসন করার কথা জানালেন মন্ত্রী

ছবি

দেশে ভারতীয় কোভ্যাক্সিন অনুমোদন পেল ট্রায়ালের

ছবি

রাজধানীতে গণ পরিবহন ছাড়া সব আছে

tab

জাতীয়

দিনাজপুর-চুয়াডাঙ্গা দামুড়হুদায় আজ থেকে কঠোর লকডাউন

সংবাদ ডেস্ক
image

মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১

করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় দিনাজপুর ও চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায় আজ থেকে ৭ ও ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে পর্যালোচনা বৈঠক শেষে এ কর্মসূচি গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জেলাবার্তা পরিবেশক ও প্রতিনিধির পাঠানো খবরে এ তথ্য জানা গেছে।

দিনাজপুর : করোনা সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় দিনাজপুর সদর উপজেলায় আজ থেকে পরবর্তী এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউন ঘোষণা করেছে দিনাজপুর জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটি।

জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত দিনাজপুর জেলা করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধ কমিটির জরুরি সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত হয়, আজ সকাল ৬টা থেকে ২১ জুন সোমবার রাত ১২টা পর্যন্ত এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন চলাকালে দিনাজপুর সদর উপজেলার কোন মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারবে না। মোটরসাইকেল, ইজিবাইক, কার-মাইক্রোবাসসহ সবপ্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে, ওষুধ ও অত্যাবশকীয় পণ্য ব্যাতীত সদর উপজেলার সব দোকানপাট বন্ধ থাকবে।

এদিকে গত ২৪ ঘণ্টায় দিনাজপুর জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সদর উপজেলায় আরও ১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃত্যের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৪৪ জনে।

দিনাজপুরে কোভিড-১৯ সংক্রমণ সংক্রান্ত নিয়মিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সিভিল সার্জন ডা. আবদুল কুদ্দুছ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গতকাল জেলায় ১৮৪টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন আরও ৭০ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়।

এ নিয়ে জেলায় শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৬ হাজার ৩৪১ জনে। শনাক্ত হওয়া ৭০ জনের মধ্যে সদর উপজেলায় ২৯ জন, বিরামপুর উপজেলায় ২৩ জন, ফুলবাড়ী উপজেলায় ১ জন, ঘোড়াঘাটে উপজেলায় ২ জন, হাকিমপুর উপজেলায় ১১ জন, কাহারোল উপজেলায় ১ জন ও খানসামা উপজেলায় ১ জন।

চুয়াডাঙ্গা : করোনার সংক্রমণ বাড়ায় সীমান্তবর্তী চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে দামুড়হুদা উপজেলা কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জরুরি সভায় ওই সিদ্ধান্ত জানান জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। আজ সকাল ৬টা থেকে আগামী ১৪ দিন লকডাউন কঠোরভাবে কার্যকর করা হবে। সভায় পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলারা রহমানসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় চুয়াডাঙ্গা জেলায় ১৩২ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। শনাক্তের হার ৪৩ দশমিক ১৮। সপ্তাহ জুড়েই এ হারে করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হচ্ছে। এর আগে শনিবার ৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৩৭ জন করোনাভাইরাসে শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ছিল ৬৬ দশমিক শূন্য ৭। গত রোববার দামুড়হুদায় আরও একজন করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়েছে। মৃত একেএম ফজলুল হক ওরফে বাবু (৫২) উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত ভূন্দা উস্তাগারের ছেলে ও চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলি আজগার টগরের ভাগ্নে। গত রোববার রাতে ঢাকায় নেয়ার পথে সে মারা যায়। সে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল করোনা ইউনিটে ভর্তি ছিল। জেলায় নতুন শনাক্তকৃত ৫৭ জনের মধ্যে ৩৫ জনই দামুড়হুদার। ১৩ জন সদর উপজেলার। আলমডাঙ্গা উপজেলার ২ জন ও জীবননগর উপজেলার ৭ জন। বর্তমানে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩২২ জন। এরমধ্যে হাসপাতালে ৩৭ জন, বাড়িদত ২৮৩ জন, রেফাড রয়েছেন ৩ জন। দামুড়হুদার ৩৫ জনের মধ্যে অধিকাংশের বাড়িই মুক্তারপুরে। এই গ্রামটিসহ ১৮টি গ্রাম এ মাসের শুরুর দিকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। আজ সকাল ৬টা থেকে আগামী ১৪ দিন দামুড়হুদা উপজেলা লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি না করার সিদ্ধান্ত

সাতক্ষীরা

সংক্রমণের হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি না করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৩ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪৪টি। শতকরা হারে যা ৪৭ শতাংশ। এর আগের দিন করোনা সংক্রমণের হার ছিল ৬৪ শতাংশ। যেটা ছিল জেলায় করোনা সংক্রমণের সর্বোচ্চ রেকর্ড।

সরেজমিন দেখা গেছে, সাতক্ষীরায় ঢিলেঢালাভাবে চলছে দ্বিতীয় দফা লকডাউনের তৃতীয় দিন। বিকেল পাঁচটা থেকে পরের দিন সকাল ৯টা পর্যন্ত অরক্ষিত থাকছে সবকিছু। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শহরে কিছুটা কড়াকড়ি থাকলেও গ্রামাঞ্চলে লকডাউন মানছেননা কেউ।

সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে নতুন করে আর কোন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি না করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। গত রোববার সাতক্ষীরা জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির ভার্চুয়াল সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়, এখন থেকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি করা হবে না। বরং সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের জন্য আরও ১০০ বেড স্থাপন করা হবে।

রাজশাহীতে আরও ১২ মৃত্যু

রাজশাহী : রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আরও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তিনি বলেন, মারা যাওয়া ১২ জনের মধ্যে সাতজন পুরুষ ও পাঁচজন মহিলা। এদের মধ্যে রাজশাহীর তিনজন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ছয়জন, নাটোরের দুইজন ও মেহেরপুরের একজন। চলতি মাসের গত ১৪ দিনে (১ জুন সকাল ৬টা থেকে ১৪ জুন সকাল ৬টা পর্যন্ত) এ হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন ১৩৬ জন। এর মধ্যে ৮০ জনই মারা গেছেন করোনা শনাক্ত হওয়ার পর। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে মারা যান। এর মধ্যে ১ জুন, ৭ জন, ২ জুন ৭ জন, ৩ জুন নয়জন, ৪ জুন ১৬ জন, ৫ জুন ৮ জন, ৬ জুন ৬ জন, ৭ জুন ১১ জন, ৮ জুন ৮ জন, ৯ জুন ৮ জন, ১০ জুন ১২ জন, ১১ জুন ১৫ জন, ১২ জুন ৪ জন, ১৩ জুন ১৩ জন ও ১৪ জুন ১২ জন মারা যান।

হাসপাতালের পরিচালক শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৪৪ জন। এর মধ্যে রাজশাহীর ৩৩, চাঁপাইনবাবগঞ্জের পাঁচ, নওগাঁ ও পাবনার দুইজন করে এবং নাটোর ও কুষ্টিয়ার একজন করে। একই সময় সুস্থ হয়েছে হাসপাতাল ছেড়েছেন ২৬ জন।

তিনি আরও বলেন, রাজশাহী নগরের এখন লকডাউন চলছে। আশা করছি দুই সপ্তাহ সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়ন হলে ভালো ফল পাব।

back to top