alt

জাতীয়

করোনায় ৮০% অ্যান্টিবায়োটিক ছিল ‘অপ্রয়োজনে’: আইইডিসিআর

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১

করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসকরা অ্যান্টিবায়েটিক দিলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা অপ্রয়োজনে দেওয়া হয়েছে বলে সরকারি প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর’র এক গবেষণায় দেখা গেছে।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) ‘অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স’ শীর্ষক গবেষণার তথ্য প্রকাশ হয়। তাতে অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত ব্যবহারের ক্ষতির দিকটি তুলে ধরা হয়।

গবেষণার ভিত্তিতে মুগদা মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. রুবিনা ইয়াসমিন বলেন, করোনা চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিকের তেমন কোনো ভূমিকা নেই। কিন্তু অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার হয়েছে সারাবিশ্বে।

“করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে ৮৭ শতাংশের বেশি মানুষকে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োজন ছিল সর্বোচ্চ ৭ শতাংশের। মানে অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত ব্যবহার হয়েছে।”

বাংলাদেশে করোনা রোগীদের অধিকাংশকেই চিকিৎসকরা অ্যান্টিবায়োটিক দিয়েছেন, যা রোগীরাও সেবন করেছেন।

অধ্যাপক রুবিনা জানান, করোনা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত ওষুধের ৭০ শতাংশই ছিল অ্যান্টিবায়োটিক। আইসিইউতে ভর্তি রোগীদের চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের হার ৮০ থেকে ১০০ শতাংশ। এর মধ্যে অ্যাজিথ্রোমাইসিন ও সেফ্টরিয়াক্সনের ব্যবহার হয়েছে ৬৮ দশমিক ৯ শতাংশ।

আবার হাসপাতালে ভর্তির আগে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই এমন অ্যান্টিবায়োটিক ৩৩ শতাংশ রোগী সেবন করেছেন বলে গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন।

অ্যান্টিবায়োটিকের এই অতিরিক্ত ব্যবহারের কুফল তুলে ধরে অধ্যাপক রুবিনা বলেন, “এটা অবশ্যই অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল রেজিস্ট্যান্স বাড়াবে।”

অ্যান্টিবায়োটিক ব্যাকটেরিয়ার মতো জীবাণু প্রতিরোধ করলেও এর যথেচ্ছ ব্যবহার জীবাণুর ক্ষমতা দিন দিন বাড়িয়ে তুলছে বলে গবেষকরা সতর্ক করে আসছেন।

অনুষ্ঠানে আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান ডা. জাকির হোসেন হাবিব বলেন, বাংলাদেশে সাধারণভাবে যেসব অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হয় তার সবগুলোর বিরুদ্ধেই ‘রেজিস্ট্যান্স’ তৈরি হয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারীর সময়ও অ্যান্টিবায়োটিক ‘রেজিস্ট্যান্সের’ উপর বড় প্রভাব ফেলেছে।

“এগুলোর ধর্মই হচ্ছে, আপনি যত বেশি ব্যবহার করবেন, তত বেশি রেজিস্ট্যান্স তৈরি হবে। আমাদের কাছে যে ভালো অ্যান্টিবায়োটিক ছিল কারবাপেনাম গ্রুপের, সেই অ্যান্টিবায়োটিক কিন্তু নষ্ট হয়েছে। আইসিইউতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হয় এই ড্রাগ। যদি আমাদের হাত থেকে এই ড্রাগ চলে যায়, এরপর যেগুলো আছে সেগুলো দামও বেশি, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও বেশি সব জায়গায় দেওয়া যায় না।”

জীবাণুরা অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠতে থাকলে এক সময় ব্যবহার করার মতো কোনো অ্যান্টিবায়োটিক থাকবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

তিনি বলেন, অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি আইনের জায়গাটা শক্ত হওয়ার ব্যাপার রয়েছে।

“সাধারণ মানুষের কিছু দায়িত্ব আছে তারা যেন অ্যান্টিবায়োটিক না খায়। সাধারণ মানুষ সচেতন হলেই অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বন্ধ হয়ে যাবে, এমন না। আমরা অনেক প্রেসক্রিপশন দেখেছি যারা কোভিড সিচুয়েশনে অ্যান্টিবায়োটিক প্রেসক্রাইব করেছে। এজন্য সব লেভেলেই সচেতনতার প্রয়োজন আছে। সবচেয়ে বেশি সচেতনতা তৈরি করতে হবে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে।”

আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. তাহমিনা শিরিনের সভাপতিত্বে অনষ্ঠানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিনের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. এহসানুল হক, বাংলাদেশে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা. মো. ইসমাইল রামজি, ফ্লেমিং ফান্ড কান্ট্রি গ্রান্টের টিম লিড অধ্যাপক ডা. নীতিশ দেবনাথ বক্তব্য রাখেন।

ছবি

করোনা: মৃত্যু কমলেও শনাক্ত বেড়ে ২৭৭

ছবি

তিন জেলার টেলিফোন নম্বর পরিবর্তন হচ্ছে

ছবি

গণতন্ত্র মুক্তি দিবস আজ

ছবি

১৮ দেশে বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী দিবস পালিত হবে

ছবি

সারাদিনই ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি ঝরতে পারে

ছবি

অস্ত্র প্রতিযোগিতার পরিবর্তে শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়তে সম্পদ ব্যবহার করুন

ছবি

স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় ভারত ও ভুটান

ছবি

সর্বজনীন শান্তির জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে কর্মযজ্ঞে নামার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের জন্য সরকারকে অভিনন্দন জানিয়েছেন আজিয়াটা গ্রুপের সিইও

ছবি

‘ওমিক্রন’ দরজায় কড়া নাড়ছে: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ছবি

ডেঙ্গু: ২৪ ঘন্টায় নতুন আক্রান্ত আরও ৬৮

ছবি

করোনা: বেড়েছে শনাক্ত, মৃত্যু আরও ৬

ছবি

বাংলাদেশ লকডাউন হবে কি না, জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

চাকরির পেছনে না ছুটে তরুণদের উদ্যোক্তা হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ঢাকার আকাশে মিত্রবাহিনী

ছবি

করোনা: শনাক্ত কমলেও মৃত্যু বেড়ে ৬

ছবি

ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য গড়তে হবে বাসযোগ্য পৃথিবী: রাষ্ট্রপতি

ছবি

ডেঙ্গু: একদিনে হাসপাতালে ভর্তি আরও ৫৩ জন

ছবি

শিক্ষকের মৃত্যু : কুয়েটে ছাত্রলীগ নেতাসহ ৯ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার

ছবি

এলিডিসি উত্তরণের পরও আন্তর্জাতিক সহায়তা চায় বাংলাদেশ

শত্রুমুক্ত হয় দেবীদ্বার, ফুলবাড়ী, ফুলছড়ি, লক্ষ্মীপুর, কামালপুর

ছবি

করোনা: মৃত্যু ৩, শনাক্তের হার বেড়ে ১.৪০

ছবি

ডেঙ্গু: ২৪ ঘণ্টায় কমেছে শনাক্ত

ছবি

ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’ আঘাত হানতে পারে শনিবার

ছবি

চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচন পিছিয়েছে

ছবি

ওমিক্রন : সাত দেশ থেকে এলে ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন

ছবি

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে জাপানের আশ্বাস

ছবি

হোটেল কোয়ারেনটাইনে রেখে দেওয়া হবে পাসপোর্ট: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

বিজয় দিবসে দেশবাসীকে শপথ পড়াবেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

ডেঙ্গু: ২৪ ঘণ্টায় নতুন আক্রান্ত আরও ১০৮

ছবি

করোনা: ২৬১ জনের শনাক্ত, মৃত্যু ৩

ছবি

কথা দিয়ে কথা রাখুন, বাস মালিকদের ওবায়দুল কাদের

ছবি

মন চাইছে আত্মহত্যা করি : টেলিযোগাযোগমন্ত্রী

ছবি

সব জেলায় বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে: বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ছবি

প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০৪১ বাস্তবায়নে ‌‌সশস্ত্র বাহিনী ‘অগ্রসেনা’ হবে, আশা প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

কামরুল হাসানের জন্মশত বার্ষিকী আজ

tab

জাতীয়

করোনায় ৮০% অ্যান্টিবায়োটিক ছিল ‘অপ্রয়োজনে’: আইইডিসিআর

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১

করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসকরা অ্যান্টিবায়েটিক দিলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে তা অপ্রয়োজনে দেওয়া হয়েছে বলে সরকারি প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর’র এক গবেষণায় দেখা গেছে।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) ‘অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স’ শীর্ষক গবেষণার তথ্য প্রকাশ হয়। তাতে অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত ব্যবহারের ক্ষতির দিকটি তুলে ধরা হয়।

গবেষণার ভিত্তিতে মুগদা মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. রুবিনা ইয়াসমিন বলেন, করোনা চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিকের তেমন কোনো ভূমিকা নেই। কিন্তু অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার হয়েছে সারাবিশ্বে।

“করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে ৮৭ শতাংশের বেশি মানুষকে অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাদের মধ্যে অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োজন ছিল সর্বোচ্চ ৭ শতাংশের। মানে অ্যান্টিবায়োটিকের অতিরিক্ত ব্যবহার হয়েছে।”

বাংলাদেশে করোনা রোগীদের অধিকাংশকেই চিকিৎসকরা অ্যান্টিবায়োটিক দিয়েছেন, যা রোগীরাও সেবন করেছেন।

অধ্যাপক রুবিনা জানান, করোনা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত ওষুধের ৭০ শতাংশই ছিল অ্যান্টিবায়োটিক। আইসিইউতে ভর্তি রোগীদের চিকিৎসায় অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের হার ৮০ থেকে ১০০ শতাংশ। এর মধ্যে অ্যাজিথ্রোমাইসিন ও সেফ্টরিয়াক্সনের ব্যবহার হয়েছে ৬৮ দশমিক ৯ শতাংশ।

আবার হাসপাতালে ভর্তির আগে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই এমন অ্যান্টিবায়োটিক ৩৩ শতাংশ রোগী সেবন করেছেন বলে গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন।

অ্যান্টিবায়োটিকের এই অতিরিক্ত ব্যবহারের কুফল তুলে ধরে অধ্যাপক রুবিনা বলেন, “এটা অবশ্যই অ্যান্টিমাইক্রোবায়াল রেজিস্ট্যান্স বাড়াবে।”

অ্যান্টিবায়োটিক ব্যাকটেরিয়ার মতো জীবাণু প্রতিরোধ করলেও এর যথেচ্ছ ব্যবহার জীবাণুর ক্ষমতা দিন দিন বাড়িয়ে তুলছে বলে গবেষকরা সতর্ক করে আসছেন।

অনুষ্ঠানে আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান ডা. জাকির হোসেন হাবিব বলেন, বাংলাদেশে সাধারণভাবে যেসব অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা হয় তার সবগুলোর বিরুদ্ধেই ‘রেজিস্ট্যান্স’ তৈরি হয়েছে। করোনাভাইরাস মহামারীর সময়ও অ্যান্টিবায়োটিক ‘রেজিস্ট্যান্সের’ উপর বড় প্রভাব ফেলেছে।

“এগুলোর ধর্মই হচ্ছে, আপনি যত বেশি ব্যবহার করবেন, তত বেশি রেজিস্ট্যান্স তৈরি হবে। আমাদের কাছে যে ভালো অ্যান্টিবায়োটিক ছিল কারবাপেনাম গ্রুপের, সেই অ্যান্টিবায়োটিক কিন্তু নষ্ট হয়েছে। আইসিইউতে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার হয় এই ড্রাগ। যদি আমাদের হাত থেকে এই ড্রাগ চলে যায়, এরপর যেগুলো আছে সেগুলো দামও বেশি, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও বেশি সব জায়গায় দেওয়া যায় না।”

জীবাণুরা অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠতে থাকলে এক সময় ব্যবহার করার মতো কোনো অ্যান্টিবায়োটিক থাকবে না বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

তিনি বলেন, অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি আইনের জায়গাটা শক্ত হওয়ার ব্যাপার রয়েছে।

“সাধারণ মানুষের কিছু দায়িত্ব আছে তারা যেন অ্যান্টিবায়োটিক না খায়। সাধারণ মানুষ সচেতন হলেই অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বন্ধ হয়ে যাবে, এমন না। আমরা অনেক প্রেসক্রিপশন দেখেছি যারা কোভিড সিচুয়েশনে অ্যান্টিবায়োটিক প্রেসক্রাইব করেছে। এজন্য সব লেভেলেই সচেতনতার প্রয়োজন আছে। সবচেয়ে বেশি সচেতনতা তৈরি করতে হবে নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে।”

আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. তাহমিনা শিরিনের সভাপতিত্বে অনষ্ঠানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ল্যাবরেটরি মেডিসিনের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. এহসানুল হক, বাংলাদেশে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ডা. মো. ইসমাইল রামজি, ফ্লেমিং ফান্ড কান্ট্রি গ্রান্টের টিম লিড অধ্যাপক ডা. নীতিশ দেবনাথ বক্তব্য রাখেন।

back to top