alt

জাতীয়

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন : মায়ানমারকে চাপ দিন, দ. কোরিয়াকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

: বৃহস্পতিবার, ১২ মে ২০২২

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে মায়ানমারকে জোরালোভাবে চাপ দিতে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। একইসঙ্গে তিনি প্রকল্প বাস্তবায়নে দেশটির সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে ‘বাংলাদেশ-কোরিয়ার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর’ শীর্ষক এক সেমিনারে দক্ষিণ কোরিয়াকে থেকে এসব সহযোগিতা চান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ড. মোমেন বলেন, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদসহ আন্তর্জাতিক ফোরামে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কোরিয়া বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়েছে। মায়ানমার আপনাদের ভালো বন্ধু। মিয়ানমারের সঙ্গে আপনাদের ভালো সম্পর্ক। গত কয়েক বছরে মায়ানমারে কোরিয়ার বিনিয়োগের পরিমাণ বেড়েছে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে কোরিয়া ভালো পদক্ষেপ নিতে পারে। আপনারা এ বিষয়ে মিয়ানমারকে জোরালোভাবে চাপ দিন। আমি আপনাদের অনুরোধ করছি মিয়ানমারকে চাপ দিন।

মায়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে রাজি হলেও এখনো প্রত্যাবাসন শুরু করা যায়নি বলে উল্লেখ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। মায়ানমার আমাদের শত্রু নয়, বন্ধু দেশ। তাদের খারাপ সময়ে আমরা সহযোগিতা করেছি। মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের নিতে রাজি হয়েছে। তারা তাদের লোকদের নিরাপত্তা দিতে রাজি হয়েছে। কিন্তু এখনো প্রত্যাবাসন শুরু হয়নি। এ বিষয়ে আমরা আপনাদের সহযোগিতা চাই। প্রত্যাবাসন হলে রোহিঙ্গারা নিশ্চিত ভবিষ্যৎ পাবে।

অতীতে আলোচনার মাধ্যমে মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়েছে বলে জানান মোমেন। তিনি বলেন, আমরা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে অতীতে এ সমস্যার সমাধান করেছি। তার ইতিহাস রয়েছে। ৯০’এর দশকে রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়েছিল মায়ানমার। বর্তমানে এক মিলিয়নের বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। আমরা এ সমস্যার সমাধান চাই।

প্রকল্প বাস্তবায়নে দ. কোরিয়ার সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ

বাংলাদেশে প্রকল্প বাস্তবায়নে দীর্ঘসূত্রিতা থেকে বের হয়ে আরও দ্রুত ও টেকসই প্রকল্পে যেতে দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষতার বিষয়ে সহযোগিতা চেয়েছেন ড. মোমেন। তিনি বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষতা রয়েছে। এই কাজে দেশটির যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। আর বাংলাদেশের বড় সমস্যা হলো প্রকল্প বাস্তবায়নের দীর্ঘসূত্রিতা। আমাদের এখানে একটি প্রকল্প হাতে নেওয়ার পর সেটি সহজে শেষ হয় না। তিন বছরের একটা প্রকল্প শেষ হতে দেখা যায় দশ বছর লেগে যায়। আমাদের এখানে বার বার প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হয়। যার কারণে খরচও বাড়ে।

ড. মোমেন বলেন, দক্ষিণ কোরিয়া প্রকল্প বাস্তবায়নে কঠোরতা অবলম্বন করে। সেখানে প্রকল্প শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের প্রকল্প পরিচালক পরিবর্তন হয় না। সময় মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে না পারলে জরিমানা করা হয়, ডিমোশন করা হয়, অনেক সময় জেলে পর্যন্ত পাঠানো হয়। আবার দক্ষতা দেখালে প্রকল্প পরিচালক নীতি নির্ধারণ পর্যায়ে পদন্নোতি পান। বন্ধু হিসেবে বাংলাদেশকে এ বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়া সহযোগিতা করতে পারে।

ডুয়িং বিজনেসেও কোরিয়ার সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ

দক্ষিণ কোরিয়াতে ব্যবসায়িক পরিবেশ অনেক ভালো অ্যাখা দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক্ষেত্রে দেশটির সহযোগিতা চেয়েছে। বিশেষ করে ডুয়িং বিজনেসে ভালো অবস্থানে যেতে দেশটির সহযোগিতা চেয়ে ড. মোমেন বলেন, ডুয়িং বিজনেসে দক্ষিণ কোরিয়া বিশ্বে চতুর্থ। যুক্তরাষ্ট্রের চেয়েও তাদের অবস্থান ভালো। আমরা ১৬৮তম অবস্থানে। গত তিন বছরে আমরা মাত্র তিনটি র‍্যাংক পেয়েছি। এই খাতে আমরা কীভাবে ভালো করতে পারি, সে বিষয়ে কোরিয়ার সহযোগিতা চাই। আমরা কিভাবে উন্নতি করতে পারি, সে বিষয়ে তাদের সহযোগিতা চাই।

ছবি

‘ইভিএমে কারচুপির সুযোগ নেই, তবে শতভাগ বিশ্বাস করা যাবে না’

ছবি

গাফফার চৌধুরীর মরদেহ দেশে আসছে শনিবার

ছবি

বাংলাদেশ থেকে কর্মী নেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন

ছবি

সরকারি টাকায় শিক্ষাসফর, দেশে ফিরেই গেলেন অবসরে

ছবি

উন্নয়ন প্রকল্পে পরিবেশ রক্ষার ওপর গুরুত্ব দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

৫ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন হাদিসুরের পরিবার

ছবি

করোনা: শনাক্ত কমে ৩০, ঢাকায় ১৯

ছবি

ইভিএম ভার্চুয়ালি ম্যানুপুলেট করা অসম্ভব: জাফর ইকবাল

ছবি

জাতীয় কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন

ছবি

ইভিএম বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বৈঠকে ইসি

ছবি

জাতীয় কবির জন্মদিন আজ

জাতিসংঘ বাংলাদেশের স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম অ্যাসেসমেন্ট রিপোর্ট প্রকাশ করেছে

ছবি

ইভিএম নিয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি ইসি

ছবি

পদ্মা সেতু : আলো জ্বলবে জুনের প্রথম সপ্তাহে

ছবি

প্রত্যাবাসনের অনিশ্চয়তায় রোহিঙ্গারা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়াচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

ছবি

৫ জুন থেকে হজ ফ্লাইট শুরু

ছবি

করোনা: মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত বেড়ে ৩৪

ছবি

ভোট রাতে হবে না, এটা স্পষ্ট করে বলতে চাই: সিইসি

ছবি

পদ্মা সেতুই থাকছে নাম, উদ্বোধন ২৫ জুন

ছবি

আমদানি কমাতে ৬৮ পণ্যে বাড়তি শুল্কারোপ

ছবি

প্রথম হজ ফ্লাইট ৫ জুন চায় ধর্ম মন্ত্রণালয়

রাশিয়ার তেল বিক্রির প্রস্তাব পর্যালোচনা করা হচ্ছে : জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী

ছবি

হজ ব্যবস্থাপনা সফলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ৯ নির্দেশনা

ছবি

করোনা: ৩৪ দিন পর মৃত্যু ২, শনাক্ত ৩১

ছবি

বাংলাদেশের কাছে তেল বিক্রির প্রস্তাব দিয়েছে রাশিয়া: প্রতিমন্ত্রী

ছবি

আঞ্চলিক সংকট মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ৫ প্রস্তাব

ছবি

হজের নিবন্ধনের সময় আরও বাড়ল

ছবি

১ জুন থেকে বিমানের ওয়েব চেক-ইন শুরু

লাভের মুখ দেখছে সরকারি ৫ বিদ্যুৎ উৎপাদন কোম্পানি

ছবি

ভবিষ্যৎ মহামারী মোকাবেলায় বৈশ্বিক চুক্তিতে পৌঁছার আহ্বান

ছবি

আফগানিস্তানকে ১ কোটি টাকা অনুদান দিচ্ছে বাংলাদেশ

ছবি

মুজিববর্ষের সকল প্রকাশনা বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টে হস্তান্তর

ছবি

করোনা: শনাক্ত ২৯, ঢাকায় ২৬

বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ নিয়ে উদ্বেগ ইইউ’র

ছবি

এলাকার বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী উন্নয়ন পরিকল্পনা নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

অস্ট্রেলিয়ার নব নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন

tab

জাতীয়

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন : মায়ানমারকে চাপ দিন, দ. কোরিয়াকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার, ১২ মে ২০২২

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে মায়ানমারকে জোরালোভাবে চাপ দিতে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। একইসঙ্গে তিনি প্রকল্প বাস্তবায়নে দেশটির সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) রাজধানীর ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে ‘বাংলাদেশ-কোরিয়ার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর’ শীর্ষক এক সেমিনারে দক্ষিণ কোরিয়াকে থেকে এসব সহযোগিতা চান পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ড. মোমেন বলেন, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদসহ আন্তর্জাতিক ফোরামে রোহিঙ্গা ইস্যুতে কোরিয়া বাংলাদেশকে সমর্থন দিয়েছে। মায়ানমার আপনাদের ভালো বন্ধু। মিয়ানমারের সঙ্গে আপনাদের ভালো সম্পর্ক। গত কয়েক বছরে মায়ানমারে কোরিয়ার বিনিয়োগের পরিমাণ বেড়েছে। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে কোরিয়া ভালো পদক্ষেপ নিতে পারে। আপনারা এ বিষয়ে মিয়ানমারকে জোরালোভাবে চাপ দিন। আমি আপনাদের অনুরোধ করছি মিয়ানমারকে চাপ দিন।

মায়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে রাজি হলেও এখনো প্রত্যাবাসন শুরু করা যায়নি বলে উল্লেখ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। মায়ানমার আমাদের শত্রু নয়, বন্ধু দেশ। তাদের খারাপ সময়ে আমরা সহযোগিতা করেছি। মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের নিতে রাজি হয়েছে। তারা তাদের লোকদের নিরাপত্তা দিতে রাজি হয়েছে। কিন্তু এখনো প্রত্যাবাসন শুরু হয়নি। এ বিষয়ে আমরা আপনাদের সহযোগিতা চাই। প্রত্যাবাসন হলে রোহিঙ্গারা নিশ্চিত ভবিষ্যৎ পাবে।

অতীতে আলোচনার মাধ্যমে মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়েছে বলে জানান মোমেন। তিনি বলেন, আমরা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে অতীতে এ সমস্যার সমাধান করেছি। তার ইতিহাস রয়েছে। ৯০’এর দশকে রোহিঙ্গাদের ফেরত নিয়েছিল মায়ানমার। বর্তমানে এক মিলিয়নের বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। আমরা এ সমস্যার সমাধান চাই।

প্রকল্প বাস্তবায়নে দ. কোরিয়ার সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ

বাংলাদেশে প্রকল্প বাস্তবায়নে দীর্ঘসূত্রিতা থেকে বের হয়ে আরও দ্রুত ও টেকসই প্রকল্পে যেতে দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষতার বিষয়ে সহযোগিতা চেয়েছেন ড. মোমেন। তিনি বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষতা রয়েছে। এই কাজে দেশটির যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। আর বাংলাদেশের বড় সমস্যা হলো প্রকল্প বাস্তবায়নের দীর্ঘসূত্রিতা। আমাদের এখানে একটি প্রকল্প হাতে নেওয়ার পর সেটি সহজে শেষ হয় না। তিন বছরের একটা প্রকল্প শেষ হতে দেখা যায় দশ বছর লেগে যায়। আমাদের এখানে বার বার প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হয়। যার কারণে খরচও বাড়ে।

ড. মোমেন বলেন, দক্ষিণ কোরিয়া প্রকল্প বাস্তবায়নে কঠোরতা অবলম্বন করে। সেখানে প্রকল্প শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের প্রকল্প পরিচালক পরিবর্তন হয় না। সময় মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে না পারলে জরিমানা করা হয়, ডিমোশন করা হয়, অনেক সময় জেলে পর্যন্ত পাঠানো হয়। আবার দক্ষতা দেখালে প্রকল্প পরিচালক নীতি নির্ধারণ পর্যায়ে পদন্নোতি পান। বন্ধু হিসেবে বাংলাদেশকে এ বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়া সহযোগিতা করতে পারে।

ডুয়িং বিজনেসেও কোরিয়ার সহযোগিতা চায় বাংলাদেশ

দক্ষিণ কোরিয়াতে ব্যবসায়িক পরিবেশ অনেক ভালো অ্যাখা দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক্ষেত্রে দেশটির সহযোগিতা চেয়েছে। বিশেষ করে ডুয়িং বিজনেসে ভালো অবস্থানে যেতে দেশটির সহযোগিতা চেয়ে ড. মোমেন বলেন, ডুয়িং বিজনেসে দক্ষিণ কোরিয়া বিশ্বে চতুর্থ। যুক্তরাষ্ট্রের চেয়েও তাদের অবস্থান ভালো। আমরা ১৬৮তম অবস্থানে। গত তিন বছরে আমরা মাত্র তিনটি র‍্যাংক পেয়েছি। এই খাতে আমরা কীভাবে ভালো করতে পারি, সে বিষয়ে কোরিয়ার সহযোগিতা চাই। আমরা কিভাবে উন্নতি করতে পারি, সে বিষয়ে তাদের সহযোগিতা চাই।

back to top