alt

জাতীয়

‘জটিল অঙ্কের’ হিসাব মেলাতেই জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি

নেতিবাচক প্রভাব পড়বে সব খাতে, অর্থনীতিবিদদের মত

রেজাউল করিম : শনিবার, ০৬ আগস্ট ২০২২

জটিল অঙ্কের হিসাব মেলাতে দেশে জ্বালানি তেলের দাম এক দফায় অনেক বাড়াতে হয়েছে বলে মনে করছেন দুজন অর্থনীতিবিদ। একদিকে অর্থ সংকট, আর আইএমএফের ঋণ পাওয়ার প্রস্তুতি, মূলত সে কারণেই দাম এত বেড়েছে বলে মনে করছেন তারা।

তবে এতে সব খাতের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলেই অনেকের ধারণা। নিম্নআয়ের মানুষ বেশি ভোগান্তিতে পড়বে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। কেউ কেউ বলছেন ‘এত বেশি’ মূল্যবৃদ্ধি ‘অযৌক্তিক’ এবং ‘ভুল রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত’।

গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বলছেন, সরকার ‘বাধ্য হয়েই’ দাম বাড়িয়েছে। তিনি এই দাম বৃদ্ধিকে এক ঢিলে দুই পাখি মারার সঙ্গে তুলনা করেন।

আহসান এইচ মনসুর বলছেন, ‘এই মুহূর্তে বিপিসির কাছে টাকা নেই। তাই দাম না বাড়ালে নতুন তেল কিনতে পারবে না সরকার। তাই দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা আছে বলতে হবে। অন্যদিকে আইএমএফের শর্ত পূরণ হওয়াও দরকার। দুইদিক থেকে চিন্তা করেই সরকার দাম বাড়িয়েছে।’

তবে কারো কারো মতে শুল্ক ‘সমন্বয় করে’ দাম বৃদ্ধি ‘সহনীয় পর্যায়ে’ রাখা যেত। গতকাল শুক্রবার রাতে দেশের জ্বালানি তেলের দাম ৪৩ থেকে ৫২ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। ডিজেল ও কেরোসিনের লিটার ৮০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১১৪ টাকা করা হয়েছে। অকটেন ৮৯ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩৫ আর পেট্রলের লিটার ৮৬ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩০ টাকা।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান সংবাদকে বলেন, ‘এর প্রভাব উৎপাদক, ভোক্তা থেকে শুরু করে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের ওপর পড়বে। তবে বেশি পড়বে নিম্নআয়ের মানুষের ওপর। কারণ বর্তমানে জীবন নির্বাহ করাই যাদের কষ্টকর, সেখানে ফের দাম বৃদ্ধি তাদের ভোগান্তিতে ফেলবে। দ্বিতীয়ত, আমাদের দেশে দাম সব পর্যায়ে বৈজ্ঞানিক উপায়ে বাড়ে না। আন্তর্জাতিক বাজারে যে হারে বাড়ে, দেশের বাজারে তার চেয়ে বেশি বাড়ে। সেদিকে নজর দিতে হবে। এই সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরা অযৌক্তিকভাবে বেশি দাম বাড়াবে।’

সরকারের এই সিদ্ধান্তকে ‘ভুল’ আখ্যায়িত করে তা আবার বিবেচনার আহ্বান জানান ভোক্তা অধিকার নিয়ে কাজ করা কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান। তিনি সংবাদকে বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে একবারে এত বেশি দাম বেড়েছে কি না আমার জানা নেই। আন্তর্জাতিক বাজারে সম্প্রতি দাম কমেছে। আর বাংলাদেশে বাড়লো। আমাদের আশঙ্কা ছিল দাম বাড়বে, তবে সামান্য বাড়বে। কিন্তু যে হারে বেড়েছে, সেটা একেবারে অযৌক্তিক।’ এই দাম বৃদ্ধি রাজনৈতিকভাবেও ভুল সিদ্ধান্ত বলে মনে করেন গোলাম রহমান। তিনি বলেন, ‘এই ভুল সিদ্ধান্ত সরকারের বড় অর্জনগুলোকে ম্লান করে দেবে। এমনকি এই সিদ্ধান্তের কারণে দেশে যেকোন কিছু ঘটে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।’

বাংলাদেশের জ্বালানি খাত অনেকটাই আমদানিনির্ভর। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) সূত্রে জানা যায়, দেশে বছরে ৬৫ লাখ টন জ্বালানি তেল আমদানি হয়। তার মধ্যে বছরে ৪০ লাখ টন শুধু ডিজেলই আমদানি হয়। দেশে পরিবহন খাতের ৯০ শতাংশের বেশি যানবাহন জ্বালানি তেলের ওপর নির্ভরশীল। আবার বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতারও ৩৪ শতাংশ নির্ভর করে জ্বালানি তেলের ওপর।

মোস্তাফিজুর রহমান বলছেন, ‘আমরা যদি আগেই কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখতাম, তাহলে আজ এই পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না। আমদানি-নির্ভরতা কাটাতে যে জায়গাগুলো এক্সপ্লোর করা দরকার, সেগুলো করা হয়নি। আর জ্বালানিতে আমদানি শুল্কও তো আছে। আমরা শুল্ক সমন্বয় করেও দাম বৃদ্ধি সহনীয় পর্যায়ে রাখতে পারতাম। আমরা সেদিকে যাইনি।’

কেরোসিনের দাম বৃদ্ধি সরাসরি নিম্মআয়ের মানুষের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কেরোসিন খুব কম ও নি¤œআয়ের মানুষ ব্যবহার করে। সরকার এই তেলের দাম কম সমন্বয় করলে পারত। তাহলে এই শ্রেণীর মানুষ কিছুটা স্বস্তিতে থাকত।’

অর্থ সংকটের কারণে দাম বাড়াতে হচ্ছে। সরকারের রাজস্ব বাড়লে দাম এতটা সমন্বয় করতে হতো না বলে জানান তিনি। মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশের মূল সমস্যা রাজস্ব-জিডিপি রেশিও। এটি নিম্নআয়ের দেশেগুলোর চেয়েও কম, মাত্র ৯ শতাংশ। এটা যদি বাড়ানো যেত তাহলে সরকারের ভর্তুকি দেয়ার সক্ষমতাও বাড়ত। তখন আরও পলিসি ফ্লেক্সিবিলিটি হতো আমাদের।’

দাম বাড়ানোর সময়টিও খুব সংকটাপন্ন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের দাম এমন সময় বাড়াতে হলো যখন আন্তর্জাতিক বাজারেও বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়ছে। টাকার অবমূল্যায়নের কারণে সেই প্রভাব আরও বেশি পড়ছে দেশের বাজারে।’

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফের কাছে থেকে ঋণ নেয়ার জন্য চিঠি পাঠিয়েছে সরকার। সেই ঋণ পেতে সংস্থাটির কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। সেই শর্তগুলোর মধ্যে একটি হলো জ্বালানি ও কৃষি খাতে ভর্তুকি কমানো। এই দাম বৃদ্ধি আইএমএফের ঋণ পাওয়ার জন্য আগাম প্রস্তুতি জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কিছুদিন পরই সরকার আইএমএফের সঙ্গে দর কষাকষিতে যাবে। এর আগাম প্রস্তুতি হিসেবেই একটা করা হয়েছে। তবে অন্যান্য পরিস্থিতি অনুযায়ী সময়টা ভালো হলো না।’

দাম বাড়ার কারণে জনগণের ভোগান্তি কমাতে কঠোর নজরদারির আহ্বান জানান আহসান এইচ মনসুর। ‘সরকার সংকটের কারণে দাম বাড়াতে বাধ্য হয়েছে। এখন এর প্রভাব যেন নায্যভাবে পড়ে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। যেমন পরিবহন খাত-সংশ্লিষ্টরা ভাড়া ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ বাড়ানোর পাঁয়তারা করছে। সেটা যেন না হয়। সর্বোচ ১০ থেকে ১৫ শতাংশ যেন বাড়ে।’

এর আগে গত বছরের নভেম্বরে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়েছিল সরকার। চলতি বছরের ৫ জুন গ্যাসের দাম এক দফায় ২২ দশমিক ৭৮ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। আর বিদ্যুতের পাইকারি দাম বাড়ানো হয়েছিল সর্বশেষ ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে। তখন খুচরায়ও দাম বেড়েছিল।

আট বছর হাজত বাসে, কাশ্মির থেকে ৮ বাংলাদেশীকে হস্তান্তর

সাপ্তাহিক ছুটি কোন শিল্পাঞ্চলে কবে

ছবি

সুইস ব্যাংকের কাছে অর্থ পাচারকারীদের তথ্য চেয়েছে কিনা জানতে চায় হাইকোর্ট

ছবি

সুইস ব্যাংক নিয়ে রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য মিথ্যা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

নৌপথে পণ্য পরিবহনে ভাড়া বাড়ল ১৫-২২ শতাংশ

ছবি

শিল্পাঞ্চলে এলাকাভিত্তিক সাপ্তাহিক ছুটির প্রজ্ঞাপন জারি

ছবি

দুর্যোগে পড়ালেখায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত সুনামগঞ্জের শিশুরা

ছবি

করোনা: একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৪

ছবি

লঞ্চ ভাড়া বাড়াতে গঠিত ওয়ার্কিং কমিটির প্রস্তাব জমা

ছবি

সংসদের ১৯তম অধিবেশন শুরু ২৮ আগস্ট

ছবি

সরকারি ওষুধ চুরি করে বিক্রি করলে ১০ বছর জেল

ছবি

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে ৮০ শতাংশ পরিবার ‘ফ্যামিলি কার্ড’ থেকে বঞ্চিত হয়েছে: টিআইবির গবেষণা

ছবি

এক সপ্তাহের মধ্যে তেলের দাম সমন্বয় হবে

ছবি

সুইস ব্যাংকে অর্থপাচার : তথ্য না জানার কারণ জানতে চান হাইকোর্ট

ছবি

ফেইসবুক-গুগলে কত টাকার বিজ্ঞাপন, জানতে চায় সরকার

ছবি

বাংলাদেশ-ভারত প্রতিরক্ষা সংলাপ আজ

ছবি

এক কোটি পরিবারে কম দামে খাদ্য বিতরণের উদ্যোগ

ছবি

ডিএন‌সি‌সি ও রোটা‌রি ইন্টারন্যাশনাল যুব সমা‌জের জন্য কাজ কর‌বে

ছবি

প্রাথমিকের ১৬ শিক্ষার্থী পরীক্ষামূলক টিকা পাবে আজ

ছবি

দামবৃদ্ধি : সংকটে পাঠ্যবই মুদ্রণ কাজ

সবক্ষেত্রে ভুর্তকি দেয়া যায় না : মন্ত্রী তাজুল

ছবি

রাজধানীর গণপরিবহনে থাকছে না ওয়েবিল-চেকার

ছবি

আনারকলির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তির কথা ভাবছে মন্ত্রণালয়

ছবি

তেলের দাম বাড়লে সবকিছুর দামই বাড়ে: অর্থমন্ত্রী

ছবি

করোনা: একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৮

ছবি

সুইস ব্যাংকের কাছে তথ্য চায়নি বাংলাদেশ: রাষ্ট্রদূত নাথালি

ছবি

হঠাৎ সাগরে লঘুচাপ, জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ১৫ জেলায়

ছবি

আদিবাসীদের বিলুপ্ত করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে অভিযোগ সন্তু লারমার

ডেঙ্গুতে আরও ৫৩ জন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে

পরিকল্পনামন্ত্রী বললেন, অর্থের ঘাটতিতে কিছুটা অসুবিধায় আছি

ছবি

ঢামেকে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতির হুমকি

ছবি

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় আহত লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইসমাইল হোসেন মারা গেছেন

ছবি

সরকারের প্রতি টিআইবি : কর ফাঁকি ও অর্থপাচার রোধে ‘কমন রিপোর্টিং স্ট্যান্ডার্ড’ অবলম্বন করুন

ছবি

করোনায় ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩৯

ছবি

ফজিলাতুন নেছা মুজিব নারীদের জন্য অনুপ্রেরণা : স্পিকার

tab

জাতীয়

‘জটিল অঙ্কের’ হিসাব মেলাতেই জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি

নেতিবাচক প্রভাব পড়বে সব খাতে, অর্থনীতিবিদদের মত

রেজাউল করিম

শনিবার, ০৬ আগস্ট ২০২২

জটিল অঙ্কের হিসাব মেলাতে দেশে জ্বালানি তেলের দাম এক দফায় অনেক বাড়াতে হয়েছে বলে মনে করছেন দুজন অর্থনীতিবিদ। একদিকে অর্থ সংকট, আর আইএমএফের ঋণ পাওয়ার প্রস্তুতি, মূলত সে কারণেই দাম এত বেড়েছে বলে মনে করছেন তারা।

তবে এতে সব খাতের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলেই অনেকের ধারণা। নিম্নআয়ের মানুষ বেশি ভোগান্তিতে পড়বে বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা। কেউ কেউ বলছেন ‘এত বেশি’ মূল্যবৃদ্ধি ‘অযৌক্তিক’ এবং ‘ভুল রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত’।

গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর বলছেন, সরকার ‘বাধ্য হয়েই’ দাম বাড়িয়েছে। তিনি এই দাম বৃদ্ধিকে এক ঢিলে দুই পাখি মারার সঙ্গে তুলনা করেন।

আহসান এইচ মনসুর বলছেন, ‘এই মুহূর্তে বিপিসির কাছে টাকা নেই। তাই দাম না বাড়ালে নতুন তেল কিনতে পারবে না সরকার। তাই দাম বৃদ্ধির যৌক্তিকতা আছে বলতে হবে। অন্যদিকে আইএমএফের শর্ত পূরণ হওয়াও দরকার। দুইদিক থেকে চিন্তা করেই সরকার দাম বাড়িয়েছে।’

তবে কারো কারো মতে শুল্ক ‘সমন্বয় করে’ দাম বৃদ্ধি ‘সহনীয় পর্যায়ে’ রাখা যেত। গতকাল শুক্রবার রাতে দেশের জ্বালানি তেলের দাম ৪৩ থেকে ৫২ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। ডিজেল ও কেরোসিনের লিটার ৮০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১১৪ টাকা করা হয়েছে। অকটেন ৮৯ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩৫ আর পেট্রলের লিটার ৮৬ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৩০ টাকা।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান সংবাদকে বলেন, ‘এর প্রভাব উৎপাদক, ভোক্তা থেকে শুরু করে সব শ্রেণি-পেশার মানুষের ওপর পড়বে। তবে বেশি পড়বে নিম্নআয়ের মানুষের ওপর। কারণ বর্তমানে জীবন নির্বাহ করাই যাদের কষ্টকর, সেখানে ফের দাম বৃদ্ধি তাদের ভোগান্তিতে ফেলবে। দ্বিতীয়ত, আমাদের দেশে দাম সব পর্যায়ে বৈজ্ঞানিক উপায়ে বাড়ে না। আন্তর্জাতিক বাজারে যে হারে বাড়ে, দেশের বাজারে তার চেয়ে বেশি বাড়ে। সেদিকে নজর দিতে হবে। এই সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরা অযৌক্তিকভাবে বেশি দাম বাড়াবে।’

সরকারের এই সিদ্ধান্তকে ‘ভুল’ আখ্যায়িত করে তা আবার বিবেচনার আহ্বান জানান ভোক্তা অধিকার নিয়ে কাজ করা কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান। তিনি সংবাদকে বলেন, ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে একবারে এত বেশি দাম বেড়েছে কি না আমার জানা নেই। আন্তর্জাতিক বাজারে সম্প্রতি দাম কমেছে। আর বাংলাদেশে বাড়লো। আমাদের আশঙ্কা ছিল দাম বাড়বে, তবে সামান্য বাড়বে। কিন্তু যে হারে বেড়েছে, সেটা একেবারে অযৌক্তিক।’ এই দাম বৃদ্ধি রাজনৈতিকভাবেও ভুল সিদ্ধান্ত বলে মনে করেন গোলাম রহমান। তিনি বলেন, ‘এই ভুল সিদ্ধান্ত সরকারের বড় অর্জনগুলোকে ম্লান করে দেবে। এমনকি এই সিদ্ধান্তের কারণে দেশে যেকোন কিছু ঘটে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।’

বাংলাদেশের জ্বালানি খাত অনেকটাই আমদানিনির্ভর। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) সূত্রে জানা যায়, দেশে বছরে ৬৫ লাখ টন জ্বালানি তেল আমদানি হয়। তার মধ্যে বছরে ৪০ লাখ টন শুধু ডিজেলই আমদানি হয়। দেশে পরিবহন খাতের ৯০ শতাংশের বেশি যানবাহন জ্বালানি তেলের ওপর নির্ভরশীল। আবার বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতারও ৩৪ শতাংশ নির্ভর করে জ্বালানি তেলের ওপর।

মোস্তাফিজুর রহমান বলছেন, ‘আমরা যদি আগেই কিছু বিষয়ে লক্ষ্য রাখতাম, তাহলে আজ এই পরিস্থিতিতে পড়তে হতো না। আমদানি-নির্ভরতা কাটাতে যে জায়গাগুলো এক্সপ্লোর করা দরকার, সেগুলো করা হয়নি। আর জ্বালানিতে আমদানি শুল্কও তো আছে। আমরা শুল্ক সমন্বয় করেও দাম বৃদ্ধি সহনীয় পর্যায়ে রাখতে পারতাম। আমরা সেদিকে যাইনি।’

কেরোসিনের দাম বৃদ্ধি সরাসরি নিম্মআয়ের মানুষের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কেরোসিন খুব কম ও নি¤œআয়ের মানুষ ব্যবহার করে। সরকার এই তেলের দাম কম সমন্বয় করলে পারত। তাহলে এই শ্রেণীর মানুষ কিছুটা স্বস্তিতে থাকত।’

অর্থ সংকটের কারণে দাম বাড়াতে হচ্ছে। সরকারের রাজস্ব বাড়লে দাম এতটা সমন্বয় করতে হতো না বলে জানান তিনি। মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশের মূল সমস্যা রাজস্ব-জিডিপি রেশিও। এটি নিম্নআয়ের দেশেগুলোর চেয়েও কম, মাত্র ৯ শতাংশ। এটা যদি বাড়ানো যেত তাহলে সরকারের ভর্তুকি দেয়ার সক্ষমতাও বাড়ত। তখন আরও পলিসি ফ্লেক্সিবিলিটি হতো আমাদের।’

দাম বাড়ানোর সময়টিও খুব সংকটাপন্ন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের দাম এমন সময় বাড়াতে হলো যখন আন্তর্জাতিক বাজারেও বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়ছে। টাকার অবমূল্যায়নের কারণে সেই প্রভাব আরও বেশি পড়ছে দেশের বাজারে।’

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফের কাছে থেকে ঋণ নেয়ার জন্য চিঠি পাঠিয়েছে সরকার। সেই ঋণ পেতে সংস্থাটির কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। সেই শর্তগুলোর মধ্যে একটি হলো জ্বালানি ও কৃষি খাতে ভর্তুকি কমানো। এই দাম বৃদ্ধি আইএমএফের ঋণ পাওয়ার জন্য আগাম প্রস্তুতি জানিয়ে মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কিছুদিন পরই সরকার আইএমএফের সঙ্গে দর কষাকষিতে যাবে। এর আগাম প্রস্তুতি হিসেবেই একটা করা হয়েছে। তবে অন্যান্য পরিস্থিতি অনুযায়ী সময়টা ভালো হলো না।’

দাম বাড়ার কারণে জনগণের ভোগান্তি কমাতে কঠোর নজরদারির আহ্বান জানান আহসান এইচ মনসুর। ‘সরকার সংকটের কারণে দাম বাড়াতে বাধ্য হয়েছে। এখন এর প্রভাব যেন নায্যভাবে পড়ে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। যেমন পরিবহন খাত-সংশ্লিষ্টরা ভাড়া ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ বাড়ানোর পাঁয়তারা করছে। সেটা যেন না হয়। সর্বোচ ১০ থেকে ১৫ শতাংশ যেন বাড়ে।’

এর আগে গত বছরের নভেম্বরে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়িয়েছিল সরকার। চলতি বছরের ৫ জুন গ্যাসের দাম এক দফায় ২২ দশমিক ৭৮ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। আর বিদ্যুতের পাইকারি দাম বাড়ানো হয়েছিল সর্বশেষ ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে। তখন খুচরায়ও দাম বেড়েছিল।

back to top