alt

জাতীয়

নয় মাসের মাথায়

আবার বাড়লো বাস ভাড়া

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ০৬ আগস্ট ২০২২

গতকাল শুক্রবার রাতে হঠাৎ জ্বালানি তেলের দাম বাড়লো, পরদিনই দুপুর পর্যন্ত বন্ধ হয়ে গেলো নগরীর বাস চলাচল, চরম দুর্ভোগে পড়ে কর্মস্থলে গমনকারী সাধারণ মানুষ। পথে পথে অপেক্ষা, একটি বাস এলেই উপচেপড়া ভিড় -সংবাদ

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে ৯ মাসের মাথায় আবার বাড়ানো হয়েছে গণপরিবহনের ভাড়া। মহানগর পর্যায়ে ১৬ শতাংশ এবং দূরপাল্লার বাসে ২২ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর ফলে সিটি সার্ভিসে ৩৫ পয়সা ও দূরপাল্লার বাসে ৪০ পয়সা ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে প্রতি কিলোমিটার বাস ভাড়া ২ টাকা ১৫ পয়সা স্থলে ২ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া দূরপাল্লার বাসে এক টাকা ৮০ পয়সা স্থলে ২ টাকা ২০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। বাসে সর্বনি¤œ ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা, মিনিবাসে ৮ টাকা। যা আজ থেকে কার্যকর করা হবে।

শনিবার (৬ আগস্ট) রাজধানীর বনানীর বিআরটিএ কার্যালয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে গত বছর ৭ নভেম্বর দূরপাল্লার বাসে ২৭ শতাংশ ও মহানগরী পর্যায়ে বাসে ২৬ দশমিক ৫০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়। এছাড়া যাত্রীবাহী লঞ্চের ভাড়া ৩৫ দশমিক ২৯ শতাংশ বাড়ানো হয়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে সরকার-নির্ধারিত এই ভাড়া বাস ও লঞ্চ মালিকরা মানেনি বলে জানান যাত্রীরা।

এর আগে ২০১৬ সালে দূরপাল্লায় ডিজেলচালিত বাস ও মিনিবাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয় এক টাকা ৪২ পয়সা। তেল ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে এ পর্যন্ত ৮-১০ বার গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়। কিন্তু কোন সময়ই সরকার-নির্ধারিত এই ভাড়া মানতে দেখা যায়নি গণপরিবহনে। তাই বাসের ভাড়া বৃদ্ধির পর তা কঠোর মনিটরিংয়ের পরামর্শ গণপরিবহন বিশেষজ্ঞদের।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির ফলে গত বছর ৭ নভেম্বর আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার বাসের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে এক টাকা ৪২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে এক টাকা ৮০ পয়সা করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে বিভিন্ন রুটের বাসে ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে এক টাকা ৭০ পয়সার থেকে বেড়িয়ে ২ টাকা ১৫ পয়সা করা হয়। মিনিবাসের ক্ষেত্রে এক টাকা ৬০ পয়সা থেকে বেড়িয়ে ২ টাকা ০৫ পয়সা। বাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৭ টাকার স্থলে ১০ টাকা এবং মিনিবাসে ৫ টাকার স্থলে ৮ টাকা নির্ধারণ করা হয়। যা গত বছর ৮ নভেম্বর থেকে কার্যকর করা হয়।

৩২ বছরে ৮ বার বৃদ্ধি হয় গণপরিবহন ভাড়া

বিআরটিএ সূত্র জানায়, ১৯৯০ সালে বাসের চেয়ে মিনিবাসের ভাড়া বেশি ছিল। তখন প্রতি কিলোমিটার বাসের ভাড়া ছিলো ৩২ পয়সা। আর মিনিবাসের ভাড়া ছিল ৩৫ পয়সা। এখনও মিনিবাসের চেয়ে বাসের ভাড়া বেশি নেয়া হচ্ছে। ২০০৮ সালের ২২ জুলাই ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে পৃথকভাবে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়। তখনই মিনিবাসের চেয়ে বাসের ভাড়া বেশি নির্ধারণ করা হয়। তখন বাসের জন্য এক টাকা ২০ পয়সা ও মিনিবাসের জন্য এক টাকা ১০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। তখনই মালিক সমিতির সম্মতিতে বাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। এরপর ২০১১ সালের ১৮ মে গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে আবার বাস ও মিনিবাসের ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করা হয়। তখন বাসের জন্য এক টাকা ৫৫ পয়সা ও মিনিবাসের জন্য এক টাকা ৪৫ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। সে সময় বাস ও মিনিবাসের জন্য সর্বনিম্ন ভাড়া ৭ টাকা ও ৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে মালিক সমিতির আপত্তি ছিল বলে বিআরটিএ সূত্র জানায়।

এরপর ২০১১ সালে গ্যাসের দাম ২০ শতাংশ বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে বাস ও মিনিবাসের ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করা হয়। তখন বাসের জন্য এক টাকা ৬০ পয়সা ও মিনিবাসের জন্য এক টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। তখনো বাস ও মিনিবাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৭ টাকা ও ৫ টাকা অপরিবর্তিত থাকে।

২০১৫ সালে নগর পরিবহনে বাসের ভাড়া প্রতি কিলেমিটারে এক টাকা ৭০ পয়সা এবং মিনিবাসের জন্য এক টাকা ৬০ পয়সা নির্ধারণ করে দেয় সরকার। আর ২০১৬ সালে দূরপাল্লায় ডিজেলচালিত বাস ও মিনিবাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয় এক টাকা ৪২ পয়সা। কিন্তু কোন সময়ই সরকার নির্ধারিত এই ভাড়া মানতে দেখা যায়নি গণপরিবহনে। তাই বাসের ভাড়া বৃদ্ধির পর তা কঠোর মনিটরিংয়ের পরামর্শ গণপরিবহন বিশেষজ্ঞদের।

নির্ধারিত ভাড়া মানে না গণপরিবহন চালকরা

গণপরিবহনে সরকার নির্ধারিত ভাড়া আদায়ের নিয়ম মানে না কেউ। এক্ষেত্রে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কোন নিয়ন্ত্রণ নেই। রাজধানীতে চলাচলরত লেগুনা, বাস, মিনিবাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ সব গণপরিবহনে ভাড়া ইচ্ছেমতো আদায় করা হয় বলে যাত্রীরা জানান।

একই রুটের বিভিন্ন বাস-মিনিবাস ভাড়া নেয়া হয় বিভিন্ন রকম। এসব বাস বিরতিহীন, গেটলক, সিটিং সার্ভিস ও কাউন্টার সার্ভিসসহ নানা নামে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হতো। এখন ওয়েবিল নামে চেয়াকেরর কথা বলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয় বলে যাত্রীরা জানান।

যাত্রীকল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে বাস-ট্রাক ও লঞ্চের মালিকেরা এই বর্ধিত মূল্যের কয়েকগুণ বাড়তি ভাড়া লুটে নেয়ার জন্য পরিবহন ধর্মঘটের নামে জনগণকে জিম্মি করে। বাস ও লঞ্চ মালিকদের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে সরকার তাদের চাহিদা অনুযায়ী একচেটিয়া ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে।’ সংকটাপন্ন যাত্রী সাধারণকে সঙ্গে নিয়ে বর্ধিত ভাড়া প্রতিহত করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

আট বছর হাজত বাসে, কাশ্মির থেকে ৮ বাংলাদেশীকে হস্তান্তর

সাপ্তাহিক ছুটি কোন শিল্পাঞ্চলে কবে

ছবি

সুইস ব্যাংকের কাছে অর্থ পাচারকারীদের তথ্য চেয়েছে কিনা জানতে চায় হাইকোর্ট

ছবি

সুইস ব্যাংক নিয়ে রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য মিথ্যা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ছবি

নৌপথে পণ্য পরিবহনে ভাড়া বাড়ল ১৫-২২ শতাংশ

ছবি

শিল্পাঞ্চলে এলাকাভিত্তিক সাপ্তাহিক ছুটির প্রজ্ঞাপন জারি

ছবি

দুর্যোগে পড়ালেখায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত সুনামগঞ্জের শিশুরা

ছবি

করোনা: একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৪

ছবি

লঞ্চ ভাড়া বাড়াতে গঠিত ওয়ার্কিং কমিটির প্রস্তাব জমা

ছবি

সংসদের ১৯তম অধিবেশন শুরু ২৮ আগস্ট

ছবি

সরকারি ওষুধ চুরি করে বিক্রি করলে ১০ বছর জেল

ছবি

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে ৮০ শতাংশ পরিবার ‘ফ্যামিলি কার্ড’ থেকে বঞ্চিত হয়েছে: টিআইবির গবেষণা

ছবি

এক সপ্তাহের মধ্যে তেলের দাম সমন্বয় হবে

ছবি

সুইস ব্যাংকে অর্থপাচার : তথ্য না জানার কারণ জানতে চান হাইকোর্ট

ছবি

ফেইসবুক-গুগলে কত টাকার বিজ্ঞাপন, জানতে চায় সরকার

ছবি

বাংলাদেশ-ভারত প্রতিরক্ষা সংলাপ আজ

ছবি

এক কোটি পরিবারে কম দামে খাদ্য বিতরণের উদ্যোগ

ছবি

ডিএন‌সি‌সি ও রোটা‌রি ইন্টারন্যাশনাল যুব সমা‌জের জন্য কাজ কর‌বে

ছবি

প্রাথমিকের ১৬ শিক্ষার্থী পরীক্ষামূলক টিকা পাবে আজ

ছবি

দামবৃদ্ধি : সংকটে পাঠ্যবই মুদ্রণ কাজ

সবক্ষেত্রে ভুর্তকি দেয়া যায় না : মন্ত্রী তাজুল

ছবি

রাজধানীর গণপরিবহনে থাকছে না ওয়েবিল-চেকার

ছবি

আনারকলির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তির কথা ভাবছে মন্ত্রণালয়

ছবি

তেলের দাম বাড়লে সবকিছুর দামই বাড়ে: অর্থমন্ত্রী

ছবি

করোনা: একজনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৯৮

ছবি

সুইস ব্যাংকের কাছে তথ্য চায়নি বাংলাদেশ: রাষ্ট্রদূত নাথালি

ছবি

হঠাৎ সাগরে লঘুচাপ, জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা ১৫ জেলায়

ছবি

আদিবাসীদের বিলুপ্ত করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে অভিযোগ সন্তু লারমার

ডেঙ্গুতে আরও ৫৩ জন আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে

পরিকল্পনামন্ত্রী বললেন, অর্থের ঘাটতিতে কিছুটা অসুবিধায় আছি

ছবি

ঢামেকে ইন্টার্ন চিকিৎসকদের কর্মবিরতির হুমকি

ছবি

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় আহত লেফটেন্যান্ট কর্নেল ইসমাইল হোসেন মারা গেছেন

ছবি

সরকারের প্রতি টিআইবি : কর ফাঁকি ও অর্থপাচার রোধে ‘কমন রিপোর্টিং স্ট্যান্ডার্ড’ অবলম্বন করুন

ছবি

করোনায় ১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩৯

ছবি

ফজিলাতুন নেছা মুজিব নারীদের জন্য অনুপ্রেরণা : স্পিকার

tab

জাতীয়

নয় মাসের মাথায়

আবার বাড়লো বাস ভাড়া

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

গতকাল শুক্রবার রাতে হঠাৎ জ্বালানি তেলের দাম বাড়লো, পরদিনই দুপুর পর্যন্ত বন্ধ হয়ে গেলো নগরীর বাস চলাচল, চরম দুর্ভোগে পড়ে কর্মস্থলে গমনকারী সাধারণ মানুষ। পথে পথে অপেক্ষা, একটি বাস এলেই উপচেপড়া ভিড় -সংবাদ

শনিবার, ০৬ আগস্ট ২০২২

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধিতে ৯ মাসের মাথায় আবার বাড়ানো হয়েছে গণপরিবহনের ভাড়া। মহানগর পর্যায়ে ১৬ শতাংশ এবং দূরপাল্লার বাসে ২২ শতাংশ ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর ফলে সিটি সার্ভিসে ৩৫ পয়সা ও দূরপাল্লার বাসে ৪০ পয়সা ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে প্রতি কিলোমিটার বাস ভাড়া ২ টাকা ১৫ পয়সা স্থলে ২ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া দূরপাল্লার বাসে এক টাকা ৮০ পয়সা স্থলে ২ টাকা ২০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে। বাসে সর্বনি¤œ ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা, মিনিবাসে ৮ টাকা। যা আজ থেকে কার্যকর করা হবে।

শনিবার (৬ আগস্ট) রাজধানীর বনানীর বিআরটিএ কার্যালয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে গত বছর ৭ নভেম্বর দূরপাল্লার বাসে ২৭ শতাংশ ও মহানগরী পর্যায়ে বাসে ২৬ দশমিক ৫০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়। এছাড়া যাত্রীবাহী লঞ্চের ভাড়া ৩৫ দশমিক ২৯ শতাংশ বাড়ানো হয়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে সরকার-নির্ধারিত এই ভাড়া বাস ও লঞ্চ মালিকরা মানেনি বলে জানান যাত্রীরা।

এর আগে ২০১৬ সালে দূরপাল্লায় ডিজেলচালিত বাস ও মিনিবাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয় এক টাকা ৪২ পয়সা। তেল ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে এ পর্যন্ত ৮-১০ বার গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়। কিন্তু কোন সময়ই সরকার-নির্ধারিত এই ভাড়া মানতে দেখা যায়নি গণপরিবহনে। তাই বাসের ভাড়া বৃদ্ধির পর তা কঠোর মনিটরিংয়ের পরামর্শ গণপরিবহন বিশেষজ্ঞদের।

ডিজেলের দাম বৃদ্ধির ফলে গত বছর ৭ নভেম্বর আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার বাসের ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে এক টাকা ৪২ পয়সা থেকে বাড়িয়ে এক টাকা ৮০ পয়সা করা হয়েছে। এছাড়া ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে বিভিন্ন রুটের বাসে ভাড়া প্রতি কিলোমিটারে এক টাকা ৭০ পয়সার থেকে বেড়িয়ে ২ টাকা ১৫ পয়সা করা হয়। মিনিবাসের ক্ষেত্রে এক টাকা ৬০ পয়সা থেকে বেড়িয়ে ২ টাকা ০৫ পয়সা। বাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৭ টাকার স্থলে ১০ টাকা এবং মিনিবাসে ৫ টাকার স্থলে ৮ টাকা নির্ধারণ করা হয়। যা গত বছর ৮ নভেম্বর থেকে কার্যকর করা হয়।

৩২ বছরে ৮ বার বৃদ্ধি হয় গণপরিবহন ভাড়া

বিআরটিএ সূত্র জানায়, ১৯৯০ সালে বাসের চেয়ে মিনিবাসের ভাড়া বেশি ছিল। তখন প্রতি কিলোমিটার বাসের ভাড়া ছিলো ৩২ পয়সা। আর মিনিবাসের ভাড়া ছিল ৩৫ পয়সা। এখনও মিনিবাসের চেয়ে বাসের ভাড়া বেশি নেয়া হচ্ছে। ২০০৮ সালের ২২ জুলাই ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে পৃথকভাবে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়। তখনই মিনিবাসের চেয়ে বাসের ভাড়া বেশি নির্ধারণ করা হয়। তখন বাসের জন্য এক টাকা ২০ পয়সা ও মিনিবাসের জন্য এক টাকা ১০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। তখনই মালিক সমিতির সম্মতিতে বাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। এরপর ২০১১ সালের ১৮ মে গ্যাসের দাম বৃদ্ধিতে আবার বাস ও মিনিবাসের ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করা হয়। তখন বাসের জন্য এক টাকা ৫৫ পয়সা ও মিনিবাসের জন্য এক টাকা ৪৫ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। সে সময় বাস ও মিনিবাসের জন্য সর্বনিম্ন ভাড়া ৭ টাকা ও ৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। তবে এ ক্ষেত্রে মালিক সমিতির আপত্তি ছিল বলে বিআরটিএ সূত্র জানায়।

এরপর ২০১১ সালে গ্যাসের দাম ২০ শতাংশ বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে বাস ও মিনিবাসের ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করা হয়। তখন বাসের জন্য এক টাকা ৬০ পয়সা ও মিনিবাসের জন্য এক টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়। তখনো বাস ও মিনিবাসের সর্বনিম্ন ভাড়া ৭ টাকা ও ৫ টাকা অপরিবর্তিত থাকে।

২০১৫ সালে নগর পরিবহনে বাসের ভাড়া প্রতি কিলেমিটারে এক টাকা ৭০ পয়সা এবং মিনিবাসের জন্য এক টাকা ৬০ পয়সা নির্ধারণ করে দেয় সরকার। আর ২০১৬ সালে দূরপাল্লায় ডিজেলচালিত বাস ও মিনিবাসের ভাড়া নির্ধারণ করা হয় এক টাকা ৪২ পয়সা। কিন্তু কোন সময়ই সরকার নির্ধারিত এই ভাড়া মানতে দেখা যায়নি গণপরিবহনে। তাই বাসের ভাড়া বৃদ্ধির পর তা কঠোর মনিটরিংয়ের পরামর্শ গণপরিবহন বিশেষজ্ঞদের।

নির্ধারিত ভাড়া মানে না গণপরিবহন চালকরা

গণপরিবহনে সরকার নির্ধারিত ভাড়া আদায়ের নিয়ম মানে না কেউ। এক্ষেত্রে সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) কোন নিয়ন্ত্রণ নেই। রাজধানীতে চলাচলরত লেগুনা, বাস, মিনিবাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ সব গণপরিবহনে ভাড়া ইচ্ছেমতো আদায় করা হয় বলে যাত্রীরা জানান।

একই রুটের বিভিন্ন বাস-মিনিবাস ভাড়া নেয়া হয় বিভিন্ন রকম। এসব বাস বিরতিহীন, গেটলক, সিটিং সার্ভিস ও কাউন্টার সার্ভিসসহ নানা নামে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হতো। এখন ওয়েবিল নামে চেয়াকেরর কথা বলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয় বলে যাত্রীরা জানান।

যাত্রীকল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে বাস-ট্রাক ও লঞ্চের মালিকেরা এই বর্ধিত মূল্যের কয়েকগুণ বাড়তি ভাড়া লুটে নেয়ার জন্য পরিবহন ধর্মঘটের নামে জনগণকে জিম্মি করে। বাস ও লঞ্চ মালিকদের পাতানো ফাঁদে পা দিয়ে সরকার তাদের চাহিদা অনুযায়ী একচেটিয়া ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে।’ সংকটাপন্ন যাত্রী সাধারণকে সঙ্গে নিয়ে বর্ধিত ভাড়া প্রতিহত করা হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি।

back to top