alt

জাতীয়

অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে ৮০ শতাংশ পরিবার ‘ফ্যামিলি কার্ড’ থেকে বঞ্চিত হয়েছে: টিআইবির গবেষণা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

যারা ইতোপূর্বে আড়াই হাজার টাকা নগদ সহায়তা পেয়েছিলেন তাদের ৪০ শতাংশ ফ্যামেলি কার্ড পাননি। আর তাদের ৮০ শতাংশ অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে বাদ দেয়া হয়েছে বলে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) এক গবেষণা প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF%20-%20Copy.jpg

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে টিসিবির ‘ফ্যামিলি কার্ড কার্যক্রমে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হয়। সংস্থাটির রিসার্চ ফেলো মোহাম্মদ নূরে আলম গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন। এ সময় টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন সময়কালে গবেষণার তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। গবেষণার জরিট কার্যক্রমটি ১৮ থেকে ২৬ এপ্রিল তারিখের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

টিআইবির প্রতিবেদন বলছে, ‘কার্ড না পাওয়ার উল্লেখযোগ্য কারণ হচ্ছে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে স্বচ্ছতার ঘাটতি বা তথ্যপ্রচারে ঘাটতি। নগদ সহায়তাপ্রাপ্ত সকল উপকারভোগী যে এই কার্ড পাওয়ার কথা এ বিষয়ে তাদের কোনো ধারণা ছিল না, এমনকি ফ্যামিলি কার্ড কার্যক্রম সম্পর্কে তাদের কোনো ধারণা ছিল না। এছাড়া তালিকা থেকে বাদ পড়ার অন্যান্য কারণ হিসেবে কারও সুপারিশ বা তদবির জোগাড় করতে না পারা, রাজনৈতিক বিবেচনায় স্বচ্ছল ব্যক্তিদের তালিকাভুক্তকরণ, একই পরিবারে একাধিক কার্ড প্রদান, ছবি পরিবর্তন করে তালিকাভুক্ত ব্যক্তিদের কার্ড অন্যদের দিয়ে দেওয়া, ঘুষ না দেওয়া কারণে তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF.jpg

প্রতিবেদন বলছে, ‘২,৫০০ টাকা নগদ সহায়তা’ প্রাপ্ত উপকারভোগীর সকল পরিবার এই কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কথা ছিল। তবে সংশ্লিষ্ট একটি দপ্তর থেকে জানানো হয় যে, নগদ সহায়তা কর্মসূচির তালিকা থেকে বিভিন্ন পেশাজীবী (‘লকডাউনে’ কর্মহীন হয়ে পড়া পরিবহন শ্রমিক, পেশাজীবী ইত্যাদি) ৮ লাখ ৫০ হাজার পরিবারকে বাদ দিয়ে এই তালিকার ৩০ লাখ পরিবারকে ফ্যামিলি কার্ড প্রদান করা হয়েছে। কোন বিবেচনায় ও প্রক্রিয়ায় এই সাড়ে আট লাখ পরিবারকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা যাচাইপূর্বক তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে কিনা তা জানা যায়নি। ফ্যামিলি কার্ড সংশ্লিষ্ট প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্রেও এ ধরনের কোনো নির্দেশনা লক্ষ করা যায়নি।’

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘একদিকে পুরনো তালিকা থেকে সাময়িকভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন পেশার দরিদ্র পরিবারকে বাদ দেওয়া হচ্ছে আবার অন্যদিকে নতুন তালিকা প্রণয়নে একই ধরনের পেশাজীবীদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া নতুন করে প্রণীত তালিকায় গ্রাম পুলিশ, আনসার সদস্য, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী, শিক্ষক, ল্যাব টেকনিশিয়ান, চিকিৎসক, পল্লি চিকিৎসক, সাংবাদিক ইত্যাদি ধরনের স্বচ্ছল ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF%20-%20Copy%20-%20Copy.jpg

‘এছাড়া সরকারি পরিপত্রে ফ্যামিলি কার্ডের উপকারভোগীর ডাটাবেজ প্রণয়নের সময় দরিদ্র, অসহায়, স্বল্প আয়ের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দিতে হবে এমন নির্দেশনা দেওয়া সত্ত্বেও দুর্গম এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠী বিশেষত নারী ও আদিবাসী যাদের সাথে জনপ্রতিনিধিদের যোগাযোগ কম এমন ব্যক্তিদের অনেকে বঞ্চিত হয়েছে বলে উপকারভোগী জরিপ ও সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে তথ্য পাওয়া যায়।’

গবেষণা প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘ফ্যামিলি কার্ডপ্রাপ্ত পরিবারগুলো নির্ধারিত বিক্রয় কেন্দ্র/পয়েন্ট থেকে পণ্য কিনতে বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম-দুর্নীতি ও হয়রানির শিকার হয়। জরিপে ১৩.৭ শতাংশ উপকারভোগী টিসিবি’র ট্রাক বা ডিলারের কাছ থেকে পণ্য কেনার সময় অনিয়ম-দুর্নীতির শিকার হয়েছে, এক্ষেত্রে নারী উপকারভোগীদের ১৩.৮ শতাংশ এবং পুরুষ উপকারভোগীদের ১৩.৭ শতাংশ। অপরদিকে গ্রামাঞ্চলের উপকারভোগীদের ক্ষেত্রে ১৪.৩ শতাংশ এবং শহরাঞ্চলের উপকারভোগীদের ক্ষেত্রে ১১.৫ শতাংশ টিসিবি’র পণ্য ক্রয়ে অনিয়ম-দুর্নীতির শিকার হয়। কিছুক্ষেত্রে পণ্য ক্রয়ের সময় ডিলার/বিক্রয়কর্মী নিয়ম-বহির্ভূতভাবে প্যাকেজ মূল্যের অতিরিক্ত ৪০-৫০ টাকা বেশি আদায় করেছে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF%20-%20Copy%20-%20Copy%20-%20Copy.jpg

গবেষণায় টিআইবির সার্বিক পর্যবেক্ষণে বলছে, ‘গবেষণা প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণে নি¤œ আয়ের পরিবারগুলো ফ্যামিলি কার্ড প্রাপ্তি এবং সাশ্রয়ীমূল্যে পণ্য ক্রয়ে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুশাসনের ঘাটতি পরিলক্ষিত হয়েছে। ফ্যামিলি কার্ড কর্মসূচি জনস্বার্থে গৃহীত সরকারের একটি কর্মসূচি; সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহের সক্ষমতা যাচাইপূর্বক যথাযথ প্রাতিষ্ঠানিক প্রস্তুতি না নিয়েই দ্রুত এ ধরনের কর্মসূচি গ্রহণের ফলে বিভিন্ন পর্যায়ে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ পরিলক্ষিত হয়েছে। উপকারভোগীর তালিকাভুক্তি ও পণ্য ক্রয়ে স্বচ্ছতার ঘাটতি ও অনিয়ম-দুর্নীতির ফলে একদিকে প্রকৃত উপকারভোগীদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ ফ্যামিলি কার্ড তালিকা থেকে বাদ পড়ে গিয়েছে, অন্যদিকে উপকারভোগীদের চাহিদা, পণ্য ক্রয়ের সামর্থ্য, এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রবেশগম্যতা ও অন্তর্ভুক্তির বিষয়গুলো যথাযথভাবে বিবেচনা না করায় দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে এই ইতিবাচক উদ্যোগের সুফল যথাযথভাবে পৌঁছাচ্ছে না, যা এই কর্মসূচির উদ্দেশ্যকে ব্যাহত করেছে। তথ্য প্রকাশ ও প্রচারে ঘাটতি থাকার কারণে লক্ষিত উপকারভোগীদের উল্লেখযোগ্য অংশ এই কার্যক্রমের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে এবং একই সাথে দুর্নীতির শিকার হওয়ার ঝুঁকি সৃষ্টি করেছে। তাছাড়া ফ্যামিলি কার্ড কর্মসূচিতে কার্যকর অভিযোগ নিরসন ব্যবস্থা না থাকায় দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের জবাবদিহির আওতায় আনা সম্ভব হয়নি।’

প্রতিবেদনে বেশকিছু সুপারিশ করা হয়েছে-

ক. উপকারভোগী তালিকাভুক্তকরণ ও কার্ড বিতরণ

১. জনপ্রতিনিধি কর্তৃক উপকারভোগীদের প্রাথমিক তালিকা তৈরির পর ওয়ার্ড সভার মাধ্যমে স্থানীয় জনগণের মতামতের ভিত্তিতে তালিকা চূড়ান্ত করতে হবে; এক্ষেত্রে নারী, প্রতিবন্ধিতাসহ ব্যক্তি, দলিত, আদিবাসী, প্রভৃতি প্রান্তিক ও দুর্গম এলাকার জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

২. উপকারভোগীর চূড়ান্ত তালিকা স্থানীয় পর্যায়ে (ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা সিটি কর্পোরেশন) প্রকাশের ব্যবস্থা করতে হবে। সারাদেশ থেকে সংগৃহীত মোট উপকারভোগীর তালিকা মন্ত্রণালয়/টিসিবি’র ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে।

৩. শুধু দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মাধ্যমে ফ্যামিলি কার্ড বিতরণ করতে হবে এবং বিতরণের সময়, তারিখ ও স্থান ইত্যাদি তথ্য সকল পর্যায়ে প্রচারের ব্যবস্থা করতে হবে।

৪. বিনামূল্যে তালিকাভুক্তি ও কার্ড বিতরণে অর্থ লেনদেন না করার বিষয়ে উপকারভোগীদের সচেতন করতে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের সচেতনতামূলক কার্যক্রম (যেমন: এসএমএস প্রদান, ফ্যামিলি কার্ডে এধরনের তথ্য মুদ্রণ করে দেওয়া ইত্যাদি) পরিচালনা করতে হবে। এ ধরনের ঘটনা সংঘটিত হলে কোথায় অভিযোগ জানাতে হবে তা প্রচার করতে হবে।

খ. সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য বিক্রয় ও তদারকি

৫. উপকারভোগীদের চাহিদা ও সামর্থ্য যাচাইয়ের মাধ্যমে প্যাকেজে পণ্যের ধরন, পরিমাণ ও মূল্য নির্ধারণ করতে হবে; প্যাকেজভিত্তিক পণ্য বিক্রয়ের পাশাপাশি অতি দরিদ্র ব্যক্তি যাদের প্যাকেজের সকল পণ্য একসাথে ক্রয়ের সক্ষমতা নেই তাদের চাহিদা ও সামর্থ্য অনুযায়ী স্বল্প পরিমাণে পণ্য বিক্রয়ের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

৬. পণ্যের গুণগত মান, পরিমাণ, কেন্দ্র/পয়েন্ট খোলা থাকার সময় এবং অবস্থান পরিবীক্ষণে ‘ট্যাগ টিম’-এর কার্যক্রম জোরদার করতে হবে।

৭. বিক্রয় কেন্দ্রের/পয়েন্টের সংখ্যা বাড়াতে হবে এবং এসব কেন্দ্র লক্ষিত জনগোষ্ঠীর কাছাকাছি নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

গ. স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি

৮. প্যাকেজে পণ্যের ধরন, পরিমাণ, নির্ধারিত মূল্য, ইত্যাদি তথ্য বিক্রয়কেন্দ্রে প্রদর্শন করতে হবে; অভিযোগ দায়ের করার সুবিধার্থে টিসিবি/সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রপাপ্ত ব্যক্তির হটলাইন নম্বর/দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর, ইত্যাদি প্রদর্শন করতে হবে।

৯. তালিকাভুক্তি ও সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য বিক্রয় করার ক্ষেত্রে অনিয়ম-দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. উপকারভোগীর প্রণীত তালিকা ও তালিকা প্রস্তুত প্রক্রিয়া নিয়ে একটি স্বাধীন নিরীক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে, এবং ইতিমধ্যে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত স্বচ্ছল পরিবারগুলোকে বাদ দিতে হবে।

ছবি

টুঙ্গিপাড়ায় প্রধানমন্ত্রী, বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা

ছবি

র‌্যাবে নিষেধাজ্ঞা : যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

ইলিশ রপ্তানিতে আয় ১৪১ কোটি টাকা : মৎস্যমন্ত্রী

ছবি

মাইজিপি অ্যাপের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানার সুযোগ

ছবি

বাংলাদেশ সন্ত্রাস দমন করায় যুক্তরাষ্ট্র নাখোশ? প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

ছবি

বেসরকারি হাসপাতালের ফি নির্ধারণ করছে সরকার: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ছবি

আন্ডার ফ্রিকোয়েন্সির কারণে বিদ্যুৎ বিপর্যয়: নসরুল হামিদ

ছবি

করোনা: শনাক্ত কমে ৪১০, ঢাকায় ২৮৪

ছবি

বিদায় নেওয়ার জন্য আমি প্রস্তুত: শেখ হাসিনা

ছবি

সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী

ছবি

হজের প্রাক-নিবন্ধনে মানতে হবে যে নিয়ম

ছবি

ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞায় বিমান বাহিনীও দায়িত্ব পালন করবে

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন বিকেলে

ছবি

বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঠেকাতে প্রয়োজন স্মার্ট গ্রিড

জাতিসংঘে একাত্তরে গণহত্যার স্বীকৃতি দাবি

ছবি

বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী নিহতের তদন্ত চান জাতিসংঘ মহাসচিব

ছবি

পদ্মা সেতু হয়ে শুক্রবার টুঙ্গিপাড়া যাবেন রাষ্ট্রপতি

ছবি

মিনিকেট নামে চাল বিক্রি করা যাবে না: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

ছবি

করোনা: একদিনে শনাক্ত ৫৪৯, মৃত্যু ২

ছবি

দেশে বুস্টার ডোজ পেলেন সাড়ে পাঁচ কোটির বেশি মানুষ

ছবি

বিশ্ব শিক্ষক দিবস আজ

ছবি

বিজয়া দশমী আজ

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন আগামীকাল

গ্রিড বিপর্যয়ের কারণ খুজতে তদন্ত কমিটি : বিদ্যুৎ বিভাগের দুঃখ প্রকাশ

ছবি

বিদ্যুৎবিহীন ঢাকাসহ দেশের বড় অংশ

সমতা নিশ্চিতে কন্যাশিশুর অধিকার রক্ষা করতে হবে: ফজিলাতুন নেসা

জাপান সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

দুই বাসের রেষারেষি: প্রাণ হারান যুবলীগ নেতা ফারুক

ছবি

‘এই নারী প্রকৃতই একজন শক্তি’

বিশ্ব শিক্ষক দিবস কাল

এ মাসে ঢাকা আসবেন ব্রুনাইয়ের সুলতান

সরকারি সফরে সুইজারল্যান্ড গেলেন সেনাবাহিনী প্রধান

বাংলাদেশী ৩ শান্তিরক্ষী নিহত, আহত ১

ছবি

করোনা: নতুন শনাক্ত ৬৫৭, মৃত্যু ১

ছবি

বিদ্যুৎ বিপর্যয়: এটিএম সেবা বিঘ্নে ভোগান্তি

ছবি

বিদ্যুৎ বিপর্যয়: ডিজেলের জন্য ফিলিং স্টেশনগুলোতে দীর্ঘ লাইন

tab

জাতীয়

অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে ৮০ শতাংশ পরিবার ‘ফ্যামিলি কার্ড’ থেকে বঞ্চিত হয়েছে: টিআইবির গবেষণা

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

যারা ইতোপূর্বে আড়াই হাজার টাকা নগদ সহায়তা পেয়েছিলেন তাদের ৪০ শতাংশ ফ্যামেলি কার্ড পাননি। আর তাদের ৮০ শতাংশ অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে বাদ দেয়া হয়েছে বলে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) এক গবেষণা প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF%20-%20Copy.jpg

বৃহস্পতিবার (১১ আগস্ট) ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে টিসিবির ‘ফ্যামিলি কার্ড কার্যক্রমে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনটি তুলে ধরা হয়। সংস্থাটির রিসার্চ ফেলো মোহাম্মদ নূরে আলম গবেষণা প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন। এ সময় টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুন সময়কালে গবেষণার তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। গবেষণার জরিট কার্যক্রমটি ১৮ থেকে ২৬ এপ্রিল তারিখের মধ্যে সম্পন্ন করা হয়।

টিআইবির প্রতিবেদন বলছে, ‘কার্ড না পাওয়ার উল্লেখযোগ্য কারণ হচ্ছে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে স্বচ্ছতার ঘাটতি বা তথ্যপ্রচারে ঘাটতি। নগদ সহায়তাপ্রাপ্ত সকল উপকারভোগী যে এই কার্ড পাওয়ার কথা এ বিষয়ে তাদের কোনো ধারণা ছিল না, এমনকি ফ্যামিলি কার্ড কার্যক্রম সম্পর্কে তাদের কোনো ধারণা ছিল না। এছাড়া তালিকা থেকে বাদ পড়ার অন্যান্য কারণ হিসেবে কারও সুপারিশ বা তদবির জোগাড় করতে না পারা, রাজনৈতিক বিবেচনায় স্বচ্ছল ব্যক্তিদের তালিকাভুক্তকরণ, একই পরিবারে একাধিক কার্ড প্রদান, ছবি পরিবর্তন করে তালিকাভুক্ত ব্যক্তিদের কার্ড অন্যদের দিয়ে দেওয়া, ঘুষ না দেওয়া কারণে তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF.jpg

প্রতিবেদন বলছে, ‘২,৫০০ টাকা নগদ সহায়তা’ প্রাপ্ত উপকারভোগীর সকল পরিবার এই কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত হওয়ার কথা ছিল। তবে সংশ্লিষ্ট একটি দপ্তর থেকে জানানো হয় যে, নগদ সহায়তা কর্মসূচির তালিকা থেকে বিভিন্ন পেশাজীবী (‘লকডাউনে’ কর্মহীন হয়ে পড়া পরিবহন শ্রমিক, পেশাজীবী ইত্যাদি) ৮ লাখ ৫০ হাজার পরিবারকে বাদ দিয়ে এই তালিকার ৩০ লাখ পরিবারকে ফ্যামিলি কার্ড প্রদান করা হয়েছে। কোন বিবেচনায় ও প্রক্রিয়ায় এই সাড়ে আট লাখ পরিবারকে বাদ দেওয়া হয়েছে এবং বর্তমান অর্থনৈতিক অবস্থা যাচাইপূর্বক তাদের বাদ দেওয়া হয়েছে কিনা তা জানা যায়নি। ফ্যামিলি কার্ড সংশ্লিষ্ট প্রজ্ঞাপন ও পরিপত্রেও এ ধরনের কোনো নির্দেশনা লক্ষ করা যায়নি।’

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘একদিকে পুরনো তালিকা থেকে সাময়িকভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন পেশার দরিদ্র পরিবারকে বাদ দেওয়া হচ্ছে আবার অন্যদিকে নতুন তালিকা প্রণয়নে একই ধরনের পেশাজীবীদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া নতুন করে প্রণীত তালিকায় গ্রাম পুলিশ, আনসার সদস্য, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবী, শিক্ষক, ল্যাব টেকনিশিয়ান, চিকিৎসক, পল্লি চিকিৎসক, সাংবাদিক ইত্যাদি ধরনের স্বচ্ছল ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF%20-%20Copy%20-%20Copy.jpg

‘এছাড়া সরকারি পরিপত্রে ফ্যামিলি কার্ডের উপকারভোগীর ডাটাবেজ প্রণয়নের সময় দরিদ্র, অসহায়, স্বল্প আয়ের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দিতে হবে এমন নির্দেশনা দেওয়া সত্ত্বেও দুর্গম এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠী বিশেষত নারী ও আদিবাসী যাদের সাথে জনপ্রতিনিধিদের যোগাযোগ কম এমন ব্যক্তিদের অনেকে বঞ্চিত হয়েছে বলে উপকারভোগী জরিপ ও সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে তথ্য পাওয়া যায়।’

গবেষণা প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ‘ফ্যামিলি কার্ডপ্রাপ্ত পরিবারগুলো নির্ধারিত বিক্রয় কেন্দ্র/পয়েন্ট থেকে পণ্য কিনতে বিভিন্ন ধরনের অনিয়ম-দুর্নীতি ও হয়রানির শিকার হয়। জরিপে ১৩.৭ শতাংশ উপকারভোগী টিসিবি’র ট্রাক বা ডিলারের কাছ থেকে পণ্য কেনার সময় অনিয়ম-দুর্নীতির শিকার হয়েছে, এক্ষেত্রে নারী উপকারভোগীদের ১৩.৮ শতাংশ এবং পুরুষ উপকারভোগীদের ১৩.৭ শতাংশ। অপরদিকে গ্রামাঞ্চলের উপকারভোগীদের ক্ষেত্রে ১৪.৩ শতাংশ এবং শহরাঞ্চলের উপকারভোগীদের ক্ষেত্রে ১১.৫ শতাংশ টিসিবি’র পণ্য ক্রয়ে অনিয়ম-দুর্নীতির শিকার হয়। কিছুক্ষেত্রে পণ্য ক্রয়ের সময় ডিলার/বিক্রয়কর্মী নিয়ম-বহির্ভূতভাবে প্যাকেজ মূল্যের অতিরিক্ত ৪০-৫০ টাকা বেশি আদায় করেছে।’

https://sangbad.net.bd/images/2022/August/11Aug22/news/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BF%20-%20Copy%20-%20Copy%20-%20Copy.jpg

গবেষণায় টিআইবির সার্বিক পর্যবেক্ষণে বলছে, ‘গবেষণা প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণে নি¤œ আয়ের পরিবারগুলো ফ্যামিলি কার্ড প্রাপ্তি এবং সাশ্রয়ীমূল্যে পণ্য ক্রয়ে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সুশাসনের ঘাটতি পরিলক্ষিত হয়েছে। ফ্যামিলি কার্ড কর্মসূচি জনস্বার্থে গৃহীত সরকারের একটি কর্মসূচি; সংশ্লিষ্ট দপ্তরসমূহের সক্ষমতা যাচাইপূর্বক যথাযথ প্রাতিষ্ঠানিক প্রস্তুতি না নিয়েই দ্রুত এ ধরনের কর্মসূচি গ্রহণের ফলে বিভিন্ন পর্যায়ে সুশাসনের চ্যালেঞ্জ পরিলক্ষিত হয়েছে। উপকারভোগীর তালিকাভুক্তি ও পণ্য ক্রয়ে স্বচ্ছতার ঘাটতি ও অনিয়ম-দুর্নীতির ফলে একদিকে প্রকৃত উপকারভোগীদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ ফ্যামিলি কার্ড তালিকা থেকে বাদ পড়ে গিয়েছে, অন্যদিকে উপকারভোগীদের চাহিদা, পণ্য ক্রয়ের সামর্থ্য, এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর প্রবেশগম্যতা ও অন্তর্ভুক্তির বিষয়গুলো যথাযথভাবে বিবেচনা না করায় দরিদ্র ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে এই ইতিবাচক উদ্যোগের সুফল যথাযথভাবে পৌঁছাচ্ছে না, যা এই কর্মসূচির উদ্দেশ্যকে ব্যাহত করেছে। তথ্য প্রকাশ ও প্রচারে ঘাটতি থাকার কারণে লক্ষিত উপকারভোগীদের উল্লেখযোগ্য অংশ এই কার্যক্রমের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে এবং একই সাথে দুর্নীতির শিকার হওয়ার ঝুঁকি সৃষ্টি করেছে। তাছাড়া ফ্যামিলি কার্ড কর্মসূচিতে কার্যকর অভিযোগ নিরসন ব্যবস্থা না থাকায় দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের জবাবদিহির আওতায় আনা সম্ভব হয়নি।’

প্রতিবেদনে বেশকিছু সুপারিশ করা হয়েছে-

ক. উপকারভোগী তালিকাভুক্তকরণ ও কার্ড বিতরণ

১. জনপ্রতিনিধি কর্তৃক উপকারভোগীদের প্রাথমিক তালিকা তৈরির পর ওয়ার্ড সভার মাধ্যমে স্থানীয় জনগণের মতামতের ভিত্তিতে তালিকা চূড়ান্ত করতে হবে; এক্ষেত্রে নারী, প্রতিবন্ধিতাসহ ব্যক্তি, দলিত, আদিবাসী, প্রভৃতি প্রান্তিক ও দুর্গম এলাকার জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

২. উপকারভোগীর চূড়ান্ত তালিকা স্থানীয় পর্যায়ে (ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা সিটি কর্পোরেশন) প্রকাশের ব্যবস্থা করতে হবে। সারাদেশ থেকে সংগৃহীত মোট উপকারভোগীর তালিকা মন্ত্রণালয়/টিসিবি’র ওয়েবসাইটে প্রকাশ করতে হবে।

৩. শুধু দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের মাধ্যমে ফ্যামিলি কার্ড বিতরণ করতে হবে এবং বিতরণের সময়, তারিখ ও স্থান ইত্যাদি তথ্য সকল পর্যায়ে প্রচারের ব্যবস্থা করতে হবে।

৪. বিনামূল্যে তালিকাভুক্তি ও কার্ড বিতরণে অর্থ লেনদেন না করার বিষয়ে উপকারভোগীদের সচেতন করতে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ধরনের সচেতনতামূলক কার্যক্রম (যেমন: এসএমএস প্রদান, ফ্যামিলি কার্ডে এধরনের তথ্য মুদ্রণ করে দেওয়া ইত্যাদি) পরিচালনা করতে হবে। এ ধরনের ঘটনা সংঘটিত হলে কোথায় অভিযোগ জানাতে হবে তা প্রচার করতে হবে।

খ. সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য বিক্রয় ও তদারকি

৫. উপকারভোগীদের চাহিদা ও সামর্থ্য যাচাইয়ের মাধ্যমে প্যাকেজে পণ্যের ধরন, পরিমাণ ও মূল্য নির্ধারণ করতে হবে; প্যাকেজভিত্তিক পণ্য বিক্রয়ের পাশাপাশি অতি দরিদ্র ব্যক্তি যাদের প্যাকেজের সকল পণ্য একসাথে ক্রয়ের সক্ষমতা নেই তাদের চাহিদা ও সামর্থ্য অনুযায়ী স্বল্প পরিমাণে পণ্য বিক্রয়ের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

৬. পণ্যের গুণগত মান, পরিমাণ, কেন্দ্র/পয়েন্ট খোলা থাকার সময় এবং অবস্থান পরিবীক্ষণে ‘ট্যাগ টিম’-এর কার্যক্রম জোরদার করতে হবে।

৭. বিক্রয় কেন্দ্রের/পয়েন্টের সংখ্যা বাড়াতে হবে এবং এসব কেন্দ্র লক্ষিত জনগোষ্ঠীর কাছাকাছি নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

গ. স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি

৮. প্যাকেজে পণ্যের ধরন, পরিমাণ, নির্ধারিত মূল্য, ইত্যাদি তথ্য বিক্রয়কেন্দ্রে প্রদর্শন করতে হবে; অভিযোগ দায়ের করার সুবিধার্থে টিসিবি/সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রপাপ্ত ব্যক্তির হটলাইন নম্বর/দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর, ইত্যাদি প্রদর্শন করতে হবে।

৯. তালিকাভুক্তি ও সাশ্রয়ী মূল্যে পণ্য বিক্রয় করার ক্ষেত্রে অনিয়ম-দুর্নীতির সাথে জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

১০. উপকারভোগীর প্রণীত তালিকা ও তালিকা প্রস্তুত প্রক্রিয়া নিয়ে একটি স্বাধীন নিরীক্ষার উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে, এবং ইতিমধ্যে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত স্বচ্ছল পরিবারগুলোকে বাদ দিতে হবে।

back to top