alt

রাজনীতি

লাশ ফেলে আন্দোলন জমাতে চায় বিএনপি: কাদের

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

ফাইল ছবি

বিএনপি লাশ ফেলে আন্দোলন জমানোর অশুভ খেলায় মেতে উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

সরকারের বিদায় সাইরেন নাকি বেজে গেছে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের ওবায়দুল কাদের বলেন, গত ১৪ বছর ধরেই বিএনপি মহাসচিবের কানে সরকার বিদায়ের সাইরেন বাজছে, জনগণের কানে নয়।

শেখ হাসিনার উন্নয়ন-অর্জন দেশের জনগণ ঠিকই দেখতে পায় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা চোখে কালো চশমা পড়ে থাকে বলে তারা দিনের আলোয় রাতের অন্ধকার দেখতে পায়, এজন্যই বিএনপি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কোন উন্নয়ন-অর্জন দেখতে পায় না।

সেতুমন্ত্রী বলেন, কমিটিতে দলের দুঃসময়ের নেতাকর্মীদের গুরুত্ব দিতে হবে। বসন্তের কোকিলরা দুঃসময়ে থাকবে না। মুক্তিযুদ্ধ ও গণতন্ত্র বিশ্বাসী যেকোনো শিক্ষিত লোকের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা সবসময় খোলা।

দলের নেতাদের উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দলে শৃঙ্খলা রাখতে হবে। নেতৃত্ব দিতে হলে শৃঙ্খলা শিখতে হবে। আমাদের নেতা একজন- শেখ হাসিনা, আর সব কর্মী। বঙ্গবন্ধুর চেতনা ধারণ করতে পারলে সত্যিকার অর্থে আওয়ামী লীগ সুসংগঠিত হবে, ঐক্যবদ্ধ ও আধুনিক স্মার্ট দল হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। দেশের উন্নয়ন, অর্জন চাইলে শেখ হাসিনার মতো সৎ ও দক্ষ নেতৃত্বের বিকল্প নেই। তিনি বাংলাদেশকে বিশ্ব পরিমণ্ডলে সম্মানিত করেছেন।

কাদের বলেন, জাতিসংঘে শেখ হাসিনা তার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো বাংলা ভাষায় ভাষণ দিয়েছেন। আমরা শুনেছি তিনি কীভাবে পিতার মতো বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের কথা বলেছেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা জাতিসংঘে ইতিবাচক বস্তুনিষ্ঠ, মানবতাবাদী বক্তৃতা দিয়েছেন। যুদ্ধের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন, শান্তির আহবান জানিয়েছেন। তার বক্তৃতা সারাবিশ্বে প্রশংসিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর রণধ্বনি জয় বাংলা নির্বাসনে, স্বাধীনতার মূল্যবোধ নির্বাসনে পাঠানো হলো। ৭ মার্চের ভাষণ নিষিদ্ধ হয়ে গেলো। তার পর ৬টি বছর আমরা অমানিসার অন্ধকারে ছিলাম। দল কলহ-কোন্দলে জর্জরিত ছিল। দুঃখিনী বাংলায় পিতার রক্তভেজা মাঠিতে অন্ধকারে আলোকবর্তিকা হয়ে শেখ হাসিনা ফিরে এসেছিলেন। সুনামগঞ্জ থেকে সন্দরবন ঘুরে ঘুরে দলকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন। শেখ হাসিনা না দেশে ফিরে না আসলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার দুঃসাহস কারো হত? বঙ্গবন্ধু হত্যা, জেলহত্যার বিচার কি হতো? শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকে শৃঙ্খলমুক্ত করেছিলেন।

ছবি

যেকোনো মূল্যে ১০ই ডিসেম্বরের সমাবেশ হবে: টুকু

ছবি

বেলা ৩টায় গুলশানের বিএনপির জরুরি সংবাদ সম্মেলন

ছবি

মির্জা ফখরুল-আব্বাসকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে : ডিবি

ছবি

ফখরুল ও আব্বাস ‘আটক’, বলছে পরিবার, ডিএমপি কমিশনার ‘অবগত নন’

ছবি

জরুরি বৈঠকে বসেছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি

ছবি

আতঙ্কিত, ভোগান্তিতে সাধারণ মানুষ

ছবি

গণসমাবেশ নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনেই হবে : ফখরুল

ছবি

বিএনপিকে আর রাস্তায় সমাবেশ করতে দেয়া হবে না, আ’লীগও করবে না : কাদের

ছবি

এবার যে হাত দিয়ে মারতে আসবে, সেই হাত ভেঙে দিতে হবে : শেখ হাসিনা

ছবি

কমলাপুর স্টেডিয়ামে সমাবেশ করতে চায় বিএনপি, পুলিশ বলেছে বাঙলা কলেজ

ছবি

বিএনপি আন্দোলনের নামে নাশকতা শুরু করেছে : ওবায়দুল কাদের 

ছবি

বিএনপি মানুষের পাশে থাকে না,তারা মানুষ পোড়ায় : এনামুল হক শামীম

ছবি

তদন্তের স্বার্থে বিএনপির অফিস ও সামনের রাস্তা বন্ধ রেখেছে পুলিশ: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

ঢাবিতে ছাত্রদলকে প্রতিহত করতে ছাত্রলীগের মহড়া, বিএনপিপন্থী সাদা দলের মৌন অবস্থান

ছবি

আওয়ামী লীগ জনগণের ভোট চুরি করে না, সংরক্ষণ করে: শেখ হাসিনা

ছবি

‘মাথা ঠান্ডা রাখতে হবে যেনো বদনাম না হয়’, নেতাকর্মীদের কাদের

ছবি

পল্টন সংঘর্ষঃ মেয়েকে নিয়ে নিহত মকবুলের স্ত্রীর উৎকণ্ঠা

ছবি

গলির মুখ বন্ধ করে দিয়েছে পুলিশ, বিএনপির কার্যালয়ে ঝুলছে তালা

ছবি

শেরপুর জেলা আ.লীগের সম্মেলন আজ

ছবি

আজ সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি

ছবি

২০২৪ সালের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন, নৌকায় ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

ছবি

এটা কোনো সভ্য দেশে পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী করতে পারে, এটা আমাদের ধারণার বাইরে

ছবি

দেশে একটা নিরব দুর্ভিক্ষ চলছে

রিজভী, শহীদ, জুয়েল এ্যানীসহ অনেক নেতা-কর্মী আটক, বিএনপি কার্যালয় ঘিরে পুলিশ

নয়াপল্টনে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষে ১জন নিহত

ছবি

নয়াপল্টনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

ছবি

পুলিশ যেনো দলীয় ভূমিকা পালন না করে: মির্জা আব্বাস

ছবি

কক্সবাজার-টেকনাফে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় যোগ দিতে নেতাকর্মীদের ঢল

২৪ ডিসেম্বরের মধ্যে হবে ছাত্রলীগের কমিটি

ছবি

১০ ডিসেম্বর ঢাকায় সমাবেশ হবেই, দ্বিধা রাখবেন না: ফখরুল

ছবি

ছাত্রলীগের কমিটি সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

ছবি

বিএনপি ১৩ বছরে ১৩ মিনিটও রাজপথে দাঁড়াতে পারেনি

ছবি

নতুন করে যেখানে সমাবেশের অনুমতি চায় বিএনপি

৪ জানুয়ারি গাইবান্ধা-৫ আসনের উপনির্বাচন

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের পর ছাত্রলীগের সম্মেলন শুরু

ছবি

সোহরাওয়ার্দীর বিকল্প হলে রাজি বিএনপি

tab

রাজনীতি

লাশ ফেলে আন্দোলন জমাতে চায় বিএনপি: কাদের

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

ফাইল ছবি

শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

বিএনপি লাশ ফেলে আন্দোলন জমানোর অশুভ খেলায় মেতে উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

সরকারের বিদায় সাইরেন নাকি বেজে গেছে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের ওবায়দুল কাদের বলেন, গত ১৪ বছর ধরেই বিএনপি মহাসচিবের কানে সরকার বিদায়ের সাইরেন বাজছে, জনগণের কানে নয়।

শেখ হাসিনার উন্নয়ন-অর্জন দেশের জনগণ ঠিকই দেখতে পায় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা চোখে কালো চশমা পড়ে থাকে বলে তারা দিনের আলোয় রাতের অন্ধকার দেখতে পায়, এজন্যই বিএনপি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কোন উন্নয়ন-অর্জন দেখতে পায় না।

সেতুমন্ত্রী বলেন, কমিটিতে দলের দুঃসময়ের নেতাকর্মীদের গুরুত্ব দিতে হবে। বসন্তের কোকিলরা দুঃসময়ে থাকবে না। মুক্তিযুদ্ধ ও গণতন্ত্র বিশ্বাসী যেকোনো শিক্ষিত লোকের জন্য আওয়ামী লীগের দরজা সবসময় খোলা।

দলের নেতাদের উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দলে শৃঙ্খলা রাখতে হবে। নেতৃত্ব দিতে হলে শৃঙ্খলা শিখতে হবে। আমাদের নেতা একজন- শেখ হাসিনা, আর সব কর্মী। বঙ্গবন্ধুর চেতনা ধারণ করতে পারলে সত্যিকার অর্থে আওয়ামী লীগ সুসংগঠিত হবে, ঐক্যবদ্ধ ও আধুনিক স্মার্ট দল হবে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, গণতন্ত্রকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। দেশের উন্নয়ন, অর্জন চাইলে শেখ হাসিনার মতো সৎ ও দক্ষ নেতৃত্বের বিকল্প নেই। তিনি বাংলাদেশকে বিশ্ব পরিমণ্ডলে সম্মানিত করেছেন।

কাদের বলেন, জাতিসংঘে শেখ হাসিনা তার পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো বাংলা ভাষায় ভাষণ দিয়েছেন। আমরা শুনেছি তিনি কীভাবে পিতার মতো বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের কথা বলেছেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা জাতিসংঘে ইতিবাচক বস্তুনিষ্ঠ, মানবতাবাদী বক্তৃতা দিয়েছেন। যুদ্ধের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন, শান্তির আহবান জানিয়েছেন। তার বক্তৃতা সারাবিশ্বে প্রশংসিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর রণধ্বনি জয় বাংলা নির্বাসনে, স্বাধীনতার মূল্যবোধ নির্বাসনে পাঠানো হলো। ৭ মার্চের ভাষণ নিষিদ্ধ হয়ে গেলো। তার পর ৬টি বছর আমরা অমানিসার অন্ধকারে ছিলাম। দল কলহ-কোন্দলে জর্জরিত ছিল। দুঃখিনী বাংলায় পিতার রক্তভেজা মাঠিতে অন্ধকারে আলোকবর্তিকা হয়ে শেখ হাসিনা ফিরে এসেছিলেন। সুনামগঞ্জ থেকে সন্দরবন ঘুরে ঘুরে দলকে ঐক্যবদ্ধ করেছেন। শেখ হাসিনা না দেশে ফিরে না আসলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করার দুঃসাহস কারো হত? বঙ্গবন্ধু হত্যা, জেলহত্যার বিচার কি হতো? শেখ হাসিনা গণতন্ত্রকে শৃঙ্খলমুক্ত করেছিলেন।

back to top