alt

খেলা

বাংলাদেশ পাকিস্তান টেস্ট

তৃতীয় দিন শেষে চালকের আসনে পাকিস্তান

মো. ইমরান হোসেন, চট্টগ্রাম থেকে : রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১

তৃতীয় দিনের শুরুটা যেভাবে ভালো করেছিলো টিম টাইগার তবে শেষটা রাঙ্গাতে পারলো না মোমিনুল হকের দল। ফলে তৃতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রান। মুশফিকুর রহিম ১২ ও ইয়াসির রাব্বি ৮ রানে অপরাজিত আছেন। ইতোমধ্যে ৮৩ রানের লিড নিয়েছে টাইগাররা। চট্টগ্রাম টেস্টের বাকি এখনও দুইদিন। এই টেস্টের ফল যে হবে তা নিশ্চিত বলা যায়। পাকিস্তানের বিপক্ষে ভালো কিছু করতে হলে অবশ্যই ব্যাট হাতে ভালো কিছু করতে হবে মুশফিকুর রহিমদের। না হয় হারের গল্প লেখা হয়ে যাবে দ্বিতীয় ইনিংসেই। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ৩৩০ রানের জবাবে তাইজুলের ৭ উইকেট শিকারে প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানকে ২৮৬ রানে অলআউট করে দেয় বাংলাদেশ। ৪৪ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। কিন্তু তাইজুলের সাফল্যের দিনটি হতাশায় শেষ করলো বাংলাদেশের টপ-অর্ডার ব্যাটাররা। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামের ম্যাচে দ্বিতীয় দিন ৩৩০ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। এরপর দিন শেষে বিনা উইকেটে ১৪৫ রান করেছিলো পাকিস্তান। দুই ওপেনার আবিদ আলি ৯৩ ও আব্দুল্লাহ শফিক ৫২ রানে অপরাজিত ছিলেন।

তৃতীয় দিনের প্রথম ওভারেই পাকিস্তান শিবিরে জোড়া আঘাত হানেন স্পিনার তাইজুল। আব্দুল্লাহ শফিককে ৫২ রানেই লেগ বিফোর আউট করেন তাইজুল। শফিকের আউটে ক্রিজে গিয়ে স্ট্রাইকে যান আজহার আলি। মুখোমুখি হওয়া নিজের প্রথম বলেই তাইজুলের বলে লেগ বিফোর হন আজহার। তাই খালি হাতে ফিরতে হয় তাকে। দিনের শুরুতেই দুই ব্যাটারকে হারানোর ধাক্কার মাঝেও টেস্ট ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি করেন আবিদ। সেঞ্চুরির পর অধিনায়ক বাবরকে নিয়ে বড় জুটির পরিকল্পনায় ছিলেন আবিদ। উইকেটে জমে যাবার আগেই দুর্দান্ত ডেলিভারিতে ১০ রান করা বাবরকে বোল্ড করেন আরেক স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। অন্যপ্রান্তে উইকেট শিকারের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখেন বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে আরও একবার উইকেট শিকারের আনন্দে মাতেন তাইজুল। উইকেটরক্ষক লিটনের সহায়তায় ফাওয়াদ আলমকে ৮ রানেই থামিয়ে দেন তাইজুল। ফলে ৪ উইকেটে ২০৩ রান তুলে প্রথম সেশন শেষ করে পাকিস্তান।

মধ্যাহ্ন-বিরতির পর তৃতীয় ওভারেই বাংলাদেশকে পঞ্চম উইকেট শিকারের আনন্দে মাতান পেসার এবাদত হোসেন। পাকিস্তানের উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ানকে ৫ রানে লেগ বিফোর আউট করেন এবাদত। সতীর্থরা যাওয়া আসার মধ্যে থাকলেও, অন্যপ্রান্তে উইকেট আকড়ে ছিলেন আবিদ। আবিদের উইকেটের অপেক্ষায় ছিলো বাংলাদেশও। টাইগারদের সেই আশা পূরণ করেন তাইজুল। তারকা এ স্পিনারের শেকার হওয়ার আগে ২৮২ বলে ১২টি চার ও ২টি ছক্কায় ১৩৩ রান করেন আবিদ। দলীয় ২১৭ রানে আবিদকে তুলে নিয়ে লিডের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বাংলাদেশ। স্বীকৃত ছয় ব্যাটারকে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠায় বাংলাদেশের বোলাররা। তাই এ অবস্থায় দ্রুত পাকিস্তানের টেল-এন্ডারদের ছেটে ফেলার কাজ শুরু করেন তাইজুল-মিরাজ-এবাদতরা।

দলীয় ২২৯ রানে হাসান আলিকে শিকার করে ৩৪ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে নবমবারের মত পাঁচ বা ততোধিক উইকেট শিকার করেন তাইজুল। ৮ বলে ১২ রান করেন হাসান। এরপর পাকিস্তানের দুই লোয়ার-অর্ডার ব্যাটার সাজিদকে এবাদত ও নোমানকে বিদায় দেন তাইজুল। সাজিদ ৫ ও নোমান ৮ রানে আউট হন। ফলে ২৫৭ রানে পাাকিস্তানের নবম উইকেটের পতন ঘটে। এমন অবস্থায় ভালো একটি লিডের পথেই ছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ উইকেটে বাংলাদেশের সামনে প্রতিরোধ গড়ে তুলেন ফাহিম আশরাফ ও শেষ ব্যাটার আফ্রিদি। ২৯ রানের জুটি গড়েন তারা। এই জুটি ভাঙ্গেন তাইজুল। ৩৮ রান করা ফাহিমকে তুলে নিয়ে পাকিস্তানকে ২৮৬ রানে গুটিয়ে দেন তাইজুল। ইনিংসে ৪৪ দশমিক ৪ ওভার বল করে ১১৬ রানে ৭ উইকেট নেন তাইজুল। পাকিস্তানের বিপক্ষে এটিই তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। তাইজুল ছাড়াও এবাদত ২টি ও মিরাজ ১টি উইকেট নেন।

প্রথম ইনিংসে ৪৪ রানের লিড নিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে নেমে পাকিস্তানের পেসার আফ্রিদির বোলিং তোপে পড়ে বাংলাদেশ। ২৫ রানের মধ্যে প্যাভিলিয়নে ফিরেন চার ব্যাটার। সাদমান ইসলাম ১, সাইফ হাসান ১৮ ও নাজমুল হোসেন শান্ত শুন্য রানে আফ্রিদির শিকার হন। রানের খাতা খোলার আগেই পাকিস্তানের পেসার হাসানের শিকার হন অধিনায়ক মোমিনুল হক। অধিনায়কের বিদায়ের পর দিনের শেষ দিকে, আর কোন বিপদ ঘটতে দেননি মুশফিকু রহিম ও অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা ইয়াসির আলি। দিন শেষে মুশফিকুর ১২ ও ইয়াসির ৮ রানে অপরাজিত আছেন। আফ্রিদি ৬ রানে ৩ উইকেট নেন।

স্কোর কার্ড :

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস : ৩৩০/১০, ১১৪.৪ ওভার (লিটন ১১৪, মুশফিক ৯১, হাসান ৫/৫১) :

পাকিস্তান প্রথম ইনিংস (আগের দিন ১৪৫/০, ৫৭ ওভার, আবিদ ৯৩, শফিক ৫২) :

আবিদ এলবিডব্লু ব তাইজুল ১৩৩

শফিক এলবিডব্লু ব তাইজুল ৫২

আজহার এলবিডব্লু ব তাইজুল ০

বাবর বোল্ড ব মিরাজ ১০

ফাওয়াদ ক লিটন ব তাইজুল ৮

রিজওয়ান এলবিডব্লু ব এবাদত ৫

ফাহিম ক লিটন ব তাইজুল ৩৮

হাসান স্টাম্প লিটন ব তাইজুল ১২

সাজিদ বোল্ড ব এবাদত ৫

নোমান এলবিডব্লু ব তাইজুল ৮

আফ্রিদি অপরাজিত ১৩

অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-১) ২

মোট (অলআউট, ১১৫.৪ ওভার) ২৮৬

উইকেট পতন : ১/১৪৬ (শফিক), ২/১৪৬ (আজহার), ৩/১৬৯ (বাবর), ৪/১৮২ (ফাওয়াদ), ৫/২০৭ (রিজওয়ান), ৬/২১৭ (আবিদ), ৭/২২৯ (হাসান), ৮/২৪০ (সাজিদ), ৯/২৫৭ (নোমান), ১০/২৮৬ (ফাহিম)।

বাংলাদেশ বোলিং :

আবু জায়েদ : ১২-০-৪১-০,

এবাদত : ২৬-৭-৪৭-২,

তাইজুল : ৪৪.৪-৯-১১৬-৭,

মিরাজ : ৩০-৭-৬৮-১,

মোমিনুল : ৩-০-১২-০।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস :

সাদমান ইসলাম এলবিডব্লু ব আফ্রিদি ১

সাইফ হাসান ক এন্ড ব আফ্রিদি ১৮

নাজমুল হোসেন শান্ত ক শফিক ব আফ্রিদি ০

মোমিনুল হক ক আজহার ব হাসান ০

মুশফিকুর রহিম অপরাজিত ১২

ইয়াসির আলি অপরাজিত ৮

অতিরিক্ত ০

মোট (৪ উইকেট, ১৯ ওভার) ৩৯

উইকেট পতন : ১/১৪ (সাদমান), ২/১৪ (শান্ত), ৩/১৫ (মোমিনুল), ৪/২৫ (সাইফ)।

পাকিস্তান বোলিং :

আফ্রিদি : ৬-৪-৬-৩,

হাসান : ৫-০-১৯-১,

ফাহিম : ৩-১-৬-০,

নোমান : ৪-২-৭-০,

সাজিদ : ১-০-১-০।

ছবি

করোনা পজিটিভ ইন্টার মিলান কোচ

ছবি

সিমিওনেকে নিয়ে কথা বলবেন মেসি-রোনালদোসহ এক ঝাঁক তারকা

ছবি

মাশরাফির প্রত্যাবর্তন ম্যাচে ঢাকার বিপক্ষে হেসেখেলে জিতল সিলেট

ছবি

৪০২ দিন পর ফিরলেন মাশরাফি

ছবি

সিলেটের বিপক্ষে ১০০ রানেই গুটিয়ে গেল মিনিস্টার ঢাকা

ছবি

ম্যানইউ থেকে সেভিয়ায় যাচ্ছেন মার্শিয়াল

ছবি

আগে ফিল্ডিং করবে সিলেট, ঢাকার একাদশে মাশরাফি

ছবি

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ার্নার-মার্শের সাথে ল্যাঙ্গারকেও বিশ্রাম দিলো অস্ট্রেলিয়া

ছবি

ফুটবল ম্যাচ দেখতে গিয়ে পদপিষ্ট হয়ে ৬ জনের মৃত্যু

ছবি

লিজেন্ডস লিগে এশিয়ান লায়ন্সের জয়, আলো ছড়ালেন রফিক

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

চট্টগ্রামের টানা দ্বিতীয় জয়

ছবি

ব্যাটিং ব্যর্থতাকে দুষছেন বরিশালের কোচ সুজন

ছবি

ঢাকার বিপক্ষে পরাজয়ের দিনে সাকিবের ‘ডাবল’ রেকর্ড

ছবি

আইসিসির বর্ষসেরা শাহিন আফ্রিদি

ছবি

মাহমুদউল্লাহ-রাসেলের ব্যাটে চড়ে প্রথম জয়ের দেখা পেল ঢাকা

ছবি

আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটার বাবর আজম

ছবি

শেষ ৫ বলে ২৭ রান নিয়েও ১ রানের হার উইন্ডিজদের

ছবি

শেষ ম্যাচ হেরে কমনওয়েলথ স্বপ্ন শেষ নারী ক্রিকেট দলের

ছবি

টটেনহ্যামকে হারিয়ে চার ম্যাচ পর জয়ে ফিরলো চেলসি

ছবি

শেষ সময়ে ২ গোল করে হার এড়াল রিয়াল

ছবি

ডি ইয়ংয়ের গোলে পূর্ণ পয়েন্ট পেল বার্সেলোনা

ছবি

রামোসের প্রথম গোলে সহজ জয় পিএসজির

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

প্রোটিয়াদের কাছে হোয়াইটওয়াশ হলো ভারত

ছবি

প্যালেসকে হারিয়ে লড়াইয়ে টিকে রইল লিভারপুল

ছবি

২০৯ রান করেও জিততে পারলো না ভারত মহারাজাস

ছবি

আইসিসি বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটার পাকিস্তানের রিজওয়ান

ছবি

হোল্ডারের ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে প্রথম টি-টুয়েন্টিতে নাকাল ইংল্যান্ড

ছবি

টানা ১২ ম্যাচ জেতা সিটিকে থামাল সাউদাম্পটন

ছবি

স্কটল্যান্ডের মেয়েদের উড়িয়ে দিয়ে টাইগ্রেসদের জয়ের হ্যাটট্রিক

ছবি

টি-টোয়েন্টি দলে আর ফিরতে চায় না তামিম : পাপন

ছবি

যুব বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ

ছবি

ইনজুরি টাইমের গোলে জয়ী হলো ম্যানইউ

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

মিনিস্টার ঢাকাকে হারিয়ে চট্টগ্রামের প্রথম জয়

tab

খেলা

বাংলাদেশ পাকিস্তান টেস্ট

তৃতীয় দিন শেষে চালকের আসনে পাকিস্তান

মো. ইমরান হোসেন, চট্টগ্রাম থেকে

রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১

তৃতীয় দিনের শুরুটা যেভাবে ভালো করেছিলো টিম টাইগার তবে শেষটা রাঙ্গাতে পারলো না মোমিনুল হকের দল। ফলে তৃতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রান। মুশফিকুর রহিম ১২ ও ইয়াসির রাব্বি ৮ রানে অপরাজিত আছেন। ইতোমধ্যে ৮৩ রানের লিড নিয়েছে টাইগাররা। চট্টগ্রাম টেস্টের বাকি এখনও দুইদিন। এই টেস্টের ফল যে হবে তা নিশ্চিত বলা যায়। পাকিস্তানের বিপক্ষে ভালো কিছু করতে হলে অবশ্যই ব্যাট হাতে ভালো কিছু করতে হবে মুশফিকুর রহিমদের। না হয় হারের গল্প লেখা হয়ে যাবে দ্বিতীয় ইনিংসেই। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ৩৩০ রানের জবাবে তাইজুলের ৭ উইকেট শিকারে প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানকে ২৮৬ রানে অলআউট করে দেয় বাংলাদেশ। ৪৪ রানের লিড পায় বাংলাদেশ। কিন্তু তাইজুলের সাফল্যের দিনটি হতাশায় শেষ করলো বাংলাদেশের টপ-অর্ডার ব্যাটাররা। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরি স্টেডিয়ামের ম্যাচে দ্বিতীয় দিন ৩৩০ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। এরপর দিন শেষে বিনা উইকেটে ১৪৫ রান করেছিলো পাকিস্তান। দুই ওপেনার আবিদ আলি ৯৩ ও আব্দুল্লাহ শফিক ৫২ রানে অপরাজিত ছিলেন।

তৃতীয় দিনের প্রথম ওভারেই পাকিস্তান শিবিরে জোড়া আঘাত হানেন স্পিনার তাইজুল। আব্দুল্লাহ শফিককে ৫২ রানেই লেগ বিফোর আউট করেন তাইজুল। শফিকের আউটে ক্রিজে গিয়ে স্ট্রাইকে যান আজহার আলি। মুখোমুখি হওয়া নিজের প্রথম বলেই তাইজুলের বলে লেগ বিফোর হন আজহার। তাই খালি হাতে ফিরতে হয় তাকে। দিনের শুরুতেই দুই ব্যাটারকে হারানোর ধাক্কার মাঝেও টেস্ট ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি করেন আবিদ। সেঞ্চুরির পর অধিনায়ক বাবরকে নিয়ে বড় জুটির পরিকল্পনায় ছিলেন আবিদ। উইকেটে জমে যাবার আগেই দুর্দান্ত ডেলিভারিতে ১০ রান করা বাবরকে বোল্ড করেন আরেক স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। অন্যপ্রান্তে উইকেট শিকারের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখেন বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের। মধ্যাহ্ন বিরতির আগে আরও একবার উইকেট শিকারের আনন্দে মাতেন তাইজুল। উইকেটরক্ষক লিটনের সহায়তায় ফাওয়াদ আলমকে ৮ রানেই থামিয়ে দেন তাইজুল। ফলে ৪ উইকেটে ২০৩ রান তুলে প্রথম সেশন শেষ করে পাকিস্তান।

মধ্যাহ্ন-বিরতির পর তৃতীয় ওভারেই বাংলাদেশকে পঞ্চম উইকেট শিকারের আনন্দে মাতান পেসার এবাদত হোসেন। পাকিস্তানের উইকেটরক্ষক মোহাম্মদ রিজওয়ানকে ৫ রানে লেগ বিফোর আউট করেন এবাদত। সতীর্থরা যাওয়া আসার মধ্যে থাকলেও, অন্যপ্রান্তে উইকেট আকড়ে ছিলেন আবিদ। আবিদের উইকেটের অপেক্ষায় ছিলো বাংলাদেশও। টাইগারদের সেই আশা পূরণ করেন তাইজুল। তারকা এ স্পিনারের শেকার হওয়ার আগে ২৮২ বলে ১২টি চার ও ২টি ছক্কায় ১৩৩ রান করেন আবিদ। দলীয় ২১৭ রানে আবিদকে তুলে নিয়ে লিডের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বাংলাদেশ। স্বীকৃত ছয় ব্যাটারকে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠায় বাংলাদেশের বোলাররা। তাই এ অবস্থায় দ্রুত পাকিস্তানের টেল-এন্ডারদের ছেটে ফেলার কাজ শুরু করেন তাইজুল-মিরাজ-এবাদতরা।

দলীয় ২২৯ রানে হাসান আলিকে শিকার করে ৩৪ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে নবমবারের মত পাঁচ বা ততোধিক উইকেট শিকার করেন তাইজুল। ৮ বলে ১২ রান করেন হাসান। এরপর পাকিস্তানের দুই লোয়ার-অর্ডার ব্যাটার সাজিদকে এবাদত ও নোমানকে বিদায় দেন তাইজুল। সাজিদ ৫ ও নোমান ৮ রানে আউট হন। ফলে ২৫৭ রানে পাাকিস্তানের নবম উইকেটের পতন ঘটে। এমন অবস্থায় ভালো একটি লিডের পথেই ছিলো বাংলাদেশ। কিন্তু শেষ উইকেটে বাংলাদেশের সামনে প্রতিরোধ গড়ে তুলেন ফাহিম আশরাফ ও শেষ ব্যাটার আফ্রিদি। ২৯ রানের জুটি গড়েন তারা। এই জুটি ভাঙ্গেন তাইজুল। ৩৮ রান করা ফাহিমকে তুলে নিয়ে পাকিস্তানকে ২৮৬ রানে গুটিয়ে দেন তাইজুল। ইনিংসে ৪৪ দশমিক ৪ ওভার বল করে ১১৬ রানে ৭ উইকেট নেন তাইজুল। পাকিস্তানের বিপক্ষে এটিই তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। তাইজুল ছাড়াও এবাদত ২টি ও মিরাজ ১টি উইকেট নেন।

প্রথম ইনিংসে ৪৪ রানের লিড নিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে নেমে পাকিস্তানের পেসার আফ্রিদির বোলিং তোপে পড়ে বাংলাদেশ। ২৫ রানের মধ্যে প্যাভিলিয়নে ফিরেন চার ব্যাটার। সাদমান ইসলাম ১, সাইফ হাসান ১৮ ও নাজমুল হোসেন শান্ত শুন্য রানে আফ্রিদির শিকার হন। রানের খাতা খোলার আগেই পাকিস্তানের পেসার হাসানের শিকার হন অধিনায়ক মোমিনুল হক। অধিনায়কের বিদায়ের পর দিনের শেষ দিকে, আর কোন বিপদ ঘটতে দেননি মুশফিকু রহিম ও অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা ইয়াসির আলি। দিন শেষে মুশফিকুর ১২ ও ইয়াসির ৮ রানে অপরাজিত আছেন। আফ্রিদি ৬ রানে ৩ উইকেট নেন।

স্কোর কার্ড :

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস : ৩৩০/১০, ১১৪.৪ ওভার (লিটন ১১৪, মুশফিক ৯১, হাসান ৫/৫১) :

পাকিস্তান প্রথম ইনিংস (আগের দিন ১৪৫/০, ৫৭ ওভার, আবিদ ৯৩, শফিক ৫২) :

আবিদ এলবিডব্লু ব তাইজুল ১৩৩

শফিক এলবিডব্লু ব তাইজুল ৫২

আজহার এলবিডব্লু ব তাইজুল ০

বাবর বোল্ড ব মিরাজ ১০

ফাওয়াদ ক লিটন ব তাইজুল ৮

রিজওয়ান এলবিডব্লু ব এবাদত ৫

ফাহিম ক লিটন ব তাইজুল ৩৮

হাসান স্টাম্প লিটন ব তাইজুল ১২

সাজিদ বোল্ড ব এবাদত ৫

নোমান এলবিডব্লু ব তাইজুল ৮

আফ্রিদি অপরাজিত ১৩

অতিরিক্ত (বা-১, লে বা-১) ২

মোট (অলআউট, ১১৫.৪ ওভার) ২৮৬

উইকেট পতন : ১/১৪৬ (শফিক), ২/১৪৬ (আজহার), ৩/১৬৯ (বাবর), ৪/১৮২ (ফাওয়াদ), ৫/২০৭ (রিজওয়ান), ৬/২১৭ (আবিদ), ৭/২২৯ (হাসান), ৮/২৪০ (সাজিদ), ৯/২৫৭ (নোমান), ১০/২৮৬ (ফাহিম)।

বাংলাদেশ বোলিং :

আবু জায়েদ : ১২-০-৪১-০,

এবাদত : ২৬-৭-৪৭-২,

তাইজুল : ৪৪.৪-৯-১১৬-৭,

মিরাজ : ৩০-৭-৬৮-১,

মোমিনুল : ৩-০-১২-০।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস :

সাদমান ইসলাম এলবিডব্লু ব আফ্রিদি ১

সাইফ হাসান ক এন্ড ব আফ্রিদি ১৮

নাজমুল হোসেন শান্ত ক শফিক ব আফ্রিদি ০

মোমিনুল হক ক আজহার ব হাসান ০

মুশফিকুর রহিম অপরাজিত ১২

ইয়াসির আলি অপরাজিত ৮

অতিরিক্ত ০

মোট (৪ উইকেট, ১৯ ওভার) ৩৯

উইকেট পতন : ১/১৪ (সাদমান), ২/১৪ (শান্ত), ৩/১৫ (মোমিনুল), ৪/২৫ (সাইফ)।

পাকিস্তান বোলিং :

আফ্রিদি : ৬-৪-৬-৩,

হাসান : ৫-০-১৯-১,

ফাহিম : ৩-১-৬-০,

নোমান : ৪-২-৭-০,

সাজিদ : ১-০-১-০।

back to top