alt

খেলা

কিউদের বিদায়, ১৩ বছর পর ফাইনালে পাকিস্তান

সংবাদ স্পোর্টস ডেস্ক: : বুধবার, ০৯ নভেম্বর ২০২২

ছবি: সংগৃহীত

সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ম্যাচের শুরুতে গ্যালারিতে একটা পোস্টার ‘থ্যাঙ্ক ইউ নেদারল্যান্ডস।’ সত্যি, প্রত্যেক পাকিস্তানি সমর্থক ডাচদের কাছে কৃতজ্ঞ থাকবে। পাকিস্তানকে সেমিফাইনাল উপহার দিয়েছিল নেদারল্যান্ডস, ফাইনাল গিফট করলেন বাবর-রেজওয়ান। নিউজিল্যান্ডকে ৭ উইকেট আর ৫ বল হাতে রেখে হারিয়ে দিলো বাবর আজমের দল, ১৩ বছর পর আবারও নাম লেখালো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে।

এবারের আগে ২০০৭ ও ২০০৯ আসরে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচ খেলেছে পাকিস্তান। ২০০৭ সালের আসরে নিউ জিল্যান্ডকে হারিয়েই ফাইনালের টিকেট পেয়েছিল দলটি। পরেরবার ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তারা।

এর আগে প্রথম দল হিসেবে তিনবার ফাইনাল খেলার কীর্তি গড়েছিল শ্রীলঙ্কা; ২০০৯, ২০১২ ও ২০১৪ সালের আসরে।

বুধবার (৯ নভেম্বর) সিডনিতে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় নিউজিল্যান্ড। ম্যাচের প্রথম বলেই শাহীন শাহ আফ্রিদিকে চার মেরে দারুণভাবে ইনিংসের শুরু করেন কিউই ওপেনার ফিন অ্যালেন। পরের বলেই অবশ্য এলবিডব্লিউ হয়ে যান অ্যালেন। পরে রিভিউতে দেখা যায় ব্যাটে স্পর্শ করেছিল বল। ফলে এ যাত্রায় রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান তিনি। তার পরের বলে আবারও তাকে এলবিডব্লিউ দিয়ে দেন আম্পায়ার। এবার অবশ্য রিভিউ নিয়েও লাভ হয়নি। দলীয় ৪ রানের মাথায় প্রথম উইকেটের পতন ঘটে কিউইদের।

শুরুর সেই ধাক্কা সামাল দিতে ধীরেসুস্থে খেলতে থাকেন তিনে নামা অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন এবং আরেক ওপেনার ডেভন কনওয়ে। দলীয় ৩৮ রানের মাথায় রান আউট হয়ে ফিরে যান কনওয়ে। এরপর ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি গ্লেন ফিলিপসও। ৪৯ রানের মাথায় ৩ উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপেই পড়ে যায় কিউইরা।

সেই চাপ থেকে দলকে টেনে তোলেন ড্যারেল মিচেল। অধিনায়ক উইলিয়ামসনকে সাথে নিয়ে ৬৮ রানের দুর্দান্ত এক জুটি গড়েন মিচেল। যথেষ্ট মারমুখি ছিলেন মিচেল, পেয়েছেন ফিফটির দেখাও। ১১৭ রানের মাথায় ৪২ বলে ৪৬ রানের ধীরগতির ইনিংস খেলে বিদায় নেন উইলিয়ামসন। এরপর ইনিংসে বাকি পথ জেমস নিশামকে সাথে নিয়ে পাড়ি দেন মিচেল। শেষপর্যন্ত ২০ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫২ রানের লড়াকু সংগ্রহ দাঁড় করায় নিউজিল্যান্ড। ৩৫ বলে ৫৩ করে অপরাজিত থাকেন মিচেল। ১২ বলে ১৬ করে অপরাজিত ছিলেন নিশাম।

পাকিস্তানের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করেন পেসার শাহীন আফ্রিদি। ৪ ওভারে মাত্র ২৪ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলে নেন শাহীন। এছাড়া ১টি উইকেট নেন মোহাম্মদ নাওয়াজ।

১৫৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানকে বিস্ফোরক সূচনা এনে দেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। কিউই বোলারদের পিটিয়ে তুলোধুনো করে দ্রুতগতিতে রান তুলতে থাকেন তিনি। অপর পাশ থেকে তাকে যোগ্য সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছিলেন দলীয় অধিনায়ক বাবর আজম, যদিও কিছুটা ধীরগতিতেই আগাচ্ছিলেন বাবর। পাওয়ারপ্লের ৬ ওভার শেষে বিনা উইকেটে ৫৫ রান তুলে ফেলে পাকিস্তান। ফলে ম্যাচ জয়ের পথে অনেকটাই এগিয়ে যায় পাকিস্তান।

পাওয়ারপ্লে শেষ হলেও থামছিল না পাকিস্তানের ঝড়ো ব্যাটিং। রিজওয়ানের ধুন্ধুমার ব্যাটিং তো চলছিলই, সেই সাথে যেন খোলস ছেড়ে বের হয়ে আসছিলেন বাবরও। মারকুটে ব্যাটিংয়ে রিজওয়ানের আগেই ফিফটি তুলে নেন বাবর। দুজনে মিলে গড়েন ১০৫ রানের বিস্ফোরক ওপেনিং জুটি, ম্যাচটা সম্ভবত সেখানেই জিতে যায় পাকিস্তান।

দলীয় ১০৫ রানের মাথায় ট্রেন্ট বোল্টের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান বাবর। আউট হওয়ার আগে ৪২ বলে ৫৩ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন তিনি। তবে দ্রুতগতিতে রান তুলছিলেন রিজওয়ান, তুলে নেন ফিফটিও। শেষমেশ দলীয় ১৩২ রানের মাথায় থামেন রিজওয়ান। বোল্টের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে ৪৩ বলে ৫৭ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলেন তিনি। বাকি পথটা ভালোভাবেই পারি দিচ্ছিলেন মোহাম্মদ হারিস এবং শান মাসুদ। তবে শেষের আগের ওভারে এসে ২৬ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলে মিচেল স্যান্টনারের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান হারিস। অন্যদিকে ৪ বলে ৩ রান করে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন মাসুদ। ৫ বল হাতে রেখে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় পাকিস্তান।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৪ ওভার বল করে ৩৩ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলে নেন ট্রেন্ট বোল্ট। এছাড়া ২৬ রানে ১ উইকেট নেন মিচেল স্যান্টনার।

ছবি

রোহিত-কোহলিকে ফেরালেন সাকিব

ছবি

কোরিয়ার বিপক্ষেই ফিরছেন নেইমার ও দানিলো

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রত্যাশিত জয়ে শেষ আটে আর্জেন্টিনা

ছবি

সেনেগালকে হারিয়ে এগিয়ে যাওয়া লক্ষ্য ইংল্যান্ডের

ছবি

ইনজুরিতে ব্রাজিলের আরও দুই ফুটবলার

ছবি

গোল পার্থক্যে ছিটকে যাওয়ায় হতাশ সুয়ারেজ

ছবি

মাঠে মেজাজ হারালেন রোনালদো

ছবি

আমেরিকাকে বিদায় করে শেষ আটে নেদারল্যান্ডস

ছবি

শুরু হচ্ছে নকআউট পর্ব, কে কার প্রতিপক্ষ

ছবি

ক্যামেরুনের কাছে হেরেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

পর্তুগালকে হারিয়ে শেষ ষোলতে কোরিয়া

ছবি

‘নকআউট পর্বে’ নেইমারকে পাওয়ার আশায় ব্রাজিল

ছবি

বাংলাদেশের মানুষ ‘আমাদের মতই পাগল’, আর্জেন্টিনা দলের টুইট

ছবি

বিশ্বকাপ ব্যর্থতায় পদত্যাগ করলেন বেলজিয়ামের কোচ

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

কোস্টারিকাকে হারিয়েও জার্মানির বিদায়

ছবি

স্পেনকে হারিয়ে নক আউটে জাপান

ছবি

রোনালদোদের হারিয়ে নক-আউটে পৌঁছানোর লক্ষ্য কোরিয়ার

ছবি

পোলিশ দুর্গ গুঁড়িয়ে মেসির স্বপ্ন অটুট, শেষ ষোলোয় আর্জেন্টিনা

ছবি

মেসির কথায় ফল পেয়েছি : অ্যালিস্টার

ছবি

মেক্সিকো জিতেও বিদায়

ছবি

বেলজিয়ামকে বিদায় দিয়ে ক্রোয়েশিয়া নক আউট পর্বে

ছবি

শেষ ষোলোতে কে হচ্ছে ব্রাজিলের প্রতিপক্ষ

ছবি

দলকে জিতিয়ে হাসপাতালে পুলিচিস

ছবি

ম্যারাডোনাকে ছাড়িয়ে মেসির নতুন রেকর্ড

ছবি

সন্ধ্যায় বাংলাদেশে আসছে কোহলি-রোহিতরা

টিভিতে আজকের খেলার সূচি

ছবি

ম্যাচ জিতে আর্জেন্টিনা এবং হেরেও পোল্যান্ড নক আউটে

ছবি

তিউনিসিয়ার কাছে হেরেও গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স

ছবি

বেলজিয়ামের তেমন সম্ভাবনা দেখছেন না : ব্রুইন

ছবি

‘স্টেডিয়ামের এসি ব্যবস্থায় কাশি ও গলার সমস্যা’

ছবি

বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে স্বাগতিক কাতারের বিদায়

ছবি

জার্মানি-কোস্টারিকা ম্যাচ চালাবেন নারী রেফারি

ছবি

‘লিও এবার বিশ্বকাপ জিতবে’

tab

খেলা

কিউদের বিদায়, ১৩ বছর পর ফাইনালে পাকিস্তান

সংবাদ স্পোর্টস ডেস্ক:

ছবি: সংগৃহীত

বুধবার, ০৯ নভেম্বর ২০২২

সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ম্যাচের শুরুতে গ্যালারিতে একটা পোস্টার ‘থ্যাঙ্ক ইউ নেদারল্যান্ডস।’ সত্যি, প্রত্যেক পাকিস্তানি সমর্থক ডাচদের কাছে কৃতজ্ঞ থাকবে। পাকিস্তানকে সেমিফাইনাল উপহার দিয়েছিল নেদারল্যান্ডস, ফাইনাল গিফট করলেন বাবর-রেজওয়ান। নিউজিল্যান্ডকে ৭ উইকেট আর ৫ বল হাতে রেখে হারিয়ে দিলো বাবর আজমের দল, ১৩ বছর পর আবারও নাম লেখালো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে।

এবারের আগে ২০০৭ ও ২০০৯ আসরে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচ খেলেছে পাকিস্তান। ২০০৭ সালের আসরে নিউ জিল্যান্ডকে হারিয়েই ফাইনালের টিকেট পেয়েছিল দলটি। পরেরবার ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তারা।

এর আগে প্রথম দল হিসেবে তিনবার ফাইনাল খেলার কীর্তি গড়েছিল শ্রীলঙ্কা; ২০০৯, ২০১২ ও ২০১৪ সালের আসরে।

বুধবার (৯ নভেম্বর) সিডনিতে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় নিউজিল্যান্ড। ম্যাচের প্রথম বলেই শাহীন শাহ আফ্রিদিকে চার মেরে দারুণভাবে ইনিংসের শুরু করেন কিউই ওপেনার ফিন অ্যালেন। পরের বলেই অবশ্য এলবিডব্লিউ হয়ে যান অ্যালেন। পরে রিভিউতে দেখা যায় ব্যাটে স্পর্শ করেছিল বল। ফলে এ যাত্রায় রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান তিনি। তার পরের বলে আবারও তাকে এলবিডব্লিউ দিয়ে দেন আম্পায়ার। এবার অবশ্য রিভিউ নিয়েও লাভ হয়নি। দলীয় ৪ রানের মাথায় প্রথম উইকেটের পতন ঘটে কিউইদের।

শুরুর সেই ধাক্কা সামাল দিতে ধীরেসুস্থে খেলতে থাকেন তিনে নামা অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন এবং আরেক ওপেনার ডেভন কনওয়ে। দলীয় ৩৮ রানের মাথায় রান আউট হয়ে ফিরে যান কনওয়ে। এরপর ক্রিজে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি গ্লেন ফিলিপসও। ৪৯ রানের মাথায় ৩ উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপেই পড়ে যায় কিউইরা।

সেই চাপ থেকে দলকে টেনে তোলেন ড্যারেল মিচেল। অধিনায়ক উইলিয়ামসনকে সাথে নিয়ে ৬৮ রানের দুর্দান্ত এক জুটি গড়েন মিচেল। যথেষ্ট মারমুখি ছিলেন মিচেল, পেয়েছেন ফিফটির দেখাও। ১১৭ রানের মাথায় ৪২ বলে ৪৬ রানের ধীরগতির ইনিংস খেলে বিদায় নেন উইলিয়ামসন। এরপর ইনিংসে বাকি পথ জেমস নিশামকে সাথে নিয়ে পাড়ি দেন মিচেল। শেষপর্যন্ত ২০ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৫২ রানের লড়াকু সংগ্রহ দাঁড় করায় নিউজিল্যান্ড। ৩৫ বলে ৫৩ করে অপরাজিত থাকেন মিচেল। ১২ বলে ১৬ করে অপরাজিত ছিলেন নিশাম।

পাকিস্তানের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করেন পেসার শাহীন আফ্রিদি। ৪ ওভারে মাত্র ২৪ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলে নেন শাহীন। এছাড়া ১টি উইকেট নেন মোহাম্মদ নাওয়াজ।

১৫৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে পাকিস্তানকে বিস্ফোরক সূচনা এনে দেন মোহাম্মদ রিজওয়ান। কিউই বোলারদের পিটিয়ে তুলোধুনো করে দ্রুতগতিতে রান তুলতে থাকেন তিনি। অপর পাশ থেকে তাকে যোগ্য সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছিলেন দলীয় অধিনায়ক বাবর আজম, যদিও কিছুটা ধীরগতিতেই আগাচ্ছিলেন বাবর। পাওয়ারপ্লের ৬ ওভার শেষে বিনা উইকেটে ৫৫ রান তুলে ফেলে পাকিস্তান। ফলে ম্যাচ জয়ের পথে অনেকটাই এগিয়ে যায় পাকিস্তান।

পাওয়ারপ্লে শেষ হলেও থামছিল না পাকিস্তানের ঝড়ো ব্যাটিং। রিজওয়ানের ধুন্ধুমার ব্যাটিং তো চলছিলই, সেই সাথে যেন খোলস ছেড়ে বের হয়ে আসছিলেন বাবরও। মারকুটে ব্যাটিংয়ে রিজওয়ানের আগেই ফিফটি তুলে নেন বাবর। দুজনে মিলে গড়েন ১০৫ রানের বিস্ফোরক ওপেনিং জুটি, ম্যাচটা সম্ভবত সেখানেই জিতে যায় পাকিস্তান।

দলীয় ১০৫ রানের মাথায় ট্রেন্ট বোল্টের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান বাবর। আউট হওয়ার আগে ৪২ বলে ৫৩ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন তিনি। তবে দ্রুতগতিতে রান তুলছিলেন রিজওয়ান, তুলে নেন ফিফটিও। শেষমেশ দলীয় ১৩২ রানের মাথায় থামেন রিজওয়ান। বোল্টের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরার আগে ৪৩ বলে ৫৭ রানের বিধ্বংসী এক ইনিংস খেলেন তিনি। বাকি পথটা ভালোভাবেই পারি দিচ্ছিলেন মোহাম্মদ হারিস এবং শান মাসুদ। তবে শেষের আগের ওভারে এসে ২৬ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলে মিচেল স্যান্টনারের শিকার হয়ে সাজঘরে ফিরে যান হারিস। অন্যদিকে ৪ বলে ৩ রান করে অপরাজিত থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন মাসুদ। ৫ বল হাতে রেখে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় পাকিস্তান।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে ৪ ওভার বল করে ৩৩ রান দিয়ে ২ উইকেট তুলে নেন ট্রেন্ট বোল্ট। এছাড়া ২৬ রানে ১ উইকেট নেন মিচেল স্যান্টনার।

back to top