alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএস’কে হাজির হতে দুদকের দ্বিতীয় দফায় তলবি নোটিশ

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image
সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের নানা কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করার পর সোমবার (২০ জানুয়ারি) নির্ধারিত সময়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের হাজির হয়নি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএস ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমান শেখ। সোমবার তার দুদকে হাজির হয়ে বক্তব্য দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তিনি হাজির না হয়ে সময় চেয়েছে। দ্বিতীয় দফায় তলবি নোটিশে তাকে আগামী ২৩ জানুয়ারি হাজির হতে বলা হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য অধিদফতর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জাহিদ মালিক স্বপনের এপিএস ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমান শেখকে তলব করা হয়েছিল। সোমবার তার হাজির হওয়ার কথা। ১৯ জানুয়ারি তিনি দুদকের সময় চেয়ে আবেদন করেছেন। তাই আবারও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে নোটিশ দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে পাঠানো তলবি নোটিশে এবার তাকে আগামী ২৩ জানুয়ারি হাজির হতে বলা হয়েছে। সংস্থাটির উপ-পরিচালক মো. সামছুল আলমের সই করা নোটিশ মন্ত্রণালয়ের ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে।

বিদেশে প্রশিক্ষণের নামে অর্থ লোপাট এবং বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজে পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেয়াসহ অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু হয়েছে মন্ত্রীর এপিএসের বিরুদ্ধে। অভিযোগ উত্থাপিত হওয়ার পর গত ১৫ জানুয়ারি ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমানকে মন্ত্রীর এপিএসের পদের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। তিনি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিবের দায়িত্ব গ্রহণের আগে মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র সহকারী প্রধানের (স্বাস্থ্য-৭) দায়িত্বে ছিলেন। ২০১৯ সালের ২২ জানুয়ারি এক বদলি আদেশে তিনি নিজ দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসেবে মন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিবের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন।

দুদক সূত্র জানায়, গত ৬ বছর স্বাস্থ্য অধিদফতরে এক চেটিয়া নিয়ন্ত্রণ করনে ড. আরিফুর রহমান। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএসের দায়িত্ব পাওয়ার পর তার ক্ষমতা আরও বেড়ে যায়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে অধিদফতরের কর্মকর্তা- কর্মচারী, চিকিসৎক ও নার্সসহ বিভিন্ন ব্যক্তির বিদেশে প্রশিক্ষণের নামে অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের যাবতীয় টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ করতেন তিনি। এছাড়া কেনাকাটায় নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গেও তার যোগসূত্র রয়েছে। প্রয়োজন না থাকা সত্ত্বেও অপ্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রীসহ যাবতীয় কেনাকাটায় অতিরিক্ত বিল দিয়ে বাড়তি অর্থ নেয়ার ক্ষেত্রেও তার ভূমিকা রয়েছে বলে অভিযোগ। এসব অনিয়ম ও দূর্নীতির মাধ্যমে প্রভাবশালী এ এপিএস অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। বিদেশেও তিনি বিপুল পরিমাণ অর্থপাচার করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগ অনুসন্ধান চলছে।

ছবি

টেকনাফে ক্রিস্টাল মেথ, ইয়াবাসহ আটক ১

ছবি

ধান বোঝায় ট্রাক থেকে ৪০ কেজি গাঁজা উদ্ধার

ছবি

হেফাজত নেতা ফয়েজীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

ছবি

তাণ্ডবের মামলায় সিলেটে গ্রেপ্তার হেফাজত নেতা শাহিনুর পাশা

ছবি

চুরির ১ ঘন্টার মধ্যে চোর চক্রের ৫ সদস্য টাকাসহ গ্রেফতার

ছবি

রায়হান হত্যা: এসআই আকবরকে প্রধান আসামী করে চার্জশিট

ছবি

বাঁশখালিতে নিহতদের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে দেয়ার নির্দেশ

ছবি

ফের ৫ দিনের রিমান্ডে মামুনুল

ছবি

ধরাছোঁয়ার বাইরে মুসা ম্যানশনের মালিক মোস্তাক

ছবি

বোনের প্রেমিককে গুলি ও মারধর

ছবি

পুলিশের কাছে চোরাই স্বর্ণালংকার ক্রয়ের ঘটনাফাঁস, ভাংচুর

ছবি

নওগাঁয় ফেন্সিডিলসহ দুই নারী মাদক কারবারি আটক

ছবি

হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে ২৮টি সোনার বার উদ্ধার

ছবি

ধর্ষণের অভিযোগে মামুনুলের বিরুদ্ধে ঝর্ণার মামলা

ছবি

ইউনাইটেডে আগুনে মৃত্যু : চার পরিবারকে ২৫ লাখ করে দেওয়ার নির্দেশ

ছবি

বসুন্ধরা এমডির আগাম জামিন আবেদন এখন শুনবে না হাইকোর্ট

ছবি

ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ খেজুর ২১ হাজার কেজি জব্দ

ছবি

২ কোটি ৮৫ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল ও অন্যান্য মালামাল জব্দ

ছবি

৩ পুকুর ভরাটকারীর সাজা ভ্রাম্যমান আদালতের

ছবি

তরুণীর লাশ উদ্ধার: আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে বসুন্ধরার এমডির বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

ফের ৭ দিনের রিমান্ডে জুনায়েদ আল হাবিব

ছবি

দুই মামলায় মামুনুল হক ফের ৭ দিনের রিমান্ডে

ছবি

হিজড়া মিলন ও তার সহযোগীদেরকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ

ছবি

হেফাজতের নায়েবে আমির আবদুল কাদের ৫ দিনের রিমান্ডে

ছবি

ইরফান সেলিমের জামিন বহাল, কারামুক্তিতে বাধা নেই

ছবি

সিন্ডিকেট, বিত্তবৈভব, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য : হেফাজত নেতাদের জিজ্ঞাসাবাদ, পুলিশের ভাষ্য

ছবি

রানা প্লাজা ধস, ৮ বছরেও দুটি মামলা শেষ হয়নি

ছবি

ফের ৭ দিনের রিমান্ডে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল

ছবি

সখীপুরে রাতভর গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১

ছবি

প্রায় ১৪ কোটি ৭ লাখ টাকার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ : গ্রেফতার এক

ছবি

এবার ডিজিটাল আইনে নুরের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামে মামলা

ছবি

মুন্সীগঞ্জে গাঁজা-হেরোইনসহ দুইজন গ্রেফতার

ছবি

মা-বোনের গায়ে এসিড নিক্ষেপ করে নিজের গায়েও ঢাললেন

ছবি

৭ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

ছবি

আদালত প্রাঙ্গণে নিরাপত্তা জোরদার

ছবি

বান্দরবানে ৪ কোটি টাকার আফিমসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএস’কে হাজির হতে দুদকের দ্বিতীয় দফায় তলবি নোটিশ

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
image
সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০

অবৈধ সম্পদ অর্জন ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের নানা কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করার পর সোমবার (২০ জানুয়ারি) নির্ধারিত সময়ে দুর্নীতি দমন কমিশনের হাজির হয়নি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএস ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমান শেখ। সোমবার তার দুদকে হাজির হয়ে বক্তব্য দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু তিনি হাজির না হয়ে সময় চেয়েছে। দ্বিতীয় দফায় তলবি নোটিশে তাকে আগামী ২৩ জানুয়ারি হাজির হতে বলা হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, স্বাস্থ্য অধিদফতর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে অনিয়ম দুর্নীতির মাধ্যমে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী জাহিদ মালিক স্বপনের এপিএস ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমান শেখকে তলব করা হয়েছিল। সোমবার তার হাজির হওয়ার কথা। ১৯ জানুয়ারি তিনি দুদকের সময় চেয়ে আবেদন করেছেন। তাই আবারও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে নোটিশ দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে পাঠানো তলবি নোটিশে এবার তাকে আগামী ২৩ জানুয়ারি হাজির হতে বলা হয়েছে। সংস্থাটির উপ-পরিচালক মো. সামছুল আলমের সই করা নোটিশ মন্ত্রণালয়ের ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে।

বিদেশে প্রশিক্ষণের নামে অর্থ লোপাট এবং বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজে পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেয়াসহ অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ অনুসন্ধান শুরু হয়েছে মন্ত্রীর এপিএসের বিরুদ্ধে। অভিযোগ উত্থাপিত হওয়ার পর গত ১৫ জানুয়ারি ড. মোহাম্মদ আরিফুর রহমানকে মন্ত্রীর এপিএসের পদের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। তিনি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিবের দায়িত্ব গ্রহণের আগে মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র সহকারী প্রধানের (স্বাস্থ্য-৭) দায়িত্বে ছিলেন। ২০১৯ সালের ২২ জানুয়ারি এক বদলি আদেশে তিনি নিজ দায়িত্বের অতিরিক্ত হিসেবে মন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিবের দায়িত্বপ্রাপ্ত হন।

দুদক সূত্র জানায়, গত ৬ বছর স্বাস্থ্য অধিদফতরে এক চেটিয়া নিয়ন্ত্রণ করনে ড. আরিফুর রহমান। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এপিএসের দায়িত্ব পাওয়ার পর তার ক্ষমতা আরও বেড়ে যায়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে অধিদফতরের কর্মকর্তা- কর্মচারী, চিকিসৎক ও নার্সসহ বিভিন্ন ব্যক্তির বিদেশে প্রশিক্ষণের নামে অতিরিক্ত অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের যাবতীয় টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ করতেন তিনি। এছাড়া কেনাকাটায় নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গেও তার যোগসূত্র রয়েছে। প্রয়োজন না থাকা সত্ত্বেও অপ্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রীসহ যাবতীয় কেনাকাটায় অতিরিক্ত বিল দিয়ে বাড়তি অর্থ নেয়ার ক্ষেত্রেও তার ভূমিকা রয়েছে বলে অভিযোগ। এসব অনিয়ম ও দূর্নীতির মাধ্যমে প্রভাবশালী এ এপিএস অবৈধ সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। বিদেশেও তিনি বিপুল পরিমাণ অর্থপাচার করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগ অনুসন্ধান চলছে।

back to top