alt

সংস্কৃতি

রাজবংশী জাতিগোষ্ঠী ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নয়, বাঙ্গালী

সংবাদ :
  • অনলাইন বার্তা পরিবেশক
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image
মঙ্গলবার, ০৫ জানুয়ারী ২০২১

বাংলাদেশের রংপুর ও রাজশাহী অঞ্চল এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার, জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিং জেলার সমতল অঞ্চলে, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিন দিনাজপুর ও সালদা জেলার কিছু অংশে বাংলা ভাষাভাষির একটি জাতিগোষ্ঠী বসবাস করেন। এই জাতি গোষ্ঠীই রাজবংশী। আসামের গোয়ালাপাড়া, ধুবড়ি, মেঘালয়, বিহার ও নেপালের ঝাপা জেলাতেও এই ভাষার জাতিগোষ্ঠী বসবাস করেন। ঐতিহাসিকভাবে জানা যায়, ভারতের কোচবিহার অঞ্চল থেকে আগত মঙ্গোলীয় নৃ-গোষ্ঠী কোচ জাতির অংশ। এদের মধ্যে প্রোটো-অষ্ট্রালয়েডদের মিশ্রন পরিলক্ষিত হয়। এদের দৈহিক ও জীবন যাপনের ধারা আদি কোচ থেকে পৃথক হয়ে গিয়েছে। ষোল শতকের দ্বিতীয়ার্ধে কোচ রাজা হাজোরের বংশধরদের নেতা বিশুসিংহ তার গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের সাথে নিয়ে আদিধর্ম ত্যাগ করে হিন্দু ধর্ম গ্রহন করেন। আর কোচ রাজবংশের সন্তান হিসেবে এরাই পরবতীর্তে রাজবংশী হিসেবে পরিচিতি পান।

অন্যদিকে রাজবংশীদের একটি অংশ ইসলাম ধর্মগ্রহন করেন এবং “কেওট রাজবংশী” নামে পরিচিতি পান। তবে রাজবংশীরা প্রধাণত শিবভক্ত ও বৈষ্ণব ধর্মাবলম্বী। রাজবংশী জাতি পাহাড়, নদী, বন ও মাটিকেও উপাসনা করেন। এদের প্রধান ধর্মীয় উৎসবগুলো হলো : পাঁচকন্যা পূজা, বিষহরি পূজা, বেষমা পূজা, খরা-অনাবৃষ্টি কাটাতে হুদুমা পূজা, ব্যাঙ্গের বিয়ে প্রভৃতি। হিন্দু ধর্মাবলম্বী রাজবংশীরা নিজেদেরকে হিন্দু পৌরনিক কাহিনীর সাথে সম্পৃক্ত করে নিজেদের অভিজাত শ্রেণীর অন্তভূক্ত করার চেষ্টা করেন।

রাজবংশী জাতিগোষ্ঠীর এই পরিচয় বহনের ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন মত পরিলক্ষিত হয়। এর ফলে এই জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে কয়েকটি গোষ্ঠীর সৃষ্টি হয়েছে। যেমন: শিববংশী, পলিয়া, দেশী, জলপাইগুড়ি রাজবংশী, পাহাড়ি রাজবংশী, তোঙ্গিয়া রাজবংশী, খোপ্রিয়া ও গোব্রিয়া। রাজবংশীরা দেখতে খর্বকায, লম্বা, চ্যাপ্টা ও তীক্ষ নাক, উচু চোয়াল বিশিষ্ট এক মিশ্র জনগোষ্ঠী। বাঙ্গালীদের ন্যায় রাজবংশীদের সংকর জাতি বললে অত্যুক্তি হবে না। এদের প্রধান পেশা কৃষি। এদের মধ্যে মৎসজীবিও রয়েছে। ইসলাম ও হিন্দু র্ধম গ্রহনের পূর্বে রাজবংশীদের সমাজ ছিল মাতৃতান্ত্রিক, বর্তমানে তা পিতৃতান্ত্রিক প্রথা অনুসরন করছে।

আদি রাজবংশী (পাহাড়ি) পুরুষরা কোমরে নেংটি এবং মহিলারা কোমরে লম্বা ঝুলের কাপড় ব্যবহার করতো এবং বক্ষ বন্ধনী ব্যবহার করতো। এই জাতিগোষ্ঠী সমতলে নেমে আসার পর থেকে বাঙ্গালীদর প্রভাবে ধুতি ও শাড়ি পড়া শুরু করেন। তবে এক সময় এই রাজবংশী নারীরা হাতে বোনা মোটা ধরনের চার হাত দৈঘ্য ও আড়াই হাত প্রস্থের ’ফতা’ নামের বিশেষ পোশাক পরিধানে করতো। এই ’ফতা’ নামের পোশাক বহু বর্ণ রঞ্জিত থাকতো। এই রাজবংশী মেয়েরা কাঠ ও মাটির গহনা ব্যবহার করতো। বাঙ্গালীদর সানিধ্যে আসার পর রাজবংশী মেয়েরা ধাতব গহনা ব্যবহার শুরু করেন।

রাজবংশী জাতিগোষ্ঠীর জীবনাচরনের অনেক কিছুই বদলে গিয়েছে আবার বিলুপ্ত হয়েছে। যেমন রাজবংশীদের ভাষা প্রায় বিলুপ্ত। ভাষার বিচারে এরা বোড়ো ভাষা গোত্রভূক্ত হলেও বর্তমানে তা বিলুপ্ত। এই জাতিগোষ্ঠীর সাহিত্যের নিদর্শন কোন লিপিতেই রচিত হয়নি। এই বোড়ো ভাষার শব্দসমূহে বোড়ো ভাষার অপভ্রংশ শব্দ পরিলক্ষিত হয়। এদের ভাষায় বাংলা ক্রিয়াপদ ও বিশেষ্য পদের শেষে ও মাঝে ‘ঙ’ ‘ং’ এবং ‘ম’ এর ব্যবহার পরিলক্ষিত হয়। আর এই শব্দগুলো রাজবংশীদের কথ্য ভাষায় প্রচলিত।

এই রাজবংশী জাতিগোষ্ঠী আনন্দ প্রিয় । রাজবংশীরা পূজা পার্বনে বিভিন্ন ধরনের নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করেন। তাদের এই নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন আদিবাসী সূলভ। সমতলে আসার আগে রাজবংশীরা তাদের গানে ধামামা ও বাঁশী বেশি ব্যবহার করতো। তবে বর্তমানে তাদের নৃত্য ও সংগীতে দোতারা ও সারিন্দা ব্যবহার পরিলক্ষিত হয়।

রাজবংশীদের প্রতিষ্ঠা লাভের আন্দোলন বেশ পুরানো । আর এই রাজবংশী সমাজের প্রতিষ্ঠা লাভের ইতিহাসে স¥রনীয় ব্যক্তি হলেন ‘রায় সাহেব’ ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা। তিনি সক্রিয় সভা গঠন করে তৎকালীন সমাজের বর্নবাদী বৈষম্যের বিরূদ্ধে আন্দোলন করেন এবং রাজবংশী জাতিকে হিন্দুসমাজে সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করেন। তার এই অবদানের জন্য তাকে রাজবংশী সম্প্রদায়ের জনক বলে অভিহিত করা হয়। বাংলাদেশে রাজবংশীদের ক্ষুদ্র নৃতাত্তিক গোষ্ঠীর তালিকায় অন্তভূক্ত করা হয়। কিন্তু বাংলাদেশ রাজবংশী ডেভলাপমেন্ট ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যেগে আয়োজিত মানববন্ধনে সমগ্র রাজবংশী সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে ক্ষুদ্র নৃতাত্তিক স্বীকৃতির বিরোধিতা করেন। বিশেষভাবে উল্লেখ্য, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার এই রাজবংশী জাতিগোষ্ঠীকে বাঙ্গালী হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন।

মনিজা ইসলাম, গবেষক ও রাজনীতি বিশ্লেষক

ছবি

নব বিনির্মাণের স্রষ্টা কবি শঙ্খ ঘোষ

ছবি

বিদায় বাংলা চলচ্চিত্রের ‘মিষ্টি মেয়ে’

ছবি

বাঙালির ঐতিহাসিক উৎসবের নবায়ন

ছবি

‘মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা’

শুধু নেই সে

তোমাদের যাহাদের সাথে

ছবি

প্রাণে প্রাণ মেলানোর উৎসব

ছবি

শিয়রে করোনাক্রান্তি, বরণে ১৪২৮

ছবি

শূন্যতায় ঢিল

ছবি

আহা বৈশাখ এলো বৈশাখ

ছবি

বাংলা নববর্ষ : চিরনতুনের ডাক

বৈশাখের পঙ্ক্তিমালা

ছবি

বাংলা একাডেমির সভাপতি শামসুজ্জামান খান আর নেই

ছবি

ঢাবিতে বর্ষবরণের প্রতীকী শোভাযাত্রা

ছবি

আজ চৈত্র সংক্রান্তি, কাল পহেলা বৈশাখ

ছবি

জীবনানন্দ দাশের সরল পাঠ-উন্মোচন

ছবি

এবারও রমনার বটমূলে হচ্ছে না ছায়ানটের বর্ষবরণ

ছবি

করোনামুক্তি কামনায় পানিতে ফুল ভাসিয়ে ‘বৈসাবি’ উ‍ৎসব শুরু

ছবি

একুশে বই মেলায় ড. হারুন-অর-রশিদের ৫টি নতুন বই

ছবি

বইমেলা নিয়ে সরকারি সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় বাংলা একাডেমি

ছবি

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সাংবাদিক শাহীন রেজা নূরকে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

করোনায় কমতি ছিল না ভালোবাসার

ছবি

লেখকের খোঁজে ’রাইটার্স গ্যারাজ’

ছবি

কলকাতার ব্রিগেড প্যারেড গ্রাউন্ডে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

ছবি

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনকল্পে খেয়ালীর সাংস্কৃতিক জাগরণ ।

ছবি

এ বছর একুশে পদক পাচ্ছেন ২১ গুণীজন

ছবি

বছর ঘুরে আবার ও মঞ্চে ‘কঞ্জুস’

ছবি

এবারের বইমেলা ১৮ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত

ছবি

পূর্ণিমা তিথির মাসিক সাধুসঙ্গের ২২তম আসর

ছবি

অমর একুশে বইমেলা ১৮ মার্চ শুরু

ছবি

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার ঘোষণা

ছবি

‘হাছনজানের রাজা’ নিয়ে মঞ্চে প্রাঙ্গণেমোর

ছবি

সংঙ্গীত শিল্পী শেখ জসিম

ছবি

ইকবালের তিন ছবির শুভ মহরত অনুষ্ঠিত

ছবি

ইশরাত নিশাত স্মরণে ‘এক জীবনের থিয়েটার’ অনুষ্ঠান

ছবি

সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ সাহিত্য পুরস্কার-২০২০ পেলেন হাসান ফেরদৌস

tab

সংস্কৃতি

রাজবংশী জাতিগোষ্ঠী ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী নয়, বাঙ্গালী

সংবাদ :
  • অনলাইন বার্তা পরিবেশক
  • সংবাদ অনলাইন ডেস্ক
image
মঙ্গলবার, ০৫ জানুয়ারী ২০২১

বাংলাদেশের রংপুর ও রাজশাহী অঞ্চল এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার, জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিং জেলার সমতল অঞ্চলে, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিন দিনাজপুর ও সালদা জেলার কিছু অংশে বাংলা ভাষাভাষির একটি জাতিগোষ্ঠী বসবাস করেন। এই জাতি গোষ্ঠীই রাজবংশী। আসামের গোয়ালাপাড়া, ধুবড়ি, মেঘালয়, বিহার ও নেপালের ঝাপা জেলাতেও এই ভাষার জাতিগোষ্ঠী বসবাস করেন। ঐতিহাসিকভাবে জানা যায়, ভারতের কোচবিহার অঞ্চল থেকে আগত মঙ্গোলীয় নৃ-গোষ্ঠী কোচ জাতির অংশ। এদের মধ্যে প্রোটো-অষ্ট্রালয়েডদের মিশ্রন পরিলক্ষিত হয়। এদের দৈহিক ও জীবন যাপনের ধারা আদি কোচ থেকে পৃথক হয়ে গিয়েছে। ষোল শতকের দ্বিতীয়ার্ধে কোচ রাজা হাজোরের বংশধরদের নেতা বিশুসিংহ তার গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের সাথে নিয়ে আদিধর্ম ত্যাগ করে হিন্দু ধর্ম গ্রহন করেন। আর কোচ রাজবংশের সন্তান হিসেবে এরাই পরবতীর্তে রাজবংশী হিসেবে পরিচিতি পান।

অন্যদিকে রাজবংশীদের একটি অংশ ইসলাম ধর্মগ্রহন করেন এবং “কেওট রাজবংশী” নামে পরিচিতি পান। তবে রাজবংশীরা প্রধাণত শিবভক্ত ও বৈষ্ণব ধর্মাবলম্বী। রাজবংশী জাতি পাহাড়, নদী, বন ও মাটিকেও উপাসনা করেন। এদের প্রধান ধর্মীয় উৎসবগুলো হলো : পাঁচকন্যা পূজা, বিষহরি পূজা, বেষমা পূজা, খরা-অনাবৃষ্টি কাটাতে হুদুমা পূজা, ব্যাঙ্গের বিয়ে প্রভৃতি। হিন্দু ধর্মাবলম্বী রাজবংশীরা নিজেদেরকে হিন্দু পৌরনিক কাহিনীর সাথে সম্পৃক্ত করে নিজেদের অভিজাত শ্রেণীর অন্তভূক্ত করার চেষ্টা করেন।

রাজবংশী জাতিগোষ্ঠীর এই পরিচয় বহনের ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন মত পরিলক্ষিত হয়। এর ফলে এই জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে কয়েকটি গোষ্ঠীর সৃষ্টি হয়েছে। যেমন: শিববংশী, পলিয়া, দেশী, জলপাইগুড়ি রাজবংশী, পাহাড়ি রাজবংশী, তোঙ্গিয়া রাজবংশী, খোপ্রিয়া ও গোব্রিয়া। রাজবংশীরা দেখতে খর্বকায, লম্বা, চ্যাপ্টা ও তীক্ষ নাক, উচু চোয়াল বিশিষ্ট এক মিশ্র জনগোষ্ঠী। বাঙ্গালীদের ন্যায় রাজবংশীদের সংকর জাতি বললে অত্যুক্তি হবে না। এদের প্রধান পেশা কৃষি। এদের মধ্যে মৎসজীবিও রয়েছে। ইসলাম ও হিন্দু র্ধম গ্রহনের পূর্বে রাজবংশীদের সমাজ ছিল মাতৃতান্ত্রিক, বর্তমানে তা পিতৃতান্ত্রিক প্রথা অনুসরন করছে।

আদি রাজবংশী (পাহাড়ি) পুরুষরা কোমরে নেংটি এবং মহিলারা কোমরে লম্বা ঝুলের কাপড় ব্যবহার করতো এবং বক্ষ বন্ধনী ব্যবহার করতো। এই জাতিগোষ্ঠী সমতলে নেমে আসার পর থেকে বাঙ্গালীদর প্রভাবে ধুতি ও শাড়ি পড়া শুরু করেন। তবে এক সময় এই রাজবংশী নারীরা হাতে বোনা মোটা ধরনের চার হাত দৈঘ্য ও আড়াই হাত প্রস্থের ’ফতা’ নামের বিশেষ পোশাক পরিধানে করতো। এই ’ফতা’ নামের পোশাক বহু বর্ণ রঞ্জিত থাকতো। এই রাজবংশী মেয়েরা কাঠ ও মাটির গহনা ব্যবহার করতো। বাঙ্গালীদর সানিধ্যে আসার পর রাজবংশী মেয়েরা ধাতব গহনা ব্যবহার শুরু করেন।

রাজবংশী জাতিগোষ্ঠীর জীবনাচরনের অনেক কিছুই বদলে গিয়েছে আবার বিলুপ্ত হয়েছে। যেমন রাজবংশীদের ভাষা প্রায় বিলুপ্ত। ভাষার বিচারে এরা বোড়ো ভাষা গোত্রভূক্ত হলেও বর্তমানে তা বিলুপ্ত। এই জাতিগোষ্ঠীর সাহিত্যের নিদর্শন কোন লিপিতেই রচিত হয়নি। এই বোড়ো ভাষার শব্দসমূহে বোড়ো ভাষার অপভ্রংশ শব্দ পরিলক্ষিত হয়। এদের ভাষায় বাংলা ক্রিয়াপদ ও বিশেষ্য পদের শেষে ও মাঝে ‘ঙ’ ‘ং’ এবং ‘ম’ এর ব্যবহার পরিলক্ষিত হয়। আর এই শব্দগুলো রাজবংশীদের কথ্য ভাষায় প্রচলিত।

এই রাজবংশী জাতিগোষ্ঠী আনন্দ প্রিয় । রাজবংশীরা পূজা পার্বনে বিভিন্ন ধরনের নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন করেন। তাদের এই নৃত্য ও সংগীত পরিবেশন আদিবাসী সূলভ। সমতলে আসার আগে রাজবংশীরা তাদের গানে ধামামা ও বাঁশী বেশি ব্যবহার করতো। তবে বর্তমানে তাদের নৃত্য ও সংগীতে দোতারা ও সারিন্দা ব্যবহার পরিলক্ষিত হয়।

রাজবংশীদের প্রতিষ্ঠা লাভের আন্দোলন বেশ পুরানো । আর এই রাজবংশী সমাজের প্রতিষ্ঠা লাভের ইতিহাসে স¥রনীয় ব্যক্তি হলেন ‘রায় সাহেব’ ঠাকুর পঞ্চানন বর্মা। তিনি সক্রিয় সভা গঠন করে তৎকালীন সমাজের বর্নবাদী বৈষম্যের বিরূদ্ধে আন্দোলন করেন এবং রাজবংশী জাতিকে হিন্দুসমাজে সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠিত করেন। তার এই অবদানের জন্য তাকে রাজবংশী সম্প্রদায়ের জনক বলে অভিহিত করা হয়। বাংলাদেশে রাজবংশীদের ক্ষুদ্র নৃতাত্তিক গোষ্ঠীর তালিকায় অন্তভূক্ত করা হয়। কিন্তু বাংলাদেশ রাজবংশী ডেভলাপমেন্ট ফাউন্ডেশনের উদ্দ্যেগে আয়োজিত মানববন্ধনে সমগ্র রাজবংশী সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে ক্ষুদ্র নৃতাত্তিক স্বীকৃতির বিরোধিতা করেন। বিশেষভাবে উল্লেখ্য, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার এই রাজবংশী জাতিগোষ্ঠীকে বাঙ্গালী হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেন।

মনিজা ইসলাম, গবেষক ও রাজনীতি বিশ্লেষক

back to top