alt

উপ-সম্পাদকীয়

আত্মহত্যা প্রতিরোধযোগ্য

এমএ কবীর

: শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

কখন যে কোথা থেকে মানুষের মনে ভর করে আকাশ সমান ক্লান্তি, বিষণ্নতার কালো মেঘ আচ্ছন্ন করে ফেলে তাকে। জীবন হয়ে ওঠে এক অসহ্য যন্ত্রণার নাম। রাজ্যের নৈরাশ্য গ্রাস করে, ঘুম কেড়ে নেয় তার। কোন এক ‘ফাল্গুনের রাতের আঁধারে, যখন ডুবে যায় পঞ্চমীর চাঁদ, মরণের সাধ জাগে দুর্নিবার।’ প্রেম, স্নেহ-পৃথিবীর তাবৎ সৌন্দর্য, ঘৃণা, পিছুটান তুচ্ছ মনে হয়। অর্থশূন্য মানবজীবনের অবসানই একমাত্র কাক্সিক্ষত হয়ে ওঠে তখন।

নারীর হৃদয়-প্রেম-শিশু-গৃহ-নয় সবখানি;/অর্থ নয়, কীর্তি নয়, স্বচ্ছলতা নয়-/আরও এক বিপন্ন বিস্ময়/আমাদের অন্তর্গত রক্তের ভেতরে/খেলা করে;/আমাদের ক্লান্ত করে;/ক্লান্ত-ক্লান্ত করে:’

আত্মহত্যার মনো-সামাজিক উদ্দীপক এমনই এক রহস্য। জীবনানন্দের মৃত্যুও বুঝি সে কারণেই রহস্যই থেকে গেল!

কী আশ্চর্য! ফাল্গুনের রাতই কেন বেছে নিলেন তিনি?

আত্মহত্যা বা আত্মহনন (ইংরেজি: Suicide) হচ্ছে কোনো ব্যক্তি কর্তৃক ইচ্ছাকৃতভাবে নিজের জীবন বিসর্জন দেয়া বা স্বেচ্ছায় নিজের প্রাণনাশের প্রক্রিয়াবিশেষ। ল্যাটিন ভাষায় সুই সেইডেয়ার থেকে আত্মহত্যা শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে নিজেকে হত্যা করা। ডাক্তার বা চিকিৎসকগণ আত্মহত্যার চেষ্টা করাকে মানসিক অবসাদজনিত গুরুতর উপসর্গ হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন। ইতোমধ্যেই বিশ্বের অনেক দেশেই আত্মহত্যার প্রচেষ্টাকে এক ধরনের অপরাধরূপে ঘোষণা করা হয়েছে। যিনি নিজেই নিজের জীবন প্রাণ বিনাশ করেন, তিনি - আত্মঘাতক, আত্মঘাতী বা আত্মঘাতিকা, আত্মঘাতিনীরূপে সমাজে পরিচিত হন।

প্রতিবছর প্রায় ১০ লাখ মানুষ আত্মহত্যা করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে সারা বিশ্বে যে সব কারণে মানুষের মৃত্যু ঘটে তার মধ্যে আত্মহত্যা ত্রয়োদশতম প্রধান কারণ।

একমাত্র বাসযোগ্য ও ছায়া সুনিবিড় এই পৃথিবী থেকে মানুষের বিয়োগাত্মক পরিণতি বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে। তার মধ্যে অন্যতম অনাকাক্সিক্ষত কারণ আত্মহত্যা। যার সঙ্গে একান্তভাবে জড়িত আমাদের চারপাশের পরিবেশ এবং ব্যক্তির আবেগ বা মন। বিভিন্ন অভিজ্ঞতা আর তা থেকে জন্ম নেয়া তীব্র কষ্ট, হতাশাসহ অন্যান্য নেতিবাচক বিষয়ের সম্মিলিত ও চূড়ান্ত পরিণতি আত্মহত্যা।

আত্মহত্যায় প্রতি ৪০ সেকেন্ডে একজন মানুষ পৃথিবী থেকে বিদায় নিচ্ছেন। করোনাকালীন সময়ে এক বছরে বাংলাদেশে আত্মহত্যায় মৃত্যু হয়েছে ১৪ হাজারেরও বেশি মানুষের। ডব্লিউএইচও’র তথ্যমতে, বিশ্বে মোট আত্মহত্যার ৭৭ শতাংশ ঘটছে স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে। বিশ্বজুড়ে ১৫-২৯ বছর বয়সীদের চতুর্থ সর্বোচ্চ মৃত্যুর কারণ আত্মহত্যা।

যেসব কারণে মানুষ আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়, এর অন্যতম হচ্ছে বুলিং। চরম হতাশা ও অসহায় বোধ থেকে কিশোর-কিশোরীরা এই পথে পা বাড়ায়। মাদকাসক্তের মতো সমাজবিরোধী আচরণও আত্মহত্যার প্রবণতা বাড়ায়। বাংলাদেশে যেসব পারিবারিক, সামাজিক ও আর্থিক কারণে আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা যায় সেগুলো হলো- সাইবার ক্রাইমের শিকার, যৌতুক প্রথা, বাবা-মায়ের মধ্যে সুসম্পর্ক না থাকা, পারিবারিক কলহ, পরকীয়া, প্রেমে ব্যর্থতা, চাকরি হারানো, দীর্ঘদিনের বেকারত্ব, দরিদ্রতা, প্রতারণার শিকার, ব্যবসায় বড় ধরনের ক্ষতি, প্রিয়জনের মৃত্যু, পরীক্ষায় আশানুরূপ ফল না পাওয়া, সন্তানের প্রতি বাবা-মায়ের তাচ্ছিল্য, মূল্যবোধের অবক্ষয়, পারিবারিক, ধর্মীয় ও সামাজিক দায়িত্ববোধের অভাব, যৌন সহিংসতা এবং নির্যাতনের শিকার হওয়া ইত্যাদি। আত্মহত্যার প্রবণতা তরুণ-তরুণীদের মধ্যে বেশি। বখাটেদের উৎপাতের কারণে কেউ আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে, আবার মা-বাবার সামান্য বকুনির কারণেও আত্মহননের মতো ঘটনা ঘটছে। মানসিক অশান্তি, সন্ত্রাস, আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপট, রাজনৈতিক অস্থিরতা, সামাজিক নিরাপত্তাহীনতা ইত্যাদি বিষয়ের সঙ্গেও জড়িত আছে আত্মহত্যার মতো ধ্বংসাত্মক ঘটনা। এসব আত্মহত্যার পেছনে কাজ করে প্রচন্ড মনস্তাত্ত্বিক চাপ। ফলে ভারসাম্য হারিয়ে তা সহ্য করতে না পেরেই আত্মহননের মধ্য দিয়ে দুর্বল চিত্তের ব্যক্তিরা মুক্তি খোঁজে।

এছাড়াও, আত্মহত্যা প্রবণতার অন্যতম কারণ বিষণœতা, ইনসমনিয়া ও সিজোফ্রেনিয়ার মতো মানসিক অসুস্থতা। বঞ্চনা, ক্ষোভ, একাকিত্ব, সামাজিক বিচ্ছিন্নতাও আত্মহত্যার ঝুঁকি বাড়ায়। বর্তমানে সাইবার বুলিংয়ের কারণে আত্মহত্যা সংশ্লিষ্ট আচরণ ক্রমেই বাড়ছে।

আত্মহত্যা নিয়ে আমাদের সমাজে কিছু স্টিগমা আছে। যেমন : আত্মহত্যা প্রবণতাকে ব্যক্তির গুরুতর সমস্যা হিসেবে আমরা মেনে নিই না। ফলে এই সমস্যা থেকে বাঁচতে ব্যক্তি নিজে অন্যের সাহায্য চাইতে আগ্রহ দেখায় না। আবার অন্যরাও আত্মহত্যাপ্রবণ ব্যক্তিকে সাহায্য করার বিষয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখেন না।

দ্রুত পরিবর্তনশীল এ সামাজিক পরিস্থিতিতে অনেকেই আত্মহত্যা করতে পারেন। কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীদের মধ্যে এর ঝুঁকি বেশি। প্রাণঘাতী এ সমস্যা থেকে তাদের উদ্ধারে সমাজের যে কেউ হতে পারেন একজন সক্রিয় কর্মী। এজন্য আত্মহত্যার আর্লি ওয়ার্নিং সাইন বা পূর্বাভাস সম্পর্কে সবার ধারণা থাকা প্রয়োজন।

আত্মহত্যার আর্লি ওয়ার্নিং সাইন হলো, বার বার মরে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করা, নিজেকে আঘাত করা, হঠাৎ করে ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন, ঘুম না হওয়া, খাওয়া-দাওয়ায় অনীহা, চরম হতাশা, পাপবোধ, চরম লজ্জিত ও অপদস্থবোধ ইত্যাদি। এছাড়াও, মৃত্যু-সংক্রান্ত গান, চিত্রাঙ্কন ও লেখায় তার আগ্রহ বেড়ে যেতে পারে। নিজের প্রিয় জিনিসপত্র অন্যকে বিলিয়ে দেয়া, হঠাৎ করেই সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা, এ সবই আত্মহত্যা প্রবণতার লক্ষণ। যারা আত্মহত্যার কথা চিন্তা করেন, তাদের কথা-বার্তায় সরাসরি মৃত্যুর কথা প্রকাশ পায়। এছাড়াও, কিছু শারীরিক ও আচরণগত পরিবর্তন দেখা যায়। যেমন : দ্রুত ওজন বেড়ে যাওয়া, নিজের যত্ন নেয়া ছেড়ে দেয়া, শরীরের বিভিন্ন জায়গায় দাগ, কাটা, ঘা বা ইনজেকশনের সূচের দাগ।

যদি কখনো মনে হয় যে, আপনার পাশের মানুষটি এ ধরনের পদক্ষেপ নিতে পারে, তবে দেরি না করে তার কাছে সরাসরি এ বিষয়ে জানতে চান। এক মুহূর্ত দেরি না করে উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। প্রথমেই তার কাছে সরাসরি জানতে হবে, সে আত্মহত্যার কথা ভাবছে কিনা, সে কতখানি ঝুঁকিতে আছে, নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে পরখ করতে হবে। আপনি নিজে যদি এ বিষয়ে জানতে আত্মবিশ্বাসী বা অভিজ্ঞ না হয়ে থাকেন, তবে দ্রুত এমন কাউকে খুঁজে বের করতে হবে, যিনি এ বিষয়ে জানেন।

আত্মহত্যা প্রবণতাকে ব্যক্তির গুরুতর সমস্যা হিসেবে আমরা মেনে নিই না। ফলে এই সমস্যা থেকে বাঁচতে ব্যক্তি নিজে অন্যের সাহায্য চাইতে আগ্রহ দেখায় না

আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা যায় কিনা? হ্যাঁ, আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব। তার জন্য সময়মত বাস্তবসম্মত ব্যবস্থা নেয়া দরকার। এরই মধ্যে জাতীয় আত্মহত্যা প্রতিরোধ কৌশল নিয়েছে বিশ্বের ৩৮টি দেশ। বেশকিছু দেশ নিজেদের স্বাস্থ্য খাতে এ বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে অন্তর্ভুক্ত করেছে।

আত্মহত্যা এমন একটি জনস্বাস্থ্য সমস্যা, যা প্রতিরোধযোগ্য। একে মোকাবিলা করতে প্রয়োজন সমন্বিত পদক্ষেপ। আত্মহত্যা প্রতিরোধের চারটি প্রমাণিত ও কার্যকর ইন্টারভেনশনের সুপারিশ আছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার। এগুলো হলো- আত্মহত্যার সরঞ্জাম হাতের কাছে সহজলভ্য না রাখা (যেমন : কীটনাশক, আগ্নেয়াস্ত্র, নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ ইত্যাদি)। আত্মহত্যা নিয়ে দায়িত্বশীল প্রতিবেদন প্রচারে গণমাধ্যমকে যুক্ত করে প্রশিক্ষণ প্রদান। কিশোর-কিশোরীদের সামাজিক ও আবেগীয় জীবন দক্ষতায় পারদর্শী করা। আত্মঘাতী আচরণ দ্রুত শনাক্ত করা, যাচাই করা, ব্যবস্থা নেয়া এবং ফলোআপ করা।

মনে রাখতে হবে, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা দ্রুত নিলে আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব। কেউ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকলে আমরা যে কয়টি পদক্ষেপ নেব, তা হলো, অন্য কাউকে জানানো, পরিবারের কেউ হলে ভালো হয়, দ্রুত বিশেষজ্ঞের সাহায্য নেয়া, আত্মহত্যা প্রবণ ব্যক্তি যতক্ষণ পর্যন্ত কোন সাহায্যের আওতায় না আসছে, ততক্ষণ পর্যন্ত তাকে একা না ছাড়া।

আত্মহত্যার চিন্তা মাথায় এলে তা লুকিয়ে রাখবেন না। বন্ধু বা বিশ্বস্ত কোন ব্যক্তির সঙ্গে তা শেয়ার করুন। নিজের ওয়ার্নিং সাইনগুলো চিনুন। ওয়ার্নিং সাইনগুলো দেখামাত্র বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। এছাড়া, আত্মহত্যার চিন্তা থেকে দূরে রাখে এমন কাজে দ্রুত সম্পৃক্ত হোন, সামাজিক সম্পর্কগুলো বাড়ান এবং মানসিক সহায়তা দিতে পারবে এমন কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন, ক্ষতিকর ও বিষাক্ত দ্রব্য যা দিয়ে আপনি আত্মহত্যার চেষ্টা করতে পারেন, তা আশপাশ থেকে সরিয়ে ফেলুন, নিজ দায়িত্বে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। যেমন : ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট, প্র্যাকটিসিং সাইকোলজিস্ট, সাইকিয়াট্রিস্ট অথবা সাইকোথেরাপিস্ট।

একটি বেসরকারি সংস্থা আঁচলের গত মার্চের আত্মহত্যাবিষয়ক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারা দেশে করোনাকালে পুরুষের চেয়ে নারীরা বেশি আত্মহত্যা করেছে। ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মোট আত্মহত্যার ঘটনা ১৪ হাজার ৪৩৬টি। এর মধ্যে নারীর আত্মহত্যার ঘটনা ৮ হাজার ২২৮টি এবং পুরুষের আত্মহত্যার ঘটনা ৬ হাজার ২০৮টি। আত্মহত্যার ঘটনা পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ২০ থেকে ৩৫ বছর বয়সী রয়েছেন ৪৯ শতাংশ, ৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী ৩৫ শতাংশ, ৩৬ থেকে ৪৫ বছর বয়সী ১১ শতাংশ।

দেশের আত্মহত্যাপ্রবণ অন্যতম দুটি জেলা ঝিনাইদহ ও ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, আত্মহত্যার মাসভিত্তিক প্রবণতায় খুব কমই হেরফের হয়। এর মধ্যে ঝিনাইদহ জেলায় আত্মহত্যার হার সবচেয়ে বেশি। ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত পুলিশ ডেটা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এ জেলায় মার্চ ও আগস্টে আত্মহত্যার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি থাকে। ২০১৯ সালের আগস্ট পর্যন্ত উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এ গবেষণার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। ঝিনাইদহ জেলার ২০১৮ সাল ও ২০১৯ সালের আগস্ট পর্যন্ত প্রাপ্ত পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে মার্চ-এপ্রিল-মে এবং জুন-জুলাই-আগস্ট এই সময়কালে মোট আত্মহত্যার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি এ পর্যবেক্ষণের পক্ষে সমর্থন পাওয়া গেছে।

২০২০ সালে প্রতি লাখে আত্মহত্যার হার ছিল ১০ দশমিক ৫। তবে এ হার দেশভেদে ৫ থেকে ৩০ পর্যন্ত। আত্মহত্যায় মোট মৃত্যুর হিসাবে ৭৯ শতাংশ ঘটেছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশে। উচ্চ আয়ের দেশে আত্মহত্যা হার বরাবরের মতো সবচেয়ে বেশি; দেখা গেছে, লাখে ১১ দশমিক ৫। উচ্চ আয়ের দেশে পুরুষদের মধ্যে আত্মহত্যার হার নারীর প্রায় তিনগুণ। তবে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশে দুই লিঙ্গের মধ্যে পার্থক্য খুব কম দেখা গেছে। নারীদের ক্ষেত্রে মাতৃ মৃত্যুর পরে মৃত্যুর প্রধান কারণ আত্মহত্যা। আর ছেলেদের অপমৃত্যুর প্রথম কারণ সড়ক দুর্ঘটনা, দ্বিতীয় সহিংসতা এবং তৃতীয় আত্মহত্যা।

আত্মহত্যার প্রধান কৌশল গলায় ফাঁস দেয়া, এর পর রয়েছে কীটনাশক পান ও আগ্নেয়াস্ত্র। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক তথ্য-উপাত্ত বলছে, আত্মহত্যার কৌশলে তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। যদিও কৃষিপ্রধান দেশগুলোতে বা গ্রামীণ এলাকায় কীটনাশক পানে আত্মহত্যার ঘটনা বেশি।

আত্মহত্যার বিষয়টিকে ভারত কিন্তু গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। আত্মহত্যাকে অপরাধ হিসেবে গণ্য না করতে ২০১৭ সালে আইন সংশোধন করেছে দেশটি। বাংলাদেশে আত্মহত্যায় সহায়তা বা প্ররোচনাদানকারীকে দন্ডবিধির ৩০৬ ধারা অনুযায়ী ১০ বছরের কারাদন্ড দেয়ার বিধান রয়েছে। এছাড়া আত্মহত্যার চেষ্টাকারীর শাস্তি দন্ডবিধির ৩০৯ ধারায় এক বছর কারাদন্ডের বিধান আছে। যদিও এমন আইন আত্মহত্যা প্রতিরোধে সহায়ক হয়, এমন কোন প্রমাণ নেই।

আত্মহত্যা নিয়ে সমাজতাত্ত্বিক গবেষণায় এমিল ডুর্খেইম সর্বপ্রথম তাত্ত্বিকভাবে প্রমাণ করেন ‘আত্মহত্যা কোন ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত নয়; বরং আত্মহত্যার প্রধান কারণগুলো সামাজিক। সমাজের নানামুখী শক্তির কারণেই মানুষ আত্মহত্যায় বাধ্য হয়। তিনি দেখিয়েছেন, একটি সমাজের সামাজিক অবস্থা, লিঙ্গ, বয়স, ধর্মীয় বিশ্বাস, বৈবাহিক অবস্থা, পারিবারিক পরিবেশ, রাষ্ট্রের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, অর্থনৈতিক পরিবেশ ইত্যাদি কারণে আত্মহত্যার হার প্রভাবিত হয়।

(লেখক : সভাপতি,

ঝিনাইদহ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটি)

ছবি

নয়ন সমুখে তুমি নেই

ছবি

স্মরণ:কিংবদন্তি সাধক ফকির লালন শাহ

বজ্রপাতে মৃত্যু ও বিলুপ্ত তালগাছ

হায় হায় কোম্পানির ফাঁদ

ধর্মনিরপেক্ষতা, বামফ্রন্ট এবং পশ্চিমবঙ্গের বর্তমান সরকার

ছবি

যিনি আমাদের পদার্থবিজ্ঞানের রূপ, রস, বর্ণ ও গন্ধ চিনিয়েছেন

বেশি মজুরি তত্ত্বে অর্থনীতির নোবেল

‘বেতন আলোচনা সাপেক্ষ’

বর্গী সেনাপতি ভাস্কর পন্ডিতের অসমাপ্ত দুর্গাপূজা

ছবি

এবারের শারদীয় দুর্গোৎসব

নিয়ন্ত্রণহীন পণ্যের বাজার, লাগাম টানবে কে?

নিরাময় অযোগ্য রোগীদের জন্য প্যালিয়েটিভ কেয়ার

আখভিত্তিক চিনিশিল্প উদ্ধারে কী করা যায়

‘ম্যাকবেথ’-এর আলোকে বঙ্গবন্ধু ও রাজা ডানকান হত্যাকান্ডের প্রেক্ষাপট ও নিষ্ঠুরতা

পাঠ্যপুস্তকে ভুল

জমি জবরদখল করলেই মালিক হওয়া যাবে?

ছবি

নীলিমা ইব্রাহিম : বাংলার নারী জাগরণের প্রতিভূ

বিশ্ব ডাক দিবস ও বাংলাদেশ ডাক বিভাগ

কৃষিপণ্যে মূল্য সংযোজন ও আন্তর্জাতিক বাজার

আগাছা-পরগাছা ভর করে বটবৃক্ষে

রোহিঙ্গা সংকটের শেষ কোথায়

তথ্য প্রাপ্তির অধিকার

করোনাকালে তরুণদের মানসিক ব্যাধি ও করণীয়

রবীন্দ্রনাথের চুলও লম্বা ছিল

ফোনে আড়িপাতা রোধ ও ফোনালাপ ফাঁস হওয়া সংক্রান্ত রিট

প্রাথমিক বিদ্যালয় রি-ওপেনিংকে ফলপ্রসূ করার পথ

গণতন্ত্রকে সঙ সাজিয়ে সংবিধান ভন্ডুলের প্রবণতা

সাংবাদিকদের ব্যাংক হিসাব তলব দুরভিসন্ধিমূলক

প্রমিথিউস : মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা আন্দোলনের চিরন্তন প্রেরণা

পারিবারিক কৃষির রূপ ও রূপান্তর

রাষ্ট্র কি সবার করা গেল

আদিবাসী-হরিজনরাও মানুষ

বিশ্বব্যাংকের ডুয়িং বিজনেস সূচক

ব-দ্বীপ মহাপরিকল্পনা

জাতি গঠনের কারিগর

সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতিতে হ-য-ব-র-ল নিয়ম

tab

উপ-সম্পাদকীয়

আত্মহত্যা প্রতিরোধযোগ্য

এমএ কবীর

শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১

কখন যে কোথা থেকে মানুষের মনে ভর করে আকাশ সমান ক্লান্তি, বিষণ্নতার কালো মেঘ আচ্ছন্ন করে ফেলে তাকে। জীবন হয়ে ওঠে এক অসহ্য যন্ত্রণার নাম। রাজ্যের নৈরাশ্য গ্রাস করে, ঘুম কেড়ে নেয় তার। কোন এক ‘ফাল্গুনের রাতের আঁধারে, যখন ডুবে যায় পঞ্চমীর চাঁদ, মরণের সাধ জাগে দুর্নিবার।’ প্রেম, স্নেহ-পৃথিবীর তাবৎ সৌন্দর্য, ঘৃণা, পিছুটান তুচ্ছ মনে হয়। অর্থশূন্য মানবজীবনের অবসানই একমাত্র কাক্সিক্ষত হয়ে ওঠে তখন।

নারীর হৃদয়-প্রেম-শিশু-গৃহ-নয় সবখানি;/অর্থ নয়, কীর্তি নয়, স্বচ্ছলতা নয়-/আরও এক বিপন্ন বিস্ময়/আমাদের অন্তর্গত রক্তের ভেতরে/খেলা করে;/আমাদের ক্লান্ত করে;/ক্লান্ত-ক্লান্ত করে:’

আত্মহত্যার মনো-সামাজিক উদ্দীপক এমনই এক রহস্য। জীবনানন্দের মৃত্যুও বুঝি সে কারণেই রহস্যই থেকে গেল!

কী আশ্চর্য! ফাল্গুনের রাতই কেন বেছে নিলেন তিনি?

আত্মহত্যা বা আত্মহনন (ইংরেজি: Suicide) হচ্ছে কোনো ব্যক্তি কর্তৃক ইচ্ছাকৃতভাবে নিজের জীবন বিসর্জন দেয়া বা স্বেচ্ছায় নিজের প্রাণনাশের প্রক্রিয়াবিশেষ। ল্যাটিন ভাষায় সুই সেইডেয়ার থেকে আত্মহত্যা শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হচ্ছে নিজেকে হত্যা করা। ডাক্তার বা চিকিৎসকগণ আত্মহত্যার চেষ্টা করাকে মানসিক অবসাদজনিত গুরুতর উপসর্গ হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন। ইতোমধ্যেই বিশ্বের অনেক দেশেই আত্মহত্যার প্রচেষ্টাকে এক ধরনের অপরাধরূপে ঘোষণা করা হয়েছে। যিনি নিজেই নিজের জীবন প্রাণ বিনাশ করেন, তিনি - আত্মঘাতক, আত্মঘাতী বা আত্মঘাতিকা, আত্মঘাতিনীরূপে সমাজে পরিচিত হন।

প্রতিবছর প্রায় ১০ লাখ মানুষ আত্মহত্যা করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে সারা বিশ্বে যে সব কারণে মানুষের মৃত্যু ঘটে তার মধ্যে আত্মহত্যা ত্রয়োদশতম প্রধান কারণ।

একমাত্র বাসযোগ্য ও ছায়া সুনিবিড় এই পৃথিবী থেকে মানুষের বিয়োগাত্মক পরিণতি বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে। তার মধ্যে অন্যতম অনাকাক্সিক্ষত কারণ আত্মহত্যা। যার সঙ্গে একান্তভাবে জড়িত আমাদের চারপাশের পরিবেশ এবং ব্যক্তির আবেগ বা মন। বিভিন্ন অভিজ্ঞতা আর তা থেকে জন্ম নেয়া তীব্র কষ্ট, হতাশাসহ অন্যান্য নেতিবাচক বিষয়ের সম্মিলিত ও চূড়ান্ত পরিণতি আত্মহত্যা।

আত্মহত্যায় প্রতি ৪০ সেকেন্ডে একজন মানুষ পৃথিবী থেকে বিদায় নিচ্ছেন। করোনাকালীন সময়ে এক বছরে বাংলাদেশে আত্মহত্যায় মৃত্যু হয়েছে ১৪ হাজারেরও বেশি মানুষের। ডব্লিউএইচও’র তথ্যমতে, বিশ্বে মোট আত্মহত্যার ৭৭ শতাংশ ঘটছে স্বল্প ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে। বিশ্বজুড়ে ১৫-২৯ বছর বয়সীদের চতুর্থ সর্বোচ্চ মৃত্যুর কারণ আত্মহত্যা।

যেসব কারণে মানুষ আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়, এর অন্যতম হচ্ছে বুলিং। চরম হতাশা ও অসহায় বোধ থেকে কিশোর-কিশোরীরা এই পথে পা বাড়ায়। মাদকাসক্তের মতো সমাজবিরোধী আচরণও আত্মহত্যার প্রবণতা বাড়ায়। বাংলাদেশে যেসব পারিবারিক, সামাজিক ও আর্থিক কারণে আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা যায় সেগুলো হলো- সাইবার ক্রাইমের শিকার, যৌতুক প্রথা, বাবা-মায়ের মধ্যে সুসম্পর্ক না থাকা, পারিবারিক কলহ, পরকীয়া, প্রেমে ব্যর্থতা, চাকরি হারানো, দীর্ঘদিনের বেকারত্ব, দরিদ্রতা, প্রতারণার শিকার, ব্যবসায় বড় ধরনের ক্ষতি, প্রিয়জনের মৃত্যু, পরীক্ষায় আশানুরূপ ফল না পাওয়া, সন্তানের প্রতি বাবা-মায়ের তাচ্ছিল্য, মূল্যবোধের অবক্ষয়, পারিবারিক, ধর্মীয় ও সামাজিক দায়িত্ববোধের অভাব, যৌন সহিংসতা এবং নির্যাতনের শিকার হওয়া ইত্যাদি। আত্মহত্যার প্রবণতা তরুণ-তরুণীদের মধ্যে বেশি। বখাটেদের উৎপাতের কারণে কেউ আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছে, আবার মা-বাবার সামান্য বকুনির কারণেও আত্মহননের মতো ঘটনা ঘটছে। মানসিক অশান্তি, সন্ত্রাস, আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপট, রাজনৈতিক অস্থিরতা, সামাজিক নিরাপত্তাহীনতা ইত্যাদি বিষয়ের সঙ্গেও জড়িত আছে আত্মহত্যার মতো ধ্বংসাত্মক ঘটনা। এসব আত্মহত্যার পেছনে কাজ করে প্রচন্ড মনস্তাত্ত্বিক চাপ। ফলে ভারসাম্য হারিয়ে তা সহ্য করতে না পেরেই আত্মহননের মধ্য দিয়ে দুর্বল চিত্তের ব্যক্তিরা মুক্তি খোঁজে।

এছাড়াও, আত্মহত্যা প্রবণতার অন্যতম কারণ বিষণœতা, ইনসমনিয়া ও সিজোফ্রেনিয়ার মতো মানসিক অসুস্থতা। বঞ্চনা, ক্ষোভ, একাকিত্ব, সামাজিক বিচ্ছিন্নতাও আত্মহত্যার ঝুঁকি বাড়ায়। বর্তমানে সাইবার বুলিংয়ের কারণে আত্মহত্যা সংশ্লিষ্ট আচরণ ক্রমেই বাড়ছে।

আত্মহত্যা নিয়ে আমাদের সমাজে কিছু স্টিগমা আছে। যেমন : আত্মহত্যা প্রবণতাকে ব্যক্তির গুরুতর সমস্যা হিসেবে আমরা মেনে নিই না। ফলে এই সমস্যা থেকে বাঁচতে ব্যক্তি নিজে অন্যের সাহায্য চাইতে আগ্রহ দেখায় না। আবার অন্যরাও আত্মহত্যাপ্রবণ ব্যক্তিকে সাহায্য করার বিষয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখেন না।

দ্রুত পরিবর্তনশীল এ সামাজিক পরিস্থিতিতে অনেকেই আত্মহত্যা করতে পারেন। কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীদের মধ্যে এর ঝুঁকি বেশি। প্রাণঘাতী এ সমস্যা থেকে তাদের উদ্ধারে সমাজের যে কেউ হতে পারেন একজন সক্রিয় কর্মী। এজন্য আত্মহত্যার আর্লি ওয়ার্নিং সাইন বা পূর্বাভাস সম্পর্কে সবার ধারণা থাকা প্রয়োজন।

আত্মহত্যার আর্লি ওয়ার্নিং সাইন হলো, বার বার মরে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করা, নিজেকে আঘাত করা, হঠাৎ করে ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন, ঘুম না হওয়া, খাওয়া-দাওয়ায় অনীহা, চরম হতাশা, পাপবোধ, চরম লজ্জিত ও অপদস্থবোধ ইত্যাদি। এছাড়াও, মৃত্যু-সংক্রান্ত গান, চিত্রাঙ্কন ও লেখায় তার আগ্রহ বেড়ে যেতে পারে। নিজের প্রিয় জিনিসপত্র অন্যকে বিলিয়ে দেয়া, হঠাৎ করেই সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা, এ সবই আত্মহত্যা প্রবণতার লক্ষণ। যারা আত্মহত্যার কথা চিন্তা করেন, তাদের কথা-বার্তায় সরাসরি মৃত্যুর কথা প্রকাশ পায়। এছাড়াও, কিছু শারীরিক ও আচরণগত পরিবর্তন দেখা যায়। যেমন : দ্রুত ওজন বেড়ে যাওয়া, নিজের যত্ন নেয়া ছেড়ে দেয়া, শরীরের বিভিন্ন জায়গায় দাগ, কাটা, ঘা বা ইনজেকশনের সূচের দাগ।

যদি কখনো মনে হয় যে, আপনার পাশের মানুষটি এ ধরনের পদক্ষেপ নিতে পারে, তবে দেরি না করে তার কাছে সরাসরি এ বিষয়ে জানতে চান। এক মুহূর্ত দেরি না করে উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। প্রথমেই তার কাছে সরাসরি জানতে হবে, সে আত্মহত্যার কথা ভাবছে কিনা, সে কতখানি ঝুঁকিতে আছে, নিরপেক্ষ দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে পরখ করতে হবে। আপনি নিজে যদি এ বিষয়ে জানতে আত্মবিশ্বাসী বা অভিজ্ঞ না হয়ে থাকেন, তবে দ্রুত এমন কাউকে খুঁজে বের করতে হবে, যিনি এ বিষয়ে জানেন।

আত্মহত্যা প্রবণতাকে ব্যক্তির গুরুতর সমস্যা হিসেবে আমরা মেনে নিই না। ফলে এই সমস্যা থেকে বাঁচতে ব্যক্তি নিজে অন্যের সাহায্য চাইতে আগ্রহ দেখায় না

আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা যায় কিনা? হ্যাঁ, আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব। তার জন্য সময়মত বাস্তবসম্মত ব্যবস্থা নেয়া দরকার। এরই মধ্যে জাতীয় আত্মহত্যা প্রতিরোধ কৌশল নিয়েছে বিশ্বের ৩৮টি দেশ। বেশকিছু দেশ নিজেদের স্বাস্থ্য খাতে এ বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে অন্তর্ভুক্ত করেছে।

আত্মহত্যা এমন একটি জনস্বাস্থ্য সমস্যা, যা প্রতিরোধযোগ্য। একে মোকাবিলা করতে প্রয়োজন সমন্বিত পদক্ষেপ। আত্মহত্যা প্রতিরোধের চারটি প্রমাণিত ও কার্যকর ইন্টারভেনশনের সুপারিশ আছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার। এগুলো হলো- আত্মহত্যার সরঞ্জাম হাতের কাছে সহজলভ্য না রাখা (যেমন : কীটনাশক, আগ্নেয়াস্ত্র, নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ ইত্যাদি)। আত্মহত্যা নিয়ে দায়িত্বশীল প্রতিবেদন প্রচারে গণমাধ্যমকে যুক্ত করে প্রশিক্ষণ প্রদান। কিশোর-কিশোরীদের সামাজিক ও আবেগীয় জীবন দক্ষতায় পারদর্শী করা। আত্মঘাতী আচরণ দ্রুত শনাক্ত করা, যাচাই করা, ব্যবস্থা নেয়া এবং ফলোআপ করা।

মনে রাখতে হবে, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা দ্রুত নিলে আত্মহত্যা প্রতিরোধ করা সম্ভব। কেউ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকলে আমরা যে কয়টি পদক্ষেপ নেব, তা হলো, অন্য কাউকে জানানো, পরিবারের কেউ হলে ভালো হয়, দ্রুত বিশেষজ্ঞের সাহায্য নেয়া, আত্মহত্যা প্রবণ ব্যক্তি যতক্ষণ পর্যন্ত কোন সাহায্যের আওতায় না আসছে, ততক্ষণ পর্যন্ত তাকে একা না ছাড়া।

আত্মহত্যার চিন্তা মাথায় এলে তা লুকিয়ে রাখবেন না। বন্ধু বা বিশ্বস্ত কোন ব্যক্তির সঙ্গে তা শেয়ার করুন। নিজের ওয়ার্নিং সাইনগুলো চিনুন। ওয়ার্নিং সাইনগুলো দেখামাত্র বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। এছাড়া, আত্মহত্যার চিন্তা থেকে দূরে রাখে এমন কাজে দ্রুত সম্পৃক্ত হোন, সামাজিক সম্পর্কগুলো বাড়ান এবং মানসিক সহায়তা দিতে পারবে এমন কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন, ক্ষতিকর ও বিষাক্ত দ্রব্য যা দিয়ে আপনি আত্মহত্যার চেষ্টা করতে পারেন, তা আশপাশ থেকে সরিয়ে ফেলুন, নিজ দায়িত্বে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন। যেমন : ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিস্ট, প্র্যাকটিসিং সাইকোলজিস্ট, সাইকিয়াট্রিস্ট অথবা সাইকোথেরাপিস্ট।

একটি বেসরকারি সংস্থা আঁচলের গত মার্চের আত্মহত্যাবিষয়ক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারা দেশে করোনাকালে পুরুষের চেয়ে নারীরা বেশি আত্মহত্যা করেছে। ২০২০ সালের মার্চ থেকে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মোট আত্মহত্যার ঘটনা ১৪ হাজার ৪৩৬টি। এর মধ্যে নারীর আত্মহত্যার ঘটনা ৮ হাজার ২২৮টি এবং পুরুষের আত্মহত্যার ঘটনা ৬ হাজার ২০৮টি। আত্মহত্যার ঘটনা পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ২০ থেকে ৩৫ বছর বয়সী রয়েছেন ৪৯ শতাংশ, ৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী ৩৫ শতাংশ, ৩৬ থেকে ৪৫ বছর বয়সী ১১ শতাংশ।

দেশের আত্মহত্যাপ্রবণ অন্যতম দুটি জেলা ঝিনাইদহ ও ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, আত্মহত্যার মাসভিত্তিক প্রবণতায় খুব কমই হেরফের হয়। এর মধ্যে ঝিনাইদহ জেলায় আত্মহত্যার হার সবচেয়ে বেশি। ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত পুলিশ ডেটা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, এ জেলায় মার্চ ও আগস্টে আত্মহত্যার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি থাকে। ২০১৯ সালের আগস্ট পর্যন্ত উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এ গবেষণার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। ঝিনাইদহ জেলার ২০১৮ সাল ও ২০১৯ সালের আগস্ট পর্যন্ত প্রাপ্ত পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে মার্চ-এপ্রিল-মে এবং জুন-জুলাই-আগস্ট এই সময়কালে মোট আত্মহত্যার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি এ পর্যবেক্ষণের পক্ষে সমর্থন পাওয়া গেছে।

২০২০ সালে প্রতি লাখে আত্মহত্যার হার ছিল ১০ দশমিক ৫। তবে এ হার দেশভেদে ৫ থেকে ৩০ পর্যন্ত। আত্মহত্যায় মোট মৃত্যুর হিসাবে ৭৯ শতাংশ ঘটেছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশে। উচ্চ আয়ের দেশে আত্মহত্যা হার বরাবরের মতো সবচেয়ে বেশি; দেখা গেছে, লাখে ১১ দশমিক ৫। উচ্চ আয়ের দেশে পুরুষদের মধ্যে আত্মহত্যার হার নারীর প্রায় তিনগুণ। তবে নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশে দুই লিঙ্গের মধ্যে পার্থক্য খুব কম দেখা গেছে। নারীদের ক্ষেত্রে মাতৃ মৃত্যুর পরে মৃত্যুর প্রধান কারণ আত্মহত্যা। আর ছেলেদের অপমৃত্যুর প্রথম কারণ সড়ক দুর্ঘটনা, দ্বিতীয় সহিংসতা এবং তৃতীয় আত্মহত্যা।

আত্মহত্যার প্রধান কৌশল গলায় ফাঁস দেয়া, এর পর রয়েছে কীটনাশক পান ও আগ্নেয়াস্ত্র। বাংলাদেশের সাম্প্রতিক তথ্য-উপাত্ত বলছে, আত্মহত্যার কৌশলে তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। যদিও কৃষিপ্রধান দেশগুলোতে বা গ্রামীণ এলাকায় কীটনাশক পানে আত্মহত্যার ঘটনা বেশি।

আত্মহত্যার বিষয়টিকে ভারত কিন্তু গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে। আত্মহত্যাকে অপরাধ হিসেবে গণ্য না করতে ২০১৭ সালে আইন সংশোধন করেছে দেশটি। বাংলাদেশে আত্মহত্যায় সহায়তা বা প্ররোচনাদানকারীকে দন্ডবিধির ৩০৬ ধারা অনুযায়ী ১০ বছরের কারাদন্ড দেয়ার বিধান রয়েছে। এছাড়া আত্মহত্যার চেষ্টাকারীর শাস্তি দন্ডবিধির ৩০৯ ধারায় এক বছর কারাদন্ডের বিধান আছে। যদিও এমন আইন আত্মহত্যা প্রতিরোধে সহায়ক হয়, এমন কোন প্রমাণ নেই।

আত্মহত্যা নিয়ে সমাজতাত্ত্বিক গবেষণায় এমিল ডুর্খেইম সর্বপ্রথম তাত্ত্বিকভাবে প্রমাণ করেন ‘আত্মহত্যা কোন ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত নয়; বরং আত্মহত্যার প্রধান কারণগুলো সামাজিক। সমাজের নানামুখী শক্তির কারণেই মানুষ আত্মহত্যায় বাধ্য হয়। তিনি দেখিয়েছেন, একটি সমাজের সামাজিক অবস্থা, লিঙ্গ, বয়স, ধর্মীয় বিশ্বাস, বৈবাহিক অবস্থা, পারিবারিক পরিবেশ, রাষ্ট্রের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, অর্থনৈতিক পরিবেশ ইত্যাদি কারণে আত্মহত্যার হার প্রভাবিত হয়।

(লেখক : সভাপতি,

ঝিনাইদহ জেলা রিপোর্টার্স ইউনিটি)

back to top