alt

সারাদেশ

ভালুকায় বোরো ধানে চিটা কৃষকের মাথায় হাত

প্রতিনিধি, ভালুকা (ময়মনসিংহ) : বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে থোরধান চিটায় পরিণত হয়ে মরে যাচ্ছে। এতে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পরছেন।

১৭ এপ্রিল বুধবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার মেদুয়ারী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় কৃষকের বোরো ধান খেত মরে সাদা হয়ে গেছে। দূর থেকে দেখে মনে হয় সবুজ ধান খেতের মাঝখানে সাদা চিটা ধানের শিষ বাতাসে দুলছে। আসলে ধানের শিষ গুলোতে কোন চাল নেই শুধুই পাতলা ধানের চোঁচা। হাত দিয়ে স্পর্শ করলে মনে হয় ধানগুলো সম্পূর্ণ চিটায় পাতলা হয়ে গেছে।

মরা চিটা ধান হাতে কৃষক বিধান বাবু জানান তিনি ৩২ শতাংশ জমিতে ব্রি-ধান ২৮ জাতের আবাদ করেছিলেন। এতে তিনি হালচাষ বাবদ ১৬০০ টাকা, রোপন ২০০০ টাকা, এক হাজার টাকার সার, বীজ ৩০০ টাকা, পানি সেচ বাবদ ৩২০০ টাকা ও ৩০০ টাকার কীটনাশক দিয়েছেন। তার খেতের ধান সম্পূর্ণ মরে চিটা হওয়ায় ২০ মণ ধানের খেতে ২০ কেজি ধানও পাবেন না বলে তিনি জানান।

তিনি জানান, তার ও আশপাশের অনেকের ধান মরে চিটা হলেও কৃষি বিভাগের কেউ খেতের কাছে আসেননি। তিনি একটি ধান গাছের গোড়ার অংশ বের করে দেখান যেখানে মাইজ কাটা কালো দাগ রয়েছে। মাইজ কাটার কারণে ধানের শিষ মরে চিটা হয়ে ছড়া গুলো সাদা হয়ে গছে। প্রতিষেধক হিসেবে কৃষি বিভাগের পরামর্শ না পাওয়ায় তারা স্থানীয় কীটনাশক দোকানির পরামর্শে খেতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। ওই গ্রামের কৃষক বুইশ্যার ৫৬ শতাংশ জমির ধান চিটা হওয়ার কারণে কেটে গোখাদ্য হিসেবে বাজারে বিক্রি করেছেন বলে জানা গেছে।

একই এলাকার কৃষক বাছির উদ্দীন জানান তার ২৪ শতাংশ জমির বোরো ধান সম্পূর্ণ শীষ মরে চিটা হয়ে গেছে। স্থানীয় কীটনাশক দোকান হতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। একই গ্রামের লাল মিয়ার ১১ কাঠা (৭৭) শতাংশ জমির ধান মরে সম্পুর্ণ চিটা হয়ে গেছে। একই এলাকার খলিলের ৫৬ শতাংশ, আতাবদ্দির (৪২) শতাংশ, মিন্টুর (৩৫) শতাংশ, বাবুল মিয়ার (২১) শতাংশ ও সফিকুল ইসলামের (২৮) শতাংশ সহ আরও অনেকের ধান চিটা হয়ে গেছে।

এসব কৃষকদের ঘরে একমুঠো বোরো ধান উঠবেনা বলে তারা জানিয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ সঠিক পরামর্শে আক্রান্ত ফসলে ওষুধ প্রয়োগ করতে না পারায় তাদের ধান নষ্ট হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে বুধবার সকাল সোয়া ১২টার দিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নুসরাত জাহানকে অফিসে না পেয়ে সরকারি নাম্বারে বার বার ফোন দিলে তা বন্ধ দেখানোয় ব্যক্তিগত নাম্বারে ফোন দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

ছবি

গাজীপুরে গর্ভবতী নারীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা, একজন আটক

পীরগাছায় একজনকে পিটিয়ে হত্যা, গ্রেপ্তার ১

রাজশাহীতে রাস্তার পাশে মানবদেহের কাটা পা উদ্ধার

বাগেরহাটের মোংলা সমুদ্রবন্দরসহ সুন্দরবন উপকুলে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত, জলোচ্ছাসের তীব্রতা বৃদ্ধি

ছবি

এমপি সুমনের বিরুদ্ধে চেয়ারম্যান প্রার্থীর অভিযোগ

ছবি

বাগেরহাটে নদীর পানি বিপদসীমার ওপরে

ছবি

ঘূর্ণিঝড় রেমাল মোকাবিলায় বরগুনায় প্রস্তুত ৬৭৩টি আশ্রয়কেন্দ্র ও ৩টি মুজিব কিল্লা

ছবি

গাজীপুরের কোরবানির পশুর হাট কাঁপাবে ভাওয়াল রাজা

ছবি

রেমালের প্রভাবে উত্তাল সাগর, দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

নারায়ণগঞ্জে সড়কে প্রাণ গেল অন্তঃসত্ত্বা নারীর

ছবি

৬০ জন যাত্রী নিয়ে মোংলায় নৌকাডুবি

ছবি

ঘূর্ণিঝড় রেমাল : কক্সবাজার ছাড়ছেন পর্যটকরা, বিমান উঠা নামা বন্ধ

ছবি

রিমালের প্রভাবে চাঁদপুর থেকে সবধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ

ছবি

ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’ আঘাত হানতে পারে রোববার সন্ধ্যায়

সব সাম্যের বেলায় বারবার নজরুল ফিরে আসেন আমাদের মাঝে: সমাজকল্যাণ মন্ত্রী

ঘূণিঝড় রেমালের প্রভাব,বরগুনায় বেড়েছে জোয়ারের পানি, প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল,প্রশাসনের প্রস্ততি সভা

ছবি

নওগাঁ হামলার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর, গ্রেপ্তার ৮

ছবি

রুয়েট শিক্ষার্থীর ‘ঝুলন্ত’ লাশ উদ্ধার

ছবি

বান্দরবানে গুলি, পাল্টা গুলিতে পাহাড়ে বসবাসরতরা নিরাপত্তা হুমকিতে

ছবি

শরীয়তপুরে অস্ত্রও উদ্ধার, নারী আটক

বশেমুরকৃবি ফিশারিজ অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের ১ম পুনর্মিলন উদযাপিত

ছবি

ভোলায় উপকূলের বাসিন্দাদের সচেতনতায় মাইকিং

ছবি

জামালপুরে রিকশাচালকের লাশ উদ্ধার

ছবি

রাণীশংকৈলে স্বর্ণের খোঁজে মাটি খুঁড়ছেন কয়েক হাজার মানুষ

ছবি

সামান্য উত্তর দিকে এগিয়েছে বঙ্গোপসাগরের গভীর নিম্নচাপ

ছবি

সিলেটে আরেকটি কূপের সন্ধান

শার্শায় শালিসি বৈঠকে যুবককে পিটিয়ে হত্যা

সখীপুরে আগুনে পুড়ল ১১ দোকান, তিন কোটি টাকার ক্ষতি

ঘুমধুম সীমান্তে মাইন বিস্ফোরণে আহত ২ একজনের অবস্থা আশংকা জনক

সৌদি আরবে আরেক বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু

ছবি

গাজীপুরে আগুন পুড়লো কলোনির ৭০টি ঘর

ছবি

উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন, পুড়েছে ৩ শতাধিক বসতি

ছবি

ঝিনাইদহে প্রবাসীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ছবি

বাঁশখালী ছনুয়া-কুতুবদিয়া জেটিঘাট এখন মরণ ফাঁদ

আখতারুজ্জামান, শিমুল-এরা কারা

ছবি

টানা তাপপ্রাবাহে ফলন তলানিতে, বাজারে চড়া দাম লিচুর

tab

সারাদেশ

ভালুকায় বোরো ধানে চিটা কৃষকের মাথায় হাত

প্রতিনিধি, ভালুকা (ময়মনসিংহ)

বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

চলতি বোরো মৌসুমে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে থোরধান চিটায় পরিণত হয়ে মরে যাচ্ছে। এতে কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে পরছেন।

১৭ এপ্রিল বুধবার সকাল ৯টার দিকে উপজেলার মেদুয়ারী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় কৃষকের বোরো ধান খেত মরে সাদা হয়ে গেছে। দূর থেকে দেখে মনে হয় সবুজ ধান খেতের মাঝখানে সাদা চিটা ধানের শিষ বাতাসে দুলছে। আসলে ধানের শিষ গুলোতে কোন চাল নেই শুধুই পাতলা ধানের চোঁচা। হাত দিয়ে স্পর্শ করলে মনে হয় ধানগুলো সম্পূর্ণ চিটায় পাতলা হয়ে গেছে।

মরা চিটা ধান হাতে কৃষক বিধান বাবু জানান তিনি ৩২ শতাংশ জমিতে ব্রি-ধান ২৮ জাতের আবাদ করেছিলেন। এতে তিনি হালচাষ বাবদ ১৬০০ টাকা, রোপন ২০০০ টাকা, এক হাজার টাকার সার, বীজ ৩০০ টাকা, পানি সেচ বাবদ ৩২০০ টাকা ও ৩০০ টাকার কীটনাশক দিয়েছেন। তার খেতের ধান সম্পূর্ণ মরে চিটা হওয়ায় ২০ মণ ধানের খেতে ২০ কেজি ধানও পাবেন না বলে তিনি জানান।

তিনি জানান, তার ও আশপাশের অনেকের ধান মরে চিটা হলেও কৃষি বিভাগের কেউ খেতের কাছে আসেননি। তিনি একটি ধান গাছের গোড়ার অংশ বের করে দেখান যেখানে মাইজ কাটা কালো দাগ রয়েছে। মাইজ কাটার কারণে ধানের শিষ মরে চিটা হয়ে ছড়া গুলো সাদা হয়ে গছে। প্রতিষেধক হিসেবে কৃষি বিভাগের পরামর্শ না পাওয়ায় তারা স্থানীয় কীটনাশক দোকানির পরামর্শে খেতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। ওই গ্রামের কৃষক বুইশ্যার ৫৬ শতাংশ জমির ধান চিটা হওয়ার কারণে কেটে গোখাদ্য হিসেবে বাজারে বিক্রি করেছেন বলে জানা গেছে।

একই এলাকার কৃষক বাছির উদ্দীন জানান তার ২৪ শতাংশ জমির বোরো ধান সম্পূর্ণ শীষ মরে চিটা হয়ে গেছে। স্থানীয় কীটনাশক দোকান হতে ওষুধ দিয়েও কোন ফল পাননি। একই গ্রামের লাল মিয়ার ১১ কাঠা (৭৭) শতাংশ জমির ধান মরে সম্পুর্ণ চিটা হয়ে গেছে। একই এলাকার খলিলের ৫৬ শতাংশ, আতাবদ্দির (৪২) শতাংশ, মিন্টুর (৩৫) শতাংশ, বাবুল মিয়ার (২১) শতাংশ ও সফিকুল ইসলামের (২৮) শতাংশ সহ আরও অনেকের ধান চিটা হয়ে গেছে।

এসব কৃষকদের ঘরে একমুঠো বোরো ধান উঠবেনা বলে তারা জানিয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ সঠিক পরামর্শে আক্রান্ত ফসলে ওষুধ প্রয়োগ করতে না পারায় তাদের ধান নষ্ট হয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে বুধবার সকাল সোয়া ১২টার দিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নুসরাত জাহানকে অফিসে না পেয়ে সরকারি নাম্বারে বার বার ফোন দিলে তা বন্ধ দেখানোয় ব্যক্তিগত নাম্বারে ফোন দিলে রিসিভ না করায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

back to top