alt

ক্যাম্পাস

এক প্রতিবাদী ফুলপরীর গল্প

রুমি নোমান, ইবি : বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

পাবনা জেলার আটঘরিয়া উপজেলার অখ্যাত এক গ্রাম শিবপুরে জন্ম তার। ভ্যানচালক বাবা ও গৃহিণী মায়ের চার সন্তানের মধ্যে তিনি তৃতীয়। বড় দুই ভাইবোন উচ্চশিক্ষার সর্বোচ্চ দুটি বিদ্যাপীঠে অধ্যয়নরত। অগ্রজদের দেখানো পথেই হেঁটেছেন তিনিও। চোখে মুখে স্বপ্ন আর উচ্ছ্বাস নিয়ে পা রাখেন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি শুরু হয় ক্লাস। সবকিছু ঠিকই চলছিল, কিন্তু হঠাৎ বিপত্তি দেখা দেয় আবাসিক হলে ওঠা নিয়ে। এরপর দুই দফায় নির্যাতনের শিকার হয়ে পালিয়ে যান আপন নীড়ে। কিন্তু থেমে যাননি তিনি। সেই অদম্য প্রতিবাদী কন্যার নাম ফুলপরী খাতুন।

জানা যায়, ঘটনাটি ছিল ছাত্রলীগ নেত্রীর অনুমতি নেয়া কে কেন্দ্র করে। দেশরত্ন শেখ হাসিনা আবাসিক হলে ফুলপরী ওঠেন এক পরিচিত বড় বোনের সিটে। বিষয়টি জানতে পেরে গত ১১ ও ১২ ফেব্রুয়ারি দুই দফায় ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী ফুলপরীকে রাতভর নির্যাতনের শিকার হতে হয়। এ ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সানজিদা চৌধুরী অন্তরা, ফিন্যান্স বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের তাবাসসুমসহ আরও ৭-৮ জন জড়িত বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ছাত্রী।

তবে এ ঘটনায় চুপসে যাননি তিনি। বাবার সাহস আর পরিবারের সহযোগিতায় আবারো ফিরে আসেন ক্যাম্পাসে। প্রতিবাদমুখর হয়ে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল প্রাধ্যক্ষ, প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা বরাবর অভিযোগ দেন তিনি।

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ফুলপরী বলেন, বাবা কখনো অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি। তিনি হয়তো খুব ক্ষুদ্র পেশার মানুষ কিন্তু সে সৎ ও নিষ্ঠাবান।

আমাদেরকে শিখিয়েছেন অন্যায়ের সঙ্গে আপোস না করতে। এমনকি তিনি আজীবন এভাবেই অন্যায়ের প্রতিবাদ করবেন বলে দৃঢ়প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

ওই শিক্ষার্থী বলেন, আমি কখনো অন্যায়ের সঙ্গে আপোস করবো না। আমি আমার সাধ্যমত অন্যায়ের প্রতিবাদ করে যাবো।

তার এ সাহসিকতাকে সাধুবাদ জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ছাড়াও দেশের নানা মানুষ। তাদের ভাষ্যমতে, প্রতিবাদী হতে যে মানসিকতা বা সাহস থাকা দরকার ফুলপরী সেটা দেখিয়েছে। আর প্রতিবাদ করলে যে হাজারো মানুষ তার পাশে দাঁড়াতে পারে, তারও উদাহরণ ফুলপরীর সঙ্গে ঘটে যাওয়া এই ঘটনাটি লক্ষ্য করলে বোঝা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক ড. মুঈদ রহমান বলেন, আমরা যখন রাজনীতি করতাম শিক্ষার্থীদের কীভাবে সহযোগিতা করা যায়। কিন্তু এখন হচ্ছে জবরদস্তিমূলক সংগঠন। জাতীয়ভাবে এর পরিবর্তন না হলে, এই ধরনের মানসিকতা পরিবর্তন কঠিন। তবে ফুলপরী যে প্রতিবাদ করেছে, সে সমাজের তথা রাজনীতির অসহিষ্ণু অবস্থা তুলে ধরেছে। আমি তাকে সাধুবাদ জানাই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অ্যালামনাইয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাকারিয়া হায়দার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় সাংস্কৃতিক বন্ধ্যাত্বসহ নানা বিষয়ে প্রতিবাদ করেছি। কারণ প্রতিবাদই হতে পারে মুক্তির পথ। এর জন্য আমরাও বিভিন্ন সময় হুমকি ও নির্যাতনের শিকার হয়েছি। কিন্তু সমাজের যেকোন অসঙ্গতির বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়ানো উচিত। ফুলপরী সেটি করে দেখিয়েছে।

ফুলপরীর বাবা আতাউর রহমান বলেন, আমার মেয়ে বাড়ি এসে আমার কাছে ঘটনা বলল। তখন ভেবেছি আজ আমার মেয়ের ওপর হয়েছে, সামনে আরও হাজার হাজার মেয়ের ওপর হবে। অন্যায়ের প্রতিবাদ করছি আমরা, যাতে অন্যায় প্রশ্রয় না পায়। আমি এর সুষ্ঠু বিচার ও কঠিন শাস্তি চাই। আমার মেয়ের ওপর যে অত্যাচার হয়েছে তা যেন অন্য কোন বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজে না ঘটে।

সেদিন রাতের ঘটনা উল্লেখ করে ফুলপরী বলেন, অন্তরা আপু, তাবাসসুম, উর্মি, মিম, মুয়াবিয়াসহ ৭-৮ জন আপু উপস্থিত ছিল। তারা নানাভাবে আমাকে ভয়ভীতি দেখিয়েছে। আপুরা হুমকি দিয়ে বলছিল, ‘এসব বাইরে বললে একেবারে মেরে ফেলবো। তোকে উলঙ্গ করে এখান থেকে বের করে দেব। এই কথা বাইরে গেলে ভিডিও ভাইরাল করে দেব।’

তারা আমাকে নির্যাতন করে আনন্দ পাচ্ছিল, হাসাহাসি করছিল। তারা এতটাই মজা পাচ্ছিলেন যে রাত পার হয়ে যাচ্ছে সেদিকে তাদের খেয়াল নেই এমন নির্যাতনের পর অনেকেই ভয়ে আতঙ্কগ্রস্ত ছিল। কিন্তু ওই হলের কেউ কিছু বলার সাহস পায়নি।

ফুলপরী আরও বলেন, আমার সঙ্গে যা হয়েছে তা তো আর ফিরে আসবে না। তবে অভিযুক্তদের এমন শাস্তি হোক যেন আর কেউ এমন কিছু করার সাহস না দেখায়। আমি তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। আর আমি ক্যাম্পাসে ফিরতে চাই। নিয়মিত ক্লাস, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে চাই। আগের থেকে আরও বেশি পড়াশোনা করে আমার স্বপ্ন পূরণ করতে চাই।

কথা বলতে বলতে অনেকটা সময় পেরিয়ে যায়। ফুলপরীও গণমাধ্যমের মুখোমুখি হতে হতে ক্লান্ত অনেকটা। তবু তার চোখে মুখে কিছুটা তৃপ্তির পাশাপাশি সন্ধিহান দৃষ্টি। সে দৃষ্টি যেনো বলে উঠছে, আসলেই কি আমি বিচার পাবো? স্বাভাবিক ভাবে পড়াশোনা করে স্বপ্ন যাত্রায় অংশ নিতে পারবো কি?

এ প্রশ্নের জবাব কেবলই মিলতে পারে, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেলে।

প্রসঙ্গত, এ ঘটনায় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন গত ১৬ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের নজরে আনেন আইনজীবী গাজী মো. মহসীন ও আজগর হোসেন তুহিন। তখন তাদের লিখিত আবেদন দিতে বলেন আদালত। সে অনুসারে তারা জনস্বার্থে রিট করেন।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি রিটের শুনানি শেষে একজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও একজন প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তার সমন্বয়ে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এছাড়া অভিযুক্তদের ক্যাম্পাসের বাইরে রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি গঠন করা হয় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি।

এরই মাঝে গত শনিবার, সোমবার ও বুধবার ভুক্তভোগী এবং অভিযুক্তদের তদন্ত সাক্ষাৎকার সম্পন্ন হয়েছে।

এছাড়া ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, মহিলা পরিষদ, ছাত্র ইউনিয়ন, সাদা দল, জিয়া পরিষদ থেকে প্রতিবাদলিপি, মানববন্ধনসহ সারাদেশে নিন্দার ঝড় উঠেছে।

ছবি

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে জবিতে আন্তর্জাতিক সেমিনার

ছবি

নতুন ক্যাম্পাসের ঘাট ও এক ভবন নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

ছবি

বাধঁন জবি ইউনিটের নেতৃত্বে বিজয়-মেহেদী

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে নানান অসঙ্গতি

ছবি

ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতার কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার, প্রাধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ধামাচাপা দেওয়ার অভিযোগ

ছবি

গুচ্ছ ২৪ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি আবেদনের সময় বাড়ল

ছবি

শেষ হলো ঢাবির ‘সি’ ইউনিটের পরীক্ষা

আজ শুরু হলো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিযুদ্ধ, আসন প্রতি লড়বে ১০৮ জন

ছবি

জবি শিক্ষকদের রুমে লুকিয়ে চিঠি, আটকের পর জানা গেল হিযবুত তাহরীর সদস্য

ছবি

জবিতে শহীদ দিবস উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

রাবির হল প্রাধ্যক্ষকে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি, কক্ষ সিলগালা

ছবি

জবির প্রক্টরিয়াল বডিতে নতুন দুই মুখ

ছবি

পাঁচ দফা দাবিতে জাবিতে নিপীড়নবিরোধী মঞ্চের মশাল মিছিল

ছবি

জবির নতুন প্রক্টর অধ্যাপক জাহাঙ্গীর

ছবি

জবি ছাত্রলীগের মারামারির দুই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ২১ মার্চ

ছবি

রাবিতে যথাযোগ্য মর্যাদায় শিক্ষক দিবস পালিত

ছবি

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি মুছে ফেলার প্রতিবাদে দ্বিতীয় দিনেও আমরণ অনশনে জাবির ২ ছাত্রলীগ নেতা

ছবি

জবিতে জাতীয় স্নাতক গণিত অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত

ছবি

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি মুছে ফেলার প্রতিবাদে ছাত্রলীগ নেতার আমরণ অনশন

ছবি

জবি ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, আহত অন্তত ১০

ছবি

জবিতে সরস্বতী পূজায় নারী পুরোহিত

ঢাবিতে ক্যান্টিন মালিকের দাড়ি ছিঁড়ে ছাত্রলীগ নেতা বহিষ্কার

ছবি

৩৬ পূজামণ্ডপে হবে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা

ঢাবি সাংবাদিকের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের জন্য প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইলেন দুই ছাত্রলীগ নেতা

ছবি

জাবিতে পাঁচ দফা দাবিতে প্রতীকী অবরোধ

ঢাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে যৌন ইঙ্গিতপূর্ণ কথা ও গোপন ক্যামেরায় ছাত্রীকে নজরদারির অভিযোগ

ছবি

দিনব্যাপী নানা আয়োজনে উন্মুক্ত লাইব্রেরির দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

ছবি

শিক্ষার্থীদের মনোজগতে মানবিক বাংলাদেশ সৃষ্টির আগ্রহ তৈরি করা জরুরি: উপাচার্য মশিউর রহমান

মোটরসাইকেলের হর্ন না শুনায় শিক্ষার্থীকে জবি ছাত্রলীগ নেতার মারধর

ছবি

আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় জুডোতে স্বর্ণপদক পেলেন জবি শিক্ষার্থী ইমন

ছবি

জবি চলচ্চিত্র সংসদের নেতৃত্বে সৈকত-রিক

ছবি

জবিতে পঞ্চম আবৃত্তি উৎসব অনুষ্ঠিত

ছবি

জাবিতে ধর্ষণের প্রতিবাদের নতুন প্ল্যাটফর্ম ‘নিপীড়নবিরোধী মঞ্চ’

ছবি

অবৈধভাবে অবস্থানরত শিক্ষার্থীদের ৫ দিনের মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ

ছবি

জবির প্রক্টরিয়াল বডিতে বড় পরিবর্তন

জাবিতে ধর্ষণের ঘটনায় ৬ জনের সনদ স্থগিত, বহিষ্কৃত ৩

tab

ক্যাম্পাস

এক প্রতিবাদী ফুলপরীর গল্প

রুমি নোমান, ইবি

বৃহস্পতিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

পাবনা জেলার আটঘরিয়া উপজেলার অখ্যাত এক গ্রাম শিবপুরে জন্ম তার। ভ্যানচালক বাবা ও গৃহিণী মায়ের চার সন্তানের মধ্যে তিনি তৃতীয়। বড় দুই ভাইবোন উচ্চশিক্ষার সর্বোচ্চ দুটি বিদ্যাপীঠে অধ্যয়নরত। অগ্রজদের দেখানো পথেই হেঁটেছেন তিনিও। চোখে মুখে স্বপ্ন আর উচ্ছ্বাস নিয়ে পা রাখেন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি শুরু হয় ক্লাস। সবকিছু ঠিকই চলছিল, কিন্তু হঠাৎ বিপত্তি দেখা দেয় আবাসিক হলে ওঠা নিয়ে। এরপর দুই দফায় নির্যাতনের শিকার হয়ে পালিয়ে যান আপন নীড়ে। কিন্তু থেমে যাননি তিনি। সেই অদম্য প্রতিবাদী কন্যার নাম ফুলপরী খাতুন।

জানা যায়, ঘটনাটি ছিল ছাত্রলীগ নেত্রীর অনুমতি নেয়া কে কেন্দ্র করে। দেশরত্ন শেখ হাসিনা আবাসিক হলে ফুলপরী ওঠেন এক পরিচিত বড় বোনের সিটে। বিষয়টি জানতে পেরে গত ১১ ও ১২ ফেব্রুয়ারি দুই দফায় ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রী ফুলপরীকে রাতভর নির্যাতনের শিকার হতে হয়। এ ঘটনায় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সানজিদা চৌধুরী অন্তরা, ফিন্যান্স বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের তাবাসসুমসহ আরও ৭-৮ জন জড়িত বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ছাত্রী।

তবে এ ঘটনায় চুপসে যাননি তিনি। বাবার সাহস আর পরিবারের সহযোগিতায় আবারো ফিরে আসেন ক্যাম্পাসে। প্রতিবাদমুখর হয়ে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল প্রাধ্যক্ষ, প্রক্টর ও ছাত্র উপদেষ্টা বরাবর অভিযোগ দেন তিনি।

সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ফুলপরী বলেন, বাবা কখনো অন্যায়ের কাছে মাথানত করেননি। তিনি হয়তো খুব ক্ষুদ্র পেশার মানুষ কিন্তু সে সৎ ও নিষ্ঠাবান।

আমাদেরকে শিখিয়েছেন অন্যায়ের সঙ্গে আপোস না করতে। এমনকি তিনি আজীবন এভাবেই অন্যায়ের প্রতিবাদ করবেন বলে দৃঢ়প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

ওই শিক্ষার্থী বলেন, আমি কখনো অন্যায়ের সঙ্গে আপোস করবো না। আমি আমার সাধ্যমত অন্যায়ের প্রতিবাদ করে যাবো।

তার এ সাহসিকতাকে সাধুবাদ জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ছাড়াও দেশের নানা মানুষ। তাদের ভাষ্যমতে, প্রতিবাদী হতে যে মানসিকতা বা সাহস থাকা দরকার ফুলপরী সেটা দেখিয়েছে। আর প্রতিবাদ করলে যে হাজারো মানুষ তার পাশে দাঁড়াতে পারে, তারও উদাহরণ ফুলপরীর সঙ্গে ঘটে যাওয়া এই ঘটনাটি লক্ষ্য করলে বোঝা যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক ড. মুঈদ রহমান বলেন, আমরা যখন রাজনীতি করতাম শিক্ষার্থীদের কীভাবে সহযোগিতা করা যায়। কিন্তু এখন হচ্ছে জবরদস্তিমূলক সংগঠন। জাতীয়ভাবে এর পরিবর্তন না হলে, এই ধরনের মানসিকতা পরিবর্তন কঠিন। তবে ফুলপরী যে প্রতিবাদ করেছে, সে সমাজের তথা রাজনীতির অসহিষ্ণু অবস্থা তুলে ধরেছে। আমি তাকে সাধুবাদ জানাই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অ্যালামনাইয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাকারিয়া হায়দার বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় সাংস্কৃতিক বন্ধ্যাত্বসহ নানা বিষয়ে প্রতিবাদ করেছি। কারণ প্রতিবাদই হতে পারে মুক্তির পথ। এর জন্য আমরাও বিভিন্ন সময় হুমকি ও নির্যাতনের শিকার হয়েছি। কিন্তু সমাজের যেকোন অসঙ্গতির বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়ানো উচিত। ফুলপরী সেটি করে দেখিয়েছে।

ফুলপরীর বাবা আতাউর রহমান বলেন, আমার মেয়ে বাড়ি এসে আমার কাছে ঘটনা বলল। তখন ভেবেছি আজ আমার মেয়ের ওপর হয়েছে, সামনে আরও হাজার হাজার মেয়ের ওপর হবে। অন্যায়ের প্রতিবাদ করছি আমরা, যাতে অন্যায় প্রশ্রয় না পায়। আমি এর সুষ্ঠু বিচার ও কঠিন শাস্তি চাই। আমার মেয়ের ওপর যে অত্যাচার হয়েছে তা যেন অন্য কোন বিশ্ববিদ্যালয় বা কলেজে না ঘটে।

সেদিন রাতের ঘটনা উল্লেখ করে ফুলপরী বলেন, অন্তরা আপু, তাবাসসুম, উর্মি, মিম, মুয়াবিয়াসহ ৭-৮ জন আপু উপস্থিত ছিল। তারা নানাভাবে আমাকে ভয়ভীতি দেখিয়েছে। আপুরা হুমকি দিয়ে বলছিল, ‘এসব বাইরে বললে একেবারে মেরে ফেলবো। তোকে উলঙ্গ করে এখান থেকে বের করে দেব। এই কথা বাইরে গেলে ভিডিও ভাইরাল করে দেব।’

তারা আমাকে নির্যাতন করে আনন্দ পাচ্ছিল, হাসাহাসি করছিল। তারা এতটাই মজা পাচ্ছিলেন যে রাত পার হয়ে যাচ্ছে সেদিকে তাদের খেয়াল নেই এমন নির্যাতনের পর অনেকেই ভয়ে আতঙ্কগ্রস্ত ছিল। কিন্তু ওই হলের কেউ কিছু বলার সাহস পায়নি।

ফুলপরী আরও বলেন, আমার সঙ্গে যা হয়েছে তা তো আর ফিরে আসবে না। তবে অভিযুক্তদের এমন শাস্তি হোক যেন আর কেউ এমন কিছু করার সাহস না দেখায়। আমি তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। আর আমি ক্যাম্পাসে ফিরতে চাই। নিয়মিত ক্লাস, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে চাই। আগের থেকে আরও বেশি পড়াশোনা করে আমার স্বপ্ন পূরণ করতে চাই।

কথা বলতে বলতে অনেকটা সময় পেরিয়ে যায়। ফুলপরীও গণমাধ্যমের মুখোমুখি হতে হতে ক্লান্ত অনেকটা। তবু তার চোখে মুখে কিছুটা তৃপ্তির পাশাপাশি সন্ধিহান দৃষ্টি। সে দৃষ্টি যেনো বলে উঠছে, আসলেই কি আমি বিচার পাবো? স্বাভাবিক ভাবে পড়াশোনা করে স্বপ্ন যাত্রায় অংশ নিতে পারবো কি?

এ প্রশ্নের জবাব কেবলই মিলতে পারে, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেলে।

প্রসঙ্গত, এ ঘটনায় গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন গত ১৬ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের নজরে আনেন আইনজীবী গাজী মো. মহসীন ও আজগর হোসেন তুহিন। তখন তাদের লিখিত আবেদন দিতে বলেন আদালত। সে অনুসারে তারা জনস্বার্থে রিট করেন।

গত ১৭ ফেব্রুয়ারি রিটের শুনানি শেষে একজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও একজন প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তার সমন্বয়ে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। এছাড়া অভিযুক্তদের ক্যাম্পাসের বাইরে রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি গঠন করা হয় বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি।

এরই মাঝে গত শনিবার, সোমবার ও বুধবার ভুক্তভোগী এবং অভিযুক্তদের তদন্ত সাক্ষাৎকার সম্পন্ন হয়েছে।

এছাড়া ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন, মহিলা পরিষদ, ছাত্র ইউনিয়ন, সাদা দল, জিয়া পরিষদ থেকে প্রতিবাদলিপি, মানববন্ধনসহ সারাদেশে নিন্দার ঝড় উঠেছে।

back to top