alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

দুই বছরের দণ্ড ২৭ বছর পর বাতিল, রায়ের কপি যাচ্ছে সব আদালতে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

তিন দশক আগে নীলফামারীতে গরু চুরির মামলায় দণ্ডিত এক আসামিকে খালাস দিয়েছে হাই কোর্ট।

বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের একক বেঞ্চ গত বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি রায় ঘোষণা করে। ১২ পৃষ্ঠার সেই পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হয়েছে শনিবার।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছে, তোফাজ্জল হোসেন নামের ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের, গ্রহণ ও তদন্তে ‘ব্যাপক অবহেলা, অনিয়ম ও অন্যায়’ হয়েছে। বিচারিক আদালতেরও ‘চরম অবহেলা ও অনিয়ম’ হয়েছে।

হাই কোর্টের এই রায় ও আদেশের অনুলিপি অবগতি ও পর্যালোচনার জন্য দেশের সব অধস্তন আদালতের সব বিচারককে ই-মেইলে পাঠাতে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

এছাড়া বাংলাদেশের প্রত্যেক থানার সব এজাহার গ্রহণকারী ও তদন্তকারী কর্মকর্তা এবং জুডিশিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং ইনস্টিটিউটেও (জেএটিআই) এ রায় ও আদেশের অনুলিপি পাঠাতে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ১৯৯৩ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি নীলফামারী সদর উপজেলার ধোবাডাঙ্গা গ্রামের মানিক চন্দ্র রায় তাদের পাঁচটি গরু চুরির অভিযোগে সদর থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় সাইফুল ইসলাম ও তোফাজ্জাল হোসেনকে আসামি করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই দবির উদ্দিন তদন্ত শেষে সাইফুল ইসলাম, তোফাজ্জাল হোসেন ও দেলোয়ার হোসেন নামে তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন।

১৯৯৬ সালের ২৩ জুন নীলফামারীর হাকিম আদালত আসামি সাইফুল ইসলাম ও দেলোয়ার হোসেনকে খালাস দেন এবং আসামি তোফাজ্জল হোসেনকে দোষী সাব্যস্ত করে দুই বছরের কারাদণ্ড ও ২০০ টাকা জরিমানা করেন।

২০০৬ সালের ৩১ জানুয়ারি নীলফামারীর দায়রা জজ আদালত বিচারিক আদালতের রায় বহাল রাখে। ওই রায়ের বিরুদ্ধে হাই কোর্টে ফৌজদারি রিভিশন আবেদন করেন তোফাজ্জল হোসেন। শুনানি নিয়ে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি হাই কোর্ট অধস্তন উভয় আদালতের রায় ও আদেশ বাতিল করে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, “নীলফামারীর প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ও দায়রা জজ আদালত ‘গতানুগতিকভাবে’ রায় দিয়েছে। সাক্ষ্য ও নথি পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণে উভয় আদালত ‘চরম অবহেলা ও অনিয়ম করেছেন, যা বিচারক সুলভ নয়’।

“নথি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে যার গরু চুরি হয়েছে তার থেকে পুলিশই সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছে, এটা খুবই দুঃখজনক।”

পর্যবেক্ষণে বলা হয়, “নীলফামারীর অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেটের ১৯৯৩ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারির আদেশে ২৫ ফেব্রুয়ারি দায়ের করা মামলার প্রাথমিক তথ্য বিবরণীতে আসামি গ্রেপ্তার বিষয়ে কোনো বক্তব্য নেই। কিন্তু ২৮ ফেব্রুয়ারির আদেশে দেখা যায়, ২৭ ফেব্রুয়ারি এ মামলার আসামিদের ৫৪ ধারায় পুনঃগ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করা হয়।”

২৫ ফেব্রুয়ারি আসামিদের গরুসহ থানায় হাজির করা হলে ২৭ ফেব্রুয়ারি কীভাবে তাদের ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হয়, হাই কোর্টের পর্যব্ক্ষেণে সেই প্রশ্ন করা হয়েছে।

“এতে স্পষ্ট যে, আসামির বিরুদ্ধে ১৯৯৩ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি দায়ের করা এজাহার মিথ্যা। আসামিকে ফাঁসানোর জন্য এজাহারকারী মিথ্যা মামলা দায়ের করেন।”

ছবি

আড়াইহাজারে কিশোরী গণধর্ষণ : অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ৪

ছবি

পাহাড়কেন্দ্রিক অপহরণ চক্রের প্রধান মোর্শেদ অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার

২২ বছর পর স্ত্রী হত্যায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেপ্তার

আড়াইহাজারে কিশোরীকে তুলে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

৭ বছর পর শিশু হত্যা রহস্য উদ্ঘাটন

ব্যবসার আড়ালে অনলাইনে প্রতারণার অভিযোগ

ছবি

ঢাকা বাড্ডায় এক হত্যা মামলায় তিন আসামির যাবজ্জীবন

ছবি

সাগর-রুনি হত্যা: মামলার প্রতিবেদন জমা আবারও পেছালো

ছবি

আদালতের সময় নষ্ট করায় সেলিম প্রধানকে জরিমানা

খুলনা ও মৌলভীবাজারে চার জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দেড় বছরে ৮০ জন হত্যা

ছবি

উড়োজাহাজ লিজে অনিয়ম: বিমানের সাবেক এমডিসহ ১৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

চাকরি দেওয়ার কথা বলে অর্থ আত্মসাৎ, বরখাস্ত অফিস সহায়কের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

সার আত্মসাৎ মামলায় সাবেক এমপি পোটনসহ ৫ জন কারাগারে

ছবি

বিমানবন্দর ও টঙ্গী থেকে ৭ ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার

ছবি

ইন্স্যুরেন্স চাকরির আড়ালে জঙ্গি সংগঠনের রিক্রুটার : ডিবি

ছবি

স্বামী-স্ত্রীর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

গোবিন্দগঞ্জে নির্যাতন করে গৃহবধূর মাথার চুল কেটে দিয়েছে প্রতিপক্ষ, ৩জন গ্রেফতার

লাখে ১১ হাজার লাভ দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ৬৩ লাখ টাকা আত্মসাৎ

ছবি

ধর্ম অবমাননায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে জবি শিক্ষার্থীর পাঁচ বছরের কারাদণ্ড

ভারতে চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে কিডনি হাতিয়ে নিতো চক্রটি

ছবি

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য গ্রেপ্তার

ছবি

ডিজিটাল ডিভাইসে জানানো হতো উত্তর,১০মিনিটে পরীক্ষা শেষ

সংবাদের সার্কুলেশন ম্যানেজারকে প্রাণনাশের হুমকি

ছবি

নায়ক সোহেল চৌধুরী হত্যা: আজিজ মোহাম্মদ ভাই ও দুইজনের যাবজ্জীবন, খালাস ৬

মাদকের তথ্য দেয়ায় হাতের রগ কর্তন, আসামীর পরিবর্তে ভুক্তভোগীকেই আটক, পরে ৫০ হাজার টাকায় মুক্তি

সাবেক এসপি সুব্রত কুমার হালদারসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট

ছবি

‘টর্চার সেলে’ নিজ হাতে অপারেশনের নামে পৈশাচিক আনন্দ পেতো মিল্টন : ডিবি প্রধান

ছবি

এবার মানবপাচার মামলায় মিল্টন সমাদ্দারের ৪ দিনের রিমান্ড

ছবি

ডিবি কার্যালয়ে মিল্টন সমাদ্দারের স্ত্রী, চলছে জিজ্ঞাসাবাদ

রাবির ক্যান্টিন পরিচালকের বিরুদ্ধে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ

ছবি

মিল্টন সমাদ্দার ৩ দিনের রিমান্ডে

ছবি

তিন দিন রিমান্ডে মিল্টন সমাদ্দার

ছবি

আলোচিত মিল্টন সমাদ্দারকে হেফাজতে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ডিবি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় : ছাত্রলীগ নেতাকে চাঁদা না দেয়ায় ব্যবসায়ীকে মারধরের অভিযোগ

ছবি

নিঃসঙ্গ নারীদের টার্গেট, আমেরিকায় নেওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে প্রতারণা

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

দুই বছরের দণ্ড ২৭ বছর পর বাতিল, রায়ের কপি যাচ্ছে সব আদালতে

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

তিন দশক আগে নীলফামারীতে গরু চুরির মামলায় দণ্ডিত এক আসামিকে খালাস দিয়েছে হাই কোর্ট।

বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের একক বেঞ্চ গত বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি রায় ঘোষণা করে। ১২ পৃষ্ঠার সেই পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হয়েছে শনিবার।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছে, তোফাজ্জল হোসেন নামের ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের, গ্রহণ ও তদন্তে ‘ব্যাপক অবহেলা, অনিয়ম ও অন্যায়’ হয়েছে। বিচারিক আদালতেরও ‘চরম অবহেলা ও অনিয়ম’ হয়েছে।

হাই কোর্টের এই রায় ও আদেশের অনুলিপি অবগতি ও পর্যালোচনার জন্য দেশের সব অধস্তন আদালতের সব বিচারককে ই-মেইলে পাঠাতে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

এছাড়া বাংলাদেশের প্রত্যেক থানার সব এজাহার গ্রহণকারী ও তদন্তকারী কর্মকর্তা এবং জুডিশিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং ইনস্টিটিউটেও (জেএটিআই) এ রায় ও আদেশের অনুলিপি পাঠাতে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, ১৯৯৩ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি নীলফামারী সদর উপজেলার ধোবাডাঙ্গা গ্রামের মানিক চন্দ্র রায় তাদের পাঁচটি গরু চুরির অভিযোগে সদর থানায় একটি মামলা করেন। মামলায় সাইফুল ইসলাম ও তোফাজ্জাল হোসেনকে আসামি করা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই দবির উদ্দিন তদন্ত শেষে সাইফুল ইসলাম, তোফাজ্জাল হোসেন ও দেলোয়ার হোসেন নামে তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন।

১৯৯৬ সালের ২৩ জুন নীলফামারীর হাকিম আদালত আসামি সাইফুল ইসলাম ও দেলোয়ার হোসেনকে খালাস দেন এবং আসামি তোফাজ্জল হোসেনকে দোষী সাব্যস্ত করে দুই বছরের কারাদণ্ড ও ২০০ টাকা জরিমানা করেন।

২০০৬ সালের ৩১ জানুয়ারি নীলফামারীর দায়রা জজ আদালত বিচারিক আদালতের রায় বহাল রাখে। ওই রায়ের বিরুদ্ধে হাই কোর্টে ফৌজদারি রিভিশন আবেদন করেন তোফাজ্জল হোসেন। শুনানি নিয়ে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি হাই কোর্ট অধস্তন উভয় আদালতের রায় ও আদেশ বাতিল করে।

রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, “নীলফামারীর প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ও দায়রা জজ আদালত ‘গতানুগতিকভাবে’ রায় দিয়েছে। সাক্ষ্য ও নথি পর্যালোচনা ও বিশ্লেষণে উভয় আদালত ‘চরম অবহেলা ও অনিয়ম করেছেন, যা বিচারক সুলভ নয়’।

“নথি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে যার গরু চুরি হয়েছে তার থেকে পুলিশই সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছে, এটা খুবই দুঃখজনক।”

পর্যবেক্ষণে বলা হয়, “নীলফামারীর অতিরিক্ত ম্যাজিস্ট্রেটের ১৯৯৩ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারির আদেশে ২৫ ফেব্রুয়ারি দায়ের করা মামলার প্রাথমিক তথ্য বিবরণীতে আসামি গ্রেপ্তার বিষয়ে কোনো বক্তব্য নেই। কিন্তু ২৮ ফেব্রুয়ারির আদেশে দেখা যায়, ২৭ ফেব্রুয়ারি এ মামলার আসামিদের ৫৪ ধারায় পুনঃগ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন করা হয়।”

২৫ ফেব্রুয়ারি আসামিদের গরুসহ থানায় হাজির করা হলে ২৭ ফেব্রুয়ারি কীভাবে তাদের ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করা হয়, হাই কোর্টের পর্যব্ক্ষেণে সেই প্রশ্ন করা হয়েছে।

“এতে স্পষ্ট যে, আসামির বিরুদ্ধে ১৯৯৩ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি দায়ের করা এজাহার মিথ্যা। আসামিকে ফাঁসানোর জন্য এজাহারকারী মিথ্যা মামলা দায়ের করেন।”

back to top