alt

সংস্কৃতি

ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘নব আনন্দে জাগো’

খালেদ মাহমুদ , ঢাবি প্রতিনিধি : মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল ২০২২

ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান : ফাইল ছবি

আগামীকাল ১ বৈশাখে ছায়ানটের এতিহ্যবাহী রমনা মূলের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারন করা হয়েছে ‘নব আনন্দে জাগো’। তবে করোনা পরিস্থিতির কারনে আগের বৈশাখগুলোতে অনুষ্ঠানে যেসব বিষয় থাকতো তার অনেক কিছুই এবার বাদ দেয়া হচ্ছে। আজ রাতে সংবাদকে এসব তথ্য জানিয়েছেন ছায়ানটের নির্বাহী সভাপতি ডা. সারোয়ার আলী।

তিনি জানান, এবার করোনার প্রকোপ স্বাভাবিক থাকার কারণে ‘নব আনন্দে জাগো’ ¯েøাগানে আবার বটতলায় এই ঐতিহ্যবাহী সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

তবে বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে অনেক কিছু বাদ দেওয়া হয়েছে। গান, আবৃত্তি, পাঠ নিয়ে অনুষ্ঠানসূচি প্রায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। আগের আয়োজনে শিল্পীর সংখ্যা বেশী থাকলেও এবার ৯০ জন করা হয়েছে। অনুষ্ঠান ২ ঘন্টা চলবে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে হবে বলে তিনি জানান।

১লা বৈশাখ বাংলা নববর্ষের প্রথম দিন, বাঙালি বর্ষবরণের উৎসবের দিন। বাংলাদেশের ঐহিত্যবাহী সংস্কৃতির আলো ছড়ানো সংগঠন ছায়ানট ১৯৬৭ সাল থেকে রমনার বটমূলে পয়লা বৈশাখের সূর্যোদয়ের সময় সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে। দিনে দিনে সে অনুষ্ঠান এখন বাংলাদেশে বর্ষবরনের ঐতিহ্যে পরিনত হয়েছে। শুধু ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বৈরী পরিবেশের কারণে অনুষ্ঠান হতে পারেনি। এরপর গত দুই বছর করোনা সংক্রমণের তীব্রতায় বটমূলে অনুষ্ঠান হতে পারেনি।

ছায়ানট ইতিমধ্যে রমনার বটমূলের অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। মঙ্গলবার বটমূলে গিয়ে দেখা যায়, রমনার পশ্চিম পাশের লেকের ধারের বিখ্যাত বটমূল ঘিরে মঞ্চ তৈরির কাজ করছেন কর্মীরা। মঞ্চ নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে আরও দুই তিন আগে। হাতে সময় কম, তাই কাজ চলছে দ্রুতগতিতে। বরাবর পয়লা বৈশাখের আগের দিনেই মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ হয়ে যায়। মঞ্চে বসে শিল্পীরা চূড়ান্ত মহড়ায় অংশ নেন। এবার মঞ্চে এমন মহড়া হচ্ছে না।

ঢাবির চারুকলা অনুষদে গিয়েও দেখা যায় প্রস্তুতিতে ব্যস্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ২২ ও ২৩তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা মূলত এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রা সাজানোর কাজ করছেন। ১৯৮৯ সাল থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করছে ঢাবি চারুকলা। এবার মঙ্গল শোভাযাত্রার মূল প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘নির্মল করো, মঙ্গল করে মলিন মর্ম মুছায়ে’। চারটি বড় মোটিভ তৈরি করা হচ্ছে শোভাযাত্রার জন্য। যার মধ্যে আছে ট্যাপা পুতুল, ঘোড়া, মাছ এবং পাখি।

নির্মাণাধীন মেট্রোরেলের কারণে চলাচলের পথ সরু থাকায় এ বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা টিএসসি থেকে স্মৃতি চিরন্তন চত্বর (ফুলার রোড সড়কদ্বীপ) পর্যন্ত হবে। সব মলিনতা মুছে নবোদ্যমে মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফিরবে এমন প্রত্যাশা থেকে এবার আয়োজন সাজানো হচ্ছে। কভিড-১৯ পরিস্থিতি বিবেচনায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করা হবে।

ঢাবি চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন বলেন, ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা আমাদের চারুকলা অনুষদের ঐহিত্যের অংশ হয়ে উঠেছে। আমাদের অনুষদের ৮টি বিভাগের একাডেমির কারিকুলামের অংশ করারও প্রক্রিয়া চলছে। এবার মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য ‘নির্মল কর, মঙ্গল কর মলিন মর্ম মুছায়ে’। মহামারি করোনাকালে মলিনতা মুছে জীবনে ছন্দে আসুক নির্মলতা। মঙ্গলময় হয়ে উঠুক স্বাভাবিক জীবনযাত্রা এমন আশা থেকে উৎসারিত হয়েছে এবারের প্রতিপাদ্য।"

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, টিএসসি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ পুরো এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট থাকবে। যেখানে প্রত্যেকটি মানুষকে চেকের ভেতর দিয়ে প্রবেশ করতে হবে। এসব এলাকায় সব যানবাহন বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি সোয়াত ও ডিসপোজাল ইউনিট মোতায়েন থাকবে। আজ ও আগামীকাল পুরো এলাকা সার্চ করা হবে। পাশাপাশি পুরো চত্বর সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকবে। বিভিন্ন স্থানে ওয়াচ টাওয়ার থাকবে। পুরো এলাকাটি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে থাকবে।’ বোম ডিসপোজাল ইউনিট, সোয়াত, ডগ স্কোয়াডের পাশাপাশি রমনার লেকে নৌপুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল মোতায়েন থাকবে।

উদীচী জবি সংসদের সভাপতি বিপু,সম্পাদক মুক্ত

ছবি

ছায়ানটের ‘ভাষা-সংস্কৃতির আলাপ’-এ অংশগ্রহনের আহবান

ছবি

বেদনাবিধুর ইতিহাসের ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ মঞ্চায়ন

চাঁদপুর জেলা উদীচীর সভাপতি কৃষ্ণা সাহা;সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর

ছবি

নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হলো ‘মুজিব আমার পিতা’র ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার

ছবি

বিশিষ্ট গীতিকার, কলামিষ্ট কেজি মোস্তফা মারা গেছেন।

ছবি

প্রয়াত বাচিকশিল্পী পার্থ ঘোষ, আবৃত্তি জগতে বিষাদের ছায়া

ছবি

রাখাইনদের জলকেলি উৎসব: অশুভ বিদায়ের প্রত্যাশা

নববর্ষের কবিতা

ছবি

স্মৃতির দরজা খুলে

ছবি

দুঃসময় কাটিয়ে উৎসবে বরণ বাংলা নববর্ষ

ছবি

কক্সবাজারে রাখাইনদের জলকেলি উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা চলছে

ছবি

রক্তের আলো

ছবি

উৎসব ও চেতনায় পহেলা বৈশাখ

ছবি

পহেলা বৈশাখের স্মৃতি

ছবি

নববর্ষ ও বাঙালির আত্মপরিচয়

ছবি

দুই বছর পর একটুকরো চমৎকার সকাল

ছবি

আগরতলায় বাংলাদেশের অন্যপ্রকাশ

ছবি

প্রকৃতিমুগ্ধতা, প্রথাহীনতায় ‘শালুক’-এর সাহিত্যআড্ডা

ছবি

দুই বছর পর ঢাবিতে মঙ্গল শোভাযাত্রা

জবিতে ‘জীবন রসায়নে বঙ্গবন্ধু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

নওগাঁয় নাটক পালপাড়ার রক্তাক্ত প্লাবন মঞ্চায়িত

অস্কার আসরে ইউক্রেনের জন্য নীরবতা পালন

ছবি

স্বাধীনতা পুরস্কার সাহিত্যে, প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আমির হামজা আলোচনায়

ছবি

ওবায়েদ আকাশের নতুন কাব্যগ্রন্থ ‘কাগুজে দিন, কাগুজে রাত’

ছবি

শুক্লা গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘সহস্রার মূলাধার’

ছবি

ঢাবির মঞ্চে ‘ওয়েটিং ফর গডো’

ছবি

নজরুল সংগীত উৎসবে মুগ্ধতা ছড়ালেন দুই দেশের শিল্পীরা

ছবি

পার্থ সনজয়ের কান ডায়েরি

ছবি

ঢাকা থেকে পুরস্কৃত হলো একমাত্র ‘শালুক’

ছবি

চাঁদপুরে ঐতিহ্যবাহী ‘সংবাদ’ এর আয়োজনে সাহিত্য আড্ডা ও মতবিনিময়

ছবি

বাংলাদেশ-ভারত সাংস্কৃতিক মেলা রাজশাহীতে

ছবি

নারায়ণগঞ্জে পাঠাগারে সাংস্কৃতিক উৎসব ও গুণীজন সম্মাননা

ছবি

রাজশাহীতে বাংলাদেশ-ভারত সাংস্কৃতিক মিলনমেলা

ছবি

কলকাতা বইমেলা শুরু সোমবার, থিমকান্ট্রি বাংলাদেশ

ছবি

ফেইসবুকে সাময়িক নিষিদ্ধ তসলিমা নাসরিন

tab

সংস্কৃতি

ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘নব আনন্দে জাগো’

খালেদ মাহমুদ , ঢাবি প্রতিনিধি

ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান : ফাইল ছবি

মঙ্গলবার, ১২ এপ্রিল ২০২২

আগামীকাল ১ বৈশাখে ছায়ানটের এতিহ্যবাহী রমনা মূলের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের প্রতিপাদ্য বিষয় নির্ধারন করা হয়েছে ‘নব আনন্দে জাগো’। তবে করোনা পরিস্থিতির কারনে আগের বৈশাখগুলোতে অনুষ্ঠানে যেসব বিষয় থাকতো তার অনেক কিছুই এবার বাদ দেয়া হচ্ছে। আজ রাতে সংবাদকে এসব তথ্য জানিয়েছেন ছায়ানটের নির্বাহী সভাপতি ডা. সারোয়ার আলী।

তিনি জানান, এবার করোনার প্রকোপ স্বাভাবিক থাকার কারণে ‘নব আনন্দে জাগো’ ¯েøাগানে আবার বটতলায় এই ঐতিহ্যবাহী সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

তবে বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনা করে অনেক কিছু বাদ দেওয়া হয়েছে। গান, আবৃত্তি, পাঠ নিয়ে অনুষ্ঠানসূচি প্রায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। আগের আয়োজনে শিল্পীর সংখ্যা বেশী থাকলেও এবার ৯০ জন করা হয়েছে। অনুষ্ঠান ২ ঘন্টা চলবে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠানে যোগ দিতে হবে বলে তিনি জানান।

১লা বৈশাখ বাংলা নববর্ষের প্রথম দিন, বাঙালি বর্ষবরণের উৎসবের দিন। বাংলাদেশের ঐহিত্যবাহী সংস্কৃতির আলো ছড়ানো সংগঠন ছায়ানট ১৯৬৭ সাল থেকে রমনার বটমূলে পয়লা বৈশাখের সূর্যোদয়ের সময় সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে। দিনে দিনে সে অনুষ্ঠান এখন বাংলাদেশে বর্ষবরনের ঐতিহ্যে পরিনত হয়েছে। শুধু ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বৈরী পরিবেশের কারণে অনুষ্ঠান হতে পারেনি। এরপর গত দুই বছর করোনা সংক্রমণের তীব্রতায় বটমূলে অনুষ্ঠান হতে পারেনি।

ছায়ানট ইতিমধ্যে রমনার বটমূলের অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। মঙ্গলবার বটমূলে গিয়ে দেখা যায়, রমনার পশ্চিম পাশের লেকের ধারের বিখ্যাত বটমূল ঘিরে মঞ্চ তৈরির কাজ করছেন কর্মীরা। মঞ্চ নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে আরও দুই তিন আগে। হাতে সময় কম, তাই কাজ চলছে দ্রুতগতিতে। বরাবর পয়লা বৈশাখের আগের দিনেই মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ হয়ে যায়। মঞ্চে বসে শিল্পীরা চূড়ান্ত মহড়ায় অংশ নেন। এবার মঞ্চে এমন মহড়া হচ্ছে না।

ঢাবির চারুকলা অনুষদে গিয়েও দেখা যায় প্রস্তুতিতে ব্যস্ত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ২২ ও ২৩তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা মূলত এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রা সাজানোর কাজ করছেন। ১৯৮৯ সাল থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করছে ঢাবি চারুকলা। এবার মঙ্গল শোভাযাত্রার মূল প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘নির্মল করো, মঙ্গল করে মলিন মর্ম মুছায়ে’। চারটি বড় মোটিভ তৈরি করা হচ্ছে শোভাযাত্রার জন্য। যার মধ্যে আছে ট্যাপা পুতুল, ঘোড়া, মাছ এবং পাখি।

নির্মাণাধীন মেট্রোরেলের কারণে চলাচলের পথ সরু থাকায় এ বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা টিএসসি থেকে স্মৃতি চিরন্তন চত্বর (ফুলার রোড সড়কদ্বীপ) পর্যন্ত হবে। সব মলিনতা মুছে নবোদ্যমে মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফিরবে এমন প্রত্যাশা থেকে এবার আয়োজন সাজানো হচ্ছে। কভিড-১৯ পরিস্থিতি বিবেচনায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করা হবে।

ঢাবি চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন বলেন, ‘মঙ্গল শোভাযাত্রা আমাদের চারুকলা অনুষদের ঐহিত্যের অংশ হয়ে উঠেছে। আমাদের অনুষদের ৮টি বিভাগের একাডেমির কারিকুলামের অংশ করারও প্রক্রিয়া চলছে। এবার মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য ‘নির্মল কর, মঙ্গল কর মলিন মর্ম মুছায়ে’। মহামারি করোনাকালে মলিনতা মুছে জীবনে ছন্দে আসুক নির্মলতা। মঙ্গলময় হয়ে উঠুক স্বাভাবিক জীবনযাত্রা এমন আশা থেকে উৎসারিত হয়েছে এবারের প্রতিপাদ্য।"

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, টিএসসি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ পুরো এলাকার বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট থাকবে। যেখানে প্রত্যেকটি মানুষকে চেকের ভেতর দিয়ে প্রবেশ করতে হবে। এসব এলাকায় সব যানবাহন বন্ধ থাকবে। পাশাপাশি সোয়াত ও ডিসপোজাল ইউনিট মোতায়েন থাকবে। আজ ও আগামীকাল পুরো এলাকা সার্চ করা হবে। পাশাপাশি পুরো চত্বর সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকবে। বিভিন্ন স্থানে ওয়াচ টাওয়ার থাকবে। পুরো এলাকাটি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে থাকবে।’ বোম ডিসপোজাল ইউনিট, সোয়াত, ডগ স্কোয়াডের পাশাপাশি রমনার লেকে নৌপুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল মোতায়েন থাকবে।

back to top