alt

সংস্কৃতি

রাখাইনদের জলকেলি উৎসব: অশুভ বিদায়ের প্রত্যাশা

জেলা প্রতিনিধি, কক্সবাজার: : সোমবার, ১৮ এপ্রিল ২০২২

ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজারে শুরু হয়েছে রাখাইন সম্প্রদায়ের বৃহত্তম সামাজিক উৎসব জলকেলি। এ সামাজিক উৎসবকে ঘিরে রাখাইন পল্লীগুলোতে বইছে আনন্দের বন্যা।

শহরের প্রায় ২০টি প্যান্ডেলে এবার উৎসবে মেতেছে রাখাইন সম্প্রদায়। এ উৎসব রাখাইন সম্প্রদায়ের হলেও এবারও পর্যটকসহ বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোকজনের অংশগ্রহণে উৎসব হয়ে ওঠে সার্বজনীন। এ উপলক্ষে বর্ণিল রূপে সেজেছে রাখাইন পল্লীগুলো।

রোববার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে শুরু হওয়া রাখাইনদের প্রাণের এই উৎসব শেষ হবে আজ ১৯ এপ্রিল।

প্রতি বছর রাখাইন নববর্ষকে বরণে রাখাইন সম্প্রদায় কক্সবাজারে মহাসমারোহে উদযাপন করে জলকেলি উৎসব। উৎসবে রাখাইন শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুণী এবং আবাল বৃদ্ধবনিতা নেচে গেয়ে, একে অপরের শরীরে জল ছিটিয়ে উৎসব পালন করে থাকে। এ যেন এক মহা আনন্দযজ্ঞ। এ সময় তারা বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র নিয়ে দল বেঁধে নাচতে নাচতে বিভিন্ন প্যান্ডেল পরিদর্শন করেন।

আয়োজকেরা জানান, শনিবার ( ১৬ এপ্রিল) শেষ হয়েছে রাখাইন বর্ষ ১৩৮৩ সন। আর গত রোববার থেকে শুরু হয়েছে নতুন ১৩৮৪ রাখাইন বর্ষ। পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে পাপ-পঙ্কিলতা ও অশুভ সবকিছুকে দূর করে নতুন বছরকে বরণ করতে প্রতি বছর রাখাইন সম্প্রদায় এ উৎসবে মেতে ওঠে। রাখাইনদের ভাষায় বর্ষ বরণের এই উৎসবকে বলা হয় সাংগ্রে পোয়ে।

কক্সবাজার শহরের পূর্ব মাছ বাজার, পশ্চিম মাছ বাজার, ফুলবাগ সড়ক, ক্যাং পাড়া, হাঙর পাড়া, টেকপাড়া, বার্মিজ স্কুল রোড, বৌদ্ধ মন্দির সড়ক ও চাউল বাজার এবং জেলার মহেশখালী, টেকনাফ, চকরিয়া, হারবাং, রামু, চৌফলদন্ডীসহ বিভিন্ন স্থানে অর্ধশতাধিক প্যান্ডেলে এ উৎসব আয়োজন চলছে।

জানাগেছে, এই উৎসবকে ঘিরে নানা আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় হয়েছে গত ১৩ এপ্রিল বাংলা বর্ষের চৈত্র সংক্রান্তির দিন থেকে। ওই দিন থেকে রাখাইনরা বৌদ্ধ বিহারগুলোতে পালন শুরু করেন নানান ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান। এসব অনুষ্ঠান পালন শেষে নতুন বছরের প্রথমদিন থেকে (১৭ এপ্রিল) শুরু হয় জলকেলি। যা চলে তিন দিনব্যাপী।

রাখাইন বুড্ডিস্ট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মংছেন হ্লা রাখাইন বলেন, উৎসব উপলক্ষে রোববার সকালে প্রতিটি রাখাইন পল্লী থেকে আবাল-বৃদ্ধ বনিতা শোভাযাত্রা সহকারে বৌদ্ধ বিহারে যান। এতে অল্প-বয়সীরা মাটির কলস এবং বয়স্করা কল্পতরু বহন করেন। এরপর সেখানে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের পর্ব শেষ করেন। বিকালে তরুণ-তরুণীরা বাদ্যযন্ত্র সহকারে দলবেঁধে ঘুরে বেড়ান জলকেলি উৎসবের প্যান্ডেলে প্যান্ডেলে।

তিনি আরও বলেন, নানা প্রজাতির ফুল আর রঙ-বেরঙের কাগজে সাজানো হয় প্রতিটি প্যান্ডেল। প্যান্ডেলের মাঝখানে থাকে পানি রাখার ড্রামসহ নানা উপকরণ। এতে পানির রাখার এসব উপকরণের এক পাশে অবস্থান করেন তরুণীরা আর অন্য পাশে থাকেন তরুণের দল। তারা নাচে-গানে মেতে উঠে একে অপরের প্রতি ছুড়তে থাকেন মঙ্গল জল। রাখাইনদের বিশ্বাস, এই মঙ্গলজল ছিটানোর মধ্য দিয়ে মুছে যায় পুরাতন বছরের সকল গ্লানি, ব্যথা, বেদনা, অপ্রাপ্তিসহ নানা অসঙ্গতি।

এ বছর কক্সবাজারে এ উৎসব আয়োজনে যুক্ত হয়েছে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। রোববার বিকালে কক্সবাজার শহরের আছিমং পেশকার পাড়ায় স্থাপিত প্যান্ডেলে জলকেলি উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসাবে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) বিভীষণ কান্তি দাশ।

কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক মং এ খেন রাখাইন বলেন, বিশ্বব্যাপী যে করোনা মহামারি চলছে আমরা চাই এ উৎসবের মঙ্গল জল ছিটানোর মধ্য দিয়ে সকল অশুভ শক্তি পৃথিবী থেকে দূরীভূত হবে। পুরনো বা অশুভকে পেছনে ফেলে আসবে মঙ্গলের বারতা।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন, বাংলাদেশ সকল ধর্ম-বর্ণের জাতিগোষ্ঠীর বৈচিত্র্যপূর্ণ দেশ। এদেশের আবহমান সংস্কৃতি হচ্ছে অসাম্প্রদায়িকতা। জলকেলি উৎসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে সেটা প্রমাণিত হয়েছে। রাখাইনদের পাশাপাশি স্থানীয়রাও এই স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপভোগ করায় এটি সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে।

ছবি

রাজশাহীতে দুই কবি-লেখক পাচ্ছেন ‘কবিকুঞ্জ পদক’ পদক

আত্মদানের নব্বইতম বার্ষির্কীতে বীরকন্যা প্রীতিলতা চলচ্চিত্রের ফার্স্টলুক টিজার প্রকাশ

ছবি

গান-কবিতা-নৃত্যে ঢাবির বকুলতলায় শরৎ উৎসব

ছবি

দুইদফা তারিখ ঘোষণার পরেও কলকাতায় বাংলাদেশ বইমেলা স্থগিত

ছবি

সভ্যতার অনুপম নিদর্শন আত্রাইয়ের তিন গুম্বুজ মসজিদ ও মঠ

ছবি

প্রতিকূল পরিবেশে সফল হয়েছেন সংস্কৃতিকর্মীরা, অনুকূল পরিবেশে ব্যর্থ হচ্ছেন

ছবি

ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহযোগিতায় এডিনবার্গ আন্তর্জাতিক সংস্কৃতি সম্মেলন

ছবি

খুদে শিল্পীদের রঙতুলি: ১৩০ ফুট ক্যানভাসে ফুটে উঠলো বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও পরিবেশ-প্রকৃতি

ছবি

‘গল্প বলার স্বাধীনতা’ চেয়ে শিল্পী-নির্মাতাদের মতবিনিময় সভা

ছবি

ঢাবির মঞ্চে হ্যামলেট-ম্যাকবেথ-ওথেলো অনুসৃত নতুন নাটক করুণা ও ভীতির গল্প

ছবি

ভারত-বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মৈত্রীর লক্ষ্যে কবিতা উৎসব মুর্শিদাবাদে

ছবি

লক্ষ্যাপাড়ের বয়ানে ‘দাগ আর্ট স্টেশন’

ছবি

লক্ষ্যাপাড়ের গল্প জানাতে দাগের সপ্তাহব্যাপী চিত্রকর্ম প্রদর্শনী

ছবি

সুলতান সংগ্রহশালার ঘাট নির্মাণের অর্থ বরাদ্দ হয়নি, প্রস্তাবনা ঝুলে আছে ২০ কোটি টাকার

ছবি

জাবির ‘গেস্ট রুমে’ সাংবাদিক নির্যাতনের অভিযোগ: ৮ ছাত্রলীগ কর্মী অবাঞ্ছিত

সোনারগাঁয়ে খেলাঘর আসরের শাখা আসর কমিটি

ছবি

শোকাবহ আগস্টে শিল্পকলা একাডেমীর মাসব্যাপী অনুষ্ঠান শুরু

ছবি

আমরা কুঁড়ির ৩১ বছর পূর্তি

ছবি

সাংস্কৃতিক আন্দোলনের প্রতিটি ক্ষেত্রে আবুল হাসনাতের সম্পৃক্ততা ও ভূমিকা ছিল

গ্রুপ থিয়েটার আন্দোলন নতুনভাবে ঢেলে সাজানোর তাগিদ নাট্যকর্মীদের

ছবি

শিল্পকলায় ‘জাতীয় নৃত্যনাট্য উৎসব’ শুরু

ছবি

শিল্পকলায় ‘জাতীয় নৃত্যনাট্য উৎসব’ শুরু কাল

ছবি

খ্যাতিমান অভিনেত্রী শর্মিলী আহমেদ মারা গেছেন

ছবি

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী `কাচারি ঘর’

ছবি

‘শালুক সাহিত্যসন্ধ্যা’য় লেখক-পাঠক-শুভাকাক্সক্ষীর বাঁধভাঙা সম্মিলন

ছবি

ঢাবির মঞ্চে মার্কিন বাস্তববাদী নাটক ‘দ্যা আইসম্যান কমেথ’

উল্লাপাড়ায় ঐতিহ্যবাহী ঘোল উৎসব

বর্ষাকে বরণ করে নিলো ঢাবির সাংস্কৃতিক সংসদ

ছবি

গায়ক কে কে মারা গেছেন

উদীচী জবি সংসদের সভাপতি বিপু,সম্পাদক মুক্ত

ছবি

ছায়ানটের ‘ভাষা-সংস্কৃতির আলাপ’-এ অংশগ্রহনের আহবান

ছবি

বেদনাবিধুর ইতিহাসের ‘অভিশপ্ত আগস্ট’ মঞ্চায়ন

চাঁদপুর জেলা উদীচীর সভাপতি কৃষ্ণা সাহা;সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর

ছবি

নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হলো ‘মুজিব আমার পিতা’র ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার

ছবি

বিশিষ্ট গীতিকার, কলামিষ্ট কেজি মোস্তফা মারা গেছেন।

ছবি

প্রয়াত বাচিকশিল্পী পার্থ ঘোষ, আবৃত্তি জগতে বিষাদের ছায়া

tab

সংস্কৃতি

রাখাইনদের জলকেলি উৎসব: অশুভ বিদায়ের প্রত্যাশা

জেলা প্রতিনিধি, কক্সবাজার:

ছবি: সংগৃহীত

সোমবার, ১৮ এপ্রিল ২০২২

কক্সবাজারে শুরু হয়েছে রাখাইন সম্প্রদায়ের বৃহত্তম সামাজিক উৎসব জলকেলি। এ সামাজিক উৎসবকে ঘিরে রাখাইন পল্লীগুলোতে বইছে আনন্দের বন্যা।

শহরের প্রায় ২০টি প্যান্ডেলে এবার উৎসবে মেতেছে রাখাইন সম্প্রদায়। এ উৎসব রাখাইন সম্প্রদায়ের হলেও এবারও পর্যটকসহ বিভিন্ন সম্প্রদায়ের লোকজনের অংশগ্রহণে উৎসব হয়ে ওঠে সার্বজনীন। এ উপলক্ষে বর্ণিল রূপে সেজেছে রাখাইন পল্লীগুলো।

রোববার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে শুরু হওয়া রাখাইনদের প্রাণের এই উৎসব শেষ হবে আজ ১৯ এপ্রিল।

প্রতি বছর রাখাইন নববর্ষকে বরণে রাখাইন সম্প্রদায় কক্সবাজারে মহাসমারোহে উদযাপন করে জলকেলি উৎসব। উৎসবে রাখাইন শিশু-কিশোর, তরুণ-তরুণী এবং আবাল বৃদ্ধবনিতা নেচে গেয়ে, একে অপরের শরীরে জল ছিটিয়ে উৎসব পালন করে থাকে। এ যেন এক মহা আনন্দযজ্ঞ। এ সময় তারা বিভিন্ন বাদ্যযন্ত্র নিয়ে দল বেঁধে নাচতে নাচতে বিভিন্ন প্যান্ডেল পরিদর্শন করেন।

আয়োজকেরা জানান, শনিবার ( ১৬ এপ্রিল) শেষ হয়েছে রাখাইন বর্ষ ১৩৮৩ সন। আর গত রোববার থেকে শুরু হয়েছে নতুন ১৩৮৪ রাখাইন বর্ষ। পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে পাপ-পঙ্কিলতা ও অশুভ সবকিছুকে দূর করে নতুন বছরকে বরণ করতে প্রতি বছর রাখাইন সম্প্রদায় এ উৎসবে মেতে ওঠে। রাখাইনদের ভাষায় বর্ষ বরণের এই উৎসবকে বলা হয় সাংগ্রে পোয়ে।

কক্সবাজার শহরের পূর্ব মাছ বাজার, পশ্চিম মাছ বাজার, ফুলবাগ সড়ক, ক্যাং পাড়া, হাঙর পাড়া, টেকপাড়া, বার্মিজ স্কুল রোড, বৌদ্ধ মন্দির সড়ক ও চাউল বাজার এবং জেলার মহেশখালী, টেকনাফ, চকরিয়া, হারবাং, রামু, চৌফলদন্ডীসহ বিভিন্ন স্থানে অর্ধশতাধিক প্যান্ডেলে এ উৎসব আয়োজন চলছে।

জানাগেছে, এই উৎসবকে ঘিরে নানা আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় হয়েছে গত ১৩ এপ্রিল বাংলা বর্ষের চৈত্র সংক্রান্তির দিন থেকে। ওই দিন থেকে রাখাইনরা বৌদ্ধ বিহারগুলোতে পালন শুরু করেন নানান ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান। এসব অনুষ্ঠান পালন শেষে নতুন বছরের প্রথমদিন থেকে (১৭ এপ্রিল) শুরু হয় জলকেলি। যা চলে তিন দিনব্যাপী।

রাখাইন বুড্ডিস্ট ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মংছেন হ্লা রাখাইন বলেন, উৎসব উপলক্ষে রোববার সকালে প্রতিটি রাখাইন পল্লী থেকে আবাল-বৃদ্ধ বনিতা শোভাযাত্রা সহকারে বৌদ্ধ বিহারে যান। এতে অল্প-বয়সীরা মাটির কলস এবং বয়স্করা কল্পতরু বহন করেন। এরপর সেখানে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের পর্ব শেষ করেন। বিকালে তরুণ-তরুণীরা বাদ্যযন্ত্র সহকারে দলবেঁধে ঘুরে বেড়ান জলকেলি উৎসবের প্যান্ডেলে প্যান্ডেলে।

তিনি আরও বলেন, নানা প্রজাতির ফুল আর রঙ-বেরঙের কাগজে সাজানো হয় প্রতিটি প্যান্ডেল। প্যান্ডেলের মাঝখানে থাকে পানি রাখার ড্রামসহ নানা উপকরণ। এতে পানির রাখার এসব উপকরণের এক পাশে অবস্থান করেন তরুণীরা আর অন্য পাশে থাকেন তরুণের দল। তারা নাচে-গানে মেতে উঠে একে অপরের প্রতি ছুড়তে থাকেন মঙ্গল জল। রাখাইনদের বিশ্বাস, এই মঙ্গলজল ছিটানোর মধ্য দিয়ে মুছে যায় পুরাতন বছরের সকল গ্লানি, ব্যথা, বেদনা, অপ্রাপ্তিসহ নানা অসঙ্গতি।

এ বছর কক্সবাজারে এ উৎসব আয়োজনে যুক্ত হয়েছে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। রোববার বিকালে কক্সবাজার শহরের আছিমং পেশকার পাড়ায় স্থাপিত প্যান্ডেলে জলকেলি উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসাবে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) বিভীষণ কান্তি দাশ।

কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক মং এ খেন রাখাইন বলেন, বিশ্বব্যাপী যে করোনা মহামারি চলছে আমরা চাই এ উৎসবের মঙ্গল জল ছিটানোর মধ্য দিয়ে সকল অশুভ শক্তি পৃথিবী থেকে দূরীভূত হবে। পুরনো বা অশুভকে পেছনে ফেলে আসবে মঙ্গলের বারতা।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিভীষণ কান্তি দাশ বলেন, বাংলাদেশ সকল ধর্ম-বর্ণের জাতিগোষ্ঠীর বৈচিত্র্যপূর্ণ দেশ। এদেশের আবহমান সংস্কৃতি হচ্ছে অসাম্প্রদায়িকতা। জলকেলি উৎসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে সেটা প্রমাণিত হয়েছে। রাখাইনদের পাশাপাশি স্থানীয়রাও এই স্বতঃস্ফূর্তভাবে উপভোগ করায় এটি সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে।

back to top