alt

সংস্কৃতি

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী `কাচারি ঘর’

প্রতিনিধি মাধবপুর (হবিগঞ্জ) : সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী কাচারী ঘর বা বাংলা ঘর। ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে মাধবপুর উপজেলা গঠিত। এই উপজেলায় অধিকাংশ ইউনিয়নের গ্রামের অভিজাত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারে আভিজাত্যের প্রতীক ছিল কাছারি ঘর বা গ্রামের বাংলা ঘর।

বাড়ির বাহির আঙিনায় অতিথি, মুসাফির, ছাত্র ও জায়গিরদের থাকার এই ঘরটি কাছারি ঘর বা বাংলা ঘর নামে সমধিক পরিচিত ছিল। মাধবপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আন্দিউড়া গ্রামের ঐতিহ্যবাহী চৌধুরী পরিবারের সন্তান হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাকির হোসেন চৌধুরী অসীম বলেন, বর্তমানে ড্রয়িং রুমের সাজ-সজ্জার মাধ্যমে কোনো অভিজাত পরিবারের আভিজাত্যের বহিঃ প্রকাশ ঘটে। ঝাড়বাতি, সোফাসেট, অ্যাকিউরিয়াম, ইন্টেরিয়র, রুচিশীল কোনো ছবি দিয়ে মনোমুগ্ধকর ভাবে সাজানো হয় অতিথিশালা বা ড্রয়িংরুম।

এক সময়ে গ্রামের বাড়ির একমাত্র আভিজাত্যের প্রতীকই ছিল বাড়ির বাহির আঙিনার বৈঠকখানা বা বাংলা ঘর। যা আর এখন চোখে পরে না। এই বাংলা ঘরের চৌকির ওপর থাকত বাড়ির অবিবাহিত ছেলে বা ছাত্ররা। আর মেহমান বা অতিথিরা এলে চৌকির ওপরে থাকতে দেয়া হতো। মাটিতে একঢালা হোগল পাতার বা বাঁশের চাটাই বিছিয়ে বিছানা করে থাকত বারোমাসি কামলারা ও রাখাল। গড় গড় শব্দে তারা হুক্কা টানত আর ধোঁয়া ছাড়ত।

প্রতি রাতেই পাড়ার সব কামলা/রাখাল বড় কোনো কাছারি ঘরে মিলিত হয়ে গানের আসর বসাতো। গান করত পল্লীগীতি, ভাটিয়ালী, রূপবান,গুনাই বিবি, আলোমতি, সাগরভাসা, বেহুলা লখিন্দরের পালা। মাঝে মাঝে গভীর রাত পর্যন্ত বসত শালিস বৈঠক। গৃহ অভ্যন্তরে যারা থাকতেন তাদের চোখেও ঘুম ছিলো না, চা আর পানের ফরমায়েশ রক্ষা করতে।

প্রায় প্রতিটি রাতে কাছারি ঘরওয়ালা বাড়িতে আসত অনাত্মীয়- অচেনা কোনো মুসাফির। ভেতর বাড়ি থেকে শোনা যেত কোনো অচেনা মুসাফিরদের কণ্ঠ : ‘বাড়িতে কেডা আছেন ? কাছে এলে বলত : থাকবার জাগা হবে ? “অনেক রাইত অইছে, বাড়িতে যাওয়া যাবে না” এই কারণেই বাঙালিরা হয়ে উঠেছিল- অতিথি পরায়ণ।

আরবের মানুষও অতিথি পরায়ণ হয়েছিল, শুধু মরুভূমির কারণে। যত রাতেই আসুক অতিথিদের না খেয়ে শুতে দিত না বাড়িওয়ালারা। মজার ব্যাপার হলো- এ সব অতিথিরা রাতের অন্ধকার থাকতেই উঠে চলে যেত, তবে বাড়ির কোনো কিছু হারায়নি কোনো দিন। কাছারি ঘরের সামনে ছিল বারান্দা। বারান্দায় সব সময় একটি হেলনা বেঞ্চ থাকত। ক্লান্ত পথিকরা এখানে বসে একটু জিড়িয়ে নিত। কখনো কখনো পান-তামাক (হুক্কা) খেয়ে যেত।

পশ্চিম মাধবপুরের মরহুম সমুজ আলী সর্দারের ছেলে মাসুদ আলী বলেন, আমাদের একটি কাচারী ঘর ছিল, যেটি আজ পরিত্যক্ত, এই ঘরটি ছিল আমাদের ঐতিহ্য, এক সময় এই ঘরের বারান্দার একপ্রান্তে ছোট কক্ষে থাকতেন মসজিদের মৌলভী বা মক্তবের শিক্ষক। এখন আর কোনো বাড়িতে বাংলা ঘর নেই। যে কয়টি আছে তা ব্যবহৃত না হওয়ায় অবহেলা, অযতেœ মৃত প্রায়।

বারোমাসি রাখালের প্রচলন নেই, নেই রাখালি গান। বাড়ির ছেলেদের রাতে বাইরে থাকার অনুমতি নেই। অবকাঠামো উন্নতির ফলে মাঠে ঘাটে যারা কাজ করে তারা দিন শেষে নিজ বাড়িতে চলে যায়। পরিবার গুলো ছোট ও খুব বেশী আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছে। তাই বিলুপ্ত হচ্ছে শতবর্ষের ঐতিহ্য কাছারি ঘর নামে খ্যাত বাহির বাড়ির বাংলো ঘরটি। মাধবপুর পৌরসভা মেয়র হাবিবুর রহমান মানিক বলেন, এখন সবাই শহর কেন্দ্রীক। নিজেদের পরিবার নিয়েই সবাই ব্যস্ত। বাবা দাদার ঐতিয্য নিয়ে মোটেও মাথা ব্যাথা নেই। বাবা দাদার সম্পদ ঠিকই বিক্রি করে নিয়ে যায় নিজের আভিজাত্য আরও অভিজাত করার জন্য।

ছবি

কলকাতায় বাংলদেশের বইমেলা উদ্বোধন করলেন শিক্ষামন্ত্রী দীপুমনি

দুদেশের সৌহার্দের নতুন দিগন্ত সূচনার আশা

ছবি

বগুড়ায় কবি সম্মেলনে পাঁচ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে লেখক চক্রের সম্মাননা

ছবি

কবি বেগম সুফিয়া কামালের ২৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী

ছবি

মাটির তৈজস গড়ে ৬৫ বছর পার করলেন ভালুকার মৃৎ শিল্পী শোভারানী পাল

ছবি

নওগাঁয় জেলা শিল্পকলা একাডেমির সন্মাননা প্রদান

ছবি

নির্বাচন কেন্দ্রীক অস্থিতিশীলতাঃ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আলোকচিত্র প্রদর্শনী

ছবি

২ বছর ধরে বন্ধ : নষ্ট হচ্ছে মাধবপুর উপজেলা লাইব্রেরী আসবাবপত্র ও মূল্যবান বই

সংস্কৃতির সম্পর্ক সীমান্তের কাঁটাতার, সাত সমুদ্রও চ্ছিন্ন করতে পারেনা

ফরিদপুরে স্বাধীনতার সুবর্ণ-জয়ন্তি চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধন

ছবি

আবৃত্তিপ্রেমীর দ্বিতীয় আবৃত্তি উৎসব শুক্রবার

কলকাতায় শুরু হলো চর্তুথ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব

ছবি

নানা আয়োজনে উদীচীর ৫৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

অষ্টম জাতীয় ত্বকী চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থায়ী আর্ট গ্যালারি উদ্বোধন

ছবি

দুই বাংলার মিলন উৎসব শুরু

ছবি

সুলতান উৎসবে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় শিশুদের মিলনমেলা

অবশেষে শুরু কবীর সুমনের গানের আসর

ছবি

রাবিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘চিহ্নমেলা মুক্তবাঙলা’

ছবি

শান্তির বার্তা নিয়ে রবীন্দ্রসংগীত সম্মেলন শুরু

ছবি

আজ সুমনের গান, ভেন্যু নিয়ে নাটকীয়তা

আগামীকাল শুক্রবার থেকে ঢাকায় শুরু হবে ৩দিনব্যাপী জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মেলন

ছবি

‘ব্যক্তি জীবনে সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবার আর লুকিয়ে নয়, সবাইকে জানিয়েই করবো’

ছবি

মণিপুরী ভাষায় নজরুলের ৩০টি কবিতা অনুবাদ করলেন যমুনা লরেইঞ্জাম

ছবি

রাজশাহীতে দুই কবি-লেখক পাচ্ছেন ‘কবিকুঞ্জ পদক’ পদক

আত্মদানের নব্বইতম বার্ষির্কীতে বীরকন্যা প্রীতিলতা চলচ্চিত্রের ফার্স্টলুক টিজার প্রকাশ

ছবি

গান-কবিতা-নৃত্যে ঢাবির বকুলতলায় শরৎ উৎসব

ছবি

দুইদফা তারিখ ঘোষণার পরেও কলকাতায় বাংলাদেশ বইমেলা স্থগিত

ছবি

সভ্যতার অনুপম নিদর্শন আত্রাইয়ের তিন গুম্বুজ মসজিদ ও মঠ

ছবি

প্রতিকূল পরিবেশে সফল হয়েছেন সংস্কৃতিকর্মীরা, অনুকূল পরিবেশে ব্যর্থ হচ্ছেন

ছবি

ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহযোগিতায় এডিনবার্গ আন্তর্জাতিক সংস্কৃতি সম্মেলন

ছবি

খুদে শিল্পীদের রঙতুলি: ১৩০ ফুট ক্যানভাসে ফুটে উঠলো বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও পরিবেশ-প্রকৃতি

ছবি

‘গল্প বলার স্বাধীনতা’ চেয়ে শিল্পী-নির্মাতাদের মতবিনিময় সভা

ছবি

ঢাবির মঞ্চে হ্যামলেট-ম্যাকবেথ-ওথেলো অনুসৃত নতুন নাটক করুণা ও ভীতির গল্প

ছবি

ভারত-বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মৈত্রীর লক্ষ্যে কবিতা উৎসব মুর্শিদাবাদে

ছবি

লক্ষ্যাপাড়ের বয়ানে ‘দাগ আর্ট স্টেশন’

tab

সংস্কৃতি

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী `কাচারি ঘর’

প্রতিনিধি মাধবপুর (হবিগঞ্জ)

সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২

মাধবপুরে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী কাচারী ঘর বা বাংলা ঘর। ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা নিয়ে মাধবপুর উপজেলা গঠিত। এই উপজেলায় অধিকাংশ ইউনিয়নের গ্রামের অভিজাত ও সম্ভ্রান্ত পরিবারে আভিজাত্যের প্রতীক ছিল কাছারি ঘর বা গ্রামের বাংলা ঘর।

বাড়ির বাহির আঙিনায় অতিথি, মুসাফির, ছাত্র ও জায়গিরদের থাকার এই ঘরটি কাছারি ঘর বা বাংলা ঘর নামে সমধিক পরিচিত ছিল। মাধবপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আন্দিউড়া গ্রামের ঐতিহ্যবাহী চৌধুরী পরিবারের সন্তান হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জাকির হোসেন চৌধুরী অসীম বলেন, বর্তমানে ড্রয়িং রুমের সাজ-সজ্জার মাধ্যমে কোনো অভিজাত পরিবারের আভিজাত্যের বহিঃ প্রকাশ ঘটে। ঝাড়বাতি, সোফাসেট, অ্যাকিউরিয়াম, ইন্টেরিয়র, রুচিশীল কোনো ছবি দিয়ে মনোমুগ্ধকর ভাবে সাজানো হয় অতিথিশালা বা ড্রয়িংরুম।

এক সময়ে গ্রামের বাড়ির একমাত্র আভিজাত্যের প্রতীকই ছিল বাড়ির বাহির আঙিনার বৈঠকখানা বা বাংলা ঘর। যা আর এখন চোখে পরে না। এই বাংলা ঘরের চৌকির ওপর থাকত বাড়ির অবিবাহিত ছেলে বা ছাত্ররা। আর মেহমান বা অতিথিরা এলে চৌকির ওপরে থাকতে দেয়া হতো। মাটিতে একঢালা হোগল পাতার বা বাঁশের চাটাই বিছিয়ে বিছানা করে থাকত বারোমাসি কামলারা ও রাখাল। গড় গড় শব্দে তারা হুক্কা টানত আর ধোঁয়া ছাড়ত।

প্রতি রাতেই পাড়ার সব কামলা/রাখাল বড় কোনো কাছারি ঘরে মিলিত হয়ে গানের আসর বসাতো। গান করত পল্লীগীতি, ভাটিয়ালী, রূপবান,গুনাই বিবি, আলোমতি, সাগরভাসা, বেহুলা লখিন্দরের পালা। মাঝে মাঝে গভীর রাত পর্যন্ত বসত শালিস বৈঠক। গৃহ অভ্যন্তরে যারা থাকতেন তাদের চোখেও ঘুম ছিলো না, চা আর পানের ফরমায়েশ রক্ষা করতে।

প্রায় প্রতিটি রাতে কাছারি ঘরওয়ালা বাড়িতে আসত অনাত্মীয়- অচেনা কোনো মুসাফির। ভেতর বাড়ি থেকে শোনা যেত কোনো অচেনা মুসাফিরদের কণ্ঠ : ‘বাড়িতে কেডা আছেন ? কাছে এলে বলত : থাকবার জাগা হবে ? “অনেক রাইত অইছে, বাড়িতে যাওয়া যাবে না” এই কারণেই বাঙালিরা হয়ে উঠেছিল- অতিথি পরায়ণ।

আরবের মানুষও অতিথি পরায়ণ হয়েছিল, শুধু মরুভূমির কারণে। যত রাতেই আসুক অতিথিদের না খেয়ে শুতে দিত না বাড়িওয়ালারা। মজার ব্যাপার হলো- এ সব অতিথিরা রাতের অন্ধকার থাকতেই উঠে চলে যেত, তবে বাড়ির কোনো কিছু হারায়নি কোনো দিন। কাছারি ঘরের সামনে ছিল বারান্দা। বারান্দায় সব সময় একটি হেলনা বেঞ্চ থাকত। ক্লান্ত পথিকরা এখানে বসে একটু জিড়িয়ে নিত। কখনো কখনো পান-তামাক (হুক্কা) খেয়ে যেত।

পশ্চিম মাধবপুরের মরহুম সমুজ আলী সর্দারের ছেলে মাসুদ আলী বলেন, আমাদের একটি কাচারী ঘর ছিল, যেটি আজ পরিত্যক্ত, এই ঘরটি ছিল আমাদের ঐতিহ্য, এক সময় এই ঘরের বারান্দার একপ্রান্তে ছোট কক্ষে থাকতেন মসজিদের মৌলভী বা মক্তবের শিক্ষক। এখন আর কোনো বাড়িতে বাংলা ঘর নেই। যে কয়টি আছে তা ব্যবহৃত না হওয়ায় অবহেলা, অযতেœ মৃত প্রায়।

বারোমাসি রাখালের প্রচলন নেই, নেই রাখালি গান। বাড়ির ছেলেদের রাতে বাইরে থাকার অনুমতি নেই। অবকাঠামো উন্নতির ফলে মাঠে ঘাটে যারা কাজ করে তারা দিন শেষে নিজ বাড়িতে চলে যায়। পরিবার গুলো ছোট ও খুব বেশী আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছে। তাই বিলুপ্ত হচ্ছে শতবর্ষের ঐতিহ্য কাছারি ঘর নামে খ্যাত বাহির বাড়ির বাংলো ঘরটি। মাধবপুর পৌরসভা মেয়র হাবিবুর রহমান মানিক বলেন, এখন সবাই শহর কেন্দ্রীক। নিজেদের পরিবার নিয়েই সবাই ব্যস্ত। বাবা দাদার ঐতিয্য নিয়ে মোটেও মাথা ব্যাথা নেই। বাবা দাদার সম্পদ ঠিকই বিক্রি করে নিয়ে যায় নিজের আভিজাত্য আরও অভিজাত করার জন্য।

back to top