alt

রাজনীতি

গণ-অনশন শেষ, সারাদেশে সমাবেশ সোমবার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার দাবিতে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গণঅনশন করছে বিএনপি। কর্মসূচি থেকে আগামী সোমবার (২২ নভেম্বর) ঢাকায় প্রেসক্লাবের সামনে এবং সারাদেশে জেলা ও উপজেলায় সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি।

শনিবার (২০ নভেম্বর) বিকেলে গণঅনশন শেষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী মির্জা ফখরুলকে পানি পান করিয়ে গণঅনশন কর্মসূচি শেষ করেন।

গণ-অনশন কর্মসূচির সমাপনী বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বলেন, যে নেত্রী তার সারাজীবন এ দেশের মানুষের অধিকারের জন্য সংগ্রাম করেছেন। অল্প বয়সে স্বামী হারিয়ে দুটি শিশু সন্তান নিয়ে জনতার কাতারে মিশে গিয়েছেন। যিনি এই দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছিলেন। যিনি নারীদের ক্ষমতায়নে কাজ করেছেন। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ফিরিয়ে দিয়েছেন। যিনি তিনবার জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। সেই নেত্রী খালেদা জিয়া। যাকে আমরা মা বলে জানি। তাকে এই ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার বেআইনিভাবে আগের রাতে নির্বাচন করে ক্ষমতায় বসে আছে। তারা তাকে তিন বছরের বেশি সময় কারাগারে আটক করে রেখেছে। একটাই কারণ তারা জানে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া বাইরে থাকলে এ দেশের স্বাধীনতা স্বার্বভৌমত্ব বিপন্ন করতে পারবে না। জনগণের ভোটের অধিকার কেউ কেড়ে নিয়ে পারবে না।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে এ সরকারের শুধু অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার লিপসার কারণে ৩৫ লাখ মানুষের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে। শত শত নেতাকর্মীকে হত্যা-গুম করেছে। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ তিনি জীবন-মৃর্ত্যুর সন্ধিক্ষণে। আমরা বিদেশের চিকিৎসকদের সঙ্গে বার বার কথা বলেছি, তারা বলছেন, বাংলাদেশে তাকে যতটা চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব তা দেওয়া হয়েছে। এখন তাকে বিদেশে নিয়ে না গেলে তাকে আর সুস্থ করা যাবে না।

তিনি বলেন, পরিষ্কার ভাষায় বলে দিতে চাই, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে অবিলম্বে তাকে বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় যে আন্দোলন শুরু হলো এই আন্দোলন আপনাকে আপনার গদিচ্যুত করবে। আমাদের নেত্রীকে মুক্ত করতে যে কোনো ত্যাগ স্বীকার করতে আমরা প্রস্তুত।

নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সকাল ৯টা থেকে এ কর্মসূচি শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৪টায়।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে ও বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর পরিচালনায় গণ-অনশনে আরও বক্তব্য দেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেইন, তাঁতী দলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

এছাড়া আরও বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম (বীর প্রতীক), বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আব্দুল হালিম, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, এলডিপির একাংশের মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, এলডিপির অপর অংশের মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, জাগপার একাংশের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার লুৎফর রহমান, ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব প্রফেসর আব্দুল করিম, ন্যাপ ভাসানীর নেতা অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলাম, ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ড. ওবায়দুল ইসলাম, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আবদুল্লাহ, মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন প্রমুখ।

ছবি

কিছুদিনের মধ্যেই খালেদার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে সিদ্ধান্ত: আইনমন্ত্রী

ছবি

খালেদা জিয়ার আবারও রক্তক্ষরণ হচ্ছে : ফখরুল

ছবি

নাসিক নির্বাচন: মনোনয়নপত্র নিলেন নৌকার প্রার্থী আইভী

খালেদা জিয়ার মুক্তি ও চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে ২০ ডিসেম্বর থেকে বিএনপির জেলা পর্যায়ে সমাবেশ

ছবি

মুরাদের পদত্যাগপত্রেও ভুল

ছবি

শুধু পদত্যাগ না, মুরাদকে গ্রেপ্তার করতে হবে : রিজভী

ছবি

‘ব্যক্তিগত কারণ’ দেখিয়ে ইমেইলে পদত্যাগপত্র পাঠালেন মুরাদ

ছবি

প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে নিয়ে ফখরুলের সঙ্গে তর্কে জড়ালেন যুবদল নেতা

ছবি

তথ্য প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ চাইলেন মির্জা ফখরুল

ছবি

বক্তব্য প্রত্যাহারের প্রশ্নই ওঠে না : তথ্য প্রতিমন্ত্রী

ছবি

খালেদাকে মুক্তি না দিলে কোটি মানুষ রাস্তায় নেমে আসবে

ছবি

নেত্রীও স্কুল ড্রেস পরে আন্দোলন করছেন: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

শিক্ষার্থীরা রাজনৈতিক দলের উস্কানিতে রাস্তায়: কাদের

ছবি

জনগণই আমার শক্তির উৎস: আইভী

ছবি

ছাত্র আন্দোলনে হয়রানি হলে রাজপথে জবাব দেব: নুর

ছবি

খালেদা জিয়াকে তিলে তিলে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে : ফখরুল

ছবি

দেশে ভালো ডাক্তার আছেন, খালেদা জিয়া সুস্থ হয়ে উঠবেন: তথ্যমন্ত্রী

ছবি

‘খালেদার বিদেশে যেতে বাধা আইন নয়, সরকার’

ছবি

খালেদার বিদেশে চিকিৎসার জটিলতার জন্য আ’লীগ দায়ী নয়: সেতুমন্ত্রী

ছবি

ইউপি নির্বাচন দিয়ে আ’লীগের পতন শুরু হয়ে গেছে: ফখরুল

ছবি

ইউপি নির্বাচনে চর দখলের মতোই কেন্দ্র দখল হচ্ছে: জিএম কাদের

ছবি

হেফাজতের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব সাজিদুর রহমান

ছবি

খালেদা জিয়ার অসুস্থতার জন্য বিএনপিই দায়ী: কাদের

ছবি

কে হচ্ছে হেফাজতের মহাসচিব

ছবি

মারা গেছেন হেফাজতের মহাসচিব নুরুল ইসলাম

ছবি

এমপিরা বেক্কলের মতো ঘোরেন: সংসদে জাপা মহাসচিব

ছবি

কেন্দ্রে গিয়ে শোনেন তার ভোট হয়ে গেছে

ছবি

বিএনপি দেশে অস্থিরতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে: কৃষিমন্ত্রী

ছবি

খালেদার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে: মির্জা ফখরুল

ছবি

পাবলিক আমাদের আ.লীগের দালাল বলে: জাপা মহাসচিব

রাজাকার পুত্র হাইমচরে নৌকার প্রার্থী

ছবি

আমি টাকা পাচার করি না, কারা করে কীভাবে জানবো : অর্থমন্ত্রী

ছবি

সংসদে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের পক্ষে কথা বলে তোপে সাংসদ হারুন

ছবি

রাষ্ট্রপতি ক্ষমা করলেই খালেদার দণ্ড মওকুফ: হানিফ

ছবি

খালেদাকে স্লো পয়জনিং করলে ফখরুলরা করছেন: ওবায়দুল কাদের

ছবি

খালেদার চিকিৎসায় বিদেশ থেকে চিকিৎসক আনছেন না কেন: আইনমন্ত্রী

tab

রাজনীতি

গণ-অনশন শেষ, সারাদেশে সমাবেশ সোমবার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

শনিবার, ২০ নভেম্বর ২০২১

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার দাবিতে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে গণঅনশন করছে বিএনপি। কর্মসূচি থেকে আগামী সোমবার (২২ নভেম্বর) ঢাকায় প্রেসক্লাবের সামনে এবং সারাদেশে জেলা ও উপজেলায় সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিএনপি।

শনিবার (২০ নভেম্বর) বিকেলে গণঅনশন শেষে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এদিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর আনোয়ার উল্লাহ চৌধুরী মির্জা ফখরুলকে পানি পান করিয়ে গণঅনশন কর্মসূচি শেষ করেন।

গণ-অনশন কর্মসূচির সমাপনী বক্তব্যে মির্জা ফখরুল বলেন, যে নেত্রী তার সারাজীবন এ দেশের মানুষের অধিকারের জন্য সংগ্রাম করেছেন। অল্প বয়সে স্বামী হারিয়ে দুটি শিশু সন্তান নিয়ে জনতার কাতারে মিশে গিয়েছেন। যিনি এই দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছিলেন। যিনি নারীদের ক্ষমতায়নে কাজ করেছেন। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ফিরিয়ে দিয়েছেন। যিনি তিনবার জনগণের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন। সেই নেত্রী খালেদা জিয়া। যাকে আমরা মা বলে জানি। তাকে এই ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার বেআইনিভাবে আগের রাতে নির্বাচন করে ক্ষমতায় বসে আছে। তারা তাকে তিন বছরের বেশি সময় কারাগারে আটক করে রেখেছে। একটাই কারণ তারা জানে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া বাইরে থাকলে এ দেশের স্বাধীনতা স্বার্বভৌমত্ব বিপন্ন করতে পারবে না। জনগণের ভোটের অধিকার কেউ কেড়ে নিয়ে পারবে না।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে এ সরকারের শুধু অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার লিপসার কারণে ৩৫ লাখ মানুষের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে। শত শত নেতাকর্মীকে হত্যা-গুম করেছে। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া অসুস্থ তিনি জীবন-মৃর্ত্যুর সন্ধিক্ষণে। আমরা বিদেশের চিকিৎসকদের সঙ্গে বার বার কথা বলেছি, তারা বলছেন, বাংলাদেশে তাকে যতটা চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব তা দেওয়া হয়েছে। এখন তাকে বিদেশে নিয়ে না গেলে তাকে আর সুস্থ করা যাবে না।

তিনি বলেন, পরিষ্কার ভাষায় বলে দিতে চাই, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে অবিলম্বে তাকে বিদেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় যে আন্দোলন শুরু হলো এই আন্দোলন আপনাকে আপনার গদিচ্যুত করবে। আমাদের নেত্রীকে মুক্ত করতে যে কোনো ত্যাগ স্বীকার করতে আমরা প্রস্তুত।

নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সকাল ৯টা থেকে এ কর্মসূচি শুরু হয়ে শেষ হয় বিকেল ৪টায়।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে ও বিএনপির প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর পরিচালনায় গণ-অনশনে আরও বক্তব্য দেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান, মহানগর দক্ষিণের আহ্বায়ক আবদুস সালাম, বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, যুবদলের সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম বাবুল, ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, শ্রমিক দলের সভাপতি আনোয়ার হোসেইন, তাঁতী দলের আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ প্রমুখ।

এছাড়া আরও বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম (বীর প্রতীক), বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আব্দুল হালিম, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, এলডিপির একাংশের মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, এলডিপির অপর অংশের মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, জাগপার একাংশের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার লুৎফর রহমান, ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব প্রফেসর আব্দুল করিম, ন্যাপ ভাসানীর নেতা অ্যাডভোকেট আজহারুল ইসলাম, ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ড. ওবায়দুল ইসলাম, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আবদুল্লাহ, মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন প্রমুখ।

back to top