alt

উপ-সম্পাদকীয়

বিজয়ের মাস : কোণঠাসা হানাদার বাহিনী

সাদেকুর রহমান

: শুক্রবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২৩

১৯৭১ সালের মার্চে মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর নবম মাসে এসে একে একে সাফল্য ধরা দিতে শুরু করে। বীরবিক্রমে মুক্তিযোদ্ধাদের লক্ষ্য অর্জনের মাস হয়ে ওঠে ডিসেম্বর। ডিসেম্বরের দ্বিতীয় দিনে বাংলার দামাল সন্তানেরা সাহসিকতার সঙ্গে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। প্রতিদিন কোণঠাসা হতে থাকে হানাদার বাহিনী। নভেম্বরের শুরু থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সংঘাত তীব্র আকার ধারণ করে। সীমান্ত এলাকাগুলোতে সংঘাত তীব্র আকার ধারণ করলে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে যোগ দেয় ভারতীয় বাহিনী। আর এদিকে দেশজুড়ে চলছিল লড়াকু বাঙালির অদম্য প্রতিরোধ। মুক্তিবাহিনীর কাছে নাস্তানাবুদ হচ্ছিল দখলদার বাহিনী।

বাংলাদেশের স্বাধীনতাকামী মানুষের মুক্তির সংগ্রাম তখন বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে। সুচতুর ইয়াহিয়া খান লায়ালাপুর কারাগারে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সমঝোতার প্রস্তাব দেন। কিন্তু ঐ সমঝোতা প্রস্তাব বঙ্গবন্ধু ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের পর থেকেই আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে ক্ষমতা তুলে না দিতে ইয়াহিয়া-ভুট্টোচক্র নানা রকম ফন্দি আঁটে। আলোচনার নামে সময়ক্ষেপণের নাটক চালাতে থাকে। স্বাধীনতাকামী নেতৃত্বসহ সর্বস্তরের বাঙালি পাকিস্তানিদের সে ফাঁদে পা দেয়নি।

পাকিস্তান সরকারের আমলা, পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের সচিব ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম তার ‘বাংলাদেশ সরকার ১৯৭১’ গ্রন্থে ওই সময়ে চিত্র উল্লেখ করেছেন এভাবে- ‘২ ডিসেম্বর আমার কাছে এই মর্মে একটি বার্তা পৌঁছে যে, সিলেট এবং ময়মনসিংহ জেলার মুক্ত-অঞ্চলে পাকা ধান কাটার অপেক্ষায় আছে। কোনো কোনো ব্যবসায়ী এই ধান অল্প দামে ক্রয় করে সীমান্তের ওপারে ভারতে চালান করছে। বিনিময়ে লবণ, কেরোসিন তেল ইত্যাদি নিয়ে গিয়ে চড়া দামে বিক্রি করছে। সংবাদটি পেয়েই আমি অর্থ ও বাণিজ্য সচিবকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করি।’ (আগামী প্রকাশনী, প্রথম প্রকাশ : ফেব্রুয়ারি ২০০৪, পৃষ্ঠা ৩২৪)।

এদিকে একাত্তরের ২ ডিসেম্বরের বড় অর্জন হচ্ছে ঘোড়াশালে তেজোদীপ্ত মুক্তিবাহিনীর ২৭ পাকিস্তানি হানাদার খতম। মুক্তিযোদ্ধারা দিনাজপুরে অকস্মাৎ এমন এক হামলা চালায় যার জন্য প্রস্তুত ছিল না পাকিস্তানি বাহিনী। সেখানে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে একত্রিত হয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনী তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সর্ব উত্তরের জনপদ পঞ্চগড় মুক্ত করে এগিয়ে চলছিল ঠাকুরগাঁওয়ের দিকে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হামলায় ঢাকার রামপুরা ও মালিবাগে এদিন ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সমূহে তখন মুক্তিবাহিনীর সাফল্যের খবর গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশিত হয়।

একাত্তরের এদিন মুক্তিযোদ্ধারা যখন রাজধানী ঢাকাকে দখলমুক্ত করার লক্ষ্যে আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে ঢাকার দিকে ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছিল তখন পাকিস্তান বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে চালিয়ে যাচ্ছিল নানা অপপ্রচার। এ দিকে প্রিয় মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করার প্রত্যয়ে প্রতিদিন শহিদ হচ্ছিল হাজারও মুক্তিকামী জনতা। হানাদার বাহিনীর অত্যাচার থেকে রেহাই পাচ্ছিল না মা-বোনেরা।

নোয়াখালী থেকে চট্টগ্রামের পথে পথে শুরু হয় সম্মুখযুদ্ধ। আখাউড়া রেলস্টেশনে চলে সম্মুখযুদ্ধ। একাত্তরের এই দিনে ময়মনসিংহ, জামালপুরসহ দেশের বেশ কয়েকটি এলাকায় গণহত্যা চালায় পাকিস্তানি বাহিনী।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের আর্কাইভ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, এদিন মুক্তিবাহিনী ঘোড়াশালে হানাদার বাহিনীর অবস্থানের ওপর চার দিক থেকে আক্রমণ করে ২৭ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করতে সক্ষম হয়। এখান থেকে মুক্তিবাহিনী বেশ কিছু গোলা-বারুদ হস্তগত করে।

ঢাকার আজমপুর রেলওয়ে স্টেশন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে এলেও ক্ষিপ্ত পাকিস্তানি বাহিনী তাদের বিপর্যস্ত অবস্থা কাটিয়ে উঠে মুক্তিবাহিনীর ওপর পাল্টা আক্রমণ করে। এই আক্রমণে মুক্তিবাহিনী পিছু সরে আসতে বাধ্য হয়। মুক্তিবাহিনী পুনরায় তাদের অবস্থান সুদৃঢ় করে তিন দিক থেকে শত্রুকে আক্রমণ করলে দখলদার বাহিনী আজমপুর রেলওয়ে স্টেশন ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।

চট্টগ্রামে মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা উত্তরে ফটিকছড়ি ও রাউজান থানা এবং দক্ষিণে আনোয়ারার অধিকাংশ স্থান তাদের দখলে আনতে সক্ষম হয়। মুক্তিবাহিনী বর্তমান নেত্রকোণার বিরিশিরির বিজয়পুরে শত্রু অবস্থানের ওপর অ্যামবুশ করে ৫ জন শত্রুসেনাকে হত্যা করে। এখান থেকে মুক্তিবাহিনী রাইফেলসহ ২১ জন রাজাকারকে ধরতে সক্ষম হয়।

পাকিস্তানি কমান্ডার মোছলেহ উদ্দিন ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে একদল রাজাকার সঙ্গে নিয়ে কাঁঠালি গ্রামে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করতে এলে মুক্তিবাহিনীর সেকশন কমান্ডার গিয়াসউদ্দিন এবং ৩নং সেকশন কমান্ডার আবদুল ওয়াহেদের নেতৃত্বে পরিচালিত অতর্কিত আক্রমণে তিন জন শত্রুসেনা ও ৭ জন রাজাকার নিহত হয় এবং ৭ জন শত্রুসেনা আহত হয়। পরে হানাদাররা লাশগুলো নিয়ে পালিয়ে যায়।

দিকে দিকে যখন হানাদারেরা অব্যাহতভাবে পরাস্ত হচ্ছে, তখনও বাস্তব পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে অক্ষম পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ও পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামীর পূর্ব পাকিস্তান শাখার নেতৃবৃন্দ পাকিস্তানের ‘অখন্ডতা’ রক্ষার লক্ষ্যে অবিলম্বে পশ্চিম পাকিস্তানের সীমান্ত থেকে ভারত আক্রমণ করার জন্য প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের প্রতি আবেদন জানান।

ইতিহাস বলছে, রাজনৈতিক ও কৌশলগত কারণেই মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশের মিত্রশক্তি ছিল এবং তৎকালীন পরাশক্তি সোভিয়েত ইউনিয়ন (বর্তমান রাশিয়া) ভারতকে সমর্থন যুগিয়েছিল। আর পাকিস্তানের অখন্ডতা রক্ষার্থে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল অপর পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। এ দুটি দেশ নানাভাবে পাকিস্তান সরকারকে সহযোগিতাও করেছিল। এ বিষয়ে আবদুল ওয়াহেদ তালুকদার তার ‘৭০ থেকে ৯০ বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক গ্রন্থে বর্ণনা করেন, ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয় ১৯৭১-এর মার্চ মাসে। এই মুক্তিযুদ্ধের প্রতি আন্তর্জাতিক দৃষ্টি আকর্ষণে ভারতের অবদান সবচেয়ে বেশি। কারণ ভারতের প্রচার মাধ্যমগুলো সোচ্চার হয়ে উঠেছিল যে, অভ্যন্তরীণ সমস্যা সমাধানের অজুহাতে বাংলাদেশে যে গণহত্যা চলছিল তা প্রতিহত করা বাইরের পৃথিবীর নৈতিক দায়িত্ব। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে পরাশক্তিসমূহ তাদের জাতীয় স্বার্থ এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতির পরিবেশগত কারণে জড়িয়ে পড়ে। ... পাকিস্তানের প্রতি চীনের অকুণ্ঠ সমর্থনের পেছনে যে কারণ বিদ্যমান তা হলো, চীন নিজেই একটা বহুজাতিক রাষ্ট্র। তাই তার ভাষায় বাঙালিদের এ বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন সমর্থন করা যায় না। আর বাংলাদেশে যে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছে, তা তার (চীন) ভাষায় কম্যুনিজম প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শ্রমিক-কৃষক-জনতার সমর্থনপুষ্ট একটা গণযুদ্ধ ছিল না। বরং কিছুসংখ্যক বুর্জোয়া নেতা শ্রেণিস্বার্থ উদ্ধারের জন্য পাকিস্তানের সংহতি বিনষ্ট করার সংগ্রামে লিপ্ত ছিল মাত্র।’

এদিকে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী নয়াদিল্লিতে কংগ্রেস দলের এক কর্মিসভায় ভাষণদানকালে বলেন, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বাংলাদেশ ছেড়ে গেলেই লাখ লাখ বাঙালি স্বদেশে ফিরে গিয়ে শান্তিপূর্ণ জীবন-যাপন করতে পারবে।

অন্যদিকে তৎকালীন দৈনিক পাকিস্তান (পরবর্তীতে দৈনিক বাংলা) ও পূর্বদেশ পত্রিকার খবর অনুযায়ী এদিন একজন সরকারি মুখপাত্র জানান, ‘পূর্ব পাকিস্তানে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষক মোতায়েনের প্রস্তাব করে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান জাতিসংঘের মহাসচিব মি. উ থান্টের কাছে যে পত্র দিয়েছে তা নিরাপত্তা পরিষদে বিবেচনার জন্য পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।’ পর্যবেক্ষক চেয়ে ইয়াহিয়ার এই পত্র দেয়ার ব্যাপারটি ছিল নিজেদের ভূমিকাকে পরিচ্ছন্ন রাখার একটা কৌশল মাত্র।

একই দিন আমেরিকায় নিযুক্ত পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত আগাশাহী নিউইয়র্কে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে পূর্ব পাকিস্তান থেকে পাকিস্তানি সৈন্য সরিয়ে নেয়ার ভারতীয় দাবিকে অদ্ভুত বলে উল্লেখ করেন। এছাড়া এদিন জুলফিকার আলী ভুট্টোর সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সত্যিকার প্রতিনিধিদের হাতে অবিলম্বে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানানো হয়। ভুট্টো পিপিপির কোয়ালিশনে যোগ দেয়ার গুজবকে সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাখ্যান করেন।

[লেখক : সমন্বয়ক ও গবেষক, ‘প্রবাসে প্রিয়জন’ অনুষ্ঠান, বাংলাদেশ টেলিভিশন]

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

মধুরতম ভাষা ও রক্তাক্ত বাংলা

উৎসব ও প্রথার বিবর্তন

চুরমার ফিলিস্তিন ও খাদ্য রাজনীতি

কুষ্ঠজনিত মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধে করণীয়

যুব ক্ষমতায়ন স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণকে ত্বরান্বিত করবে

লাইব্রেরির ভবিষ্যৎ ও ভবিষ্যতের লাইব্রেরি

একজীবনে অনেক বছর বেঁচে থেকেও নিজেকে চেনা হয়ে ওঠে না

“ছুরি-কাঁটা ও নব্যধনী”

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে সন্দেশখালি লাইন

শিশুরও হতে পারে ক্যান্সার, প্রতিরোধে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ

চিকিৎসা নিতে কেন ভারতে গিয়েছিলাম

ইসরায়েলের গণহত্যা, দক্ষিণ আফ্রিকার মামলা

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

ছবি

সুন্দরবন কি আরেকটু বেশি মনোযোগ পেতে পারে না

নিজেকে বরং নিজেই প্রশ্ন করতে শিখুন

গড়ে উঠুক সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

ছবি

বিদ্যা দেবী মা সরস্বতী

বিশ্ব বেতার দিবস ও বাংলাদেশ বেতার

কৃষিবিদ দিবস

ছয় বছরের অর্জন ও প্রত্যাশা

জলবায়ু সম্মেলন এবং নয়া উদারবাদী কর্তৃত্ব

জিআই সনদের সন্ধানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নির্বাচন ও সামাজিক অস্থিরতা

ছবি

খাদ্যে আমদানিনির্ভরতা থেকে বেরোনোর পথ কী

ছবি

ট্রাম্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছেন, তবে পথ মসৃণ নয়

দুর্নীতিবাজদের খতম করা যাবে কি?

মূল্যস্ফীতি কমবে কীভাবে

শিক্ষা হচ্ছে জগতের আলো

ছবি

জ্ঞানবাপী মসজিদ বিতর্ক

আমেরিকার উন্নতির ভিত্তি

সড়ক পরিবহন আইন ও ট্রাফিক পুলিশ

‘বলদ কবে চালাক হবে’

রক্তপিছল ফিলিস্তিন, অস্ত্রবাণিজ্য এবং মিথ্যা জলবায়ু অঙ্গীকার

ভারতে মসজিদ-মন্দির বির্তক ও খল রাজনীতি

ব্যাংক খাতের রোগ সারাতে রোডম্যাপ

tab

উপ-সম্পাদকীয়

বিজয়ের মাস : কোণঠাসা হানাদার বাহিনী

সাদেকুর রহমান

শুক্রবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২৩

১৯৭১ সালের মার্চে মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর নবম মাসে এসে একে একে সাফল্য ধরা দিতে শুরু করে। বীরবিক্রমে মুক্তিযোদ্ধাদের লক্ষ্য অর্জনের মাস হয়ে ওঠে ডিসেম্বর। ডিসেম্বরের দ্বিতীয় দিনে বাংলার দামাল সন্তানেরা সাহসিকতার সঙ্গে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে থাকে। প্রতিদিন কোণঠাসা হতে থাকে হানাদার বাহিনী। নভেম্বরের শুরু থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সংঘাত তীব্র আকার ধারণ করে। সীমান্ত এলাকাগুলোতে সংঘাত তীব্র আকার ধারণ করলে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে যোগ দেয় ভারতীয় বাহিনী। আর এদিকে দেশজুড়ে চলছিল লড়াকু বাঙালির অদম্য প্রতিরোধ। মুক্তিবাহিনীর কাছে নাস্তানাবুদ হচ্ছিল দখলদার বাহিনী।

বাংলাদেশের স্বাধীনতাকামী মানুষের মুক্তির সংগ্রাম তখন বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে। সুচতুর ইয়াহিয়া খান লায়ালাপুর কারাগারে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সমঝোতার প্রস্তাব দেন। কিন্তু ঐ সমঝোতা প্রস্তাব বঙ্গবন্ধু ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনের পর থেকেই আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে ক্ষমতা তুলে না দিতে ইয়াহিয়া-ভুট্টোচক্র নানা রকম ফন্দি আঁটে। আলোচনার নামে সময়ক্ষেপণের নাটক চালাতে থাকে। স্বাধীনতাকামী নেতৃত্বসহ সর্বস্তরের বাঙালি পাকিস্তানিদের সে ফাঁদে পা দেয়নি।

পাকিস্তান সরকারের আমলা, পরবর্তীতে মুক্তিযুদ্ধকালীন বাংলাদেশ সরকারের সচিব ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনপ্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম তার ‘বাংলাদেশ সরকার ১৯৭১’ গ্রন্থে ওই সময়ে চিত্র উল্লেখ করেছেন এভাবে- ‘২ ডিসেম্বর আমার কাছে এই মর্মে একটি বার্তা পৌঁছে যে, সিলেট এবং ময়মনসিংহ জেলার মুক্ত-অঞ্চলে পাকা ধান কাটার অপেক্ষায় আছে। কোনো কোনো ব্যবসায়ী এই ধান অল্প দামে ক্রয় করে সীমান্তের ওপারে ভারতে চালান করছে। বিনিময়ে লবণ, কেরোসিন তেল ইত্যাদি নিয়ে গিয়ে চড়া দামে বিক্রি করছে। সংবাদটি পেয়েই আমি অর্থ ও বাণিজ্য সচিবকে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করি।’ (আগামী প্রকাশনী, প্রথম প্রকাশ : ফেব্রুয়ারি ২০০৪, পৃষ্ঠা ৩২৪)।

এদিকে একাত্তরের ২ ডিসেম্বরের বড় অর্জন হচ্ছে ঘোড়াশালে তেজোদীপ্ত মুক্তিবাহিনীর ২৭ পাকিস্তানি হানাদার খতম। মুক্তিযোদ্ধারা দিনাজপুরে অকস্মাৎ এমন এক হামলা চালায় যার জন্য প্রস্তুত ছিল না পাকিস্তানি বাহিনী। সেখানে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে একত্রিত হয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনী তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সর্ব উত্তরের জনপদ পঞ্চগড় মুক্ত করে এগিয়ে চলছিল ঠাকুরগাঁওয়ের দিকে। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হামলায় ঢাকার রামপুরা ও মালিবাগে এদিন ক্ষতিগ্রস্ত হয় বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সমূহে তখন মুক্তিবাহিনীর সাফল্যের খবর গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশিত হয়।

একাত্তরের এদিন মুক্তিযোদ্ধারা যখন রাজধানী ঢাকাকে দখলমুক্ত করার লক্ষ্যে আধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত পাকবাহিনীর বিরুদ্ধে ঢাকার দিকে ধীরে ধীরে এগিয়ে যাচ্ছিল তখন পাকিস্তান বাহিনী মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে চালিয়ে যাচ্ছিল নানা অপপ্রচার। এ দিকে প্রিয় মাতৃভূমিকে শত্রুমুক্ত করার প্রত্যয়ে প্রতিদিন শহিদ হচ্ছিল হাজারও মুক্তিকামী জনতা। হানাদার বাহিনীর অত্যাচার থেকে রেহাই পাচ্ছিল না মা-বোনেরা।

নোয়াখালী থেকে চট্টগ্রামের পথে পথে শুরু হয় সম্মুখযুদ্ধ। আখাউড়া রেলস্টেশনে চলে সম্মুখযুদ্ধ। একাত্তরের এই দিনে ময়মনসিংহ, জামালপুরসহ দেশের বেশ কয়েকটি এলাকায় গণহত্যা চালায় পাকিস্তানি বাহিনী।

মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের আর্কাইভ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, এদিন মুক্তিবাহিনী ঘোড়াশালে হানাদার বাহিনীর অবস্থানের ওপর চার দিক থেকে আক্রমণ করে ২৭ জন শত্রুসৈন্যকে হত্যা করতে সক্ষম হয়। এখান থেকে মুক্তিবাহিনী বেশ কিছু গোলা-বারুদ হস্তগত করে।

ঢাকার আজমপুর রেলওয়ে স্টেশন মুক্তিবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে এলেও ক্ষিপ্ত পাকিস্তানি বাহিনী তাদের বিপর্যস্ত অবস্থা কাটিয়ে উঠে মুক্তিবাহিনীর ওপর পাল্টা আক্রমণ করে। এই আক্রমণে মুক্তিবাহিনী পিছু সরে আসতে বাধ্য হয়। মুক্তিবাহিনী পুনরায় তাদের অবস্থান সুদৃঢ় করে তিন দিক থেকে শত্রুকে আক্রমণ করলে দখলদার বাহিনী আজমপুর রেলওয়ে স্টেশন ছেড়ে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।

চট্টগ্রামে মুক্তিবাহিনীর গেরিলারা উত্তরে ফটিকছড়ি ও রাউজান থানা এবং দক্ষিণে আনোয়ারার অধিকাংশ স্থান তাদের দখলে আনতে সক্ষম হয়। মুক্তিবাহিনী বর্তমান নেত্রকোণার বিরিশিরির বিজয়পুরে শত্রু অবস্থানের ওপর অ্যামবুশ করে ৫ জন শত্রুসেনাকে হত্যা করে। এখান থেকে মুক্তিবাহিনী রাইফেলসহ ২১ জন রাজাকারকে ধরতে সক্ষম হয়।

পাকিস্তানি কমান্ডার মোছলেহ উদ্দিন ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে একদল রাজাকার সঙ্গে নিয়ে কাঁঠালি গ্রামে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করতে এলে মুক্তিবাহিনীর সেকশন কমান্ডার গিয়াসউদ্দিন এবং ৩নং সেকশন কমান্ডার আবদুল ওয়াহেদের নেতৃত্বে পরিচালিত অতর্কিত আক্রমণে তিন জন শত্রুসেনা ও ৭ জন রাজাকার নিহত হয় এবং ৭ জন শত্রুসেনা আহত হয়। পরে হানাদাররা লাশগুলো নিয়ে পালিয়ে যায়।

দিকে দিকে যখন হানাদারেরা অব্যাহতভাবে পরাস্ত হচ্ছে, তখনও বাস্তব পরিস্থিতি উপলব্ধি করতে অক্ষম পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ও পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামীর পূর্ব পাকিস্তান শাখার নেতৃবৃন্দ পাকিস্তানের ‘অখন্ডতা’ রক্ষার লক্ষ্যে অবিলম্বে পশ্চিম পাকিস্তানের সীমান্ত থেকে ভারত আক্রমণ করার জন্য প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের প্রতি আবেদন জানান।

ইতিহাস বলছে, রাজনৈতিক ও কৌশলগত কারণেই মুক্তিযুদ্ধে ভারত বাংলাদেশের মিত্রশক্তি ছিল এবং তৎকালীন পরাশক্তি সোভিয়েত ইউনিয়ন (বর্তমান রাশিয়া) ভারতকে সমর্থন যুগিয়েছিল। আর পাকিস্তানের অখন্ডতা রক্ষার্থে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল অপর পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। এ দুটি দেশ নানাভাবে পাকিস্তান সরকারকে সহযোগিতাও করেছিল। এ বিষয়ে আবদুল ওয়াহেদ তালুকদার তার ‘৭০ থেকে ৯০ বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক গ্রন্থে বর্ণনা করেন, ‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয় ১৯৭১-এর মার্চ মাসে। এই মুক্তিযুদ্ধের প্রতি আন্তর্জাতিক দৃষ্টি আকর্ষণে ভারতের অবদান সবচেয়ে বেশি। কারণ ভারতের প্রচার মাধ্যমগুলো সোচ্চার হয়ে উঠেছিল যে, অভ্যন্তরীণ সমস্যা সমাধানের অজুহাতে বাংলাদেশে যে গণহত্যা চলছিল তা প্রতিহত করা বাইরের পৃথিবীর নৈতিক দায়িত্ব। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে পরাশক্তিসমূহ তাদের জাতীয় স্বার্থ এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতির পরিবেশগত কারণে জড়িয়ে পড়ে। ... পাকিস্তানের প্রতি চীনের অকুণ্ঠ সমর্থনের পেছনে যে কারণ বিদ্যমান তা হলো, চীন নিজেই একটা বহুজাতিক রাষ্ট্র। তাই তার ভাষায় বাঙালিদের এ বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন সমর্থন করা যায় না। আর বাংলাদেশে যে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়েছে, তা তার (চীন) ভাষায় কম্যুনিজম প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে শ্রমিক-কৃষক-জনতার সমর্থনপুষ্ট একটা গণযুদ্ধ ছিল না। বরং কিছুসংখ্যক বুর্জোয়া নেতা শ্রেণিস্বার্থ উদ্ধারের জন্য পাকিস্তানের সংহতি বিনষ্ট করার সংগ্রামে লিপ্ত ছিল মাত্র।’

এদিকে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী নয়াদিল্লিতে কংগ্রেস দলের এক কর্মিসভায় ভাষণদানকালে বলেন, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী বাংলাদেশ ছেড়ে গেলেই লাখ লাখ বাঙালি স্বদেশে ফিরে গিয়ে শান্তিপূর্ণ জীবন-যাপন করতে পারবে।

অন্যদিকে তৎকালীন দৈনিক পাকিস্তান (পরবর্তীতে দৈনিক বাংলা) ও পূর্বদেশ পত্রিকার খবর অনুযায়ী এদিন একজন সরকারি মুখপাত্র জানান, ‘পূর্ব পাকিস্তানে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষক মোতায়েনের প্রস্তাব করে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান জাতিসংঘের মহাসচিব মি. উ থান্টের কাছে যে পত্র দিয়েছে তা নিরাপত্তা পরিষদে বিবেচনার জন্য পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।’ পর্যবেক্ষক চেয়ে ইয়াহিয়ার এই পত্র দেয়ার ব্যাপারটি ছিল নিজেদের ভূমিকাকে পরিচ্ছন্ন রাখার একটা কৌশল মাত্র।

একই দিন আমেরিকায় নিযুক্ত পাকিস্তানি রাষ্ট্রদূত আগাশাহী নিউইয়র্কে এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে পূর্ব পাকিস্তান থেকে পাকিস্তানি সৈন্য সরিয়ে নেয়ার ভারতীয় দাবিকে অদ্ভুত বলে উল্লেখ করেন। এছাড়া এদিন জুলফিকার আলী ভুট্টোর সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সত্যিকার প্রতিনিধিদের হাতে অবিলম্বে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানানো হয়। ভুট্টো পিপিপির কোয়ালিশনে যোগ দেয়ার গুজবকে সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাখ্যান করেন।

[লেখক : সমন্বয়ক ও গবেষক, ‘প্রবাসে প্রিয়জন’ অনুষ্ঠান, বাংলাদেশ টেলিভিশন]

back to top