alt

উপ-সম্পাদকীয়

‘বলদ কবে চালাক হবে’

জাঁ-নেসার ওসমান

: শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

হাইসেন না ভাই, হাইসেন না! এই বলদগুলার জ্বালায় নিজের দেশে নিজেরে বিদেশি মনে হয়। পরবাসী নিজ দেশে! এই বলদগুলারে চিনলেন না? আরে এই বলদগুলা এবারের সর্বজন গণতন্ত্রের ভোটে স্বতন্ত্র ক্যান্ডিডেট হিসেবে এমপি হইছে। আরে ভাই এমপি হইছস মাল কামাবি, তা না হুমুন্দিরপুত পঞ্চাশ বছরের ময়লা পরিষ্কার কইরা নদীতে বান ডাকতাছে। হালা বলদা জানি কোনখানকার!

আরে বলদের বাচ্চা বলদ, পাবলিকের ভোটে তুই এমপি হইছস, ওই ব্যাটা তোর পোস্টার, ব্যানার লিফলেট, ক্যাডারদের পিস্তল ভাড়া, কর্মীর চা-পানি, রেন্ট-এ-কারের খরচ এসব টাকা তুই তুলবি না এতো ট্যাকা যে ইনভেস্ট করলি, এইডা সূদসহ উঠাবি না! কোনখার কার বলদ আইছে, দেশের উপকার করবো।

হিঃ হিঃ হিঃ আমি হাইস্যা মরি আবে হুমুন্দিরপুত তোর জন্মের আগে, উনিশ শ একাত্তর সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়ের বড় বড় এমপিরা পর্যন্ত নির্বাচনের ট্যাকা সুদে-আসলে তুইল্লা লইলো আর তুমি আইছ বীর হনুমান, গন্ধমাদন পর্বত একলা মাথায় লইয়া ঘুরবি। পঞ্চাশ বছরের ময়লা একলা পরিষ্কার করবি। কুনো প্রকার ট্যাকা কামাইবা না। কাবিখার গম নিজে খাবা না, জেনুইন পাবলিকের মাঝে গম বিলাইবা! কাবিখার সরকারি গম বাজারে বিক্রি করবা না! হালার বলদার পোলা বলদা, এসব না করলে তুই এমপি হইছস ক্যান, ক্যান, ক্যান!

দাঁড়ান দাঁড়ান এই নতুন বলদের কথা বলার আগে রিসেন্ট কয়টা বলদের কথা বলি।

রিসেন্ট বলদগুলারে চিনলেন না? আরে ভাই একটা হইলো শুনেন- ওই যে রূপসীপুর নাকি সুন্দরপুর, আরে মরার জ্বালা; ওই যে, যেখানে নতুন সব কিছু ক্লিয়ার কইরা দেয়, মানে নিউ সব কিছু পরিষ্কার করে, টাশকি নাকি যেন জায়গাটার নাম; ওই হাজার কোটি টাকার প্রজেক্ট থ্যাইক্কা বিক্রমাদিত্তের সেনাপতি নাকি কোটাল নাকি নবরতেœর কেউ মাননীয় বলদস্যারের পিডির কাছে আব্দার করছে প্রজেক্ট হইতে আমাদিগকে একশত কোটি স্বর্ণমুদ্রা প্রদান করিবেন প্লিজ।

পিডি যথারীতি প্রটোকল মানিয়া অক্সেন স্যারের কাছে উনাদের খায়েসের কথা প্রকাশ করিলেন। ব্যাস আর যায় কোথায়, অক্সেন স্যার বিষয়টা ব্রম্মাকে জানাইলেন ও ইন্দ্রের অনুমতি লইয়া একশত কোটি স্বর্ণমুদ্রা যাঞ্ছাকারীদের তাহার আলয়ে কল করিয়া ক্লোজডডোর মিটিংয়ে বসিলেন।

ও খোদা কি আর বলিব, ক্লোজডডোর মিটিংয়ে বলদের গলার ভ্যাঁ-উ, ভ্যাঁ-উ, উচ্চস্বর বারান্ডা হইতে শোনা যাইতেছে আর বারান্ডায় ভিড় জমিয়া গিয়াছে। আপনাদের এই চুরির জন্য বাংলাদেশ শ্মশাণে পরিণত হইতেছে। রাগের চোটে ল্যাঙ্গুয়েজ চেঞ্জ, হুমুন্দিরপুতেরা খালি ট্যাকার পিছনে ঘুরস, তোদের দাদা ঘুরতো খালিপায়ে, তোর বাপ ঘুরতো খড়ম পায়ে, সেই খড়মপেয়ো কিখানের ছেলেরা তোদের একশত কোটি স্বর্ণমুদ্রা লাগবো। দেশের কথা ভুইল্লা খালি ট্যাকা আর ট্যাকা। এই তোগো ট্যাকা চুরির জন্য কি, মুক্তিযুদ্ধে লক্ষ লক্ষ জনগন জান দিলো। হুড়–ম ঢ্যাড়াসের পুত।

এদিকে বারান্ডায় আনন্দের আর সীমা নাই। যেই কোটালের ডরে সব কাঁপতো, সেই কোটালরে বলদ স্যারে গাইল্লাইতেছে, মজারে মজা। কে আবার টিটকারী মারলো পাপে ছাড়েনা বাপেরে। এইসব গালাগালির পর বিক্রমাদিত্তের সেনাপতি নাকি কোটাল নাকি নবরতেœর সদস্যরা বড়ই বিব্রত হইয়া উঠিলো। তাহারা নিজগোর মাঝে বলাবলি করিলো,এই বলদদের জ্বালায় আমরা ঠিকমতো মাল কামাইতে পারছিনা। কি করি! তখন সেনাপতি নাকি কোটাল নাকি নবরতেœর কে একজন এই বলদটাকে চালাক বানাবার জন্য জেনারেল ফুড ইনফরমেশনের লোকেদের অক্সেন স্যারের বাসায় ব্রিফকেস ভর্তী পাঁচ কোটি ট্যাকা ঘুষ দিয়া পাঠাইলো। বলদ যদি ক্যাশ ট্যাকা দ্যেইক্কা একটু চালাক চতুর হয়। ও মা, ব্রিফকেস ভর্তি পাঁচ কোটি ট্যাকা দ্যেইক্কা চালাক চতুর হওয়া তো দূরের কথা, বলদ কয় কি, আপনারা মনে হয় ভুল ঠিকানায় এসেছেন। এটা অন্য কোথাও নিয়ে যান।

জেনারেল ফুড ইনফরমেশনের লোকেরা নিজেরা একটু মুখ চাওয়া-চাওয়ি করিয়া ভাবিয়া বলিলো, ‘ভাবিকে একটু দেখান, তাহলে হয়তো আপনার আক্কেল খুলতে পারে।’

ও-হরি, ব্রিফকেস ভর্তি পাঁচ কোটি ট্যাকা দ্যেইক্কা বলদের বৌ, বলে কি- ‘আমি এই ট্যাকার উপর ছ্যাপ মারি।’ তখন বহনকারী বলে কি, ‘বেশিদিন আর বলদ থাকবেন না, কিছুদিন পরেই আপনারা চালাক হবেন।’ বলদ বলে, ‘ওই গেলি!’ পরে জেনারেল ফুড ইনফরমেশনের লোকেরা অনেক গবেষণা করিয়া বাহির করিলো যে, কেন বলদটা পনের বছরেও চালাক চতুর হইলো না, কেন কোটি কোটি ট্যাকা কামাইলো না!

কেন শত শত তরুণকে কাজ দিয়াও চাকরি বাণিজ্য করিলো না? কারণ খুব ছোটবেলায় নাকি এই বলদ, ময়লা মানে বিষ্ঠার গামলায় পড়িয়াছিলো, তখন তাহার পিতা এই বলদটাকে পুকুরে নিয়ে পাঁচশত সত্তর সাবান দিয়া সাফ করিয়াদেন। আর সেই যে সাফ করিয়াছেন, সেই থেকে আর কোনো ময়লা এই বলদকে নোংরা করতে পারেনি। সাধু সাধু। এবার বলি নতুন যে বলদটা এমপি হয়ে সংসদে আসছেন, উনিও আমাদের বলদের মতো মাল কামাবেন না, কেবল দেশের জন্য সোনার বাংলা গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করবেন। জনগণের জন্য সৎ-সুন্দররূপে কাজ করবেন বলে কথা দিয়েছেন।

এবারের ইলেকশনে দেখা যাচ্ছে যে প্রচুর সীমান্ত বলদ ভোটাভুটিতে পাস করেছেন। ফলে রাখাল বাদশার মতো এবার দেশ ও জাতি বলদ দারা শাষিত হবে। বলদ যদি কাজ করে তাহলে কোনো দোষ দেখি না; কিন্তু ভয় হয়, বলদগুলো যদি চালাক হয়ে ওঠে তাহলে কি হবে?

যারা অন্ধ সবচেয়ে বেশি আজ চোখে দ্যাখে তারা; যাদের হৃদয়ে কোনো প্রেম নেই, প্রীতি নেই, করুণার আলোড়ন নেই/ পৃথিবী অচল আজ তাদের সুপরামর্শ ছাড়া।

[লেখক : চলচ্চিত্র নির্মাতা]

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

নিরাপদ সড়ক কেন চাই

রম্যগদ্য : ‘প্রহরীর সাতশ কোটি টাকা...’

ছবি

অবন্তিকাদের আত্মহনন

শিক্ষাবিষয়ক ভাবনা

অপ্রয়োজনে সিজারিয়ান নয়

পণ্য রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে হবে

আত্মহত্যা রোধে নৈতিক শিক্ষা

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

ছবি

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আতুড়ঘর

চেক ডিজঅনার মামলার অধিক্ষেত্র ও প্রাসঙ্গিকতা

বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন ও বাংলাদেশের কৃষি

ছবি

‘হৃৎ কলমের’ পাখি এবং আমাদের জেগে ওঠা

ছবি

ভূগর্ভস্থ পানি সুরক্ষায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ

প্রসঙ্গ : নিত্যপণ্যের দাম

ছবি

টঙ্ক আন্দোলনের কুমুদিনী হাজং

ঢাকাকে বাসযোগ্য করতে চাই বিকেন্দ্রীকরণ

দূষণমুক্ত পানির বিকল্প নাই

রম্যগদ্য : ‘দুনিয়ার বাঙালি এক হও”

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের লড়াই

স্মৃতির জানালা খুলে স্বাধীনতাকে উপভোগ করছি

শিশুর সার্বিক বিকাশে বাবা-মায়ের ভূমিকা

tab

উপ-সম্পাদকীয়

‘বলদ কবে চালাক হবে’

জাঁ-নেসার ওসমান

শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

হাইসেন না ভাই, হাইসেন না! এই বলদগুলার জ্বালায় নিজের দেশে নিজেরে বিদেশি মনে হয়। পরবাসী নিজ দেশে! এই বলদগুলারে চিনলেন না? আরে এই বলদগুলা এবারের সর্বজন গণতন্ত্রের ভোটে স্বতন্ত্র ক্যান্ডিডেট হিসেবে এমপি হইছে। আরে ভাই এমপি হইছস মাল কামাবি, তা না হুমুন্দিরপুত পঞ্চাশ বছরের ময়লা পরিষ্কার কইরা নদীতে বান ডাকতাছে। হালা বলদা জানি কোনখানকার!

আরে বলদের বাচ্চা বলদ, পাবলিকের ভোটে তুই এমপি হইছস, ওই ব্যাটা তোর পোস্টার, ব্যানার লিফলেট, ক্যাডারদের পিস্তল ভাড়া, কর্মীর চা-পানি, রেন্ট-এ-কারের খরচ এসব টাকা তুই তুলবি না এতো ট্যাকা যে ইনভেস্ট করলি, এইডা সূদসহ উঠাবি না! কোনখার কার বলদ আইছে, দেশের উপকার করবো।

হিঃ হিঃ হিঃ আমি হাইস্যা মরি আবে হুমুন্দিরপুত তোর জন্মের আগে, উনিশ শ একাত্তর সালের মুক্তিযুদ্ধের সময়ের বড় বড় এমপিরা পর্যন্ত নির্বাচনের ট্যাকা সুদে-আসলে তুইল্লা লইলো আর তুমি আইছ বীর হনুমান, গন্ধমাদন পর্বত একলা মাথায় লইয়া ঘুরবি। পঞ্চাশ বছরের ময়লা একলা পরিষ্কার করবি। কুনো প্রকার ট্যাকা কামাইবা না। কাবিখার গম নিজে খাবা না, জেনুইন পাবলিকের মাঝে গম বিলাইবা! কাবিখার সরকারি গম বাজারে বিক্রি করবা না! হালার বলদার পোলা বলদা, এসব না করলে তুই এমপি হইছস ক্যান, ক্যান, ক্যান!

দাঁড়ান দাঁড়ান এই নতুন বলদের কথা বলার আগে রিসেন্ট কয়টা বলদের কথা বলি।

রিসেন্ট বলদগুলারে চিনলেন না? আরে ভাই একটা হইলো শুনেন- ওই যে রূপসীপুর নাকি সুন্দরপুর, আরে মরার জ্বালা; ওই যে, যেখানে নতুন সব কিছু ক্লিয়ার কইরা দেয়, মানে নিউ সব কিছু পরিষ্কার করে, টাশকি নাকি যেন জায়গাটার নাম; ওই হাজার কোটি টাকার প্রজেক্ট থ্যাইক্কা বিক্রমাদিত্তের সেনাপতি নাকি কোটাল নাকি নবরতেœর কেউ মাননীয় বলদস্যারের পিডির কাছে আব্দার করছে প্রজেক্ট হইতে আমাদিগকে একশত কোটি স্বর্ণমুদ্রা প্রদান করিবেন প্লিজ।

পিডি যথারীতি প্রটোকল মানিয়া অক্সেন স্যারের কাছে উনাদের খায়েসের কথা প্রকাশ করিলেন। ব্যাস আর যায় কোথায়, অক্সেন স্যার বিষয়টা ব্রম্মাকে জানাইলেন ও ইন্দ্রের অনুমতি লইয়া একশত কোটি স্বর্ণমুদ্রা যাঞ্ছাকারীদের তাহার আলয়ে কল করিয়া ক্লোজডডোর মিটিংয়ে বসিলেন।

ও খোদা কি আর বলিব, ক্লোজডডোর মিটিংয়ে বলদের গলার ভ্যাঁ-উ, ভ্যাঁ-উ, উচ্চস্বর বারান্ডা হইতে শোনা যাইতেছে আর বারান্ডায় ভিড় জমিয়া গিয়াছে। আপনাদের এই চুরির জন্য বাংলাদেশ শ্মশাণে পরিণত হইতেছে। রাগের চোটে ল্যাঙ্গুয়েজ চেঞ্জ, হুমুন্দিরপুতেরা খালি ট্যাকার পিছনে ঘুরস, তোদের দাদা ঘুরতো খালিপায়ে, তোর বাপ ঘুরতো খড়ম পায়ে, সেই খড়মপেয়ো কিখানের ছেলেরা তোদের একশত কোটি স্বর্ণমুদ্রা লাগবো। দেশের কথা ভুইল্লা খালি ট্যাকা আর ট্যাকা। এই তোগো ট্যাকা চুরির জন্য কি, মুক্তিযুদ্ধে লক্ষ লক্ষ জনগন জান দিলো। হুড়–ম ঢ্যাড়াসের পুত।

এদিকে বারান্ডায় আনন্দের আর সীমা নাই। যেই কোটালের ডরে সব কাঁপতো, সেই কোটালরে বলদ স্যারে গাইল্লাইতেছে, মজারে মজা। কে আবার টিটকারী মারলো পাপে ছাড়েনা বাপেরে। এইসব গালাগালির পর বিক্রমাদিত্তের সেনাপতি নাকি কোটাল নাকি নবরতেœর সদস্যরা বড়ই বিব্রত হইয়া উঠিলো। তাহারা নিজগোর মাঝে বলাবলি করিলো,এই বলদদের জ্বালায় আমরা ঠিকমতো মাল কামাইতে পারছিনা। কি করি! তখন সেনাপতি নাকি কোটাল নাকি নবরতেœর কে একজন এই বলদটাকে চালাক বানাবার জন্য জেনারেল ফুড ইনফরমেশনের লোকেদের অক্সেন স্যারের বাসায় ব্রিফকেস ভর্তী পাঁচ কোটি ট্যাকা ঘুষ দিয়া পাঠাইলো। বলদ যদি ক্যাশ ট্যাকা দ্যেইক্কা একটু চালাক চতুর হয়। ও মা, ব্রিফকেস ভর্তি পাঁচ কোটি ট্যাকা দ্যেইক্কা চালাক চতুর হওয়া তো দূরের কথা, বলদ কয় কি, আপনারা মনে হয় ভুল ঠিকানায় এসেছেন। এটা অন্য কোথাও নিয়ে যান।

জেনারেল ফুড ইনফরমেশনের লোকেরা নিজেরা একটু মুখ চাওয়া-চাওয়ি করিয়া ভাবিয়া বলিলো, ‘ভাবিকে একটু দেখান, তাহলে হয়তো আপনার আক্কেল খুলতে পারে।’

ও-হরি, ব্রিফকেস ভর্তি পাঁচ কোটি ট্যাকা দ্যেইক্কা বলদের বৌ, বলে কি- ‘আমি এই ট্যাকার উপর ছ্যাপ মারি।’ তখন বহনকারী বলে কি, ‘বেশিদিন আর বলদ থাকবেন না, কিছুদিন পরেই আপনারা চালাক হবেন।’ বলদ বলে, ‘ওই গেলি!’ পরে জেনারেল ফুড ইনফরমেশনের লোকেরা অনেক গবেষণা করিয়া বাহির করিলো যে, কেন বলদটা পনের বছরেও চালাক চতুর হইলো না, কেন কোটি কোটি ট্যাকা কামাইলো না!

কেন শত শত তরুণকে কাজ দিয়াও চাকরি বাণিজ্য করিলো না? কারণ খুব ছোটবেলায় নাকি এই বলদ, ময়লা মানে বিষ্ঠার গামলায় পড়িয়াছিলো, তখন তাহার পিতা এই বলদটাকে পুকুরে নিয়ে পাঁচশত সত্তর সাবান দিয়া সাফ করিয়াদেন। আর সেই যে সাফ করিয়াছেন, সেই থেকে আর কোনো ময়লা এই বলদকে নোংরা করতে পারেনি। সাধু সাধু। এবার বলি নতুন যে বলদটা এমপি হয়ে সংসদে আসছেন, উনিও আমাদের বলদের মতো মাল কামাবেন না, কেবল দেশের জন্য সোনার বাংলা গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করবেন। জনগণের জন্য সৎ-সুন্দররূপে কাজ করবেন বলে কথা দিয়েছেন।

এবারের ইলেকশনে দেখা যাচ্ছে যে প্রচুর সীমান্ত বলদ ভোটাভুটিতে পাস করেছেন। ফলে রাখাল বাদশার মতো এবার দেশ ও জাতি বলদ দারা শাষিত হবে। বলদ যদি কাজ করে তাহলে কোনো দোষ দেখি না; কিন্তু ভয় হয়, বলদগুলো যদি চালাক হয়ে ওঠে তাহলে কি হবে?

যারা অন্ধ সবচেয়ে বেশি আজ চোখে দ্যাখে তারা; যাদের হৃদয়ে কোনো প্রেম নেই, প্রীতি নেই, করুণার আলোড়ন নেই/ পৃথিবী অচল আজ তাদের সুপরামর্শ ছাড়া।

[লেখক : চলচ্চিত্র নির্মাতা]

back to top