alt

উপ-সম্পাদকীয়

‘অনন্য সাধারণ বাজেট’

মুহাম্মদ ফারুক খান

: রোববার, ২০ জুন ২০২১

২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট একটি অনন্য সাধারণ বাজেট। সারা বিশ্ব যখন কোভিড-১৯ এর সংক্রমণে টালমাটাল, বিশ্বের অর্থনীতিতে মঙ্গা বিরাজমান, ঠিক সেই সময় বঙ্গবন্ধুকন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুপরামর্শে অর্থমন্ত্রী এ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার একটি ‘সুষম’ ও ‘সময়োপযোগী’ বাজেট উপস্থাপন করেছেন। বাজেটে প্রতিটি খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিশেষ করে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি এবং সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধির জন্য ধন্যবাদ। কোভিড-১৯ এর কারণে যে সব ক্ষেত্রে উন্নয়ন কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়েছে, সে সব কার্যক্রমকে গতিশীল করার জন্যও বাজেটে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়া দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি এবং দেশীয় পণ্য রপ্তানিতে বিশেষ ছাড় দেয়া হয়েছে।

এ বাজেটের মূল চ্যালেঞ্জ হচ্ছে রাজস্ব সংগ্রহ। প্রায় ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য নিয়ে এ বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে। কোভিড-১৯ এর কারণে সারা দেশে লকডাউন, ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা, চাকরিতে ছাঁটাই ও হ্রাস, আন্তর্জাতিক বাজারেও ব্যবসা-বাণিজ্যের ঘাটতি হয়েছে। এসব কারণে রাজস্ব আদায় চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তৃতায় কর ফাঁকি রোধসহ রাজস্ব আদায়ে সহজীকরণের জন্য আধুনিক বিভিন্ন অ্যাপস এবং কম্পিউটার জেনারেটেড ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করেছেন। এ ধরনের উদ্যোগ অবশ্যই ভালো ফল আনতে পারবে যদি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা যায়।

বাজেট বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জিং হবে বলেছে বিরোধীরা। তাদের জানা উচিত সব বাজেট বাস্তবায়নই চ্যালেঞ্জিং। শুধু বাংলাদেশেই নয়, সারা বিশ্বের সব দেশেই, এমনকি অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ দেশসমূহেও বাজেট বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জিং হয়ে থাকে। বিশেষকরে কোভিডের কারণে তা আরও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। দেশের অর্থনৈতিক সার্বিক কর্মকান্ডে এক বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে বিভিন্ন প্রকল্পের ‘প্রকল্প পরিচালকগণ’ (পিডি)। বিভিন্ন কারণে চলমান প্রকল্পগুলো সঠিক সময়ে বাস্তবায়ন হচ্ছে না, এমতাবস্থায় সব প্রকল্প পরিচালকগণকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনতে পারলে প্রকল্পগুলো সঠিক সময়ে বাস্তবায়ন করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। বাংলাদেশে এখন বিদেশি মুদ্রার মজুদ প্রায় ৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা দেশীয় টাকায় প্রায় ৩৮০ হাজার কোটি টাকার মতো। বিগত বছরগুলোর বাজেট বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা এবং অর্থনৈতিক স্থিতি আমাদের আছে। তা থেকে সঠিক শিক্ষা নিলে, বিভিন্ন প্রতিকূলতা এড়িয়ে এ বাজেট বাস্তবায়ন করা অবশ্যই সম্ভব হবে।

এবারের বাজেটের একটি বড় চ্যালেঞ্জ হলো কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখা। প্রধানমন্ত্রীর সঠিক দিকনির্দেশনায় বাংলাদেশ কোভিড নিয়ন্ত্রণে সফল হতে পেরেছে যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক স্বীকৃতও হয়েছে। তবে কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে টিকাদান কর্মসূচির কোন বিকল্প নেই। এ লক্ষ্যে ১০ হাজার কোটি টাকার থোক বরাদ্দও রাখা হয়েছে এ বাজেটে। আমি মনে করি গণমানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি টিকাদান কর্মসূচিকেও দ্রুত এগিয়ে নিতে হবে। এজন্য স্বল্পমেয়েদি, মধ্যমেয়েদি ও দীর্ঘমেয়েদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা দরকার। স্বল্পমেয়াদি ব্যবস্থা হচ্ছে বিদেশ থেকে টিকা কিনে আনা এবং টিকাদান কর্মসূচি জোরদার করা। মধ্যমেয়েদি পরিকল্পনা হিসেবে বিদেশি টিকা যাতে বাংলাদেশেই উৎপাদন করা যায় সে লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া। দীর্ঘমেয়েদি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাংলাদেশকেই এই টিকা উদ্ভাবন ও উৎপাদন করার ব্যবস্থা নিতে হবে। বাংলাদেশের বেশ কিছু ঔষধ প্রস্তুতকারী কোম্পানি এবং বিদেশে অবস্থানরত এ টিকার উদ্ভাবনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত বাংলাদেশি চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের এ ব্যাপারে উৎসাহিত করা যেতে পারে।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর এ বছরে মনে পড়ে ৫০ বছর আগে যে দেশকে ইন্টারন্যাশনাল ‘বাস্কেট কেইস’ বলে অভিহিত করা হয়েছিল, গত ১২ বছরে সেই বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ‘রোল মডেল’ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। গত ৫ জুন Bloomberg এর হেড লাইন ছিল Bangladesh is on the Rise and India and Pakistan should be taking notes. Bloomberg এর কলামিস্ট মিহির শর্মা লিখেছেন South Asia should pay Attention to its Standout Star. গত ১০ মার্চ The New York times এ তাদের কলামিস্ট নিকোলাস ক্রিস্টফ লিখেছেন What can Bidden’s Plan do for Poverty? Look to Bangladesh এই প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে As the Nation Turns 50, its surprising Success offers lesson about investing in the most marginalized. অর্থাৎ The New York Times যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে পরামর্শ দিয়েছে যে, তিনি যেন যুক্তরাষ্ট্রের দারিদ্র্য কমানোর জন্য বাংলাদেশ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেন।

[লেখক : প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ; সাবেক মন্ত্রী, বাণিজ্য, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় ]

পাহাড়ধস : পার্বত্য অঞ্চলের শোক মিছিল

করোনায় বেড়েছে অভিশপ্ত বাল্যবিয়ে : প্রসঙ্গ জন্মনিবন্ধন

মৃত্যুর ক্রন্দন নয়, ধ্বনিত হোক জীবনের স্পন্দন

বুকের দুধই হোক নবজাতকের প্রথম খাবার

সম্পদে হিন্দু নারীর অধিকার প্রসঙ্গে

ছবি

কোভিড-১৯ সচেতনতা ও সাঁওতাল স্বেচ্ছাসেবী

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বনাম উদ্ভাবন ও উন্নতি

পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন

ছবি

লকডাউন, না বাঁশের নিচে হেডডাউন?

প্রাণের মাঝে আয়

সরকারি চাকরিজীবীদের সম্পদের হিসাব মিলবে কি?

প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ : সম্ভাবনা ও শঙ্কা

ছবি

চীন এবং আফগানিস্তানে তালেবান : সম্পর্ক ও নতুন সমীকরণ

এ তুফান ভারি, দিতে হবে পাড়ি, নিতে হবে তরী পার

ছবি

দেশের প্রথম সবাক চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী

ছবি

পার্বত্য চট্টগ্রামে ধর্মীয় সম্প্রীতি বিনষ্টের নেপথ্যে কী

জনতার সংগ্রাম কখনও ব্যর্থ হয় না

বাঁচতে হলে মানতে হবে

এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের দাবি

ছবি

স্মরণ : বোধিপাল মহাথেরো

সংকটে জীবন ও জীবিকা

মুক্তিযুদ্ধ ও মুজিব বাহিনী

টিকাদান কর্মসূচির গতি বাড়াতে হবে

কৃষিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব

ছবি

শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল আসক্তি

ছবি

উদ্বাস্তু শিশুদের শিক্ষা

ক্ষমতায় ফিরছে তালেবান?

ন্যাপ : বাম ধারার উন্মেষ

ছবি

জনতার বিক্ষোভে অশান্ত কিউবা

রাষ্ট্র বনাম জনগণ, নাকি রাষ্ট্র ও জনগণ?

ছবি

করোনা যুদ্ধে মাস্কই প্রধান অস্ত্র

হাসপাতালের সেবা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তালা

কাজুবাদাম সংগ্রহ ও সংগ্রহোত্তর ব্যবস্থাপনা

টানেলের ওপারে যাওয়ার রোডম্যাপ চাই

tab

উপ-সম্পাদকীয়

‘অনন্য সাধারণ বাজেট’

মুহাম্মদ ফারুক খান

রোববার, ২০ জুন ২০২১

২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট একটি অনন্য সাধারণ বাজেট। সারা বিশ্ব যখন কোভিড-১৯ এর সংক্রমণে টালমাটাল, বিশ্বের অর্থনীতিতে মঙ্গা বিরাজমান, ঠিক সেই সময় বঙ্গবন্ধুকন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুপরামর্শে অর্থমন্ত্রী এ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার একটি ‘সুষম’ ও ‘সময়োপযোগী’ বাজেট উপস্থাপন করেছেন। বাজেটে প্রতিটি খাতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিশেষ করে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, কৃষি এবং সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধির জন্য ধন্যবাদ। কোভিড-১৯ এর কারণে যে সব ক্ষেত্রে উন্নয়ন কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হয়েছে, সে সব কার্যক্রমকে গতিশীল করার জন্যও বাজেটে বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এছাড়া দেশের অভ্যন্তরীণ ব্যবসা-বাণিজ্য প্রসারের মাধ্যমে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি এবং দেশীয় পণ্য রপ্তানিতে বিশেষ ছাড় দেয়া হয়েছে।

এ বাজেটের মূল চ্যালেঞ্জ হচ্ছে রাজস্ব সংগ্রহ। প্রায় ৩ লাখ ৮৯ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য নিয়ে এ বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে। কোভিড-১৯ এর কারণে সারা দেশে লকডাউন, ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা, চাকরিতে ছাঁটাই ও হ্রাস, আন্তর্জাতিক বাজারেও ব্যবসা-বাণিজ্যের ঘাটতি হয়েছে। এসব কারণে রাজস্ব আদায় চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। অর্থমন্ত্রী তার বাজেট বক্তৃতায় কর ফাঁকি রোধসহ রাজস্ব আদায়ে সহজীকরণের জন্য আধুনিক বিভিন্ন অ্যাপস এবং কম্পিউটার জেনারেটেড ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করেছেন। এ ধরনের উদ্যোগ অবশ্যই ভালো ফল আনতে পারবে যদি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা যায়।

বাজেট বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জিং হবে বলেছে বিরোধীরা। তাদের জানা উচিত সব বাজেট বাস্তবায়নই চ্যালেঞ্জিং। শুধু বাংলাদেশেই নয়, সারা বিশ্বের সব দেশেই, এমনকি অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ দেশসমূহেও বাজেট বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জিং হয়ে থাকে। বিশেষকরে কোভিডের কারণে তা আরও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। দেশের অর্থনৈতিক সার্বিক কর্মকান্ডে এক বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে বিভিন্ন প্রকল্পের ‘প্রকল্প পরিচালকগণ’ (পিডি)। বিভিন্ন কারণে চলমান প্রকল্পগুলো সঠিক সময়ে বাস্তবায়ন হচ্ছে না, এমতাবস্থায় সব প্রকল্প পরিচালকগণকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনতে পারলে প্রকল্পগুলো সঠিক সময়ে বাস্তবায়ন করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। বাংলাদেশে এখন বিদেশি মুদ্রার মজুদ প্রায় ৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা দেশীয় টাকায় প্রায় ৩৮০ হাজার কোটি টাকার মতো। বিগত বছরগুলোর বাজেট বাস্তবায়নের অভিজ্ঞতা এবং অর্থনৈতিক স্থিতি আমাদের আছে। তা থেকে সঠিক শিক্ষা নিলে, বিভিন্ন প্রতিকূলতা এড়িয়ে এ বাজেট বাস্তবায়ন করা অবশ্যই সম্ভব হবে।

এবারের বাজেটের একটি বড় চ্যালেঞ্জ হলো কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাখা। প্রধানমন্ত্রীর সঠিক দিকনির্দেশনায় বাংলাদেশ কোভিড নিয়ন্ত্রণে সফল হতে পেরেছে যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক স্বীকৃতও হয়েছে। তবে কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে টিকাদান কর্মসূচির কোন বিকল্প নেই। এ লক্ষ্যে ১০ হাজার কোটি টাকার থোক বরাদ্দও রাখা হয়েছে এ বাজেটে। আমি মনে করি গণমানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি টিকাদান কর্মসূচিকেও দ্রুত এগিয়ে নিতে হবে। এজন্য স্বল্পমেয়েদি, মধ্যমেয়েদি ও দীর্ঘমেয়েদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা দরকার। স্বল্পমেয়াদি ব্যবস্থা হচ্ছে বিদেশ থেকে টিকা কিনে আনা এবং টিকাদান কর্মসূচি জোরদার করা। মধ্যমেয়েদি পরিকল্পনা হিসেবে বিদেশি টিকা যাতে বাংলাদেশেই উৎপাদন করা যায় সে লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া। দীর্ঘমেয়েদি পরিকল্পনার অংশ হিসেবে বাংলাদেশকেই এই টিকা উদ্ভাবন ও উৎপাদন করার ব্যবস্থা নিতে হবে। বাংলাদেশের বেশ কিছু ঔষধ প্রস্তুতকারী কোম্পানি এবং বিদেশে অবস্থানরত এ টিকার উদ্ভাবনের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত বাংলাদেশি চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের এ ব্যাপারে উৎসাহিত করা যেতে পারে।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর এ বছরে মনে পড়ে ৫০ বছর আগে যে দেশকে ইন্টারন্যাশনাল ‘বাস্কেট কেইস’ বলে অভিহিত করা হয়েছিল, গত ১২ বছরে সেই বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্বে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ‘রোল মডেল’ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছে। গত ৫ জুন Bloomberg এর হেড লাইন ছিল Bangladesh is on the Rise and India and Pakistan should be taking notes. Bloomberg এর কলামিস্ট মিহির শর্মা লিখেছেন South Asia should pay Attention to its Standout Star. গত ১০ মার্চ The New York times এ তাদের কলামিস্ট নিকোলাস ক্রিস্টফ লিখেছেন What can Bidden’s Plan do for Poverty? Look to Bangladesh এই প্রতিবেদনে লেখা হয়েছে As the Nation Turns 50, its surprising Success offers lesson about investing in the most marginalized. অর্থাৎ The New York Times যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে পরামর্শ দিয়েছে যে, তিনি যেন যুক্তরাষ্ট্রের দারিদ্র্য কমানোর জন্য বাংলাদেশ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেন।

[লেখক : প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ; সাবেক মন্ত্রী, বাণিজ্য, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় ]

back to top