alt

উপ-সম্পাদকীয়

জয় হোক মানবতার

রহিম আব্দুর রহিম

: মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০২২
image

প্রবল বর্ষণ আসাম মিজোরাম পাহাড় থেকে নেমে আসা ঢলে বাংলাদেশের পূর্ব-উত্তরাঞ্চল ৯০ শতাংশ ভূ-ভাগ পানির নিচে, ঘরে পানি, বাইরে পানি, বিদ্যুৎ নেই, ঘুটঘুটে অন্ধকার। ইলেকট্রনিকস যোগাযোগ বন্ধ, বিশুদ্ধ খাবারের মহাসংকট দেখা দিয়েছে সিলেট, সুনামগঞ্জের প্রকৃতিতে। বাংলার লন্ডন বলে খ্যাত ধনী অঞ্চলটি আজ ভাসছে পানির তোড়ে। রেলপথ, সড়কপথ রুদ্ধ। প্রাণ-প্রাণীর সুখের সংসারে অসহায়ত্বের কালো আঁধার।

দেশের এই অঞ্চলে অর্ধকোটি মানুষ যখন পানিবন্দী তখন তাদের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে অসাধু একটি গোষ্ঠী আট শত টাকার নৌকা ভাড়া ৫০ হাজার টাকা, ১০ টাকার মোমবাতি ৩০০ টাকায় বিক্রি করছে। খাদ্যজাত দ্রব্যের মূল্য কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

সরকার তাদের কাজ অব্যাহত রেখেছে। মোতায়েন করা হয়েছে সেনাবাহিনী। সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো যার যার অবস্থান থেকে নেমে পড়েছে দুর্গতদের সহযোগিতার জন্য। এই দুঃসময়ে, বন্যাপীড়িত মানুষের চিকিৎসায় ওষুধ, নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বিনামূলে সরবরাহ করছেন মানবিক অনেক মানুষ। চট্টগ্রাম মেডিকেলগামী যাত্রীদের থেকে ভাড়া নিচ্ছে না ক্ষুধার্ত, পীড়িত, দরিদ্র ড্রাইভার, রাইডার চালকরা। ওষুধের দোকানগুলো থেকে মালিকরা বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র সরবরাহ করে এক মানবিক বিশ্ব সৃষ্টির ইতিহাস গড়ছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভাগীয় শহরে অনেক প্রতিষ্ঠানের শত শত তরুণ শিক্ষার্থীরা দুর্গতদের রক্তদানের প্লাকার্ড ঝুলিয়ে ঝাঁকে ঝাঁকে দাঁড়িয়ে রয়েছে দুর্গত অঞ্চলে। দুর্যোগ, মহামারী কোন ব্যক্তি মানুষের একার দুঃখ, দুর্দশা ডেকে আনে না, যা সব প্রাণের অভিশাপ হয়ে দাঁড়ায়। এ সময় কোন রাজনীতি, দোষারোপ সভ্য সমাজে চলতে পারে না। জাত-পাত দল-মতের ঊর্ধ্বে থেকে মানবিক বিশ্ব গড়তে হবে। দুর্গতদের প্রাণ রক্ষার সংগ্রামে নামতে হবে। জয় হোক মানবতার।

[লেখক : নাট্যকার]

ছবি

রথযাত্রার প্রচলন যেভাবে

আম রপ্তানির অন্তরায়

ছবি

বন্যা দুর্গত মানুষের দীর্ঘশ্বাস

পদ্মা সেতু : জাতির গর্বের প্রতীক

ভারতে মুসলমানদের কথা বললেই রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস নেমে আসে

করোনার চতুর্থ ঢেউ : আশঙ্কা ও টিকার কার্যকারিতা

শিক্ষক হত্যা : নৈতিক অবক্ষয়ের কদর্য রূপ

বদলে যাবে দক্ষিণাঞ্চল এগিয়ে যাবে দেশ

সাঁওতাল বিদ্রোহের চেতনা

বিপণন ব্যবস্থাপনা ও বাজার গবেষণা

এ লজ্জা কোথায় রাখি

বজ্রপাত থেকে রক্ষা পেতে করণীয়

জীবন ও জনস্বাস্থ্য উন্নয়নে পদ্মা সেতু

বাজেট বরাদ্দ এবং আদিবাসী

লাভ-ক্ষতির হিসাব

পাখি রক্ষায় চাই বাস্তবসম্মত উদ্যোগ

ছবি

একজন বিজ্ঞানপ্রেমীর অকাল প্রয়াণ

বন্যাকালীন রোগ-বালাই রোধে করণীয়

অর্থ পাচার প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা কোথায়

মাদকাসক্তি ও বাংলাদেশ পরিস্থিতি

ছবি

‘ভয় নেই, আমি এসে গেছি’

পশ্চিমবঙ্গে সামাজিক দূষণে আরএসএসের ভূমিকা

একতা, ন্যায় ও শক্তির প্রেরণা

ছবি

পদ্মা সেতু : স্বপ্ন এখন বাস্তব

পদ্মা সেতু : বাঙালির আত্মবিশ্বাস ও গৌরবের প্রতীক

মাঙ্কিপক্স ও প্রাসঙ্গিক ভাবনা

ছবি

রোহিঙ্গাদের বাড়ি ফেরার আকুতি

চেরাপুঞ্জির বৃষ্টি

কুসিক নির্বাচনে ইসি কি পাস করেছে

বিএম কনটেইনার ডিপোর অগ্নিকান্ড : আইনি শূন্যতা ও আইনের শাসন

পাহাড়-টিলা ধস সামাল দিতে আমরা কি প্রস্তুত

বন্যা : দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার চ্যালেঞ্জ

পার্বত্যাঞ্চল ও সমতলের ভূমি ব্যবস্থাপনা

বাংলাদেশের এনজিও ব্যবস্থাপনার মূল সমস্যা কী

ডিজিটাল যুগের ডিজিটাল প্রকাশ মাধ্যম মোস্তাফা জব্বার

বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে

tab

উপ-সম্পাদকীয়

জয় হোক মানবতার

রহিম আব্দুর রহিম

image

মঙ্গলবার, ২১ জুন ২০২২

প্রবল বর্ষণ আসাম মিজোরাম পাহাড় থেকে নেমে আসা ঢলে বাংলাদেশের পূর্ব-উত্তরাঞ্চল ৯০ শতাংশ ভূ-ভাগ পানির নিচে, ঘরে পানি, বাইরে পানি, বিদ্যুৎ নেই, ঘুটঘুটে অন্ধকার। ইলেকট্রনিকস যোগাযোগ বন্ধ, বিশুদ্ধ খাবারের মহাসংকট দেখা দিয়েছে সিলেট, সুনামগঞ্জের প্রকৃতিতে। বাংলার লন্ডন বলে খ্যাত ধনী অঞ্চলটি আজ ভাসছে পানির তোড়ে। রেলপথ, সড়কপথ রুদ্ধ। প্রাণ-প্রাণীর সুখের সংসারে অসহায়ত্বের কালো আঁধার।

দেশের এই অঞ্চলে অর্ধকোটি মানুষ যখন পানিবন্দী তখন তাদের অসহায়ত্বকে পুঁজি করে অসাধু একটি গোষ্ঠী আট শত টাকার নৌকা ভাড়া ৫০ হাজার টাকা, ১০ টাকার মোমবাতি ৩০০ টাকায় বিক্রি করছে। খাদ্যজাত দ্রব্যের মূল্য কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে।

সরকার তাদের কাজ অব্যাহত রেখেছে। মোতায়েন করা হয়েছে সেনাবাহিনী। সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো যার যার অবস্থান থেকে নেমে পড়েছে দুর্গতদের সহযোগিতার জন্য। এই দুঃসময়ে, বন্যাপীড়িত মানুষের চিকিৎসায় ওষুধ, নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী বিনামূলে সরবরাহ করছেন মানবিক অনেক মানুষ। চট্টগ্রাম মেডিকেলগামী যাত্রীদের থেকে ভাড়া নিচ্ছে না ক্ষুধার্ত, পীড়িত, দরিদ্র ড্রাইভার, রাইডার চালকরা। ওষুধের দোকানগুলো থেকে মালিকরা বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র সরবরাহ করে এক মানবিক বিশ্ব সৃষ্টির ইতিহাস গড়ছে।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভাগীয় শহরে অনেক প্রতিষ্ঠানের শত শত তরুণ শিক্ষার্থীরা দুর্গতদের রক্তদানের প্লাকার্ড ঝুলিয়ে ঝাঁকে ঝাঁকে দাঁড়িয়ে রয়েছে দুর্গত অঞ্চলে। দুর্যোগ, মহামারী কোন ব্যক্তি মানুষের একার দুঃখ, দুর্দশা ডেকে আনে না, যা সব প্রাণের অভিশাপ হয়ে দাঁড়ায়। এ সময় কোন রাজনীতি, দোষারোপ সভ্য সমাজে চলতে পারে না। জাত-পাত দল-মতের ঊর্ধ্বে থেকে মানবিক বিশ্ব গড়তে হবে। দুর্গতদের প্রাণ রক্ষার সংগ্রামে নামতে হবে। জয় হোক মানবতার।

[লেখক : নাট্যকার]

back to top