alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়

‘অসৎ উদ্দেশ্যে’ আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন কামরুন্নাহার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১

ধর্ষণ মামলার স্থগিতাদেশ থাকার পরও এক আসামিকে জামিন দেওয়া বিচারক মোছা. কামরুন্নাহার কোনো ধরনের ফৌজদারি বিষয় পরিচালনার ‘উপযুক্ত নন’ বলে রায় দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ বলেছে, মামলার সকল নথি পাশ কাটিয়ে ধর্ষণ মামলার আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন কামরুন্নাহার, যা ‘অসৎ উদ্দেশ্যের ইংগিত’ করে।

এ বিষয়ে গত ২২ নভেম্বর (বুধবার) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চের দেওয়া পূর্ণাঙ্গ রায়ে এ কথা বলা হয়েছে। বুধবার রাতে ছয় পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

সম্প্রতি রেইনট্রি হোটেলে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় পাঁচ আসামির সবাইকে খালাসের রায়ে ঢাকার সপ্তম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক কামরুন্নাহারের এখতিয়ারবহির্ভূত পর্যবেক্ষণ বিতর্কের জন্ম দেয়।

মৌখিক ওই পর্যবেক্ষণে তিনি বলেন, ধর্ষণের অভিযোগের ক্ষেত্রে ঘটনার ৭২ ঘণ্টা পর পুলিশ যেন মামলা না নেয়। তবে লিখিত রায়ে সে বিষয়টি তিনি রাখেননি।

এ নিয়ে আলোচনার মধ্যে গত ১৪ নভেম্বর কামরুন্নাহারের বিচারিক ক্ষমতাসাময়িকভাবে প্রত্যাহার করে তাকে আর আদালতে না বসার নির্দেশ দেন প্রধান বিচারপতি। আদালত থেকে প্রত্যাহার করে তাকে পাঠানো হয়েছিল আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগে।

তখন জানা যায়, স্থগিতাদেশ থাকার পরও হাতিরঝিল থানার ২০১৮ সালের এক ধর্ষণের মামলায় আসলাম শিকদার নামের এক আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন বিচারক কামরুন্নাহার। কোন এখতিয়ার বা ক্ষমতাবলে ওই আসামিকে তিনি জামিন দিয়েছিলেন, সে ব্যাখ্যাও জানতে চাওয়া হয়েছিল তার কাছে।

ওই মামলার রায়ে গত বছরের ১৪ অক্টোবর ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক সামছুন্নাহার আসামি আসলাম শিকদারকে খালাস দেন। সে রায়ের বিরুদ্ধে হাই কোর্ট আপিলও করে রাষ্ট্রপক্ষ।

এতদিন পর কামরুন্নাহারের বিষয়টি গত সপ্তাহে আপিল বিভাগে উঠলে ২২ নভেম্বর তিনি সর্বোচ্চ আদালতে সামনে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দেন। সেখানে তিনি বলেন, আসলাম শিকদারের জামিন যে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত স্থগিত করেছে, তা তিনি জানতেন না।

কিন্তু জামিন শুনানির সময় নথিতে অন্যসব কাগজপত্রের সঙ্গে চেম্বার আদালতের ওই আদেশের অনুলিপিও ছিল এবং তার আগের বিচারক পাঁচবার আসলামের জামিন আবেদন নাকচ করেছিলেন- এসব বিষয়ে প্রশ্ন করলে কামরুন্নাহার বলেন, তিনি আগের নথি দেখেননি, যা তার ভুল হয়েছে।

আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়েছে, ইচ্ছাকৃতভাবে পুরনো নথি না দেখার বিষয়টি কামরুন্নাহারের ‘অসৎ উদ্দেশ্যের’ ইংগিত করে।

সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্তে বলা হয়, আসলাম শিকদারকে জামিন দেওয়ার মাধ্যমে মোছা. কামরুন্নাহার আপিল বিভাগের আদেশ লঙ্ঘন করেছেন। কোনো ধরনের ফৌজদারি মামলা পরিচালনার জন্য তিনি ‘উপযুক্ত নন’।

সুতরাং, মোছা. কামরুন্নাহার বাংলাদেশের কোনো আদালতে কোনো ধরনের ফৌজদারি মামলার বিচার করতে পারবেন না।”

ছবি

জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানি মামলা

ছবি

কুয়েতে মানবপাচার মামলায় পাপুলের ৭ বছর কারাদণ্ড

ছবি

পুলিশের অপরাধ তদন্তে ‘স্বাধীন কমিশন’ কেন নয়: হাইকোর্টের রুল

ছবি

পিছিয়ে গেলো আবরার হত্যা মামলার রায়

ছবি

আবরার হত্যা : আদালতে ২২ আসামি

রাজশাহীতে বিভিন্ন অপরাধে আটক ১৯

সীতাকুন্ডে জমি বিবাদে দোকান-গাড়িতে আগুন, বাড়িতে হামলা

ছবি

আহসান কবীরের মৃত্যু: উত্তর সিটির সেই ময়লার গাড়ির চালক গ্রেপ্তার

ছবি

আবরার হত্যা মামলার রায় রোববার

ইউপি নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতায় নিহত ২

ছবি

বরাদ্দের চাল ও টাকা ঢুকেছে ইউপি চেয়ারম্যানের পকেটে

সোনারগাঁয়ে ২ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ-গুলি : আহত ২০

হবিগঞ্জে নির্বাচনী সংঘর্ষ-ভাংচুর, আহত ১৫

ছবি

নাঈমের মৃত্যু: ডিএসসিসি’র গাড়ির চালক হারুন গ্রেপ্তার

ছবি

নাঈমের মৃত্যু: আসল চালকের খোঁজ মিলল বরখাস্তের পর

কুমিল্লায় জোড়া খুন আরও এক আসামি মাসুম গ্রেপ্তার

ছবি

পুলিশের সামনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী চাচার ওপর ভাতিজার বাহিনীর হামলা

ছবি

ইভ্যালির ৩৬ ব্যাংক হিসাবে ৩৮’শ কোটি টাকার লেনদেন

ছবি

জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে এবার পঞ্চগড়ে মামলা

আড়াইহাজারে স্বর্ণ দোকানে ভাঙচুর-লুট, হিন্দু পাড়ায় হামলার হুমকি : আতঙ্ক

শৈলকুপায় সংঘর্ষে আহত ২৫ আটক ৬

মুন্সীগঞ্জে অবাধে উৎপাদন হচ্ছে কারেন্ট জাল

ধর্ষণ ও হত্যা চেষ্টা মামলায় সাবেক মেয়র পুত্রের যাবজ্জীবন

ব্রাহ্মণপাড়ায় নৌকা না পেয়ে আ’লীগ অফিস ভাংচুর

শ্রেণী পরিবর্তণ করে রেজিস্ট্রি এক দলিলেই সতের লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি!

চট্টগ্রামে প্রতারণার অভিযোগে কাস্টমসের ২ কর্তাসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ঘর পুড়িয়ে মাকে মারধর : ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

পতাকা ইস্যু: পাকিস্তান দলের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন খারিজ

ছবি

কাউন্সিলর সোহেল হত্যা: ৯ নম্বর আসামি গ্রেপ্তার

ছবি

গোপালগঞ্জে ইজিবাইক চালক হত্যা: ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইয়ে ১০ শতাংশ কোটা বাতিল: হাইকোর্ট

ছবি

নটর ডেম শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় পল্টন থানায় মামলা

ছবি

পতাকা নিয়ে অনুশীলন: পাকিস্তান দলের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন

ছবি

ড্রেনে পড়ে শিক্ষার্থীর মৃত্যু: ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে রিট

ছবি

মহাসড়কে সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি ও দূর্ঘটনা তথ্য জানাতে চালু হচ্ছে অ্যাপ

ছবি

শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের হুমকি: বাস চালক-সহকারী কারাগারে

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়

‘অসৎ উদ্দেশ্যে’ আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন কামরুন্নাহার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২১

ধর্ষণ মামলার স্থগিতাদেশ থাকার পরও এক আসামিকে জামিন দেওয়া বিচারক মোছা. কামরুন্নাহার কোনো ধরনের ফৌজদারি বিষয় পরিচালনার ‘উপযুক্ত নন’ বলে রায় দিয়েছে সর্বোচ্চ আদালত।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ বলেছে, মামলার সকল নথি পাশ কাটিয়ে ধর্ষণ মামলার আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন কামরুন্নাহার, যা ‘অসৎ উদ্দেশ্যের ইংগিত’ করে।

এ বিষয়ে গত ২২ নভেম্বর (বুধবার) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চের দেওয়া পূর্ণাঙ্গ রায়ে এ কথা বলা হয়েছে। বুধবার রাতে ছয় পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

সম্প্রতি রেইনট্রি হোটেলে দুই তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় পাঁচ আসামির সবাইকে খালাসের রায়ে ঢাকার সপ্তম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক কামরুন্নাহারের এখতিয়ারবহির্ভূত পর্যবেক্ষণ বিতর্কের জন্ম দেয়।

মৌখিক ওই পর্যবেক্ষণে তিনি বলেন, ধর্ষণের অভিযোগের ক্ষেত্রে ঘটনার ৭২ ঘণ্টা পর পুলিশ যেন মামলা না নেয়। তবে লিখিত রায়ে সে বিষয়টি তিনি রাখেননি।

এ নিয়ে আলোচনার মধ্যে গত ১৪ নভেম্বর কামরুন্নাহারের বিচারিক ক্ষমতাসাময়িকভাবে প্রত্যাহার করে তাকে আর আদালতে না বসার নির্দেশ দেন প্রধান বিচারপতি। আদালত থেকে প্রত্যাহার করে তাকে পাঠানো হয়েছিল আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগে।

তখন জানা যায়, স্থগিতাদেশ থাকার পরও হাতিরঝিল থানার ২০১৮ সালের এক ধর্ষণের মামলায় আসলাম শিকদার নামের এক আসামিকে জামিন দিয়েছিলেন বিচারক কামরুন্নাহার। কোন এখতিয়ার বা ক্ষমতাবলে ওই আসামিকে তিনি জামিন দিয়েছিলেন, সে ব্যাখ্যাও জানতে চাওয়া হয়েছিল তার কাছে।

ওই মামলার রায়ে গত বছরের ১৪ অক্টোবর ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ এর বিচারক সামছুন্নাহার আসামি আসলাম শিকদারকে খালাস দেন। সে রায়ের বিরুদ্ধে হাই কোর্ট আপিলও করে রাষ্ট্রপক্ষ।

এতদিন পর কামরুন্নাহারের বিষয়টি গত সপ্তাহে আপিল বিভাগে উঠলে ২২ নভেম্বর তিনি সর্বোচ্চ আদালতে সামনে হাজির হয়ে ব্যাখ্যা দেন। সেখানে তিনি বলেন, আসলাম শিকদারের জামিন যে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত স্থগিত করেছে, তা তিনি জানতেন না।

কিন্তু জামিন শুনানির সময় নথিতে অন্যসব কাগজপত্রের সঙ্গে চেম্বার আদালতের ওই আদেশের অনুলিপিও ছিল এবং তার আগের বিচারক পাঁচবার আসলামের জামিন আবেদন নাকচ করেছিলেন- এসব বিষয়ে প্রশ্ন করলে কামরুন্নাহার বলেন, তিনি আগের নথি দেখেননি, যা তার ভুল হয়েছে।

আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়েছে, ইচ্ছাকৃতভাবে পুরনো নথি না দেখার বিষয়টি কামরুন্নাহারের ‘অসৎ উদ্দেশ্যের’ ইংগিত করে।

সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্তে বলা হয়, আসলাম শিকদারকে জামিন দেওয়ার মাধ্যমে মোছা. কামরুন্নাহার আপিল বিভাগের আদেশ লঙ্ঘন করেছেন। কোনো ধরনের ফৌজদারি মামলা পরিচালনার জন্য তিনি ‘উপযুক্ত নন’।

সুতরাং, মোছা. কামরুন্নাহার বাংলাদেশের কোনো আদালতে কোনো ধরনের ফৌজদারি মামলার বিচার করতে পারবেন না।”

back to top