alt

উপ-সম্পাদকীয়

বুকের দুধই হোক নবজাতকের প্রথম খাবার

মারিয়া জান্নাত মিষ্টি

: মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১

শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর মায়ের বুকের দুধ খেয়েই ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠে। শিশুর সুন্দরভাবে বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে মায়ের দুধ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পুষ্টিবিজ্ঞানীরা একে তরল সোনার সঙ্গে তুলনা করেছেন।

ওয়ার্ল্ড অ্যালায়েন্স ফর ব্রেস্টফিডিং অ্যাকশনের উদ্যোগে এবং ইউনিসেফের সহযোগিতায় ১৯৯২ সাল থেকে প্রতিবছর এক থেকে সাত আগস্ট পর্যন্ত পালিত হয় বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ। বর্তমানে ১২০টিরও বেশি দেশে এ দিবসটি বিশেষ মর্যাদার সঙ্গে পালন করা হয়। বাংলাদেশেও প্রতি বছর এ দিবস বেশ গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হয়ে আসছে।

বাচ্চা প্রসবের পর প্রথম তিন দিন মায়ের বুকের যে ঘন হলুদাভ আঠালো দুধ পাওয়া যায় তাকে সাধারণত শালদুধ বলে। এ দুধে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ, ডি এবং রোগপ্রতিরোধের অনেক উপকরণ থাকে; যা শিশুর অনেক রোগের প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। এজন্য শালদুধকে শিশুর জীবনের প্রথম টিকা বলা হয়।

কিন্তু বড়ই অনুতাপের বিষয় হলো অনেকে এ ব্যাপারে উদাসীন। গ্রামাঞ্চলে প্রচলিত কুসংস্কারের বশবর্তী হয়ে নবজাতকে বঞ্চিত করা হয় শালদুধ পান করানো থেকে। এতে শিশু হৃষ্টপুষ্ট হওয়ার বদলে দিন দিন রোগা ও হারগিলে হয়ে যায়। তাই শিশুকে শালদুধ খাওয়ানোর ব্যাপারে সব মায়ের সচেতন হওয়া জরুরি।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যেই নবজাতককে মায়ের বুকের দুধ পান করাতে হবে। তাহলে নবজাতকের মৃত্যুর হার ২২ শতাংশ কমানো সম্ভব। মায়ের দুধ খাওয়ানোর মাধ্যমে বছরে ৩৭ হাজার নবজাতকের জীবন রক্ষা কার সম্ভব। শিশুর ছয় মাস বয়স পর্যন্ত মায়ের দুধ ছাড়া পানি বা বাড়তি কোনো খাবার দেয়া যাবে না। কেননা মায়ের বুকের দুধেই আছে শতকরা ৯৫ ভাগ পানি। অন্যান্য পুষ্টিগুণ তো আছেই। এরপর দুই বছর বা তারও বেশি সময় পর্যন্ত বুকের দুধের পাশাপাশি বাড়তি খাবার দেয়া যাবে।

আজকের শিশুরাই হলো আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তাদের হাতেই গড়ে উঠবে বিশ্বসভ্যতা। সেজন্য শিশুর জন্মের পর এসব বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। অবহেলা বা খামখেয়ালি না করে যথাসময়ে নবজাতককে মায়ের বুকের দুধ খাওয়াতে হবে।

[লেখক : শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যলয়]

অপার সম্ভাবনার পর্যটন

ভাবমূর্তির উন্নয়ন

ধর্ম যখন বর্ম

ফল ও সবজি রপ্তানি এবং কেন্দ্রীয় প্যাকিং হাউজ

আফগানিস্তানে তালেবান ও ভূলুণ্ঠিত মানবাধিকার

বিমানবন্দরে পিসিআর ল্যাব স্থাপন প্রসঙ্গে

আত্মহত্যা প্রতিরোধযোগ্য

পশ্চিমবঙ্গে বামপন্থিদের নেতৃত্বে কারা আসছেন

বোনেরা প্রাপ্য অংশ থেকে বঞ্চিত হলে কী করবেন?

ছবি

তালেবানরা উদারপন্থি হচ্ছে কি

ছবি

কারিকুলাম প্রণয়নের চেয়ে বাস্তবায়নই বেশি গুরুত্বপূর্ণ

দুর্বিনীত লোভের ফাঁদ

কিশোর শিক্ষার্থীদের কোভিড ভ্যাকসিন

সমাপনী পরীক্ষা এবার থেকেই বাদ নয় কেন

ইটিং ডিজঅর্ডার সম্পর্কে জানা জরুরি

ধনী হওয়ার মন্ত্র ও বোকা বানানোর যন্ত্র

মুজিব বাহিনী ও মুজিববাদ

দেশের ইস্পাত শিল্প

আদিবাসীদের শ্মশানও দখল হয়ে গেল

অন্ধকার অতল গহ্বরে আফগান জনগণ

সংকটে রবিদাস জনগোষ্ঠী

প্রশাসনকে মাটির কাছাকাছি আসতে হবে

তালেবানদের সরকার গঠন

যেখানে সময় এসে মানুষকে ধরা দেয়

পশ্চিমবঙ্গে বিরোধী রাজনীতির ঘূর্ণাবর্ত

ছবি

শিক্ষা দিবস

সাংস্কৃতিক কার্যক্রম শূন্যতা ও জঙ্গিবাদ

ঐতিহাসিক সত্য উন্মোচনে ট্রুথ কমিশন

’৬২-এর শিক্ষা আন্দোলন ও আজকের শিক্ষা

আন্তর্জাতিক ওজন দিবস

ভূমিসংক্রান্ত অপরাধ দমনে আইন প্রণয়ন জরুরি

ছবি

শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা

বেশি দামে সার বিক্রিতে প্রতারিত হচ্ছেন কৃষক

হাঁস-মুরগির রোগ ও চিকিৎসা

দুর্নীতিতে জিরো টলারেন্স

ছবি

রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব

tab

উপ-সম্পাদকীয়

বুকের দুধই হোক নবজাতকের প্রথম খাবার

মারিয়া জান্নাত মিষ্টি

মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১

শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর মায়ের বুকের দুধ খেয়েই ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠে। শিশুর সুন্দরভাবে বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে মায়ের দুধ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পুষ্টিবিজ্ঞানীরা একে তরল সোনার সঙ্গে তুলনা করেছেন।

ওয়ার্ল্ড অ্যালায়েন্স ফর ব্রেস্টফিডিং অ্যাকশনের উদ্যোগে এবং ইউনিসেফের সহযোগিতায় ১৯৯২ সাল থেকে প্রতিবছর এক থেকে সাত আগস্ট পর্যন্ত পালিত হয় বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ। বর্তমানে ১২০টিরও বেশি দেশে এ দিবসটি বিশেষ মর্যাদার সঙ্গে পালন করা হয়। বাংলাদেশেও প্রতি বছর এ দিবস বেশ গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হয়ে আসছে।

বাচ্চা প্রসবের পর প্রথম তিন দিন মায়ের বুকের যে ঘন হলুদাভ আঠালো দুধ পাওয়া যায় তাকে সাধারণত শালদুধ বলে। এ দুধে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-এ, ডি এবং রোগপ্রতিরোধের অনেক উপকরণ থাকে; যা শিশুর অনেক রোগের প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে। এজন্য শালদুধকে শিশুর জীবনের প্রথম টিকা বলা হয়।

কিন্তু বড়ই অনুতাপের বিষয় হলো অনেকে এ ব্যাপারে উদাসীন। গ্রামাঞ্চলে প্রচলিত কুসংস্কারের বশবর্তী হয়ে নবজাতকে বঞ্চিত করা হয় শালদুধ পান করানো থেকে। এতে শিশু হৃষ্টপুষ্ট হওয়ার বদলে দিন দিন রোগা ও হারগিলে হয়ে যায়। তাই শিশুকে শালদুধ খাওয়ানোর ব্যাপারে সব মায়ের সচেতন হওয়া জরুরি।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে, জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যেই নবজাতককে মায়ের বুকের দুধ পান করাতে হবে। তাহলে নবজাতকের মৃত্যুর হার ২২ শতাংশ কমানো সম্ভব। মায়ের দুধ খাওয়ানোর মাধ্যমে বছরে ৩৭ হাজার নবজাতকের জীবন রক্ষা কার সম্ভব। শিশুর ছয় মাস বয়স পর্যন্ত মায়ের দুধ ছাড়া পানি বা বাড়তি কোনো খাবার দেয়া যাবে না। কেননা মায়ের বুকের দুধেই আছে শতকরা ৯৫ ভাগ পানি। অন্যান্য পুষ্টিগুণ তো আছেই। এরপর দুই বছর বা তারও বেশি সময় পর্যন্ত বুকের দুধের পাশাপাশি বাড়তি খাবার দেয়া যাবে।

আজকের শিশুরাই হলো আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। তাদের হাতেই গড়ে উঠবে বিশ্বসভ্যতা। সেজন্য শিশুর জন্মের পর এসব বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। অবহেলা বা খামখেয়ালি না করে যথাসময়ে নবজাতককে মায়ের বুকের দুধ খাওয়াতে হবে।

[লেখক : শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যলয়]

back to top