alt

সাময়িকী

বিমল গুহর একগুচ্ছ কবিতা

: শনিবার, ০৬ নভেম্বর ২০২১

(বিমল গুহ, জন্ম ২৭শে অক্টোবর, ১৯৫২ সাতকানিয়া, চট্টগ্রাম ॥ ৭০তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা)

আঁধারের রূপ
সুন্দর দাঁড়িয়ে আছে সম্মুখে আমার

-জীবনই সুন্দর;

অন্ধকার বার-বার হাতছানি দেয়
কেঁপে ওঠে লহমায় সন্ত্রস্ত ঘর!

মৃত্যু পুঁতিগন্ধময় বীভৎস হাওয়া
দীর্ঘতম শ্বাস;
জীবনের কাছে যাই, ছুটে-ছুটে যাই-
বিছানার দুইপাশে বাড়ে মুথাঘাস!

জীবন সুন্দর আহা! জীবনই সুন্দর
আঁধার কুৎসিত কদাকার;
জীবনের অন্যপিঠে লিখবো কী নাম-
ড্রাগনের অগ্নিরূপ, ভীতি, অন্ধকার!

লাইফ সাপোর্ট
শুধু বালিয়াড়ি, শুধু রাশি রাশি জল
সমুদ্র সমুদ্র- চারিদিকে জলের উল্লাস;
এ রকম ঘোরের ভিতর হেঁটে যাচ্ছে আমার সময়।
শুধু বালিয়াড়ি শুধু জল
ভেতরে শৈশবনৃত্য- শুধু কোলাহল!

কোথায় কী হলো আজ- আগুনের মতো
সৈকতে তীর্যক রোদ এসে পড়েছে এক্ষণে,
পাশে নৃত্যরত ঢেউ জলের উল্লাস-
ভেতরে ভেতরে সব ক্ষয়ে ক্ষয়ে যাচ্ছে মনে হয়;
আগুনের মতো লেলিহান
ছিটকে পড়েছে সবখানে- পুড়ে যাচ্ছে মোহ
সমুদ্রের জলও কি টের পায় কিছু?
চারদিকে বালিয়াড়ি শুধু কোলাহল: এ রকম লাগে-
মৃত্যুপূর্বে লাইফসাপোর্ট নিয়ে যারা বাঁচে।

অধিবাস্তবতা
সত্যি বলছি, এ ক’দিন গৃহবন্দি থেকে
অভ্যন্তরে জমা হলো ক্রোধের বারুদ:
সকাল-সন্ধ্যা প্রতিদিন- সময়কে মুঠে পুরি
আমি আর ফারুক মাহমুদ!
ঘুণাক্ষরে বুঝি নাই
ফুসফুস প্রণালী হবে ক্ষীণ;
হতাশার ছন্দগাথা যখন দুজন পাঠ করি
পৃথিবীকে মনে হলো- সুখদ মসৃণ?
সারাক্ষণ চোখে ভাসে ধাবমান আগুনের গোলা
অক্ষিকোটর জুড়ে অসংলগ্ন চাপ!
তবে কি নিঃশেষ হতে চলেছে অন্তরা;
কানে বাজে অশুভ সংলাপ?
শেষপাতা ঝরে গেলে কল্পরূপ বৃক্ষের মতন
শীর্ণকা- দাঁড়ানোই প্রকৃতি সম্মত;
অভ্যন্তরে জমা হলে ক্রোধ-
শীর্ণবুকে আঁকা হয় অগ্নি-লাল ক্ষত!

জন্মঋণ
সময়ক্ষেপণ কোনো চারুকর্ম নয়;
গ্রন্থসুধা নিয়ে যারা থাকে
জলেস্থলে নভোনীলে
তাদের মুখের অবয়বে আঁকা হয় পৃথিবীর ছায়া।
দেখো দেখো পরিত্যক্ত মাঠের কিনারে
আকাশ নেমেছে কত নিচে; মেঘমালা ছুঁয়ে আছে
দিগন্তরেখা। বোধিসত্ত্বমূলে আজো
প্রকৃতিবিদ্যার পাঠ হয়-
আমরা এতকাল যাকে পাঠশালা বলতে শিখেছি।
সময়ক্ষেপণ আদৌ ঠিক কাজ নয়-
জন্মঋণ শোধ দিতে দিতে
দিগন্তের সীমানা অবধি চলে যাবো, একা একা।

ছবি

শালুক সাহিত্যসন্ধ্যায় বাংলা সাহিত্যের ইংরেজিকরণের জোরালো দাবি উত্থাপিত

ছবি

ওবায়েদ আকাশের ১৮টি প্রেমের কবিতা

ছবি

বাংলাদেশের নব্বইয়ের দশকের কবিতা : বিষয়, প্রকরণ ও বিশেষত্ব

ছবি

এক আশ্চর্য ফুল: বিনয় মজুমদার

ছবি

বিভ্রম

ছবি

সাময়িকী কবিতা

ছবি

শিকিবু

ছবি

একাত্তরের মার্চ এবং বাঙালির মুক্তিযুদ্ধের সূচনা

ছবি

বিদ্রোহীর ‘আমি’ এক পৌরাণিক নায়ক

ছবি

সুফিয়া কামাল ও বিশ শতকের মুসলিম নারী মানস

ছবি

স্থির, দিঘল-দীর্ঘশ্বাস

ছবি

শিকিবু

সাময়িকী কবিতা

ছবি

কামাল চৌধুরীর কবিতা

ছবি

আগন্তুকের গল্প

ছবি

‘আমার স্বপ্ন ছিল আমি ছবি আঁকব’-তাহেরা খানম

ছবি

শিকিবু

ছবি

খালেদ হামিদী : জীবন-পিরিচে স্বপ্নের উৎসব

সাময়িকী কবিতা

ছবি

কাজল বন্দ্যোপাধ্যায়ের কবিতা

ছবি

এক বাউল জীবনের কথা

ছবি

হাসান আজিজুল হকের দর্শনচিন্তা

ছবি

স্পর্শের ওপারে স্বনির্মিত হাসান আজিজুল হক

ছবি

‘প্রবৃত্তির তাড়নাতেই লেখক সত্তার জন্ম’

ছবি

পৃষ্ঠাজুড়ে কবিতা

ছবি

সিজোফ্রেনিক রাখালবালিকায় কবিতার নতুন নন্দন

ছবি

গণমানুষের ছড়াকার মনজুরুল আহসান বুলবুল

ছবি

শিকিবু

ছবি

এক অখ্যাত কিশোরের মুক্তিযুদ্ধ

ছবি

বাংলা কবিতার প্রকৃত পরহেজগার

ছবি

মুহম্মদ মনসুরউদ্দীনের ফোকলোর সাধনা

ছবি

সৃজনশীল কাব্যগ্রন্থ ‘অজ্ঞাত আগুন’

ছবি

‘ভিন্নচোখ’-এর ‘বাংলাবিশ্ব কবিতাসংখ্যা’

ছবি

কালের প্রেক্ষাপটে চিরসখা অন্নদাশঙ্কর রায়

ছবি

এক অখ্যাত কিশোরের মুক্তিযুদ্ধ

ছবি

শিকিবু

tab

সাময়িকী

বিমল গুহর একগুচ্ছ কবিতা

(বিমল গুহ, জন্ম ২৭শে অক্টোবর, ১৯৫২ সাতকানিয়া, চট্টগ্রাম ॥ ৭০তম জন্মদিনের শুভেচ্ছা)

শনিবার, ০৬ নভেম্বর ২০২১

আঁধারের রূপ
সুন্দর দাঁড়িয়ে আছে সম্মুখে আমার

-জীবনই সুন্দর;

অন্ধকার বার-বার হাতছানি দেয়
কেঁপে ওঠে লহমায় সন্ত্রস্ত ঘর!

মৃত্যু পুঁতিগন্ধময় বীভৎস হাওয়া
দীর্ঘতম শ্বাস;
জীবনের কাছে যাই, ছুটে-ছুটে যাই-
বিছানার দুইপাশে বাড়ে মুথাঘাস!

জীবন সুন্দর আহা! জীবনই সুন্দর
আঁধার কুৎসিত কদাকার;
জীবনের অন্যপিঠে লিখবো কী নাম-
ড্রাগনের অগ্নিরূপ, ভীতি, অন্ধকার!

লাইফ সাপোর্ট
শুধু বালিয়াড়ি, শুধু রাশি রাশি জল
সমুদ্র সমুদ্র- চারিদিকে জলের উল্লাস;
এ রকম ঘোরের ভিতর হেঁটে যাচ্ছে আমার সময়।
শুধু বালিয়াড়ি শুধু জল
ভেতরে শৈশবনৃত্য- শুধু কোলাহল!

কোথায় কী হলো আজ- আগুনের মতো
সৈকতে তীর্যক রোদ এসে পড়েছে এক্ষণে,
পাশে নৃত্যরত ঢেউ জলের উল্লাস-
ভেতরে ভেতরে সব ক্ষয়ে ক্ষয়ে যাচ্ছে মনে হয়;
আগুনের মতো লেলিহান
ছিটকে পড়েছে সবখানে- পুড়ে যাচ্ছে মোহ
সমুদ্রের জলও কি টের পায় কিছু?
চারদিকে বালিয়াড়ি শুধু কোলাহল: এ রকম লাগে-
মৃত্যুপূর্বে লাইফসাপোর্ট নিয়ে যারা বাঁচে।

অধিবাস্তবতা
সত্যি বলছি, এ ক’দিন গৃহবন্দি থেকে
অভ্যন্তরে জমা হলো ক্রোধের বারুদ:
সকাল-সন্ধ্যা প্রতিদিন- সময়কে মুঠে পুরি
আমি আর ফারুক মাহমুদ!
ঘুণাক্ষরে বুঝি নাই
ফুসফুস প্রণালী হবে ক্ষীণ;
হতাশার ছন্দগাথা যখন দুজন পাঠ করি
পৃথিবীকে মনে হলো- সুখদ মসৃণ?
সারাক্ষণ চোখে ভাসে ধাবমান আগুনের গোলা
অক্ষিকোটর জুড়ে অসংলগ্ন চাপ!
তবে কি নিঃশেষ হতে চলেছে অন্তরা;
কানে বাজে অশুভ সংলাপ?
শেষপাতা ঝরে গেলে কল্পরূপ বৃক্ষের মতন
শীর্ণকা- দাঁড়ানোই প্রকৃতি সম্মত;
অভ্যন্তরে জমা হলে ক্রোধ-
শীর্ণবুকে আঁকা হয় অগ্নি-লাল ক্ষত!

জন্মঋণ
সময়ক্ষেপণ কোনো চারুকর্ম নয়;
গ্রন্থসুধা নিয়ে যারা থাকে
জলেস্থলে নভোনীলে
তাদের মুখের অবয়বে আঁকা হয় পৃথিবীর ছায়া।
দেখো দেখো পরিত্যক্ত মাঠের কিনারে
আকাশ নেমেছে কত নিচে; মেঘমালা ছুঁয়ে আছে
দিগন্তরেখা। বোধিসত্ত্বমূলে আজো
প্রকৃতিবিদ্যার পাঠ হয়-
আমরা এতকাল যাকে পাঠশালা বলতে শিখেছি।
সময়ক্ষেপণ আদৌ ঠিক কাজ নয়-
জন্মঋণ শোধ দিতে দিতে
দিগন্তের সীমানা অবধি চলে যাবো, একা একা।

back to top