alt

নগর-মহানগর

ফুটপাতসহ বিপণি বিতানগুলোতে জমে উঠেছে ঈদ কেনাকাটা

জাহিদা পারভেজ ছন্দা : রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

রমজান মাস শেষ হতে আর মাত্র কয়েক দিন বাকি। রমজান শেষ হওয়া মানেই ঈদুল ফিতর। ঈদ সামনে রেখে রাজধানীর বিপনি বিতানগুলোতেই শুধু নয় ফুটপাতেও বাড়তে শুরু করেছে লোকসমাগম। কোনো কোনো ব্যবসায়ী ভালো বিক্রির কথা জানালেও কম বিক্রির কথাও জানাচ্ছেন কেউ কেউ। তবে বেশিরভাগ বিক্রেতাদের দাবি, ছুটির দিনে কেনাবেচার যে চাপ থাকার কথা তা তুলনামূলক কম। তবে সামনে বিক্রি আরও বাড়বে বলে আশা তাদের। এমন মিশ্র প্রতিক্রিয়া বড় শপিংমলের ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের

নিম্নআয়ের মানুষের ঈদ কেনাকাটায় ভরসা ফুটপাতের দোকানগুলো। সপ্তাহ আগে মিরপুর-১০ ও আশপাশের ফুটপাত থেকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মার্কেট উচ্ছেদ করা হয়েছিল। সপ্তাহে না পেরেতেই আবারো পসরা নিয়ে ফিরে এসেছেন ব্যবসায়ীরা। আবারও জমে উঠতে শুরু করেছে ফুটপাতের দোকানগুলো।

দাম তুলনামূলক কম হওয়ায় বিশেষ করে নি¤œআয়ের লোকেরা ফুটপাতে ভিড় জমান। সব বয়সের নারী-পুরুষের উপযোগী পোশাক রয়েছে মার্কেটের দোকানগুলোতে। ছুটির দিনগুলোতেই শুধু নয়, এখন প্রতিদিনই ফুটপাতের এ মার্কেটে ভিড় বাড়ছে। ফুটপাতের এই দোকানগুলোতে রাত ১১টার পরও কেনাবেচা করতে দেখা যায়।

এসব দোকানে এমন কিছু নেই যে পাওয়া যায় না। পোশাক থেকে শুরু করে জুতা স্যান্ডেল, গয়না এমনকি, ঘর সাজানোর আসবাবপত্র পর্যন্ত কিনতে পাওয়া যায়।

১০ নম্বর গোল চত্বরে ব্যবসা করেন শেখ রহমান, মো. সুজন। তারা জানান, প্রশাসন ফুটপাতের দোকান তুলে দেওয়ার পর কয়েকদিন অনেকেই এসে ঘুরে গেছে । অনেকেই জানে না আবারো দোকান বইছে। এরজন্য কম মানুষ আসতাছে। আর দই চার দিন গেলেই মানুষ জানলে লোকা আসা শুরু হইবো। ক্ষোভের সাথে সুজন বলেন, এই ঈদের আগে এই কাজটা না করলে কি অইতো। যতো দোষ মনে অয় আমাগোর’।

মিরপুর পল্লবী থেকে গৃহকর্মীর মেয়ে বোন আত্মীয়স্বজনদের জামা কাপড় কিনতে এসেছেন জাহানারা বেগম। তিনি বলেন, বাড়ির কাছে ফুটপাতের এই দোকানগুলো থেকে কাপড় কিনি অনেক বছর। কম দামে মোটামুটি ভালো কাপড়-চোপড় পাওয়া যায়। আমাদের মতো মধ্যবিত্তদের জন্য খুবই ভালো। তবে এখনো কিছু কেনা হয় নাই।’

কয়েকজন বন্ধু মিলে শপিং মল ঘুরে এসে ফুটপাতের দোকানে গেঞ্জি দেখছে। তাদের মধ্যে একজন মাহবুব বলেন, ‘মলে দাম বেশি অনেক। প্রায় একইরকম দেখতে গেঞ্জি এখানে অনেক কম দাম। তাই আমরা ঠিক করেছি এখান থেকেই কিনবো’।

পোশাককর্মী রাহেলা বানুর সঙ্গে কথা হয় তিনি বলেন, এই মার্কেটের (১৪ নম্বর ফুটপাথের দোকান) কাপড় প্রতিবারই কিনি। এই হানে অনেক দোকান। জিনিসও অনেক। আবার দামও কম। ঈদে বাড়ি যাবো। নিজের পাশাপাশি আত্মীয়স্বজনদের জন্যও কিছু কেনাকাটা করন লাগবো।’

বইনের মেয়ে, নিজের মেয়ে ও ছেলের জন্য আজ কাপড় কিনতে এসেছেন জানিয়ে রাহেলা বলেন, কেবল একটা থ্রি-পিস কিনছি আরো কয়েকটা কিনবো। বেতন দিলে পর বাকি কেনাকাটা কিনুম’। তার গার্মেন্টসের বেতন দিয়েছে কিনা, গার্মেন্টসের নাম কী নাম জানতে চাইলে রাহেলা নাম না বলে ফোনে কথা বলতে ব্যস্ত হয়ে যায়।

এদিকে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং মল, আড়ং, মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটি, রিং রোড, তাজমহল রোড এবং আদাবর এলাকার বেশ কয়েকটি ব্র্যান্ড শপ ঘুরে তরুণ-তরুণীদের বেশি দেখা যায়। শুক্র ও গতকার ছুটির দিন থাকায় অনেকেই স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন।

মিরপুর-১২ এর আড়ং আউটলেটে কথা হয় তাওহীদ চৌধুরীর সাথে। আড়ং এ সবার জন্য সব কিছু কিনতে পাওয়া যায় বলে তিনি আড়ং এ আসেন জানিয়ে হাতে এক গাদা কাপড় দেখিয়ে বলেন, মা-খালা, ভাই-বোন, ভাগনা-ভাগনি সবার জন্য কিনেছি। ‘ঘুরে ঘুরে কেনাকাটা করার মতো অবস্থা কোথায়’ বলে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন আবারো কেনা কাটায়।

ক্রেতার সমাগম অনেক বেশি আড়ংয়ের এই আউটলেটে। সেখানকার বিক্রয়কর্মীরা জানিয়েছেন, গত দুই দিনে ভিড় বেশি ছিল। ভিড় বাড়ছে, তবে ঈদ আয়োজন সম্পর্কে কোনো ফ্লোর ম্যানেজার কথা বলতে রাজি হননি।

রোয়াজা রাইম দুই বোন এসেছেন ঢাকার টোকিও স্কয়ারে। তারা বলেন, শুরুর দিকে এলে ভালো ডিজাইন পাওয়া যায়। শেষের দিকে সাইজ পাওয়াও মুশকিল হয়। এবার একটু দেরি হয়ে গেছে ঈদের কেনাকাটা করতে। আমরা আরো আগেই কিনে ফেলি। কিন্তু আব্বুর একটু ঝামেলা ছিলো তাই এবার দেরি।

দাম বেশি বলে চট করে কিনতে পারছেন না পছন্দ হলেও। আরো ঘুরবেন, আরো দেখবেন। তারপর সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান এই দুই সহোদর।

তবে নিউমার্কেট ও ফার্মগেটে ফুটপাতের বিক্রেতাদের ভিড়ে ঠিক মতো জিনিস দেখারো যেন উপায় নেই। নি¤œ ও মধ্যম আয়ের হাজারো ক্রেতা সেখানে ভিড় করছেন। অস্থায়ী দোকানের বিক্রেতারা বলছেন, ক্রেতাসমাগম ভালো। শুরুর দিকে ক্রেতা কম থাকলেও এখন ভালো বিক্রি হচ্ছে।

ঈদ সামনে রেখে জমজমাট রাজধানীর বিপণি বিতানগুলো। উপচেপড়া ভিড় পোশাক, জুতাসহ প্রসাধনীর দোকানগুলোতে। মার্কেটের পাশাপাশি ক্রেতার পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে ফুটপাতের দোকানগুলোও। রাজধানীর নিউমার্কেট, গাউসিয়া মার্কেট, চাঁদনি চক মার্কেট, নূরজাহান মার্কেট ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

ছবি

ঢাকা, চট্টগ্রামে ঝড়-বৃষ্টি-জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

ছবি

সাবেক আইজিপি বেনজীরের আরও সম্পদ জব্দের নির্দেশ: আদালত

ছবি

বিদ্যুৎ বিভ্রাট কাটিয়ে মেট্রোরেল চলাচল চালু

ছবি

বৈদ্যুতিক বিভ্রাটে বন্ধ মেট্রোরেল

ছবি

ঢাকায় ছুরিকাঘাতে এক যুবক নিহত

ছবি

তেজগাঁওয়ে ভাড়াটিয়ার ছুরিকাঘাতে বাড়ির মালিক খুন

ছবি

আনসার আল ইসলামের প্রশিক্ষক ও রিক্রুটিং শাখার প্রধান গ্রেপ্তার

ছবি

জাতীয় প্রেস ক্লাবে কিডনি ও চক্ষু ক্যাম্প অনুষ্ঠিত

ছবি

এমপি আনার হত্যায় তিনজনকে ৮ দিনের রিমান্ডে

ছবি

শান্তিনগরে বহুতল ভবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ২ ইউনিট

ছবি

চার্জার লাইটের ভেতরে ৫ কোটি টাকার সোনা, ২ বিদেশি গ্রেপ্তার

ছবি

ঢাকার বাতাস আজও ‘অস্বাস্থ্যকর’

ছবি

জ্বালানি খাতে অবদানের জন্য সম্মাননা পেল এফইআরবি, সংবাদের রিপোর্টার ও ১১ সাংবাদিক

ছবি

জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা ছাড়া এককভাবে মশা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব না : তাজুল ইসলাম

ছবি

বাড্ডায় ঘিরে রাখা বাড়ি থেকে ৬৫ হাতবোমা উদ্ধার, আটক ৩

ছবি

গোলাম মাওলা রনির গাড়িতে হামলা

ছবি

ধানমন্ডিতে গলায় চাপাতি ঠেকিয়ে ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৪

ছবি

২৭ মে সারাদেশে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি অটোরিকশা চালকদের

ছবি

রাজধানীর বাবুবাজারে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

ছবি

ইভ্যালির এমডি: দুই বছরের মধ্যে সবার টাকা ফেরত

ছবি

মিরপুরে ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকদের বিক্ষোভ ট্রাফিক বক্সে আগুন, পথচারী গুলিবিদ্ধ

ছবি

২৫ মে বঙ্গবাজারে নতুন মার্কেটের কাজ শুরু

ছবি

মিরপুরে পুলিশ-অটোরিকশা চালকদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া, পুলিশ বক্সে আগুন

ছবি

মেট্রোরেলে উত্তরা থেকে টঙ্গীর মাঝে হবে ৫ স্টেশন

ছবি

মিরপুরে লাঠিসোটা নিয়ে বিক্ষোভে ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকরা

ছবি

স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মসূচি : ছাত্রলীগ কর্মী খুন

ছবি

পুরান ঢাকার ব্যাংকের আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছবি

পুরান ঢাকায় ব্যাংকে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৫ ইউনিট

ছবি

রত্নগর্ভা মা সম্মাননা স্মারক পেলেন সুরাইয়া আহমেদ

ছবি

বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

সিদ্ধেশ্বরীর মনোয়ারা হাসপাতালে আগুন

ছবি

ট্রেনের দরজা থেকে পড়ে শিশুর নিহত

ছবি

পুলিশের কাজ মিশে যাওয়া, মিলে যাওয়া নয় : তেজগাঁও বিভাগের ডিসি

ছবি

গেটলক সিস্টেম না মানলেই মামলা : ডিএমপি কমিশনার

ছবি

স্টার্টআপ বাংলাদেশ ও মনের বন্ধু’র মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর

ছবি

শুক্রবারও মেট্রোরেল চালানোর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত

tab

নগর-মহানগর

ফুটপাতসহ বিপণি বিতানগুলোতে জমে উঠেছে ঈদ কেনাকাটা

জাহিদা পারভেজ ছন্দা

রোববার, ৩১ মার্চ ২০২৪

রমজান মাস শেষ হতে আর মাত্র কয়েক দিন বাকি। রমজান শেষ হওয়া মানেই ঈদুল ফিতর। ঈদ সামনে রেখে রাজধানীর বিপনি বিতানগুলোতেই শুধু নয় ফুটপাতেও বাড়তে শুরু করেছে লোকসমাগম। কোনো কোনো ব্যবসায়ী ভালো বিক্রির কথা জানালেও কম বিক্রির কথাও জানাচ্ছেন কেউ কেউ। তবে বেশিরভাগ বিক্রেতাদের দাবি, ছুটির দিনে কেনাবেচার যে চাপ থাকার কথা তা তুলনামূলক কম। তবে সামনে বিক্রি আরও বাড়বে বলে আশা তাদের। এমন মিশ্র প্রতিক্রিয়া বড় শপিংমলের ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে ফুটপাতের ব্যবসায়ীদের

নিম্নআয়ের মানুষের ঈদ কেনাকাটায় ভরসা ফুটপাতের দোকানগুলো। সপ্তাহ আগে মিরপুর-১০ ও আশপাশের ফুটপাত থেকে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মার্কেট উচ্ছেদ করা হয়েছিল। সপ্তাহে না পেরেতেই আবারো পসরা নিয়ে ফিরে এসেছেন ব্যবসায়ীরা। আবারও জমে উঠতে শুরু করেছে ফুটপাতের দোকানগুলো।

দাম তুলনামূলক কম হওয়ায় বিশেষ করে নি¤œআয়ের লোকেরা ফুটপাতে ভিড় জমান। সব বয়সের নারী-পুরুষের উপযোগী পোশাক রয়েছে মার্কেটের দোকানগুলোতে। ছুটির দিনগুলোতেই শুধু নয়, এখন প্রতিদিনই ফুটপাতের এ মার্কেটে ভিড় বাড়ছে। ফুটপাতের এই দোকানগুলোতে রাত ১১টার পরও কেনাবেচা করতে দেখা যায়।

এসব দোকানে এমন কিছু নেই যে পাওয়া যায় না। পোশাক থেকে শুরু করে জুতা স্যান্ডেল, গয়না এমনকি, ঘর সাজানোর আসবাবপত্র পর্যন্ত কিনতে পাওয়া যায়।

১০ নম্বর গোল চত্বরে ব্যবসা করেন শেখ রহমান, মো. সুজন। তারা জানান, প্রশাসন ফুটপাতের দোকান তুলে দেওয়ার পর কয়েকদিন অনেকেই এসে ঘুরে গেছে । অনেকেই জানে না আবারো দোকান বইছে। এরজন্য কম মানুষ আসতাছে। আর দই চার দিন গেলেই মানুষ জানলে লোকা আসা শুরু হইবো। ক্ষোভের সাথে সুজন বলেন, এই ঈদের আগে এই কাজটা না করলে কি অইতো। যতো দোষ মনে অয় আমাগোর’।

মিরপুর পল্লবী থেকে গৃহকর্মীর মেয়ে বোন আত্মীয়স্বজনদের জামা কাপড় কিনতে এসেছেন জাহানারা বেগম। তিনি বলেন, বাড়ির কাছে ফুটপাতের এই দোকানগুলো থেকে কাপড় কিনি অনেক বছর। কম দামে মোটামুটি ভালো কাপড়-চোপড় পাওয়া যায়। আমাদের মতো মধ্যবিত্তদের জন্য খুবই ভালো। তবে এখনো কিছু কেনা হয় নাই।’

কয়েকজন বন্ধু মিলে শপিং মল ঘুরে এসে ফুটপাতের দোকানে গেঞ্জি দেখছে। তাদের মধ্যে একজন মাহবুব বলেন, ‘মলে দাম বেশি অনেক। প্রায় একইরকম দেখতে গেঞ্জি এখানে অনেক কম দাম। তাই আমরা ঠিক করেছি এখান থেকেই কিনবো’।

পোশাককর্মী রাহেলা বানুর সঙ্গে কথা হয় তিনি বলেন, এই মার্কেটের (১৪ নম্বর ফুটপাথের দোকান) কাপড় প্রতিবারই কিনি। এই হানে অনেক দোকান। জিনিসও অনেক। আবার দামও কম। ঈদে বাড়ি যাবো। নিজের পাশাপাশি আত্মীয়স্বজনদের জন্যও কিছু কেনাকাটা করন লাগবো।’

বইনের মেয়ে, নিজের মেয়ে ও ছেলের জন্য আজ কাপড় কিনতে এসেছেন জানিয়ে রাহেলা বলেন, কেবল একটা থ্রি-পিস কিনছি আরো কয়েকটা কিনবো। বেতন দিলে পর বাকি কেনাকাটা কিনুম’। তার গার্মেন্টসের বেতন দিয়েছে কিনা, গার্মেন্টসের নাম কী নাম জানতে চাইলে রাহেলা নাম না বলে ফোনে কথা বলতে ব্যস্ত হয়ে যায়।

এদিকে রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং মল, আড়ং, মোহাম্মদপুরের জাপান গার্ডেন সিটি, রিং রোড, তাজমহল রোড এবং আদাবর এলাকার বেশ কয়েকটি ব্র্যান্ড শপ ঘুরে তরুণ-তরুণীদের বেশি দেখা যায়। শুক্র ও গতকার ছুটির দিন থাকায় অনেকেই স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করতে এসেছেন।

মিরপুর-১২ এর আড়ং আউটলেটে কথা হয় তাওহীদ চৌধুরীর সাথে। আড়ং এ সবার জন্য সব কিছু কিনতে পাওয়া যায় বলে তিনি আড়ং এ আসেন জানিয়ে হাতে এক গাদা কাপড় দেখিয়ে বলেন, মা-খালা, ভাই-বোন, ভাগনা-ভাগনি সবার জন্য কিনেছি। ‘ঘুরে ঘুরে কেনাকাটা করার মতো অবস্থা কোথায়’ বলে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন আবারো কেনা কাটায়।

ক্রেতার সমাগম অনেক বেশি আড়ংয়ের এই আউটলেটে। সেখানকার বিক্রয়কর্মীরা জানিয়েছেন, গত দুই দিনে ভিড় বেশি ছিল। ভিড় বাড়ছে, তবে ঈদ আয়োজন সম্পর্কে কোনো ফ্লোর ম্যানেজার কথা বলতে রাজি হননি।

রোয়াজা রাইম দুই বোন এসেছেন ঢাকার টোকিও স্কয়ারে। তারা বলেন, শুরুর দিকে এলে ভালো ডিজাইন পাওয়া যায়। শেষের দিকে সাইজ পাওয়াও মুশকিল হয়। এবার একটু দেরি হয়ে গেছে ঈদের কেনাকাটা করতে। আমরা আরো আগেই কিনে ফেলি। কিন্তু আব্বুর একটু ঝামেলা ছিলো তাই এবার দেরি।

দাম বেশি বলে চট করে কিনতে পারছেন না পছন্দ হলেও। আরো ঘুরবেন, আরো দেখবেন। তারপর সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান এই দুই সহোদর।

তবে নিউমার্কেট ও ফার্মগেটে ফুটপাতের বিক্রেতাদের ভিড়ে ঠিক মতো জিনিস দেখারো যেন উপায় নেই। নি¤œ ও মধ্যম আয়ের হাজারো ক্রেতা সেখানে ভিড় করছেন। অস্থায়ী দোকানের বিক্রেতারা বলছেন, ক্রেতাসমাগম ভালো। শুরুর দিকে ক্রেতা কম থাকলেও এখন ভালো বিক্রি হচ্ছে।

ঈদ সামনে রেখে জমজমাট রাজধানীর বিপণি বিতানগুলো। উপচেপড়া ভিড় পোশাক, জুতাসহ প্রসাধনীর দোকানগুলোতে। মার্কেটের পাশাপাশি ক্রেতার পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে ফুটপাতের দোকানগুলোও। রাজধানীর নিউমার্কেট, গাউসিয়া মার্কেট, চাঁদনি চক মার্কেট, নূরজাহান মার্কেট ঘুরে এ চিত্র দেখা যায়।

back to top