alt

নগর-মহানগর

মেয়র তাপসের বক্তব্য আপিল বিভাগের নজরে আনলেন ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : : বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

‘একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম’- ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের বক্তব্য নিয়ে আপিল বিভাগের নজরে এনেছেন সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ও সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগে এই বিষয়টি নজরে আনেন।

গতকাল মঙ্গলবার (২৩ মে) একটি দৈনিকে মেয়র তাপসের ওই বক্তব্য প্রকাশিত হয়। আজ ওই প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করে অংশবিশেষ পড়ে শোনান ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম। পরে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা একটু দেখি। পড়ে দেখি।’

দুর্ভাগ্যজনক’

আজ বেলা সোয়া ১১টা থেকে আপিল বিভাগে জড়ো হতে থাকেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আদালতে উপস্থিত হন ব্যারিস্টার আমীর। ১১টা ৩৫ মিনিটে এজলাসে আসেন প্রধান বিচারপতি ও আপিল বিভাগের অপর দুই বিচারপতি। বিচারপতিদের আসন গ্রহণের পর প্রতিবেদন তুলে ধরেন ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘সংক্ষুব্ধ। বাংলাদেশের জনগণ বিচার বিভাগের দিকে তাকিয়ে থাকে। মেয়র বলেছেন একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম, মানবজমিনে এসেছে। গর্ব করে, যা দুর্ভাগ্যজনক।’

প্রতিবেদনের অংশবিশেষ তুলে ধরে আমীর-উল ইসলাম বলেন, ‘ওরে বাবা, কী জানি ফেরেশতা আসছে।...মনটা চায় আবার ইস্তফা দিয়ে ফিরে আসি। যেখানে মুগুর দেওয়ার সেটিও জানি। একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম। গত নির্বাচনের সাব-কমিটির আহ্বায়ক মশিউজ্জামানকে মনে করতাম ওরে বাবা, কী জানি ফেরেশতা আসছে। সবচেয়ে বড় চোর হলো মশিউজ্জামান। যেসব সুশীল আমাদের বুদ্ধি দিতে যাবেন, সেসব সুশীলকে আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেব।’

গত রোববার বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস এমন মন্তব্য করেন বলে উল্লেখ করেন ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন পড়ে শোনান আমীর-উল ইসলাম। তিনি বলেন, ব্যারিস্টার তাপস তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠনের আগেও অনেক বড় বড় আইনজীবী নেতা ছিলেন। কিন্তু যখন এই সংগঠন গঠন করা হয় তখন কিন্তু এইসব বিজ্ঞ, খ্যাতনামা, প্রাজ্ঞ, বড় বড় নেতাদের বাদ দিয়ে আমাদের মতো ছোট আইনজীবীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠন করা হয়। সুতরাং এগুলো ভুললে চলবে না। সবাই খালি ইতিহাস ভুলে যায়। ইতিহাস ভুললে চলবে না।’

এ সময় প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেন, ‘আমরা একটু দেখি। এখন কোর্টের কাজ করি।’

আমীর-উল ইসলাম বলেন, ‘ফুল কোর্টে আসবে?’ তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা পড়ি, পড়ে দেখি। কী করতে হবে না হবে, সিদ্ধান্ত নিতে হবে না?’

এ সময় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এ জে মোহাম্মদ আলী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আইনজীবী জয়নুল আবেদীন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন, বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক আইনজীবী কায়সার কামাল, সমিতির সাবেক সম্পাদক এম বদরুদ্দোজা, মো. রুহুল কুদ্দুসসহ বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও রাষ্ট্রের আইন কর্মকর্তারা এবং সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকিরও উপস্থিত ছিলেন।

পরে আদালত থেকে বেরিয়ে এক ব্রিফিংয়ে সংবিধান প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য আমীর-উল ইসলাম বলেন, ‘এটি বড় রকমের অবক্ষয়। এ জন্য আমরা প্রধান বিচারপতির কাছে গিয়েছিলাম। আদালত বলেছেন, তাঁরা দেখবেন। আমরা প্রত্যাশা করছি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এটি দেখে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। এই বক্তব্যে বিচার বিভাগ শুধু নয়, সারা বাংলাদেশের মানুষ মন ক্ষুণ্ন হয়েছে। সারা দেশের মানুষ বিচারব্যবস্থার দিকে তাকিয়ে থাকে। বিচারকদের কথা শুনলে গ্রামের একজন চাষিও মনে করেন, সেখানে ন্যায়বিচার পাব।’

হাইকোর্টের বর্ধিত ভবনের সামনে ব্রিফিংয়ে আমীর-উল ইসলাম আরও বলেন, ‘মেয়র তাপস সুশীল সমাজ সম্পর্কেও কটাক্ষ করে কথা বলেছেন। বারের সিনিয়র আইনজীবীদের নিয়েও কটাক্ষ করেছেন। বিচার বিভাগকে হেয় করেছেন। এই অধিকার তিনি কোথায় পেয়েছেন? এটা অত্যন্ত ঔদ্ধত্যপূর্ণ। তাঁর এ বক্তব্য আদালত অবমাননা।’

ছবি

জিগাতলা ১২ রেস্তোরাঁ ‘কেয়ারি ক্রিসেন্ট প্লাজা’ সিলগালা

ছবি

রাজধানীতে হত্যা মামলার পরোয়ানাভুক্ত ২ আসামী গ্রেপ্তার

ছবি

বেইলি রোডের অগ্নিকাণ্ডে হতাহতদের ক্ষতিপূরণে হাইকোর্টের রুল

ছবি

নির্যাতন ও বৈষম্য দূর করতে উত্তরাধিকারে নারীর সমঅধিকার নিশ্চিত করার আহবান

ছবি

দেশে প্রতি চারজনে একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছে

ছবি

বীরঙ্গনা সম্মিলনে- ‘বেদনাবিধুর ইতিহাসের নাম বীরাঙ্গনা’

ছবি

বেইলি রোডের আগুন : প্রাণ বাঁচাতে লাফ দেয়া দু’জনের লাগবে অস্ত্রপচার

ছবি

বেইলি রোডে মৃত্যু: উচ্চপর্যায় কমিটি করার নির্দেশ হাই কোর্টের

ছবি

ধানমন্ডির টুইন পিক ভবনে অভিযান: ভাঙা হল ছাদের রেস্তোরাঁ, সিলগালা আরও কয়েকটি

ছবি

ঢাকায় সকালেই বৃষ্টি, কতক্ষণ থাকবে আর কোন অঞ্চলে হবে জানাল আবহাওয়া অফিস

ছবি

ঢাকার রেস্তোরাঁয় ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশ, গ্রেপ্তার ৩৭

ছবি

বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ড : গ্রিন কোজির ‘গোড়ায় গলদ’

ছবি

অগ্নিকাণ্ডের পুনরাবৃত্তি রোধে ৪৮ নাগরিকের বিবৃতিতে ব্যবস্থার দাবি

ছবি

বেইলি রোডসহ সব আবাসিক স্থাপনায় রেস্টুরেন্ট বন্ধ চেয়ে রিট

ছবি

৫ জনের মৃত্যুতে একদিনের ছুটি চলছে ভিকারুননিসায়

ছবি

সোমবার ১৬ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না যেসব এলাকায়

ছবি

রাজধানীর ৯০ শতাংশ ভবন অগ্নিঝুঁকিতে

ছবি

কেবল নোটিস দিয়ে নিয়ন্ত্রকরা আগুনের দায় এড়াতে পারে না: এফবিসিসিআই

ছবি

ডিএনএ পরীক্ষা ও আদালতের নির্দেশ ছাড়া অভিশ্রুতি বা বৃষ্টির লাশ হস্তান্তর নয়

ছবি

কাচ্চি ভাইয়ের ম্যানেজারসহ রিমান্ডে ৪

ছবি

অভিশ্রুতি নাকি বৃষ্টি, বিতর্কের নিষ্পত্তি এখনো হয়নি

ছবি

কথা ছিল খাগড়াছড়ি যাবেন, আগুনে স্ত্রী-সন্তানসহ মারা গেলেন শুল্ক কর্মকর্তা

ছবি

এবার নীলক্ষেতের গাউসুল আজম মার্কেটে আগুন, প্রায় আধা ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে

নীলক্ষেতের গাউসুল আজম মার্কেটে আগুন, আধাঘন্টায় নিয়ন্ত্রণ

ছবি

নুরুল ইসলাম হিরন কল্যাণ ট্রাষ্টের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

ছবি

বেইলি রোডের ঘটনায় রেগুলেটরি বোর্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ

ছবি

আজ সারা দেশে বিঘ্নিত হবে ইন্টারনেট সেবা

‘বাবা- আমার ছেলেরে দেখাইবা’

ছবি

‘বাবা আমি আটকা পড়েছি, বাঁচাও’

ছবি

মুহূর্তেই ছবি হয়ে গেলেন মা-মেয়ে

ছবি

কাচ্চি ভাইয়ের ম্যানেজার চুমুকের দুই মালিক আটক

ছবি

ঢাকা মেডিকেলের সামনে আহাজারি

ছবি

‘লাফ না দিলে আমিও হয়তো পুড়ে কয়লা হতাম’

ছবি

আগুনের বিভীষিকায় শোকের মাতম

ছবি

চিহ্নিতের পরেও হয়না ঝুঁকিমুক্ত

ছবি

নেই দাবিদার, মর্গে পড়ে আছে নারী ও শিশুর লাশ

tab

নগর-মহানগর

মেয়র তাপসের বক্তব্য আপিল বিভাগের নজরে আনলেন ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক :

বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

‘একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম’- ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের বক্তব্য নিয়ে আপিল বিভাগের নজরে এনেছেন সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ও সিনিয়র আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগে এই বিষয়টি নজরে আনেন।

গতকাল মঙ্গলবার (২৩ মে) একটি দৈনিকে মেয়র তাপসের ওই বক্তব্য প্রকাশিত হয়। আজ ওই প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করে অংশবিশেষ পড়ে শোনান ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম। পরে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা একটু দেখি। পড়ে দেখি।’

দুর্ভাগ্যজনক’

আজ বেলা সোয়া ১১টা থেকে আপিল বিভাগে জড়ো হতে থাকেন বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আদালতে উপস্থিত হন ব্যারিস্টার আমীর। ১১টা ৩৫ মিনিটে এজলাসে আসেন প্রধান বিচারপতি ও আপিল বিভাগের অপর দুই বিচারপতি। বিচারপতিদের আসন গ্রহণের পর প্রতিবেদন তুলে ধরেন ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘সংক্ষুব্ধ। বাংলাদেশের জনগণ বিচার বিভাগের দিকে তাকিয়ে থাকে। মেয়র বলেছেন একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম, মানবজমিনে এসেছে। গর্ব করে, যা দুর্ভাগ্যজনক।’

প্রতিবেদনের অংশবিশেষ তুলে ধরে আমীর-উল ইসলাম বলেন, ‘ওরে বাবা, কী জানি ফেরেশতা আসছে।...মনটা চায় আবার ইস্তফা দিয়ে ফিরে আসি। যেখানে মুগুর দেওয়ার সেটিও জানি। একজন চিফ জাস্টিসকেও নামিয়ে দিয়েছিলাম। গত নির্বাচনের সাব-কমিটির আহ্বায়ক মশিউজ্জামানকে মনে করতাম ওরে বাবা, কী জানি ফেরেশতা আসছে। সবচেয়ে বড় চোর হলো মশিউজ্জামান। যেসব সুশীল আমাদের বুদ্ধি দিতে যাবেন, সেসব সুশীলকে আমরা বস্তায় ভরে বুড়িগঙ্গা নদীর কালো পানিতে ছেড়ে দেব।’

গত রোববার বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস এমন মন্তব্য করেন বলে উল্লেখ করেন ব্যারিস্টার আমীর-উল ইসলাম।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন পড়ে শোনান আমীর-উল ইসলাম। তিনি বলেন, ব্যারিস্টার তাপস তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠনের আগেও অনেক বড় বড় আইনজীবী নেতা ছিলেন। কিন্তু যখন এই সংগঠন গঠন করা হয় তখন কিন্তু এইসব বিজ্ঞ, খ্যাতনামা, প্রাজ্ঞ, বড় বড় নেতাদের বাদ দিয়ে আমাদের মতো ছোট আইনজীবীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ গঠন করা হয়। সুতরাং এগুলো ভুললে চলবে না। সবাই খালি ইতিহাস ভুলে যায়। ইতিহাস ভুললে চলবে না।’

এ সময় প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেন, ‘আমরা একটু দেখি। এখন কোর্টের কাজ করি।’

আমীর-উল ইসলাম বলেন, ‘ফুল কোর্টে আসবে?’ তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমরা পড়ি, পড়ে দেখি। কী করতে হবে না হবে, সিদ্ধান্ত নিতে হবে না?’

এ সময় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এ জে মোহাম্মদ আলী, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আইনজীবী জয়নুল আবেদীন, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আইনজীবী মাহবুব উদ্দিন খোকন, বিএনপির আইনবিষয়ক সম্পাদক আইনজীবী কায়সার কামাল, সমিতির সাবেক সম্পাদক এম বদরুদ্দোজা, মো. রুহুল কুদ্দুসসহ বিএনপিপন্থী আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন ও রাষ্ট্রের আইন কর্মকর্তারা এবং সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকিরও উপস্থিত ছিলেন।

পরে আদালত থেকে বেরিয়ে এক ব্রিফিংয়ে সংবিধান প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য আমীর-উল ইসলাম বলেন, ‘এটি বড় রকমের অবক্ষয়। এ জন্য আমরা প্রধান বিচারপতির কাছে গিয়েছিলাম। আদালত বলেছেন, তাঁরা দেখবেন। আমরা প্রত্যাশা করছি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এটি দেখে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। এই বক্তব্যে বিচার বিভাগ শুধু নয়, সারা বাংলাদেশের মানুষ মন ক্ষুণ্ন হয়েছে। সারা দেশের মানুষ বিচারব্যবস্থার দিকে তাকিয়ে থাকে। বিচারকদের কথা শুনলে গ্রামের একজন চাষিও মনে করেন, সেখানে ন্যায়বিচার পাব।’

হাইকোর্টের বর্ধিত ভবনের সামনে ব্রিফিংয়ে আমীর-উল ইসলাম আরও বলেন, ‘মেয়র তাপস সুশীল সমাজ সম্পর্কেও কটাক্ষ করে কথা বলেছেন। বারের সিনিয়র আইনজীবীদের নিয়েও কটাক্ষ করেছেন। বিচার বিভাগকে হেয় করেছেন। এই অধিকার তিনি কোথায় পেয়েছেন? এটা অত্যন্ত ঔদ্ধত্যপূর্ণ। তাঁর এ বক্তব্য আদালত অবমাননা।’

back to top