alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

অভিযানে গ্রেপ্তার ৭----

ডিজিটাল ডিভাইসে জানানো হতো উত্তর,১০মিনিটে পরীক্ষা শেষ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : রোববার, ১২ মে ২০২৪

চাকরির নিয়োগ পরীক্ষা শুরুর আগে কোনও না কোনও কেন্দ্রকে ম্যানেজ করতো একটি চক্র। ওই কেন্দ্র থেকে প্রশ্নের ফটোকপি হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো হতো চক্রের সদস্যদের কাছে। পাঁচ মিনিটের মধ্যে সেই প্রশ্নের সমধান করে ফেলতো প্রশ্ন সমাধান টিম।

এরপর তারা উত্তরগুলো পরীক্ষার্থীদের বলতে থাকতো। নারী পরীক্ষার্থীদের অন্তর্বাস এবং ছেলেদের গেঞ্জির মধ্যে লুকানো থাকতো ডিজিটাল ডিভাইস। একইসঙ্গে পরীক্ষার্থীর কানে রাখা হতো ক্ষুদ্রাকৃতির বল। পকেটের মধ্যে থাকতো একটা রাউটার। বাইরে থেকে যখনই টেলিফোন করতো সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষার্থী শুনতে পারতো এবং ১০ মিনিটের মধ্যে প্রশ্নের সমাধান করে পরীক্ষা শেষ করতো।

গতকাল রোববার রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে সাংবাদিকের এ সব কথা বলেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান হারুন অর রশীদ। এর আগে,ওই চক্রের ৭সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলো মো. জুয়েল খান (৪০), মো. রাসেল (৩০), মো. মাহমুদুল হাসান শাকিল (৩৯), মো. আব্দুর রহমান (৩৮), মো. আরিফুল ইসলাম (৩৫), মো. আজহারুল ইসলাম (২৯) এবং মো. মাসুম হাওলাদার (২৫)। তাদের কাছ থেকে বিশেষভাবে প্রস্তুত করা ১০টি ডিজিটাল ইলেকট্রনিক স্পাই ডিভাইস, সাতটি মোবাইল ফোন, ১০টি সিম কার্ড এবং একটি পকেট রাউটার উদ্ধার করা হয়।

হারুন অর রশীদ জানান, বিভিন্ন চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস করে অত্যাধুনিক ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে প্রশ্নে উত্তর জানিয়ে দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতো চক্রটি।

ডিবির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আসামিদের হোয়াটসঅ্যাপ ও মেসেঞ্জারের বার্তা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চক্রের সদস্যরা প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ (তৃতীয় ধাপ), বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট কালেক্টর (গ্রেড ২) ও বুকিং অ্যাসিসটেন্ট (গ্রেড ২), পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের অফিস সহায়ক, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, টাঙ্গাইলের অফিস সহায়ক, মৎস বিভাগের অফিস সহায়ক,গণপূর্তের হিসাব সহকারী ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক,দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের অফিস সহায়ক, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সাট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর, বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি রিমিডেডের সহকারী ব্যবস্থাপকসহ আরও বিভিন্ন চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় উল্লিখিত উপায়ে অপরাধ সংঘঠিত করেছে।’

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, ‘গ্রেপ্তার আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার জন্য প্রার্থীদের সঙ্গে চুক্তি করতো। চাকরি ভেদে এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষায় টিকিয়ে দিতে ৩ থেকে ৫ লাখ এবং লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষার জন্য ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিতো।’

ডিএমপির গোয়েন্দা প্রধান বলেন, ‘চক্রের মূল হোতা জুয়েল খান। সে ডিভাইস সংগ্রহ ও সরবরাহ, প্রশ্নপত্র সংগ্রহ, সমাধান টিমের সদস্য সংগ্রহ ও চক্রের অন্যদের সঙ্গে সমন্বয় করতো। রাসেল, মাহমুদুল হাসান শাকিল ও আব্দুর রহমান পরীক্ষার্থী সংগ্রহ এবং পরীক্ষার্থীদের কাছে ডিজিটাল ইলেকট্রনিক স্পাই ডিভাইস পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি ডিভাইসটি কীভাবে ব্যবহার করতে হবে তার বিস্তারিত ব্যবহার শিখিয়ে দিতো।

আরিফুল ইসলাম কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর সুবিধামতো সময়ে প্রশ্নপত্রের ছবি তুলে হোয়াট্সঅ্যাপে চক্রের অন্য সদস্যদের কাছে পৌঁছে দিতো। সমাধান টিম অতি দ্রুত সেই প্রশ্নের সমাধান করে নির্ধারিত পরীক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দিতো।’ তিনি বলেন, ‘১০ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ আসামিদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মামলা রয়েছে। চক্রের পলাতক সদস্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত।’

শরীয়তপুরে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণ চেষ্টাকালে একজন আটক

ছবি

মুক্তাগাছায় ইউপি চেয়ারম্যানকে হত্যা করে টাকা ছিনাতাইয়ের চেষ্টা, আটক ২, এলাকাবাসীর বিক্ষোভ

চুনারুঘাটে রঘুনন্দন পাহাড়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণের অভিযোগ

ছবি

মনোনয়ন পেতে চেয়েছিলেন মিন্টু, আক্তারুজ্জামান চোরাকারবারি সিন্ডিকেটের প্রধান : ডিবি

ছবি

আনার হত্যা মামলায় ৮ দিনের রিমান্ডে মিন্টু

বেনজীরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ পাওয়া গেছে: দুদকের আইনজীবী

ছবি

নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার চাইলেন ড. ইউনূস

ছবি

এমপি আজীম খুন : জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আটক

সোনারগাঁয়ে মাদকের টাকার দ্বন্দ্বে মাদক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

কলেজ ছাত্রীকে ব্ল্যাক মেইল,ধর্ষণ অভিযুক্ত গ্রেফতার,স্বীকারোক্তি

বেনজীরের সেই রিসোর্টের নিয়ন্ত্রণ নিল প্রশাসন

ছবি

এমপি আনার হত্যা : কলকাতায় সিয়াম ১৪ দিনের রিমান্ডে

নারায়ণগঞ্জে পুরোনো দ্বন্দ্বের জেরে যুবক খুন

ছবি

নেপালে আটক সিয়াম কলকাতা সিআইডির হেফাজতে

কালিয়াকৈরে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে

ছবি

মোটর সাইকেল বিক্রি নিয়ে স্কুল ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

আজ দুদকে যাচ্ছেন না বেনজীর, ১৫ দিনের সময় চেয়ে আবেদন

গঙ্গাচড়ায় স্বামী জবাই করে স্ত্রীকে হত্যা করেছে

ছবি

ফরিদপুরে সরকারি ঘর দেওয়ার কথা বলে ভিক্ষুকের টাকা মেরে দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান

ছবি

তারাগঞ্জে ভোটারদের টাকা দেয়ার ছবি তোলায় দুই সাংবাদিকের ওপর হামলা

ফরিদপুরে প্রেমিকাকে ধর্ষণ চেষ্টা, ৩ বখাটে আটক, থানায় মামলা

ছবি

এমপি আনার হত্যায় আটক তিনজনকে আরও ৫ দিনের রিমান্ডে

ছবি

নিয়োগে দুর্নীতি, ভিকারুননিসার সাবেক অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ছবি

শিবচরে সন্ত্রাসী হামলায় ইউপি চেয়ারম্যানসহ আহত ৩

ছবি

রিজেন্টের সাহেদসহ ৫ জনের বিচার শুরু

ফরিদপুরে হত্যার দায়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড কিশোরের

ছবি

পেনশন স্কিম ‘বাতিল’ দাবি, লাগাতার কর্মবিরতির হুশিয়ারি ঢাবির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের

রূপগঞ্জে শিশুকে অপহরণের পর হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড

ছবি

বেনজীর ও তার স্ত্রী, সন্তানদের দুদকে তলব

ছবি

সাভারে সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার সাংবাদিক

ছবি

আজীমকে দুই দিন জীবিত রেখে ব্ল্যাকমেইলের পরিকল্পনা ছিল খুনিদের : ডিবি

সোনারগাঁয়ে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেফতার

ছবি

এমপি আজিম খুনে কলকাতায় ‘কসাই’ জিহাদ রিমান্ডে, লাশের অংশের খোঁজে পুলিশ

ছবি

এমপি আজিম হত্যা: ভারতে গ্রেপ্তার সেই ‘কসাই’ দেড় বছর ধরে এলাকায় পলাতক

ছবি

আখতারুজ্জামান হোতা, শিমুল বাস্তবায়নকারী : ডিবি

ছবি

আখতারুজ্জামান হোতা, শিমুল বাস্তবায়নকারী : ডিবি

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

অভিযানে গ্রেপ্তার ৭----

ডিজিটাল ডিভাইসে জানানো হতো উত্তর,১০মিনিটে পরীক্ষা শেষ

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

রোববার, ১২ মে ২০২৪

চাকরির নিয়োগ পরীক্ষা শুরুর আগে কোনও না কোনও কেন্দ্রকে ম্যানেজ করতো একটি চক্র। ওই কেন্দ্র থেকে প্রশ্নের ফটোকপি হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো হতো চক্রের সদস্যদের কাছে। পাঁচ মিনিটের মধ্যে সেই প্রশ্নের সমধান করে ফেলতো প্রশ্ন সমাধান টিম।

এরপর তারা উত্তরগুলো পরীক্ষার্থীদের বলতে থাকতো। নারী পরীক্ষার্থীদের অন্তর্বাস এবং ছেলেদের গেঞ্জির মধ্যে লুকানো থাকতো ডিজিটাল ডিভাইস। একইসঙ্গে পরীক্ষার্থীর কানে রাখা হতো ক্ষুদ্রাকৃতির বল। পকেটের মধ্যে থাকতো একটা রাউটার। বাইরে থেকে যখনই টেলিফোন করতো সঙ্গে সঙ্গে পরীক্ষার্থী শুনতে পারতো এবং ১০ মিনিটের মধ্যে প্রশ্নের সমাধান করে পরীক্ষা শেষ করতো।

গতকাল রোববার রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিবি কার্যালয়ে সাংবাদিকের এ সব কথা বলেন ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার ও গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান হারুন অর রশীদ। এর আগে,ওই চক্রের ৭সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ডিবি। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলো মো. জুয়েল খান (৪০), মো. রাসেল (৩০), মো. মাহমুদুল হাসান শাকিল (৩৯), মো. আব্দুর রহমান (৩৮), মো. আরিফুল ইসলাম (৩৫), মো. আজহারুল ইসলাম (২৯) এবং মো. মাসুম হাওলাদার (২৫)। তাদের কাছ থেকে বিশেষভাবে প্রস্তুত করা ১০টি ডিজিটাল ইলেকট্রনিক স্পাই ডিভাইস, সাতটি মোবাইল ফোন, ১০টি সিম কার্ড এবং একটি পকেট রাউটার উদ্ধার করা হয়।

হারুন অর রশীদ জানান, বিভিন্ন চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস করে অত্যাধুনিক ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে প্রশ্নে উত্তর জানিয়ে দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতো চক্রটি।

ডিবির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আসামিদের হোয়াটসঅ্যাপ ও মেসেঞ্জারের বার্তা পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, চক্রের সদস্যরা প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ (তৃতীয় ধাপ), বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট কালেক্টর (গ্রেড ২) ও বুকিং অ্যাসিসটেন্ট (গ্রেড ২), পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের অফিস সহায়ক, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, টাঙ্গাইলের অফিস সহায়ক, মৎস বিভাগের অফিস সহায়ক,গণপূর্তের হিসাব সহকারী ও অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক,দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদফতরের অফিস সহায়ক, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সাট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর, বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি রিমিডেডের সহকারী ব্যবস্থাপকসহ আরও বিভিন্ন চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় উল্লিখিত উপায়ে অপরাধ সংঘঠিত করেছে।’

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, ‘গ্রেপ্তার আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার জন্য প্রার্থীদের সঙ্গে চুক্তি করতো। চাকরি ভেদে এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষায় টিকিয়ে দিতে ৩ থেকে ৫ লাখ এবং লিখিত ও ভাইভা পরীক্ষার জন্য ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিতো।’

ডিএমপির গোয়েন্দা প্রধান বলেন, ‘চক্রের মূল হোতা জুয়েল খান। সে ডিভাইস সংগ্রহ ও সরবরাহ, প্রশ্নপত্র সংগ্রহ, সমাধান টিমের সদস্য সংগ্রহ ও চক্রের অন্যদের সঙ্গে সমন্বয় করতো। রাসেল, মাহমুদুল হাসান শাকিল ও আব্দুর রহমান পরীক্ষার্থী সংগ্রহ এবং পরীক্ষার্থীদের কাছে ডিজিটাল ইলেকট্রনিক স্পাই ডিভাইস পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি ডিভাইসটি কীভাবে ব্যবহার করতে হবে তার বিস্তারিত ব্যবহার শিখিয়ে দিতো।

আরিফুল ইসলাম কেন্দ্রে পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর সুবিধামতো সময়ে প্রশ্নপত্রের ছবি তুলে হোয়াট্সঅ্যাপে চক্রের অন্য সদস্যদের কাছে পৌঁছে দিতো। সমাধান টিম অতি দ্রুত সেই প্রশ্নের সমাধান করে নির্ধারিত পরীক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দিতো।’ তিনি বলেন, ‘১০ দিনের রিমান্ড আবেদনসহ আসামিদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মামলা রয়েছে। চক্রের পলাতক সদস্যদের গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত।’

back to top