alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

মিতু হত্যা মামলা

কিলিং মিশনের প্রধান মুসা বাবুল আক্তারকে হত্যাকাণ্ড নিশ্চিত করে

নিরুপম দাশগুপ্ত, চট্টগ্রাম ব্যুরো : মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১
image

চট্টগ্রামে বহুল আলোচিত মিতু হত্যায় ‘কিলিং মিশনের প্রধান হিসেবে অভিযুক্ত’ ছিলেন কামরুল ইসলাম শিকদার মুসা। সিসিটিভি ফুটেজে তাকে স্পষ্ট দেখা গেলেও তাকে চেনেন না বলে জানিয়েছিলেন মিতুর স্বামী সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার। পাঁচ বছর পর একই ঘটনায় গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল স্বীকার করেছেন, সেই মুসা ছিলেন তার সোর্স। তবে হত্যাকাণ্ডের আগে-পরে মুসার সঙ্গে যোগাযোগের বিষয়টি জিজ্ঞাসাবাদে এড়িয়ে গেছেন। মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) হেফাজতে পাঁচদিন জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বিষয়ে তদন্ত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই, চট্টগ্রাম মহানগরের পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে অনেক প্রশ্নের উত্তরই এড়িয়ে গেছেন বাবুল আক্তার। তবে কয়েকটি প্রশ্নের সুনির্দিষ্ট উত্তর দিয়েছেন। মুসার বিষয়ে কোন তথ্য দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, মুসা উনার সোর্স ছিলেন বলে স্বীকার করেছেন।

হত্যাকাণ্ডের পরপরই ঘটনাস্থল থেকে সংগ্রহ করা ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার ফুটেজে একজনকে দেখা গিয়েছিল। পুলিশ তদন্ত করে তাকে কামরুল ইসলাম শিকদার মুসা হিসেবে শনাক্ত করে। এছাড়া তদন্তে বেরিয়ে এসেছিল, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা ইউনিটে কর্মরত থাকার সময় ওই মুসা সোর্স ছিলেন বাবুল আক্তারের কিন্তু সে সময় ঢাকায় গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও তিনি মুসাকে চেনেন না বলে জানিয়েছিলেন।

বাবুল আক্তারকে গ্রেপ্তারের দিন গত ১২ মে সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার অভিযোগ করেছিলেন, হত্যাকাণ্ডের পর জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল আক্তার তার সোর্স মুসাকে চেনেন না বলে জানিয়েছিলেন। এভাবে বাবুল আক্তার শুরু থেকে ঘটনার তদন্তকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেছিলেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

ঘটনাস্থলের কাছ থেকে সংগ্রহ করা সিসিটিভির ফুটেজে একজনকে দেখা গিয়েছিল, পরে জানা যায় সে বাবুল আক্তারের সোর্স কামরুল ইসলাম শিকদার মুসা। ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট মুসাকে চেনা গেছে কিন্তু তদন্তে ও জিজ্ঞাসাবাদে মুসাকে নিয়ে বাবুল আক্তার কোন সন্দেহের কথা বলেননি। পরে আমরা তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে নিশ্চিত হয়েছি যে বাবুল আক্তার ইচ্ছাকৃতভাবে তার ব্যক্তিগত সোর্স মুসাকে নিয়ে পুলিশকে কিছু জানায়নি।

এদিকে পিবিআইয়ের তদন্ত সংশ্লিষ্টদের কাছে তথ্য ছিল, হত্যাকাণ্ডের পর মুসাই প্রথম বাবুল আক্তারকে ফোন করে বিষয়টি নিশ্চিত করেছিলেন কিন্তু জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল আক্তার মুসার কাছ থেকে কোন ধরনের ফোন পাওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন বরং তিনি জানিয়েছেন, হত্যাকাণ্ডের পর তাকে প্রথম বাসার গৃহকর্মী ফোন করেছিলেন। তিনি ঘুমে থাকায় কল রিসিভ করতে পারেননি। এরপর ফোন করে ‘বাড়িওয়ালা’ বিষয়টি তাকে জানান।

বাবুল আক্তারের এই বক্তব্য পুরোপুরি বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়নি তদন্ত সংশ্লিষ্টদের কাছে। তারা বলেছেন, এ বিষয়ে আরও জিজ্ঞাসাবাদের প্রয়োজন আছে। পাঁচ বছর আগে হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই পলাতক আছেন কামরুল ইসলাম সিকদার মুসা। তবে তার স্ত্রী পান্না আক্তারের দাবি, মুসাকে ওই বছরের ২২ জুন প্রশাসনের লোকজন তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তার আর কোন খোঁজ মিলছে না।

এদিকে গতকাল বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের দেয়া পাঁচদিনের সময়সীমা শেষ হয়েছে। পিবিআই সূত্র জানিয়েছে, আদালতে হাজিরের পর তিনি যদি ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে সম্মত না হন, সেক্ষেত্রে তাকে আবারও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

ছবি

সিলেটে এক পরিবারের ৩ জনকে জবাই করে হত্যা

ছবি

রোগীদের বেড নিজের বাড়িতে নিয়ে যাবার সময় জনতার কাছে ধরা খেলেন চিকিৎসক

ছবি

নারায়ণগঞ্জে দু’দিনে ১৫ হাজার অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন

ছবি

প্রশাসনের উদাসীনতায় ভবেরচর বাজার, পুকুর ও ডোবার সরকারি ১৫০ শতাংশ গিলে খাচ্ছে!

ছবি

ভিজিডি কর্মসূচিতে অনিয়মের অভিযোগ

ছবি

ভাড়াটিয়ার বিরুদ্ধে মালিকের দোকান ভিটা দখলের অভিযোগ

পুলিশ অমির রিক্রুটিং এজেন্সি থেকে শতাধিক পাসপোর্ট উদ্বার করেছে, গ্রেপ্তার ২

ছবি

বিয়ানীবাজারে সাড়ে তিনকেজি গাঁজাসহ আটক ২

ছবি

সিলেটে ত্রিপল মার্ডার: দুই ক্লু নিয়ে কাজ করছে পুলিশ

ছবি

মাদ্রাসার ২০ কোটি টাকার সম্পদ আত্মসাৎ: মামুনুলসহ ৪৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ছবি

পরীমণিকে নির্যাতনের ঘটনায় অমির দুই সহযোগী গ্রেফতার

ছবি

সিলেটে বিয়ের বাজারের কথা বলে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ

ছবি

গজারিয়ায় বৈদ্যোরগাঁও দূষিত পানি দিয়ে চলছে সাপ্লাই প্রকল্প

ছবি

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার হাসাইল-বানারী ইউনিয়নের মূর্তিমান আতঙ্ক রাজন মেলকার

ছবি

ফেবুকে ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে গৃহবধুকে একাধিকবার ধর্ষণ

ছবি

প্লেন যাত্রীর পেট থেকে বের করা হলো ৫৮ পুটলি ইয়াবা

ছবি

মাদক মামলায় ব্যবসায়ী নাসির ও অমি ৭ দিনের রিমান্ডে

ছবি

পরীমনিকে ডিবি কার্যালয়ে তলব

ছবি

কে এই নাসির

ছবি

৮ জুলাই পরীমনির মামলার তদন্ত প্রতিবেদন

ছবি

নাশকতার মামলা: হেফাজত নেতা আজহারুল গ্রেপ্তার

ছবি

নাসির-অমিদের ১০ দিনের রিমান্ড চাইবে পুলিশ

বালিশকাণ্ডের সেই ঠিকাদারের অপকাণ্ড, কৃষকের জমিতে পুকুর খনন

ছবি

বোট ক্লাবের কমিটি থেকে নাসিরকে বহিষ্কার

ছবি

ঢাবি শিক্ষার্থী ধর্ষণ : সাবেক ভিপি নুরসহ ৪ জনকে অব্যাহতি

ছবি

পরীমনির দেয়া এজাহারের বর্ননা, পুলিশ অভিযানে নেমেছে

ছবি

পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টা : প্রধান আসামি নাসিরসহ গ্রেপ্তার ৫

ছবি

ব্যবসায়ী নাসিরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে পরীমনির মামলা

চট্টগ্রামে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, আইনজীবী কারাগারে

ছবি

৫০ কেজি গাঁজা সহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

ছবি

নকল রেভিনিউ স্ট্যাম্পসহ ২ প্রতারক আটক

ছবি

নারী মাদক বিক্রতাকে ধর্ষণচেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে কামড়ে জখম করলো সেবনকারী

ছবি

লাইকি-বিগো লাইভের মাধ্যমে মাসে পাচার শত কোটি টাকা: সিআইডি

ছবি

স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে ধর্ষণকারীর ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

ছবি

খালেদার জন্মদিন সম্পর্কে তথ্য জানাতে হাইকোর্টের নির্দেশ

ছবি

রাজধানীর আগারগাঁও থেকে নারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

মিতু হত্যা মামলা

কিলিং মিশনের প্রধান মুসা বাবুল আক্তারকে হত্যাকাণ্ড নিশ্চিত করে

নিরুপম দাশগুপ্ত, চট্টগ্রাম ব্যুরো
image

মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১

চট্টগ্রামে বহুল আলোচিত মিতু হত্যায় ‘কিলিং মিশনের প্রধান হিসেবে অভিযুক্ত’ ছিলেন কামরুল ইসলাম শিকদার মুসা। সিসিটিভি ফুটেজে তাকে স্পষ্ট দেখা গেলেও তাকে চেনেন না বলে জানিয়েছিলেন মিতুর স্বামী সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তার। পাঁচ বছর পর একই ঘটনায় গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল স্বীকার করেছেন, সেই মুসা ছিলেন তার সোর্স। তবে হত্যাকাণ্ডের আগে-পরে মুসার সঙ্গে যোগাযোগের বিষয়টি জিজ্ঞাসাবাদে এড়িয়ে গেছেন। মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) হেফাজতে পাঁচদিন জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের বিষয়ে তদন্ত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

জানতে চাইলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই, চট্টগ্রাম মহানগরের পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা বলেন, রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে অনেক প্রশ্নের উত্তরই এড়িয়ে গেছেন বাবুল আক্তার। তবে কয়েকটি প্রশ্নের সুনির্দিষ্ট উত্তর দিয়েছেন। মুসার বিষয়ে কোন তথ্য দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, মুসা উনার সোর্স ছিলেন বলে স্বীকার করেছেন।

হত্যাকাণ্ডের পরপরই ঘটনাস্থল থেকে সংগ্রহ করা ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার ফুটেজে একজনকে দেখা গিয়েছিল। পুলিশ তদন্ত করে তাকে কামরুল ইসলাম শিকদার মুসা হিসেবে শনাক্ত করে। এছাড়া তদন্তে বেরিয়ে এসেছিল, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা ইউনিটে কর্মরত থাকার সময় ওই মুসা সোর্স ছিলেন বাবুল আক্তারের কিন্তু সে সময় ঢাকায় গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও তিনি মুসাকে চেনেন না বলে জানিয়েছিলেন।

বাবুল আক্তারকে গ্রেপ্তারের দিন গত ১২ মে সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার অভিযোগ করেছিলেন, হত্যাকাণ্ডের পর জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল আক্তার তার সোর্স মুসাকে চেনেন না বলে জানিয়েছিলেন। এভাবে বাবুল আক্তার শুরু থেকে ঘটনার তদন্তকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেছিলেন বলে তিনি অভিযোগ করেন।

ঘটনাস্থলের কাছ থেকে সংগ্রহ করা সিসিটিভির ফুটেজে একজনকে দেখা গিয়েছিল, পরে জানা যায় সে বাবুল আক্তারের সোর্স কামরুল ইসলাম শিকদার মুসা। ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট মুসাকে চেনা গেছে কিন্তু তদন্তে ও জিজ্ঞাসাবাদে মুসাকে নিয়ে বাবুল আক্তার কোন সন্দেহের কথা বলেননি। পরে আমরা তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে নিশ্চিত হয়েছি যে বাবুল আক্তার ইচ্ছাকৃতভাবে তার ব্যক্তিগত সোর্স মুসাকে নিয়ে পুলিশকে কিছু জানায়নি।

এদিকে পিবিআইয়ের তদন্ত সংশ্লিষ্টদের কাছে তথ্য ছিল, হত্যাকাণ্ডের পর মুসাই প্রথম বাবুল আক্তারকে ফোন করে বিষয়টি নিশ্চিত করেছিলেন কিন্তু জিজ্ঞাসাবাদে বাবুল আক্তার মুসার কাছ থেকে কোন ধরনের ফোন পাওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন বরং তিনি জানিয়েছেন, হত্যাকাণ্ডের পর তাকে প্রথম বাসার গৃহকর্মী ফোন করেছিলেন। তিনি ঘুমে থাকায় কল রিসিভ করতে পারেননি। এরপর ফোন করে ‘বাড়িওয়ালা’ বিষয়টি তাকে জানান।

বাবুল আক্তারের এই বক্তব্য পুরোপুরি বিশ্বাসযোগ্য মনে হয়নি তদন্ত সংশ্লিষ্টদের কাছে। তারা বলেছেন, এ বিষয়ে আরও জিজ্ঞাসাবাদের প্রয়োজন আছে। পাঁচ বছর আগে হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই পলাতক আছেন কামরুল ইসলাম সিকদার মুসা। তবে তার স্ত্রী পান্না আক্তারের দাবি, মুসাকে ওই বছরের ২২ জুন প্রশাসনের লোকজন তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তার আর কোন খোঁজ মিলছে না।

এদিকে গতকাল বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের দেয়া পাঁচদিনের সময়সীমা শেষ হয়েছে। পিবিআই সূত্র জানিয়েছে, আদালতে হাজিরের পর তিনি যদি ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিতে সম্মত না হন, সেক্ষেত্রে তাকে আবারও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

back to top