alt

রাজনীতি

আইভী, নৌকা, তৈমুর এবং শামীম ওসমান

ফয়েজ আহমেদ তুষার : শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২

রোববার (১৬ জানুয়ারি) দিন শেষে জানা যাবে, কে হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নতুন মেয়র। এবার ভোটের লড়াইয়ে সাতজন থাকলেও নির্বাচনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তৈমুর-আইভী ছিলেন আলোচনায়। এদিকে প্রার্থী না হয়েও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

প্রচারণার শুরুর দিকে আইভী-তৈমুরের ভোটের সমীকরণ ছিল একরকম। তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এবং তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপির জাতীয় ও স্থানীয় রাজনীতির প্রভাবে পরিস্থিতি অনেকটাই বদলে গেছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর চেয়ে ব্যক্তি আইভী বেশি জনপ্রিয়, এমনটাই বলছেন সাধারণ মানুষ। অনেক ক্ষেত্রে ‘নৌকা’ প্রতীক তার জন্য প্রতিবন্ধক হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। তারা বলছেন, নগরজুড়ে স্থানীয় প্রভাবশালী এক জনপ্রতিনিধির কর্মী-সমর্থকদের জোর-জুলুমের কারণে এই এলাকায় ‘নৌকা’ অনেকটাই অজনপ্রিয় হয়ে উঠেছে; যার প্রভাব নাসিক ভোটেও পড়তে পারে।

আবার কিছু লোক বলছেন, আইভীর জন্য ‘নৌকা’ রাজনীতির চরম ও পরম প্রাপ্তি। তাদের মতে, ‘নৌকা’ প্রতীক না পেলে নারায়ণগঞ্জে আইভীর কর্মী-সমর্থক এবং অনুসারীদের অস্তিত্ব সংকটে পড়তে পারত।

স্থানীয় অনেকের মতে, নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভাজন দৃশ্যমান। শামীম ওসমান এবং আইভীর মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত দ্বন্দ্ব চলমান। যার প্রভাবে দুজনের কর্মী-সমর্থক এবং অনুসারীরাও বিভক্ত। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের একাধিক নেতা নানা প্রচেষ্টায় একটা ঐক্যমতের চেষ্টা করলেও, তা ভোটের ফলাফলে খুব একটা কাজ করবে না বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রভাবশালী নেতা তৈমুর আলম খন্দকার। যাকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির ‘ডিসিশন মেকার’ও বলা হয়। কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্য করে মেয়র প্রার্থী হয়ে হারিয়েছেন সব পদ-পদবি। দলের সমর্থন নেই, এমন অজুহাতে জেলা বিএনপির দাপুটে নেতারা তৈমুরের পাশে নেই। ‘ধানের শীষ’ না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রতীক ‘হাতি’ নিয়ে নির্বাচন করছেন। কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্যকারী তৈমুরকে ভোট দেয়া ঠিক হবে কি-না, এমন প্রশ্নে তৃণমূল বিএনপির কর্মী-সমর্থকরাও দ্বিধা-দ্বন্দ্বে আছেন।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) সরেজমিন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে কথা হয় স্থানীয় অনেকের সঙ্গে। সবার মুখে শুধু তৈমুর-আইভীর আলাপ। বাকি পাঁচ মেয়র প্রার্থীর মধ্যে হাতপাখা প্রতীকের প্রচারণা সাধারণ মানুষের নজরে পড়েছে। এই প্রতীকে মাঠে আছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মাওলানা মো. মাছুম বিল্লাহ। বাড়ি বাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার চর লহনীয়া গ্রামে। থাকেন নগরীর নবাব ছলিমুল্লাহ রোডে। ৩৯ বছর বয়সী, উচ্চ শিক্ষিত, পেশায় ব্যবসায়ী এই প্রার্থীর নামে কোন মামলা নেই। স্থানীয় অনেকের মতে, হাতপাখার কিছু রিজার্ভ ভোট আছে। ‘চরমোনাই’ পীরের মুরিদ যারা নাসিকে আছেন তাদের অধিকাংশ ভোট হাতাপাখায় পড়বে। অন্য চার প্রার্থী খেলাফত মজলিসের এবিএম সিরাজুল মামুন (দেয়ালঘড়ি), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মো. জসীম উদ্দিন (বটগাছ), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মো. রাশেদ ফেরদৌস (হাতঘড়ি) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলামের (ঘোড়া) প্রচারণা খুবই সীমিত।

এবিএম সিরাজুল মামুন নগরীর জামতলার বাসিন্দা। ইংরেজিতে এমএ করা এই প্রার্থী একটি প্রাইভেট কোচিং সেন্টারে শিক্ষকতা করেন। তার এক ছাত্র রহমান বললেন, স্যার তো চমৎকার ইংরেজি পড়াতেন। খুবই জনপ্রিয় টিচার। অনেক বছর যোগাযোগ নেই। হঠাৎ কি মনে করে মেয়র ভোটে দাঁড়ালেন, বুঝতে পারলাম না। শহরে তার কিছু পোস্টার চোখে পড়লেও ওয়ার্ড পর্যায়ে তেমন প্রচারণা নেই।

জসীম উদ্দিন একজন প্রকৌশলী। তার নামেও কোন মামলা নেই। স্থানীয়দের মতে, দলের (খেলাফত আন্দোলন) অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে তিনি মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন।

এদিকে পেশায় ব্যবসায়ী মাধ্যমিক পাস রাশেদ ফেরদৌদের বাড়ি সোনারাগাঁ উপজেলায়। থাকেন নগরীর আল্লামা ইকবাল রোডে। তার নামেও কোন মামলা নেই। কল্যাণ পার্টির কেন্দ্রীয় নির্দেশে ভোটে দাঁড়িয়েছেন।

নগরীর উকিলপাড়ার বাসিন্দা স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম প্রার্থী হয়েছেন অনেকটা শখের বশে। এমন তথ্য জানালেন চাষাড়া শহীদ মিনারে আড্ডারত স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষার্থী। স্বতন্ত্র এই প্রার্থী সম্পর্কে সজীব নামের একজন বললেন, মেয়র প্রার্থী হয়ে পোস্টার ছাপিয়ে নগরীতে একটা পরিচয় পেয়েছেন। এই যে সাংবাদিকরা তার তথ্য জানতে চাচ্ছেন। টিভিতে দেখাচ্ছে। বলতে পারেন ‘ফেইস ভ্যালু’ বাড়াতেই তার প্রার্থী হওয়া।

মেয়র কে হবেন? এমন প্রশ্নের জবাতে তিনি বলেন, ‘আইভী আওয়ামী লীগের একটি অংশের ভোট পাবেন না, এটা নিশ্চিত। তবে সাধারণ মানুষের একটা বিরাট অংশ তার পক্ষে। আমার মনে হয়, তৈমুর আলম স্থানীয় বিএনপির প্রথম সারির নেতাদের ভোট না পেলেও তৃণমূল নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ভোট পাবেন। বড় কথা হলো, অবাধ ও সুষ্ঠু ভোট হতে হবে। এরপর রেজাল্ট কি হয়... যেহেতু সব ভোট ইভিএমে, আশা করি বেশি সময় অপেক্ষায় থাকতে হবে না।’

ছবি

প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন

ছবি

সখীপুর জাতীয় পার্টির উপজেলা ও পৌর আহবায়ক কমিটি

ছাত্রদল সভাপতিসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা : গ্রেপ্তার ২

খালেদাকে ‘টুস’ করে ফেলে দিতে চাওয়ায় ছাত্রদলের প্রতিবাদ

নৌকার বিরুদ্ধে নির্বাচন , হবিগঞ্জে আওয়ামী লীগের ৪ নেতা অব্যাহতি

ছবি

কুমিল্লায় বিএনপির নেতা-কর্মীদের নিবার্চনী প্রচারণায় অংশ না নিতে নির্দেশ

ছবি

সরকার বিএনপিকে এবার টোপে ফেলতে পারবে না: মোশাররফ

আগামী নির্বাচনে আ’লী এককভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করছে : ফখরুল

ছবি

শেখ হাসিনার বক্তব্য নিয়ে বিএনপি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে: কাদের

মেয়র পদে ৬, কাউন্সিলরে ১৪৮ প্রার্থী বৈধ

ছবি

বিএনপি থেকে সাক্কুকে আজীবন বহিষ্কার

ছবি

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে যা বললেন মির্জা ফখরুল

ছবি

ফখরুলের প্রশ্ন : পদ্মা সেতু কি ওনাদের পৈতৃক সম্পত্তি দিয়ে বানানো হয়েছে

জামায়াত-শিবিরের ৪৯ নেতাকর্মী আটক

জাজিরার ৬ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে অর্ধশত, অন্য পদে ৩৬৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

ছবি

কুসিক নির্বাচন: মনোনয়নপত্র জমা দিলেন সাক্কু

ছবি

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

ছবি

কুসিক নির্বাচন: এমপি বাহারকে চিঠি দিচ্ছে ইসি

ছবি

কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে লড়াইয়ে দেবর-ভাবী

ছবি

মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন আজ, সাক্কুর বিদায়

আগামী নির্বাচন : বিএনপির অংশগ্রহণ নিশ্চিতে পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যবস্থা আ’লীগের

ছবি

নির্বাচন সংবিধানের নিয়ম মেনেই হবে : বাহাউদ্দিন নাছিম

আ’লীগে রিফাত, বিএনপিতে বিভ্রান্তি

ছবি

কুমিল্লা সিটি নির্বাচন: ভোটের ১ মাস আগেই মাঠে বিজিবি

‘আ’লীগের একতরফা নির্বাচন করার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে না’

ছবি

বিএনপির জাতীয় ঐক্যের ডাক নতুন তামাশা: কাদের

ছবি

বিএনপির মধ্যে ভাঙনের খবর কানে এসেছে : জয়নুল

ছবি

তিন উপজেলা ও পাঁচ পৌরসভায় আ.লীগের প্রার্থী মনোনয়ন

ছবি

শ্রীলঙ্কাকে পুঁজি করে একটি মহল গুজব ছড়াচ্ছে : কাদের

দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হওয়ায় দেশের এই অবস্থা : ফখরুল

ছবি

‘সত্য কথা’ বলায় কাদেরকে ধন্যবাদ ফখরুলের

ছবি

কুমিল্লা সিটিতে নৌকার প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত

ছবি

বাংলাদেশ কখনো শ্রীলঙ্কা-পাকিস্তান-আফগানিস্তান হবে না

ছবি

শ্রীলঙ্কার জাতীয় বীর, আজ জাতীয় ভিলেন : জাফরুল্লাহ

ছবি

সিলিং ফ্যান পড়ে মাথা ফাটল সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুরাদের

ছবি

দুদকে আলেমদের তালিকা দিয়ে গণকমিশন ধৃষ্টতা প্রদর্শন করেছে: হেফাজত আমির

tab

রাজনীতি

আইভী, নৌকা, তৈমুর এবং শামীম ওসমান

ফয়েজ আহমেদ তুষার

শনিবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২২

রোববার (১৬ জানুয়ারি) দিন শেষে জানা যাবে, কে হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নতুন মেয়র। এবার ভোটের লড়াইয়ে সাতজন থাকলেও নির্বাচনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তৈমুর-আইভী ছিলেন আলোচনায়। এদিকে প্রার্থী না হয়েও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

প্রচারণার শুরুর দিকে আইভী-তৈমুরের ভোটের সমীকরণ ছিল একরকম। তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এবং তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিএনপির জাতীয় ও স্থানীয় রাজনীতির প্রভাবে পরিস্থিতি অনেকটাই বদলে গেছে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর চেয়ে ব্যক্তি আইভী বেশি জনপ্রিয়, এমনটাই বলছেন সাধারণ মানুষ। অনেক ক্ষেত্রে ‘নৌকা’ প্রতীক তার জন্য প্রতিবন্ধক হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। তারা বলছেন, নগরজুড়ে স্থানীয় প্রভাবশালী এক জনপ্রতিনিধির কর্মী-সমর্থকদের জোর-জুলুমের কারণে এই এলাকায় ‘নৌকা’ অনেকটাই অজনপ্রিয় হয়ে উঠেছে; যার প্রভাব নাসিক ভোটেও পড়তে পারে।

আবার কিছু লোক বলছেন, আইভীর জন্য ‘নৌকা’ রাজনীতির চরম ও পরম প্রাপ্তি। তাদের মতে, ‘নৌকা’ প্রতীক না পেলে নারায়ণগঞ্জে আইভীর কর্মী-সমর্থক এবং অনুসারীদের অস্তিত্ব সংকটে পড়তে পারত।

স্থানীয় অনেকের মতে, নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভাজন দৃশ্যমান। শামীম ওসমান এবং আইভীর মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত দ্বন্দ্ব চলমান। যার প্রভাবে দুজনের কর্মী-সমর্থক এবং অনুসারীরাও বিভক্ত। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উচ্চ পর্যায়ের একাধিক নেতা নানা প্রচেষ্টায় একটা ঐক্যমতের চেষ্টা করলেও, তা ভোটের ফলাফলে খুব একটা কাজ করবে না বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রভাবশালী নেতা তৈমুর আলম খন্দকার। যাকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির ‘ডিসিশন মেকার’ও বলা হয়। কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্য করে মেয়র প্রার্থী হয়ে হারিয়েছেন সব পদ-পদবি। দলের সমর্থন নেই, এমন অজুহাতে জেলা বিএনপির দাপুটে নেতারা তৈমুরের পাশে নেই। ‘ধানের শীষ’ না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রতীক ‘হাতি’ নিয়ে নির্বাচন করছেন। কেন্দ্রীয় নির্দেশ অমান্যকারী তৈমুরকে ভোট দেয়া ঠিক হবে কি-না, এমন প্রশ্নে তৃণমূল বিএনপির কর্মী-সমর্থকরাও দ্বিধা-দ্বন্দ্বে আছেন।

শনিবার (১৫ জানুয়ারি) সরেজমিন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) বিভিন্ন ওয়ার্ডে ঘুরে কথা হয় স্থানীয় অনেকের সঙ্গে। সবার মুখে শুধু তৈমুর-আইভীর আলাপ। বাকি পাঁচ মেয়র প্রার্থীর মধ্যে হাতপাখা প্রতীকের প্রচারণা সাধারণ মানুষের নজরে পড়েছে। এই প্রতীকে মাঠে আছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মাওলানা মো. মাছুম বিল্লাহ। বাড়ি বাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার চর লহনীয়া গ্রামে। থাকেন নগরীর নবাব ছলিমুল্লাহ রোডে। ৩৯ বছর বয়সী, উচ্চ শিক্ষিত, পেশায় ব্যবসায়ী এই প্রার্থীর নামে কোন মামলা নেই। স্থানীয় অনেকের মতে, হাতপাখার কিছু রিজার্ভ ভোট আছে। ‘চরমোনাই’ পীরের মুরিদ যারা নাসিকে আছেন তাদের অধিকাংশ ভোট হাতাপাখায় পড়বে। অন্য চার প্রার্থী খেলাফত মজলিসের এবিএম সিরাজুল মামুন (দেয়ালঘড়ি), বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মো. জসীম উদ্দিন (বটগাছ), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মো. রাশেদ ফেরদৌস (হাতঘড়ি) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলামের (ঘোড়া) প্রচারণা খুবই সীমিত।

এবিএম সিরাজুল মামুন নগরীর জামতলার বাসিন্দা। ইংরেজিতে এমএ করা এই প্রার্থী একটি প্রাইভেট কোচিং সেন্টারে শিক্ষকতা করেন। তার এক ছাত্র রহমান বললেন, স্যার তো চমৎকার ইংরেজি পড়াতেন। খুবই জনপ্রিয় টিচার। অনেক বছর যোগাযোগ নেই। হঠাৎ কি মনে করে মেয়র ভোটে দাঁড়ালেন, বুঝতে পারলাম না। শহরে তার কিছু পোস্টার চোখে পড়লেও ওয়ার্ড পর্যায়ে তেমন প্রচারণা নেই।

জসীম উদ্দিন একজন প্রকৌশলী। তার নামেও কোন মামলা নেই। স্থানীয়দের মতে, দলের (খেলাফত আন্দোলন) অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে তিনি মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন।

এদিকে পেশায় ব্যবসায়ী মাধ্যমিক পাস রাশেদ ফেরদৌদের বাড়ি সোনারাগাঁ উপজেলায়। থাকেন নগরীর আল্লামা ইকবাল রোডে। তার নামেও কোন মামলা নেই। কল্যাণ পার্টির কেন্দ্রীয় নির্দেশে ভোটে দাঁড়িয়েছেন।

নগরীর উকিলপাড়ার বাসিন্দা স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম প্রার্থী হয়েছেন অনেকটা শখের বশে। এমন তথ্য জানালেন চাষাড়া শহীদ মিনারে আড্ডারত স্থানীয় কয়েকজন শিক্ষার্থী। স্বতন্ত্র এই প্রার্থী সম্পর্কে সজীব নামের একজন বললেন, মেয়র প্রার্থী হয়ে পোস্টার ছাপিয়ে নগরীতে একটা পরিচয় পেয়েছেন। এই যে সাংবাদিকরা তার তথ্য জানতে চাচ্ছেন। টিভিতে দেখাচ্ছে। বলতে পারেন ‘ফেইস ভ্যালু’ বাড়াতেই তার প্রার্থী হওয়া।

মেয়র কে হবেন? এমন প্রশ্নের জবাতে তিনি বলেন, ‘আইভী আওয়ামী লীগের একটি অংশের ভোট পাবেন না, এটা নিশ্চিত। তবে সাধারণ মানুষের একটা বিরাট অংশ তার পক্ষে। আমার মনে হয়, তৈমুর আলম স্থানীয় বিএনপির প্রথম সারির নেতাদের ভোট না পেলেও তৃণমূল নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ভোট পাবেন। বড় কথা হলো, অবাধ ও সুষ্ঠু ভোট হতে হবে। এরপর রেজাল্ট কি হয়... যেহেতু সব ভোট ইভিএমে, আশা করি বেশি সময় অপেক্ষায় থাকতে হবে না।’

back to top