alt

উপ-সম্পাদকীয়

কী হবে প্যালেস্টাইন এবং ইসরায়েলের?

রহমান মৃধা

: বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩

পৃথিবী জুড়ে যত মানুষ আছে সবাই কোনো না কোনো ধর্মে বিশ্বাসী। হযরত আদম (আ.) থেকে হযরত নুহ (আ.) অবধি যে সমস্ত ঘটনা ঘটেছে তার সত্যতা এবং পরবর্তীতে হযরত নুহ (আ.) থেকে হযরত ইব্রাহিম (আ.) অবধি যে ঘটনাগুলো ঘটছে তার সত্যতা যাচাই বাছাই করতে গেলে সময় শেষ হয়ে যাবে সঠিক কথ্য জানা যাবে না। তবে ইতিহাসবিদদের মতে, নবী হযরত নুহ (আ.)-এর সময়ে সংঘটিত মহাপ্লাবনের পর তার তিন পুত্র হাম, শাম, ইয়াফেসের মাধ্যমে পৃথিবীতে মানব সভ্যতার পুনর্জাগরণ ঘটে। আবার সেখানে মানব সভ্যতার সূচনা হয়। নুহ (আ.)-এর সময়ের মহাপ্লাবনের পর নুহ (আ.)-এর পুত্র শামের নামে গড়ে ওঠে শামদেশ ও সেমেটিক সভ্যতা।

শোনা এবং জানা যাবে হযরত ইব্রাহিম (আ.) থেকে শুরু করে হযরত ইসমাইল (আ.) এবং হযরত ইসহাক (আ.) অবদি ঘটনার তথ্য। জানা যাবে ইহুদি, খ্রিস্টান ও মুসলিম- এই তিন ধর্মের মানুষের কাছেই ফিলিস্তিন আবেগের জায়গা। ইব্রাহিমীয় তিন ধর্মেই জেরুজালেম নগরীর সমান আবেদন। সবাই একে পবিত্র নগরী ও পুণ্যভূমি বলে বিশ্বাস করে। এ মাটির সঙ্গে জড়িয়ে আছে প্রাচীন এ তিন ধর্মের বিশ্বাস, সংস্কৃতি ও ইতিহাস। এছাড়াও পৃথিবীতে তখন বিরাজমান আরো কিছু ধর্ম যার মধ্যে হিন্দু ধর্ম উল্লেখযোগ্য এবং পুরো মহাভারত যারা লিখেছে এবং যারা পড়েছে তারা জানে কী ঘটনা সেখানে বর্ণনা করা হয়েছে। বিশ্বাসে মেলায় বস্তু তর্কে বহুদূর।

প্রাচীন সেমেটিক সভ্যতার সেই শামদেশ বর্তমানে ভেঙে চারটি দেশ- সিরিয়া, জর্ডান, লেবানন, ফিলিস্তিন- ইসরায়েল এবং আরও চারটি দেশ- ইরাক, তুরস্ক, মিশর, সৌদি আরবের অংশ বিশেষ জুড়ে বিস্তৃত ও বিভক্ত। ইসলামে এই অখন্ড শামকে বলা হয়েছে ‘বরকতময় ভূমি’। কোরআনে বর্ণিত হয়েছে- ‘পবিত্র ও মহিমাময় তিনি, যিনি তার বান্দাকে রাতে ভ্রমণ করিয়েছেন মসজিদুল হারাম থেকে মসজিদুল আকসা পর্যন্ত। যার পরিপার্শ্বকে আমি করেছি বরকতময়, তাকে আমার নিদর্শন দেখানোর জন্য; তিনিই সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা।’ (সুরা বনি ইসরাইল, আয়াত : ১)।

ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, কিয়ামতের পর যখন হাশরের ময়দানে পৃথিবীর সব মানুষকে সমবেত করা হবে, তখন তার কেন্দ্রস্থল হবে এই শামভূমি। পৃথিবীর ইতিহাসের শুরু-শেষ এবং মহাপ্রলয় শেষে পুনরুত্থানের পরও বহু ঘটনার সাক্ষী এই শামভূমি। কেনানি জাতিগোষ্ঠীর দেশ এ জেরুজালেম নগরীতে খ্রিস্টপূর্ব ১৯০০ অব্দে ইরাক থেকে হিজরত করেন নবী ইব্রাহিম (আ.)। এখানেই জন্মগ্রহণ করেন ইব্রাহিম (আ.)-এর দুই স্ত্রীর গর্ভে দুই পুত্র ইসমাইল (আ.) ও ইসহাক (আ.)। দ্বিতীয় স্ত্রী হাজেরা ও প্রথম সন্তান ইসমাইল মক্কা নগরীতে হিজরত করেন এবং সেখানে তার বংশ থেকে দুই হাজার বছর পর জন্মগ্রহণ করেন শেষ নবী হযরত মুহম্মদ (সা.)। অন্যদিকে ফিলিস্তিনে ইব্রাহিম (আ.)-এর অন্য সন্তান ইসহাক (আ.)-এর ঔরস থেকে জন্মগ্রহণ করেন নবী ইয়াকুব (আ.)। হযরত ইব্রাহিম (আ.)-এর জীবদ্দশায়ই জন্মগ্রহণ করেন নাতি ইয়াকুব (আ.) এবং তারই প্রসিদ্ধ উপাধি হচ্ছে ‘ইসরায়েল’। হিব্রু ভাষার এ শব্দটির অর্থ ‘আল্লাহর বান্দা’। কথিত আছে ইসরায়েল তথা ইয়াকুব (আ.)-এর ছিল ১২ সন্তান। এই ১২ সন্তানকেই বলা হয় ‘বনি ইসরায়েল’ অর্থাৎ ‘ইসরায়েলের সন্তানরা’। ইসরায়েলের ১২ সন্তানের একজন হচ্ছেন নবী ইউসুফ (আ.) এবং আরেক সন্তানের নাম ইয়াহুদা, যার থেকে উদ্ভব হয়েছে ‘ইহুদি জাতি’। ইব্রাহিম থেকে শুরু করে পরবর্তী দুই হাজার বছরের ইতিহাসে সেখানে এ বংশে আরও অনেক নবীর জন্ম হয়। যেমন- হযরত মুসা, হারুন, দাউদ, সোলায়মান এবং সর্বশেষ ইসা (আ.)। বংশ পরম্পরায় এসব নবীর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইব্রাহিম (আ.) থেকে উৎসারিত তিন ধর্মের বিশ্বাস ও ইতিহাস।

ইসলামে আল-আকসা মসজিদ খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং কুরআনে মিরাজের ঘটনা উল্লেখ করার সময় এই স্থানের নাম নেয়া হয়েছে। ইহুদি ও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের কাছেও মসজিদুল আকসা আবেগের জায়গা। কারণ এ মসজিদ ঘিরে তিন ধর্মেরই রয়েছে প্রাচীন ইতিহাস, ঐতিহ্য ও শিকড়ের সম্পর্ক। মসজিদুল আকসা অসংখ্য নবী-রাসুলের স্মৃতিধন্য পুণ্যভূমি। এ মসজিদ ঘিরে আছে নবী দাউদ ও সোলায়মান (আ.)-এর রাজ্য শাসনের স্মৃতি, নবী ঈসা (আ.)-এর জন্মের স্মৃতি ও নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর ঐতিহাসিক মিরাজ ভ্রমণের স্মৃতি। এই জেরুজালেম নগরীতে আছে ইহুদিদের ধ্বংসপ্রাপ্ত টেম্পল, সেখানেই অবস্থিত খ্রিস্টানদের পবিত্র গির্জা হোলি সেপালকার ও তাদের পবিত্র ম্যারির কবর। এই আকসা ছিল মুসলমানদের প্রথম কিবলা। নবী দাউদ ও সোলায়মানকে (আ.) ইহুদিরা তাদের ধর্মীয় পুরোধা হিসেবে স্মরণ করে, নবী ঈসাকে (আ.) খ্রিস্টানরা তাদের ধর্মীয় পুরোধা হিসেবে স্মরণ করে। আর মুসলমানরা উপরোক্ত দুই ধর্মের নবীকেও বিশ্বাস করে এবং শেষ নবী হযরত মুহাম্মদকেও (সা.) বিশ্বাস করে। বলা যায়, পৃথিবীর বিশাল তিন ধর্মের জনগোষ্ঠীর স্রোতপ্রবাহ ফিলিস্তিনে এসে আছড়ে পড়েছে। তিন সমুদ্রের মোহনা এক জায়গায় আছড়ে পড়লে যেমন সমুদ্র বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে, তেমনি আবহমান কাল থেকেই এ পুণ্যভূমি ঘিরে চলছে ক্রমাগত যুদ্ধ, সংঘাত, রক্তপাত ও জুলুম-নির্যাতনের ধারাপাত।

তারপর ১৯১৭ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে তুর্কিস্তানকেন্দ্রিক উসমানি খেলাফতের পরাজয় হলে আল-আকসার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় ব্রিটিশদের হাতে। ব্রিটিশরা সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ফিলিস্তিনের একাংশে ইহুদিদের মালিকানা প্রদান করে এবং মসজিদুল আকসার দায়িত্ব হস্তান্তর করে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের মিত্র জর্ডানের শাসকের হাতে। তবে ১৯৬৭ সালে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর মসজিদুল আকসার নিরাপত্তার দায়িত্ব ভাগ করে নেয় ইসরায়েল সরকার এবং মসজিদ পরিচালনার ভার প্রদান করে যৌথভাবে ইসলামি ওয়াকফ ট্রাস্টের হাতে। ইসলামের পবিত্র এ ভূমিতে ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও নানা কারণে এক অনিঃশেষ যুদ্ধ পরিস্থিতি বিরাজমান।

১৮৯৭ সালে জায়োনিস্ট আন্দোলনের নেতা থিউডোর হার্জেল ইহুদিদের জন্য একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের দাবি উত্থাপন করেন এবং কল্পিত সেই রাষ্ট্রের নাম প্রস্তাব করা হয় ইসরায়েল। তারপর প্রথম বিশ্বযুদ্ধে উসমানি খেলাফতের পতন হলে উসমানি খেলাফতের মালিকানাধীন ফিলিস্তিন ভূখন্ডের দখল নেয় ব্রিটেন। ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আর্থার বেলফোর ১৯১৭ সালের ২ নভেম্বর ফিলিস্তিনে ইহুদিদের অভিবাসনের ঘোষণা দেন। বেলফোর ঘোষণার পর শুরু হয় পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান থেকে ইহুদিদের এনে ফিলিস্তিনে অভিবাসনের ধারাবাহিকতা। বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ইহুদিরা ফিলিস্তিনে দখলদার ব্রিটিশদের প্রত্যক্ষ মদদে জায়গা কিনে বসতি স্থাপন করতে থাকে। এ অবস্থায় রাশিয়া থেকে অভিবাসী হয়ে আসা ইহুদি নেতা ডেভিড বেন গুরিয়েন ১৯৪৮ সালের ১৪ মে ইসরায়েলের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং তিনি হন ইসরায়েলের প্রথম প্রধানমন্ত্রী। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে আরব জনগোষ্ঠী এবং পার্শ্ববর্তী পাঁচটি আরব রাষ্ট্র মিসর, ট্রান্স জর্ডান, লেবানন, সিরিয়া এবং ইরাক বাহিনী একযোগে ‘ইসরায়েল’ নামক নতুন ইহুদি রাষ্ট্রে আক্রমণ করে।

যুদ্ধে আরবরা পরাজিত হয় এবং সাড়ে সাত লাখ ফিলিস্তিনি নাগরিক ভিটেমাটি হারিয়ে শরণার্থী হয়ে পড়ে। উপরন্তু প্রস্তাবিত ফিলিস্তিন রাষ্ট্রেরও বড় অংশ দখল করে নেয় ইসরায়েল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটিশরা ফিলিস্তিন ত্যাগ করার সময় মুসলমানদের নিরঙ্কুশ মালিকানায় থাকা আল-আকসাসহ জেরুজালেমের অধিকার ফিলিস্তিন-ইসরায়েল কাউকেই না দিয়ে এর আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণের ঘোষণা দেয়। তবে এ ঘোষণার সময় জাতিসংঘের আইনে আল-আকসা ও জেরুজালেমের মালিকানা এককভাবে ফিলিস্তিনিদের হাতে না থাকলেও তার বাস্তব নিয়ন্ত্রণ এককভাবে মুসলমানদের হাতেই ছিল, পরে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধে পরাজয়ের মধ্য দিয়ে আল-আকসার নিয়ন্ত্রণ হারায় মুসলমানরা।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটিশরা প্যালেস্টাইন ত্যাগ করার সময় মুসলমানদের নিরঙ্কুশ মালিকানায় থাকা আল-আকসাসহ জেরুজালেমের অধিকার প্যালেস্টাইন-ইসরায়েল কাউকেই না দিয়ে এর আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণের ঘোষণা দেয়

পবিত্র জেরুজালেম নগরীকে কেন্দ্র করে মুসলমান-ইহুদি সংঘাতের জের ধরে ফিলিস্তিন দুই ভাগ হলেও ইসরায়েল স্বীকৃতি পেয়েছে, কিন্তু ফিলিস্তিন স্বীকৃতি পায়নি এখনো। ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী বিচ্ছিন্ন গাজা উপত্যকা ভিন্ন কারণে মুসলমানদের আবেগে মিশে আছে। নবী ইয়াকুব (আ.) এ অঞ্চলে বসতি স্থাপন করেন এবং সেখান থেকে মিসরের মন্ত্রীপুত্র ইউসুফ (আ.)-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। গাজা নগরীতে জন্মগ্রহণ করেন নবী সোলায়মান (আ.)। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্মের বহু আগে থেকেই মক্কার কুরাইশ সম্প্রদায় ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য দুটি বন্দর নগরীতে ভ্রমণ করত, যার বিবরণ রয়েছে পবিত্র কোরআনে।

আমরা ইহুদি, খ্রিস্টান এবং মুসলিমরা বলি আমাদের পিতা ইব্রাহিম (আ.)। হযরত ইব্রাহিম থেকে কথিত স্যাক্রিফাইস শব্দটি। কারণ তখন সেই থেকেই কিন্তু আমরা মুসলমানরা হজ এবং কুরবানি পালন করে চলছি, অথচ স্যাক্রিফাইস কী সেটাই সঠিকভাবে শিখতে পারিনি। যদি ছাড় দেয়া না শিখি বা ছাড় দিতে না পারি তবে মানুষ হয়ে জন্মেছি কেন?

কী হবে অভাগা হামাস, ফিলিস্তিন এবং ইসরায়েলের? কী হবে মানবসভ্যতার যদি আমরা সেই স্যাক্রিফাইস করতে না শিখি?

[লেখক : সাবেক পরিচালক, ফাইজার, সুইডেন]

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

কাঁঠাল হতে পারে রপ্তানি বাণিজ্যের নতুন দিগন্ত

ছবি

প্রাণের মেলা

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

সর্বস্তরে বাংলার ব্যবহার নিশ্চিত হোক

সাঁওতালী ভাষা বিতর্ক এবং উত্তরবঙ্গের আদিবাসী

ভাষা আন্দোলনের সূতিকাগার রাজধানীর আজিমপুর

ছবি

ভাষা আন্দোলন ও বাঙালির নবজাগরণ

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

মধুরতম ভাষা ও রক্তাক্ত বাংলা

উৎসব ও প্রথার বিবর্তন

চুরমার ফিলিস্তিন ও খাদ্য রাজনীতি

কুষ্ঠজনিত মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধে করণীয়

যুব ক্ষমতায়ন স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণকে ত্বরান্বিত করবে

লাইব্রেরির ভবিষ্যৎ ও ভবিষ্যতের লাইব্রেরি

একজীবনে অনেক বছর বেঁচে থেকেও নিজেকে চেনা হয়ে ওঠে না

“ছুরি-কাঁটা ও নব্যধনী”

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে সন্দেশখালি লাইন

শিশুরও হতে পারে ক্যান্সার, প্রতিরোধে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ

চিকিৎসা নিতে কেন ভারতে গিয়েছিলাম

ইসরায়েলের গণহত্যা, দক্ষিণ আফ্রিকার মামলা

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

ছবি

সুন্দরবন কি আরেকটু বেশি মনোযোগ পেতে পারে না

নিজেকে বরং নিজেই প্রশ্ন করতে শিখুন

গড়ে উঠুক সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

ছবি

বিদ্যা দেবী মা সরস্বতী

বিশ্ব বেতার দিবস ও বাংলাদেশ বেতার

কৃষিবিদ দিবস

ছয় বছরের অর্জন ও প্রত্যাশা

জলবায়ু সম্মেলন এবং নয়া উদারবাদী কর্তৃত্ব

জিআই সনদের সন্ধানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নির্বাচন ও সামাজিক অস্থিরতা

ছবি

খাদ্যে আমদানিনির্ভরতা থেকে বেরোনোর পথ কী

ছবি

ট্রাম্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছেন, তবে পথ মসৃণ নয়

দুর্নীতিবাজদের খতম করা যাবে কি?

মূল্যস্ফীতি কমবে কীভাবে

tab

উপ-সম্পাদকীয়

কী হবে প্যালেস্টাইন এবং ইসরায়েলের?

রহমান মৃধা

বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০২৩

পৃথিবী জুড়ে যত মানুষ আছে সবাই কোনো না কোনো ধর্মে বিশ্বাসী। হযরত আদম (আ.) থেকে হযরত নুহ (আ.) অবধি যে সমস্ত ঘটনা ঘটেছে তার সত্যতা এবং পরবর্তীতে হযরত নুহ (আ.) থেকে হযরত ইব্রাহিম (আ.) অবধি যে ঘটনাগুলো ঘটছে তার সত্যতা যাচাই বাছাই করতে গেলে সময় শেষ হয়ে যাবে সঠিক কথ্য জানা যাবে না। তবে ইতিহাসবিদদের মতে, নবী হযরত নুহ (আ.)-এর সময়ে সংঘটিত মহাপ্লাবনের পর তার তিন পুত্র হাম, শাম, ইয়াফেসের মাধ্যমে পৃথিবীতে মানব সভ্যতার পুনর্জাগরণ ঘটে। আবার সেখানে মানব সভ্যতার সূচনা হয়। নুহ (আ.)-এর সময়ের মহাপ্লাবনের পর নুহ (আ.)-এর পুত্র শামের নামে গড়ে ওঠে শামদেশ ও সেমেটিক সভ্যতা।

শোনা এবং জানা যাবে হযরত ইব্রাহিম (আ.) থেকে শুরু করে হযরত ইসমাইল (আ.) এবং হযরত ইসহাক (আ.) অবদি ঘটনার তথ্য। জানা যাবে ইহুদি, খ্রিস্টান ও মুসলিম- এই তিন ধর্মের মানুষের কাছেই ফিলিস্তিন আবেগের জায়গা। ইব্রাহিমীয় তিন ধর্মেই জেরুজালেম নগরীর সমান আবেদন। সবাই একে পবিত্র নগরী ও পুণ্যভূমি বলে বিশ্বাস করে। এ মাটির সঙ্গে জড়িয়ে আছে প্রাচীন এ তিন ধর্মের বিশ্বাস, সংস্কৃতি ও ইতিহাস। এছাড়াও পৃথিবীতে তখন বিরাজমান আরো কিছু ধর্ম যার মধ্যে হিন্দু ধর্ম উল্লেখযোগ্য এবং পুরো মহাভারত যারা লিখেছে এবং যারা পড়েছে তারা জানে কী ঘটনা সেখানে বর্ণনা করা হয়েছে। বিশ্বাসে মেলায় বস্তু তর্কে বহুদূর।

প্রাচীন সেমেটিক সভ্যতার সেই শামদেশ বর্তমানে ভেঙে চারটি দেশ- সিরিয়া, জর্ডান, লেবানন, ফিলিস্তিন- ইসরায়েল এবং আরও চারটি দেশ- ইরাক, তুরস্ক, মিশর, সৌদি আরবের অংশ বিশেষ জুড়ে বিস্তৃত ও বিভক্ত। ইসলামে এই অখন্ড শামকে বলা হয়েছে ‘বরকতময় ভূমি’। কোরআনে বর্ণিত হয়েছে- ‘পবিত্র ও মহিমাময় তিনি, যিনি তার বান্দাকে রাতে ভ্রমণ করিয়েছেন মসজিদুল হারাম থেকে মসজিদুল আকসা পর্যন্ত। যার পরিপার্শ্বকে আমি করেছি বরকতময়, তাকে আমার নিদর্শন দেখানোর জন্য; তিনিই সর্বশ্রোতা, সর্বদ্রষ্টা।’ (সুরা বনি ইসরাইল, আয়াত : ১)।

ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী, কিয়ামতের পর যখন হাশরের ময়দানে পৃথিবীর সব মানুষকে সমবেত করা হবে, তখন তার কেন্দ্রস্থল হবে এই শামভূমি। পৃথিবীর ইতিহাসের শুরু-শেষ এবং মহাপ্রলয় শেষে পুনরুত্থানের পরও বহু ঘটনার সাক্ষী এই শামভূমি। কেনানি জাতিগোষ্ঠীর দেশ এ জেরুজালেম নগরীতে খ্রিস্টপূর্ব ১৯০০ অব্দে ইরাক থেকে হিজরত করেন নবী ইব্রাহিম (আ.)। এখানেই জন্মগ্রহণ করেন ইব্রাহিম (আ.)-এর দুই স্ত্রীর গর্ভে দুই পুত্র ইসমাইল (আ.) ও ইসহাক (আ.)। দ্বিতীয় স্ত্রী হাজেরা ও প্রথম সন্তান ইসমাইল মক্কা নগরীতে হিজরত করেন এবং সেখানে তার বংশ থেকে দুই হাজার বছর পর জন্মগ্রহণ করেন শেষ নবী হযরত মুহম্মদ (সা.)। অন্যদিকে ফিলিস্তিনে ইব্রাহিম (আ.)-এর অন্য সন্তান ইসহাক (আ.)-এর ঔরস থেকে জন্মগ্রহণ করেন নবী ইয়াকুব (আ.)। হযরত ইব্রাহিম (আ.)-এর জীবদ্দশায়ই জন্মগ্রহণ করেন নাতি ইয়াকুব (আ.) এবং তারই প্রসিদ্ধ উপাধি হচ্ছে ‘ইসরায়েল’। হিব্রু ভাষার এ শব্দটির অর্থ ‘আল্লাহর বান্দা’। কথিত আছে ইসরায়েল তথা ইয়াকুব (আ.)-এর ছিল ১২ সন্তান। এই ১২ সন্তানকেই বলা হয় ‘বনি ইসরায়েল’ অর্থাৎ ‘ইসরায়েলের সন্তানরা’। ইসরায়েলের ১২ সন্তানের একজন হচ্ছেন নবী ইউসুফ (আ.) এবং আরেক সন্তানের নাম ইয়াহুদা, যার থেকে উদ্ভব হয়েছে ‘ইহুদি জাতি’। ইব্রাহিম থেকে শুরু করে পরবর্তী দুই হাজার বছরের ইতিহাসে সেখানে এ বংশে আরও অনেক নবীর জন্ম হয়। যেমন- হযরত মুসা, হারুন, দাউদ, সোলায়মান এবং সর্বশেষ ইসা (আ.)। বংশ পরম্পরায় এসব নবীর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইব্রাহিম (আ.) থেকে উৎসারিত তিন ধর্মের বিশ্বাস ও ইতিহাস।

ইসলামে আল-আকসা মসজিদ খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং কুরআনে মিরাজের ঘটনা উল্লেখ করার সময় এই স্থানের নাম নেয়া হয়েছে। ইহুদি ও খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের কাছেও মসজিদুল আকসা আবেগের জায়গা। কারণ এ মসজিদ ঘিরে তিন ধর্মেরই রয়েছে প্রাচীন ইতিহাস, ঐতিহ্য ও শিকড়ের সম্পর্ক। মসজিদুল আকসা অসংখ্য নবী-রাসুলের স্মৃতিধন্য পুণ্যভূমি। এ মসজিদ ঘিরে আছে নবী দাউদ ও সোলায়মান (আ.)-এর রাজ্য শাসনের স্মৃতি, নবী ঈসা (আ.)-এর জন্মের স্মৃতি ও নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর ঐতিহাসিক মিরাজ ভ্রমণের স্মৃতি। এই জেরুজালেম নগরীতে আছে ইহুদিদের ধ্বংসপ্রাপ্ত টেম্পল, সেখানেই অবস্থিত খ্রিস্টানদের পবিত্র গির্জা হোলি সেপালকার ও তাদের পবিত্র ম্যারির কবর। এই আকসা ছিল মুসলমানদের প্রথম কিবলা। নবী দাউদ ও সোলায়মানকে (আ.) ইহুদিরা তাদের ধর্মীয় পুরোধা হিসেবে স্মরণ করে, নবী ঈসাকে (আ.) খ্রিস্টানরা তাদের ধর্মীয় পুরোধা হিসেবে স্মরণ করে। আর মুসলমানরা উপরোক্ত দুই ধর্মের নবীকেও বিশ্বাস করে এবং শেষ নবী হযরত মুহাম্মদকেও (সা.) বিশ্বাস করে। বলা যায়, পৃথিবীর বিশাল তিন ধর্মের জনগোষ্ঠীর স্রোতপ্রবাহ ফিলিস্তিনে এসে আছড়ে পড়েছে। তিন সমুদ্রের মোহনা এক জায়গায় আছড়ে পড়লে যেমন সমুদ্র বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে, তেমনি আবহমান কাল থেকেই এ পুণ্যভূমি ঘিরে চলছে ক্রমাগত যুদ্ধ, সংঘাত, রক্তপাত ও জুলুম-নির্যাতনের ধারাপাত।

তারপর ১৯১৭ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে তুর্কিস্তানকেন্দ্রিক উসমানি খেলাফতের পরাজয় হলে আল-আকসার নিয়ন্ত্রণ চলে যায় ব্রিটিশদের হাতে। ব্রিটিশরা সম্পূর্ণ অবৈধভাবে ফিলিস্তিনের একাংশে ইহুদিদের মালিকানা প্রদান করে এবং মসজিদুল আকসার দায়িত্ব হস্তান্তর করে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের মিত্র জর্ডানের শাসকের হাতে। তবে ১৯৬৭ সালে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধের পর মসজিদুল আকসার নিরাপত্তার দায়িত্ব ভাগ করে নেয় ইসরায়েল সরকার এবং মসজিদ পরিচালনার ভার প্রদান করে যৌথভাবে ইসলামি ওয়াকফ ট্রাস্টের হাতে। ইসলামের পবিত্র এ ভূমিতে ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও নানা কারণে এক অনিঃশেষ যুদ্ধ পরিস্থিতি বিরাজমান।

১৮৯৭ সালে জায়োনিস্ট আন্দোলনের নেতা থিউডোর হার্জেল ইহুদিদের জন্য একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের দাবি উত্থাপন করেন এবং কল্পিত সেই রাষ্ট্রের নাম প্রস্তাব করা হয় ইসরায়েল। তারপর প্রথম বিশ্বযুদ্ধে উসমানি খেলাফতের পতন হলে উসমানি খেলাফতের মালিকানাধীন ফিলিস্তিন ভূখন্ডের দখল নেয় ব্রিটেন। ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আর্থার বেলফোর ১৯১৭ সালের ২ নভেম্বর ফিলিস্তিনে ইহুদিদের অভিবাসনের ঘোষণা দেন। বেলফোর ঘোষণার পর শুরু হয় পৃথিবীর বিভিন্ন স্থান থেকে ইহুদিদের এনে ফিলিস্তিনে অভিবাসনের ধারাবাহিকতা। বিভিন্ন দেশ থেকে আসা ইহুদিরা ফিলিস্তিনে দখলদার ব্রিটিশদের প্রত্যক্ষ মদদে জায়গা কিনে বসতি স্থাপন করতে থাকে। এ অবস্থায় রাশিয়া থেকে অভিবাসী হয়ে আসা ইহুদি নেতা ডেভিড বেন গুরিয়েন ১৯৪৮ সালের ১৪ মে ইসরায়েলের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন এবং তিনি হন ইসরায়েলের প্রথম প্রধানমন্ত্রী। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে আরব জনগোষ্ঠী এবং পার্শ্ববর্তী পাঁচটি আরব রাষ্ট্র মিসর, ট্রান্স জর্ডান, লেবানন, সিরিয়া এবং ইরাক বাহিনী একযোগে ‘ইসরায়েল’ নামক নতুন ইহুদি রাষ্ট্রে আক্রমণ করে।

যুদ্ধে আরবরা পরাজিত হয় এবং সাড়ে সাত লাখ ফিলিস্তিনি নাগরিক ভিটেমাটি হারিয়ে শরণার্থী হয়ে পড়ে। উপরন্তু প্রস্তাবিত ফিলিস্তিন রাষ্ট্রেরও বড় অংশ দখল করে নেয় ইসরায়েল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটিশরা ফিলিস্তিন ত্যাগ করার সময় মুসলমানদের নিরঙ্কুশ মালিকানায় থাকা আল-আকসাসহ জেরুজালেমের অধিকার ফিলিস্তিন-ইসরায়েল কাউকেই না দিয়ে এর আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণের ঘোষণা দেয়। তবে এ ঘোষণার সময় জাতিসংঘের আইনে আল-আকসা ও জেরুজালেমের মালিকানা এককভাবে ফিলিস্তিনিদের হাতে না থাকলেও তার বাস্তব নিয়ন্ত্রণ এককভাবে মুসলমানদের হাতেই ছিল, পরে আরব-ইসরায়েল যুদ্ধে পরাজয়ের মধ্য দিয়ে আল-আকসার নিয়ন্ত্রণ হারায় মুসলমানরা।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ব্রিটিশরা প্যালেস্টাইন ত্যাগ করার সময় মুসলমানদের নিরঙ্কুশ মালিকানায় থাকা আল-আকসাসহ জেরুজালেমের অধিকার প্যালেস্টাইন-ইসরায়েল কাউকেই না দিয়ে এর আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রণের ঘোষণা দেয়

পবিত্র জেরুজালেম নগরীকে কেন্দ্র করে মুসলমান-ইহুদি সংঘাতের জের ধরে ফিলিস্তিন দুই ভাগ হলেও ইসরায়েল স্বীকৃতি পেয়েছে, কিন্তু ফিলিস্তিন স্বীকৃতি পায়নি এখনো। ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী বিচ্ছিন্ন গাজা উপত্যকা ভিন্ন কারণে মুসলমানদের আবেগে মিশে আছে। নবী ইয়াকুব (আ.) এ অঞ্চলে বসতি স্থাপন করেন এবং সেখান থেকে মিসরের মন্ত্রীপুত্র ইউসুফ (আ.)-এর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। গাজা নগরীতে জন্মগ্রহণ করেন নবী সোলায়মান (আ.)। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্মের বহু আগে থেকেই মক্কার কুরাইশ সম্প্রদায় ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য দুটি বন্দর নগরীতে ভ্রমণ করত, যার বিবরণ রয়েছে পবিত্র কোরআনে।

আমরা ইহুদি, খ্রিস্টান এবং মুসলিমরা বলি আমাদের পিতা ইব্রাহিম (আ.)। হযরত ইব্রাহিম থেকে কথিত স্যাক্রিফাইস শব্দটি। কারণ তখন সেই থেকেই কিন্তু আমরা মুসলমানরা হজ এবং কুরবানি পালন করে চলছি, অথচ স্যাক্রিফাইস কী সেটাই সঠিকভাবে শিখতে পারিনি। যদি ছাড় দেয়া না শিখি বা ছাড় দিতে না পারি তবে মানুষ হয়ে জন্মেছি কেন?

কী হবে অভাগা হামাস, ফিলিস্তিন এবং ইসরায়েলের? কী হবে মানবসভ্যতার যদি আমরা সেই স্যাক্রিফাইস করতে না শিখি?

[লেখক : সাবেক পরিচালক, ফাইজার, সুইডেন]

back to top