alt

উপ-সম্পাদকীয়

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

রহমান মৃধা

: বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গণতন্ত্রের ভাঙন শুরু হতে চলেছে পশ্চিমা দেশগুলোতে। পশ্চিমের বাইরের অনেক দেশ গণতন্ত্রের স্বাদ পেতে অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে বিলীন করতে ডিজিটাল পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে আবেগ ভরা মতামত পোষণ করে চলেছে।

সত্যি হলেও দুঃখের বিষয় যে ডিজিটাল ভালোবাসা যেমন আবেগ এবং বিবেক ছাড়া অকেজো ঠিক গণতন্ত্রের চর্চাও আবেগ এবং বিবেক ছাড়া মূল্যহীন। তবে সুইডেনে ডিজিটাল পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে এরা ডিজিটাল ইনডেক্স ফোরামের মাধ্যমে পুরো তরুণ প্রজন্মের গণতন্ত্র এবং রাজনীতিবিদদের ওপর গভীর হতাশার বাণী প্রকাশ করেছে। নতুন প্রজন্ম বর্তমান প্রেক্ষাপটের চরম অবনতির জন্য বরং গণতন্ত্র এবং রাজনীতিকে দায়ী করেছে। প্রতিবেদনটি গতকাল গণমাধ্যমসহ দেশের টিভি চ্যানেলের খবরে প্রকাশিত হয়েছে। ঠিক একই খবরে একটি গ্রেনেড-বোমা সুইডেনের উপশালা শহরের গ্রেনবি নামের একটি গ্রামে গতকাল কে বা কারা সেট করে রেখে সম্ভবত পুলিশকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে। এটা টেরোর অ্যাটাক ঘটানোর চেষ্টা কিনা জানিনা তবে পুরো গ্রামসহ সারাদেশে ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়েছে। পবিত্র কোরআন পোড়ানো, তুর্কি প্রেসিডেন্টের স্টাচু উপর-নিচু করে ঝোলানো, গণহত্যা , ডাকাতি, গোলাগুলিসহ ভাঙচুর ইদানীং গণতন্ত্রকে আতঙ্কের মধ্যে ফেলেছে। রাজনীতিবিদদের দক্ষতা প্রশ্নের মুখোমুখি, ন্যাটোজোটে সুইডেনের পদার্পণসহ রাশিয়ার হুমকি সুইডেনকে নিয়ে যা তরুণ প্রজন্মকে বেশ উদ্বিগ্নে ফেলেছে। তারপর বেকার সমস্যা এবং সুদের হার বৃদ্ধি সুইডিশ জাতিকে ভাবিয়ে তুলেছে, সব মিলে তরুণ প্রজন্মের রাজনীতিবিদ ও গণতন্ত্রের প্রতি এই অনীহা প্রকাশ।

কয়েকদিন আগে সকালে আমার মেয়ের সঙ্গে একটি কাজে শহরে যেতে ট্রেন স্টেশন এসে দেখি যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে সিডিউল অনুযায়ী যে ট্রেনটি যাওয়ার কথা সেটা ক্যান্সেল করেছে, পরের ট্রেন বিশ মিনিট পরে আসবে। এর ফলে আমাদের মিটিংয়ের যে সময়টি ধার্য করা রয়েছে সেটা সময়মতো ধরতে পারব না, কী করা? জেসিকা দেরি না করে সঙ্গে সঙ্গে ট্যাক্সি কল করলে ট্যাক্সি এসে গেল।

সুইডেনে ইদানীং কয়েক বছর ধরে ট্রেন সিস্টেম সঠিকভাবে সার্ভিস দিতে পারছে না নানা কারণে, প্রচ- শীত বা গরম অথবা যান্ত্রিক সমস্যা যার ফলে যাত্রীরা এটার জন্য বড্ড বিরক্তি পোষণ করে চলেছে দীর্ঘদিন ধরে। এখানে নিয়ম রয়েছে যদি বিশ মিনিটের বেশি যানবাহন লেট করে তবে ট্যাক্সি ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে ঝামেলাও আছে, যেমন কোন ট্রেনে, কখন, কীভাবে এবং কোথায় যাত্রী যাবেসহ নানা ধরনের ফরমাল রুটিন এবং ক্রাইটেরিয়া যদি শতভাগ ফুলফিল দেখানো যায় তবে এ ধরনের সুযোগ ব্যবহার করা যেতে পারে। ঝামেলার কারণে অনেকে এসব এড়িয়ে যেতে চেষ্টা করে।

যাইহোক পথে যেতে বর্তমান সময়ের ওপর জেসিকার সঙ্গে একটু কথা বললাম তার মতামতটি জানতে। মেয়ে আমার মতো বেশি কথা বলে না তবুও জানতে চাইলাম তার মতামত সম্পর্কে। সে শুধু বলল, বাবা চারদিকে যুদ্ধ, তারপর গোটা বিশ্বজুড়ে মানুষে মানুষে ঝগড়া, গণমাধ্যম সব সময় তুলে ধরে বিশ্বের নানা সমস্যা, এসব ঘটনার সঙ্গে নতুন প্রজন্ম জড়িত না অথচ তাদের নজরে এসব ফেলতে গণমাধ্যম তৎপর। কারণ তারা জানে নতুন প্রজন্ম বেশির ভাগ সময় টেলিফোন, টেলিভিশন, বা গণমাধ্যমে বেশি সময় দেয়, যার ফলে যে কোনোভাবে তাদের চেষ্টা প্রভাবটা যেনো তরুণ সমাজে পড়ে এবং এতে করে এই তরুণ সমাজটা দিনে দিনে হতাশায় ভুগছে। ফলস্বরূপ নতুন প্রজন্ম বড়দের তথা সমাজের দায়িত্বশীলদের প্রতি বিশ্বস্ততা হারাচ্ছে সঙ্গে গণতন্ত্রকে প্রশ্নের সম্মুখীন করছে। মেয়ের কথাগুলো মনে ধরল, তাই ট্রেনে ফিরতে পথে ভাবলাম বসেই তো আছি কথাগুলো লিখে ফেলি। বলা তো যায় না কখন কী হয়!

সবকিছুর পরও কেন যেন মনে হচ্ছে গণতন্ত্রের বিদায়ের সময় খুব কাছে, কারণ ক্যাপিটালিজম নতুন প্রজন্মের মনের দরজায় নক করতে শুরু করেছে। জানি না কী অবস্থা বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের? তারাও কি এদের মতো ভাবছে, খুব জানতে ইচ্ছে করল, ঠিক তখনই যোগাযোগ করলাম একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়–য়া এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে। তার মতে গণতন্ত্র এবং বর্তমান বাংলাদেশ অনেকটা ফাঁপা কলসির মতো। প্রথম কথা, আমি নিজেই বাংলাদেশের মতো একটি দেশে গণতন্ত্রে বিশ্বাসী না। কারণ নিজের দেশের মানুষকে মূর্খ বলে গালি দিয়ে নিজেকে মূর্খ প্রমাণ করতে চাই না। তবে, ধরেন কোনো একটা সিদ্ধান্ত নিতে ১০০ জন লোককে ভোট প্রয়োগ করতে বলা হলো। এর মাঝে যদি অধিকাংশ ব্যক্তি বিষয়টি সম্পর্কে জ্ঞান রাখেন তাহলে সিদ্ধান্ত যা আসবে সেটা যে সঠিক আসবে সে সম্পর্কে আমরা আত্মবিশ্বাসী হতে পারি। অপরপক্ষে, অধিকাংশই যদি জ্ঞান না রাখে বিষয়টায় তাহলে অধিকাংশের মতামত অনুসরণ করলে ভুল সিদ্ধান্তও আসতে পারে। তাই কোথায় গণতন্ত্র প্রয়োগ করতে হবে সেটাও ভাবতে হবে। আমাদের সমাজে যেখানে নৈতিক মূল্যবোধ, নৈতিক শিক্ষা এমনকি পারিবারিক শিক্ষা পর্যন্তও গায়েব হতে চলেছে, সেখানে গণতন্ত্রের ফলাফল কী রকম আসবে? এজন্য আমি গণতন্ত্রে বিশ্বাসী না। আমরা হোস্টেলে এক রুমে চারজন থাকি, আমি পড়াশোনা করছি, আমার পরীক্ষা খারাপ হলে আমার লেখাপড়া বন্ধ হতে পারে, স্কলারশিপ চলে যেতে পারে। আমার রুমের অন্য তিনজন গণতান্ত্রিক উপায়ে সিদ্ধান্ত নিল আজ তারা গান শুনবে, নাচবে, আড্ডা দেবে। আমি কিছু বলতে পারব না কারণ হতে পারে আমি রুমের সবথেকে ছোট বা বাকি সব একজোট। তারা জিতল তবে এটা কি অ্যারিস্টটলের মতামতের মতো মূর্খের এবং অযোগ্যের শাসনব্যবস্থা নয়?

আমরা মানুষ, আমরা সৃষ্টির সেরা জীব। আমরা সমস্যায় পড়ি এবং সমাধান করি। আমরা যদি সঠিক শিক্ষা, সঠিক জ্ঞান প্রয়োগ করি, সমস্যার বিশ্লেষণ করি, যদি প্রায় সব ধরনের ফলাফল নিয়ে ভেবে সঠিক সিদ্ধান্ত নেই তাহলে একটা বিষয় সমাধান করতে একজন মানুষই যথেষ্ট। শেষে ওই একজন মানুষ বাকি সবাইকে বলতে পারে যে আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এ সমস্ত বিষয় বিশ্লেষণ করে। এটা করলে এই ফলাফল আসতে পারে, এটা করলে জনগণ এভাবে ভুগবে। এখন হয়তো লোভনীয়, আরামের বা সুবিধার মনে হচ্ছে কিন্তু এটা পরবর্তীতে আমাদের জাতিকে এইভাবে ক্ষতির সম্মুখীন করতে পারে তাই এইভাবে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি বা নেইনি। এখন আপনাদের সবার মতামত দিন। এই প্রক্রিয়ার ফলে উপস্থিত সবার বিষয়টি সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান আসতে পারে এবং তখন মতামত দিলে সঠিক সিদ্ধান্তও আসতে পারে। তাছাড়া ওই যে ঢাকা শহরের রাস্তা ঘাটের মতো হবে সব। দীর্ঘ তিন বছর ভোগান্তির পর একটা রাস্তা উদ্বোধন হয়, পরের দিন এসে কেউ পানির লাইন, কেউ গ্যাসের লাইন খুঁড়তে শুরু করে, আবার ধুলাবালি, আবার একই কাহিনী। ওটা সিটি করপোরেশনের কাজ, এটা ওয়াশার কাজ, এ সম্পর্কে আমরা অবহিত নই, আমাদের কাছে অফিশিয়াল দিকনির্দেশনা বা আদেশ বা লিখিত অভিযোগ আসলে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব বলবে। নতুন প্রজন্মের ধারণা, গণতন্ত্র হচ্ছে মূর্খ এবং অযোগ্যদের জীবিকা নির্বাহের একটি মাধ্যম মাত্র। এমন হতাশার বার্তা যা সুইডেনের তরুণ প্রজন্মের থেকে ব্যতিক্রম বলে মনে হলো না।

[লেখক : সাবেক পরিচালক, ফাইজার, সুইডেন]

ছবি

ইতিহাসের এক অবিস্মরণীয় নাম

বৈসাবি : ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বর্ষবরণ উৎসব

‘ইন্ডিয়া আউট’ ক্যাম্পেইন

উদার-উদ্দাম বৈশাখ চাই

ঈদ নিয়ে আসুক শান্তি ও সমৃদ্ধি, বিস্তৃত হোক সম্প্রীতি ও সৌহার্দ

প্রসঙ্গ: বিদেশি ঋণ

ছাত্ররাজনীতি কি খারাপ?

জাকাত : বিশ্বের প্রথম সামাজিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা

বাংলাদেশ স্কাউটস দিবস : শুরুর কথা

ছবি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত

প্রবাসীর ঈদ-ভাবনা

বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস

ধানের ফলন বাড়াতে ক্লাইমেট স্মার্ট গুটি ইউরিয়া প্রযুক্তি

কমিশন কিংবা ভিজিটে জমি রেজিস্ট্রির আইনি বিধান ও প্রাসঙ্গিকতা

ছবি

ঈদের অর্থনীতি

পশ্চিমবঙ্গে ভোটের রাজনীতিতে ‘পোস্ট পার্টিশন সিনড্রম’

শিক্ষকের বঞ্চনা, শিক্ষকের বেদনা

নিরাপদ সড়ক কেন চাই

রম্যগদ্য : ‘প্রহরীর সাতশ কোটি টাকা...’

ছবি

অবন্তিকাদের আত্মহনন

শিক্ষাবিষয়ক ভাবনা

অপ্রয়োজনে সিজারিয়ান নয়

পণ্য রপ্তানিতে বৈচিত্র্য আনতে হবে

আত্মহত্যা রোধে নৈতিক শিক্ষা

আউশ ধান : পরিবেশ ও কৃষকবান্ধব ফসল

ছবি

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস

জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আতুড়ঘর

চেক ডিজঅনার মামলার অধিক্ষেত্র ও প্রাসঙ্গিকতা

বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তন ও বাংলাদেশের কৃষি

ছবি

‘হৃৎ কলমের’ পাখি এবং আমাদের জেগে ওঠা

ছবি

ভূগর্ভস্থ পানি সুরক্ষায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ

প্রসঙ্গ : নিত্যপণ্যের দাম

ছবি

টঙ্ক আন্দোলনের কুমুদিনী হাজং

ঢাকাকে বাসযোগ্য করতে চাই বিকেন্দ্রীকরণ

দূষণমুক্ত পানির বিকল্প নাই

রম্যগদ্য : ‘দুনিয়ার বাঙালি এক হও”

tab

উপ-সম্পাদকীয়

গণতন্ত্র কি তাহলে বিদায়ের পথে

রহমান মৃধা

বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

গণতন্ত্রের ভাঙন শুরু হতে চলেছে পশ্চিমা দেশগুলোতে। পশ্চিমের বাইরের অনেক দেশ গণতন্ত্রের স্বাদ পেতে অগণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে বিলীন করতে ডিজিটাল পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে আবেগ ভরা মতামত পোষণ করে চলেছে।

সত্যি হলেও দুঃখের বিষয় যে ডিজিটাল ভালোবাসা যেমন আবেগ এবং বিবেক ছাড়া অকেজো ঠিক গণতন্ত্রের চর্চাও আবেগ এবং বিবেক ছাড়া মূল্যহীন। তবে সুইডেনে ডিজিটাল পদ্ধতিকে কাজে লাগিয়ে এরা ডিজিটাল ইনডেক্স ফোরামের মাধ্যমে পুরো তরুণ প্রজন্মের গণতন্ত্র এবং রাজনীতিবিদদের ওপর গভীর হতাশার বাণী প্রকাশ করেছে। নতুন প্রজন্ম বর্তমান প্রেক্ষাপটের চরম অবনতির জন্য বরং গণতন্ত্র এবং রাজনীতিকে দায়ী করেছে। প্রতিবেদনটি গতকাল গণমাধ্যমসহ দেশের টিভি চ্যানেলের খবরে প্রকাশিত হয়েছে। ঠিক একই খবরে একটি গ্রেনেড-বোমা সুইডেনের উপশালা শহরের গ্রেনবি নামের একটি গ্রামে গতকাল কে বা কারা সেট করে রেখে সম্ভবত পুলিশকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে। এটা টেরোর অ্যাটাক ঘটানোর চেষ্টা কিনা জানিনা তবে পুরো গ্রামসহ সারাদেশে ঘটনাটি ছড়িয়ে পড়েছে। পবিত্র কোরআন পোড়ানো, তুর্কি প্রেসিডেন্টের স্টাচু উপর-নিচু করে ঝোলানো, গণহত্যা , ডাকাতি, গোলাগুলিসহ ভাঙচুর ইদানীং গণতন্ত্রকে আতঙ্কের মধ্যে ফেলেছে। রাজনীতিবিদদের দক্ষতা প্রশ্নের মুখোমুখি, ন্যাটোজোটে সুইডেনের পদার্পণসহ রাশিয়ার হুমকি সুইডেনকে নিয়ে যা তরুণ প্রজন্মকে বেশ উদ্বিগ্নে ফেলেছে। তারপর বেকার সমস্যা এবং সুদের হার বৃদ্ধি সুইডিশ জাতিকে ভাবিয়ে তুলেছে, সব মিলে তরুণ প্রজন্মের রাজনীতিবিদ ও গণতন্ত্রের প্রতি এই অনীহা প্রকাশ।

কয়েকদিন আগে সকালে আমার মেয়ের সঙ্গে একটি কাজে শহরে যেতে ট্রেন স্টেশন এসে দেখি যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে সিডিউল অনুযায়ী যে ট্রেনটি যাওয়ার কথা সেটা ক্যান্সেল করেছে, পরের ট্রেন বিশ মিনিট পরে আসবে। এর ফলে আমাদের মিটিংয়ের যে সময়টি ধার্য করা রয়েছে সেটা সময়মতো ধরতে পারব না, কী করা? জেসিকা দেরি না করে সঙ্গে সঙ্গে ট্যাক্সি কল করলে ট্যাক্সি এসে গেল।

সুইডেনে ইদানীং কয়েক বছর ধরে ট্রেন সিস্টেম সঠিকভাবে সার্ভিস দিতে পারছে না নানা কারণে, প্রচ- শীত বা গরম অথবা যান্ত্রিক সমস্যা যার ফলে যাত্রীরা এটার জন্য বড্ড বিরক্তি পোষণ করে চলেছে দীর্ঘদিন ধরে। এখানে নিয়ম রয়েছে যদি বিশ মিনিটের বেশি যানবাহন লেট করে তবে ট্যাক্সি ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে ঝামেলাও আছে, যেমন কোন ট্রেনে, কখন, কীভাবে এবং কোথায় যাত্রী যাবেসহ নানা ধরনের ফরমাল রুটিন এবং ক্রাইটেরিয়া যদি শতভাগ ফুলফিল দেখানো যায় তবে এ ধরনের সুযোগ ব্যবহার করা যেতে পারে। ঝামেলার কারণে অনেকে এসব এড়িয়ে যেতে চেষ্টা করে।

যাইহোক পথে যেতে বর্তমান সময়ের ওপর জেসিকার সঙ্গে একটু কথা বললাম তার মতামতটি জানতে। মেয়ে আমার মতো বেশি কথা বলে না তবুও জানতে চাইলাম তার মতামত সম্পর্কে। সে শুধু বলল, বাবা চারদিকে যুদ্ধ, তারপর গোটা বিশ্বজুড়ে মানুষে মানুষে ঝগড়া, গণমাধ্যম সব সময় তুলে ধরে বিশ্বের নানা সমস্যা, এসব ঘটনার সঙ্গে নতুন প্রজন্ম জড়িত না অথচ তাদের নজরে এসব ফেলতে গণমাধ্যম তৎপর। কারণ তারা জানে নতুন প্রজন্ম বেশির ভাগ সময় টেলিফোন, টেলিভিশন, বা গণমাধ্যমে বেশি সময় দেয়, যার ফলে যে কোনোভাবে তাদের চেষ্টা প্রভাবটা যেনো তরুণ সমাজে পড়ে এবং এতে করে এই তরুণ সমাজটা দিনে দিনে হতাশায় ভুগছে। ফলস্বরূপ নতুন প্রজন্ম বড়দের তথা সমাজের দায়িত্বশীলদের প্রতি বিশ্বস্ততা হারাচ্ছে সঙ্গে গণতন্ত্রকে প্রশ্নের সম্মুখীন করছে। মেয়ের কথাগুলো মনে ধরল, তাই ট্রেনে ফিরতে পথে ভাবলাম বসেই তো আছি কথাগুলো লিখে ফেলি। বলা তো যায় না কখন কী হয়!

সবকিছুর পরও কেন যেন মনে হচ্ছে গণতন্ত্রের বিদায়ের সময় খুব কাছে, কারণ ক্যাপিটালিজম নতুন প্রজন্মের মনের দরজায় নক করতে শুরু করেছে। জানি না কী অবস্থা বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের? তারাও কি এদের মতো ভাবছে, খুব জানতে ইচ্ছে করল, ঠিক তখনই যোগাযোগ করলাম একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং পড়–য়া এক শিক্ষার্থীর সঙ্গে। তার মতে গণতন্ত্র এবং বর্তমান বাংলাদেশ অনেকটা ফাঁপা কলসির মতো। প্রথম কথা, আমি নিজেই বাংলাদেশের মতো একটি দেশে গণতন্ত্রে বিশ্বাসী না। কারণ নিজের দেশের মানুষকে মূর্খ বলে গালি দিয়ে নিজেকে মূর্খ প্রমাণ করতে চাই না। তবে, ধরেন কোনো একটা সিদ্ধান্ত নিতে ১০০ জন লোককে ভোট প্রয়োগ করতে বলা হলো। এর মাঝে যদি অধিকাংশ ব্যক্তি বিষয়টি সম্পর্কে জ্ঞান রাখেন তাহলে সিদ্ধান্ত যা আসবে সেটা যে সঠিক আসবে সে সম্পর্কে আমরা আত্মবিশ্বাসী হতে পারি। অপরপক্ষে, অধিকাংশই যদি জ্ঞান না রাখে বিষয়টায় তাহলে অধিকাংশের মতামত অনুসরণ করলে ভুল সিদ্ধান্তও আসতে পারে। তাই কোথায় গণতন্ত্র প্রয়োগ করতে হবে সেটাও ভাবতে হবে। আমাদের সমাজে যেখানে নৈতিক মূল্যবোধ, নৈতিক শিক্ষা এমনকি পারিবারিক শিক্ষা পর্যন্তও গায়েব হতে চলেছে, সেখানে গণতন্ত্রের ফলাফল কী রকম আসবে? এজন্য আমি গণতন্ত্রে বিশ্বাসী না। আমরা হোস্টেলে এক রুমে চারজন থাকি, আমি পড়াশোনা করছি, আমার পরীক্ষা খারাপ হলে আমার লেখাপড়া বন্ধ হতে পারে, স্কলারশিপ চলে যেতে পারে। আমার রুমের অন্য তিনজন গণতান্ত্রিক উপায়ে সিদ্ধান্ত নিল আজ তারা গান শুনবে, নাচবে, আড্ডা দেবে। আমি কিছু বলতে পারব না কারণ হতে পারে আমি রুমের সবথেকে ছোট বা বাকি সব একজোট। তারা জিতল তবে এটা কি অ্যারিস্টটলের মতামতের মতো মূর্খের এবং অযোগ্যের শাসনব্যবস্থা নয়?

আমরা মানুষ, আমরা সৃষ্টির সেরা জীব। আমরা সমস্যায় পড়ি এবং সমাধান করি। আমরা যদি সঠিক শিক্ষা, সঠিক জ্ঞান প্রয়োগ করি, সমস্যার বিশ্লেষণ করি, যদি প্রায় সব ধরনের ফলাফল নিয়ে ভেবে সঠিক সিদ্ধান্ত নেই তাহলে একটা বিষয় সমাধান করতে একজন মানুষই যথেষ্ট। শেষে ওই একজন মানুষ বাকি সবাইকে বলতে পারে যে আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এ সমস্ত বিষয় বিশ্লেষণ করে। এটা করলে এই ফলাফল আসতে পারে, এটা করলে জনগণ এভাবে ভুগবে। এখন হয়তো লোভনীয়, আরামের বা সুবিধার মনে হচ্ছে কিন্তু এটা পরবর্তীতে আমাদের জাতিকে এইভাবে ক্ষতির সম্মুখীন করতে পারে তাই এইভাবে আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি বা নেইনি। এখন আপনাদের সবার মতামত দিন। এই প্রক্রিয়ার ফলে উপস্থিত সবার বিষয়টি সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান আসতে পারে এবং তখন মতামত দিলে সঠিক সিদ্ধান্তও আসতে পারে। তাছাড়া ওই যে ঢাকা শহরের রাস্তা ঘাটের মতো হবে সব। দীর্ঘ তিন বছর ভোগান্তির পর একটা রাস্তা উদ্বোধন হয়, পরের দিন এসে কেউ পানির লাইন, কেউ গ্যাসের লাইন খুঁড়তে শুরু করে, আবার ধুলাবালি, আবার একই কাহিনী। ওটা সিটি করপোরেশনের কাজ, এটা ওয়াশার কাজ, এ সম্পর্কে আমরা অবহিত নই, আমাদের কাছে অফিশিয়াল দিকনির্দেশনা বা আদেশ বা লিখিত অভিযোগ আসলে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিব বলবে। নতুন প্রজন্মের ধারণা, গণতন্ত্র হচ্ছে মূর্খ এবং অযোগ্যদের জীবিকা নির্বাহের একটি মাধ্যম মাত্র। এমন হতাশার বার্তা যা সুইডেনের তরুণ প্রজন্মের থেকে ব্যতিক্রম বলে মনে হলো না।

[লেখক : সাবেক পরিচালক, ফাইজার, সুইডেন]

back to top